‘৩০ বছর মৌলবাদীদের পৃষ্ঠপোষকতা করেছেন জিয়া, এরশাদ ও খালেদা’

অনলাইন ডেস্ক

‘৩০ বছর মৌলবাদীদের পৃষ্ঠপোষকতা করেছেন জিয়া, এরশাদ ও খালেদা’

১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্টে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডের পর জিয়াউর রহমান, এরশাদ ও খালেদা জিয়া পর্যায়ক্রমে ৩০ বছর মৌলবাদীদের পৃষ্ঠপোষকতা করে রাষ্ট্রযন্ত্র পরিচালনা করেছে দাবি করে মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, ‘মৌলবাদের শেকড় অনেক গভীরে, এদের মূলোৎপাটন করা সম্ভব নয়।’

সোমবার (১৪ ডিসেম্বর) সকালে মিরপুরের শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি।

মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী বলেন,পাকিস্তান শাসনামলে প্রায় ৩০ বছর ধর্মের নামে রাষ্ট্র পরিচালিত হয়েছে। ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্টে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডের পর জিয়াউর রহমান, এরশাদ ও খালেদা জিয়া পর্যায়ক্রমে ৩০ বছর মৌলবাদীদের পৃষ্ঠপোষকতা করে রাষ্ট্রযন্ত্র পরিচালনা করেছে। মৌলবাদীদের শেকড় অনেক গভীরে। তাই এককথায় এদের মূলোৎপাটন করা সম্ভব নয়।

তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এদের মূলোৎপাটন করার জন্য জাতি কীভাবে ঐক্যবদ্ধ সেটা নিশ্চয় আপনারা লক্ষ্য করেছেন।

মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু শিখিয়ে গেছেন আইন হাতে তুলে না নেওয়ার জন্য। তাই আমরা কোনো পর্যায়েই ওদের বিরুদ্ধে আইন হাতে তুলে নেইনি। আমাদের চেতনা দিয়ে, মুক্তিযুদ্ধের মূলনীতিতে উজ্জীবিত হয়েই রাজনৈতিকভাবে এই বিষফোঁড়া উপড়ে ফেলার জন্য ঐক্যবদ্ধ আছে।

রাজাকারদের তালিকা প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, আগে রাজাকারদের তালিকা করা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব ছিল,আইনগত কোনো ভিত্তি ছিল না। ১৫ দিন আগে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল আইনের সংশোধন করে রাজাকারদের তালিকা করার জন্য মন্ত্রিসভায় অনুমোদিত হয়েছে। জাতীয় সংসদে আগামী অধিবেশনে রাজাকারদের তালিকা প্রণয়নের আইন পাস হয়ে যাবে।

আরও পড়ুন: দিনাজপুরে আবারো বেড়েছে চালের দাম

কাতারে সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশির মৃত্যু

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে এদিন সকালে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে ১৯৭১ সালে শহীদ হওয়া বুদ্ধিজীবীদের শ্রদ্ধা জানানো হয়। এ সময় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রীর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন, পরিবেশমন্ত্রী শাহাব উদ্দিন, সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ, পানিসম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস, ঢাকা-১৬ আসনের সাংসদ ইলিয়াস মোল্লা, ঢাকা-১৪ আসনের সাংসদ আসলামুল হক, সাবেক নৌমন্ত্রী শাজাহান খান প্রমুখ।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল কর: বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি জানিয়েছে বিএনপি। সেই সঙ্গে ছাত্রদলসহ বিভিন্ন সংগঠনের আটক ছাত্র নেতাদের মুক্তিও চেয়েছে দলটি।

বৃহস্পতিবার সকালে  জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক প্রতিবাদ সমাবেশে এই দাবি জানান বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করে তিনি বলেন এই সরকার ভোটের সরকার নয়। এরা নির্বাচিতও নয়। অবিলম্বে পদত্যাগ করে নিরপেক্ষ নির্বাচন দেয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান মির্জা ফখরুল। লেখক মুশতাক আহমেদ ও সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যাকাণ্ডে দোষীদের বিচারের দাবিতে এই সমাবেশের আয়োজন করে জাতীয়তাবাদী যুবদল।


ছেলের প্রেমিকাকে রাত জেগে পাহারা দিলেন বাবা

পানি পানে আসা কিশোরীকে ধর্ষণের পর হত্যা ও মাটিচাপা

কালো পোশাকে নতুন এক জয়া

সৌদি যাত্রীর ছোট ব্যাগ থেকে মিলল ৫ কেজি স্বর্ণ


news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সমাবেশ শেষে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদল সভাপতি আটক

অনলাইন ডেস্ক

সমাবেশ শেষে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদল সভাপতি আটক

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সমাবেশ শেষে ফেরার পথে গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) হাতে আটক হয়েছেন মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সভাপতি রফিকুল আলম মজনু।

বৃহস্পতিবার (০৪ মার্চ) দুপুরে পৌনে ১২টার দিকে মৎস ভবন এলাকা থেকে তাকে আটক করে ডিবি পুলিশ।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল দাবি, কারাগারে লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যু এবং জিয়াউর রহমানের রাষ্ট্রীয় খেতাব বাতিলে সরকারি সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে যুবদল।


গুপ্তচরবৃত্তির ইসরাইলি জাহাজে ইরানের হামলা!

ওটিটি প্ল্যাটফর্মেও ডাবল ব্লকবাস্টার দৃশ্যম টু!

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ নিয়ে মুখোমুখি অবস্থানে পাক-ভারত!

অপো নতুন ফোনে থাকছে ১২ জিবি র‌্যাম


যুবদলের সমাবেশ কেন্দ্র করে আশপাশে অবস্থান নেয় অতিরিক্ত পুলিশ। এদিন বেলা ১১টায় এ কর্মসূচি শুরুর কথা থাকলেও সকাল ১০টা থেকেই প্রেসক্লাবের সামনে নেতাকর্মীরা জড়ো হওয়া শুরু করেন।  সমাবেশ থেকে ফেরার পর যুবদল নেতা মজনুকে গ্রেফতার করা হয়।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বিএনপি এখন মায়া কান্না কাঁদছে : সেতুমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

বিএনপি এখন মায়া কান্না কাঁদছে : সেতুমন্ত্রী

করোনাকালে অসহায় ও কর্মহীন মানুষের পাশে না দাঁড়িয়ে বিএনপি এখন মায়া কান্না কাঁদছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

বৃহস্পতিবারও (৪ মার্চ) সকালে ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবন থেকে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন। 

দেশের মানুষের প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসা আছে বলেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মানুষের আস্থার বাতিঘরে পরিণত হয়েছেন, হয়েছেন মাদার অব হিউম্যানিটি- উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, পক্ষান্তরে বিএনপি জীবন্ত মানুষকে আগুনে পুড়িয়ে মারে আর এখন কৃত্রিম দরদ দেখায়।


আইফোনে ১ টেরা স্টোরেজ!

বোমা আতঙ্ক তাজমহলে

আমি শিক্ষামন্ত্রীর ষড়যন্ত্র ও রাজনীতির শিকার: ভিসি কলিমুল্লাহ


তিনি বলেন, বিএনপি আমলে দুর্নীতি প্রাতিষ্ঠানিক রূপ পেয়েছিলো। সে সময়ের সরকার দুর্নীতির পৃষ্ঠপোষকতা করেছিলো। বর্তমানে দুর্নীতি করে কেউ ছাড় পায় না। যে যত বড় নেতা এমনকি জনপ্রতিনিধি হলেও জবাবদিহি করতে হয়।

এর আগে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরে বাস্তবায়নাধীন বিভিন্ন প্রকল্পসমূহের অগ্রগতি নিয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ পর্যালোচনা সভায় তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে যুক্ত হন। 

এ সময় তিনি দেশের যেসব এলাকায় নির্মাণাধীন সড়কের কাজ ঢিলেঢালাভাবে চলছে সেসব সড়কগুলো দ্রুত শেষ করতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন। পাশাপাশি বর্ষার আগেই সারাদেশে চলমান সংস্কার কাজগুলোও শেষ করতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন। 

বাস রেপিড ট্রানজিট - বিআরটি প্রকল্প নিয়ে সড়ক পরিবহন মন্ত্রী বলেন, এই প্রকল্প আমাদের দুর্ভাবনার একটি প্রকল্প, এই প্রকল্প অনেক অর্জনকে ম্লান করে দিচ্ছে। ২০১২ সালে শুরু হওয়া এই প্রকল্পের সওজ অংশের অগ্রগতি মাত্র ৩৫%। ওবায়দুল কাদের এই ব্যর্থতা সম্মিলিত বলে মনে করেন। 

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচটি ইমামের মৃত্যুতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর শোক

অনলাইন ডেস্ক

প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচটি ইমামের মৃত্যুতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর শোক

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক উপদেষ্টা, মুক্তিযুদ্ধের সময় প্রবাসী সরকারের মন্ত্রীপরিষদ সচিব, স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম মন্ত্রীপরিষদ সচিব হোসেন তৌফিক ইমাম (এইচ টি ইমাম) এর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান এমপি। 

মন্ত্রী আজ বৃহস্পতিবার এক শোকবার্তায় বলেন, ' মুক্তিযুদ্ধে এইচটি ইমামের অনন্য অবদানের জন‍‍্য দেশের জনগণ তাঁকে স্মরণ করবে। তিঁনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নে আজীবন কাজ করে গেছেন।'


জামালপুরে নারীর সঙ্গে ভিডিও ফাঁস হওয়া সেই ডিসির বেতন কমল

‘পরমাণু সমঝোতার একমাত্র পথ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার’

এইচ টি ইমামের জানাজা ও দাফনের সময়

এইচ টি ইমামের মৃত্যুতে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর শোক


'দেশপ্রেম, মেধা ও অনন্য প্রতিভা এবং প্রগতিশীল চিন্তার জন্য নিজেকে একজন অনুকরণীয় ব্যক্তিত্বের আসনে অধিষ্ঠিত করেছেন তিঁনি। তাঁর মৃত্যু দেশের জন‍্য এক অপূরণীয় ক্ষতি।'

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

news24bd.tv আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

এইচ টি ইমামের মৃত্যুতে ওবায়দুল কাদেরের শোক

অনলাইন ডেস্ক

এইচ টি ইমামের মৃত্যুতে ওবায়দুল কাদেরের শোক

প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমামের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

এক শোক বার্তায় এইচ টি ইমামের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান তিনি।

আরও পড়ুন:


কক্সবাজারে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদক ব্যবসায়ী নিহত

বিতর নামাজে দোয়া কুনুতের গুরুত্ব, উচ্চারণ ও অনুবাদ

নামাজের মধ্যে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ওয়াজিব ১৪টি কাজ

এইচ টি ইমামের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক


বুধবার (০৩ মার্চ) দিবাগত রাত সোয়া ১টার দিকে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান এইচ টি ইমাম।

মৃত্যুকালে হোসেন তৌফিক ইমামের বয়স হয়েছিল ৮২ বছর। তিনি কিডনির জটিলতাসহ বার্ধক্যজনিত নানা রোগে ভুগছিলেন। তাকে অসুস্থ অবস্থায় গত ৭ ফেব্রুয়ারি ঢাকার সিএমএইচে ভর্তি করা হয়েছিল।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর