মালয়েশিয়া প্রবাসীদের দ্রুত পাসপোর্ট প্রদানে স্মারকলিপি

অনলাইন ডেস্ক

মালয়েশিয়া প্রবাসীদের দ্রুত পাসপোর্ট প্রদানে স্মারকলিপি

মালয়েশিয়ার প্রবাসীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দ্রুত পাসপোর্ট প্রদানের আহ্বান জানিয়েছে মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগ। দেশটিতে বসবাসরত প্রবাসীদের পক্ষে আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক রেজাউল করিম রেজা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবর একটি স্মারকলিপি প্রদান করেন।

রোববার (২৯ নভেম্বর) দুপুরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান কামালের সঙ্গে দেখা করে এ স্মারকলিপি প্রদান করেন তিনি।

স্মারকলিপি প্রদানের সময় আহবায়ক রেজাউল করিম রেজার সঙ্গে ছিলেন- মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য আব্দুল করিম ও অ্যাডভোকেট মিনহাজ উদ্দিন মিরান।

স্মারকলিপিতে বলা হয়েছে, মালয়েশিয়া সরকার সেদেশে অবস্থানরত অবৈধ অভিবাসীদের বৈধকরণের সুযোগ দিয়েছে। শর্ত দিয়েছে পাসপোর্টের মেয়াদ ১৮ মাস থাকতে হবে। মালয়েশিয়াতে এই মুহূর্তে ২ থেকে ৩ লাখ বাংলাদেশি অবৈধভাবে বসবাস করছেন। তাদের বৈধ ভিসার ক্ষেত্রে পাসপোর্টের প্রয়োজন। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ হাইকমিশনের মাধ্যমে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক পাসপোর্ট আবেদন ইতোমধ্যে জমা পড়েছে। দুঃখজনক হলেও সত্য, অন্যান্য দেশ যেমন ইন্দোনেশিয়া, নেপাল, মিয়ানমার, পাকিস্তান, ভারত হাইকমিশন তাদের নাগরিকদের ৩ থেকে ৭ কর্মদিবসের মধ্যে পাসপোর্ট প্রদান করছেন। সেখানে বাংলাদেশ হাইকমিশন ২ থেকে ৩ মাস সময় নিচ্ছে।

প্রবাসীদের বৈধ হওয়ার জন্য ৬ মাসের সময়সীমা বেঁধে দিয়েছে মালয়েশিয়া সরকার। এ অবস্থায় পাসপোর্ট পেতে দেরি হলে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বাংলাদেশি বৈধ হতে ব্যর্থ হবেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ যেহেতু জনগণের দল সেই দলের আহ্বায়ক হিসেবে এবং বাংলাদেশ কমিউনিটির পক্ষ হয়ে প্রবাসীদের স্বার্থে ৭ থেকে ১০ কর্মদিবসের মধ্যে পাসপোর্ট প্রদানের ব্যবস্থা করে মালয়েশিয়াতে বসবাসরত অবৈধ অভিবাসীদের রিক্যালিব্রেশন কর্মসূচিতে বৈধ হওয়ার প্রক্রিয়াকে প্রসারিত করতে আহ্বান জানান তিনি।

শিশুটিকে হত্যার পর বিভিন্ন অঙ্গ কেটে এসিডে ঝলসে দেওয়া হয়

ইতোমধ্যে পাসপোর্টের জন্য যারা আবেদন করেছেন তাদের পাসপোর্ট অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্রদান করলে তারা এবং দেশ উভয়ের উপকৃত হবে এবং অবৈধ অভিবাসী বৈধ হয়ে রেমিট্যান্স পাঠিয়ে দেশকে উপকৃত করবেন বলে রেজাউল করিম রেজা স্মারকলিপিতে উল্লেখ করেন।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

লেবানন বিএনপির ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত

অনলাইন ডেস্ক

লেবানন বিএনপির ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত

লেবানন বিএনপির কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক কমিটির উদ্যোগে ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় প্রধান আহ্বায়ক আমীর হোসেন কলিমের সভাপিতত্বে ও সাবেক সভাপতি নজরুল ইসলাম মজুমদার এবং আহ্বায়ক সদস্য আমিনুল ইসলাম আইমানের যৌথভাবে সঞ্চালনা করেন।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা, সাবেক চিপ হুইপ জয়নাল আবেদীন ফারুক। বিশেষ অতিথি ছিলেন অনুষ্ঠানের প্রধান বক্তা বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য ড. নিলুফার চৌধুরী মনি, বিএনপির সহ-জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, শ্রমিক দলের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক এস এম সাইফুল আলম, ঢাকা জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি রুবেল তালুকদার প্রমুখ।

আরও পড়ুন:


বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় কেটে ফেলা হল কিষানীর তিন হাজার গাছ

তামিমার পাসপোর্ট আসল কিনা মুখ খুললেন নাসিরের সাবেক প্রেমিকা

একসাথে রাম চরণ ও কোরিয়ান নায়িকা সুজি!

রাজধানীর যেসব এলাকায় গ্যাস থাকবে না আজ


এছাড়া সভামঞ্চে উপস্থিত ছিলেন লেবানন বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুল কাদের ভূইয়া, সদস্য সচিব হাবিবুর রহমান হাবিব, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মুজিবল হক মুজিব, আহ্বায়ক সদস্য জাকির হোসেন জাকির, আবুবক্কর সিদ্দিক, আরমান হোসেন আমান, জসিম উদ্দীন, উপদেষ্টা সদস্য মনির হোসেন সরকার, লেবানন মহিলা দলের সভাপতি সুলতানা নুরসহ অনেকে।

এতে আরও অংশ নেন  বিএনপির লেবানন আহ্বায়ক কমিটির সব সদস্যসহ বিভিন্ন দেশের প্রবাসী নেতারা। 

প্রধান অতিথির বক্তবে জয়নাল আবেদিন ফারুক লেবানন বিএনপির নেতাদের ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করতে আহ্বান করেন। জিয়াউর রহমানের বীর উত্তম খেতাব বাতিলের প্রস্তাবে সরকারের তীব্র সমালোচনা করেন। এছাড়া বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান বক্তারা।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদের মৃত্যুতে ‘লুটেরা রুখো স্বদেশ বাঁচাও’আন্দোলনের শোক

লায়লা নুসরাত, কানাডা

  খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদের মৃত্যুতে ‘লুটেরা রুখো স্বদেশ বাঁচাও’আন্দোলনের শোক

বিশিষ্ট ব্যাংকার এবং বাংলাদেশের আর্থিকখাত বিশেষজ্ঞ খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদের মৃত্যুতে কানাডাভিত্তিক অর্থ পাচার ও লুটেরা বিরোধী আন্দোলন- ‘লুটেরা রুখো স্বদেশ বাঁচাও’গভীর শোক প্রকাশ করছে। 

বাংলাদেশের আর্থিকখাতের অনাচার, দুরাচার নিয়ে যে কয়জন স্বোচ্চার ছিলেন তার মধ্যে খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ অন্যতম। ঋণখেলাপীদের বিরুদ্ধে, ব্যাংকিং খাতের সুশাসনের পক্ষে, শেয়ারবাজারের কারসাজির বিরুদ্ধে ও অর্থপাচারের বিরুদ্ধে তিনি ছিলেন অকুতোভয় যোদ্ধা। 


যে শর্ত মানলে ইরানের পরমাণু স্থাপনা পরিদর্শনের সুযোগ পাবে আইএইএ

যে সূরা নিয়মিত পাঠ করলে কখনই দরিদ্রতা স্পর্শ করবে না

বঙ্গবন্ধুর খুনিকে ফেরত চেয়ে যুক্তরাষ্ট্রকে আবারও অনুরোধ

নিউজিল্যান্ডে পৌঁছেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল


খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ ছিলেন অর্থ পাচার ও লুটেরা বিরোধী সত্যবচনে আপসহীন।‘লুটেরা রুখো স্বদেশ বাঁচাও’ তাঁকে ও তাঁর ভূমিকা শ্রদ্ধাভরে স্মরণ রাখবে।

news24bd.tv আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বাংলার ছেলে কাতার প্রবাসী জালালের সফলতা

অনলাইন ডেস্ক

বাংলার ছেলে কাতার প্রবাসী জালালের সফলতা

মধ্যপ্রাচ্যের তেল সমৃদ্ধ সম্ভাবনাময় দেশ কাতারে অনেক সংখ্যক বাংলাদেশি আছেন। কেউ ব্যবসা আবার কেউ চাকরি করছেন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে।

দেশটিতে বর্তমানে কর্মরত আছেন চার লাখের বেশি প্রবাসী বাংলাদেশি। এদের অনেকেই ব্যবসা-বাণিজ্যসহ বিভিন্ন খাতে সুনামের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছেন।

কাতারে বসবাসরত রেসিডেন্সধারী বাংলাদেশি প্রবাসী জালাল আহমেদ সিআইপি, তিনি দীর্ঘদিন কাতারে সুনামের সাথে ব্যবসা করে যাচ্ছেন। তিনি কাতার থেকে বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স প্রেরণ করে বাংলাদেশ সরকারের কাছ থেকে সিআইপিও নির্বাচিত হয়েছেন। 

বাংলাদেশের চাঁদপুর ফরিদগঞ্জ উপজেলার এ কৃতী সন্তান কাতারে স্থায়ী বসবাসের একমাত্র রেসিডেন্সি পাওয়া বাংলাদেশি ব্যক্তি, কাতার সরকার একমাত্র বাংলাদেশি হিসেবে জালাল আহমেদকে স্থায়ীভাবে বসবাসের অনুমতি দিয়েছে দেশটিতে।

কাতার প্রবাসী মোহাম্মদ জালাল আহমেদ সিআইপি, চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলা পৌর এলাকার মিয়াজি বাড়ীর হাজী আব্দুর রশিদ মিয়াজির বড় ছেলে, তিনি কাতারে গোল্ডেন মার্বেল কোম্পানির কর্ণধার। জালাল আহমেদ ২ ভাই ৫ বোনের মধ্যে প্রথম তিনি, তার এক বোন মাজেদা বেগম বর্তমানে ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের দায়িত্বে আছেন। জালাল আহমেদ তিন মেয়ে আর এক পুত্রের জনক বর্তমানে সবাই সপরিবারে কাতারে থাকেন।

কঠোর পরিশ্রম আর মেধা দিয়ে কাতারে গড়ে তুলছেন গোল্ডেন মার্বেল কোম্পানি, গোল্ডেন মার্বেল কোম্পানি কাতারে মধ্যেই এক নাম্বার কোম্পানি।

নিজ জন্মস্থান চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ থানার মানুষকেও কাতারে এনে স্বাবলম্বী করেছেন। পরিবারের অনেক সদস্য বর্তমানে কাতারে রয়েছেন তার। 

প্রায় ৩২ বছরের কাতারের প্রবাস জীবনে সুনামের সঙ্গে প্রতিষ্ঠিত এ ব্যবসায়ী সফলভাবে ব্যবসা করে যাচ্ছেন। কাতারে তার মালিকানাধীন চারটি মার্বেল পাথরের কারখানা রয়েছে, এছাড়া বাংলাদেশের খুলনার মোংলায় তার একটি মার্বেল ফ্যাক্টরি রয়েছে।

আরও পড়ুন:


দলের শৃঙ্খলা কেউ নষ্ট করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে: কাদের

লিবিয়া থেকে ফিরলেন ১৪৮ বাংলাদেশি, সঙ্গে ৭ মরদেহ

ঠাকুরগাঁওয়ে আবারও বিরল প্রজাতির নীলগাই উদ্ধার

খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক


জালাল আহমেদ বলেন, কাতারে বাংলাদেশিদের ব্যবসায়িক সাফল্যের জন্য বেশি করে পরিশ্রম করতে হবে, এখানে অর্থ অপচয়ের প্রচুর জায়গা রয়েছে, এসব জায়গায় থেকে নিজেদের দূরে রাখতে হবে, কাজকেই বেশি প্রাধান্য দিতে হবে। মনে রাখতে হবে, আমরা এখানে কাজ করতে এসেছি আর কাজ করে অর্থ উপার্জন করতে এসেছি। 

এই সফল প্রবাসী আরও বলেন, কাতারে বাংলাদেশিদের ছোট ছোট অনেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছেন। আমার কাছে যারা আসে আমি সবাইকে সবসময় উৎসাহ দেই। বলি আরো বড় হতে হবে, কাতারে প্রচুর কাজ রয়েছে, কাজের জন্য সবসময় চেষ্টায় থাকতে হবে নিজের ভিতর।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মালায়েশিয়ায় মানব কঙ্কাল উদ্ধার করেছে দুই বাংলাদেশি

অনলাইন ডেস্ক

মালায়েশিয়ায় মানব কঙ্কাল উদ্ধার করেছে দুই বাংলাদেশি

মালায়েশিয়ায় এক খামার থেকে মানব কঙ্কাল উদ্ধার করেছে দুই বাংলাদেশি নাগরিক। রোববার দেশটির রাজধানী কুয়ালালামপুরের জালান কেরাউংয়ের একটি খামারে কাজ করার সময় দুই বাংলাদেশি শ্রমিক কঙ্কালটি দেখতে পান। পরে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে কঙ্কালটি উদ্ধার করে।

পুলিশ জানায়, খবর পেয়ে সেখান থেকে দেহবশেষ ও তিন ফুট দূরে মাথার খুলি পাওয়া গেছে। এসময় কঙ্কালের পাশে ‘সেভেন সেন্ট’ লেখা একটি লাল টি-শার্ট উদ্ধার করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:


বার্মিংহামে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল বাংলাদেশি দম্পতির

বিমান বহরে যুক্ত হচ্ছে নতুন ড্যাশ-৮ মডেলের উড়োজাহাজ

খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না নাসির-তামিমাকে

সৈয়দ আবুল মকসুদের জানাজা ও দাফন আজ


তবে, ঘটনাস্থলের আশেপাশের এলাকায় ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরা অথবা সিকিউরিটি গার্ড না থাকায় ফরেনসিক ইউনিটের কর্মী, গোয়েন্দা কুকুর ইউনিট এবং কুয়ালালামপুর হাসপাতালের প্যাথলজিস্টরাও ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করেন। এই ঘটনায় নিহত ব্যক্তির শনাক্তকরণের প্রক্রিয়াতে রয়েছে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বার্মিংহামে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল বাংলাদেশি দম্পতির

অনলাইন ডেস্ক

বার্মিংহামে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল বাংলাদেশি দম্পতির

যুক্তরাজ্যের বার্মিংহামে প্রাইভেটকার ও মোটরসাইকেল সংঘর্ষে  বাংলাদেশি দম্পতি নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) রেডিস বার্মিংহাম মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- আবদুর রহমান মুয়িম (৪৮) ও তার স্ত্রী পাপিয়া বেগম (৩৮)। তারা ১৯৯৩ সাল থেকে বার্মিংহামে স্থায়ীভাবে বসবাস করছিলেন। আবদুর রহমান সেখানে ব্যবসা করতেন।

নিহত আবদুর রহমান মুয়িম মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার মনসুরনগর ইউনিয়নের বিনয়শ্রী গ্রামের বাসিন্দা। তার স্ত্রীর বাবার বাড়ি সদর উপজেলার মনুমুখ ইউনিয়নের বাজরাকোনা গ্রামে।

আরও পড়ুন:


বিমান বহরে যুক্ত হচ্ছে নতুন ড্যাশ-৮ মডেলের উড়োজাহাজ

খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না নাসির-তামিমাকে

সৈয়দ আবুল মকসুদের জানাজা ও দাফন আজ

আবুল মকসুদ ছিলেন নির্ভীক, নির্লোভ মানুষ: তসলিমা নাসরিন


স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, রেডিস বার্মিংহাম মহাসড়কে তিনটি প্রাইভেটকার ও মোটরসাইকেলের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে পাপিয়া বেগম ঘটনাস্থলেই মারা যান। তার স্বামী আব্দুর রহমান মুয়িমকে গুরুতর আহত অবস্থায় নিকটস্থ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

নিহত দম্পতির ঘনিষ্ঠ প্রবাসী বাংলাদেশিরা জানান, আবদুর রহমান ও পাপিয়া মঙ্গলবার একটি বাড়িতে খাবার দিতে গিয়েছিলেন। সেখান থেকে বাসায় ফেরার পথে দুর্ঘটনার শিকার হন। তাদের এক ছেলে ও তিন মেয়ে রয়েছে। এই দম্পতির মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনায় আত্মীয়স্বজন ও বাংলাদেশি কমিউনিটির সদস্যদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর