সিলেটে চলছে তিনদিনের পরিবহন ধর্মঘট

নিজস্ব প্রতিবেদক

সিলেটে চলছে তিনদিনের পরিবহন ধর্মঘট

সিলেটের বন্ধ পাথর কোয়ারিগুলো খুলে দেওয়ার দাবিতে  ‘বৃহত্তর সিলেট পাথর সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ী-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ’র ডাকা ৭২ ঘণ্টার ধর্মঘট চলছে। এই ধর্মঘটে একাত্মতা পোষণ করেছে সিলেট বিভাগীয় ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ডভ্যান মালিক ঐক্য পরিষদ ছাড়াও সিলেটের পরিবহন সংশ্লিস্ট অন্যান্য সংগঠনও।  

আর তাই আজ থেকে তিনদিন সিলেট থেকে সব ধরণের দূরপাল্লার বাস চলাচলও বন্ধ থাকবে। সিলেটের কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল থেকে দূরপাল্লার কোন বাস ছেড়ে যাবে না এবং কোন বাস সিলেটে এসে প্রবেশ করবে না। এছাড়া আন্তঃজেলা বাস চলাচলও বন্ধ থাকবে।

আজ ভোর ৬টা থেকে ধর্মঘট শুরু হয়। 

সিলেট বিভাগীয় ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ডভ্যান মালিক ঐক্য পরিষদ ও সিলেট জেলা ট্রাক মালিক গ্রুপের সভাপতি গোলাম হাদী ছয়ফুল এ বিষয়ে বলেন, ‘সিলেটের মাননীয় জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলামের ডাকে সোমবার বিকেলে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের কনফারেন্স হলে আমাদের সঙ্গে একটি জরুরি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এ বৈঠকে সিলেট জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন পিপিএমসহ জেলা ও পুলিশ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে আমরা বরাবরের মতো আমাদের ন্যায্য দাবিটাই তুলে ধরেছিলাম যে- ১০ লক্ষাধিক মানুষের জীবন-জীবিকা রক্ষার্থে সিলেটের সকল পাথর কোয়ারি খুলে দেয়া হোক। পরিবেশ বিধ্বংসী বোমামেশিন নয়, শ্রমিকদের মাধ্যমে আমরা পাথর উত্তোলন করতে চাই। এতে সরকারও যেমন লাভবান হবে, তেমনি দু-বেলা দু-মুঠো ভাত খেয়ে ১০ লক্ষাধিক মানুষ বাঁচতে পারবে।


এক সপ্তাহের জন্য সীমান্ত বন্ধ রাখার ঘোষণা ওমানের

উত্তেজনার মাঝে ভূমধ্যসাগরে নৌ মহড়া চালালো তুরস্ক

থার্টি ফার্স্ট নাইটে কোনো পার্টি করা যাবে না: ডিএমপি কমিশনার

অপমনের উপযুক্ত জবাব দিয়েছেন হাফিজ: তথ্যমন্ত্রী


কিন্তু আজকের (সোমবারের) বৈঠকেও প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা আমাদের মতামত বা দাবিকে গুরুত্ব দেননি। তাই আমরা আমাদের সিদ্ধান্তে অটল রয়েছি। মঙ্গলবার ভোর ৬টা থেকে শুক্রবার ভোর ৬টা পর্যন্ত টানা তিনদিন পুরো সিলেট বিভাগে সকল ধরনের পরিবহন ধর্মঘট চলবে। আমরা সকাল থেকেই রাস্তায় নেমে পড়বো আমাদের নায্য দাবি আদায়ে।’

গোলাম হাদী ছয়ফুল জানান, তবে এম্বুলেন্স, বিদেশ যাত্রী, ফায়ার সার্ভিস, সংবাদপত্র ও জরুরি ঔষধ  বহণকারী গাড়ি ধর্মঘটের আওতায় থাকবে না।’

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

জিয়া রাজাকার-আলবদরদের বিচার বন্ধ করেছিলেন: চীফ হুইপ

বেলাল রিজভী, মাদারীপুর

জিয়া রাজাকার-আলবদরদের বিচার বন্ধ করেছিলেন: চীফ হুইপ

জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ ও আওয়ামী লীগ সংসদীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক নূর-ই-আলম চৌধুরী বলেছেন, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় আসার পর রাজাকার, আলবদরদের বিচার বন্ধ করে দিয়েছিলেন।

তিনি বলেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর জিয়াউর রহমান এদেশে যুদ্ধাপরাধী ও স্বাধীনতা বিরোধীদের প্রতিষ্ঠিত করেছে। জিয়া ক্ষমতায় আসার পর রাজাকার আলবদরদের বিচার বন্ধ করে দিয়েছিলেন। শুধু তাই নয় কারাগারে আটক সকল যুদ্ধাপরাধীদের মুক্ত করে দিয়েছিলেন এবং নরঘাতক যুদ্ধাপরাধী গোলাম আজমকে এদেশে রাজনীতি করার সুযোগ করে দিয়েছিলেন।

বুধবার (৩ মার্চ) দুপুরে মাদারীপুরের শিবচর উপজেলায় এক অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি। শিবচরের মুন্সী কাদিরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৪তলা বিশিষ্ট নতুন ভবন উদ্বোধন করেন তিনি। পরে সেখানে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় অনুষ্ঠিত হয়। 

মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, জিয়া সংবিধান সংশোধন করে ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধ থাকার বিধান বাতিল করেছিলেন। জামায়াত ইসলামীসহ স্বাধীনতা বিরোধীদের রাজনীতি করার সুযোগ করেছিলেন। পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর সকল যুদ্ধাপরাধীদের বিচার সম্পন্ন হচ্ছে। 

চীফ হুইপ আরো বলেন, দেশের মানুষের কথা চিন্তা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৩শ’ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন প্রয়োগের জন্য। যা বিশ্বের উন্নত অনেক দেশে দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। এখনো অনেক দেশ আছে যারা ভ্যাকসিন পায়নি। একমাত্র বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার কারণেই বাংলাদেশের ৪০ বছরের উর্ধ্বে সকলকে প্রাথমিক পর্যায়ে করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন দেয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে ৩০ লাখ মানুষকে করোনার ভ্যাকসিন দেয়া হয়েছে।


পুলিশ হেফাজতে আইনজীবীর মৃত্যু: বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ

ভাসানচরে যাচ্ছে দুই হাজারের বেশি রোহিঙ্গা

‘অসম প্রেমে’ পড়েছেন সাদিয়া ইসলাম মৌ

ব্যানারে নেই বেগম জিয়া, এনিয়ে বিস্তর আলোচনা


এসময় তিনি সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলারও আহবান জানান।

অনুষ্ঠানে মাদারীপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুনির চৌধুরী, শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান, পৌর মেয়র আওলাদ হোসেন খান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শাজাহান মোল্লা, সাধারণ সম্পাদক ডা. মো. সেলিম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। 

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ফসলি কৃষি জমিতে অবৈধভাবে পুকুর খনন বন্ধে মানববন্ধন

নাটোর প্রতিনিধি

ফসলি কৃষি জমিতে অবৈধভাবে পুকুর খনন বন্ধে মানববন্ধন

আদালতের নিষোজ্ঞা উপেক্ষা করে নাটোরের গুরুদাসপুরের মশিন্দা ইউনয়নের মাঝপাড়া মাঠের তিন ফসলি কৃষি জমিতে অবৈধভাবে পুকুর খনন বন্ধে মানববন্ধন করেছে জনসচেতন এলাকাবাসী।

মঙ্গলবার দুপুরে গুরুদাসপুর উপজেলা মশিন্দা ইউনিয়নের মাঝপাড়া গ্রামের সচেতন এলাকাবাসীর আয়োজিত ওই মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, সাইদুল ইসলাম ও জিয়াউর রহমান। এ সময় বক্তরা তিন ফসলি কৃষি জমি রক্ষায় অবিলম্বে অবৈধভাবে পুকুর খনন বন্ধে স্থানীয় প্রশাসনের দ্রুত হস্তক্ষেপের দাবি জানান।


আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

ভারতে বাড়ছে গাধার চাহিদা!

ভারতের মাদ্রাসায় পড়ানো হবে বেদ, গীতা, সংস্কৃত

এই নচিকেতা মানে কী? আমি তোমার ছোট? : মঞ্চে ভক্তকে নচিকেতার ধমক (ভিডিও)


কৃষি জমি রক্ষায় মশিন্দা ইউনিয়নের মাঝপাড়া গ্রামের কৃষান-কুষানী ছাড়াও নানা শ্রেণি পেশার সচেতন জনসাধারণ মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করে অবৈধ পুকুর খননের প্রতিবাদ জানান।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ঠাকুরগাঁওয়ে দরিদ্রদের মাঝে অর্থ প্রদান

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি:

ঠাকুরগাঁওয়ে দরিদ্রদের মাঝে অর্থ প্রদান

ঠাকুরগাঁওয়ে দরিদ্র পরিবারের মাঝে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। বুধবার (৩মার্চ) দুপুরে ঠাকুরগাঁও এরিয়া প্রোগ্রাম ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এর উদ্যোগে মুন্সিরহাট নিজস্ব হলরুম আনুষ্ঠানিকভাবে এ অর্থ সহায়তা প্রদান করেন।

এরিয়া প্রোগ্রাম ম্যানেজার লিওবার্ট চিসিমের সভাপতিত্বে প্রধান অথিতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আব্দুল্লাহ আল মামুন।


আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

ভারতে বাড়ছে গাধার চাহিদা!

ভারতের মাদ্রাসায় পড়ানো হবে বেদ, গীতা, সংস্কৃত

এই নচিকেতা মানে কী? আমি তোমার ছোট? : মঞ্চে ভক্তকে নচিকেতার ধমক (ভিডিও)


করোনা ভাইরাস সময়কালে মোবাইল মানি ট্রান্সফারের মাধ্যমে নগদ অর্থ বিতরণ অনুষ্ঠানে সদর উপজেলার ১শ জন দরিদ্র নারীরকে ৩ হাজার করে টাকা প্রদান করেন সংগঠনটি। বর্তমান সময়ে টাকা পেয়ে খুশি দরিদ্র নারীরা।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

কারাগারে মৃত্যু হলেই আইন বাতিল করতে হবে?

অনলাইন ডেস্ক

কারাগারে মৃত্যু হলেই আইন বাতিল করতে হবে?

কারাগারে মোশতাকের মৃত্যু নিয়ে পানি ঘোলা করে লাভ হবে না বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। ডিজিটাল আইনের ব্যাপারে তিনি বলেন, একজনের মৃত্যুর কারণে ওই আইন বাতিল করতে হবে? এটা তো আইনের দোষ না।

বুধবার (৩ মার্চ) জাতীয় প্রেসক্লাবে একুশে পদকপ্রাপ্ত দেশবরেণ্য সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব এটিএম শামসুজ্জামানের শোক সভায় তিনি বলেন, ‘ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট’ এই আইনে মোশতাক কারাগারে ছিলেন। সেখানে তার মৃত্যু হয়েছে। সেই সূত্র ধরে বলা হচ্ছে, এই আইন বাতিল করতে হবে। অন্য আইনে যারা কারাগারে যায়, সেই আইনে যদি কারাগারে তারও মৃত্যু হয়, তাহলে কি সে আইনগুলোও বাতিল করতে হবে? সে প্রশ্নটাও এসে যায়।

ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট সমগ্র মানুষের ডিজিটাল নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী।


সবইতো চলছে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কেন ঈদের পরে খুলবে: নুর

আইন চলে ক্ষমতাসীনদের ইচ্ছেমত: ভিপি নুর

রাঙামাটিতে বিজিবি-বিএসএফের পতাকা বৈঠক

৭৫০ মে.টন কয়লা নিয়ে জাহাজ ডুবি, শুরু হয়নি উদ্ধার কাজ


তিনি বলেন, এ আইন সাংবাদিককে ডিজিটাল নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য, গৃহিণীকে ডিজিটাল নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য, কৃষকের ডিজিটাল নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য। কারও চরিত্র হনন হলে তাকে ডিজিটাল নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য এই আইন। অবশ্য এই আইনের অপপ্রয়োগ না হয়, সেজন্য আমরা সর্তক আছি। অপপ্রয়োগ হওয়া কাম্য নয়।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, একটি অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যুকে নিয়ে প্রতিদিন মিডিয়া সরগরম। মিডিয়াকে সরগরম রাখছে একটি পক্ষ। প্রতিদিন প্রেসক্লাবের সামনে নানা ধরনের আয়োজন করা হচ্ছে, বিভিন্ন জায়গায় অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হচ্ছে। ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর কারা অভ্যন্তরে ৪ জাতীয় নেতাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছিলো। সেনাবাহিনীর বিপদগামী সদস্যরা সেখানে গিয়ে গুলি করে হত্যা করেছিলো। তখন সেনাপ্রধান ছিলো জিয়াউর রহমান। খন্দকার মোশতাকের নির্দেশে জিয়াউর রহমানের পৃষ্ঠপোষকতায় এই হত্যাকাণ্ড সংগঠিত করা হয়েছিলো। আজকে সেই কথা কেউ বলে না।

হাছান মাহমুদ বলেন, ১৯৭৫ সালের পর কারাগারের অভ্যন্তরে বহু জনকে নির্যাতন করে হত্য করা হয়েছে। ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদককে কারা অভ্যন্তরে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছিলো, চট্টগ্রামের মৌলভী শহিদকে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছিলো। এরকম বহু আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীকে কারাগারে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে।

‘দলাদলি করেছি, বিভক্ত হয়েছি, দেশটাকে গড়তে পারিনি’ বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এ বক্তব্যের কঠোর সমালোচনা করেছেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘আমি কাগজে দেখলাম মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব একটা কথা বলেছেন, ৫০ বছরে আমরা শুধু দলাদলি করেছি দেশ আগাইনি। আমি মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেবকে বলবো, আজকে যে দেশ এতদূর এগিয়ে গেছে, এটা অনুধাবন করতে পারলেন না। আপনি একজন শিক্ষিত মানুষ, ঢাকা কলেজে পড়াতেন। আপনি একজন মার্জিত মানুষও বটে। যদিও বিএনপির পক্ষে কথা বলতে গিয়ে অহরহ মিথ্যা কথা বলেন। 

তিনি বলেন, দেশ এতো এগিয়ে গেলো, স্বল্পোন্নত দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশ হলো, জাতিসংঘ সে সার্টিফিকেট দিয়েছে। খাদ্য ঘাটতির দেশ থেকে খাদ্য উদ্ধৃত্তের দেশে রুপান্তরিত হলো, সাতশো ডলার মাথা পিছুর আয় থেকে ২০০৮ সালের, এখন ২০৬৯ ডলারে উন্নত হলো, ভারত ও পাকিস্তান থেকে আমাদের মাথাপিছু আয় অনেক বেশি। এবং রিজার্ভ ৪৪ মিলিয়ন ডলার। যেটি পাকিস্তানের তিন গুণ। এই তথ্যগুলো আপনার কাছে নেই। আমি খুব অবাক হচ্ছি।

মন্ত্রী বলেন, বিএনপি যদি দলাদলি আর নেতিবাচক রাজনীতি না করতো, বাংলাদেশ যে আজকে অনেক দূর এগিয়ে গেছে, তারচেয়ে অনেক দূর এগিয়ে যেতে পারতো। যদি এ নেতিবাচক রাজনীতি না থাকতো।  জঙ্গি আশ্রয়ী, স্বাধীনতা বিরোধীদের প্রশ্রয় দেয়ার রাজনীতি যদি না হতো দেশ আরও বহু দূর এগিয়ে যেত। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব আপনারা দলাদলি করেছেন। শুধু দলাদলি করেছেন তা নয়, প্রচন্ডভাবে নেতিবাচক রাজনীতিও করেছেন।  আমাদের দেশে নেতিবাচক রাজনীতি, উন্নয়ন অগ্রগতির ক্ষেত্রে অন্তরায়।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

হঠাৎ করেই জয়পুরহাটে বেড়েছে ডায়রিয়া রোগী, আরও বাড়ার আশঙ্কা

নিজস্ব প্রতিবেদক

হঠাৎ করেই জয়পুরহাটে বেড়েছে ডায়রিয়া রোগী, আরও বাড়ার আশঙ্কা

জয়পুরহাটে হঠাৎ করেই ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। প্রতিদিন গড়ে ৬০ জন ডায়রিয়া রোগী আসছে। এর মধ্যে বেশির ভাগই শিশু। চিকিৎসকরা বলছেন, আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে ডায়রিয়ার প্রাদুর্ভাব বেড়েছে।

জানা গেছে, গত এক সপ্তাহে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত প্রায় সাড়ে ৫০০ রোগী আধুনিক জেলা হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছে। এখনো দেড় শতাধিক রোগী হাসপাতালে ভর্তি। এর মধ্যে শিশুর সংখ্যাই বেশি।

আরও জানা গেছে, ১৫০ শয্যার জয়পুরহাট আধুনিক জেলা হাসপাতালে ডায়রিয়া ওয়ার্ডে শয্যাসংখ্যা মাত্র আট। ডায়রিয়া ওয়ার্ডের শয্যাসংখ্যা কম হওয়ায় হাসপাতালের মেঝেতে গাদাগাদি করে এসব রোগীর চিকিৎসাসেবা দেওয়া হচ্ছে।

ডায়রিয়া ওয়ার্ডের ইনচার্জ সিনিয়র নার্স নাসিমা সুলতানা জানান, প্রতিদিন গড়ে ৬০ জন ডায়রিয়া রোগী আসছে। এর মধ্যে বেশির ভাগই শিশু। গতকাল মোট ৫৩ জন ডায়রিয়া রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। জনবল ও শয্যাসংকট থাকায় রোগীদের সেবা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে।


পুলিশ হেফাজতে আইনজীবীর মৃত্যু: বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ

ভাসানচরে যাচ্ছে দুই হাজারের বেশি রোহিঙ্গা

‘অসম প্রেমে’ পড়েছেন সাদিয়া ইসলাম মৌ

ব্যানারে নেই বেগম জিয়া, এনিয়ে বিস্তর আলোচনা


হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) সাইফুল ইসলাম বলেন, আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে হঠাৎ করেই জয়পুরহাটে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। আরও দুয়েক সপ্তাহ রোগী বাড়তে পারে। 

তিনি বলেন, হাসপাতালে আগত সব রোগীকেই চিকিৎসাসেবা দেওয়া হচ্ছে। হাসপাতালে ডায়রিয়া রোগীর কোনো ওষুধ–সংকট নেই। 

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর