বাংলাদেশের অপেক্ষা বাড়ছে কী ?

নিবিড় আমীন

বাংলাদেশের অপেক্ষা বাড়ছে কী ?

জরুরি প্রয়োজনে অনুমোদন দেওয়ার দিনই অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন রপ্তানি নিষিদ্ধ করলো ভারত। এক সাক্ষাৎকারে টিকা প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান সিরাম ইনস্টিটিউট প্রধান পুনাওয়ালা জানিয়েছেন, এখন তাদের উৎপাদিত টিকা কেবল ভারত সরকারের কাছেই হস্তান্তর করতে হবে। ফলে, তাদের সঙ্গে চুক্তি করা বাংলাদেশসহ বেশ কয়েকটি দেশের টিকা পেতে অপেক্ষা করতে হবে আরো কয়েক মাস। 

চলতি বছরের প্রথম দিনেই অক্সফোর্ডের অ্যাস্ট্রাজেনেকা ভ্যাকসিন জরুরি প্রয়োগের অনুমোদন দিয়েছিল ভারত। পাশের দেশে ভ্যাকসিনের এই খবরে স্বস্তি ছড়িয়েছিলো বাংলাদেশেও। কিন্তু তার রেশে কাটতে না কাটতেই এবার সিরামের তৈরি অক্সফোর্ডের টিকা কেবল ভারতীয়দের জন্য বরাদ্দ করলো দেশটির সরকার।

মার্কিন বার্তা সংস্থা এপিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে সিরামের প্রধান নির্বাহী আদর পুনাওয়ালা জানান, এই মুহূর্তে চুক্তি করা কোনো দেশ কিংবা বেসরকারি বাজারে ভ্যাকসিন বিক্রি করতে পারবেন না তারা। উৎপাদিত টিকা হস্তান্তর করতে হবে কেবল ভারতীয় সরকারের হাতেই।


আরও পড়ুন: সেনাবাহিনী বা বর্তমান বিএনপি থেকে শেখ হাসিনা মঙ্গলময়: মেজর আক্তারুজ্জামান


পুনাওয়ালা আরও বলেন, চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যেই ২০ কোটি থেকে ৩০ কোটি ডোজ টিকা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কোভ্যাক্স কর্মসূচির কাছে হস্তান্তরের পরিকল্পনা ছিল তাদের। তবে তার আগে সকল ভারতীয় জনগণের জন্য ডোজ নিশ্চিত করার নির্দেশ দিয়েছে ভারত সরকার। এরইমধ্যে নিজ দেশে বিনামূল্যে করোনা ভ্যাকসিন বিতরণের আশ্বাস দিয়েছেন দেশটির কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন।

তবে ভারত সরকারের নিষেধাজ্ঞার ফলে ঠিক কবে নাগাদ ভ্যাকসিন পাবে  চুক্তি করা দেশগুলো, তা নিয়ে এখন দেখা যাচ্ছে অনিশ্চয়তা। লেগে যেতে পারে কয়েক মাস। গেল ৫ নভেম্বর অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনের ৩ কোটি ডোজ পেতে সিরামের সঙ্গে চুক্তি করেছিল বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস। যে উদ্যোগের আওতায় প্রথম ধাপের ৬ মাসের প্রতি মাসে সিরামের থেকে ৫০ লাখ ভ্যাকসিন পাওয়ার কথা ছিলো বাংলাদেশের।

news24bd.tv আয়শা

 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

উত্তাল মিয়ানমার : অভ্যুত্থানবিরোধী মিছিলে গুলিতে নিহত ১

অনলাইন ডেস্ক

উত্তাল মিয়ানমার : অভ্যুত্থানবিরোধী মিছিলে গুলিতে নিহত ১

মিয়ানমারে অভ্যুত্থানের পর তিন সপ্তাহেরও বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও, এখনও ক্ষোভে ফুঁসছে গোটা মিয়ানমার। অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভে আবারও ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। বিক্ষোভ মিছিলে রোববার (২৮ ফেব্রুয়ারি) পুলিশের গুলিতে এক আন্দোলনকারী নিহত এবং বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। এ ছাড়া গ্রেফতার হয়েছেন অর্ধশতাধিক।

১ ফেব্রুয়ারি ভোরে দেশটিতে সামরিক অভ্যুত্থান হওয়ার পর থেকে গত চার সপ্তাহ ধরে সামরিক জান্তার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল করে যাচ্ছে দেশটির জনগণ। খবর রয়টার্সের।

কিয়াও মিন হিনটিকে নামে মিয়ানমারের এক রাজনীতিক আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমকে জানান, ডাউই শহরে একটি বিক্ষোভ মিছিলে পুলিশ নির্বিচারে গুলি চালালে রোববার এ হতাহতের ঘটনা ঘটে।


ঋণ থেকে মুক্তির দু’টি দোয়া

মেসি ম্যাজিকে সহজেই জিতল বার্সা

দোয়া কবুলের উত্তম সময়

প্রবাসী স্বামীকে তালাক দিয়ে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন!


এতে ঘটনাস্থলে একজন নিহত এবং কমপক্ষে আরও ২০ জন আহত হয়েছেন।এর আগে এক তরুণীসহ তিন বিক্ষোভকারী প্রাণ হারান পুলিশের গুলিতে। 

এ ব্যাপারে জানতে গণমাধ্যমগুলো দেশটির পুলিশ বা ক্ষমতাসীন সামরিক সরকারের কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করলেও তারা এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করেনি।

সম্প্রতি নির্বাচনে অং সান সু চির দল বিপুল ভোটে জয়লাভের পর কারচুপির অভিযোগ এনে দেশটিতে সামরিক অভ্যুথান ঘটায় সেনাবাহিনী। এখনও আটক করে রাখা হয়েছে সু চিসহ দেশটির শীর্ষ অনেক নেতাকে।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সৌদি যুবরাজ সালমানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার আহবান জাতিসংঘের

অনলাইন ডেস্ক

সৌদি যুবরাজ সালমানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার আহবান জাতিসংঘের

সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার আহবান জানিয়েছেন জাতিসংঘের বিশেষ প্রতিনিধি অ্যাগনেস ক্যালামার্ড। সৌদি যুবরাজের নির্দেশেই ভিন্ন মতাবলম্বী সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে হত্যা করা হয়েছে এমন অভিযোগের কারণেই এই নিষেধাজ্ঞা দিতে বলেছেন তিনি। 

তিনি এক বিবৃতিতে হোয়াইট হাউজকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, বিন সালমানের সম্পদ বাজেয়াপ্ত করার পাশাপাশি তার আন্তর্জাতিক বাণিজ্যিক লেনদেনের ওপরও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে হবে। ক্যালামার্ড বলেন, যারা খাশোগিকে হত্যার নির্দেশ দিয়েছে তাদেরকে আন্তর্জাতিক সমাজ থেকে একঘরে করে রাখতে পারলে একই ধরনের অপরাধ করার কথা যারা চিন্তা করে তারা শিক্ষা পেয়ে যাবে।  

খাশোগি হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারে পুঙ্খানুপুঙ্খ গোয়েন্দা প্রতিবেদন প্রকাশ করে দেয়ার জন্যও মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘের বিশেষ প্রতিনিধি।


ঋণ থেকে মুক্তির দু’টি দোয়া

মেসি ম্যাজিকে সহজেই জিতল বার্সা

দোয়া কবুলের উত্তম সময়

রোনালদোর গোলেও হোঁচট খেল জুভেন্টাস


সৌদি আরবের ক্ষমতাধর যুবরাজ মোহাম্মাদ বিন সালমান ব্যক্তিগতভাবে সেদেশের ভিন্ন মতাবলম্বী সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে হত্যা করার নির্দেশ দিয়েছিলেন বলে সদ্য প্রকাশিত মার্কিন গোয়েন্দা প্রতিবেদনে জানা গেছে।

২০১৮ সালে তৈরি করা মার্কিন সরকারের গোয়েন্দা প্রতিবেদনটি সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ধামাচাপা দিয়ে রাখলেও বর্তমান প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তা প্রকাশ করে দিয়েছেন। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মোহাম্মাদ বিন সালমান এমন একটি পরিকল্পনা অনুমোদন করেছিলেন যাতে সৌদি নিরাপত্তা বাহিনীকে এই নির্দেশ দেয়া হয়েছিল যে, খাশোগিকে ‘ধরে আনতে অথবা হত্যা করতে’ হবে।

তবে বাইডেন প্রশাসন সাফ জানিয়ে দিয়েছেন যে তারা বিন সালমানের বিরুদ্ধে কোন ধরণের নিষেধাজ্ঞা দিবে না। ট্রাম্প প্রশাসন খাসোগি হত্যাকান্ডের আলামত ধামাচাপা দিতে চেয়েছিল। কিন্তু, বাইডেন প্রশাসন সব ফাঁস করে দিলেন।  

সূত্র: পার্স টুডে

news24bd.tv/আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ইরানের সঙ্গে আইএইএ’র সম্পর্ক নষ্টের চেষ্টা করছে যুক্তরাষ্ট্র

অনলাইন ডেস্ক

ইরানের সঙ্গে আইএইএ’র সম্পর্ক নষ্টের চেষ্টা করছে যুক্তরাষ্ট্র

মার্কিন সরকার আন্তর্জাতিক পরমানু শক্তি সংস্থার সাথে ইরানের সম্পর্ক নষ্ট করার চেষ্টা করছে বলে মন্তব্য করেছেন ইরানের সংসদের জাতীয় নিরাপত্তা ও পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক কমিশনের মুখপাত্র আবুলফজল আমুয়ি। গতকাল বার্তা সংস্থা ইরান প্রেসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি একথা বলেছেন। 

আমুয়ি বলেন, ইরান পরমাণু কর্মসূচির ক্ষেত্রে সর্বশেষ যে পদক্ষেপ নিয়েছে তা পরমাণু সমঝোতার ভিত্তিতে নিয়েছে। এছাড়া, নিজের বেসামরিক পরমাণু কর্মসূচি পূর্ণোদ্যমে চালিয়ে যাওয়ার অধিকার তেহরানের রয়েছে।

তিনি বলেন, আমেরিকাসহ পশ্চিমা দেশগুলোর উচিত ইরানের সঙ্গে আইএইএ’র সম্পর্ক নষ্ট না করে পরমাণু সমঝোতায় নিজেদের দেয়া প্রতিশ্রুতি পূরণ করা। ইরানের এই মুখপাত্র বলেন, পশ্চিমা দেশগুলো যেন আইএইএ’র নির্বাহী পরিষদের অপব্যবহার না করে। কারণ, তেমনটি করলে এই সংস্থার সঙ্গে ইরানের সম্পর্কে মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।


ঋণ থেকে মুক্তির দু’টি দোয়া

মেসি ম্যাজিকে সহজেই জিতল বার্সা

দোয়া কবুলের উত্তম সময়

রোনালদোর গোলেও হোঁচট খেল জুভেন্টাস


২০১৮ সালের মে মাসে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করে ইরানের পরমাণু সমঝোতা থেকে তার দেশকে বের করে নিয়ে তেহরানের ওপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন। ইরানও এর প্রতিক্রিয়ায় পরমাণু সমঝোতায় নিজের দেয়া প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন কমিয়ে দিতে শুরু করে এবং বর্তমানে শতকরা ২০ মাত্রায় ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করছে তেহরান।

নয়া মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তার দেশের পরমাণু সমঝোতায় ফিরে আসার জন্য এখন ইরানকে আগে তার প্রতিশ্রুতিতে ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানাচ্ছেন। কিন্তু তেহরান বলছে, আগে আইন লঙ্ঘন করেছে বলে আমেরিকাকেই আগে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে সদিচ্ছার পরিচয় দিতে হবে এবং তারপর তেহরান তার প্রতিশ্রুতিতে পুরোপুরি ফিরে যাবে।

মার্কিন প্রেসিযেন্ট জো বাইডেন বলেছেন ইরানকে আগে তার প্রতিশ্রুতি পূরণ করতে হবে। তারপরে পরমানু সমঝাতায় ফিরবে তার দেশ। কিন্তু, তেহরান সাফ জানিয়ে দিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র আগে আইন লঙ্ঘণ করেছে তাই তাকেই আগে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে সদিচ্ছার প্রকাশ ঘটাতে হবে। তারপরে তেহরান পুরোপুরিভাবে তার প্রতিশ্রুতি পূরণ করবে।  

সূত্র: পার্স টুডে

news24bd.tv/আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মানুষ খুনের দায়ে থানায় মোরগ!

অনলাইন ডেস্ক

মানুষ খুনের দায়ে থানায় মোরগ!

এই বিশ্বে প্রতিনিয়ত কতই না অবিশ্বাস্য ঘটনা ঘটে। এমনই এক অবিশ্বাস্য রখমের ঘটনা ঘটেছে ভারতের তেলেঙ্গনা রাজ্যের লোথুনুর গ্রামে। মোরগের কাছে মৃত্যু হয়েছে মানুষের শুনতে অবাক লাগলেও এমটাই ঘটেছে। এই ঘটনার পর মোরগটিকে পুলিশ আটকও করেছে। 

জানা গেছে, অবৈধ মোরগ লড়াইয়ের জন্য পায়ে ছুরি বাঁধা একটি মোরগ তার মালিককে হত্যা করেছে।

স্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তা বি জীবন জানিয়েছেন, প্রতিপক্ষের সঙ্গে লড়াইয়ের জন্য নিজের মোরগকে প্রস্তুত করছিলেন ওই ব্যক্তি। এ সময় মোরগটি ছাড়া পাওয়ার চেষ্টা করলে এর পায়ে বাধা ৩ ইঞ্চির ধারালো ছুরি ওই ব্যক্তির কুঁচকিতে ঢুকে যায়।


ঋণ থেকে মুক্তির দু’টি দোয়া

মেসি ম্যাজিকে সহজেই জিতল বার্সা

দোয়া কবুলের উত্তম সময়

প্রবাসী স্বামীকে তালাক দিয়ে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন!


গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে হাসপাতালে নেওয়ার সময় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তার মৃত্যু হয়।

ওই মোরগ লড়াইয়ের সঙ্গে জড়িত ১৫ জনকে খুঁজছে পুলিশ। 

ঘটনার পর মোরগটিকে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। পরে একটি পোল্ট্রির ফার্মে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। বিচারকার্য চলাকালীন মোরগটিকে সাক্ষ্য হিসেবে আদালতে হাজির করা হবে বলে জানান জীবন।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ক্যাপিটল হিলে হামলার ঘটনায় মোট গ্রেপ্তার ২৮০

অনলাইন ডেস্ক

গেল ৬ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের পার্লামেন্ট ভবন ক্যাপিটল হিলে হামলার ঘটনায় এখন পর্যন্ত ২৮০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এছাড়া ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে তিন শতাধিক ব্যক্তির বিরুদ্ধে মার্কিন বিচার বিভাগ অভিযোগ দায়ের করেছে বলে জানিয়েছেন নির্বাহী ডেপুটি এটর্নি জেনারেল জন কারলিন। 

শুক্রবার তিনি জানান, দোষীদের বিরুদ্ধে অভিযোগের ভিত্তিতে জোর পদক্ষেপে তদন্ত পরিচালিত হচ্ছে এবং তাদেরকে কঠোর বিচারের আওতায় আনা হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি। 

এর আগে ক্যাপিটল পুলিশ প্রধান জানিয়েছিলেন, সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থকরা, ক্যাপিটল হিল ভবন উড়িয়ে দেয়ার পরিকল্পনা করেছিলো। 


কারওয়ান বাজারের হাসিনা মার্কেটের আগুন নিয়ন্ত্রণে

দিনেদুপুরে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষণ

মৌমিতাকে ধর্ষণের আলামত মেলেনি: ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক

দেখে মনে হয়েছে বিসিএস-এর প্রশ্নপত্রের করোনা হয়েছে


এছাড়া ট্রাম্পের সমর্থক ছাড়াও বেশকটি কট্টর ডানপন্থী সংগঠনের সদস্যদের বিরুদ্ধেও গোয়েন্দা সংস্থা তদন্ত পরিচালনা করছে বলে জানিয়েছে পুলিশ বিভাগ।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর