জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী মিথ্যাচার করেছে: রিজভী

নিজস্ব প্রতিবেদক

জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী মিথ্যাচার করেছে: রিজভী

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, আওয়ামী লীগ সরকারের দ্বিতীয় বর্ষপূতি ও তৃতীয় বছরে পদার্পণ উপলক্ষ্যে জাতির উদ্দেশে দেওয়া প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ জনগণ ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছে। 

শুক্রবার সকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন। 

রিজভী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সরকারের বর্তমান মেয়াদে যুগপূর্তি উপলক্ষে জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে নির্জলা মিথ্যাচার করেছেন। 

‘তার এই বিভ্রান্তিকর ও দুরভিসন্ধিমূলক ভাষণ অন্তঃসারশূন্য কথামালার ফুলঝুরি ছাড়া আর কিছুই নয়।’

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী দেশের তথাকথিত উন্নয়ন, মানুষের জীবনমান বৃদ্ধি, অর্থনৈতিক অগ্রগতি, স্বাস্থ্যখাতের ইতিবাচক পরিবর্তন, আইনের শাসন, দুর্নীতির বিরুদ্ধে অবস্থানসহ যেসব বক্তব্য দিয়েছেন তা ‘মিথ্যাচারের কালো দলিল’। দেশবাসী তার এই ভাষণ ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছে।

‘প্রকৃতপক্ষে গণতন্ত্র হত্যা, ভোটাধিকার হরণ, খুন, গুম, অপহরণ, ধর্ষণ, টাকা পাচার, দুর্নীতি-লুণ্ঠন ও দুর্বৃত্তায়ন, দুঃশাসনের একযুগ পার করলো বাংলাদেশ,’ যোগ করেন রিজভী। 

বিএনপির এ নেতা আরও বলেন, বছরের পর বছর ধরে অবৈধভাবে ক্ষমতা কুক্ষিগত করে রাখতে ক্ষমতাসীন দুষ্টচক্র মুক্তিযুদ্ধের মূলমন্ত্র সাম্য-মানবাধিকার-ন্যায়বিচারকে নির্বাসনে পাঠিয়ে দিয়ে জনগণকে বোকা বানাতে তথাকথিত উন্নয়নের শ্লোগান তুলেছে। 

তিনি বলেন, যারা গণতন্ত্র হরণ করে, মানুষের বাক-ব্যক্তি স্বাধীনতা ও ভোটাধিকার কেড়ে নিয়ে কথিত উন্নয়নের এক যুগপূর্তি করতে চান, তাদেরকে স্মরণ করিয়ে দিতে চাই, সেদিন আর বেশি দূরে নয়, স্বৈরশাসক আইয়ুব খানের মতো তাদেরও পতন হবে।


আরও পড়ুন: ইরান সহজেই ৯০ মাত্রায় ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করতে পারে


করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন প্রসঙ্গে রিজভী বলেন, করোনা টিকা নিয়েও আওয়ামী সরকারের মাস্টারপ্ল্যান জনগণের কাছে পানির মতো পরিষ্কার। গতকালও প্রধানমন্ত্রীসহ মন্ত্রীরা বলেছেন- করোনা টিকার ব্যবস্থা হয়ে গেছে। ভারতই নাকি টিকা রপ্তানি করবে। কিন্তু গতকালই ভারতীয় হাইকমিশনার বলেছেন- বাংলাদেশে কবে টিকা আসবে তা নিশ্চিত বলা যাচ্ছে না। তাহলে কী দাঁড়ালো? টিকা নিয়ে আওয়ামী লীগের স্বনির্মিত মিথ্যাচারই প্রমাণিত হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, দেশের টাকা বিদেশে পাচার করে ক্ষমতাসীন দলের দুর্নীতিবাজরা কানাডায় গড়ে তুলেছে বেগমপাড়া। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে গড়ে তুলেছে অবৈধ সম্পদের পাহাড়। জনগণ যাতে ক্ষমতাসীনদের অনিয়ম-অনাচার নিয়ে প্রশ্ন তুলতে না পারে সেজন্য ভিন্ন দল ও মতের মানুষের পেছনে ইউনিফর্ম পরিয়ে দলীয় সন্ত্রাসীদের লেলিয়ে দেয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী যে ভাষণই দেন না কেন, স্বৈরাচার হিসেবেই তার কেবলমাত্র বিশজোড়া নামডাক হয়েছে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

জিয়ার অবদান অস্বীকার করার অর্থই হল স্বাধীনতাকে অস্বীকার: ফখরুল

অনলাইন ডেস্ক

জিয়ার অবদান অস্বীকার করার অর্থই হল স্বাধীনতাকে অস্বীকার: ফখরুল

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, জিয়াউর রহমানের অবদানকে অস্বীকার করা মানে স্বাধীনতাকেই অস্বীকার করা। দেশের স্বাধীনতায় অবদান রাখা জাতীয় নেতাদের অবদানকে অবশ্যই স্বীকৃতি দিতে হবে। একইভাবে জিয়াউর রহমানের অবদানকেও স্বীকার করতে হবে।

শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে গণমাধ্যমের সম্পাদক ও মিডিয়া ব্যক্তিত্বদের সঙ্গে গুলশানে হোটেল লেকশোরে বিএনপির মতবিনিময় সভায় এ কথা বলেন তিনি। 

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘কারও দয়ায় নয়, মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদান রাখার জন্যই খেতাব পেয়েছিলেন জিয়াউর রহমান। তার খেতাব বাতিল করা হলে, জনগণ তা মেনে নেবে না।’

আরও পড়ুন:


সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীকে রাজনীতিতে সুযোগ দিয়েছিলেন জিয়া: কাদের

বসুন্ধরা এলপি গ্যাসের রিটেইলার মিট প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত

খুলনায় বিএনপির অফিস ঘিরে রেখেছে পুলিশ, তীব্র উত্তেজনা

অবরুদ্ধ খুলনায় নৌপথেও পারাপার বন্ধ, ভোগান্তি চরমে


ফখরুল ইসলাম আরও বলেন, স্বাধীনতা কোনো গোষ্ঠী, দল বা ব্যক্তির সম্পত্তি নয়, এটি জনগণের সম্পত্তি। ‘বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের গুরুত্ব অস্বীকার করার কিছু নেই। কিন্তু জিয়াউর রহমানের ঘোষণার গুরুত্বও স্বীকার করতে হবে।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের গুরুত্ব অস্বীকার করার কিছু নেই। কিন্তু জিয়াউর রহমানের ঘোষণার গুরুত্বও স্বীকার করতে হবে। 

অনুষ্ঠানে বিএনপির বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, কারো খেতাব বাতিল করার এখতিয়ার জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের নেই।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীকে রাজনীতিতে সুযোগ দিয়েছিলেন জিয়া: কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক

সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীকে রাজনীতিতে সুযোগ দিয়েছিলেন জিয়া: কাদের

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, রক্ত দিয়ে অর্জিত এ দেশে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ভূলন্ঠিত করে সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীকে রাজনীতি করার সুযোগ করে দিয়েছিলেন জিয়াউর রহমান। 

শনিবার সকালে সিরাজগঞ্জ জেলার উল্লাপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। মন্ত্রী তাঁর রাজধানীর সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে সম্মেলনে যুক্ত হন। 

ওবায়দুল কাদের বলেন, জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার মূল্যবোধকে নির্বাসনে পাঠিয়েছিলেন,মুক্তিযুদ্ধের রণধ্বণি জয়বাংলাকে নিষিদ্ধ করেছিলেন। স্বাধীনতার পরবর্তীকালে তাঁর ভূমিকা মুক্তিযোদ্ধাদের কাছেই প্রশ্নবিদ্ধ ছিলো। জিয়াউর রহমান নিজেই নিজেকে বিতর্কিত করেছে বলেও মত দেন তিনি।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মনে করেন, একজন সেক্টর কমান্ডারের এমন মুক্তিযুদ্ধবিরোধী অপশক্তি তোষণ ও পোষণ নীতিতে ইতিহাস নিজেই জিয়াউর রহমানকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছে। ১৫ আগস্ট পৃথিবীর ইতিহাসের নির্মম রাজনৈতিক হত্যাকান্ডের প্রধান বেনিফিশিয়ারী ছিলেন জিয়াউর রহমান। তিনিই খুনীদের পূনর্বাসন করেছিলেন, বিভিন্ন দূতাবাসে চাকরি দিয়েছেন এবং খুনিদের বিদেশে পালিয়ে যেতেও সহযোগিতা করছেন বলেও মন্তব্য করেন মন্ত্রী।

ওবায়দুল কাদের বলেন, জিয়াউর রহমানকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতির জনক। 

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মেয়াদোত্তীর্ণ জেলা, উপজেলা, থানা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডে সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি গঠনের আহবান জানিয়ে বলেন কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে নিবেদিত প্রাণ ও ত্যাগীদের মূল্যায়ন করতে হবে। বিতর্কিত ও বসন্তের কোকিলদের দলে আনা যাবে বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন:


বসুন্ধরা এলপি গ্যাসের রিটেইলার মিট প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত

খুলনায় বিএনপির অফিস ঘিরে রেখেছে পুলিশ, তীব্র উত্তেজনা

অবরুদ্ধ খুলনায় নৌপথেও পারাপার বন্ধ, ভোগান্তি চরমে

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনকে ‘বৃদ্ধাঙ্গুলি’ ছাত্র ফেডারেশনের


আগামীকাল অনুষ্ঠিতব্য  ৫ম ধাপের পৌরসভা নির্বাচন শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হবার আশাবাদ ব্যক্ত করে ওবায়দুল কাদের বলেন অন্যান্য ধাপের মতো আগামীকালের নির্বাচনেও সরকার কোনরূপ হস্তক্ষেপ করবে না।

আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন তৃণমূলে জনগণের ক্ষমতায়ন ও উন্নয়নে এগিয়ে নিতে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন গুরুত্বপূর্ণ। তিনি দলীয় গঠনতন্ত্র অনুযায়ী প্রার্থীতাসহ অন্যান্য বিষয়ে দলীয় নির্দেশনা বা গাইড লাইন ইতিমধ্যেই জেলায় পাঠানো হয়েছে বলে জানান। 

প্রত্যেক ইউনিয়ন কমিটি সভা করে এক থেকে তিনজন সম্ভাব্য প্রার্থীর নাম চূড়ান্ত করে দলের ইউনিয়ন কমিটির রেজুলেশন বা লিখিত সুপারিশ উপজেলা ও জেলা কমিটির স্বাক্ষরসহ ধানমন্ডির দলীয় সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে জমা দিতে হবে

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন স্থানীয়ভাবে মনোনয়ন দেওয়ার কোন সুযোগ নেই। সুপারিশকৃত নামসমূহ যাচাই বাছাই ও বিভিন্ন জরিপ শেষে দলীয় সভাপতির নেতৃত্বে মনোনয়ন বোর্ড প্রার্থীতা চূড়ান্ত করবে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যা

বিচারের নামে জজ মিয়া নাটক যেনো না করা হয়: কাদের মির্জা

অনলাইন ডেস্ক

বিচারের নামে জজ মিয়া নাটক যেনো না করা হয়: কাদের মির্জা

নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা বলেছেন, সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যার ন্যায়বিচার করা হক। বিচারের নামে যেন জজ মিয়া নাটক না করা হয়। আমার কর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করার দাবি জানাচ্ছি। 

শুক্রবার বিকালে বসুরহাট পৌরসভা মিলনায়তনে করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন নিয়ে জনসচেতনতামূলক সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। 

তিনি আরও বলেন, আমার চার নেতাকর্মীকে মুক্তি দেয়া না হলে কোম্পানীগঞ্জে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি হবে। আর এর দায়ভার নোয়াখালী জেলার ডিসি, এসপি, কোম্পানীগঞ্জের ইউএনও এবং কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসিকে নিতে হবে।

এ সময় তিনি সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যাকাণ্ডের ন্যায়বিচারের স্বার্থে জুডিশিয়াল তদন্তের দাবি জানিয়ে বলেন, শিয়ালের মতো মৃত্যু চাই না। সিংহের গর্জন করে বাঘের মতো মরতে চাই।


তামিমার পাসপোর্ট ও ডিভোর্স পেপারের ঠিকানা ভুয়া!

কারাবন্দি অবস্থায় লেখক মুশতাক মৃত্যুতে যা বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

বগুড়ায় সকাল ও দুপুরের সড়ক দুর্ঘটনায় ঝরল ৬ প্রাণ

যা দেখে নাসিরকে ভালোবেসেছিলেন তামিমা


 

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

খুলনায় বিএনপির অফিস ঘিরে রেখেছে পুলিশ, তীব্র উত্তেজনা

সামছুজ্জামান শাহীন, খুলনা

খুলনায় বিএনপির অফিস ঘিরে রেখেছে পুলিশ, তীব্র উত্তেজনা

খুলনায় বিএনপির সমাবেশ ঘিরে দলীয় কার্যালয়ের সামনে কেডি ঘোষ রোডে শক্ত অবস্থান নিয়েছে পুলিশ। সড়কের প্রবেশ মুখে ব্যারিকেড দিয়ে নেতাকর্মীদের ভিতরে ঢুকতে বাধা দেওয়া হচ্ছে। শেষ পর্যন্ত উম্মুক্ত স্থানে সমাবেশে অনুমতি না দেওয়ায় কোথাও স্টেজ তৈরি করতে পারেনি বিএনপি। 

তবে দলীয় কার্যালয়ের সামনে মাইক টানিয়ে সম্মেলনের কার্যক্রম শুরু হয়েছে। শনিবার সকাল থেকে যেসব নেতকার্মী কার্যালয়ের ভিতরে ছিলেন তারাই সামনের সড়কে অবস্থান নিয়ে শ্লোগান দিচ্ছেন।

কেন্দ্রিয় ভাইস চেয়ারম্যান ব্যারিষ্টার শাহজাহান ওমর, শামসুজ্জামান দুদু, অ্যাডভোকেট নিতাই রায় চৌধুরীসহ কয়েকজন বিএনপি কার্যালয়ের ভেতরে অবস্থান করছেন।

আরও পড়ুন:


অবরুদ্ধ খুলনায় নৌপথেও পারাপার বন্ধ, ভোগান্তি চরমে

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনকে ‘বৃদ্ধাঙ্গুলি’ ছাত্র ফেডারেশনের

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবিতে আল্টিমেটাম

শাকিবের হয়ে পুরস্কার গ্রহণ করলেন বুবলি, জল্পনা তুঙ্গে


মহানগর বিএনপির সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, শহরের বিভিন্ন স্থানে ব্যারিকেড দিয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের সমাবেশস্থলে বাধা দেওয়া হয়েছে। পুলিশ বিএনপি কার্যালয়কে ঘিরে রেখেছে। পুরো এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। তারপরও বাধা উপেক্ষা করে নেতাকর্মী দলীয় কার্যালয়ে আসছেন এবং শেষ পর্যন্ত চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে সমাবেশ করা হবে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মহাসমাবেশে যোগ দিতে খুলনায় ইশরাক, পথে বাধার অভিযোগ

অনলাইন ডেস্ক

মহাসমাবেশে যোগ দিতে খুলনায় ইশরাক, পথে বাধার অভিযোগ

সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবিতে আজ শনিবার খুলনায় বিএনপির মহাসমাবেশ। দুপুর ২টা থেকে খুলনার শহীদ মহারাজা চত্বরে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

সমাবেশকে কেন্দ্র করে মহানগরীর প্রত্যেকটি মোড়ে মোড়ে বিপুল পরিমাণ আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। সমাবেশে আসার সময় নেতাকর্মীদের বাধা দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির নেতারা। 

সমাবেশে যোগ দিতে সকালেই খুলনা পৌঁছান বিএনপি নেতা ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন। ঢাকা থেকে খুলনায় আসার সময় পথিমধ্যে আইনশৃঙ্খলাবাহিনী বিভিন্ন সময় তার গাড়ি বাধা দেয় বলে অভিযোগ করেন ইশরাক।

আরও পড়ুন:


ইহুদিদের উৎসব উপলক্ষে ইব্রাহিমি মসজিদের আজানে ইসরায়েলের নিষেধাজ্ঞা

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে সন্ধ্যায় বৈঠকে বসবে ৬ মন্ত্রণালয়

নির্বাচনি পরিবেশ নষ্ট করে অতি উৎসাহী প্রার্থী ও নেতারা: ইসি শাহাদাত

৮ মাসের মধ্যে স্বর্ণের দাম সর্বনিম্ন


দুপুরে সমাবেশস্থলে মিছিল নিয়ে যাওয়ার সময় খুলনা পার্টি অফিসের সামনে দলটির তথ্য বিষয়ক সম্পাদক আজিজুল বারী হেলালের মিছিল আটকে দেয় পুলিশ। এ সময় নেতাকর্মীরা মিছিলে বাধা দেয়ার প্রতিবাদে বিভিন্ন স্লোগান দেন। 

পরে সাংবাদিকদের আজিজুল বারী হেলাল বলেন, আমরা শান্তিপূর্ণ মিছিল নিয়ে সমাবেশে যাচ্ছিলাম। কিন্তু পুলিশ আমাদের মিছিলে বাধা দিয়েছে। একটি গণতান্ত্রিক দেশে যে কারোরই সভা সমাবেশ করার অধিকার আছে। আমি এ ঘটনার তীব্র নিন্দা এবং প্রতিবাদ জানাই।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর