ষড়যন্ত্র করে লাভ হবে না, ঐক্য অনেক সুদৃঢ়: সেনাপ্রধান

নিজস্ব প্রতিবেদক

ষড়যন্ত্র করে লাভ হবে না, ঐক্য অনেক সুদৃঢ়: সেনাপ্রধান

সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ

সেনাবাহিনীর ঐক্য ভাঙতে দেশ ও বিদেশে একটি গোষ্ঠী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে জানিয়ে সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ বলেছেন, অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে সেনাবাহিনীর ঐক্য অনেক বেশি সুদৃঢ়। ষড়যন্ত্র করে কোনো লাভ হবে না।

আজ সকালে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে নবগঠিত মিলিটারি ডেন্টাল কোরের পতাকা উত্তোলন অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে সেনাপ্রধান এ কথা বলেন।

জেনারেল আজিজ আহমেদ বলেন, দেশ ও বিদেশের মাটিতে সেনাবাহিনী সুনামের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে চলেছে। সেনাবাহিনীর সুনাম ধ্বংস করতে যারা ষড়যন্ত্র করছে, তাদের বিচারের মুখোমুখি করা হবে বলে জানান তিনি।

সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ বলেন, ‘কুচক্রী মহলের বোঝা উচিত বাংলাদেশ সেনাবাহিনী অতীতের চেয়ে অনেক বেশি পরিপক্ব, প্রশিক্ষিত এবং পেশাদার সেনাবাহিনী। যাদের এত প্রপাগাণ্ডা ও রিউমার ছড়িয়েও বিন্দুমাত্র বিভ্রান্তি সৃষ্টি করা সম্ভব হয়নি। আমি সবাইকে সব ধরনের প্রপাগাণ্ডা, রিউমার ও অপপ্রচারের বিরুদ্ধে সতর্ক থাকার নির্দেশ প্রদান করছি।’

২০১৭ সালে সরকার ঘোষিত ফোর্সেস গোল ২০৩০-এর অংশ হিসেবে ২৩টি মিলিটারি ডেন্টাল সেন্টার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে স্বতন্ত্র ডেন্টাল কোরের যাত্রা শুরু হয়। আজ ঢাকা সেনানিবাসে এর পতাকা উত্তোলন অনুষ্ঠান হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ।


করোনায় দেশে মৃত্যু বাড়লো

৭ মিনিটে ১২৬ ভরি স্বর্ণালঙ্কার চুরি, রহস্যের জট খুলল ৮ মাস পর

পি কে হালদারের পরোয়ানা ইন্টারপোলে

যে লক্ষণে বুঝবেন শরীরে প্রোটিনের ঘাটতি রয়েছে!


আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, সেনাবাহিনীর প্রধান অনুষ্ঠানস্থলে উপস্থিত হলে আর্মি ডেন্টাল কোরের একটি চৌকষ দল কুচকাওয়াজ প্রদর্শন এবং প্রধান অতিথিকে সালাম প্রদান করে। পরে সেনাপ্রধান আনুষ্ঠানিকভাবে নবগঠিত মিলিটারি ডেন্টাল সেন্টার ঢাকার পতাকা উত্তোলন করেন। পতাকা উত্তোলন শেষে তিনি তাঁর দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্যের শুরুতেই শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে, যার একক নেতৃত্বে সূচিত হয়েছিল আমাদের মহান স্বাধীনতা সংগ্রাম। একইসঙ্গে তিনি স্মরণ করেন ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে আত্মোৎসর্গকারী সব বীর মুক্তিযোদ্ধাকে। তিনি দেশ মাতৃকার যেকোনো প্রয়োজনে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারে মিলিটারি ডেন্টাল সেন্টারকে প্রস্তুত থাকার পাশাপাশি পেশাদারত্বের সর্বোচ্চ মান অর্জনের মাধ্যমে উন্নতমানের দন্তসেবা প্রদানের নির্দেশনা দেন। পরিশেষে তিনি পতাকা উত্তোলন উপলক্ষে একটি সুশৃঙ্খল, মনোজ্ঞ ও বর্ণিল কুচকাওয়াজ প্রদর্শনের জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানান।

আইএসপিআর জানিয়েছে, মহান স্বাধীনতার পর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐকান্তিক ইচ্ছেয় এবং প্রত্যক্ষ দিক নির্দেশনায় ১৯৭২ সালে সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশে চারজন ডেন্টাল সার্জনের সমন্বয়ে আর্মি ডেন্টাল কোরের যাত্রা শুরু হয়। পরে দক্ষ জনবলের অভাব এবং প্রশাসনিক কারণে মিলিটারি ডেন্টাল সেন্টারগুলোকে সিএমএইচের ডেন্টাল উইং হিসেবে একীভূত করা হয়। ২০১৭ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রণীত ফোর্সেস গোল ২০৩০-এর অংশ হিসেবে ২৩টি মিলিটারি ডেন্টাল সেন্টার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে স্বতন্ত্রভাবে আর্মি ডেন্টাল কোরের নবযাত্রা শুরু হয়। পরে সেনাবাহিনী প্রধানের প্রত্যক্ষ দিক নির্দেশনায় আর্মি ডেন্টাল কোরের পতাকা অনুমোদিত হয়। এরই ধারাবাহিকতায় অনুষ্ঠিত হলো মিলিটারি ডেন্টাল সেন্টার, ঢাকার পতাকা উত্তোলন অনুষ্ঠান।

সদর দপ্তর লজিস্টিকস এরিয়ার সার্বিক ব্যবস্থাপনায় আয়োজিত উক্ত অনুষ্ঠানে ঊর্ধ্বতন সেনাকর্মকর্তা ও বিভিন্ন পদবির সেনাসদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

জাতীয় প্রেস ক্লাবে মিডিয়া সেন্টার উদ্বোধন

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশের মিডিয়াকে প্রাণবন্ত, মুক্ত, বর্ণময় এবং অত্যন্ত সোচ্চার বলে অভিহিত করেছেন ঢাকার নিযুক্ত ভারতের হাই কমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী। 

সোমবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে মিডিয়া সেন্টার উদ্বোধনের পর এক আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়ায় এমন অভিমত ব্যক্ত করেন। এসময় বাংলাদেশ-ভারত পারষ্পরিক সম্পর্ক উত্তরোত্তর এগিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে প্রেসক্লাব সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন বলেন, দু-দেশের মিডিয়ার মধ্যেও সম্পর্ক আরো বাড়বে। আরো জানাচ্ছেন লাকমিনা জেসমিন সোমা।

সোমবার প্রেসক্লাব সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিনসহ সিনিয়র সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে আনুষ্ঠানিকভাবে মিডিয়া সেন্টার এর উদ্বোধন করেন ভারতীয় হাই কমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী। ভারতের আর্থিক সহযোগিতায় আধুনিকায়ণ করা মিডিয়া সেন্টেরটি ঘুরে দেখেন তারা।

পরে আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়ায় ভারতীয় হাই কমিশনার বলেন, বাংলাদেশের গণমাধ্যম সব সময়ই স্বাধীন, প্রাণবন্ত, এবং অত্যন্ত সোচ্চার।


পুলিশকে কেন প্রতিপক্ষ বানানো হয়, প্রশ্ন আইজিপির

আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

বিমা খাতে সচেতনতা সৃষ্টির ক্ষেত্রে আরও প্রচার প্রয়োজন: প্রধানমন্ত্রী

পোশাক খাতে ভিয়েতনামকে পেছনে ফেললো বাংলাদেশ


আধুনিক মিডিয়া সেন্টারটি বাংলাদেশকে বিশ্বের কাছে এবং বিশ্বের খবর বাংলাদেশের কাছে তুলে ধরতে গণমাধ্যমকর্মীদের সহায়ক হবে বলেও প্রত্যাশা করেন তিনি।

এসময় প্রেসক্লাব সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন বলেন বাংলাদেশ ভারত পারষ্পরিক সম্পর্ক উত্তরোত্তর এগিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে দু দেশের মিডিয়ার মধ্যেও সম্পর্ক আরো বাড়বে বলে প্রত্যাশা করেন।

তিনি জাতীয় প্রেস ক্লাবের মিডিয়া সেন্টারের উন্নয়নে ভারতীয় হাইকমিশনের অবদানের কথাও তুলে ধরেন প্রেসক্লাব সভাপতি।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সম্মাননা বর্জন করে অনুষ্ঠান ছেড়ে চলে গেলেন মুক্তিযোদ্ধা

নিজস্ব প্রতিবেদক

সম্মাননা বর্জন করে অনুষ্ঠান ছেড়ে চলে গেলেন মুক্তিযোদ্ধা

রণাঙ্গনে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা প্রদানে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলো ভাসানী অনুসারী পরিষদ, গণসংহতি আন্দোলন, ছাত্র-যুব-শ্রমিক অধিকার পরিষদ ও রাষ্ট্রচিন্তা নামের কয়েকটি সংগঠন। 

অনুষ্ঠানে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা এবং ট্রাস্টি জাফরুল্লাহ চৌধুরী ছাড়াও গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি, ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক, রাষ্ট্রচিন্তার হাসনাত কাইয়ুম, ভাসানী অনুসারী পরিষদের মহাসচিব শেখ রফিকুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


পুলিশকে কেন প্রতিপক্ষ বানানো হয়, প্রশ্ন আইজিপির

আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

বিমা খাতে সচেতনতা সৃষ্টির ক্ষেত্রে আরও প্রচার প্রয়োজন: প্রধানমন্ত্রী

পোশাক খাতে ভিয়েতনামকে পেছনে ফেললো বাংলাদেশ


অতিথিদের বক্তব্য শেষে বীর মুক্তিযোদ্ধদের সম্মানা স্মারক দেওয়া হচ্ছিলো। অনুষ্ঠানে ৫০ জন মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মাননা জানানো হয়। এ সময় একজন মুক্তিযোদ্ধা সম্মাননা গ্রহণের জন্য স্টেজে ওঠার ডাক পেলে তিনি মাইক্রোফোনে অভিযোগ করেন, ‘যে জয় বাংলা স্লোগান দিয়ে মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিল, সে স্লোগান একবারও উচ্চারণ হয়নি এবং যাঁর ডাকে মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিল সেই বঙ্গবন্ধুর নামও একবার নেওয়া হয়নি।’ 

তিনি এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে সম্মাননা বর্জন করেন। এ সময় অনুষ্ঠানে আসা অন্যরা হইহই করে তাঁর কথার প্রতিবাদ জানান। তিনি এরপর অনুষ্ঠান ত্যাগ করে চলে যান।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

আগামী বছরের মধ্যে দেশে দুর্ভিক্ষ দেখা দেবে: জাফরুল্লাহ

নিজস্ব প্রতিবেদক

আগামী বছরের মধ্যে দেশে দুর্ভিক্ষ দেখা দেবে: জাফরুল্লাহ

সুশাসনের অভাবে দেশে আগামী বছরের মধ্যে ১৯৭৪ সালের মতো দুর্ভিক্ষ দেখা দেবে বলে মন্তব্য করেছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা এবং ট্রাস্টি জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

তিনি বলেন, বিদেশি চক্রান্ত, সরকারের ভুল নীতি, মানবাধিকার লুণ্ঠন, সুশাসনের অভাবে আগামী বছরের মধ্যে ১৯৭৪ সালের মতো দুর্ভিক্ষ দেখা দেবে।  প্রায় সাড়ে ৭ মিলিয়ন টন খাদ্যাভাব দেখা দিতে পারে।

আজ রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে এক অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি। রণাঙ্গনে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা প্রদানে এ অনুষ্ঠানটির আয়োজন করা হয়।

ভাসানী অনুসারী পরিষদ, গণসংহতি আন্দোলন, ছাত্র-যুব-শ্রমিক অধিকার পরিষদ ও রাষ্ট্রচিন্তা যৌথভাবে এ অনুষ্ঠানটির আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে ৫০ জন মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মাননা জানানো হয়।

জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, দেশ সম্পূর্ণ ভুল পথে চলছে। জাতিসংঘের একটি সনদ পেতে যাচ্ছি। মুক্তিযুদ্ধের যে তিন প্রতিশ্রুতি তার বিপরীতে পুঁজিবাদের দিকে এগোচ্ছি।

তিনি বলেন, যে সংগ্রাম ও আত্মদানের মধ্যে দিয়ে মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিল, তা আজও পূর্ণতা লাভ করেনি। তিনি জাতি ও কারাগারে মারা যাওয়া লেখক মুশতাক আহমেদের কাছে ক্ষমা চান। 


পুলিশকে কেন প্রতিপক্ষ বানানো হয়, প্রশ্ন আইজিপির

আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

বিমা খাতে সচেতনতা সৃষ্টির ক্ষেত্রে আরও প্রচার প্রয়োজন: প্রধানমন্ত্রী

পোশাক খাতে ভিয়েতনামকে পেছনে ফেললো বাংলাদেশ


জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা দেওয়ার পাশাপাশি সবাইকে মিলে অসম্পূর্ণ মুক্তিযুদ্ধকে সম্পূর্ণ করতে হবে। এক ব্যক্তি বাংলাদেশে একা স্বাধীনতা আনেননি। সবাই মিলিতভাবে স্বাধীনতা এনেছেন।  

অনুষ্ঠানে গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি, ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক, রাষ্ট্রচিন্তার হাসনাত কাইয়ুম, ভাসানী অনুসারী পরিষদের মহাসচিব শেখ রফিকুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। 

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রেসক্লাবে পুলিশ চরম ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রেসক্লাবে পুলিশ চরম ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

গতকাল জাতীয় প্রেসক্লাব এলাকায় পুলিশ ও ছাত্রদলের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, পুলিশ ওই সময় চরম ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছে।

তিনি বলেন, আমি আধা ঘণ্টা সাংবাদিকদের প্রচারিত খবর ও ছবি দেখেছি। তাতে দেখা যাচ্ছিল, একজন পুলিশ সদস্য এক জায়গায় একা দাঁড়িয়ে ছিলেন। তাকে বড় বড় লাঠি দিয়ে পেটানোর হচ্ছে। চরম ধৈর্যের সঙ্গে পুলিশ পরিস্থিতি মোকাবিলা করেছে।

আজ দুপুরে রাজধানীর মিরপুরে পুলিশ স্টাফ কলেজে ‘পুলিশ মেমোরিয়াল ডে-২০২১’ উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাব এলাকায় গতকাল রোববার পুলিশের সঙ্গে ছাত্রদল নেতা-কর্মীদের সংঘর্ষের বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, পুলিশ ওই সময় চরম ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, প্রেসক্লাবে সচরাচর পুলিশ ঢোকে না। রোববার প্রেসক্লাবের ভেতর থেকে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছুড়ছিল। এতে দু’একজন পুলিশ হয়তো ঢুকেছে।

‘সেখানে পরিস্থিতি অতিমাত্রায় চলে যাওয়ায় তা নিয়ন্ত্রণে আনতে টিয়ারশেল ছুড়েছে পুলিশ। এটা একটা কৌশল। ’


পুলিশকে কেন প্রতিপক্ষ বানানো হয়, প্রশ্ন আইজিপির

আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

বিমা খাতে সচেতনতা সৃষ্টির ক্ষেত্রে আরও প্রচার প্রয়োজন: প্রধানমন্ত্রী

পোশাক খাতে ভিয়েতনামকে পেছনে ফেললো বাংলাদেশ

৩০ মার্চের মধ্যে শিক্ষকদের টিকা নিতে হবে: শিক্ষামন্ত্রী


স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিতরে যেন বহিরাগত কেউ প্রবেশ করতে না পারে সে বিষয় প্রেসক্লাব কর্তৃপক্ষকে দায়িত্ব নিতে হবে।

সাংবাদিকদের উদ্দেশ করে তিনি বলেন, প্রেসক্লাবতো আপনাদের। আপনারাই এ দায়িত্বটি নিশ্চিত করুন।

সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ‘বীর উত্তম’ খেতাব বাতিল করার সিদ্ধান্ত এবং কারাগারে লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনার প্রতিবাদে গতকাল সকাল সাড়ে ১১টার দিকে বিএনপির ছাত্রদল আয়োজিত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। নেতাকর্মীরা প্রেসক্লাবের সামনে অবন্থান নেয়। এতে পুলিশ সদস্যরা বাধা দিলে উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে টিয়ারশেল ছোড়ে পুলিশ। বিক্ষুব্ধ হয়ে ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা প্রেসক্লাবের পাশের অস্থায়ী পুলিশ বক্সের জানালা ভাঙচুর করে। তারা প্রেসক্লাবের ভেতরে প্রবেশ করে। এতে পুলিশও প্রেসক্লাবের ভেতরে গিয়ে লাঠিচার্জ করে।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

পুলিশকে কেন প্রতিপক্ষ বানানো হয়, প্রশ্ন আইজিপির

নিজস্ব প্রতিবেদক

পুলিশকে কেন প্রতিপক্ষ বানানো হয়, 
প্রশ্ন আইজিপির

পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ বলেছেন, পুলিশ তো জনগণের সেবক, কারও প্রতিপক্ষ নয়। তাহলে কেন সব সময় পুলিশকে প্রতিপক্ষ বানানো হয়? এই প্রশ্ন বাংলাদেশের শান্তিপ্রিয় মানুষের প্রতি।

আজ দুপুরে রাজধানীর মিরপুরে পুলিশ স্টাফ কলেজে ‘পুলিশ মেমোরিয়াল ডে-২০২১’ উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

গতকাল জাতীয় প্রেসক্লাব এলাকায় পুলিশ ও ছাত্রদলের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনার প্রসঙ্গে আইজিপি বলেন, রোববার (২৮ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক পুলিশ সদস্যকে নির্মমভাবে পেটানো হয়েছে। তারপরও পুলিশ সদস্যরা আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে রেখে কাজ করছে। পুলিশকে পেটানোর ঘটনায় কোনো রিফ্লেকশন হয়নি। এ বিষয়টি নিয়ে কেউ কোনো কথা বলেনি।

তিনি বলেন, যারা দেশের ও পুলিশের সমালোচনা করে তাদের মুখে ছাই পড়ুক। দেশের মধ্যে যে একটা ছোট অংশ আছে সেটা দেখলেই বোঝা যায়। কারণ দেশের কোনও ভালো কিছুর প্রতি তাদের আগ্রহ নেই, দেশের কোনও অর্জনে তাদের কিছু আসে-যায় না, এ দেশের ভিন্ন সংস্কৃতির, ভিন্ন চেতনার মানুষগুলো আমাদের দেশের মানুষ হিসেবে দাবি করে। এই মানুষগুলোকে আমাদের দেশের বৃহত্তর জাতিসত্তা থেকে আলাদা করার সময় এসেছে। এরা আমাদের জাতির অংশ নয়।

তিনি বলেন, ওই ছোট একটা গ্রুপ যারা দেশের কোনো ভালো কিছু দেখেন না এবং সমালোচনা করেন তাদের এমনকি তারা পুলিশের সমালোচনা করেন তাদের মুখে ছাই পড়ুক। এ দেশের প্রকৃতিতে যারা বড় হয়ে ছুরি মারতে চায় তাদের মুখে আমরা দেশবাসী সবাই মিলে ছাই ছুড়ে দিতে চাই।

আইজিপি বলেন, যেকোনো পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ পুলিশ সম্মুখ সারিতে থেকে দায়িত্ব পালন করে। বাংলাদেশ পুলিশ তাদের দক্ষতা ও দৃঢ়তার যে সাক্ষ্য দিয়েছে তা দিয়ে তারা জনগণের হৃদয়ে বিশেষ স্থান করে নিতে সক্ষম হয়েছে।

তিনি বলেন, করোনাকালে কৃষেকের ধানকাটাতেও সহায়তা করেছে পুলিশ সদস্যরা।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে আইজিপি বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এই মেমোরিয়াল ডে’র সঙ্গে আরেকটি উৎসব উদযাপন করে সেটি হচ্ছে ‘ব্লু রেবন ডে’। মূলত ওই দিন দেশবাসী পুলিশের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করে ব্লু-রিবন পুলিশকে পরিয়ে দেয়, নিজেরা গাড়িতে, বাড়িতে ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নীল রঙে সাজায়। আগামী বছর থেকে এই অনুষ্ঠানটি চালু করতে চাই।


আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

বিমা খাতে সচেতনতা সৃষ্টির ক্ষেত্রে আরও প্রচার প্রয়োজন: প্রধানমন্ত্রী

পোশাক খাতে ভিয়েতনামকে পেছনে ফেললো বাংলাদেশ

৩০ মার্চের মধ্যে শিক্ষকদের টিকা নিতে হবে: শিক্ষামন্ত্রী


আইজিপি আরও বলেন, কোনো দেশের সঙ্গে যুদ্ধ লাগলে তখন বিকল্প ফোর্স যুদ্ধ করে। আর যখন শান্তির সময় থাকে তখন দেশের মধ্যে দেশের শত্রুদের বিরুদ্ধে, বনশত্রুদের বিরুদ্ধে, রাষ্ট্রের শত্রুদের বিরুদ্ধে এবং রাষ্ট্রকে নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য পুলিশ যুদ্ধ করে। এই যুদ্ধ ক্রমাগত, অবিরত ও অবিরাম। আর যুদ্ধ হলেই অবিরামভাবে আসে মৃত্যু। সে কারণে প্রতি বছর আমাদের ডজন ডজন সহকর্মীকে হারাই। এই করোনাকালেও পুলিশের বিভিন্ন পদমর্যাদার ৮৫ জন সদস্যকে আমরা হারিয়েছি। সেই সঙ্গে করোনাকালে প্রায় ২১ হাজার সদস্য দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন, সুস্থ হয়েছেন এবং আবার সুস্থ হয়ে দায়িত্ব পালন করছেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মোস্তাফা কামাল উদ্দিন।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর