সাঈদ খোকনের বক্তব্যে ‘ব্যক্তিগত আক্রোশের’ : মেয়র তাপস

নিজস্ব প্রতিবেদক

সাঈদ খোকনের বক্তব্যে ‘ব্যক্তিগত আক্রোশের’ : মেয়র তাপস

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন সাবেক মেয়র সাঈদ খোকনের বক্তব্য জবাবে ডিএসসিসি মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস জানিয়েছেন ‘ব্যক্তিগত আক্রোশের’ কোনো বক্তব্যের ব্যাখ্যা দেয়াটা সমীচীন নয়।

রোববার সকালে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান। 

মেয়র বলেন ,অবৈধ স্থাপনা ও দোকানের বিরুদ্ধে অভিযান চলবে, কারো বাধায় তা বন্ধ হবে না। ডিএসসিসির সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন যা বলেছেন, সেটা তার ব্যক্তিগত অভিমত। এটার কোনো গুরুত্ব বহন করে না। 

ডিএসসিসি মেয়র আরও বলেন, যদি কেউ ঘুষ গ্রহণ করে, কমিশন নেয় বা সরকারি অর্থ আত্মসাৎ করে সেটা দুর্নীতি। 

এর আগে গতকাল শনিবার রাজধানীতে এক মানববন্ধনে শেখ ফজলে নূর তাপস মেয়র পদে থাকার যোগ্যতা হারিয়েছেন বলে দাবি করেন সাবেক মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, তাপস দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের শত শত কোটি টাকা তার নিজ মালিকানাধীন মধুমতি ব্যাংকে স্থানান্তরিত করেছেন। এছাড়া শত শত কোটি টাকা বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ করার মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা লাভ হিসেবে গ্রহণ করছেন। 

‘অন্যদিকে অর্থের অভাবে দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের গরিব কর্মচারীরা মাসের পর মাস বেতন পাচ্ছেন না। সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প অর্থের অভাবে বন্ধ হয়ে গেছে।’ 

তার মতে, তাপস মেয়র হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করার পর থেকেই দুর্নীতির বিরুদ্ধে গলাবাজি করে চলেছেন। 

মেয়র তাপসকে পরামর্শ দিয়ে সাঈদ খোকন বলেন, আমি তাকে বলব, রাঘববোয়ালের মুখে চুনোপুঁটির গল্প মানায় না। দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসন করতে হলে সর্বপ্রথম নিজেকে দুর্নীতিমুক্ত করুন। তারপর চুনোপুঁটির দিকে দৃষ্টি দিন।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

অন্য নারীকে বিয়ে : যুবককে তুলে নিয়ে বিশেষ অঙ্গ কাটার চেষ্টা

অনলাইন ডেস্ক

অন্য নারীকে বিয়ে : যুবককে তুলে নিয়ে বিশেষ অঙ্গ কাটার চেষ্টা

অন্য নারীকে বিয়ে করার জেরে এক যুবকের লিঙ্গ কাটার চেষ্টার অভিযোগে থানায় মামলা হয়েছে। বুধবার রাতে  নেত্রকোনার দুর্গাপুর থানায় মামলাটি করেন ওই যুবকের বড় ভাই।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, ওই যুবক বাজারে মোবাইল সার্ভিসিং ও মোবাইল ফোনে গান ডাউনলোডের কাজ করেন। সেই সুবাদে ওই নারীর সঙ্গে পরিচয় ঘটে। এরপর প্রায় সময় ভুক্তভোগী যুবককে ওই নারী নানান প্রলোভন দেখিয়ে বিয়ে করার প্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন। কিন্তু এতে যুবকটি রাজি না হওয়ায় যুবকের বন্ধুদের কাছে ওই নারী বিভিন্ন সময়ে নালিশ করেন এবং দেখে নেওয়ার হুমকিও দেন। একপর্যায়ে প্রায় ১ বছর ধরে ওই নারীর মোবাইল ফোন ধরেননি যুবক। পরবর্তীতে গত দুই সপ্তাহ আগে ওই যুবক অন্য এক নারীকে বিয়ে করেন। এরই জের ধরে মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলার নলুয়াপাড়া চায়না মোড় ব্রিজের ওপর থেকে ওই যুবককে তুলে নেন সেই নারী।

গামছা দিয়ে চোখ-মুখ বেঁধে অটোরিকশায় করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যান ওই নারী তার বাবা, দুই ভাই ও অজ্ঞাত আরও চারজন। পরে ছুরি বের করে অন্য অভিযুক্তদের সহায়তায় যুবকের লিঙ্গ কাটার চেষ্টা করেন ওই নারী। একপর্যায়ে ওই যুবক জ্ঞান হারিয়ে ফেললে অভিযুক্তরা পালিয়ে যান। পরে তার জ্ঞান ফিরলে তার সাথে থাকা মোবাইলে ঘটনাটি পরিবারের লোকজনকে জানালে চন্দ্রকোনার ব্রিজ সংলগ্ন বালুচর থেকে ওই যুবককে উদ্ধার করেন স্বজনরা। পরে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

পরদিন বুধবার রাতে এ ঘটনায় যুবকের বড় ভাই বাদী হয়ে অভিযুক্ত নারী, নারীর পিতা, দুই ভাইসহ অজ্ঞাত আরও চারজনকে আসামি করে দুর্গাপুর থানায় একটি মামলা করেন। 

দুর্গাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ নুর এ আলম মামলার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ওই যুবক ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তার লিঙ্গ কাটার চেষ্টা করা হয়েছিল। এখন তিনি ভালো আছেন। 

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

অপহৃত মাদ্রাসা ছাত্রের লাশ বান্দরবানে উদ্ধার, আটক ২

অনলাইন ডেস্ক

অপহৃত মাদ্রাসা ছাত্রের লাশ বান্দরবানে উদ্ধার, আটক ২

অপহৃত এক মাদ্রাসা ছাত্রের লাশ বান্দরবানের লামা থেকে মাটি চাপা অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার রাত ২টার দিকে বান্দরবানের লামা উপজেলার রূপসীপাড়া ইউনিয়নের শিং ঝিড়ি এলাকায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে লাশটি উদ্ধার করে। 

মাদ্রাসা ছাত্রের নাম মোহাম্মদ অলিউল্লাহ স্বাধীন (১৭) মাদ্রাসা ছাত্রের বাড়ি কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার বিষুপুর গ্রাম।

এদিকে ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ লামা উপজেলার বেতঝিড়ি এলাকা থেকে ফয়েজ আহমেদ (৩৮) ও আরিফুল ইসলাম (১৮) নামের দুজনকে আটক করেছে। এদের মধ্যে আরিফুল ইসলাম অপহৃত মাদ্রাসা ছাত্রের আপন ফুফাতো ভাই।

লামা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান জানান, গত ২২শে মার্চ মাদ্রাসা ছাত্র মোহাম্মদ অলিউল্লাহ বেড়ানোর কথা বলে তার ফুফাতো ভাই আরিফুল ইসলামের সাথে বের হয়, পরে তাদের আর কোনো খোঁজ না পাওয়ায় দুদিন পর দেবিদ্বার থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করে অলিউল্লাহর পরিবার।

পরে পুলিশ ঐ সূত্র ধরে বান্দরবানের লামা উপজেলার রূপসীপাড়া ইউনিয়নের বেতঝিড়ি এলাকা থেকে আরিফুল ইসলাম ও ফয়েজ আহমদ নামের দু'জনকে আটক করে। পরে জিজ্ঞাসাবাদে তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে রাতে পুলিশ লামার শিংঝিড়ি গহীণ পাহাড়ে মাটি চাপা দেয়া অবস্থায় অপহৃত মাদ্রাসা ছাত্র অলিউল্লাহর লাশ উদ্ধার করে।

এই ঘটনায় লামা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মাওলানা আতাউল্লাহ আমীনকে তুলে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক

মাওলানা আতাউল্লাহ আমীনকে তুলে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ

হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আতাউল্লাহ আমীনকে রাজধানীর  মোহাম্মদপুর থেকে রাত বারোটার পর সাদা পোশাকধারী বাহিনী তুলে নিয়ে গেছে বলে অভিযোগ করেছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ।

মাওলানা আতাউল্লাহ আমীন হেফাজতের ঢাকা মহানগরীর সহ-সাধারণ সম্পাদক এবং  বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের যুগ্ম মহাসচিব।

বিস্তারিত আসছে..

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

পাহাড়ে বন্য ভাল্লুকের আক্রমণে আহত কৃষক

অনলাইন ডেস্ক

পাহাড়ে বন্য ভাল্লুকের আক্রমণে আহত কৃষক

পাহাড়ে জুম ক্ষেতে কাজ করে ফেরার সময় কৃষক তংতং ম্রো (৩৫) নামে এক কৃষক বন্য ভাল্লুকের আক্রমণে আহত হয়েছে।

বান্দরবানের রুমা উপজেলায় আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও স্থানীয়রা জানায়, জেলার রুমা উপজেলার গ্যালেংগা ইউনিয়নের আবুপাড়া এলাকায় পাহাড়ে জুম ক্ষেতে কাজ করে ফেরার সময় কৃষক তংতং ম্রো (৩৫) বন্য ভাল্লুকের আক্রমণের শিকার হন। ভাল্লুকের আক্রমণের খবর পেয়ে স্থানীয়দের সহযোগিতায় সেনাবাহিনীর সদস্যরা আহত অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে রুমা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

আহত তংতং ম্রো গ্যালেংগা ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের আবুপাড়ার বাসিন্দা রিতু ম্রোর ছেলে। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য সেনাবাহিনী তাঁকে রুমা থেকে বান্দরবান সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে রুমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কাসেম জানান, বন্য ভাল্লুকের আক্রমণে এক কৃষক আহত হয়েছেন। প্রাথমিক চিকিৎসার পর আহত কৃষককে রাতে বান্দরবান পাঠানো হয়েছে।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

রিমান্ড শেষে কারাগারে ‘শিশুবক্তা’ রফিকুল

অনলাইন ডেস্ক

রিমান্ড শেষে কারাগারে ‘শিশুবক্তা’ রফিকুল

রাষ্ট্রবিরোধী, উস্কানিমূলক বক্তব্য এবং বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অভিযোগে 'শিশু বক্তা’ রফিকুল ইসলাম মাদানীকে দুই দিনের পুলিশি রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে গাছা থানা থেকে প্রিজন ভ্যানে করে তাকে গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২ এ পাঠানো হয়েছে।

কারাগারের জেলার মো. আবু সায়েম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জেলার জানান, দুইদিনের রিমান্ড মঞ্জুর হওয়ার পর পুলিশ হেফাজতে জিজ্ঞাবাদের জন্য রোববার দুপুরে রফিকুল ইসলামকে কারগার থেকে গাজীপুর মেট্রোপলিটন সিটির গাছা থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

এর আগে ১৩ এপ্রিল গাছা  পুলিশ রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে গাজীপুর আদালতে ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। ওইদিন বিচারক ১৫ এগ্রিল রিমান্ড শুনানির দিন ধার্য করেন। পরে গাজীপুর জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক তার দু’দিনের রিমান্ড আবেদন মঞ্জুর করেন।

পুলিশ জানায়, রাষ্ট্রবিরোধী ও উসকানিমূলক বক্তব্য দেওয়ায় ‘শিশুবক্তা’ রফিকুল ইসলাম মাদানীর বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে র‌্যাবের করা মামলায় ৮ এপ্রিল তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। ৭ এপ্রিল রফিকুল ইসলামকে তার গ্রামের বাড়ি থেকে আটক করে র‌্যাব। পরের দিন গাজীপুরের গাছা থানায় মামলা হয়।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর