হযরত ইদ্রিস (আঃ)-এর সখের মৃত্যু ও বেহেশতে গমন

অনলাইন ডেস্ক

প্রিন্ট করুন printer
হযরত ইদ্রিস (আঃ)-এর সখের মৃত্যু ও বেহেশতে গমন

এক আগন্তুক ব্যক্তি তিনদিন পর্যন্ত হযরত ইদ্রিস (আঃ) এর সহচর্যে থাকলেন। তার আচরণাদি লক্ষ্য করে হযরত ইদ্রিস (আঃ)-এর মনে সন্দেহের উদ্রেক হলো যে, এ ব্যক্তি নিশ্চয় কোন মানুষ নয়। অতএব তিনি বললেন, আল্লাহর কসম আপনি আপনার প্রকৃত পরিচয়টা বলুন। আগন্তুক বলল, আমি কোন মানুষ নয়। আমি একজন ফেরেশতা। আমার নাম মালাকুল-মওত আজরাঈল (আঃ)।

হযরত ইদ্রিস (আঃ) বললেন, আপনিই কি দুনিয়ার যাবতীয় প্রাণীর জান কবজ করিয়া থাকেন? মালাকুল-মওত বললেন, হ্যাঁ। হযরত ইদ্রিস (আঃ) তাকে আবারও জিজ্ঞাসা করলেন, তবে মনে হয় আপনি আমার জান কবজ করতেই এসেছেন।

মালাকুল-মওত বললেন, না, আপনার সাথে ভ্রাতৃত্ব স্থাপন করতে এসেছি। আমার একান্ত বাসনা আপনিও আমার এ প্রস্তাবে রাজী হবেন’।

হযরত ইদ্রিস (আঃ) বললেন, আমি আপনার সাথে এক শর্তে ভ্রাতৃত্ব স্থাপন করতে রাজী যদি আপনি আমাকে একবার মৃত্যুর অবস্থাটা উপভোগ করান। যদি আপনি আমাকে এখনই একবার মৃত্যুর অবস্থাটা উপভোগ করান তাহলে আমার অনেক উপকার হতো। মৃত্যুর ভয়ে আমি বেশি করে আল্লাহর ইবাদত করতে পারতাম।

মালাকুল-মওত বললেন, আল্লাহর অনুমতি ছাড়া আমি একাজ করতে পারিনা। আল্লাহ এখনো আপনার জান কবজ করার হুকুম আমাকে দেননি। হযরত ইদ্রিস (আঃ) বললেন, আপনি আল্লাহর নিকট হতে অনুমতি চেয়ে নিন।

মালাকুল-মওত আল্লাহর নিকট অনুমতি প্রার্থনা করলে আল্লাহ তাঁকে অনুমতি দেন। অনুমতি পেয়ে মালাকুল-মওত হযরত ইদ্রিস (আঃ) এর জান কবজ করলেন। জান কবজ করার পর মালাকুল-মওত আজরাঈল (আঃ) পুনঃরায় আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করলেন হযরত ইদ্রিস (আঃ) এর জান ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য। আল্লাহ তাঁর প্রার্থনা কবুল করলেন।

অতঃপর ফেরেশতা আজরাঈল (আঃ) হযরত ইদ্রিস (আঃ) কে জিজ্ঞাসা করলেন, ভাই ইদ্রিস! জান কবজ করার সময় আপনার কেমন অনুভূতি হয়েছিল? হযরত ইদ্রিস (আঃ) বললেন, কোন জীবিত প্রাণীর শরীরের চামড়া মাথা হতে পা পর্যন্ত খসে তুলে ফেললে প্রাণীটির যে রূপ কষ্ট হয় আমারও তেমনই কষ্ট হয়েছে।

মালাকুল-মওত বললেন, ভাই ইদ্রিস! আমি আজ পর্যন্ত যত জান কবজ করেছি এত সহজে কারো জান কবজ করিনি।

কৌশলে বেহেশতে গমন: হযরত ইদ্রিস (আঃ) হযরত আজরাঈল (আঃ) কে বললেন, আমার মনে দোজখ দেখার খুব স্বাদ জেগেছে। যদি আপনি আমাকে দোজখ দেখাতেন তবে আমি দোজখের ভয়ে ইবাদত-বন্দেগীতে আরও বেশি মনোযোগী হতে পারতাম।

মালাকুল-মওত তাঁকে দোজখ দেখাতে দোজখের দরজায় নিয়ে গেলেন। তিনি দোজখ দেখার পর বললেন, ভাই আজরাঈল! আমার মনে বেহেশত দেখার বড়ই স্বাদ জেগেছে। যদি আপনি আমার এই স্বাদটি পূর্ণ করতেন তাহলে আপনার প্রতি চিরকৃতজ্ঞ থাকতাম।

মালাকুল-মওত বললেন, যদি আপনি আমাকে কথা দেন যে বেহেশত দেখেই আপনি আমার নিকট ফিরে আসবেন তাহলে আমি আপনাকে বেহেশত দেখাতে পারি।


আরও পড়ুন: ঘুমানোর আগে ও পরে যে দোয়া পড়তেন বিশ্বনবী


হযরত ইদ্রিস (আঃ) তাতে রাজী হলে মালাকুল-মওত তাঁকে বেহেশত দেখাতে নিয়ে গেল। বেহেশতের দরজায় আসলে হযরত ইদ্রিস (আঃ) তাঁর পায়ের জুতা খুলে বেহেশতে প্রবেশ করলেন। তিনি কিছু সময় বেহেশতে ঘুরাফেরা করলেন। এরপর তিনি মালাকুল-মওতের কাছে ফিরে এসে নিজের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করলেন। পরক্ষণেই তিনি এক দৌঁড়ে আবার বেহেশতে ঢুকে গেলেন। মালাকুল-মওত তাঁকে ডেকে বলল, ভাই ইদ্রিস! আপনি আবার বেহেশতে ঢুকলেন কেন? তাড়াতাড়ি বেরিয়ে আসুন। আমি আপনাকে আবার পৃথিবীতে পৌঁছে দেব।

হযরত ইদরিস (আঃ) বেহেশতের ভিতর থেকে জবাব দিলেন, ভাই আজরাঈল! আল্লাহ তাআলা এরশাদ করেছেন - প্রত্যেক প্রাণীই একবার মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করবে এবং একবার দোজখ না দেখে কেউ বেহেশতে যেতে পারবেনা। আমি তো একবার মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করলাম এবং দোজখও দেখলাম। তারপর বেহেশত হতে বের হয়ে আপনাকে দেওয়া প্রতিশ্রুতিও রক্ষা করলাম। অতএব এখন আমি আর বেহেশত হতে বের হবো না। আপনি আপনার কাজে চলে যেতে পারেন।

মালাকুল-মওত হযরত ইদ্রিস (আঃ) এর জবাব শুনে কর্তব্য স্থির করতে না পেরে দাঁড়িয়ে রইলেন। আল্লাহ তা’আলা তখন হযরত আজরাঈল (আঃ) কে লক্ষ্য করে বললেন, আজরাঈল! ইদ্রিসকে বেহেশতে থাকতে দাও। তাঁর ভাগ্যে আমি এরূপ ঘটনায় লিপিবদ্ধ করে রেখেছিলাম। অতঃপর হযরত ইদ্রিস (আঃ) মহাসুখে বেহেশতে বসবাস করতে লাগলেন।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য