৬১ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী যারা

অনলাইন ডেস্ক

৬১ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী যারা

ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ দ্বিতীয় ধাপে ৬১টি পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে দলের একক প্রার্থিতা চূড়ান্ত করেছে। স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি নির্বাচন বোর্ডের বৈঠকে দলীয় প্রার্থিতা চূড়ান্ত করা হয়।

গণভবনে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকের সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী ও দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা

এতে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের দলের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফর উল্লাহ, ড. আবদুর রাজ্জাক, লে. কর্নেল (অব.) মুহাম্মদ ফারুক খান, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ প্রমুখ।

বৈঠক শেষে দলের কেন্দ্রীয় দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে চূড়ান্ত প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হয়।

আরও পড়ুন: সৌদি আরবে আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস পালন

এভাবে কি সন্তান লাভ সম্ভব?

শক্তিশালী দাবি করা যুক্তরাষ্ট্র ‘নাস্তানাবুদ’

৬১ পৌরসভায় নৌকার মাঝি হলেন যারা: দিনাজপুরের সদর পৌরসভায় রাশেদ পারভেজ, বিরামপুরে আক্কাস আলী, বীরগঞ্জে মো. নূর ইসলাম, নীলফামারীর সৈয়দপুরে রাফিকা আকতার জাহান, কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে ফরহাদ হোসেন ধলু, গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ আবদুল্লাহ আল মামুন, গাইবান্ধা সদরে শাহ মাসুদ জাহাঙ্গীর কবীর, বগুড়া শেরপুরে আবদুস সাত্তার, সারিয়াকান্দিতে আলমগীর শাহী, সান্তাহার আশরাফুল ইসলাম মন্টু, নওগাঁ নজিপুরে রেজাউল কবির চৌধুরী, রাজশাহীর গোদাঘাটের কাকনহাটে একেএম আতাউর রহমান খান, ভবানীগঞ্জে মো. আ. মালেক, বাঘার আড়ানীতে মো. শহীদুজ্জামান, নাটোরের নলডাঙ্গায় মো. মনিরুজ্জামান মনির, গোপালপুরে কাজী আসিয়া জয়নুল, গুরুদাসপুরে মো. শাহনেওয়াজ আলী, সিরাজগঞ্জ সদরে সৈয়দ আবদুর রউফ মুক্তা, উল্লাপাড়ায় এসএম নজরুল ইসলাম, বেলকুচিতে বেগম আশানুর বিশ্বাস, রায়গঞ্জে আবদুল্লাহ আল পাঠান, কাজিপুরে আবদুল হান্নান তালুকদার, পাবনার ঈশ্বরদীতে ইছাহাক আলী মালিথা, ফরিদপুরে খন্দকার মো. কামরুজ্জামান মাজেদ, সাঁথিয়ায় মাহবুবুল আলম, ভাঙ্গুরায় মো. গোলাম হাসনাইন এবং সুজানগরে রেজাউল করিম। 

এ ছাড়া মেহেরপুরের গাংনী পৌরসভায় আহম্মেদ আলী, কুষ্টিয়া সদরে আনোয়ার আলী, কুমারখালীতে মো. সামছুজ্জামান অরুন, ভেড়ামারায় শামিমুল ইসলাম ছানা, মিরপুরে এনামুল হক, ঝিনাইদহের শৈলকুপায় কাজী আশরাফুল আজম, বাগেরহাটের মংলাপোর্টে শেখ আবদুর রহমান, মাগুরা সদরে খুরশীদ হায়দার টুটুল, পিরোজপুর সদরে হাবিবুর রহমান মালেক, টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে খন্দকার মনজুরুল ইসলাম তপন, কিশোরগঞ্জ সদরে পারভেজ মিয়া, কুলিয়ারচরে সৈয়দ হাসান সারওয়ার মহসিন, ঢাকার সাভারে হাজী মো. আবদুল গনি, নরসিংদীর মনোহরদিতে মোহাম্মদ আমিনুর রশীদ, নারায়ণগঞ্জের তারাবোতে হাছিনা গাজী, ফরিদপুরের বোয়ালমারিতে সেলিম রেজা, শরীয়তপুর সদরে পারভেজ রহমান, ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায় বিল্লাল হোসেন সরকার, ফুলবাড়িয়ায় গোলাম কিবরিয়া, নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে লতিফুর রহমান রতন ও কেন্দুয়ায় আসাদুল হক ভুইয়া।

সুনামগঞ্জ জেলা সদর পৌরসভায় নাদের বখত, ছাতকে আবুল কালাম চৌধুরী, জগন্নাথপুরে মিজানুর রশীদ ভুঁইয়া, মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে জুয়েল আহমেদ, কুলাউড়ায় সিপার উদ্দিন আহমেদ, হবিগঞ্জের মাধবপুরে শ্রীধাপ দাশ গুপ্ত, নবীগঞ্জে গোলাস রসূল রাহেল চৌধুরী, কুমিল্লার চান্দিনায় শওকত হোসেন ভুইয়া, ফেনীর দাগনভুঁইয়ায় ওমর ফারুক খাঁন, নোয়াখালীর বসুরহাটে আবদুল কাদের, চট্টগ্রামের সন্দ্বীপে মোক্তাদের মাওলা সেলিম, খাগড়াছড়ি সদরে নির্মলেন্দু চৌধুরী এবং বান্দরবানের লামায় জহিরুল ইসলাম।

উল্লেখ্য, নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী দ্বিতীয় ধাপে এই ৬১টি পৌরসভায় ২০ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ দিন। ১৬ জানুয়ারি হবে ভোটগ্রহণ। দ্বিতীয় দফায় ৬১টি পৌরসভার মধ্যে ২৯টিতে ইভিএমে এবং বাকি ৩২টি পৌরসভায় ব্যালটে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রধানমন্ত্রীকে হুমকি : আ.লীগের হুংকার, ক্ষমা চাইলেন মিনু

অনলাইন ডেস্ক

প্রধানমন্ত্রীকে হুমকি : আ.লীগের হুংকার, ক্ষমা চাইলেন মিনু

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে অবজ্ঞা ও তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘হত্যার’ ইঙ্গিতপূর্ণ বক্তব্য দেয়ায় বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনুকে ক্ষমা চাইতে বলেছিল আওয়ামী লীগ। এ জন্য তাকে ৭২ ঘণ্টার সময়ও বেধে দেয়া হয়। সেই সময় শনিবার সন্ধ্যায় শেষ হয়। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ক্ষমা না চাইলেও পরদিন তিনি দুঃখ প্রকাশ করলেন। যোগাযোগ করা হলে মিজানুর রহমান মিনু এই বিবৃতিটি পাঠানোর বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

রোববার (৭ মার্চ) এক বিবৃতিতে তিনি দুঃখ প্রকাশ করেছেন বলে জানিয়েছেন রাজশাহী নগর বিএনপির দপ্তর সম্পাদক নাজমুল হক ডিকেন। এদিন দুপুরে তিনি এ সংক্রান্ত একটি বিবৃতি গণমাধ্যমে পাঠিয়েছেন।

বিবৃতিতে মিনু উল্লেখ করেছেন, ‘আমার বক্তব্যের জন্য যারা ব্যথিত হয়েছেন, মর্মাহত হয়েছেন, আমি তাদের নিকট দুঃখ প্রকাশ করছি।’

মিনু আরও বলেন, আমি এই মহানগরীতে জন্মগ্রহণ করে দীর্ঘদিন রাজশাহীবাসীকে নিয়ে রাজনৈতিক নিষ্ঠার সাথে দ্বায়িত্ব পালন করে আসছি। স্বৈরাচার এরশাদবিরোধী আন্দোলনসহ সকল আন্দোলনে পাশে পেয়েছি। সুতরাং কোন ব্যক্তি বিশেষ বা গোষ্ঠী বিশেষকে উদ্দেশ্য করে আক্রোশমূলক বক্তব্য প্রদান করা আমার স্বভাববহির্ভূত। তাই সকলকে আমার বক্তব্যে ষড়যন্ত্র না খোঁজার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ জানাচ্ছি।


অভাব দুর হবে, বাড়বে ধন-সম্পদ যে আমলে

সংবাদ উপস্থাপনায় ও নাটকে রূপান্তরিত দুই নারী

করোনার ভ্যাকসিন গ্রহণে বাধা নেই ইসলামে

কমেন্টের কারণ নিয়ে যা বললেন কবীর চৌধুরী তন্ময়


এর আগে গত মঙ্গলবার বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশে মিজানুর রহমান মিনু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘আজ রাত, কাল আর সকাল নাও হতে পারে। ৭৫ মনে নাই?’ সেই সমাবেশে মিনু জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকেও কটাক্ষ করে বক্তব্য দেন। এর প্রতিবাদে ফুঁসে ওঠে নগর আওয়ামী লীগ। পরদিনই বিক্ষোভ-সমাবেশ করে দলটি। সেই সমাবেশ থেকে নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন মিনুকে ৭২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দেন।

লিটন ঘোষণা দেন, এই সময়ের মধ্যে মিনু ক্ষমা না চাইলে তার বিরুদ্ধে মামলা করা হবে। আর বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ও রাজশাহী-২ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা এক প্রতিবাদলিপিতে মিনুর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয়ভাবে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান। নগর ওয়ার্কার্স পার্টির বিক্ষোভ-সমাবেশ থেকে মিনুকে গ্রেপ্তারের দাবি জানানো হয়।

বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীকে কটাক্ষ এবং আরেকটি ১৫ আগস্টের ইঙ্গিতপূর্ণ বক্তব্য দেয়ায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরও তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখান। গত শুক্র ও শনিবার বিষয়টি নিয়ে তিনি কথা বলেন। মিনু এত সাহস কোথায় পেলেন সেই প্রশ্নও তোলেন ওবায়দুল কাদের। অবশেষে মিজানুর রহমান মিনু গণমাধ্যমে বিবৃতি পাঠিয়ে এ নিয়ে দুঃখ প্রকাশ করলেন।

মিনুর দুঃখ প্রকাশ নিয়ে আওয়ামী লীগ কী ভাবছে জানতে চাইলে নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার  বলেন, ‘সেটা আবার আলোচনার বিষয়। আমরা আবার একটু আলোচনা করে সিদ্ধান্ত জানাব।’

এদিকে মিনুর বিবৃতি প্রসঙ্গে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, ‘এটা মিজানুর রহমান মিনুর একান্তই ব্যক্তিগত বক্তব্য। এ ব্যাপারে বিএনপি কী বলছে আমরা সেটা শুনতে চাই।’

তিনি বলেন, ‘মিজানুর রহমান মিনু অতীতে জঙ্গিবাদে মদদ দিয়েছেন। সেটা প্রমাণিত। তাই অতীতের মতো এখনও তিনি জঙ্গিবাদ কিংবা ষড়যন্ত্রের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত কিনা সে ব্যাপারে গোয়েন্দা সংস্থার মাধ্যমে তথ্য সংগ্রহ করা প্রয়োজন। আমরা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে এ বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য অনুরোধ করছি।’

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ওবায়দুল কাদের আজকে দিশেহারা: কাদের মির্জা

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

ওবায়দুল কাদের আজকে দিশেহারা: কাদের মির্জা

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা বলেছেন, আমাদের নেতা ওবায়দুল কাদের সাহেব আজকে দিশেহারা। 

আজকে কিছু ষড়যন্ত্রকারীর খপ্পরে পড়ে আজকে তার উস্কানিতে তাঁর মদদে আজকে এখানে তারা সমাবেশ করছে। অথচ আমাদের দল সমাবেশ বন্ধ করেছে। 


সালমান খানের তোয়ালে পরা ছবি ভাইরাল

দেব-মিমি-নুসরাত যে কারণে প্রার্থীদের তালিকায় নেই

চুম্বনের দৃশ্যের আগে ফালতু কথা বলতো ইমরান : বিদ্যা

রণবীরের সঙ্গে ক্যাটরিনার খোলামেলা ছবি বিশ্বাস হয়নি সালমানের


রোববার (৭মার্চ) সকাল সাড়ে ১০টায় বসুরহাট জিরো পয়েন্টের বঙ্গবন্ধু চত্তরে অগ্নিঝরা ৭মার্চ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে পুষ্পমাল্য অর্পণের আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, আমার অপরাধ আমি কেন শেখ হাসিনার সাথে ডাইরেক্ট যোগাযোগ করি। এটাই হচ্ছে আমার অপরাধ। উনি বরদাস্ত করতেছে না। আমিতো নেত্রীর সাথে প্রথম থেকে যোগাযোগ করে নির্বাচনও করতেছি, সবকিছু করতেছি। আমি এটা থেকে সরতে পারব না। আমাদের শেষ ঠিকানা হচ্ছে নেত্রী। আজকে আমরা তাঁর নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ। 

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

একদিন পরই সুর পাল্টালেন এমপি একরাম

নিজস্ব প্রতিবেদক

একদিন পরই সুর পাল্টালেন এমপি একরাম

একরামুল করিম চৌধুরী

‘নোয়াখালী আমি চালাই’ বলার একদিন পরই সুর পাল্টালেন নোয়াখালী-৪ আসনের (সদর ও সুবর্ণচর) সংসদ সদস্য এবং জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক একরামুল করিম চৌধুরী।

শুক্রবার (৫ মার্চ) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় তিনি বলেন, ‘গত ছয় দিন আমি ঢাকাতে ছিলাম। আমি নেত্রীকে কতগুলো ম্যাসেজ (বার্তা) পাঠিয়েছি, উনি ম্যাসেজগুলো দেখেছেন। ঢাকায় নেত্রীর সঙ্গে যিনি সব সময় থাকেন, তিনি আমার কাছে জানতে চান, নোয়াখালী চালায় কে? আমি বলি, নোয়াখালী চালাই আমি।’

বক্তব্যটি দেওয়ার একদিন পরই শনিবার (৬ মার্চ) বিকেলে নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয় থেকে ফেসবুক লাইভে আসেন তিনি। 

এসময় একরাম চৌধুরী বলেন, ‘নোয়াখালী আওয়ামী লীগ এক, অভিন্ন। আমাদের মধ্যে কোনো ভেদাভেদ নাই। কোনো ব্যক্তিবিশেষের জন্য আওয়ামী লীগ নয়। কোনো ব্যক্তিবিশেষ লাইভে কিছু বললেই ক্ষতি হবে, এটা সেই আওয়ামী লীগ না। নোয়াখালী আওয়ামী লীগ অনেক শক্তিশালী আওয়ামী লীগ।’

প্রায় দুই মিনিটের লাইভে একরামুল করিম চৌধুরী৭ মার্চ উপলক্ষে রোববার বিকেলে সোনাপুর কলেজ মাঠে আয়োজিত সমাবেশে যোগ দিতে নেতা–কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান। 


মশা মারতে গিয়ে পুড়ে গেলেন মা ও দুই মেয়ে

আস্থা ভোটে জিতলেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান

চিকিৎসাপত্র ছাড়াই ওষুধ কিনছেন ক্রেতারা, রোগী দেখছেন ফার্মেসি মালিকরা

দেশে বাজারে আবারও কমছে স্বর্ণের দাম


তিনি বলেন, ‘যারা মুজিব প্রেমিক, শেখ হাসিনার সৈনিক, আমি সকলকে অনুরোধ করব আপনারা যে যেখানে থাকেন; আপনারা যদি আপনাদের এমপিকে ভালোবাসেন, আগামীকাল বিকেল ৩টার প্রোগ্রামে যে যেখান থেকে পারেন ছুটে আসবেন। কারণ, নোয়াখালী আওয়ামী লীগ নিয়ে একটা চক্রান্ত চলছে। আমরা একটু বুঝিয়ে দিতে চাই, আমরা নোয়াখালী আওয়ামী লীগ এক, অভিন্ন।’

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ভিন্নমতের ওপর নির্মম নির্যাতনের অভিযোগ মির্জা ফখরুলের

মারুফা রহমান

ভিন্নমতের ওপর নির্মম নির্যাতনের অভিযোগ মির্জা ফখরুলের

সরকারের আড়ালে থেকে একটি ভয়ংকর শক্তি বিরোধীদের নিশ্চিহ্ন করতে  ভিন্নমতের ওপর নির্মম নির্যাতন চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

অন্যদিকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে প্রতিবাদ সভা থেকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি জানান বিএনপির স্থায়ী কমিটির দুই সদস্য, মির্জা আব্বাস ও গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। 

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে, এক আলোচনা সভায় বিএনপি মহাসচিব, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, বর্তমান সরকার কোন ধরনের সমালোচনা সহ্য করতে পারে না, যারাই সরকারের খারাপ কাজের সমালোচনা করে তাদেরই হামলা-মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে। এছাড়া বিরোধী মত দমনে এই সরকার নির্যাতনের সব রেকর্ড ভেঙে ফেলেছে বলে দাবি করেন তিনি।


মশা মারতে গিয়ে পুড়ে গেলেন মা ও দুই মেয়ে

আস্থা ভোটে জিতলেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান

চিকিৎসাপত্র ছাড়াই ওষুধ কিনছেন ক্রেতারা, রোগী দেখছেন ফার্মেসি মালিকরা

দেশে বাজারে আবারও কমছে স্বর্ণের দাম


এদিকে, জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সেচ্ছাসেবক দলের প্রতিবাদ সমাবেশে, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি জানিয়েছে বিএনপি নেতারা। এসময় নেতাকর্মীদের সাহস সঞ্চয় করে সরকারকে রুখে দেয়ার কথা বলেন তারা।

সমাবেশের মাঝে নিজেদের ভেতর কয়েকদফা গন্ডগোল করে, বিএনপি নেতা-কর্মীরা।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

জনগণের দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে: ড. কামাল

অনলাইন ডেস্ক

জনগণের দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে: ড. কামাল

গণফোরামের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, জনগণের দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। এখন সামনে অগ্রসর হওয়া ছাড়া কোনো বিকল্প নেই। এ রাজনৈতিক অব্যবস্থাপনা ও অর্থনৈতিক লুণ্ঠনের প্রতিবাদে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

এ সময় তিনি আরও বলেন, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার পরিবর্তে দেশ এখন দুঃশাসন ও দুর্নীতির স্বর্গরাজ্যে পরিণত হয়েছে। 

আজ শনিবার (৬ মার্চ) জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলেন লিখিত বক্তব্যে তিনি এ সব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগ নিজেদের নির্বাচিত দাবি করে দেশ শাসন করছে অভিযোগ করে ড. কামাল বলেন, তাদের প্রতি জনগণের আস্থা-বিশ্বাস ও সমর্থন নেই। 

জনবিচ্ছিন্ন এ সরকার জনগণকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে ক্ষমতা দীর্ঘায়িত করার অপকৌশল হিসেবে বিভিন্ন কালাকানুন জারি করেছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন তারই অংশ বিশেষ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন মোকাব্বির খান এমপি, দলপির ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক আ হ ম শফিকুল্লাহ, গণফোরাম নেতা মোশতাক আহমেদ, জানে আলম, সুরাইয়া বেগম প্রমুখ।


কুমিরের পেট থেকে বের করা হচ্ছে আস্ত মানুষ (ভিডিও)

প্রেমের বিয়ের ৪ মাসের মাথায় নববধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

বাক্‌স্বাধীনতা সুরক্ষিত রাখতে মানবাধিকার সংস্থাগুলোর আহ্বান

চুম্বনের দৃশ্যের আগে ফালতু কথা বলতো ইমরান : বিদ্যা


news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর