শিশুকে অপহরণ মামলায় স্বামী-স্ত্রীর যাবজ্জীবন

শেরপুর প্রতিনিধি:

শিশুকে অপহরণ মামলায় স্বামী-স্ত্রীর যাবজ্জীবন

শেরপুরের নকলায় ৪ বছর বয়সী এক শিশুকে অপহরণ করে মুক্তিপণের দাবির মামলায় স্বামী-স্ত্রীকে যাবজ্জীবন ও ১৪ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল।

আজ সোমবার (১৪ ডিসেম্বর) বিকেলে শেরপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক (জেলা জজ) মো. আখতারুজ্জামান নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের দু’টি পৃথক ধারায় এ দণ্ডাদেশ প্রদান করেন। 

দণ্ডপ্রাপ্তরা হচ্ছেন- নকলা উপজেলার পাঁচকাহনীয়া গ্রামের হোসেন আলী (৩৯) ও তার স্ত্রী তাসলিমা খাতুন (৩৪)। আদালত একইসঙ্গে তাদের ৩০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডাদেশ দেন। দণ্ডপ্রাপ্তরা পলাতক থাকায় তাদের অনুপস্থিতিতে রায় ঘোষণা করেন আদালত। ট্রাইব্যুনালের পিপি এডভোকেট মোহাম্মদ গোলাম কিবরিয়া এ রায়ের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১১ সালের ১২ অক্টোবর হোসেন আলী ও তার স্ত্রী তাসলিমা খাতুন বেড়ানোর কথা বলে নকলা উপজেলার শালখা গ্রামের আব্দুল জলিলের ৪ বছরের মেয়ে আকলিমাকে বাড়ি থেকে ডেকে ঢাকায় নিয়ে গিয়ে মুঠোফোনে তার (আকলিমা) বাবার কাছে মুক্তিপণ দাবি করেন। কিন্তু শিশুটির বাবা আব্দুল জলিল মুক্তিপণ দিতে অসমর্থ হওয়ায় ঘটনাটি নকলা থানার পুলিশকে জানান এবং ২০১১ সালের ১ নবেম্বর বাদী হয়ে হোসেন আলী ও তাসলিমার বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। 

পরে পুলিশ সুকৌশলে শিশুটিকে উদ্ধার করে। মামলার তদন্ত শেষে নকলা থানার তৎকালীন এসআই আনিসুর রহমান ২০১১ সালের ২৭ নভেম্বর আসামি হোসেন আলী ও তার স্ত্রী তাসলিমা খাতুনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। দীর্ঘ শুনানী ও সাক্ষ্যপ্রমাণ বিশ্লেষণ শেষে আদালত সোমবার এ রায় ঘোষণা করেন।

আরও পড়ুন:


নাটোরের ব্যতিক্রমী গ্রাম: মা-বাবা অধিকার রক্ষায় একাট্টা গ্রামবাসী

‘সালমান শাহ’ হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার ২

'জীবনে অনেক ভুল করে দেউলিয়া হয়েছি'

স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যার দায়ে স্বামীর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড


news24bd.tv কামরুল

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তার

কাশিমপুর কারাগারে লেখক মুসতাকের মৃত্যু

অনলাইন ডেস্ক

কাশিমপুর কারাগারে লেখক মুসতাকের মৃত্যু

‘রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্রের’ অভিযোগে গ্রেপ্তার ‌লেখক মুসতাক আহমেদ মারা গেছেন। আজ বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে আটটার দিকে কাশিমপুর কারাগারে মারা যান তিনি।

র‌্যাবের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় গ্রেপ্তার মুসতাক আহমেদ গত বছরের মে মাস থেকে কারাবন্দী ছিলেন।

কারা সূত্র জানিয়েছে, মুসতাকে কারাগারে মাথা ঘুরে পড়ে যান। সেখান থেকে তাঁকে হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।


গণধর্ষণের চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে কলেজছাত্রীর গায়ে আগুন

বাবার সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে রাতধর ধর্ষণের শিকার মেয়ে

৩০-৩২ গার্লফ্রেন্ড থাকার পরও আমাকে ভালোবাসত নাসির: তামিমা

আমার সব প্রশ্নের জবাব ইসলামে পেয়েছি: কানাডিয়ান নারী


মুসতাক আহমেদের মৃত্যুর ব্যাপারে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মোহাম্মদ শরীফ জানান, কাশিমপুর কারাগার থেকে ওই বন্দিকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়। তাঁর মৃত্যুর সঠিক কারণ এখনো জানা যায়নি। ময়নাতদন্ত শেষে তার মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা সম্ভব হবে।

সূত্র জানায়, গত ১১ জানুয়ারি ডিজিটাল‌ নিরাপত্তা আইনের মামলায় কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোর, লেখক মুস্তাক আহমেদ ও রাষ্ট্রচিন্তার কর্মী দিদারুল ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র জমা দেয় পুলিশ।

গত বছরের মে মাসে রমনা থানায় মুসতাকসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে র‌্যাব তিনটি মামলা করে।

তাঁদের বিরুদ্ধে যোগসাজশে দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে জাতির জনক, বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ, মহামারি করোনাভাইরাস সম্পর্কে গুজব, রাষ্ট্র ও সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করতে অপপ্রচার ও বিভ্রান্তি ছড়ানোর অভিযোগ আনা হয়।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সম্পদের মিথ্যা তথ্য দেয়ায়

এসআইর ৬ বছরের কারাদণ্ড

অনলাইন ডেস্ক

এসআইর ৬ বছরের কারাদণ্ড

সম্পদের হিসাব বিবরণীতে মিথ্যা তথ্য দেওয়ায় দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা মামলায় সিরাজগঞ্জ সদর থানার চাকরিচ্যুত এসআই আব্দুল জলিলের ৬ বছরের কারাদণ্ডের রায় দিয়েছে আদালত। 

আজ বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) ঢাকার ৫ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ইকবাল হোসেন এ রায় দেন।

আদালতের পেশকার মতিউর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, রায় ঘোষণার পর সাজা পরোয়ানা দিয়ে আব্দুল জলিলকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন বিচারক। দুর্নীতি দমন কমিশন আইনের ২৬(২) ধারায় ৩ বছর এবং ২৭(১) ধারায় ৩ বছরের কারাদণ্ড দেয় আদালত। তবে ২ ধারার সাজা একসঙ্গে চলবে বলে বিচারক রায়ে উল্লেখ করেন।


সেই দুই ভাইয়ের সাড়ে ৫ হাজার বিঘা জমি, ৫৫টি বাস ক্রোকের নির্দেশ

দেশে করোনার সর্বশেষ মৃত্যু-শনাক্তের তথ্য

টিকা নেয়ার ১২ দিন পর ত্রাণ সচিবের করোনা শনাক্ত

চাকায় ওড়না পেঁচিয়ে রাস্তায় পড়ে মারা গেলো মেয়েটি


দুদকের নোটিশের জবাবে আব্দুল জলিল ২৩ লাখ ৭৩ হাজার ২৩২ টাকার সম্পদের হিসাব দাখিল করেন। তবে দুদক তদন্তে তার অর্জিত সম্পদ পায় ২৭ লাখ ৭০ হাজার ৮৩২ টাকার। এ ঘটনায় ২০১৭ সালের ৫ নভেম্বর রমনা থানায় দুদকের সহকারী পরিচালক আসাদুজ্জামান বাদী হয়ে তার বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন। 

২০১৮ সালের ২৮ নভেম্বর জলিলের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয় দুদক। ২০২০ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে আদালত। মামলায় ৮ জন সাক্ষীর মধ্যে বিভিন্ন সময় ৪ জন আদালতে সাক্ষ্য দিয়েছেন। অন্যদের হদিস নেই।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

নোয়াখালীতে ব্যবসায়ী হত্যার দায়ে কর্মচারির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

নোয়াখালী প্রতিনিধি

নোয়াখালীতে ব্যবসায়ী হত্যার দায়ে কর্মচারির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে ২০১৯ সালে  শহিদুল ইসলাম শিপন নামে এক ওয়ার্কশপ ব্যবসায়ীকে হত্যার দায়ে কর্মচারি মো. ইমন নামে এক আসামির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডের রায় দিয়েছে আদালত। 

বৃহস্পতিবার বিকালে জেলা জজ আদালতের জেলা ও দায়রা জজ সালেহ উদ্দিন আহমদ এ রায় দেন। 

এ সময় দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি মো. ইমন আদালতের ডকে উপস্থিত ছিলেন । তিনি কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ থানাধীন পানাহার গ্রামের মো. আল আমিন মিয়ার ছেলে। 

আদালত সূত্রে জানা যায়, মো. ইমন নিহত শহিদুল ইসলাম শিপনের স্থানীয় রমনির হাট বাজারে ‘মায়ের দোয়া ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপ’ নামক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কর্মচারি ছিলেন। ব্যবসায়ী শিপন ও তার কর্মচারি ইমন বেশিরভাগ সময় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেই রাত্রিযাপন করতেন। 


সেই দুই ভাইয়ের সাড়ে ৫ হাজার বিঘা জমি, ৫৫টি বাস ক্রোকের নির্দেশ

দেশে করোনার সর্বশেষ মৃত্যু-শনাক্তের তথ্য

টিকা নেয়ার ১২ দিন পর ত্রাণ সচিবের করোনা শনাক্ত

চাকায় ওড়না পেঁচিয়ে রাস্তায় পড়ে মারা গেলো মেয়েটি


২০১৯ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি প্রতিদিনের মতো ব্যবসায়ী শিপন ও কর্মচারি ইমন প্রতিষ্ঠানে ছিলেন। রাতে ইমন হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করে ব্যবসায়ী শিপনকে হত্যা করে তার মোটরসাইকেল ও মোবাইল ফোনটি নিয়ে পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ তাকে তার গ্রামের বাড়ি কিশোরগঞ্জ থেকে গ্রেপ্তার করে এবং মোটরসাইকেলটি কুমিল্লা থেকে উদ্ধার করে। 

এ ঘটনায় ব্যবসায়ী শিপনের বড় ভাই তৌহিদুল ইসলাম থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরবর্তীতে আদালত এ পর্যন্ত ১৭ জন সাক্ষীর সাক্ষ শেষে আসামি মো. ইমনের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বৃহস্পতিবার বিকালে তার যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় দেন। একই সঙ্গে ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডদেশও দেয়া হয়। আদালতে রাষ্ট্র পক্ষের আইনজীবী ছিলেন, পাবলিক প্রশিকিউটর গুলজার আহমেদ জুয়েল। 

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

খুলনায় হেরোইন পাচার মামলায় যাবজ্জীবন

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা:

খুলনায় হেরোইন পাচার মামলায় যাবজ্জীবন

খুলনায় হেরোইন পাচার মামলায় রিপন শেখ নামের এক আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সাথে তাকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছর সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। 

আজ (বৃহস্পতিবার) দুপুরে সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মশিউর রহমান চৌধুরী এ রায় ঘোষণা করেন। 

একই মামলায় অপর দুই আসামি শাহিন মোড়ল ও মহিউদ্দিনকে ৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড, ২৫ হাজার টাকা জরিমানা ও অনাদায়ে আরও ছয় মাসের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট এনামুল হক এ তথ্য নিশ্চিত করেন। রায় ঘোষণাকালে আসামি রিপন শেখ ও মহিউদ্দিন মোল্লা পলাতক ছিলেন।


সেই দুই ভাইয়ের সাড়ে ৫ হাজার বিঘা জমি, ৫৫টি বাস ক্রোকের নির্দেশ

দেশে করোনার সর্বশেষ মৃত্যু-শনাক্তের তথ্য

টিকা নেয়ার ১২ দিন পর ত্রাণ সচিবের করোনা শনাক্ত

চাকায় ওড়না পেঁচিয়ে রাস্তায় পড়ে মারা গেলো মেয়েটি


জানা যায়, ২০১৮ সালের ৬ এপ্রিল ডুমুরিয়ার চুকনগর বাজার থেকে ৪৫ গ্রাম হেরোইনসহ রিপন শেখসহ ওই তিনজনকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। এ ঘটনায় র‌্যাবের ডিএডি মো. অহিদুল ইসলাম বাদী হয়ে ডুমুরিয়া থানায় মামলা করেন। ওই বছরের ৫ সেপ্টেম্বর ডুমুরিয়া থানার এসআই মো. আশিকুল আলম তাদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয়।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

দুর্নীতির দায়ে চাকরিচ্যুত পুলিশের ৬ বছরের কারাদণ্ড

অনলাইন ডেস্ক

দুর্নীতির দায়ে চাকরিচ্যুত পুলিশের ৬ বছরের কারাদণ্ড

সম্পদের হিসাব বিবরণীতে মিথ্যা তথ্য দেওয়ায় দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা মামলায় সিরাজগঞ্জ সদর থানার চাকরিচ্যুত এসআই আব্দুল জলিলের ৬ বছরের কারাদণ্ডের রায় দিয়েছে আদালত। 

দুর্নীতি দমন কমিশন আইনের ২৬(২) ধারায় ৩ বছর এবং ২৭(১) ধারায় ৩ বছরের কারাদণ্ড দেয় আদালত। তবে ২ ধারার সাজা একসঙ্গে চলবে বলে বিচারক রায়ে উল্লেখ করেন।

বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) ঢাকার ৫ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ইকবাল হোসেন এ রায় দেন।

আদালতের পেশকার মতিউর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, রায় ঘোষণার পর সাজা পরোয়ানা দিয়ে আব্দুল জলিলকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন বিচারক। 


নাসির প্রেমিক না আমার বন্ধু : মডেল মিম

আমার বয়ফ্রেন্ড নিয়ে আমিও মজায় আছি : নাসিরের সাবেক প্রেমিকা

বাংলাদেশে সেরা লাইকি

আমাকে নিয়ে আর খেলতে দিবো না : মিলা


দুদকের নোটিশের জবাবে আব্দুল জলিল ২৩ লাখ ৭৩ হাজার ২৩২ টাকার সম্পদের হিসাব দাখিল করেন। তবে দুদক তদন্তে তার অর্জিত সম্পদ পায় ২৭ লাখ ৭০ হাজার ৮৩২ টাকার। এ ঘটনায় ২০১৭ সালের ৫ নভেম্বর রমনা থানায় দুদকের সহকারী পরিচালক আসাদুজ্জামান বাদী হয়ে তার বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন। ২০১৮ সালের ২৮ নভেম্বর জলিলের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয় দুদক। ২০২০ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে আদালত। মামলায় ৮ জন সাক্ষীর মধ্যে বিভিন্ন সময় ৪ জন আদালতে সাক্ষ্য দিয়েছেন। অন্যদের হদিস নেই।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর