প্রেমিকাকে ‘মেরে’ সেফটিক ট্যাংকে ফেলে কংক্রিটের ঢালাই

বেলাল রিজভী, মাদারীপুর

প্রেমিকাকে ‘মেরে’ সেফটিক ট্যাংকে ফেলে কংক্রিটের ঢালাই

মাদারীপুরে ডাসারে বিয়ের প্রলোভনে শারীরিক সম্পর্কের পর বিয়ের জন্য চাপ দিতেই পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয় মুর্শিদা আক্তার নামে এক কিশোরীকে। এ ঘটনায় নিহতের ১১ মাস পরে কিশোরীর মরদেহ শনিবার রাতে প্রেমিক সাহাবুদ্দিন আকনের বাড়ির সেফটিক ট্যাংক থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নিহতের ঘটনায় অভিযুক্ত সাহাবুদ্দিনের মা হাসিনা বেগম তার সন্তানের বিচার চাইলেন।

স্থানীয় ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, মাদারীপুর জেলার ডাসার থানার পূর্ব বোতলা গ্রামের চাঁনমিয়া হাওলাদারের মেয়ে দশম শ্রেণির ছাত্রী মুর্শিদা আক্তারের সঙ্গে একই গ্রামের মজিদ আকনের ছেলে সাহাবুদ্দিন আকনের প্রেমের সম্পর্ক হয়।

এই সম্পর্কের সূত্র ধরেই একাধিক বার সাহাবুদ্দিনের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক হয়। এরপর বিয়ের জন্য চাপ দিতে থাকে মুর্শিদা।

আরও পড়ুন: আলোচিত খবর, সেই কবরটির একপাশে লেখা ইয়াসিন, অন্যপাশে মিম হা মিম

এরপরই খুন করা হয় মুর্শিদাকে। ঘটনার ১১ মাস পর তার মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

মাদারীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল হান্নান মিয়া জানান, সাহাবুদ্দিনের সঙ্গে মুর্শিদার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এই সম্পর্কের সূত্র ধরেই একাধিক বার তাদের দৈহিক মেলামেশা হয়। এরপর মুর্শিদা বিয়ের জন্য চাপ দিতে থাকে। পরে পরিকল্পনা করে সাহাবুদ্দিন একদিন মুর্শিদাকে নিজ বাড়িতে ডেকে এনে শারীরিক সম্পর্ক করে। পরে বালিশচাপা দিয়ে হত্যা করে। লাশ গুম করার জন্য বাড়ির সেফটিক ট্যাংকিতে ফেলে কংক্রিটের ঢালাই দিয়ে দেয়।

তিনি আরও জানান, প্রেমের সম্পর্কের সূত্র ধরেই গত বছরের ফ্রেব্রয়ারি মাসে মুর্শিদাকে বাড়ি থেকে চিকিৎসা করানোর কথা বলে নিয়ে যায়। এরপর নিখোঁজ থাকায় গত বছরের ১৮ ফেব্রয়ারি মুর্শিদার পরিবার ডাসার থানায় একটি জিডি করে। এতে কোনো প্রতিকার না হওয়ায় গত বছরের ৪ মার্চ সাহাবুদ্দিনসহ পাঁচজনকে আসামি করে ডাসার থানায় একটি মামলা করেন মুর্শিদার মা মাহিনুর বেগম। দীর্ঘদিন মামলার অগ্রগতি না হওয়ায় মামলাটি মাদারীপুর গোয়েন্দা পুলিশ তদন্ত ভার গ্রহণ করে।

এরপর গত বৃহস্পতিবার মামলার আসামি সাহাবুদ্দিন আকন আদালতে আত্মসমর্পণ করে। পরে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের এসআই তারিকুল ইসলাম আসামি সাহাবুদ্দিনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে আদালতে।

আদালত দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে। শনিবার বিকেলে সাহাবুদ্দিন হত্যাকাণ্ডে নিজের সম্পৃক্ততার বিষয় গোয়েন্দা পুলিশের কাছে স্বীকার করে এবং লাশ গুম করার কথাও স্বীকার করে। সাহাবুদ্দিনের দেওয়া তথ্য মোতাবেক সন্ধ্যা ৮টার দিকে সাহাবুদ্দিনের বাড়ির সেফটিক ট্যাংকি থেকে মুর্শিদার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহতের মা মাহিনুর বেগম বলেন, ‘আমার মেয়েকে গত বছরের ফ্রেব্রুয়ারি মাসে প্রেমের সম্পর্কের সূত্র ধরে নিয়ে যায়। সাহাবুদ্দিনের সাথে বিয়ের কথা বার্তাও চলছিল। এরপর দীর্ঘদিন নিখোঁজ থাকায় পর আমরা থানায় মামলা করতে গেলেও
পুলিশ প্রথমে মামলা নেয়নি। পরে এক পর্যায় মামলা হলেও পুলিশ আসামি গ্রেপ্তার করেনি। আসামি আদালতে আত্মসমর্পণ করে। এরপর আসামির দেওয়া স্বীকারোক্তি মোতাবেক আসামির বাড়ির সেফটিক ট্যাংকি থেকে মুর্শিদার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। সাহাবুদ্দিনকে আমরা যাতে সন্দেহ না করি এজন্য ও সব সময় আমার সাথে সাথেই থাকতো। জিডি করতেও আমার সাথে থানায় গিয়েছিল সাহাবুদ্দিন। সাহাবুদ্দিন ঠান্ডা মাথার খুনি। আমরা ওর দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই।’

খুনের ঘটনায় অভিযুক্ত সাহাবুদ্দিনের মা হাসিনা বেগম নিজের ছেলের বিচার দাবি করে বলেন, ‘মুর্শিদা খুব ভালো মেয়ে ছিলো। কেন খুন করেছে জানি না। তবে এই খুনের বিচার হওয়া উচিত। আমি চাই এই খুনের বিচার হোক। সে যে-ই হোক।’

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

খেলাফত প্রতিষ্ঠা হলে একটা একটা ধরব আর জবাই করব: ওয়াজ মাহফিলে বক্তা

অনলাইন ডেস্ক

খেলাফত প্রতিষ্ঠা হলে একটা একটা ধরব আর জবাই করব: ওয়াজ মাহফিলে বক্তা

‘আল্লাহ যদি আমাদেরকে তৌফিক দেয়, আর যদি ইনশাল্লাহ খেলাফত প্রতিষ্ঠা করতে পারি, যদি আল্লাহ তৌফিক দেয় আর যদি ইনশাল্লাহ খেলাফত কায়েম করতে পারি, আল্লাহর কসম, আল্লাহর কসম, সংবাদ দেখার টাইম পাবি না। সংবাদ দেখার টাইম পাবি না। একটা একটা ধরব আর জবাই করব, জবাই করব ইনশাল্লাহ।’

ওয়াজ মাহফিদে দেওয়া এমন একটি লোমহর্ষক ভিডিও ভাইরাল হয়েছে।

ওয়াসেক বিল্লাহ নোমানী নামে ওই বক্তা ময়মনসিংহ নগরীর সানকি পাড়ার ফজলুল হক মারকাযুল উল্লুম মাদ্রাসায় বাংলা, ইংরেজি ও গণিত বিষয়ে শিক্ষা দেন। তিনি বাজিতপুরের দিঘীরপাড়ে ওই বয়ান দেন বলে ইউটিউবে উল্লেখ করা আছে। গত ২৯ মার্চ ইউটিউবে এই হুমকি আপলোড করা হয়েছে। 

ভিডিওটি দেখতে ক্লিক করুন

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

চুল ধরে ‘ফেলে তরুণীর জামা ছিঁড়ে ধর্ষণের চেষ্টা চালাল’ ‘বখাটেরা’

অনলাইন ডেস্ক

চুল ধরে ‘ফেলে তরুণীর জামা ছিঁড়ে ধর্ষণের চেষ্টা চালাল’ ‘বখাটেরা’

উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় দুই সন্তানের জননী ও ইন্সুরেন্স কর্মী এক নারীকে ধর্ষণের চেষ্টা করে শরীরের বিভিন্ন স্থানে কামড় দিয়ে আহত করা হয়েছে বলে ৪ যুবকের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে।

শনিবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া উপজেলার সীমান্তবর্তী বাগেরহাট জেলার চিতলমারী উপজেলার চরকুনিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে।

আহত ওই তরুণীকে গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নির্যাতনের শিকার তরুণী বলেন, স্বামী ২য় বিয়ে করার পর দুই সন্তানকে নিয়ে চরকুনিয়া গ্রামে বাবার বাড়িতে থাকি। ওই গ্রামের মুনসুর শেখের ছেলে আমিনুর শেখ (২৮) দীর্ঘদিন ধরে আমকে কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিল। আমি তাকে বারবার প্রত্যাখান করায় সে ক্ষিপ্ত হয়।


খালেদা জিয়াসহ ফিরোজা বাসভবনের সবাই করোনায় আক্রান্ত, চলছে চিকিৎসা

ভ্যাকসিন নিয়ে পাইলট-কেবিন ক্রুরা ৪৮ ঘণ্টা ফ্লাইটে যেতে পারবেন না

মাদরাসা ও মসজিদ লকডাউনের আওতামুক্ত রাখার দাবি


শনিবার সকালে বাড়ির পাশের একটি দোকানে শ্যাম্পু কিনতে যাই। সেখানে আমিনুর ও তার সহযোগী চরকুনিয়া গ্রামের মুনসুর গাজীর ছেলে হাফিজ গাজী (২৯), আবুল হাওলাদারের ছেলে সবুজ হাওলাদার (২৫) ও কুনিয়া গ্রামের নোয়াব আলী শেখের ছেলে শিহাব শেখ (৩২) অশ্লীল ভাষায় আমাকে উত্ত্যক্ত করে।

প্রতিবাদ করলে আমিনুর আমার চুল ধরে দোকানের ভেতর ফেলে দেয়। এসময় তারা ধর্ষণের চেষ্টা করে ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে কামড় দিয়ে আহত করে। এক পর্যায়ে আমি সেখান থেকে বাইরে বেড়িয়ে আসি। পরে সবার সামনেই ৪ বখাটে আমাকে মারপিট করে।

ঘটনার ব্যাপারে প্রতক্ষ্যদর্শীরা জানান, ওই তরুণী জামা ছেড়া অবস্থায় চিৎকার করতে করতে দৌড়ে এসে জানায় তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে। এরপর ওই তরুণীকে প্রকাশ্যে সবার সামনেই মারপিট করে আমিনুর ও তার ৩ সহযোগী।

ঘটনার ব্যাপারে বক্তব্য জানতে কল করা হলে আমিনুর শেখের মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া গেলেও আরেক অভিযুক্ত শিহাব শেখের সঙ্গে কথা হয়।

তিনি বলেন, ঘটনার আমি কিছুই জানি না। প্রতিপক্ষরা আমাকে ফাঁসাতে মিথ্যা ঘটনা রটাচ্ছে।

এ ব্যাপারে কথা হলে বাগেরহাটের চিতলমারী থানার ওসি মীর শরিফুল হক বলেন, ধর্ষণ চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে তরুণীকে নির্যাতন বা মারপিটের কোনো খবর পাইনি।

এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ দায়ের হলে বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে বলে জানান ওসি।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বলাৎকারের পর ছাত্রকে কোরআন ছুঁয়ে শপথ করালেন মাদ্রাসাশিক্ষক

নিজস্ব প্রতিবেদক

বলাৎকারের পর ছাত্রকে কোরআন ছুঁয়ে শপথ করালেন মাদ্রাসাশিক্ষক

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে ১১ বছর বয়সী এক মাদ্রাসাছাত্রকে বলাৎকারের অভিযোগ উঠেছে ইয়াকুব আলী নামের এক মাদ্রাসা শিক্ষকের বিরুদ্ধে।

সদরের বড়খারচর আদর্শ নূরানী হাফিজিয়া মাদ্রাসায় এ ঘটনা ঘটে। অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা হলেও পুলিশ এখনও তাকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

জানা যায়, গত ১ এপ্রিল গভীর রাতে ওই শিক্ষার্থীকে ঘুম থেকে তুলে নিজ কক্ষে নিয়ে বলাৎকার করেন মোহতামিম ইয়াকুব আলী। বলাৎকারের পর ছাত্রকে মেরে ফেলার ভয়ভীতি দেখিয়ে এ ঘটনা কাউকে না বলার জন্য কোরআন শরীফ ছুঁয়ে শপথ করান। 

এ ঘটনার পর অসুস্থ হয়ে গত দুইদিন আগে ওই শিক্ষার্থী বাড়িতে আসে। এরপর মাদ্রাসায় যেতে তাকে জোর করলে সে আর মাদ্রাসায় যাবে না বলে জানায়। তারপর পরিবারের পক্ষ থেকে মাদরাসায় যেতে বেশি চাপ দিলে সে মাকে নিয়ে থানায় চলে যায় বিচার চাইতে।

পরে মা বিষয়টি বুঝতে না পেরে সন্তানকে বাড়ি নিয়ে আসতে চাইলে সন্তান মাকে নিয়ে মাদ্রাসার পরিচালনা পর্ষদের সভাপতির কাছে গিয়ে ঘটনা খুলে বলে। এ ঘটনা জানাজানির পর ওই শিক্ষক মাদ্রাসা ছেড়ে পালিয়েছেন। এ ঘটনায় শিশুটির বাবা গত বুধবার রাতে বাদী হয়ে কুলিয়ারচর থানায় ইয়াকুব আলীর বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছেন। 

এলাকাবাসী জানায়, বিগত কয়েক বছর আগেও এ মাদরাসায় আবুল হাসিম নামের এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগ পাওয়া যায়। পরে ওই শিক্ষক রাতে পালিয়ে যায়।


জাহাজ আসতে দেখেই নৌকার ২০ যাত্রী নদীতে দিল ঝাঁপ

কেন তিমি মারা যাচ্ছে তার তদন্ত চান স্থানীয়রা

দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে সর্বোচ্চ মৃত্যু

মাওলানা মামুনুলের বিরুদ্ধে সোনারগাঁয়ে আরও এক মামলা


মাদরাসার পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি সাত্তার মিয়া জানান, ঘটনা শুনে ওই শিক্ষককে চাকরি থেকে বরখাস্তের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

কিশোরগঞ্জ কুলিয়ারচর থানার ওসি এ কে এম সুলতান মাহমুদ বলেন, নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে তার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। মামলাটা তদন্তাধীন আছে। আসামিকে গ্রেপ্তারে চেষ্টা চলছে।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

নোয়াখালীতে গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে যৌন নির্যাতন

নোয়াখালী প্রতিনিধি

নোয়াখালীতে গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে যৌন নির্যাতন

নোয়াখালী সদরের আন্ডারচর ইউনিয়নের ০৮নং ওয়ার্ডে এক গৃহবধূকে ধর্ষণ চেষ্টার ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। গত ৫ এপ্রিল এই ঘটনা ঘটলে আজ শনিবার বিষয়টি প্রকাশ পায়। 

জানা যায়, ওই গৃহবধূ তিন সন্তান নিয়ে বাড়িতে একা থাকতেন। তার স্বামী কাজের সূত্রে বাড়ির বাইরে থাকেন। এই সুযোগ নিয়ে একই গ্রামের মো. জিয়া (৩০) রাতে গৃহবধূ ঘরের বাইরে বের হলে মুখ চেপে ধরে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। এতে ব্যর্থ হয়ে অভিযুক্ত জিয়া গৃহবধূর ওপর যৌন নির্যাতন চালায়। এতে ওই গৃহবধূ মারাত্মক আহত হন। 

বর্তমানে তাকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এ ঘটনায় গৃহবধূ বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন। 

সুধারাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সাহেদ উদ্দিন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। তবে আসামিকে এখনও গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি। 

আরও পড়ুন


ইতিহাসের সত্য না বলা অপরাধ: মির্জা ফখরুল

দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে সর্বোচ্চ মৃত্যু

মাওলানা মামুনুলের বিরুদ্ধে সোনারগাঁয়ে আরও এক মামলা

শরণখোলায় ডায়রিয়ার প্রকোপ, শতাধিক রোগী হাসপাতালে ভর্তি


news24bd.tv / কামরুল

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

রাজাপুরে স্কুলছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে মামলা

ঝালকাঠি প্রতিনিধি:

রাজাপুরে স্কুলছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে মামলা

ঝালকাঠির রাজাপুরে ১৭ বছর বয়সী স্কুল পড়ুয়া নবম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। শুক্রাবার রাতে ঐ ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে মো. রাজু হাওলাদারকে আসামি করে মামলা দায়ের করেছে। রাজু হাওলাদার উপজেলার গালুয়া ইউনিয়নের নলবুনিয়া এলাকার মো. হারুন হাওলাদারের ছেলে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, স্কুলছাত্রী ও রাজু একই বাড়িতে বসবাস করেন। রাজু ঐ ছাত্রীকে বিয়েসহ বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে দীর্ঘদিন ধরে শরীরিক সম্পর্কে লিপ্ত করে বলে অভিযোগ উঠেছে। এতে ঐ ছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। এ ঘটনা রাজুকে জানালে রাজু তাকে বিয়ে করতে অস্বীকার করে। বর্তমানে সে ৯ মাসের অন্তঃসত্ত্বা। 

রাজাপুর থানা অফিসার ইনচার্জ মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার করে তার জবানবন্দি রেকর্ড ও ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য আদালতে পাঠানো হয়েছে। আসামি রাজুকে গ্রেপ্তার করতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

আরও পড়ুন


ইতিহাসের সত্য না বলা অপরাধ: মির্জা ফখরুল

দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে সর্বোচ্চ মৃত্যু

মাওলানা মামুনুলের বিরুদ্ধে সোনারগাঁয়ে আরও এক মামলা

শরণখোলায় ডায়রিয়ার প্রকোপ, শতাধিক রোগী হাসপাতালে ভর্তি


news24bd.tv / কামরুল

মন্তব্য

পরবর্তী খবর