ভাষ্কর্য ভাঙচুর: সিসিটিভির ছবি দেখে দুইজনকে চিহ্নিত

অনলাইন ডেস্ক

ভাষ্কর্য ভাঙচুর: সিসিটিভির ছবি দেখে দুইজনকে চিহ্নিত

কুষ্টিয়ায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্মাণাধীন ভাষ্কর্য ভাঙচুরের ঘটনায় সিসিটিভি’র ফুটেজ দেখে দুইজনকে চিহ্নিত করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। পুলিশের একটি সূত্র বলছে ঘটনায় জড়িত দুইজনই শহরের একটি মাদ্রাসার ছাত্র। 

আজ রবিবার দুপুরে কুষ্টিয়া পুলিশ সুপার প্রেস ব্রিফ্রিং করে বিস্তারিত জানাবেন। 

সিসিটিভি’র ফুটেজে দেখা যায়, শুক্রবার রাত ২টা ১৬ মিনিটে দুই যুবক মই বেয়ে নির্মাণাধীন ভাষ্কর্যের ওপর উঠে শক্ত কিছু দিয়ে ভাস্কর্য ভাঙচুর করছে। কয়েক সেকেন্ড ভাংচুর শেষে তারা মই বেড়ে নিচে নেমে নির্বিঘ্নে চলে যায়। 

এদিকে বঙ্গবন্ধু ভাস্কর্য ভাঙচুরের ঘটনার পর কুষ্টিয়া শহরে জেলা বিএনপি কার্যালয়ে দফায় দফায় ভাঙচুর ও জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ সোহরাব উদ্দিনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা-ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। হামলার ছবি তুলতে গিয়ে দুই গণমাধ্যমকর্মী গুরুতর আহত হয়েছেন। তাদেরকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

অন্যদিকে, বঙ্গবন্ধু ভাস্কর্য ভাঙচুরসহ কুষ্টিয়া শহরে বেশকিছু অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটে যাওয়ায় জেলা শহরে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। 

কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার এসএম তানভির আরাফাত জানান, সিসিটিভির ফুটেজ দেখে ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করা হয়েছে। অল্প সময়ের মধ্যে ভাল খবর দেয়া যাবে। সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন

আরও পড়ুন:


সিটিভির ফুটেজে ধরা পড়ল বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙচুরের সেই ঘটনা

আপনার উদ্বেগের সঙ্গে সুর মেলাতে পারছি না

ভারতের তৈরি টিকা নিয়ে করোনায় আক্রান্ত স্বাস্থ্যমন্ত্রী!

যে সময় দোয়া পড়লে দ্রুত কবুল হয়

যে দোয়া পড়লে কখনো বিফলে যায় না!

কঠিন বিপদ থেকে রক্ষা পেতে যে দোয়া পড়বেন!


news24bd.tv কামরুল

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

দেশে করোনার সর্বশেষ মৃত্যু-শনাক্তের তথ্য

অনলাইন ডেস্ক

দেশে করোনার সর্বশেষ মৃত্যু-শনাক্তের তথ্য

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে নতুন  করে আরও ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এই সময়ে ভাইরাসটিতে নতুন আক্রান্ত হয়েছেন আরও ৪১০ জন।

বৃহস্পতিবার বিকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এক বিজ্ঞপ্তিতে দেশে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির সর্বশেষ এ তথ্য জানিয়েছে।


হাতে নেই ছবি, তবুও বিলাসবহুল জীবনযাপন?

হৃদরোগে মৃত্যুর পরও ফাঁসিতে ঝুলানো হল নিথর দেহ

টিকা নেয়ার ১২ দিন পর করোনায় আক্রান্ত ত্রাণ সচিব

যমজ ভাই অস্ত্রোপচার করে পরিণত হলেন যমজ বোনে


বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন ৫ জনকে নিয়ে এ পর্যন্ত করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন মোট ৮ হাজার ৩৮৪ জন। এই সময়ে নতুন ৪১০ জনকে নিয়ে দেশে এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন মোট ৫ লাখ ৪৪ হাজার ৯৫৪ জন। 

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় বাসা ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আরও ৯৫৭ জন রোগী সুস্থ হয়েছেন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মোট ৪ লাখ ৯৪ হাজার ৯৫৫ জন করোনা রোগী সুস্থ হয়ে উঠলেন।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

টিকা নেয়ার ১২ দিন পর ত্রাণ সচিবের করোনা শনাক্ত

অনলাইন ডেস্ক

টিকা নেয়ার ১২ দিন পর ত্রাণ সচিবের করোনা শনাক্ত

দেশে গণ টিকাদান কর্মসূচি শুরু হওয়ার পর এখন পর্যন্ত টিকা নিয়েছেন ২৬ লাখের বেশি মানুষ। এর মধ্যে অল্প মানুষের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার খবরও পাওয়া গেছে। তবে টিকা নেয়ার পর কারও করোনা শনাক্ত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি এতোদিনে। এই প্রথমবারের মতো একটি খবর পাওয়া গেলো যে করোনার টিকা নেয়ার পর শনাক্ত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

টিকা নেয়ার ১২ দিন পর করোনা শনাক্ত হয়েছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোহসীনের। বর্তমানে তিনি রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, টিকা নেওয়ার দিন চারেকের মধ্যে মো. মোহসীনের মধ্যে করোনার কিছু উপসর্গ দেখা দিয়েছিল। স্বজনরা মনে করছেন, খুব সম্ভবত টিকা নেওয়ার আগেই সংক্রমণ ঘটেছিল, উপসর্গ স্পষ্ট হয়েছে টিকা নেওয়ার পর। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরাও একই ধরনের অভিমত দিয়ে বলছেন, তিনি আগেই আক্রান্ত হয়ে থাকবেন। তারা এও বলছেন,  টিকা  নেওয়ার মুহূর্ত থেকেই সংক্রমণ প্রতিরোধের শক্তি দেহে তৈরি হয় না; এ জন্য কয়েকদিন সময় লাগে।


হাতে নেই ছবি, তবুও বিলাসবহুল জীবনযাপন?

হৃদরোগে মৃত্যুর পরও ফাঁসিতে ঝুলানো হল নিথর দেহ

টিকা নেয়ার ১২ দিন পর করোনায় আক্রান্ত ত্রাণ সচিব

যমজ ভাই অস্ত্রোপচার করে পরিণত হলেন যমজ বোনে


এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য অফিসার মো. সেলিম হোসেন গণমাধ্যমকে জানান, সচিব স্যার অসুস্থবোধ করলে ১৮ই ফেব্রুয়ারি করোনার পরীক্ষার নমুনা দেন। এরপর ১৯শে ফেব্রুয়ারি করোনা পজেটিভ হওয়ার খবর আসে। ৭ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে তিনি টিকা নিয়েছিলেন। বর্তমানে তার সামান্য কাশি আছে। জ্বর নেই। শরীরটা একটু দুর্বল।

টিকা নেয়ার পর করোনায় শনাক্ত হওয়ার ব্যাপারে দেশের বিশিষ্ট ভাইরোলজিস্ট, 'বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ডা. নজরুল ইসলাম বলেন, ভাইরাসটির শক্তিকালীন সময় ১৫ দিন। এর আগেই তিনি সংক্রমিত হয়ে থাকতে পারেন। তিনি হয়তো টের পাননি। তার লক্ষণ প্রকাশ পায়নি। কিন্তু তিনি সংক্রমিত হয়েছেন।'

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার সাবেক পরিচালক অধ্যাপক ডা. বেনজির আহমেদ এ ব্যাপারে বলেন, বিষয়টি এ রকম যে আমরা টিকা দিলে করোনার প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে। টিকার একটি কার্যকর সময় আছে। ৭ দিন পর অ্যান্টিবডি তৈরি শুরু হয়। তারমানে এমন নয় যে করোনা হবে না। ধীরে ধীরে অ্যান্টিবডি বৃদ্ধি পাবে। সুরক্ষা দেবে।

তিনি বলেন, করোনার টিকার প্রথম ডোজ দেয়ার ৮ সপ্তাহ পর দ্বিতীয় ডোজ। তখন দেখা যাবে ৭০ থেকে ৮০ ভাগ ক্ষেত্রে তার এ সংক্রমণটা হবে না। তিনি তো এখনো দ্বিতীয় ডোজ নেননি। তার সুরক্ষা হয়নি।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বলে সততার সঙ্গে কাজ করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বলে সততার সঙ্গে কাজ করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, দেশের মর্যাদা রক্ষায় সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করতে হবে। বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ মেরিন একাডেমি চট্টগ্রাম ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠিত ৫৫তম ব্যাচের ক্যাডেটদের মুজিববর্ষ গ্র্যাজুয়েশন প্যারেডে-অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী জানান, ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষেত্রে নৌপথ গুরুত্বপূর্ণ। তাই এই চ্যালেঞ্জিং ক্ষেত্রে কাজ করতে সবোর্চ্চ পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালনে মেরিড ক্যাডেটদের প্রতি আহ্বান জানান সরকারপ্রধান।

দেশনেত্রী বলেন, ‘বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হবে। প্রতিযোগিতাময় বিশ্ব - কাজেই সেই বিশ্বে চলতে হলে আমাদের সর্বোচ্চ শিক্ষা প্রয়োজন। আর সেভাবেই ট্রেনিং নিতে হবে। সেই সুযোগটা আমরা সৃষ্টি করে দিচ্ছি। আমরা আশা করব, যাঁরা আজ ট্রেনিং পেয়ে কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ করবেন, তাঁরা যে দেশে যাবেন, সেখানে আমাদের সভ্যতা, আমাদের সংস্কৃতিও আদান-প্রদান করতে পারবেন। এবং অন্য জায়গা থেকেও ভালো কিছু নিয়ে আসতে পারবেন। নিজ দায়িত্ব, সততা, দক্ষতা ও কর্তব্য নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করতে হবে, যাতে বিদেশে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হয়।’

আরও পড়ুন:


জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থগিত পরীক্ষার নতুন সূচি ঘোষণা

লেবানন বিএনপির ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত

বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় কেটে ফেলা হল কিষানীর তিন হাজার গাছ

তামিমার পাসপোর্ট আসল কিনা মুখ খুললেন নাসিরের সাবেক প্রেমিকা


প্রধানমন্ত্রী বলেন, দীর্ঘদিন সরকারে থাকার সুযোগে সব খাতে উন্নয়ন করা সম্ভব হচ্ছে। কর্মসংস্থান সৃষ্টি করাই বর্তমান সরকারের লক্ষ্য। তিনি বলেন, করোনার মধ্যেও দেশের অর্থনীতি একেবারে স্থবির হয়ে পড়েনি। প্রত্যেকের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার চেষ্টা করারও আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, ইঞ্জিন কন্ট্রোল সিমুলেটরের মাধ্যমে এখন থেকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশ মেরিন একাডেমির গ্রহণযোগ্যতা বাড়ছে। মেরিন একাডেমির মাধ্যমে দেশে নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে সক্ষম হচ্ছে। তিনি বলেন,জাতির পিতা ১৯৭৪ সমুদ্র সীমা নির্ধারণের বিষয়টি নিয়ে উদ্যোগ নিলেও ৭৫ পরবর্তী সময় জিয়াউর রহমানসহ অন্য কেউ এটা নিয়ে কোনো কাজ করেনি।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

রাজধানীর যেসব এলাকায় গ্যাস থাকবে না আজ

অনলাইন ডেস্ক

রাজধানীর যেসব এলাকায় গ্যাস থাকবে না আজ

গ্যাসের পাইপলাইন সংস্কার কাজের জন্য রাজধানীর বেশ কিছু এলাকায় আজ বৃহস্পতিবার গ্যাস থাকবে না। তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিষ্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড এক বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানিয়েছে।

ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয় সকাল ৯টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে। আজ রাজধানীর মগবাজার তালতলা গলি, ওহাব সড়ক, নয়াটোলা, চেয়ারম্যান গলি, মধুবাগ এবং আশপাশের এলাকায় আবাসিকসহ সব শ্রেণির গ্রাহকদের গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে।

আরও পড়ুন:


পিলখানা হত্যা: শহীদদের সমাধিতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

আমি ভেতর ভেতর খুবই উন্মাদ: নোরা ফাতেহি

ইরানের পরমাণু কর্মসূচির জন্য গঠনমূলক পন্থা প্রয়োজন: রাশিয়া

কম্ব্যাট ড্রোন উৎপাদনের চূড়ান্ত পর্যায়ে ইরান


বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়,  গ্যাসের স্বল্পচাপজনিত সমস্যা নিরসনে মগবাজার তালতলা গলি, ওহাব সড়ক, নয়াটোলা, চেয়ারম্যান গলি, মধুবাগ এলাকায় বিদ্যমান গ্যাস পাইপলাইনের পুনর্বাসন এবং সংশ্লিষ্ট সার্ভিস লাইন স্থানান্তর কাজের টাই-ইনের জন্য এসব এলাকায় গ্যাস সরবরাহ বৃহস্পতিবার নির্দিষ্ট সময়ের জন্য বন্ধ থাকবে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

পিলখানা হত্যা: শহীদদের সমাধিতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

অনলাইন ডেস্ক

পিলখানা হত্যা: শহীদদের সমাধিতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

মর্মান্তিক পিলখানা হত্যাকাণ্ডের এক যুগ পূর্তি আজ। নৃশংস এই হত্যাকাণ্ড বাংলাদেশের ইতিহাসে অন্যতম কালো দিন। ২০০৯ সালের এই দিনে নারকীয় হত্যাযজ্ঞে মেতে উঠেছিল কিছু বিপথগামী সৈনিক।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৯টার দিকে রাজধানীর বনানীর সামরিক কবরস্থানে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিনিধিরা নিহত সেনা কর্মকর্তাদের সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন। রাষ্ট্রপতির পক্ষে তাঁর সামরিক সচিব মেজর জেনারেল এস এম সালাহ উদ্দিন ইসলাম এবং প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে তাঁর সামরিক সচিব মেজর জেনারেল নকিব আহমদ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

এ ছাড়া স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, তিন বাহিনীর প্রধান, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীন জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব, বিজিবির মহাপরিচালক এবং নিহত কর্মকর্তাদের স্বজনরাও শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। দিনটি উপলক্ষে বাংলাদেশ বর্ডার গার্ড (বিজিবি) কোরআন খানি, দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করেছে।

দিনটি উপলক্ষে বিজিবির সব সেক্টর, প্রতিষ্ঠান ও ইউনিটে বিজিবির পতাকা অর্ধনমিত থাকবে এবং বিজিবির সদস্যরা দিবসটি উপলক্ষে কালো ব্যাজ পরিধান করবেন।

নিহতদের বিদেহী আত্মার শান্তির জন্য বিজিবি কেন্দ্রীয় মসজিদ, ঢাকা সেক্টর মসজিদ ও পিলখানার বর্ডার গার্ড হাসপাতাল মসজিদে শুক্রবার জুমার নামাজ শেষে বিশেষ দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বিজিবির কেন্দ্রীয় মসজিদে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন।

এ ছাড়া অন্যান্যদের মধ্যে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব, বিজিবি মহাপরিচালক, শহীদদের আত্মীয়-স্বজন, পিলখানায় কর্মরত সব কর্মকর্তা দোয়া ও মিলাদে যোগ দেবেন।

আরও পড়ুন:


আমি ভেতর ভেতর খুবই উন্মাদ: নোরা ফাতেহি

ইরানের পরমাণু কর্মসূচির জন্য গঠনমূলক পন্থা প্রয়োজন: রাশিয়া

কম্ব্যাট ড্রোন উৎপাদনের চূড়ান্ত পর্যায়ে ইরান

তামিমার পাসপোর্ট নাকি ডিভোর্স পেপার, কোনটা আসল?


২০০৯ সালে বিডিআর (বর্তমানে বিজিবি) সপ্তাহ চলাকালে ২৫ ফেব্রুয়ারি সশস্ত্র বিদ্রোহ করেন বাহিনীর কয়েকশ সদস্য। তাদের হাতে পিলখানা সদরদপ্তরে নিহত হন ৫৭ জন সেনা কর্মকর্তাসহ ৭৪ জন। পরে সরকারের সঙ্গে বিদ্রোহীদের আলোচনা শেষে পরদিন ২৬ ফেব্রুয়ারি অস্ত্র, গুলি ও গ্রেনেড জমাদানের মধ্য দিয়ে বিদ্রোহের সমাপ্তি হয়।

ঘটনার জেটপাট ও বিদ্রোহের এ ঘটনায় মোট ৫৮টি মামলা দায়ের করা হয়। হত্যার এক মামলায় দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ১৫২ জনকে মৃত্যুদণ্ড, ৪২৩ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এর মধ্যে বিএনপির প্রয়াত নেরে আধাসামরিক বাহিনী বাংলাদেশ রাইফেলসের (বিডিআর) নাম বদলে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) রাখা হয়।

হত্যা, লুতা নাসিরুদ্দিন আহমেদ পিন্টু ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা তোরাব আলীসহ ১৬১ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

অন্যদিকে বিদ্রোহের জন্য দায়ের করা ৫৭ মামলায় বিডিআরের মোট পাঁচ হাজার ৯২৬ জন সদস্যের বিভিন্ন মেয়াদে (চার মাস থেকে সাত বছর) কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

২০২০ সালের ৮ জানুয়ারি বহুল আলোচিত পিলখানা হত্যা মামলায় হাইকোর্টের দেওয়া রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশিত হয়। রায় প্রদানকারী তিন বিচারপতির স্বাক্ষরের পর ২৯ হাজার ৫৯ পৃষ্ঠার এ রায়টি প্রকাশ করা হয়। রায়ের দৈর্ঘ্য এবং মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামির সংখ্যার দিক থেকে এটিই বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্ববৃহৎ রায়।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর