২১ বছরে নিচে ধূমপান করলে ৫ লাখ টাকা জরিমানা

অনলাইন ডেস্ক

২১ বছরে নিচে ধূমপান করলে ৫ লাখ টাকা জরিমানা

তরুণদের অনেকেই এখন ধূমপান করেন। আর এই তরুণ সিগারেট প্রেমীদের জন্য এলো নতুন দুঃসংবাদ। খুব শিগগিরই সিগারেটের ক্ষেত্রে নতুন আইন করছে ভারত সরকার। এই আইনে ১৮ বছর থেকে বেড়ে ২১ বছর পর্যন্ত যুবকদের সিগারেট পান করতে মানা। 

যদি ২১ বছর বয়সের আগে কেউ ধূমপান করে তাহলে তাকে গুনতে হতে পারে ৫ লাখ টাকা জরিমানা। অনাদায়ে ৫ বছরের কারাদণ্ড।

এরইমধ্যে ভারত সরকার Cigarettes and other Tobacco Products Amendment Act, 2020. নামক আইনের খসড়া করেছে। ওই খসড়ায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ধূমপানের বয়সসীমা ২১ করার বিষয়ে প্রস্তাবনা দিয়েছে।


আরও পড়ুন: রোহিঙ্গা ইস্যু: মিয়ানমারের পক্ষ ছাড়লো ৯ দেশ, এখনো চুপ ভারত


এই বিল আইনে পরিণত হলে কেউ কোনো ২১ বছরের কম বয়সী পুরুষ বা নারীকে তামাকজাত নেশাদ্রব্য বিক্রি করতে পারবে না। পাশাপাশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ১০০ মিটারের মধ্যে এই নেশাদ্রব্যের দোকান থাকাও চলবে না। 

এই বিলের সাত নম্বর ধারায় বলা হচ্ছে, আগামী দিনে একটি প্যাকেট হিসেবেই বিক্রি করতে হবে। সেটাই ন্যূনতম পরিমাণ। আলাদা করে খুচরো সিগারেট বিক্রি করলেও তা অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে। 

এই বিল আইনে পরিণত হলে এই ধরনের অপরাধে ৫ বছরের কারাদণ্ড অথবা পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা হতে পারে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

নারী দিবসের পদযাত্রায় নারী অধিকার কর্মীদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ

অনলাইন ডেস্ক

নারী দিবসের পদযাত্রায় নারী অধিকার কর্মীদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ

মেক্সিকোতে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে এক পদযাত্রায় পুলিশের সাথে নারী অধিকার কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। গতকাল (৮ মার্চ,২০২১) রাজধানীর প্রধান শহর জোকালোতে এ ঘটনা ঘটে।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মেক্সিকোতে নারী হত্যা ও লিঙ্গভিত্তিক সহিংসতা বন্ধে দেশটির সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে পদযাত্রা করে নারী অধিকার কর্মীরা।

প্রায় এক হাজার নারী এবং কয়েকজন তাদের মেয়েকে নিয়ে পদযাত্রায় অংশগ্রহণ করেন। এ সময় একটি মেয়েকে ‘তারা আমাকে হত্যা করেনি, কিন্তু আমি ভয়ে থাকি’ লেখা সংবলিত ব্যানার হাতে দেখা যায়। এক পর্যায়ে ভিড়ের মধ্য থেকে কয়েকজন হাতুড়ি ও লাঠি নিয়ে ন্যাশনাল প্লাজার আশপাশের কয়েকটি ধাতব লোহার বেড়া টেনে নামিয়ে ফেলেন।

বিক্ষোভকারীদের পদযাত্রার সামনে ব্যারিকেড দেয় পুলিশ। বিক্ষোভকারীরা কয়েকজন পুলিশ সদস্যের ঢালে আগুন ধরিয়ে দেন। যদিও সেই আগুন তাৎক্ষণিকভাবে নেভানো হয়। বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ টিয়ার গ্যাস ছোড়ে। এতে অন্তত ১৫ জন পুলিশ কর্মকর্তা ও চারজন বিক্ষোভকারী আহত হয়েছে।


আরও পড়ুনঃ


সমালোচনা আমাদের কাজের সফলতা : কবীর চৌধুরী তন্ময়

পাবনায় থাকছেন শাকিব খান

সাধ্যের মধ্যে ৮ জিবি র‍্যামের রেডমি ফোন

কমেন্টের কারণ নিয়ে যা বললেন কবীর চৌধুরী তন্ময়


মেক্সিকো সিটিতে নারী অধিকার কর্মী ও পুলিশের মধ্যে প্রায়ই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। নারী অধিকার কর্মীদের মতে, সরকারের মনোযোগ আকর্ষণের এটাই একমাত্র উপায়। মেক্সিকোতে নারী নির্যাতনের ঘটনাগুলো উপেক্ষা করায় দেশটির প্রেসিডেন্ট আন্দ্রেস ম্যানুয়েল লোপেজ ওব্রাদরকে দুষছেন নারী অধিকার কর্মীরা।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ইসরাইল-সৌদি-কাতার ও মার্কিন জঙ্গি বিমান একসাথে মহড়া দিল

অনলাইন ডেস্ক

ইসরাইল-সৌদি-কাতার ও মার্কিন জঙ্গি বিমান একসাথে মহড়া দিল

মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন সামরিক মহড়া আরো শক্তিশালী হচ্ছে। পরমানু বোমা বহনে সক্ষম দুটি মার্কিন বিমান আবারো মধ্যপ্রাচ্যের আকাশে টহল দিয়েছে। এসময় ইসরাইলের দুটি বোমারু বিমান তাদের সঙ্গ দিয়েছে। 

ইসরায়েলি দৈনিক টাইমস অব ইসরায়েল জানিয়েছে, রবিবার প্রতিটি মার্কিন বোমারু বিমানকে চারটি করে ইসরায়েলি এফ-১৫ জঙ্গি বিমান স্কর্ট করে নিয়ে যায়।

ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী এক বিবৃতিতে জানায়, বোমারু বিমানকে সঙ্গ দেয়ার এই ঘটনা মার্কিন সেনাবাহিনীর সঙ্গে তেল আবিবের কৌশলগত সহযোগিতার আরেকটি বড় প্রমাণ।

মার্কিন বি-৫২ বিমান দু’টি সৌদি আরব ও কাতারের আকাশসীমা দিয়ে উড়ে যাওয়ার সময় ওই দুই দেশের যুদ্ধবিমানও সেগুলোকে সঙ্গ দেয়।


যে কারণে অভিনয় ছেড়েছিলেন প্রয়াত নায়ক শাহীন আলম

কলকাতায় বহুতল ভবনে ভয়াবহ আগুন, নিহত ৯

নামাজে মুস্তাহাব কাজগুলো কী জেনে নিন

কেয়ামতের দিন যে সূরা বান্দার হয়ে আল্লাহর কাছে সুপারিশ করবে


মার্কিন সেনাবাহিনী দাবি করেছে, মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন মিত্রদের নিরাপত্তা রক্ষার প্রতিশ্রুতি রক্ষা করা এবং যেকোনো আগ্রাসন প্রতিহত করার প্রস্তুতি প্রদর্শনের লক্ষ্যে তারা দু’টি বোমারু বিমানকে এ অঞ্চলের আকাশে উড়িয়েছে।

এ নিয়ে গত ছয় মাসে সাত বার মার্কিন বোমারু বিমান মধ্যপ্রাচ্যের আকাশে টহল দিল। তবে ইসরায়েলি জঙ্গিবিমান কর্তৃক মার্কিন বি-৫২ বোমারু বিমানকে স্কর্ট করে নিয়ে যাওয়ার দৃশ্য এই প্রথম প্রকাশিত হলো। ইহুদিবাদী ইসরায়েল পারস্য উপসাগরীয় কয়েকটি আরব দেশের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার পর এই স্কর্টের মাধ্যমে দৃশ্যত মধ্যপ্রচ্যে নিজের সামরিক উপস্থিতি জাহির করার চেষ্টা করেছে।

এ নিয়ে মধ্যপ্রাচ্যে আরো ঝামেলা বাড়বে বলেই মনে করছে বিশ্লেষকরা। মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন উসকানি যত বাড়বে এই অঞ্চলের শান্তি শৃঙ্খলা তত বিনষ্ট হবে। 

news24bd.tv আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

চীনকে মোকাবিলা করতে শঙ্কায় জাপান

অনলাইন ডেস্ক

চীনকে মোকাবিলা করতে শঙ্কায় জাপান

পূর্ব চীন সাগরে বিতর্কিত পরিস্থিতিতে নিজেদের নিয়ন্ত্রিত দিয়াওউ দ্বীপপুঞ্জে চীনা পদক্ষেপের মোকাবিলা না করেই সৈন্য পাঠানোর সিদ্ধান্ত থেকে সরে যাচ্ছে জাপান। খবর সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট-এর।

গণমাধ্যমটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, জাপানে সেনাকাকাস নামে পরিচিত দিয়াওউ দ্বীপপুঞ্জের কাছে আন্তর্জাতিক জলরেখায় নিজেদের উপস্থিতি বাড়িয়েছে চীনা কোস্টগার্ড বাহিনী।

জাপানের কোস্টগার্ড জানিয়েছে, ফেব্রুয়ারিতে এক সপ্তাহের মধ্যে জলসীমায় চীনা বাহিনীর প্রবেশ গত বছরের কোনো একটি মাসের তুলনায় দ্বিগুণ বেড়েছে।

জাপানের এক কর্মকর্তা বলছেন, চীনের সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ড দেখে তারা শঙ্কিত এবং এর বিরুদ্ধে প্রতিক্রিয়া জানানোর পরিকল্পনা সৈন্য পাঠানোর সিদ্ধান্ত থেকে সরে যাচ্ছে।


আরও পড়ুনঃ


সমালোচনা আমাদের কাজের সফলতা : কবীর চৌধুরী তন্ময়

পাবনায় থাকছেন শাকিব খান

সাধ্যের মধ্যে ৮ জিবি র‍্যামের রেডমি ফোন

কমেন্টের কারণ নিয়ে যা বললেন কবীর চৌধুরী তন্ময়


সম্প্রতি একটি নতুন আইন জারি করেছে চীন সরকার। যেটির আওতায় এখন থেকে কোনো বিদেশি জাহাজ চীনা জলসীমায় অবৈধভাবে প্রবেশ করলে তাদের বিরুদ্ধে অস্ত্র ব্যবহার করতে পারবে বেইজিংয়ের আধা সামরিক বাহিনী। সেই প্রেক্ষিতেই সেনা উপস্থিতি বাড়িয়েছে তারা।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

খুঁজে পাওয়া গেলো সোনার পাহাড়

অনলাইন ডেস্ক

খুঁজে পাওয়া গেলো সোনার পাহাড়

কঙ্গোতে খুঁজে পাওয়া গেছে ‘সোনার পাহাড়’। সেখানে মাটি খুঁড়লেই পাওয়া যাচ্ছে সোনা, তাই ওই পাহাড়ে সোনা খুঁজতে ভিড় জমিয়েছে কঙ্গোবাসী।

কঙ্গোর ওই পাহাড়ের মধ্যেই নাকি রয়েছে সোনার উপাদান। পাহাড়ের পাথুরে মাটিতে নাকি প্রায় ৬০ থেকে ৯০ শতাংশই আকরিকই স্বর্ণ। এমনটাই দাবি উঠেছে কঙ্গোর ওই আলোচিত পাহাড় ঘিরে।

পাহাড়টির অবস্থান দেশটির কিভু প্রদেশে। ফেব্রুয়ারির শেষ দিকে এই পাহাড়ে সোনা খুঁজে পাওয়ার কথা জানা যায়।

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া এক ভিডিওতে দেখা যায়, ওই পাহাড় ঘিরে মানুষের প্রচুর ভিড়। যে যা পেয়েছেন তাই নিয়ে চলে এসেছেন লুহিহির ওই পাহাড়ের পাথুরে মাটি খুঁড়ে সোনা খুঁজে বের করতে। কেউ কেউ খালি হাতেই পাহাড়ের মাটি সংগ্রহ করছেন।

ভিডিওতে আরও দেখা যায়, ওই পাহাড়ের পাথুরে মাটি থেকে সোনার উপাদান আলাদা করতে একটি পাত্রের পানিতে তা ধুয়ে নিচ্ছেন গ্রামবাসীরা। এভাবেই হাতের মুঠোয় উঠে আসছে স্বর্ণ!


আরও পড়ুনঃ


সমালোচনা আমাদের কাজের সফলতা : কবীর চৌধুরী তন্ময়

পাবনায় থাকছেন শাকিব খান

সাধ্যের মধ্যে ৮ জিবি র‍্যামের রেডমি ফোন

কমেন্টের কারণ নিয়ে যা বললেন কবীর চৌধুরী তন্ময়


এদিকে, অবস্থা বেগতিক দেখে গত সোমবার থেকে ওই এলাকায় খননকাজ নিষিদ্ধ করেছে স্থানীয় প্রশাসন।

দক্ষিণ কিভুর খনিমন্ত্রী বেনান্ত বুরুমে মুহিগিরওয়া বলেছেন, ওই প্রদেশের রাজধানী শহর বুকাবুতে প্রায় ৫০ কিলোমিটার দূরে যে গ্রামে ওই পাহাড়টি রয়েছে, তাতে তিলধারণেরও স্থান নেই। আগামী নির্দেশিকা পর্যন্ত সেই নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে।

সূত্র : আনন্দবাজার

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ইরাকে মার্কিন সেনা ও আইএস একই মুদ্রার এপিঠ-ওপিঠ: হিজবুল্লাহ

অনলাইন ডেস্ক

ইরাকে মার্কিন সেনা ও আইএস একই মুদ্রার এপিঠ-ওপিঠ: হিজবুল্লাহ

ইরাকে মার্কিন সামরিক উপস্থিতি এবং আইএস জঙ্গিবাদ একই মুদ্রার এপিট ওপিট মাত্র বলেছেন হিজবুল্লাহ। 

ক্যাথলিক খ্রিস্টানদের সর্বোচ্চ ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিসের সাম্প্রতিক ইরাক সফর সম্পর্কে এক প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে এক বিবৃতিতে এ মন্তব্য করেছে হিজবুল্লাহ। পোপ ফ্রান্সিস ইরাক সফরে গিয়ে দেশটির প্রখ্যাত শিয়া আলেম গ্রান্ড আয়াতুল্লাহ আলী আল-সিস্তানির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

হিজবুল্লাহর বিবৃতিতে বলা হয়, “আমেরিকা এবং আইএস জঙ্গিবাদ এই মুদ্রার দুই পিঠ মাত্র। উভয়ই ইরাকি জনগণের পাশাপাশি দেশটির ঐক্য, সামাজিক, ধর্মীয় ও জাতীয় সংহতিকে নিজেদের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করেছে।”


যে কারণে অভিনয় ছেড়েছিলেন প্রয়াত নায়ক শাহীন আলম

কলকাতায় বহুতল ভবনে ভয়াবহ আগুন, নিহত ৯

নামাজে মুস্তাহাব কাজগুলো কী জেনে নিন

কেয়ামতের দিন যে সূরা বান্দার হয়ে আল্লাহর কাছে সুপারিশ করবে


হিজবুল্লাহ আরো বলেছে, ইরাক গত দুই দশকে আমেরিকা ও জঙ্গিদের পক্ষ থেকে চাপিয়ে দেয়া যুদ্ধসহ অসংখ্য সংকটের মোকাবিলা করেছে। পোপের সফরের মাধ্যমে ইরাকিদের এই দুঃখ-কষ্টের অবসান হবে এবং দেশটি আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নিজের কাঙ্ক্ষিত অবস্থান ফিরে পাবে বলে বিবৃতিতে আশা প্রকাশ করেছে হিজবুল্লাহ।

পোপ ফ্রান্সিস ইরাক সফরে উগ্র জঙ্গিবাদের নিন্দা জানান। কিন্তু তিনি দেশটিতে মার্কিন সামরিক উপস্থিতি নিয়ে কোনো কথা বলেননি। অথচ ইরাকি জনগণ মনে করেন, তাদের দেশে সন্ত্রাসী মার্কিন সেনা উপস্থিতির কারণেই মূলত ইরাকের নিরাপত্তাহীনতার অবসান হচ্ছে না।

news24bd.tv আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর