ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সম্পাদকের নেতৃত্বে ছিনতাই

নিজস্ব প্রতিবেদক

ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সম্পাদকের নেতৃত্বে ছিনতাই

নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার বালাগ্রাম ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্বে চার সদস্যের ছিনতাইকারীদের গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

কাপড় ব্যবসায়ীর উপর বর্বরোচিত জখমের ঘটনায় ইতোমধ্যে চক্রের মূল হোতাসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। তাদের রোববার সন্ধ্যায় আদালতে তোলা হয়। 

রোববার বিকেলে (৩ জানুয়ারী) পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমান।
 
গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তিরা হলেন - জলঢাকা উপজেলার বালাগ্রাম ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও অনার্স তৃতীয় বর্ষের ছাত্র রেজওয়ান ইসলাম (২২), উপজেলা শহরের মাথাভাঙ্গা এলাকার নাহিদ হাসান মিঠু (২২) ও মুদিপাড়া এলাকার বিশাল রায় (২১)।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, গত ২৫ ডিসেম্বর ভোরে জলঢাকা শহরের কাপড় ব্যবসায়ী শাহ মো. আরিফ চৌধুরীকে হত্যার উদ্দেশে ছুরি চাপাতি দিয়ে জখম করে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। 

কয়েকজন মাইক্রোবাস চালক আরিফ চৌধুরীকে রাস্তায় পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেন। টহল পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে তাকে উদ্ধার করে জলঢাকা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করায়। অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ এবং পরে সেখান থেকে ঢাকায় নিউরো সায়েন্স এ্যান্ড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আহত ব্যক্তির মাথায় ১২৮টি সেলাই পড়েছে। ঢাকার হাসপাতালে সংকটাপন্ন অবস্থায় আইসিইউতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন আরিফ চৌধুরী।

এই ঘটনার তদন্তে নেমে শনিবার রাত পৌনে আটটার দিকে জলঢাকার নাহিদ হাসান মিঠুকে গ্রেপ্তার করা হলে তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে ওই রাতেই বিশাল রায় নামে আরেকজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের তথ্যের ভিত্তিতে রবিবার ভোরে গ্রেপ্তার করা হয় ঘটনার মূলহোতা রেজওয়ানকে। 

এ সময় গ্রেপ্তারকৃতদের নিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা ছোরা, চাপাতি এবং চাইনিজ কুড়াল উদ্ধার করা হয় মন্থের ডাঙ্গা এলাকার একটি ড্রেন থেকে।


আরও পড়ুন: ভ্যাকসিন কার্যক্রম পরিচালনা নিয়ে ডিএনসিসিতে সমন্বয় সভা


পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমান জানান, রেজওয়ানের নেতৃত্বে জলঢাকায় একটি ছিনতাই চক্র তৈরি হয়েছে। এই চক্রে এখন পর্যন্ত চারজন রয়েছেন। তারা ভোরে ঢাকা কিংবা বিভিন্ন জায়গা থেকে জলঢাকায় পৌঁছালে তাদের ছিনতাইয়ের শিকার হন। পলাতক অপরজনকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা করা হচ্ছে। 

তিনি বলেন, প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে আসামীরা ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে আরিফ চৌধুরীর উপর হামলা চালিয়েছিলো মৃত ভেবে তারা পালিয়ে যায়। কিন্তু অধিকতর জানতে আরো জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। ঘটনায় আরো কারা জড়িত রয়েছে তাদেরও আইনের আওতায় আনা হবে।

পুলিশ সুপার বলেন, ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে আসামিরা উদ্ধার হওয়া অস্ত্র ব্যবহার করতেন। এ ব্যাপারে জলঢাকা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোস্তানছির বিল্লাহ বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

পোল্ট্রি মুরগির ফার্মে দুর্বৃত্তদের আগুন, ২ লাখ টাকার ক্ষতি

শেখ রুহুল আমিন, ঝিনাইদহ

পোল্ট্রি মুরগির ফার্মে দুর্বৃত্তদের আগুন, ২ লাখ টাকার ক্ষতি

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার হরিশংকরপুর ইউনিয়নের ভোজঘাট গ্রামের একটি পোল্ট্রি মুরগির ফার্মে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। শুক্রবার মধ্যরাতে এ ঘটনা ঘটে।

পোল্ট্রি ফার্মের মালিক কাজী ওলিয়ার রহমান জানান, শুক্রবার রাতে তিনি ঘরে শুয়ে ছিলেন। রাত পৌনে ১২ টার দিকে পোল্ট্রি মুরগির ঘর ও রান্না ঘরে আগুন দেখতে পেয়ে তিনি চিকিৎকার করেন। এসময় আশে পাশের লোকজন ছুটে আসে। পরে ফায়ার সার্ভিসে খবর দিলে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। অগ্নিকাণ্ডে তার প্রায় ২ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি। এ ব্যাপারে তিনি আজ সকালে ঝিনাইদহ সদর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন।


কুমিরের পেট থেকে বের করা হচ্ছে আস্ত মানুষ (ভিডিও)

প্রেমের বিয়ের ৪ মাসের মাথায় নববধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

বাক্‌স্বাধীনতা সুরক্ষিত রাখতে মানবাধিকার সংস্থাগুলোর আহ্বান

চুম্বনের দৃশ্যের আগে ফালতু কথা বলতো ইমরান : বিদ্যা


ওলিয়ার রহমান বলেন, আমাকে আর্থিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ করার জন্য এ ঘটনা ঘটিয়েছে। তবে কে বা কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে তা জানাতে পারেননি তিনি।

ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রেমের বিয়ের ৪ মাসের মাথায় নববধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

অনলাইন ডেস্ক

প্রেমের বিয়ের ৪ মাসের মাথায় নববধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

প্রেম করে বিয়ের মাত্র চার মাসের মাথায় নিজ ঘরে নববধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বগুড়ার শেরপুর উপজেলায় সুঘাট ইউনিয়নের ফুলজোড় গ্রামে শনিবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। নিহত ওই নারীর নাম মিতু খাতুন (২০)। মিতু টাঙ্গাইল জেলার সদর উপজেলার মিজানুর রহমানের মেয়ে।

জানা যায়, গত চার মাস আগে ফুলজোড় গ্রোমের হিটলারের ছেলে জুবায়ের খানের সঙ্গে মিতুর প্রেমের সম্পর্কের মাধ্যেমে পরিবারকে না জানিয়ে পালিয়ে বিয়ে করে। পরে  ছেলের পরিবার মেনে নিলেও মেয়ের পরিবার মেনে নেয় না। এতে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মতবিরোধ ও পরিবারে অশান্তির সৃষ্টি হয়।

শুক্রবার দুপুরের খাবার খেয়ে মিতু তার শয়ন কক্ষের দরজা-জানালা বন্ধ করে ঘুমিয়ে পড়েন। পরবর্তীতে চার থেকে পাঁচ ঘণ্টা অতিবাহিত হওয়ার পর ঘুম থেকে জেগে না ওঠায় স্বামীর পরিবারের লোকজন তার নাম ধরে একাধিকবার ডাকাডাকি করেন। পরে দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে গৃহবধূ মিতুকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখে থানায় খবর দেয়। পরে পুলিশ সন্ধ্যায় ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করেন।

আরও পড়ুন:


দেশের তিন অঞ্চলে বজ্রসহ বৃষ্টির আভাস

নারীর সঙ্গে সময় কাটানো সেই তুষার এখনো কাশিমপুর কারাগারেই

জিয়ার খেতাব বাতিলের বিষয়ে যা বললেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী

পরমাণু সমঝোতায় আমেরিকার অবস্থান জানতে জরুরী বৈঠকে বসার আহ্বান


মিতুর মা সোনিয়া আক্তার বাদী হয়ে শেরপুর থানায় ওই দিন রাতে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। তার দাবি, মিতুর স্বামী ও শ্বশুরের নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করেছে।

শেরপুর থানার ওসি শহিদুল ইসলাম বলেন, প্রাথমিকভাবে মৃত্যুর কারণ জানা যায়নি। তাই মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। প্রতিবেদন হাতে পাওয়া গেলেই মৃত্যুর কারণ সঠিক করে বলা সম্ভব হবে। 

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

চকলেট দেওয়ার লোভ দেখিয়ে শিশুকে ধর্ষণ

সামছুজ্জামান শাহীন, খুলনা

চকলেট দেওয়ার লোভ দেখিয়ে শিশুকে ধর্ষণ

খুলনার ডুমুুরিয়ায় চকলেট দেওয়ার লোভ দেখিয়ে পাঁচ বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণের অভিয়োগ উঠছে। এ ঘটনায় আজ শনিবার সকালে শিশুটির পিতা ডুমুরিয়া থানায় মামলা করেছেন। 

এর আগে তার অভিযোগের ভিত্তিতে শুক্রবার রাত একটার দিকে ডুমুরিয়ার ধামালিয়া বরুণা গ্রাম থেকে অভিযুক্ত রনি সরদার (১৪) নামের এক কিশোরকে গ্রেফতার করে পুলিশ। শনিবার দুপুরে তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। সে ওই গ্রামের খিজির সরদারের ছেলে।


নারীর সঙ্গে সময় কাটানো সেই তুষার এখনো কাশিমপুর কারাগারেই

জিয়ার খেতাব বাতিলের বিষয়ে যা বললেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী

পরমাণু সমঝোতায় আমেরিকার অবস্থান জানতে জরুরী বৈঠকে বসার আহ্বান

মিয়ানমারে গণতন্ত্র ফেরাতে নিরাপত্তা পরিষদকে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান


জানা যায়, শুক্রবার সন্ধ্যায় শিশুটির মা বাড়িতে রান্না করছিলেন। এ সময় প্রতিবেশি রনি সরদার চকলেট দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে শিশুটিকে নিজেদের বাড়ির পরিত্যক্ত স্থানে নিয়ে ধর্ষণ করে। এ ঘটনা জানাজানি হলে অভিযোগের ভিত্তিতে রাতেই পুলিশ রনি সরদারকে গ্রেফতার করে।

ডুমুরিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রফিকুল ইসলাম বলেন, শিশুটিকে মেডিকেল পরীক্ষা ও চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

news24bd.tv/আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

দুই শ টাকার টেস্টে লাগে হাজার টাকার বেশি

ফখরুল ইসলাম

দুই শ টাকার টেস্টে লাগে হাজার টাকার বেশি

ডায়াবেটিসের এইচবিএ ওয়ান সি টেস্ট করতে খরচ মাত্র ২০০ টাকা। এ টেস্ট প্রাইভেট হাসপাতালে করাতে রোগীকে গুণতে হয় ৫ থেকে ৮ গুণ বেশি হারে, ১ হাজার থেকে ১৫শ’ টাকা। ৫ থেকে ২৮ গুণ পর্যন্ত বাড়তি ফি গুনতে হয় হেপাটাইটিস পরীক্ষায়ও। খরচ ১০০ টাকা হলেও সব ক্যাটাগরির টেস্ট মিলিয়ে প্রাইভেট হাসপাতালের ফি ৫শ’ থেকে ২৮০০ টাকা পর্যন্ত। টেস্ট ফি নির্ধারণে কোনো নিয়মনীতি না থাকায়, পকেট কাটছে হাসপাতালগুলো। বিপরীতে অসহায় সাধারণ রোগীরা।

দেশে চিকিৎসাখাতের বাড়তি খরচ মানুষকে করে তুলছে আরো দরিদ্র। একজন রোগীকে সাধারণ থেকে কোনো জটিল রোগের চিকিৎসা করাতে পোহাতে হয় নানা টেস্টের ধকল। আর প্রাইভেট হাসপাতালে বাড়তি টেস্ট ফি’র বোঝায় দিশেহারা রোগীরা।


আবাসিক হোটেলে অনৈতিক কর্মকাণ্ড, ধরা ২০ নারী

চুমু দিয়ে নারীদের সব রোগ সারিয়ে দেন ‘চুমুবাবা’

বুবলিকে ধাক্কা দেওয়া গাড়িটি ছিল ব্ল্যাক পেপারে মোড়ানো, ছিল না নম্বর প্লেট

অস্ত্রের মুখে ছাত্রীকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণের পর দফায় দফায় ধর্ষণ


টেস্ট করাতে সব হাসপাতালের রিএ্জেন্ট ও প্যাথলজিক্যাল মেশিন একই। দামের ভিন্নতাটা শুধু হাসপাতাল ভেদে। কিন্তু এতেও কি সহনীয় সেই ফি?

এইচবিএ ওয়ান সি ডায়াবেটিসের টেস্টটি করাতে রিএ্যাজেন্ট মিলিয়ে সর্বোচ্চ খরচ ২০০ টাকা। সরকারি হাসপাতালে ফি ৩শ টাকা হলেও প্রাইভেট মেডিকেলগুলো নিচ্ছে ১ হাজার থেকে ১৫শ টাকা পরযন্ত। হেপাটাইটিস সহ চার ধরনের রোগের টেস্টের একটি কিটেই খরচ হয় মাত্র ১শ টাকা। অথচ সব টেস্ট মিলিয়ে রোগীদের থেকে প্রাইভেট হাসপাতাল নিচ্ছে ৫শ থেকে ২৮শ টাকা পর্যন্ত। একটি এক্স রে করতে সর্বোচ্চ ৮০ টাকা খরচ হলেও নিচ্ছে ৪শ থেকে ৫শ টাকা। ব্লাড গ্রুপিংয়ের খরচ ৩০ টাকা। প্রাইভেট হাসপাতাল নিচ্ছে আড়াইশ থেকে ৫শ টাকা। 

আল্ট্রাসনোগ্রাফি(প্রেগনেন্সি) খরচ ১শ থেকে দেড়শ টাকা। সরকারি হাসপাতালে ২২০ টাকা নিলেও প্রাইভেটে নিচ্ছে ১৩শ থেকে ২৫শ টাকা পর্যন্ত। এমন বাড়তি ফির যাঁতাকলে থাকা রোগীরা হয়তো জানেনই না কোন টেস্টের আসল খরচ কতটা।

বলা হয়ে থাকে দেশে প্রাইভেট হাসপাতালগুলোর আয়ের ৮০ ভাগই আসে টেস্ট ফি থেকে। তাই অতি মুনাফাভোগী চিকিৎসা ব্যবস্থা থেকে মানুষকে বাঁচাতে টেস্ট ফি নীতিমালা প্রণয়নের দাবি জানিয়েছেন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। 

অন্যদিকে ১০ ভাগ গরিব রোগীকে সম্পূর্ণ ফ্রি চিকিৎসা দেওয়ার নীতিমালা থাকলেও তা মানছেন না বেসরকারী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কেউ কেউ।

টেস্ট ফি সহনীয় করে হাসপাতালগুলো সঠিক ব্যবস্থাপনায় ফিরিয়ে আনার দাবি সাধারণ মানুষের।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বিধবাকে ধর্ষণ করে ছাত্রদল নেতা বলে, ফের সুযোগ না দিলে ক্ষতি

অনলাইন ডেস্ক

বিধবাকে ধর্ষণ করে ছাত্রদল নেতা বলে, ফের সুযোগ না দিলে ক্ষতি

ছাত্রদল নেতার হাতে ধর্ষণের শিকার তিন সন্তানের জননী স্বামীর ভিটে ছেড়ে বাবার বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন। অভিযোগ, বোরকা পরে ঘরে ঢুকে বিধবা নারীটিকে ধর্ষণ করে ওই নেতা।

শিপু নামে ওই নেতা সিলেটের কানাইঘাট উপজেলায় সিলেট সরকারি কলেজ ছাত্রদলের যুগ্ম-আহ্বায়ক।

এদিকে ঘটনার ১৩ দিন পার হলেও অভিযুক্ত ছাত্রদল নেতা জুবায়ের আহমদ শিপুকে আটক করতে পারেনি পুলিশ।

মামলার এজহার থেকে জানা যায়, উপজেলার আগতালুক গ্রামের মৃত শাহাব উদ্দিনের ছেলে জুবায়ের হাসান শিপু (২৭) গত ১৯ ফেব্রুয়ারি রাত ১২টার দিকে বোরকা পরে ওই নারীর ঘরের দরজা কেটে ভেতরে প্রবেশ করে। এরপর প্রাণে মারার ভয় দেখিয়ে ওই নারীকে ধর্ষণ করে।


আবাসিক হোটেলে অনৈতিক কর্মকাণ্ড, ধরা ২০ নারী

চুমু দিয়ে নারীদের সব রোগ সারিয়ে দেন ‘চুমুবাবা’

বুবলিকে ধাক্কা দেওয়া গাড়িটি ছিল ব্ল্যাক পেপারে মোড়ানো, ছিল না নম্বর প্লেট

অস্ত্রের মুখে ছাত্রীকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণের পর দফায় দফায় ধর্ষণ


ধর্ষণের পর যাওয়ার সময় বিধবার মোবাইল নম্বর নিয়ে যায় অভিযুক্ত জুবায়ের এবং হুমকি দিয়ে যায়, ঘটনাটি যাতে জানাজানি না হয়। পরদিন ফোন করে বলে তিনি আবারও আসবেন। সুযোগ না দিলে বড় ধরনের ক্ষতি করবে।

ঘটনার পরদিন ভিকটিম নারী কানাইঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে গেলে চিকিৎসকদের পরামর্শে তিনি সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যান।

সেখানে থেকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা শেষে তিনি বর্তমানে বাবার বাড়িতে অবস্থান করছেন।

পুলিশ আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে জানান কানাইঘাট থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. জাহিদুল ইসলাম।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর