ভাস্কর্য ও মূর্তির পার্থক্য নিশ্চয়ই বুঝেন

আশরাফুল আলম খোকন

ভাস্কর্য ও মূর্তির পার্থক্য নিশ্চয়ই বুঝেন

আপনার কথা আমাকে কেন শুনতে হবে ? আমরা কি করবো, না করব সেটা বলার অধিকার আপনি কোথায় পেয়েছেন। এই ম্যান্ডেট আপনাকে কে দিয়েছে? কোন ইমামের পিছনে নামাজ পড়ব, কার পিছনে পড়বো না সেই সিদ্ধান্ত নেয়ার মালিকও আমি নিজেই।

আপনাদের অনেক কষ্ট আছে সেটা আমরা জানি। কারণ বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে এদেশের মানুষ আপনাদের পূর্ব পুরুষদের এদেশ থেকে ঝেটিয়ে পাকিস্তান বিদায় করেছিল। তখন এদেশে থেকে যাওয়া তাদের কিছু বীজ, পরবর্তী নেতৃত্বের ভুলে আজ ডালপালা ছড়িয়েছে। সুতরাং বঙ্গবন্ধুর সম্পর্কে ক্ষোভ প্রকাশ করবেন, বিরুদ্ধে বলবেন এটাতো আপনাদের পুরাতন দুঃখ।
 
এই দেশের গতি প্রকৃতি ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে অসাম্প্রদায়িক হবে, এটা ১৯৭১ সালেই নির্ধারিত। তখনই পরাজিত হয়েছেন। হুঙ্কার দিয়ে লাভ নাই। সবাই ঐক্যবদ্ধ হলে পালাবার পথ পাবেন না। মনে রাখবেন, বঙ্গবন্ধু আমাদের হৃদয়ের স্পন্দন, আমাদের আদর্শের মূল স্তম্ভ, আমাদের অস্তিত্বের ঠিকানা। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কথা বললে হিসাব করেই বলা উচিত। বেহিসাবি কথা বললে ফলাফল বেহিসাবিই হবে। 

ধর্ম কর্ম করেন, রাজনীতি করতে আইসেন না। এই দেশে ধর্মের জন্য যা কিছু করেছে বঙ্গবন্ধু আর বঙ্গবন্ধু কন্যাই করেছেন। এইসবের সুবিধা ভোগ করা ছাড়া আপনাদের আর কৃতিত্ব কি ? যদি বিশ্বাস না করেন তাহলে ওপেন ডিবেটে আসেন। দেখি জ্ঞানের দৌড় কত! 

ভাস্কর্য ও মূর্তির পার্থক্য কি তা বুঝার মত শিক্ষা আপনাদের আছে বলেই মনে করি। এই দেশে বসে যেই সব দেশের জিকির করেন সব দেশেই যে ভাস্কর্য আছে তাও আপনারা জানেন। এরপরও এই দেশে বসে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যের কেন বিরোধিতা করেন তাও বুঝি। ওই যে বললাম পুরানা কষ্ট, ৭১ সালে পরাজয়ের প্রতিশোধের স্পৃহা।

আশরাফুল আলম খোকন, প্রধানমন্ত্রীর ডেপুটি প্রেস সেক্রেটারি

news24bd.tv কামরুল

মন্তব্য