‘পাকিস্তানে ঢুকে হামলার প্রস্তুতি ভারতের’, ইসলামাবাদের পাল্টা হুমকি

অনলাইন ডেস্ক

‘পাকিস্তানে ঢুকে হামলার প্রস্তুতি ভারতের’, ইসলামাবাদের পাল্টা হুমকি

পাকিস্তানের মাটিতে প্রবেশ করে দেশটির বিরুদ্ধে সামরিক হামলার পরিকল্পনা করছে ভারত। এমন অভিযোগ তুলে পরমাণু শক্তিধর প্রতিবেশী দু’দেশের মধ্যকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে সহায়তার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ইসলামাবাদ।

শুক্রবার (১৮ ডিসেম্বর) সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাজধানী আবুধাবিতে সাংবাদিকদের পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরিশ হুঁশিয়ার করে বলেন, হামলা চালানো হলে দাঁতভাঙা জবাব দেওয়া হবে।

বলেন, গোয়েন্দা সংস্থাগুলো জানিয়েছে, ভারত পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক চালানোর পরিকল্পনা করছে। তারা এ বিষয়ে ব্যাপক প্রস্তুতি নিচ্ছে। আন্তর্জাতিক মিত্রদের কাছ থেকে অনুমতি নেওয়ার চেষ্টা করছে নয়াদিল্লি।

আরও পড়ুন: ৬১ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী যারা

ধারের টাকা আনতে গিয়ে ‘ধর্ষণ’, পরে নিয়মিত, শেষে অস্বীকার

এভাবে কি সন্তান লাভ সম্ভব?

১৯৪৭ সালে ব্রিটেন থেকে স্বাধীনতা পাওয়ার পর তিনদফা যুদ্ধে জড়িয়েছে ভারত পাকিস্তান। নানা কারণে দু’পক্ষের মধ্যে অব্যাহতভাবে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে দু’দেশের সামরিক বাহিনী সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় রয়েছে। ওই সময় ভারত পাকিস্তানে বোমা নিক্ষেপ করে। জবাবে, ভারতের একটি যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করে। আটক করে পাইলটকে।

পরে উত্তেজনা কমানোর জন্য ভূপাতিত করা বিমানের পাইলটকে মুক্তি দেয় পাকিস্তান।

কুরেশি বলেন, পাকিস্তানে যদি হামলা চালানো হয় ভারতেও হামলা হবে। আমি পরিষ্কারভাবে ভারতকে বলে দিতে চাই, পাল্টা আঘাত এবং তাদের পরাস্ত করতে আমরা সম্পূর্ণভাবে প্রস্তুত।

‘২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে আমরা যেভাবে তাৎক্ষণিকভাবে কার্যকরি পদক্ষেপ নিয়েছি, ভারত যদি আবারও পুরানো পথে হাঁটে, তাহলে আমরা আগের মতো ব্যবস্থা গ্রহণ বাধ্য হবো।’ বলেন কুরেশি।

তাৎক্ষণিকভাবে ভারত কোনো প্রতিক্রিয়া জানায়নি। 

পাকিস্তানের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা মুঈদ ইউসুফ বলেন, সুনির্দিষ্ট এবং নির্ভরযোগ্য গোয়েন্দা সূত্রে ভারতের হামলা পরিকল্পনার তথ্য আমরা জানতে পেরেছি।

‘বিশ্বে শান্তি রক্ষা করা সবার সমন্বিত দায়িত্ব। অভ্যন্তরীণ সংকট থেকে চোখ সরানোর জন্য ভারত হামলার পরিকল্পনা করছে। বিশ্ববাসীর উচিৎ ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ড থেকে ভারতকে বিরত রাখা।’ বলেন ইউসুফ।

দুই প্রতিবেশী একে অপরের বিরুদ্ধে অব্যাহতভাবে সশস্ত্রগোষ্ঠীগুলোকে সহায়তা এবং হামলা পরিকল্পনার অভিযোগ করে আসছে।

২০১৬ সালে ভারত দাবি করেছে, তারা পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক চালিয়েছে। ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের উরিতে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর উপর সশস্ত্রগোষ্ঠীর হামলার জবাবে সামরিক অভিযান চালানো হয় বলে জানায় নয়াদিল্লি।

ওই সময় পাকিস্তান তাদের ভূখণ্ডে ভারতীয় সামরিক অভিযানের দাবিকে উড়িয়ে দেয়।

পাকিস্তানের সামরিক বাহিনী এবং দেশটির পরাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, শুক্রবার পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে গুলি চালিয়ে জাতিসংঘের একটি গাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ভারত।

এক বিবৃতিতে সামরিক বাহিনী জানায়, বিনা উস্কানিতে ভারতের সেনাবাহিনী লাইন অব কন্ট্রোলের চিরিকোট সেক্টর গুলি চালিয়েছে। ভারতীয় বাহিনী সুনির্দিষ্টভাবে জাতিসংঘের গাতি হামলা চালায়। এসময় সামরিক বাহিনীর দুজন পর্যবেক্ষণ গাড়িতে ছিলেন।

পাকিস্তানের সামরিক বাহিনী একটি ছবি প্রকাশ করেছে। ছবিতে বুলেটের চিহ্ন এবং ক্ষতিগ্রস্ত গাড়ি দেখা যায়।

এ ঘটনায় জাতিসংঘ এখনো কোনো বিবৃতি দেয়নি।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বস্তিবাসীকে না জানিয়েই ভ্যাকসিনের ট্রায়াল

অনলাইন ডেস্ক

বস্তিবাসীকে না জানিয়েই ভ্যাকসিনের ট্রায়াল

গত ডিসেম্বরের ঘটনা। একটি সাদা মাইক্রোবাস এসে থামে ভারতের ভোপালের এক বস্তিতে। গাড়ি থেকে মাইকিং করা হয়, করোনার ভ্যাকসিন নিলে দেয়া হবে ৭৫০ রুপি।

যা সেই বস্তির বেশিরভাগ মানুষের দৈনিক রোজগারের প্রায় দ্বিগুন। তার উপরে এই অতিমারির মধ্যে সেসময়ে অনেকের হাতেই কাজ ছিলো না। ফলে এই প্রস্তাব ফেরানো তাদের অনেকের পক্ষেই সম্ভব ছিল না।

তারা জানতো তাদেরকে করোনার ভ্যাকসিন দেয়া হয়েছে। কিন্ত আদতে যে ভ্যাকসিন দেয়ার নাম করে তাদের ওপর ভ্যাকসিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চালানো হয়েছে তা তারা জানতোই না! সিএনএন এর এক প্রতিবেদনে বিষয়টি উঠে এসেছে।

ওই বস্তিতে যারা টিকা নিয়েছিলেন তাদের মধ্যে একজন গৃহিণী যশোদা বাই যাদব। তিনি ও তার স্বামী এই ঘোষণার পর টিকা নিয়েছিলেন সেখান থেকে। তিনি বলেন, “তারা আমাদের বলেছিলো এটা করোনার ভ্যাকসিন। আমরা যাতে অসুস্থ না হই তাই এটা আমাদের নেয়া উচিত।”

বস্তিবাসী জানায়, তারা পরবর্তীতে জানতে পারে তাদের ওপর ভারতের নিজস্ব করোনার টিকা ‘কোভ্যাক্সিন’ এর ট্রায়াল চালানো হয়েছে।

তাদের ওপর ট্রায়ালের ফেজ-৩ চালানো হয়েছে। এই ধাপে অর্ধেক অংশগ্রহণকারীর শরীরে টিকা ও বাকি অর্ধেকের শরীরে প্লাসিবো দেয়া হয়।

রাধা আহেরওয়ার নামে একজন ক্ষোভ প্রকাশ করে সিএনএন-কে বলেন, “তো আমরা টিকা পেয়েছি কিনা তাও জানি না! হয়তো আমাদের শরীরে ইঞ্জেকশন দিয়ে শুধুমাত্র পানি প্রবেশ করানো হয়েছে।”


ভূতের আছর থেকে বাঁচতে পৈশাচিক কান্ড

বাইডেনের নির্দেশে সিরিয়ায় বিমান হামলা

হৃদরোগে মৃত্যুর পরও ফাঁসিতে ঝুলানো হল নিথর দেহ

৭ সন্তান নিতে স্বেচ্ছায় দেড় লাখ ডলার জরিমানা গুনলেন চীনা দম্পতি


তবে পিপল’স হাসপাতালের যে দলটি ভ্যাকসিন ট্রায়ালের দায়িত্বে ছিলো তারা হয়তো ভালোভাবে ট্রায়ালের বিষয়টি ব্যাখ্যা করতে পারে নি বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

তবে এরকমটা হয়ে থাকলে তা ট্রায়ালের শর্ত, নৈতিকতাকে এবং প্রাপ্ত তথ্যের মানকে প্রশ্নবিদ্ধ করে বলে জানিয়েছেন ইন্ডিয়ান জার্নাল অফ মেডিকেল এথিক্স এর সম্পাদক আমার জোশি।

এছাড়া এর ফলে সাধারণ মানুষের মধ্যে টিকা দিয়ে দ্বিধাকে আরো বাড়িয়ে তুলবে বলেও মনে করেন তিনি।

সূত্রঃ সিএনএন

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

তাইওয়ান প্রণালীতে আমেরিকার জাহাজ আঞ্চলিক শান্তি বিনষ্ট করছে: চীন

অনলাইন ডেস্ক

তাইওয়ান প্রণালীতে আমেরিকার জাহাজ আঞ্চলিক শান্তি বিনষ্ট করছে: চীন

তাইওয়ান প্রণালীতে মার্কিন যুদ্ধজাহাজ চালানোর নিন্দা জানিয়ে চীনের সামরিক বাহিনী বলেছে, এ ধরনের পদক্ষেপের মাধ্যমে আমেরিকা আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতিশীলতা নষ্ট করছে। তাইওয়ান প্রণালী চীনের মূল ভূখণ্ড থেকে তাইওয়ানকে আলাদা করেছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার চীনের সামরিক বাহিনীর পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ডের মুখপাত্র এক বিবৃতিতে তাইওয়ান প্রণালীতে মার্কিন যুদ্ধজাহাজ পরিচালনার নিন্দা জানান। গতকাল মার্কিন সামরিক বাহিনী তাইওয়ান প্রণালীতে গাইডেড মিসাইল ডেস্ট্রয়ার ইউএসএস কার্টিজ উইলবার নিয়ে চীনকে শক্তি প্রদর্শন করে। চীনা সামরিক বাহিনী মার্কিন তৎপরতার নিন্দা জানালেও আমেরিকা বলছে নিয়মিত রুটিনের আওতায় তারা তাইওয়ান প্রণালীতে যুদ্ধজাহাজ পাঠিয়েছে।

আরও পড়ুন:


এনা ও লন্ডন এক্সপ্রেসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৮, আহত ২০

বড় ভাইয়ের স্ত্রীকে ভাগিয়ে বিয়ে, ৩৬ বছর পর গ্রেফতার!

কাল জানা যাবে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক খুলবে কিনা

বিপদে যে দোয়া পড়তে হয়


এর আগে গত ৪ ফেব্রুয়ারি মার্কিন বাহিনী তাইওয়ান প্রণালীতে ইউএসএস ম্যাককেইন ডেস্ট্রয়ার পাঠায়। এরপর গতকাল আবার যুদ্ধজাহাজ পাঠালো। তাইওয়ান প্রণালীতে যুদ্ধজাহাজ পাঠানো নিয়ে আমেরিকা ও চীনের মধ্যে দিন দিন দ্বন্দ্ব জোরদার হচ্ছে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বাইডেনের নির্দেশে সিরিয়ায় বিমান হামলা

অনলাইন ডেস্ক

বাইডেনের নির্দেশে সিরিয়ায় বিমান হামলা

দায়িত্ব গ্রহণের এক মাসের পরই সিরিয়ায় বিমান হামলা পরিচালনার নির্দেশ দিলেন নতুন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। মার্কিন মসনদে বসার পর যুদ্ধ পরিচালনার জন্য এটিই তার প্রথম নির্দেশ।

গত ২০ জানুয়ারি সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে বিপুল ভোটে পরাজিত করে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব এই ডেমোক্র্যাট নেতা। 

সিএনএন এর এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সিরিয়ায় ইরান সমর্থিত দুটি মিলিশিয়া গ্রুপের ঘাঁটিতে বিমান হামলার নির্দেশ দিয়েছেন বাইডেন।

জানা গেছে, নির্দেশের পর এরই মধ্যে ইরান সমর্থিত মিলিশিয়া গ্রুপের দুটি ঘাঁটিতে বিমান চালিয়েছে মার্কিন বাহিনী।

গত সপ্তাহে মার্কিন বাহিনীর ওপর রকেট হামলার ঘটনা ঘটে। ওই হামলা ইরান সমর্থিত এই মিলিশিয়া গ্রুপ দুটি চালিয়েছে বলে দাবি মার্কিন বাহিনীর। তবে এর পক্ষে জোরালো কোনও প্রমাণ নেই তাদের।


ভূতের আছর থেকে বাঁচতে পৈশাচিক কান্ড

হৃদরোগে মৃত্যুর পরও ফাঁসিতে ঝুলানো হল নিথর দেহ

৭ সন্তান নিতে স্বেচ্ছায় দেড় লাখ ডলার জরিমানা গুনলেন চীনা দম্পতি

১৯ বছর পর অস্ত্রোপচার করে যমজ বোনে পরিণত হলেন যমজ দুই ভাই


পেন্টাগনের মুখপাত্র জন কির্বি বলেছেন, এই হামলাগুলো প্রেসিডেন্ট বাইডেনের নির্দেশেই হয়েছে। এটি শুধু আমেরিকান ও জোট বাহিনীর বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক হামলার প্রতিক্রিয়া জানাতে নয়। বরং এই ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে চলমান হুমকি মোকাবেলা করার জন্যও কর্তৃপক্ষ এই হামলার অনুমোদন দিয়েছে।

কির্বি বলেন, জোটের শরিকদের-সহ মার্কিন মিত্রদের সাথে পরামর্শ করে বাইডেন এই হামলা পরিচালনার নির্দেশ দিয়েছেন।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মিয়ানমারের ওপর অস্ত্র নিষেধাজ্ঞার দাবিতে ১৩৭ এনজিও

অনলাইন ডেস্ক

মিয়ানমারের ওপর অস্ত্র নিষেধাজ্ঞার দাবিতে ১৩৭ এনজিও

মিয়ানমারের বিরুদ্ধে জরুরি অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা আরোপের জন্য জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে বিশ্বের ৩১টি দেশের প্রায় ১৩৭টি এনজিও।

একটি খোলা চিঠিতে এনজিওগুলো বলছে, ‘সামরিক অভ্যুত্থানের জবাবে এবং নির্যাতন বন্ধে জান্তাদের ঠেকাতে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদকে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে জরুরি বিশ্বব্যাপী অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা উচিত।’

এতে আরো বলা হয়, ‘চীন, ভারত, ইসরাইল, উত্তর কোরিয়া, ফিলিপাইন, রাশিয়া এবং ইউক্রেনসহ যে সব দেশ মিয়ানমারে অস্ত্র সরবরাহ করে অবিলম্বে তাদের অস্ত্র, গোলাবারুদ এবং এ সম্পর্কিত সরঞ্জাম সরবরাহ বন্ধ করতে হবে।’

অস্ত্র সরবরাহকারী দেশগুলোর মধ্যে তিনটি দেশ জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য, স্থায়ী সদস্য রাশিয়া ও চীনের ভেটো ক্ষমতা রয়েছে এবং অস্থায়ী সদস্য হিসেবে রয়েছে ভারত।


ভূতের আছর থেকে বাঁচতে পৈশাচিক কান্ড

হৃদরোগে মৃত্যুর পরও ফাঁসিতে ঝুলানো হল নিথর দেহ

৭ সন্তান নিতে স্বেচ্ছায় দেড় লাখ ডলার জরিমানা গুনলেন চীনা দম্পতি

১৯ বছর পর অস্ত্রোপচার করে যমজ বোনে পরিণত হলেন যমজ দুই ভাই


হিউম্যান রাইটস ওয়াচের (এইচআরডব্লিউ) পরিচালক কেনেথ রোথ লিখেছেন, ‘রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে নৃশংসতা, কয়েক দশক ধরে যুদ্ধাপরাধ এবং নির্বাচিত সরকার উৎখাতের জন্য অন্তত জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ মিয়ানমারের ওপর বৈশ্বিক অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে পারে।’

চিঠিতে স্বাক্ষরকারীরা বলেছেন, ‘নিরাপত্তা পরিষদের উচিত মিয়ানমারের জান্তা নেতৃত্ব ও সামরিক কর্তৃপক্ষের ওপর বিশ্বব্যাপী ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ এবং তাদের সম্পদ জব্দ করা।’

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

লিভ টুগেদার ও সমকামী বিয়ে ভারতীয় সংস্কৃতির পরিপন্থী

অনলাইন ডেস্ক

লিভ টুগেদার ও সমকামী বিয়ে ভারতীয় সংস্কৃতির পরিপন্থী

বিয়ে না করে প্রেমিক-প্রেমিকার একসঙ্গে থাকা ভারতীয় ‘পরিবার ধারণা’র সঙ্গে খাপ খায় না বলে জানিয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। সমকামী সম্পর্ক ভারতীয় সংস্কৃতির পরিপন্থী বলেও বৃহস্পতিবার দিল্লি হাইকোর্টে হলফনামা দিয়ে বিরোধিতা করা হয়।

দীর্ঘদিন ধরে চলা এই মামলায়, ৩৭৭ ধারা-উত্তর ভারতে, সমকামী বিবাহকে স্বীকৃতি দেওয়া ও বৈধ করার আর্জি জানানো হয়েছিল।

আবেদনকারীদের দাবি ছিল, ইচ্ছুক সমকামীদের বিবাহের অধিকার থেকে বঞ্চিত করা আসলে সংবিধানের মৌলিক অধিকারকে খর্ব করা। দিল্লি হাইকোর্ট এই বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের মত জানতে চেয়ে বারবার নোটিস পাঠালেও, এর আগে সরকারের তরফে কোনও সদুত্তর দেওয়া হয়নি।


গণধর্ষণের চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে কলেজছাত্রীর গায়ে আগুন

বাবার সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে রাতধর ধর্ষণের শিকার মেয়ে

৩০-৩২ গার্লফ্রেন্ড থাকার পরও আমাকে ভালোবাসত নাসির: তামিমা

আমার সব প্রশ্নের জবাব ইসলামে পেয়েছি: কানাডিয়ান নারী


বৃহস্পতিবার অবশেষে সরকারের তরফে বলা হয়েছে, ৩৭৭ ধারা বাতিলের অর্থ এই নয় যে সমকামী বিবাহ বৈধতা পাবে।

তিন বছর আগে ৩৭৭ ধারা বাতিল করে দেশের সর্বোচ্চ আদালত।

অর্থাৎ, সমকামী যুগলের একসঙ্গে থাকা আর দণ্ডনীয় অপরাধ নয়। সম্মতিক্রমে সমকামী সম্পর্ক অপরাধমূলক আচরণ নয়, সে কথা বলা হয়েছিল তখনই।

কিন্তু এ দিন সরকারের তরফে বলা হয়েছে, ভারতীয় সংস্কৃতিতে এ ধরনের বিয়ের জায়গা নেই। ভারতবর্ষে বিবাহের অধিকারী শুধু একজন ‘জন্মগত পুরুষ’ এবং ‘জন্মগত নারী’-র মধ্যেই থাকতে পারে।

কারণ, সে দাম্পত্যের ফলে সন্তান আসে। সমকামীদের মধ্যে বিয়ে হলে সন্তান আসে না। তাই এই বিয়েকে বৈধতা দেওয়া যাবে না। একই কথা বলা হয়েছে ‘লিভ ইন’ প্রসঙ্গেও।

হলফনামায় বলা হয়, ভারতীয় পরিবারের ধারণা বাবা-মা এবং সন্তানদের নিয়ে। সেখানে বিয়ে না করে একসঙ্গে থাকার মতো সম্পর্কের কোনও জায়গা এই পরিবারের ছবির মধ্যে নেই।

সরকারি তরফে ‘সামাজিক মূল্যবোধ’ এবং ‘জাতীয় গ্রহণযোগ্যতা’র কথাও বলা হয়েছে। কিছু মানুষের ‘বিশেষ ধরনের আচরণ’, যা আগে অপরাধ হিসেবে চিহ্নিত ছিল, ৩৭৭ ধারা বাতিল করে তাকে বেআইনি ঘোষণা করা থেকে বিরত রাখা হয়েছিল

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর