প্রেমে মজেছেন শ্রাবন্তীর ছেলে

অনলাইন ডেস্ক

প্রেমে মজেছেন শ্রাবন্তীর ছেলে

অভিনেত্রী শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায় বেশ কিছুদিন দরে আলোচনায় আছেন স্বামীর সঙ্গে তার সম্পর্ক নিয়ে। এবার প্রেম নিয়ে আলোচনায় তার ছেলে অভিমন্যু চট্টোপাধ্যায়। নতুন বছরের শুরুতে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে সম্পর্কের কথা প্রকাশ্যে আনলেন তিনি। প্রেমিকা দামিনী ঘোষের সঙ্গে ইনস্টাগ্রামে ছবি পোস্ট করে জানালেন তাদের প্রেমের তিন বছর পূর্ণ হয়েছে।

দামিনী পেশায় মডেল। তিনিও অভিমন্যুর সঙ্গে ছবি শেয়ার করে স্বীকার করেছেন ভালোবাসার কথা।

 লেখেন, “একই মানুষের সঙ্গে নতুন একটা বছর শুরু করলাম।”

সেই ছবিতে অভিমন্যুর মন্তব্য, “লাভ ইউ ইনফাইনাইট বেবি।” অর্থাৎ, দুজনেই নিজেদের তরফ থেকে সম্পর্ক ‘কবুল’ করেছেন।

তাদের জুটি দেখে আপ্লুত নেটিজেনরাও। অনেকে তরুণ জুটিকে আগামীর জন্য শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। বেশ কয়েকজন আবার দামিনীর সঙ্গে মিল খুঁজে পাচ্ছেন শ্রাবন্তীর। তাদের কথায়, অভিমন্যুর মায়ের মতোই সুন্দরী তার প্রেমিকা। তবে মায়ের মতোই ট্রোলাররা পিছু ছাড়েনি ছেলেরও।

অভিবাসী কর্মী মৃত্যুতে এগিয়ে বাংলাদেশীরা

মোবাইল আসল কি নকল যেভাবে যাছাই করবেন

দেশে ফিরে ফের বাবা হওয়া প্রসঙ্গে যা বললেন সাকিব

একদিকে যেমন শুভেচ্ছাবার্তার ভিড়, অন্য দিকে সমান তালে ট্রোলিং। নেটিজেনদের একাংশের বক্তব্য, এই ভালবাসা আসলে লোক দেখানো। তাই কয়েকদিন পর তাদের সম্পর্ক ভেঙে যাবে।

শ্রাবন্তীর বরাবরই বন্ধুর মতো মিশেছেন তার ‘ঝিনুক’-এর সঙ্গে। অভিনেত্রীর জীবনের অনেকখানি জুড়ে রয়েছেন তার ছেলে।

অভিমন্যুর বাবা পরিচালক রাজীব বিশ্বাস, যিনি শ্রাবন্তীর প্রথম স্বামী। এর পর দুবার বিয়ে করেন অভিনেত্রী।

সাম্প্রতিক গুঞ্জন অনুসারে, স্বামী রোশানের সঙ্গে শ্রাবন্তীর সম্পর্ক ভালো যাচ্ছে না। যদিও এই বিষয়ে দুজনেই নীরব। নায়িকার সর্বশেষ সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টও ইঙ্গিতপূর্ণ। নিজের ছবি পোস্ট করে রবিবার ফেইসবুকে লেখেন, নীরবতা থেকে শিখছেন তিনি।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

হিরো আলমের ইফতার বিতরণ

অনলাইন ডেস্ক

হিরো আলমের ইফতার বিতরণ

করোনার আক্রমণে বিপর্যস্ত পুরো পৃথিবী। লকডাউন আর অর্থনৈতিক সংকট যেন আরও তীব্র হয়ে পড়ছে এ সময়টায়। আর এই কঠিন সময়ে আরও একবার অসহায় মানুষের আশার আলো হয়ে দাঁড়ালেন হিরো আলম।

নিজ এলাকা বগুড়ার বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে ঘুরে গতকাল থেকে আজ পর্যন্ত মোট ৩০০ পরিবারকে ইফাতার সামগ্রী বিতরণ করেছেন তিনি। এসবের মধ্যে ছিল মুড়ি, ছোলা, খেজুর, চিনি, ছোলা, শুকনো বুন্দিয়াসহ প্রয়োজনীয় সামগ্রী।

এ ব্যাপারে হিরো আলম বলেন, খুব বেশি কিছু করতে পারি নাই। রমজান মাসে সামর্থ্য মতো চেষ্টা করেছি অসহায় বা আর্থিক সমস্যায় যারা রয়েছেন একটু সহযোগিতা করার।


আরও পড়ুনঃ


বাইডেনের প্রস্তাবে রাজি পুতিন

বাঙ্গি: বিনা দোষে রোষের শিকার যে ফল

একজন মিডিওকার যুবকের ১৮+ জীবনের গল্প এবং অন্যান্য

মৃত্যুতে যারা আলহামদুলিল্লাহ বলে তারা কী মানুষ?


তিনি আরও বলেন, ঈদের পাঁচ দিন আগে থেকেই সেমাই, চিনিসহ শাড়ি, লুঙ্গি বিতরণ করবো ঠিক করেছি। করোনার কারণে মানুষের হাতে কাজ নাই, টাকা নাই। তাদের পাশে দাঁড়াতে চাই। আমার জন্য সবাই দোয়া করবেন।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

চিরনিদ্রায় শায়িত চিত্রনায়ক ওয়াসিম

অনলাইন ডেস্ক

চিরনিদ্রায় শায়িত চিত্রনায়ক ওয়াসিম

চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন বাংলা চলচ্চিত্রের সোনালি দিনের সুপারস্টার ওয়াসিম। আজ রোববার (১৮ এপ্রিল) বাদ জোহর রাজধানীর বনানী কবরস্থানে দাফন করা হয় সত্তরের দশকের এই নায়ককে।

এর আগে গুলশান আজাদ মসজিদে তার প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর বনানী কবরস্থান সংলগ্ন মসজিদে দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় তার পরিবারের সদস্যদের সাথে চলচ্চিত্রের সহকর্মীরাও উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগর ও সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান।

এর আগে গতকাল শনিবার রাত সাড়ে ১২টা ৪০ মিনিটে রাজধানীর শাহাবউদ্দিন মেডিকেল কলেজে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। গুরুতর অসুস্থ হয়ে বেশ কিছুদিন শয্যাশায়ী ছিলেন এ চিত্রনায়ক। তিনি কিডনি রোগসহ নানা জটিলতায় ভুগছিলেন।

ফোক-ফ্যান্টাসি ও অ্যাকশন ঘরনার ছবির নায়ক হিসেবে ওয়াসিম ছিলেন অপ্রতিদ্বন্দ্বী। তাঁর কেরিয়ারের কিছু উল্লেখ্যযোগ্য ছবি-'ডাকু মনসুর', ‘জিঘাংসা’, ‘কে আসল কে নকল’, ‘বাহাদুর’, ‘দোস্ত দুশমন’, ‘মানসী’, ‘দুই রাজকুমার’, ‘সওদাগর’, ‘নরম গরম’, ‘ইমান’, ‘রাতের পর দিন’, ‘চন্দন দ্বীপের রাজকন্যা’,' লাল মেম সাহেব', ‘জীবন সাথী’, ‘রাজনন্দিনী’, ‘রাজমহল’ এবং ‘বিনি সুতার মালা’।

আরও পড়ুন


দেশের সবচেয়ে বড় করোনা হাসপাতালের উদ্বোধন

কাটপিস করে আমার বক্তব্য প্রচার করা হয়েছে: মির্জা আব্বাস

মাওলানা মামুনুল হকের মুক্তি চেয়ে খেলাফত মজলিসের হুঁশিয়ারী

আমজাদ হোসেনের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক


অভিনয়ের পাশাপাশি প্রযোজনাও করেছেন ওয়াসিম। তার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের নাম ছিল ডব্লিউ আর প্রোডাকশন। তার প্রযোজিত চলচ্চিত্রের মধ্যে রয়েছে হিসাব চাই, মোহন বাঁশি, নয়া তুফান, সীমাবদ্ধ ইত্যাদি। অভিনেতা হিসেবে তুমুল সাফল্য পেলেও প্রযোজক হিসেবে ওয়াসিম খুব একটা সফল হতে পারেননি।

১৯৫০ সালের ২৩ মার্চ চাঁদপুরের মতলবে জন্ম ওয়াসিংমের। ইতিহাস নিয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করে চলচ্চিত্র দুনিয়ায় প্রবেশ করেন। শুধু অভিনয় নয়, বডি বিল্ডিংয়ের প্রতি ঝোঁক ছিল তাঁর। ১৯৬৪ সালে ‘মিস্টার ইস্ট পাকিস্তান’ খেতাব অর্জন করেছিলেন প্রয়াত অভিনেতা।

ব্যক্তিজীবনে ওয়াসিম ছিলেন দুই সন্তানের জনক। ওয়াসিম বিয়ে করেছিলেন প্রখ্যাত অভিনেত্রী রোজীর ছোট বোনকে। তাদের ছেলে দেওয়ান ফারদিন এবং মেয়ে বুশরা আহমেদ। ২০০০ সালে তার স্ত্রীর অকাল মৃত্যু ঘটে। ২০০৬ সালে ওয়াসিমের মেয়ে বুশরা আহমেদ মাত্র চৌদ্দ বছর বয়সে আত্মহত্যা করে। ছেলে ফারদিন লন্ডনের কারডিফ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পড়াশোনা করে সেখানেই স্থায়ী হয়েছেন।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

করোনায় মারা গেলেন একুশেপদপ্রাপ্ত অভিনেতা এসএম মহসিন

নিজস্ব প্রতিবেদক

করোনায় মারা গেলেন একুশেপদপ্রাপ্ত অভিনেতা এসএম মহসিন

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন দেশের বরেণ্য অভিনেতা ও নাট্যব্যক্তিত্ব এসএম মহসিন।

একুশে পদকপ্রাপ্ত এ অভিনেতা আজ সকাল ৯টা ৩০ মিনিটে মিনিটে রাজধানীর বারডেম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্নালিল্লাহি...রাজিউন)।

এস এম মহসিনের ছেলে বাসেদ মহসিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মঞ্চ ও টেলিভিশন অভিনেতা হিসেবে পরিচিত এস এম মহসিন। তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নাটক ও নাট্য বিভাগ অনুষদের সদস্য, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির ভারপ্রাপ্ত পরিচালক ও জাতীয় থিয়েটারের প্রথম প্রকল্প পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।


যে সিনেমা নায়ক ওয়াসিমকে সুপারস্টারের খ্যাতি এনে দেয়

বিলবাওকে উড়িয়ে দিয়ে শিরোপা খরা ঘুচালো বার্সা

একের পর নক্ষত্রের পতনে শূন্য হয়ে যাচ্ছে চলচ্চিত্র মাধ্যমটি: শাকিব খান

রমজান মানুষের পাপমোচনের অবারিত সুযোগ নিয়ে আসে


আতিকুল হক চৌধুরী পরিচালিত ‘রক্তে ভেজা’ ও ‘কবর’ এবং মুনীর চৌধুরী পরিচালিত ‘চিঠি’ নাটকে অভিনয় করেছেন এস এম মহসিন। আর ‘পদক্ষেপ’র মধ্য দিয়ে তিনি রেডিও নাটকে আত্মপ্রকাশ করেন।

২০১৮ সালে তিনি বাংলা একাডেমির সম্মানিত ফেলো লাভ করেন। পেয়েছেন শিল্পকলা পদকও৷ অভিনয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য বাংলাদেশ সরকার ২০২০ সালে তাকে একুশে পদক প্রদান করে।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

যে সিনেমা নায়ক ওয়াসিমকে সুপারস্টারের খ্যাতি এনে দেয়

অনলাইন ডেস্ক

যে সিনেমা নায়ক ওয়াসিমকে সুপারস্টারের খ্যাতি এনে দেয়

ঢাকাই সিনেমার এক সময়ের জনপ্রিয় নায়ক ওয়াসিম। ১৯৫০ সালের ২৩ মার্চ চাঁদপুর জেলার আমিরাবাদে জন্মগ্রহণ করেন ওয়াসিম। তার পারিবারিক নাম মেজবাহ উদ্দীন আহমেদ। বেশ কিছুদিন ধরেই বার্ধক্যজনিত নানা রোগে ভুগছিলেন তিনি।

চিকিৎসাধীন ছিলেন রাজধানীর শাহাবুদ্দিন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। অবশেষে মৃত্যুর কাছে হার মানলেন। শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

সত্তরের দশক থেকে ঢাকাই সিনেমায় একচেটিয়া আধিপত্য ছিল ওয়াসিমের। ১৯৭৩ থেকে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত চলচ্চিত্রে শীর্ষ নায়কদের একজন ছিলেন ওয়াসিম। 

বিশেষ করে ফোক ফ্যান্টাসি আর অ্যাকশন ঘরনার ছবির নায়ক হিসেবে ছিলেন তুমুল জনপ্রিয় ও অপ্রতিদ্বন্দ্বী। 

এক সময়ের দর্শকপ্রিয় এই অভিনেতার রুপালী পর্দায় যাত্রাটা অবশ্য নায়ক হিসেবে হয়নি।

১৯৭২ সালে সহকারী পরিচালক হিসেবে চলচ্চিত্রে অভিষেক হয় তার। এর দুই বছর পর নায়ক হিসেবে অভিষেক ঘটে।

১৯৭২ সালে এস এম শফী পরিচালিত ‘ছন্দ হারিয়ে গেলো’ সিনেমায় ছোট চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে অভিষেক হয়েছিল ওয়াসিমের। ওই সিনেমায় সহকারী পরিচালক হিসেবেও কাজ করেন তিনি।

নায়ক হিসেবে তার প্রথম সিনেমা ‘রাতের পর দিন’। মহসিন পরিচালিত এ সিনেমাটি মুক্তি পেয়েছিল ১৯৭৪ সালে। মুক্তির পর রাতারাতি সুপারস্টার বনে যান ওয়াসিম। এরপর অ্যাকশন এবং ফোক-ফ্যান্টাসি ধাঁচের অনেকগুলো সিনেমায় অভিনয় করেছেন তিনি।

অভিনয় জীবনে ১৫২টির মতো ছবিতে অভিনয় করেছেন এ অভিনেতা। নায়ক ওয়াসিমের অভিনীত উল্লেখযোগ্য সিনেমাগুলো হলো- দ্য রেইন, ডাকু মনসুর, জিঘাংসা, কে আসল কে নকল, বাহাদুর, দোস্ত দুশমন, মানসী, দুই রাজকুমার, সওদাগর, নরম গরম, ইমান, রাতের পর দিন, আসামি হাজির, মিস লোলিতা, রাজ দুলারী, চন্দন দ্বীপের রাজকন্যা, লুটেরা, লাল মেম সাহেব, বেদ্বীন, জীবন সাথী, রাজনন্দিনী, রাজমহল, বিনি সুতার মালা, বানজারান।


২৬৫ যাত্রী নিয়ে জেদ্দার উদ্দেশে উড়াল দিল বিমানের বিশেষ ফ্লাইট

আজাদ মসজিদে নায়ক ওয়াসিমের জানাজা, বনানীতে দাফন

বিলবাওকে উড়িয়ে দিয়ে শিরোপা খরা ঘুচালো বার্সা

‘মিনা পাল’ থেকে যেভাবে ‘কবরী’ হয়ে ওঠা


তিনি অলিভিয়া, রোজিনা, অঞ্জু ঘোষ, কবরী, শাবানার সঙ্গে বেশি সংখ্যক সিনেমায় অভিনয় করেছেন। ‘দি রেইন’ সিনেমায় নায়িকা ছিলেন অলিভিয়া। এরপর ‘বাহাদুর’, ‘লুটেরা’, ‘লাল মেম সাহেব’, ‘বেদ্বীন’ সিনেমায় অলিভিয়ার সঙ্গে অভিনয় করেন। ‘রাজ দুলালী’ ছবিতে শাবানার সঙ্গে অভিনয় দর্শকদের মুগ্ধ করেছিলে। অঞ্জু ঘোষের সঙ্গে অভিনয় করেছেন ‘সওদাগর’, ‘নরম গরম’, ‘আবেহায়াত’, ‘চন্দন দ্বীপের রাজকন্যা’, ‘পদ্মাবতী’, ‘রসের বাইদানী’সহ বেশকিছু সিনেমায়।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

আজাদ মসজিদে নায়ক ওয়াসিমের জানাজা, বনানীতে দাফন

নিজস্ব প্রতিবেদক

আজাদ মসজিদে নায়ক ওয়াসিমের জানাজা, বনানীতে দাফন

ঢাকাই সিনেমার এক সময়ের জনপ্রিয় অভিনেতা ওয়াসিম শনিবার (১৭ এপ্রিল) দিবাগত রাত সাড়ে ১২টায় মারা যান। আজ রোববার বাদ যোহর রাজধানীর গুলশান আজাদ মসজিদে প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। এরপর বনানী কবরস্থানে দ্বিতীয় জানাজা শেষে তাকে দাফন করা হবে।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান এ কথা জানান।

১৯৫০ সালের ২৩ মার্চ চাঁদপুর জেলার আমিরাবাদে জন্মগ্রহণ করেন ওয়াসিম। তার পারিবারিক নাম মেজবাহ উদ্দীন আহমেদ।

১৯৭২ সালে এস এম শফী পরিচালিত ‘ছন্দ হারিয়ে গেলো’ সিনেমায় ছোট চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে অভিষেক হয়েছিল ওয়াসিমের। ওই সিনেমায় সহকারী পরিচালক হিসেবেও কাজ করেন তিনি।
নায়ক হিসেবে তার প্রথম সিনেমা ‘রাতের পর দিন’। মহসিন পরিচালিত এ সিনেমাটি মুক্তি পেয়েছিল ১৯৭৪ সালে। মুক্তির পর রাতারাতি সুপারস্টার বনে যান ওয়াসিম। এরপর অ্যাকশন এবং ফোক-ফ্যান্টাসি ধাঁচের অনেকগুলো সিনেমায় অভিনয় করেছেন তিনি।

একসময় বাণিজ্যিক ঘরানার সিনেমার অপরিহার্য নায়ক হয়ে ওঠেন ওয়াসিম। বিশেষ করে ফোক-ফ্যান্টাসি সিনেমার এক নম্বর আসনটি ছিল তার দখলে। শাবানা, ববিতা, কবরী, সুচরিতা, অঞ্জু ঘোষ ও নূতনদের সঙ্গে তার জুটি ছিল প্রশংসিত।


চিত্রনায়ক ওয়াসিম আর নেই

খালেদা জিয়ার জ্বর ১০২ ডিগ্রি : চিকিৎসক

‘মিনা পাল’ থেকে যেভাবে ‘কবরী’ হয়ে ওঠা

কোটি টাকার খেয়াঘাট ময়লার ভাগাড়, পাবলিক টয়লেট হয়েছে গুদাম ঘর


ওয়াসিম-রাতের পর দিন, দোস্ত দুশমন, দি রেইন, রাজদুলারী, বাহাদুর, মানসী, সওদাগর, নরম গরম, বেদ্বীন, ঈমান, লাল মেম সাহেবসহ একের পর এক হিট ছবি উপহার দিতে থাকেন।  সবমিলিয়ে ১৫২টির মতো ছবিতে অভিনয় করেছেন তিনি। 

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর