জেলা প্রশাসকের সম্মাননা পেয়ে অঝোরে কাঁদলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা

প্রিন্ট করুন printer
জেলা প্রশাসকের সম্মাননা পেয়ে অঝোরে কাঁদলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা

‘স্বাধীনতার ৫০ বছরেও স্বীকৃতি মেলেনি খুলনার খালিশপুর এলাকার বীর মুক্তিযোদ্ধা অশোক দাসের। বয়সের ভারে কিছুটা নুয়ে পড়েছেন। ১৯৭১ সালে ভারতের বনগাঁতে ট্রেনিং শেষে তিনি বেশ কয়েকটি সম্মুখযুদ্ধে অংশ নিয়েছেন। যুদ্ধক্ষেত্রে আট নম্বর সেক্টরে তিনি কাজ করেছেন। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের সনদ পর্যন্ত পাননি। একসময় ঠিকাদারী ব্যবসা করতেন। এখন

অসহায় মুক্তিযোদ্ধা খালিশপুর চিত্রালী বাজারে ফুটপাতে পুরাতন জুতা-স্যান্ডেল বিক্রি করে সংসার চালান।

দিনের বেলায় মানুষের বাড়ি থেকে জুতা-স্যান্ডেল সংগ্রহ করেন। সন্ধ্যায় ফুটপাতে বসেই সেগুলো বিক্রি করেন।’
ফেসবুকে আবেগঘন এই স্ট্যাটাস দেখেই বীর মুক্তিযোদ্ধা অশোক দাসের সাথে যোগাযোগ করেন খুলনার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন।

আরও পড়ুন: দিহান যৌনবর্ধক ওষুধ খেয়েছিলেন কি-না পরীক্ষা করা হবে

প্রবাসীর স্ত্রীর সঙ্গে ‘রাত্রিযাপনকালে যৌন উত্তেজক ট্যাবলেটসহ’ ধরা কৃষকলীগ নেতা

মঙ্গলবার (১২ জানুয়ারি) রাতে তিনি মোবাইল ফোনে অশোক দাসের সাথে যোগাযোগ করেন। আজ (বুধবার) দুপুরে তিনি বীর মুক্তিযোদ্ধা অশোক দাসকে গাড়িতে করে ডিসি অফিসে নিয়ে আসেন। পরে বিস্তারিত ঘটনা শুনে তিনি তাৎক্ষণিকভাবে বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ও মন্ত্রী পরিষদ বিভাগকে অবহিত করেন। পরে জেলা প্রশাসক তাকে মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে ঘর প্রদানের পদক্ষেপ নেন। একই সাথে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি প্রাপ্তির আবেদন যাচাই বাছাইয়ের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করেন। জেলা প্রশাসক অসহায় পরিবারটিকে আর্থিক সহায়তা ও তাঁর স্ত্রীর কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেন। জেলা প্রশাসকের তাৎক্ষণিক মহানুভবতায় অশোক দাস অশ্রুসিক্ত হয়ে পড়েন। তিনি অঝোর ধারায় কাঁদতে থাকলে জেলা প্রশাসকের অফিস কক্ষে আবেগঘন পরিবেশ তৈরি হয়।

জেলা প্রশাসকের মানবিক এ উদ্যোগকে প্রশংসা জানিয়েছেন সকলে।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য