মোবাইল কম্পিউটারে রশ্মি যে ক্ষতি করছে

অনলাইন ডেস্ক

প্রিন্ট করুন printer
মোবাইল কম্পিউটারে রশ্মি যে ক্ষতি করছে

কারনোকালীন সময়ে ঘরে থাকতে গিয়ে আমরা সব কাজ স্মার্টফোন আর কম্পিউটারেই করছি। আর বাকি যা সময় থাকছে সেটিও অনন্য ডিভাইস ব্যবহারে সময় দিচ্ছি।এভাবে বেড়েছে স্ক্রিন টাইম অর্থাৎ বৈদ্যুতিক যন্ত্রের সামনে কাটানো সময়।

এভাবে দীর্ঘসময় বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতির দিকে তাকিয়ে থাকার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে আমাদের চোখ আর ত্বক। চোখের ক্ষতির বিষয়টা আমরা জানলেও ত্বকের ক্ষতি হওয়ার বিষয়টা অনেকেই জানি না। সরাসির স্ক্রিনের নীল রশ্মির সংস্পর্শে আসা ঠিক সূর্যালোকের মতই আমাদের ত্বকের জন্য ক্ষতিকর।

যুক্তরাজ্যের চক্ষু বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে জানিয়েছেন, মুঠোফোনের অতিরিক্ত ব্যবহারে দৃষ্টি বৈকল্য সৃষ্টি হতে পারে। এতে করে মায়োপিয়া বা ক্ষীণ দৃষ্টির সমস্যা দেখা দিতে পারে। 

জেনে নেই এই নীল রশ্মি কীভাবে ক্ষতি করে
বেশিরভাগ বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি থেকে নির্গত নীলচে আলো বা রশ্মি সংক্ষিপ্ত তরঙ্গদৈর্ঘ্যের হয় যা থেকে প্রচুর শক্তি নির্গত হয়। দিনের একটা বড় অংশ এই আলোর সামনে কাটানো তাই আমাদের জন্য দারুণ ক্ষতিকর।

সাঈদ খোকনের বক্তব্যে ‘ব্যক্তিগত আক্রোশের’ : মেয়র তাপস

মাঠে টাইগাররা

মাঠে নয় বড় পর্দায় আসছেন ইরফান পাঠান

মোবাইল বা ল্যাপটপের সামনে অনেকটা সময় কাটালে তা ত্বকের বুড়িয়ে যাওয়া ও ত্বকে বলিরেখা পড়ার জন্য দায়ী। এছাড়াও এতে ত্বকে কালচে ভাব দেখা দেয় ও ত্বকের টানটান ভাব কমে। আর যাদের গায়ের রঙ কালো অর্থাৎ ত্বকে মেলানিন বেশি তাদের ত্বক লাল হয়ে যায় ও দ্রুত কালো ভাব বেড়ে যায়। এছাড়াও দীর্ঘক্ষণ মোবাইল বা ল্যাপটপের সামনে কাটালে মানুষের ত্বকের স্বাস্থ্যকর কোলাজেনের গঠন ভেঙে পড়ে যার ফলে জায়গায় জায়গায় কালচে ছোপ পড়ে।

ত্বকের ক্ষতি থেকে বাঁচতে যতটা সম্ভব এসব যন্ত্রপাতি থেকে দূরে থাকতে হবে। যাদের কাজের প্রয়োজনে দীর্ঘসময় থাকতে হয়, তারা সানব্লক ব্যবহার করতে পারেন। এতে থাকা এসপিএফ উপাদান ত্বককে ক্ষতিকর রশ্মি থেকে সুরক্ষা দেবে।

কমে যেতে পারে শুক্রাণু
গবেষকেরা জানান, মুঠোফোন থেকে হাই ফ্রিকোয়েন্সির ইলেকট্রো-ম্যাগনেটিক রেডিয়েশন নির্গত হয়। এই ক্ষতিকর তরঙ্গের সঙ্গে মস্তিষ্কে ক্যানসারের যোগসূত্র থাকতে পারে। এ ছাড়া শরীরের অন্য কোষকলা এই ক্ষতিকর তরঙ্গের প্রভাবে ক্ষতির মুখে পড়তে পারে। ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে পুরুষের প্রজননতন্ত্রেরও। গবেষকেদের দাবি, মুঠোফোন থেকে নির্গত ক্ষতিকর তরঙ্গ শুক্রাণুর ওপর প্রভাব ফেলে এবং শুক্রাণুর ঘনত্ব কমিয়ে দিতে পারে।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য