কিশোরী ফেলানী হত্যার ১০ বছর

অনলাইন ডেস্ক

কিশোরী ফেলানী হত্যার ১০ বছর

ফাইল ছবি।

বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত ইতিহাসের নৃশংসতম দিন আজ সেই ৭ জানুয়ারি। ২০১১ সালের এই দিনেই কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ির রামখানা অনন্তপুর সীমান্তে ১৪ বছরের কিশোরী ফেলানীকে গুলি করে নির্মমভাবে হত্যা করে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)। এই বিএসএফ’র গুলিতে নিহত হওয়ার পরও প্রায় সাড়ে ৪ ঘণ্টা কাঁটাতারে ঝুলে ছিল ফেলানীর নিথর দেহ।

এ ঘটনায় গণমাধ্যমসহ বিশ্বের মানবাধিকার সংগঠনগুলোর তীব্র সমালোচনার মুখে পড়ে ভারত। ফেলানী হত্যার ১০ বছর পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত কাঙ্ক্ষিত বিচার না পাওয়ায় হতাশ ফেলানীর পরিবারসহ সাধারণ মানুষ।

 বিশেষ করে মহামারি করোনা ভাইরাসের ছুতোয় অনিশ্চয়তায় রয়েছে পুরো বিচার প্রক্রিয়া। কেননা এই হত্যা মামলার পুনর্বিচার এবং ক্ষতিপূরণের দাবিতে ভারতের সুপ্রীম কোর্টে আনা রিটের (রিট নম্বর- ডব্লিউপি (সিআরএল)- নং-০০০৪১/১৫) শুনানি হওয়ার দিন ধার্য ছিল ২০২০ সালের ১৮ মার্চ, কিন্তু তা হয়নি। বরং রিটের শুনানি করোনার দোহাই দিয়ে কার্যতালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়।


যুক্তরাষ্ট্রের ক্যাপিটল ভবনে ট্রাম্প সমর্থকদের তাণ্ডব, গোলাগুলি

অন্যের স্ত্রীকে ‘ভাগিয়ে’ নিয়ে সংসার, পুলিশ সদস্য ক্লোজড

ড্রোনের সাহায্যে এবার প্রাণে বাঁচল ভারতের কেরালা

ফরিদপুরে শ্বশুরবাড়িতে স্ত্রীকে হত্যা করে নিজ বাড়ি এসে স্বামীর আত্মহত্যা!


ওই সময়েই বিষয়টি কুড়িগ্রামের পাবলিক প্রসিকিউটর এসএম আব্রাহাম লিংকনকে নিশ্চিত করেছিলেন কোলকাতার মানবাধিকার সুরক্ষা মঞ্চের (মাসুম) সাধারণ সম্পাদক কিরীটি রায়। এমন পরিস্থিতিতে ফেলানী হত্যার সুবিচার পাওয়ার বিষয়টি এখনও অন্ধকারেই রয়েছে।

২০১১ সালের ৭ জানুয়ারি (শুক্রবার) সকালে ফুলবাড়ি উপজেলার অনন্তপুর সীমান্ত দিয়ে নিজ বাড়িতে ফেরার পথে বিএসএফ সদস্য অমিয় ঘোষের গুলিতে বিদ্ধ হয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পরে কিশোরী ফেলানী। দীর্ঘ সাড়ে ৪ ঘণ্টা ফেলানীর নিথর দেহ কাঁটাতারের ওপর ঝুলে থাকার পর তার লাশ নিয়ে যায় বিএসএফ। এর প্রায় ৩০ ঘণ্টা পর ৮ (জানুয়ারি) শনিবার লাশ ফেরত দেয় বিএসএফ।

এর ২ বছর পর মানবাধিকার সংস্থাগুলোর অব্যাহত চাপের মুখে ২০১৩ সালের ১৩ আগস্ট ভারতের কোচবিহারে জেনারেল সিকিউরিটি ফোর্সেস আদালতে ফেলানী হত্যার বিচার কার্যক্রম শুরু করে ভারত সরকার। ওই আদালতে সাক্ষ্য দেন ফেলানীর বাবা নূর ইসলাম এবং মামা হানিফ। তবে একই বছরের ৬ সেপ্টেম্বর আসামি অমিয় ঘোষকে খালাস দেয় বিএসএফ এর বিশেষ আদালত।

এরপর রায় প্রত্যাখ্যান করে পুনর্বিচারের দাবি জানান ফেলানীর বাবা। এর প্রেক্ষিতে ২০১৪ সালের ২২ সেপ্টেম্বর আবারও বিচারকাজ শুরু হলে ১৭ নভেম্বর আদালতে সাক্ষ্য দেন ফেলানীর বাবা। কিন্তু ২০১৫ সালের ২ জুলাই আসামি অমিয় ঘোষকে পুনরায় খালাস দেন আদালত। এই রায়ের পর একই বছরের ১৪ জুলাই ভারতের মানবাধিকার সুরক্ষা মঞ্চ (মাসুম) ফেলানীর বাবার পক্ষে ভারতের সুপ্রিম কোর্টে একটি রিট পিটিশন করে। 

ওই বছর ৬ অক্টোবর রিট শুনানি শুরু হয়। এরপর ২০১৬, ২০১৭, ২০১৮, ২০১৯ এবং ২০২০ সালে একাধিকবার শুনানি পিছিয়ে তা আজ পর্যন্ত হয়নি। এর ফলে থমকে রয়েছে ফেলানী খাতুন হত্যার বিচার প্রক্রিয়া। ভারতের সর্বোচ্চ আদালতে এই হত্যাকাণ্ডের বিচার কার্যক্রম ঝুলে থাকায় হতাশা প্রকাশ করেছেন ফেলানীর পরিবার, স্বজন ও এলাকাবাসী।

মেয়ের হত্যাকারীর বিচার না পেয়ে হতাশা প্রকাশ করে ফেলানীর বাবা নূর ইসলাম বলেন, ফেলানী হত্যার বিচার চেয়ে অনেক ঘুরেছি, মানবাধিকার সংস্থাসহ বহু জনের কাছে গেছি, বিচার পেলাম না। ২০২০ সালের ১৮ মার্চ করোনার পূর্বে শুনানির তারিখ থাকলে তা হয়নি। এখন আর কোনও খোঁজ খবর জানি না।

ফেলানীর মা জাহানারা বেগম বলেন, ফেলানী হত্যার ১০ বছর হয়ে গেছে আজও বিচার পাইনি। আমি দুই দেশের সরকারের কাছে সঠিক বিচার দাবি করছি। একইভাবে সীমান্তের অধিবাসীরা জানান, ফেলানী হত্যার বিচার দ্রুত বিচার সম্পন্ন হলে সীমান্ত হত্যা বন্ধ হয়ে যেত।

এ বিষয়ে ফেলানী হত্যা মামলায় বাংলাদেশের প্রতিনিধি দলের সদস্য এবং কুড়িগ্রাম জেলা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট এস এম আব্রাহাম লিংকন বলেন, ভারতের সুপ্রিমকোর্টে ফেলানী হত্যার রীটটি কার্যতালিকার ৩ নম্বরে ছিল। কয়েকদফা শুনানির তারিখ পিছিয়ে গেছে। বর্তমান কোভিট-১৯ এর জন্য ভার্চুয়াল কোর্ট চলছে। পরিস্থিতি ভালো হলে রীটটি শুনানি হবে বলে জানতে পেরেছি। আশা করছি ফেলানীর পরিবার ন্যায় বিচার পাবে। ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টে ফেলানী হত্যাকাণ্ডের রিটের শুনানি ও বিচারকার্য দ্রুত সম্পন্ন হলে তা উভয় দেশের সীমান্তের জন্য মঙ্গলজনক হবে।

উল্লেখ্য, কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার রামখানা ইউনিয়নের কলোনীটারী গ্রামের নুরুল ইসলাম নুরু পরিবার নিয়ে থাকতেন ভারতে বঙ্গাইগাঁও গ্রামে। মেয়ে ফেলানীর বিয়ে ঠিক হয় বাংলাদেশে। তাই ২০১১সালের ৬ জানুয়ারি মেয়েকে নিয়ে রওনা হয় দেশের উদ্দেশ্যে। ৭ জানুয়ারি ভোরে ফুলবাড়ির অনন্তপুর সীমান্ত দিয়ে কাঁটাতারের উপর মই বেয়ে আসার সময় বিএসএফ সদস্য অমিয় ঘোষের গুলিতে মর্মান্তিক মৃত্যু হয় ফেলানীর।

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বরিশালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন অনুষ্ঠিত

রাহাত খান, বরিশাল

বরিশালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন অনুষ্ঠিত

বরিশাল সদর উপজেলায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন-২০২১ অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ রবিবার সদর উপজেলা পর্বের ম্যারাথন অনুষ্ঠিত হওয়ার মধ্য দিয়ে বরিশাল জেলায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন-২০২১ সম্পন্ন হয়েছে। 

জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে দেশব্যাপী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন-২০২১ এর আয়োজন করে বাংলাদেশ সেনা বাহিনী। দেশব্যাপী এই ডিজিটাল ম্যারাথনে সারা দেশের ১০ লাখ মানুষ অংশগ্রহণ করছে। 

বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষ্যে গত ১০ জানুয়ারি বরিশালের শেখ হাসিনা সেনানিবাসে এই ডিজিটাল ম্যারাথনের উদ্বোধন হয়। বরিশাল জেলার ১০ উপজেলায় পর্যায়ক্রমে এই ডিজিটাল ম্যারাথন আয়োজন করা হয়। 

আজ রবিবার বরিশাল জেলার শেষ পর্বে সদর উপজেলায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন-২০২১ অনুষ্ঠিত হয়। সকাল সাড়ে ১০টায় বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে থেকে সদর উপজেলা পর্বের ডিজিটাল ম্যারাথন উদ্বোধন করেন শেখ হাসিনা সেনানিবাসের ৬২ ইস্ট বেঙ্গলের মেজর মুন্তাজার রাশেদীন, ক্যাপ্টেন মো. ইয়াসির আরাফাত, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মুনিবুর রহমান এবং সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. মেহেদী হাসান।


জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটক আটকে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

শিক্ষা জাতির উন্নয়নের মূল চাবিকাঠি: প্রধানমন্ত্রী

অসুস্থ মাকে বাঁচাতে ক্রিকেটে ফিরতে চান শাহাদাত

প্রেমিকের আশ্বাসে স্বামীকে তালাক, বিয়ের দাবিতে অনশন!


বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী, ক্রীড়া সংস্থা এবং বেসামরিক প্রায় ৩শ’ মানুষের অংশগ্রহণে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে থেকে শুরু হওয়া ডিজিটাল ম্যারাথনটি মহাসড়কের প্রায় ৩ কিলোমিটার প্রদক্ষিণ করে সদর উপজেলা পরিষদ চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। 

আগামী ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে সেনাবাহিনী আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন-২০২১’  শেষ হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সৈয়দপুরে নির্বাচনী সহিংসতায় একজন নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক

সৈয়দপুরে নির্বাচনী সহিংসতায় একজন নিহত

নির্বাচনী সহিংসতায় নীলফামারীর সৈয়দপুরে ছোটন (৪০) নামে এক কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থক নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় কাউন্সিল প্রার্থীসহ দুইজন আহত হয়েেছেন। তাদেরকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

রোববার (২৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে ভোট চলাকালে সৈয়দপুর মহিলা কলেজ কেন্দ্রের বাইরে এ ঘটনা ঘটে।


২ জনের ফাঁসি, ৯ জনের যাবজ্জীবন

খুলনায় হত্যা মামলায় পাঁচজনের যাবজ্জীবন

অসুস্থ মাকে বাঁচাতে ক্রিকেটে ফিরতে চান শাহাদাত

সাংবাদিকদের সঙ্গে বিজিবি কর্মকর্তার অসৌজন্যমূলক আচরণ


জানা যায়, দুপুরে  কলেজ কেন্দ্রের বাইরে দুই কাউন্সিলর প্রার্থী ও সমর্থকদের কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সংঘর্ষ বাধে। এতে পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী নজরুল ইসলাম রয়েলের সমর্থক ছোটন গুরুতর আহত হন। তাৎক্ষণিক তাকে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।  

সৈয়দপুর থানার ওসি আবুল হাসনাত খান কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থক নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

পৌরসভা নির্বাচনে জাতীয় পার্টি প্রার্থীর ভোট বর্জন

অনলাইন ডেস্ক

পৌরসভা নির্বাচনে জাতীয় পার্টি প্রার্থীর ভোট বর্জন

নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরসভা নির্বাচনে জাতীয় পার্টির (জাপা) মেয়র প্রার্থী সিদ্দিকুল আলম ভোট বর্জন করেছেন।

আজ রোববার (২৮ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টার দিকে সৈয়দপুর শহরের পাঁচমাথা মোড় এলাকার জাতীয় পার্টির দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন এবং পুনরায় নির্বাচন আয়োজনের দাবি করেন।

সিদ্দিকুল আলমের অভিযোগ, এখানে নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ হচ্ছে না। মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে ভোটকেন্দ্রে এলেও তাদের ভোট দিতে দিচ্ছে না। জাতীয় পার্টি সরকারের একটি অংশ। অথচ লাঙলের এজেন্টকে ভোট কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়া হয়েছে।


জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটক আটকে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

শিক্ষা জাতির উন্নয়নের মূল চাবিকাঠি: প্রধানমন্ত্রী

অসুস্থ মাকে বাঁচাতে ক্রিকেটে ফিরতে চান শাহাদাত

প্রেমিকের আশ্বাসে স্বামীকে তালাক, বিয়ের দাবিতে অনশন!


তিনি বলেন, পুলিশ সদস্য লাঙলের সমর্থকদের হুমকি দিয়ে বের দেয়। এ অবস্থায় আমার ভোট বর্জন করা ছাড়া কোনও উপায় নেই। তারা আমার নিশ্চিত বিজয় ছিনিয়ে নিচ্ছে। সংবাদ সম্মেলনে সৈয়দপুর জাতীয় পার্টির অন্যান্য নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মহেশপুর পৌর নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থীর ভোট বর্জন

শেখ রুহুল আমিন, ঝিনাইদহ:

মহেশপুর পৌর নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থীর ভোট বর্জন

ঝিনাইদহের মহেশপুর পৌরসভার বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী এ্যাডভোকেট আমিরুল ইসলাম চুন্নু নির্বাচন থেকে সড়ে দাঁড়িয়েছে। রোববার দুপুরে তিনি মহেশপুর উপজেলা বিএনপির কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে ভোট বর্জন করেন। এ সময় বিএনপির দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। 

তিনি অভিযোগ করেন, কেন্দ্রে কেন্দ্রে তার এজেন্টদের রেব করে দেওয়া হয়েছে। তার ভোটারদের কেন্দ্রে আসতে বাঁধা দিয়েছে সরকার দলীয় প্রার্থীর লোকজন। তাছাড়া প্রতিটি কেন্দ্র ও তার আশে-পাশে দলীয় লোকজন নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয়। বিএনপির সমর্থিত কাউকে আসতে দেখলেই তাকে হুমকি ধামকি দিয়ে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রে গিয়ে দেখতে পায় প্রতিটি বুথের ভিতরে নিয়োজিত ব্যক্তি সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করছে। এসব বিষয়ে নির্বাচন নিয়োজিত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা, কর্মচারী, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কাছে গিয়েও কোন প্রতিকার পায়নি। যে কারণে অবাধ, নিরপেক্ষ সুষ্টু নির্বাচন হচ্ছে না। যার ফলে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াচ্ছি। 


জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটক আটকে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

শিক্ষা জাতির উন্নয়নের মূল চাবিকাঠি: প্রধানমন্ত্রী

অসুস্থ মাকে বাঁচাতে ক্রিকেটে ফিরতে চান শাহাদাত

প্রেমিকের আশ্বাসে স্বামীকে তালাক, বিয়ের দাবিতে অনশন!


উল্লেখ্য, মহেশপুর পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের আব্দুর রশিদ খাাঁন, বিএনপির এ্যাডভোকেট আমিরুল ইসলাম চুন্নু ও স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম মোস্তাফা কিরণ প্রতিন্দ›দ্বীতা করেন। এরমধ্যে বিএনপির প্রার্থী দুপরে নানা অভিযোগ এনে নির্বাচন বর্জন করলেন।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

পৌর নির্বাচনে ভুয়া সাংবাদিককে ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা

মাদারীপুর প্রতিনিধি

পৌর নির্বাচনে ভুয়া সাংবাদিককে ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা

মাদারীপুর পৌর নির্বাচন চলাকালে প্রভাব বিস্তারের অভিযোগ সাইদুর রহমান নামে এক ভুয়া সাংবাদিককে দুই হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত। অনাদায়ে ৭দিনের কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, রোববার বেলা সাড়ে ১১দিকে মাদারীপুর পৌরসভার চরমুগরিয়া মার্চেন্টস্ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে সাংবাদিক পরিচয় প্রভাব বিস্তার করছিল সাইদুর রহমান নামে এক যুবক। 


জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটক আটকে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

শিক্ষা জাতির উন্নয়নের মূল চাবিকাঠি: প্রধানমন্ত্রী

অসুস্থ মাকে বাঁচাতে ক্রিকেটে ফিরতে চান শাহাদাত

প্রেমিকের আশ্বাসে স্বামীকে তালাক, বিয়ের দাবিতে অনশন!


বিষয়টি স্থানীয়রা দায়িত্বরত ভ্রাম্যমান আদালতকে অবহিত করলে তৎক্ষনাত ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলাম তাকে ২ হাজার টাকা জরিমানার আদেশ দেয়। অনাদায়ে ৭দিনের কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছে। পরে দুই হাজার টাকা জরিমানা প্রদান করে অভিযুক্ত সাইদুর রহমান।

মাদারীপুর জেলা প্রাশসক কার্যালয়ের তথ্যপ্রদানকারী কর্মকর্তা এনডিসি মো. সেলিম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, তার কাছে নির্বাচন কমিশন ইস্যুকৃত কোন কার্ড ছিল না। প্রভাব বিস্তারের অভিযোগে একজনকে দুই হাজার টাকা জরিমানা করেছে। অনাদায়ে তাকে ৭দিন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছে।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর