দেশে ফিরতে মরিয়া লেবনন প্রবাসী বাংলাদেশি শ্রমিকেরা

নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশে ফিরতে মরিয়া লেবনন প্রবাসী বাংলাদেশি শ্রমিকেরা

লেবাননে অবস্থানরত হাজার হাজার বাংলাদেশি শ্রমিক দেশে ফিরতে মরিয়া হয়ে আছেন। এর জন্য বৈরুতের দূতাবাসে আবেদন করলেও তাদের ফেরানোর ব্যাপারে এখনো নিশ্চিত কোনো তথ্য দিতে পারছে না সরকার।

বিবিসি বাংলা জানায়, প্রবাসী এই শ্রমিকদের ফিরিয়ে আনতে আন্তমন্ত্রণালয় বৈঠকের পাশাপাশি আলোচনা চলছে বলে দূতাবাসের পক্ষ থেকে জানা গেছে।

গত এক বছরের বেশি সময় ধরে লেবাননে রাজনৈতিক সংকট ও অর্থনৈতিক মন্দার কারণে এবং সর্বশেষ বৈরুতে ভয়াবহ বিস্ফারণের পর এক প্রকার কর্মহীন অবস্থায় রয়েছেন বাংলাদেশি শ্রমিকেরা।

এমন পরিস্থিতিতে অর্ধাহারে এবং অনাহারে থাকার কথা জানিয়ে প্রবাসী শ্রমিকেরা বাংলাদেশে ফেরত আসতে চাইছেন।

লেবাননের বৈরুত শহরে গত তিন বছর ধরে একটি হাসপাতালের পরিচ্ছন্নতাকর্মী হিসেবে কাজ করছেন চট্টগ্রাম ফটিকছড়ির বাসিন্দা মোহাম্মদ আলী হোসেন।

প্রথম দুই বছর বেশ ভালো উপার্জন করলেও চলতি বছরের করোনাভাইরাস মহামারি সেই সঙ্গে গত আগস্টে বৈরুতের ভয়াবহ বিস্ফোরণে তার মতো বহু প্রবাসী বিপর্যয়ের মুখে পড়েন।

ওই বিস্ফোরণে লেবাননের খাদ্য গুদাম ছাই হয়ে যাওয়ায় খাদ্যে আমদানি নির্ভর এই দেশটিতে চরম খাদ্য সংকট দেখা দেয়।

অর্থনৈতিক মন্দার কারণে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কর্মরত বাংলাদেশিরা চাকরি হারাতে থাকেন। আবার যাদের চাকরি আছে লেবানিজ মুদ্রার মান হু হু করে পড়ে যাওয়ায় তারাও চলতে পারছেন না।

আলী হোসেন আগে যে বেতন পেতেন সেটা লেবানিজ মুদ্রা থেকে ডলারে এরপর টাকায় ভাঙানোর আগে যে পরিমাণ টাকা পেতেন, এখন পান তার আট থেকে নয় ১০ গুণ কম। অনেকে টিকে থাকতে বাধ্য হয়ে দেশ থেকে টাকা আনছেন।

তিনি বলেন, ‘আগে বেতন ভাঙায় ৩২ হাজার থেকে ৩৫ হাজার টাকা পাইতাম এখন পাই ৪ হাজার টাকা। এই টাকায় বাড়িভাড়া দেব কি, খাব কি, দেশে পাঠাবো কি। দেশ থেকে টাকা আনতে আনতে বাড়ি বিক্রি করতে হয়েছে। এইভাবে তো চলে না।’

এমন অবস্থায় লেবাননে অবস্থানরত সীমাহীন কষ্টে থাকা বাংলাদেশি কর্মীরা জরিমানা গুনে হলেও দেশে ফিরতে মরিয়া।

প্রবাসী এ শ্রমিক বলেন, ‘যাদের চাকরি নাই তারা রাস্তাঘাটে বোতল টোকায় বিক্রি করে চলে, অনেকে ভিক্ষা করে। এর চাইতে দেশে থাকলে কিছু কর্ম করে খাইতে পারবো। আমরা দেশে ফিরতে চাই। কিন্তু দূতাবাসে গেলে আমাদের কথা ওরা শুনতেই চায় না। দুর্ব্যবহার করে।’

সরকারি সূত্রমতে, প্রায় ৪০ লাখ জনসংখ্যার লেবাননে বৈধ অবৈধ মিলে অন্তত দেড় লাখ বাংলাদেশি কাজ করেন। বিভিন্ন বাসাবাড়িতে নারী শ্রমিক, গৃহকর্মী হিসেবে আর বেশিরভাগ পুরুষ পরিচ্ছন্নতাকর্মী হিসেবে কাজ করেন।

কিন্তু দেশটিতে অর্থনৈতিক মন্দা পরিস্থিতি তৈরি হওয়ায় হাজার হাজার প্রবাসী কর্মী দেশে ফিরতে বৈরুতের বাংলাদেশ দূতাবাসে আবেদন করেছেন বলে দূতাবাসের শ্রম কল্যাণ উইং এর প্রথম সচিব আবদুল্লাহ আল মামুন জানিয়েছেন।

তবে এসব আবেদন কবে গ্রহণ করে শ্রমিকদের ফেরত পাঠানো হবে, সেটা আলোচনার ভিত্তিতে শিগগিরই জানানো হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‘এ বছর আমরা সাড়ে ছয় হাজার কর্মীকে ফেরত পাঠিয়েছি। আগে যারা আবেদন করেছিল তাদের সবাইকে পাঠানোই শেষ হয় নাই। তার ওপর হাজার হাজার মানুষকে পাঠানোর সিদ্ধান্ত হুট করে নেয়া যায় না। এ জন্য পরিকল্পনা লাগে। এর সঙ্গে দুই দেশের সরকার, দূতাবাস, এয়ারলাইনস সবকিছু জড়িত। আমরা আবেদন পাচ্ছি। এটা নিয়ে আলোচনার মাধ্যমে যৌক্তিক সময়ের মধ্যে সিদ্ধান্ত জানানো হবে।’

যেসব শ্রমিকের কোনো বৈধ কাগজপত্র নেই দূতাবাস তাদের ফিরিয়ে নেয়ার ব্যাপারে কোনো দায়িত্ব নিচ্ছে না বলে অভিযোগ তুলে গত কয়েক দিন ধরে দূতাবাসের বাইরে বিক্ষোভ করে আসছে ভুক্তভোগীরা।

এমন পরিস্থিতিতে লেবাননে আটকা পড়া শ্রমিকদের বিশেষ ব্যবস্থায় ফিরিয়ে আনতে বাংলাদেশ সরকারের দ্রুত পদক্ষেপ নিতে হবে বলে জানিয়েছেন অভিবাসন বিষয়ক সংগঠন রামরুর প্রেসিডেন্ট তাসনিম সিদ্দিকী।


আজকের ফাইনালে কত টাকার পুরস্কার পাবেন খেলোয়াড়রা

এক মাসে ৩৩ লাখ ছাড়াল ওবামার বইয়ের বিক্রি

চুরি করতে দেখে ফেলায় বৃদ্ধকে গলা কেটে হত্যা


লেবানন সরকারের সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে দ্রুত চুক্তি করা এবং এসব শ্রমিককে বাংলাদেশ বিমানের চার্টার্ড ফ্লাইটে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় ফিরিয়ে আনা প্রয়োজন বলে তিনি মনে করছেন।

তাসনিম সিদ্দিকী বলেন, ‘ওই দেশের সরকারের সঙ্গে আলোচনা করে দ্রুত এই কর্মীদের দেশে আনতে সরকারকে উদ্যোগ নিতে হবে। বিদেশে আটকে পড়া শ্রমিকদের এর আগে বাংলাদেশের বিমানে করে ফেরত আনা হয়েছে। এবারও তাই করতে হবে।’

তবে চার্টার্ড বিমানের ভাড়া যেহেতু অনেক বেশি, নিঃস্ব শ্রমিকদের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে। তাই সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায়, জরুরি তহবিল থেকে সেটার ব্যবস্থা করতে হবে বলে তিনি জানান।

তবে এখনো লেবাননের বেশির ভাগ কর্মী দেশে ফিরতে চাইছেন না। অনেক টাকা খরচ করে দেশে পাড়ি জমানোয় এবং অনেকের এখনো দেনা শোধ না হওয়ায় তারা অপেক্ষা করছেন কবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসে।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

কুয়েতে পরকীয়ার কারণে বাংলাদেশ দূতাবাসের দুই কর্মী প্রত্যাহার

অনলাইন ডেস্ক

কুয়েতে পরকীয়ার কারণে বাংলাদেশ দূতাবাসের দুই কর্মী প্রত্যাহার

কুয়েতস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের পাসপোর্ট ও ভিসা উইংয়ে কর্মরত এক প্রশাসনিক কর্মকর্তা এবং একজন অফিস সহকারীকে পরকীয়ার কারণে প্রত্যাহারের আদেশ জারি করেছে সরকার। 

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সিনিয়র সহকারী সচিব ইকবাল আখতার গত ১৮ই ফেব্রুয়ারি পৃথক আদেশ জারি করেন। কুয়েতের বাংলাদেশ দূতাবাসের সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়।

সূত্রে জানা যায়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা কেএনএম জিল্লুর রহমান ও অফিস সহকারী কাম-কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক মো. ওবায়দুর রহমান কুয়েতের বাংলাদেশ দূতাবাসে কাজ করার সুবাদে দুই পরিবারের মধ্যে বেশ ঘনিষ্ঠতা গড়ে ওঠে। সেই সুযোগে প্রশাসনিক কর্মকর্তা জিল্লুর রহমানের সঙ্গে ওবায়দুরের স্ত্রীর পরকীয়ার সম্পর্ক তৈরি হয়। বিষয়টি জানাজানি হলে জিল্লুর রহমানের স্ত্রী কুয়েত পুলিশ প্রশাসনে নালিশ জানান। 


পাপুলের আসনে উপনির্বাচনের তারিখ ঘোষণা

বিক্রি হওয়া সেই শিশু ফিরে পেলেন মা

হারিয়ে যাচ্ছে গ্রামীণ সৌন্দর্য

১২ তলা থেকে পড়েও বেঁচে আছেন তিন বছরের শিশু (ভিডিও)


যার ভিত্তিতে কুয়েত প্রশাসন বাংলাদেশ হাইকমিশনে গিয়ে অভিযোগ তদন্ত করে এবং ঘটনার সত্যতা পায়। এরপর কুয়েতের বাংলাদেশ হাইকমিশনকে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ জানায় কুয়েত প্রশাসন। যার ভিত্তিতে তাদেরকে প্রত্যাহার করা হয়।

এদিকে পরকীয়ার ঘটনা জানাজানি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে জিল্লুর ও ওবায়দুর তাদের পরিবারকে ঢাকায় পাঠিয়ে দেন। এখন তাদের দু’জনকে দেশে ফিরতে হচ্ছে।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

পোশাক খাতে ভিয়েতনামকে ছাড়িয়ে বাংলাদেশ

অনলাইন ডেস্ক

পোশাক খাতে ভিয়েতনামকে ছাড়িয়ে বাংলাদেশ

সারাবিশ্বই করোনায় লণ্ডভণ্ড। অর্থনীতি ভেঙে পড়েছে সব দেশের। তবে করোনার আবহ কমায় আবারো ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে সবাই। এই সংকটকালীন সময়েও পোশাক খাতে ভিয়েতনামকে পেছনে ফেললো বাংলাদেশ।

জাতিসংঘ ও বিশ্ববাণিজ্য সংস্থার অঙ্গ সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড সেন্টার আইটিসির সর্বশেষ এক প্রতিবেদনে এই তথ্য উঠে এসেছে। দেখা গেছে, ২০২০ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত এই ১২ মাসে পোশাকের বিশ্ববাজারে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশ ভিয়েতনাম রপ্তানী করেছে ২৭ দশমিক ৫৭ বিলিয়ন ডলার আর বাংলাদেশ করেছে ২৯ দশমিক ২৩ বিলিয়ন ডলারের পোশাক। অর্থাৎ পোশাক রপ্তানী করে ভিয়েতনামের চেয়ে ১ দশমিক ৬৬ বিলিয়ন ডলার বেশি আয় করেছে বাংলাদেশ।

অথচ ২০১৯ সালের জুলাই থেকে ২০২০ সালের মে পর্যন্ত ১১ মাসে বাংলাদেশের চেয়ে ভিয়েতনামের আয় ২ দশমিক ৫৫ বিলিয়ন ডলার বেশি ছিল। ওই সময়ে তৈরি পোশাক থেকে বাংলাদেশের রপ্তানী আয় ছিল ২৫ দশমিক ৭১ বিলিয়ন ডলার আর ভিয়েতনামের ছিল ২৮ দশমিক ২৬ বিলিয়ন ডলার।

আরও পড়ুন:


এবার শাকিবের নায়িকা ভারত বাংলার এই সুন্দরী

গাজী গ্রুপে মার্কেটিং অফিসার পদে চাকরির সুযোগ

সাবেক স্বামীর ৯৭ কোটি টাকার উপহার বিক্রি করেছেন অ্যাঞ্জেলিনা জোলি

ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছে আমেরিকা, রাশিয়ারটাও প্রস্তুত


বিজিএমইএর তথ্য মতে, ২০২০ সালের প্রথম পাঁচ মাসে (জানুয়ারি থেকে মে পর্যন্ত সময়) বিশ্ববাজারে ৯৬৮ কোটি ৪৯ লাখ ডলারের তৈরি পোশাক রপ্তানি করে বাংলাদশ। একই সময়ে ভিয়েতনাম রপ্তানি করে ১ হাজার ৫০ কোটি ৯১ ডলারের তৈরি পোশাক। অর্থাৎ গত বছরের প্রথম পাঁচ মাসে বাংলাদেশের চেয়ে ৮২ কোটি ডলারের পোশাক রপ্তানি বেশি করেছিল ভিয়েতনাম। জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি মাসে ভিয়েতনামের চেয়ে বাংলাদেশ বেশি পোশাক রপ্তানি করলেও মার্চ থেকে এগিয়ে যায় ভিয়েতনাম। জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি মাসে বাংলাদেশ ভিয়েতনামের চেয়ে ১১২ কোটি ডলারের বেশি তৈরি পোশাক পণ্য রপ্তানি করে।

মার্চে বাংলাদেশ ২২৬ কোটি ডলারের পোশাক পণ্য রপ্তানি করে, যেখানে একই মাসে ভিয়েতনাম করে ২৩৪ কোটি ডলারের পণ্য রপ্তানি। এপ্রিলে বাংলাদেশ ৩৭ কোটি ডলার আর ভিয়েতনাম করে ১৬১ কোটি ডলারের পণ্য রপ্তানি করে। আর মে মাসে বাংলাদেশ ১২৩ কোটি ডলারের পোশাক পণ্য রপ্তানি করে যেখানে একই মাসে ভিয়েতনাম রপ্তানি করেছে ১৮৬ কোটি ডলারের পোশাক পণ্য।

বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার (ডব্লিউটিও) মতে, বিশ্ববাজারে তৈরি পোশাক রপ্তানিতে বাংলাদেশের হিস্যা ৬ দশমিক ৮ শতাংশ আর ভিয়েতসামের ৬ দশমিক ২ শতাংশ। আর ৩০ দশমিক ৮ শতাংশ নিয়ে শীর্ষ অবস্থানে চীন।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

স্বাভাবিক জীবনযাত্রা শুরুর পরিকল্পনা নিয়ে এগুচ্ছে কানাডা

লায়লা নুসরাত ,কানাডা

স্বাভাবিক জীবনযাত্রা শুরুর পরিকল্পনা নিয়ে এগুচ্ছে কানাডা

সারা কানাডায় এখন দেশটির দীর্ঘ মেয়াদি সেবা কেন্দ্র, হাসপাতালে কর্মরত স্বাস্থ্যকর্মীদের ভ্যাকসিন দেয়া শেষ করে আশি বছরের বেশি বয়সী সাধারণ নাগরিকদের ভ্যাকসিন দিতে শুরু করেছে। দীর্ঘ মেয়াদি সেবা কেন্দ্রে ভ্যাকসিনের এই সাফল্য স্বাস্থ্য বিভাগকে উৎসাহী করে তুলেছে। 

কানাডার স্বাস্থ্য বিভাগ, আগামী সেপ্টেম্বর মাস থেকে সব ধরনের বিধি নিষেধ তুলে নিয়ে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা শুরুর পরিকল্পনা নিয়ে এগুচ্ছে।

ভ্যাকসিনে কানাডা কিছুটা পিছিয়ে পরলেও যতোটা ভ্যাকসিন দেয়া হয়েছে সেগুলো অসাধারনভাবে কাজ করতে শুরু করেছে বলে পাবলিক হেলথ এজেন্সী জানিয়েছে।

জনস্বাস্থ্য বিভাগ জানিয়েছে, এখন থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আগের প্রাক্কলনের চেয়ে বেশি মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়ার লক্ষ্য ধরা হয়েছে। এদিকে, কানাডার ভ্যাকসিন বিতরণ কর্মসূচির প্রধান মেজর জেনারেল ড্যানি ফর্টিন বলেন, ভ্যাকসিনের সরবরাহ সংকট থেকে আমরা বেরিয়ে আসতে শুরু করেছি। 

বসন্ত ও গ্রীষ্মে পর্যাপ্ত পরিমাণ সরবরাহ পাওয়া যাবে। এর ফলে প্রদেশগুলোতে ভ্যাকসিনেশনের গতি লক্ষণীয় মাত্রায় বাড়াতে পারব। তিনি বলেন, মার্চ শেষে দুই কোম্পানির ৬০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন সরবরাহের যে কথা ছিল তা পূরণ করার পথে রয়েছে তারা। এর মধ্যে ফাইজার সরবরাহ করবে ৪০ লাখ ও মডার্না ২০ লাখ ডোজ। 


কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানকে সমর্থন তুরস্কের, ভারতের ক্ষোভ

আবারও ইকো ট্রেন চলবে ইরান-তুরস্ক-পাকিস্তানে

সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে বিজিবির অভিযান, বিপুল গোলাবারুদ উদ্ধার

দেনমোহর পরিশোধ না করে স্ত্রীকে স্পর্শ করা যাবে কি না?


আরেক কোম্পানি মডার্না এখন পর্যন্ত কানাডায় ৫ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন সরবরাহ করেছে। আগামী সপ্তাহে তারা ১ লাখ ৬৮ হাজার ডোজ ভ্যাকসিন সরবরাহ করবে। প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী মার্চের মধ্যেই যাতে মডার্নার কাছ থেকে ১৩ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন পাওয়া যায় সেজন্য কোম্পানিটির সঙ্গে আলোচনা করছে কানাডা। দুই চালানে সেটি আসবে বলে জানান ফর্টিন। 

ভ্যাকসিনেশন কর্মসূচির ধীর গতির কারণে বিরোধীদল ও সমালোচকদের নজিরবিহীন চাপের মুখে পড়তে হয় ফেডারেল সরকারকে। জানুয়ারিতে সরবরাহ কমিয়ে দেয় ফাইজার। সাম্প্রতিক সপ্তাহে সরবরাহ কমিয়েছে মডার্নাও। সরবরাহ সংকটের কারণে অন্যান্য দেশের তুলনায় ভ্যাকসিনেশনে পিছিয়ে পড়ে কানাডা। 

সম্প্রতি এ সঙ্কট কাটিয়ে উঠার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। কানাডার জনস্বাস্থ্য এজেন্সির কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, কয়েক সপ্তাহ কমার পর স্বাভাবিকতায় ফিরেছে ফাইজার-বায়োএনটেক ও মডার্নার ভ্যাকসিন সরবরাহ। 

সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, কানাডায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৮ লাখ ৭২ হাজার ৭ শত ৪৭ জন, মৃত্যুবরণ করেছেন ২২ হাজার  ৪৫ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৮ লাখ ২০ হাজার ৪ শ' ৫০ জন। 

news24bd.tv আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

দুবাই প্রবাসীদের জন্য ওয়ান-স্টপ ব্যাংকিং সেবায় স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড

অনলাইন ডেস্ক

দুবাই প্রবাসীদের জন্য ওয়ান-স্টপ ব্যাংকিং সেবায় স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড

ফাইল ছবি

দুবাইয়ে বসবাসরত বাঙালি প্রবাসী (এনআরবি)-দের জন্য স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক প্রদর্শন করলো ওয়ান-স্টপ ব্যাংকিং সমাধান, ‘স্বদেশী ব্যাংকিং’।

স্বদেশী ব্যাংকিং-এর মাধ্যমে যেসকল বাঙালি প্রবাসীরা দুবাইয়ে বসবাস করছেন তারা স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের বিশেষভাবে নিবেদিত এনআরবি হেল্পডেস্ক থেকে এনআরবি ব্যাংকিং সুবিধা গ্রহন করতে পারবেন।

দুবাইয়ে সম্প্রতি “দ্যা রাইজ অব বেঙ্গল টাইগার: পটেনশিয়ালস অব বাংলাদেশ ক্যাপিটাল মার্কেটস” শীর্ষক একটি রোডশো-এর মধ্য দিয়ে উক্ত সুবিধাগুলোর প্রদর্শনী করা হয়। বাংলাদেশ সিকিউরিটিস অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)-এর পক্ষ থেকে রোডশো-টি আয়োজন করা হয়।

হেল্পডেস্কের মাধ্যমে প্রবাসী গ্রাহকরা সহজে মানি ট্রান্সফার, এনআরবি বন্ডস-এ বিনিয়োগ ও আকর্ষনীয় হোম ফাইন্যান্স সল্যুশনের মতো সুবিধা পাবেন।


গুপ্তচরবৃত্তির ইসরাইলি জাহাজে ইরানের হামলা!

ওটিটি প্ল্যাটফর্মেও ডাবল ব্লকবাস্টার দৃশ্যম টু!

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ নিয়ে মুখোমুখি অবস্থানে পাক-ভারত!

অপো নতুন ফোনে থাকছে ১২ জিবি র‌্যাম


গ্রাহকগণ ফরেইন কারেন্সি অ্যামাউন্ট থেকে শুরু করে নন-রেসিডেন্ট টাকা অ্যামাউন্ট, নন-রেসিডেন্ট এক্সক্লুসিভলি রেমিটেন্স-ফেড টাকা অ্যামাউন্ট, বাংলাদেশে বসবাসরতদের সাথে জয়েন্ট অ্যাকাউন্ট খোলার সুবিধা পর্যন্ত তাদের প্রয়োজন অনুযায়ী অ্যাকাউন্ট বাছাই করার সুযোগও পাবেন।

স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড বাংলাদেশের সিইও নাসের এজাজ বিজয়; হেড অব ফাইন্যান্সিয়াল ইন্সটিটিউশন আলমগীর মোর্শেদ; প্রায়োরিটি ব্যাংকিং, ডিপোজিট ও মর্টেজ এর জেনারেল ম্যানেজার লুতফুল হাবিব সহ ব্যাংকের অন্যান্য উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ রোডশো-তে অংশগ্রহন করেন।  

স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড বাংলাদেশের প্রাচীনতম আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে একটি এবং ব্যাংকিং সেবার পূর্ণাঙ্গ সুবিধা প্রদানকারী একমাত্র আন্তর্জাতিক ব্যাংক। পণ্য ও সমাধান প্রদানে ক্রমাগত উদ্ভাবনের মাধ্যমে স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড বাংলাদেশ রিটেইল গ্রাহকদের অর্থায়নে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে। স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড-ই বাংলাদেশের প্রথম ব্যাংক যারা ক্রেডিট কার্ড, এটিএম, ইন্টারনেট ব্যাংকিং সল্যুশন, সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয় ২৪ ঘণ্টা কল সেন্টার সহ অন্যান্য অসংখ্য যুগান্তকারী উদ্ভাবন চালু করেছে।

  news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

কুয়েতে অশ্লীল নৃত্য : ৪ বাংলাদেশিকে খুজঁছে দূতাবাস

অনলাইন ডেস্ক

কুয়েতে অশ্লীল নৃত্য : ৪ বাংলাদেশিকে খুজঁছে দূতাবাস

কুয়েতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অশ্লীল নৃত্যর সাথে কুয়েতি দিনার ছিটানোর দায়ে জড়িত ৪ বাংলাদেশিকে প্রয়োজনিয় কাগজপত্র ও ঠিকানাসহ যোগাযোগ করতে বলছে কুয়েতে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস।

মঙ্গলবার (২ মার্চ) কুয়েতে অবস্থিত বাংলাদেশি দূতাবাসের একটি জরুরী বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে (ফেসবুক/টিকটকে) ছড়িয়ে পড়া একটি ভিডিওতে ৪ জন বাংলাদেশীকে কুয়েতি দিনার ছিটিয়ে অশ্লীল নৃত্য করতে দেখা যায়। এ ধরনের কর্মকাণ্ড কুয়েতে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি চরমভাবে ক্ষুন্ন করেছে।


গুপ্তচরবৃত্তির ইসরাইলি জাহাজে ইরানের হামলা!

ওটিটি প্ল্যাটফর্মেও ডাবল ব্লকবাস্টার দৃশ্যম টু!

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ নিয়ে মুখোমুখি অবস্থানে পাক-ভারত!

অপো নতুন ফোনে থাকছে ১২ জিবি র‌্যাম


 

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, উক্ত ভিডিওর সাথে জড়িতদের ঠিকানা/পরিচয়/মোবাইল নাম্বার জানা থাকলে অতিসত্বর কুয়েতে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসে জানানোর জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে।

সেই সাথে প্রবাসে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয় এরকম যেকোন কাজকর্ম থেকে বিরত থাকা এবং স্থানীয় আইন-কানুন মেনে চলার জন্য কুয়েত প্রবাসী বাংলাদেশিদের কঠোর নির্দেশনা প্রধান করা হচ্ছে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়। 

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর