পরকীয়া প্রেমিককে পেতে তিন সন্তানের মুখে বিষ তুলে দেন মা!

অনলাইন ডেস্ক

প্রিন্ট করুন printer
পরকীয়া প্রেমিককে পেতে তিন সন্তানের মুখে বিষ তুলে দেন মা!

ছবি: সংগৃহীত

পরকীয়া প্রেমিকের সঙ্গে নতুন করে ঘর বাঁধতে চেয়েছিলেন ফাহিমা খাতুন। কিন্তু বাধা হয়ে দাঁড়ায় তিন শিশু সন্তান। তাই বিষ খাইয়ে সন্তানদের হত্যা করে সেই পথ পরিস্কার করতে চেয়েছিলেন ফাহিমা। 

জুসের সঙ্গে তিন সন্তানকে বিষপান করানোর পর একটি শিশু মারা গেছে। বাকি দুজন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। মর্মান্তিক এই ঘটনা ঘটেছে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার রাজিউড়া ইউনিয়নের উচাইল-চারিনাও গ্রামে।

আরও পড়ুন: 


বুলেট ট্রেনে ঢাকা থেকে চট্টগ্রামে যাওয়া যাবে ৫৫ মিনিটেই!

সুখবর আসছে ১১ থেকে ১৬ গ্রেডের কর্মচারীদের জন্য


মঙ্গলবার (০১ ডিসেম্বর) হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলামের আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন ফাহিমা খাতুন। 

আদালতে স্বীকারোক্তি প্রদান শেষে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। একইদিন রাতে নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ রবিউল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, দীর্ঘদিন ধরে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার রাজিউড়া ইউনিয়নের উচাইল-চারিনাও গ্রামের ইজিবাইক চালক সিরাজুল ইসলামের স্ত্রী ফাহিমা খাতুনের সঙ্গে পাশের বাড়ির আক্তার মিয়ার পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। এক পর্যায়ে তারা ঘর বাঁধার স্বপ্ন দেখেন। কিন্তু এতে বাধা হয়ে দাঁড়ায় ফাহিমার ৩ সন্তান।

১৮ নভেম্বর সন্ধ্যায় বাড়ির পাশের দোকান থেকে ফাহিমা ২টি লিচুর জুস কিনে এনে প্রেমিক আক্তার মিয়ার হাতে দেন। আক্তার মিয়া জুসে বিষ মেশান। পরে আক্তার মিয়া ও ফাহিমা খাতুন ৩ সন্তানকে উঠান থেকে ডেকে এনে জুস খাওয়ান। জুস খাওয়ার পরই বিষক্রিয়ায় ফাহিমার ৩ শিশু সন্তান ছটফট করতে থাকে।

পরে এলাকাবাসীর সহায়তায় ৩ শিশুকে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে গেলে ৭ বছরের মেয়ে সাথী আক্তারকে মৃত ঘোষণা করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। অপর দুই সন্তান তোফাজ্জল ইসলাম ও রবিউল ইসলাম সিলেট ওসমানি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়ার পর সুস্থ হয়।

এরপরই ফাহিমা ও আক্তারের পরকীয়া প্রেমের বিষয়টি প্রকাশ পায়। এ ঘটনায় ফাহিমার স্বামী সিরাজুল ইসলাম বাদী হয়ে স্ত্রী ফাহিমাসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে আদালতে হত্যা মামলা দায়ের করেন।

news24bd.tv কামরুল

মন্তব্য