স্কুলে যেতে দেয়নি সিকিউরিটি গার্ড, ১৭ বছর পর পরিবারের দেখা

অনলাইন ডেস্ক

স্কুলে যেতে দেয়নি সিকিউরিটি গার্ড, ১৭ বছর পর পরিবারের দেখা

ঢাকা শহর দেখাতে নিয়ে এসে মাত্র ৮ বছর বয়সী মেয়েকে হারিয়ে ফেলেছিলেন বাবা। কাজের ব্যস্ততা থাকায় আত্মীয়ের বাসায় রেখে চলে যান মেয়েকে। কিন্তু ফিরে এসে আর পাননি ছোট্ট মেয়েকে। খুঁজতে থাকেন বিভিন্ন জায়গায়। আদরের সন্তানও খুঁজে বেড়িয়েছেন বাবাকে। অবশেষে ১৭ বছর পর দেখা হলো বাবা-মেয়ের। মেয়েকে পেয়ে খুশিতে আত্মহারা পুরো পরিবার।

ফেসবুকের কল্যাণে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া পৌর শহরের শান্তিনগর এলাকায় মেয়ে তানিয়া আক্তারের সন্ধান পান বাবা। তার বাড়ি গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়ায়। বাবার নাম মো. সুন্দর আলী।

তানিয়ার বিয়ে হয়েছে। স্বামী সন্তান নিয়ে সুখেই আছেন। তার স্বামীর নাম মো. আনোয়ার হোসেন। স্বামীর সঙ্গেই আখাউড়া পৌর শহরের শান্তিনগর এলাকায় থাকেন তিনি। তাদের এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।

তানিয়ার বাবা সুন্দর আলী জানান, ঢাকায় একটি বাস কাউন্টারে চাকরি করতেন তিনি। ২০০৪ সালে মেয়েকে ঢাকা শহর দেখাতে নিয়ে যান। প্রথমে তাকে নিজ বোনের বাসায় রাজাবাজার নেন। এরপর ফুফুর বাসায় আগারগাঁও নেয়া হয়। কাজ থাকায় মেয়েকে রেখে বেরিয়ে যান তিনি।

কিছুক্ষণ পর ফুফুর মেয়ের সঙ্গে স্কুলে গেলে আর ফিরে আসেননি তানিয়া। সন্ধ্যা পর্যন্ত না ফেরায় বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেও কোথাও পাওয়া যায়নি। মেয়ের সন্ধানে মাইকিং ও পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেয়া হয়। পাশাপাশি থানায় জিডি করা হয়।

তানিয়া জানান, স্কুলের সিকিউরিটি তাকে ভেতরে ঢুকতে দেননি। পরে তিনি রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকেন। রাস্তা-ঘাট না চেনায় একটি বাসে করে সংসদ ভবনের কাছে আসেন। সেখানে একটি দোকানে টেলিভিশন দেখতে দেখতে রাত হয়ে যায়। তখন বাসায় ফেরার জন্য অনেক কান্নাকাটি করেন। কিন্তু ঠিকানা বলতে না পারায় তাকে বাসায় নিয়ে যান একজন সনাতন ধর্মাবলম্বীর লোক। পরদিন তাকে বাবার কাছে পৌঁছে দিতে অনেক জায়গায় খোঁজ করেন।

তানিয়া বলেন, বাবাকে খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে কলাবাগান এলাকায় আরজুদা খাতুন মিলন ও তার ছেলে রিপনের সঙ্গে দেখা হয়। তারা আমাকে তাদের বাসায় নিয়ে যান। এরপর থেকে তারা আমাকে আদর-যত্নে বড় করে তোলেন। আমি রিপনকে বাবা বলে ডাকি। তারা আমাকে বিয়েও দেন। রিপনের গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার রায়তলা গ্রামে।


আরও পড়ুন: ইরানের ছোঁড়া ক্ষেপণাস্ত্র পড়ল মার্কিন রণতরীর কাছে


 

তিনি আরো বলেন, স্বামী আনোয়ার হোসেনের ফেসবুক আইডিতে আমার মায়ের ছবিসহ একটি পোস্ট দেয়া হয়। সেই সূত্র ধরে আত্মীয়-স্বজনের সহায়তায় পরিবারকে খুঁজে পাই।

দীর্ঘ ১৭ বছর পর মেয়েকে খুঁজে পেয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন তানিয়ার বাবা ও ছোট বোন। বাবা ও বোনকে দেখে চিনতে পারেন তানিয়া।

তানিয়ার স্বামী আনোয়ার হোসেন বলেন, আমি সবকিছু জেনেই তানিয়াকে বিয়ে করি। বিয়ের পর তার পরিবারের সন্ধান পেতে অনেক চেষ্টা করা হয়। আল্লাহর অশেষ রহমত থাকায় সেই ইচ্ছে পূরণ হয়েছে। আমি খুবই খুশি।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মৌলভীবাজার থেকে বিরল প্রজাতির ‘সাপখেকো’ সাপ উদ্ধার

অনলাইন ডেস্ক

মৌলভীবাজার থেকে বিরল প্রজাতির ‘সাপখেকো’ সাপ উদ্ধার

মৌলভীবাজারের সোনাছড়া চা-বাগান থেকে উদ্ধার করা হয়েছে বিষধর দুর্লভ প্রজাতির ডোরা কাল কেউটে বা ডোরা শঙ্খনি সাপ। এর ইংরেজি নাম ব্যান্ডেড ক্রাইট। এটি এলাপিডি পরিবারভুক্ত এক ধরণের বিষধর সাপ।

গতকাল মঙ্গলবার (০২ মার্চ) রাত ৮টার দিকে উদ্ধারের পর ওই সাপটিকে বাংলাদেশ বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনে রাখা হয়েছে। আগামীকাল বুধবার লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে অবমুক্ত করা হবে সাপটিকে। 

বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের পরিচালক সজল দেব জানিয়েছেন, আজ রাত ৮টার দিকে শ্রীমঙ্গল উপজেলার সোনাছড়া চা-বাগানের কাঞ্চন নায়েক নামক রাস্তার মধ্যে এ শঙ্খনি সাপটিকে স্থানীয় এক চা শ্রমিক দেখতে পায়। এতে বাগান এলাকার লোকজন জড়ো হয়ে বিষধর এ সাপটিকে মারার প্রস্তুতি নেয়।
সজল দেব জানান, বুধবার বন্যপ্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে অবমুক্ত করা হবে। 

এসময় স্থানীয় লোকজনের মাধ্যমে বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের পরিচালক সজল দেবের কাছে বিষধর সাপের খবর আসে। পরে রাতেই সোনাছড়া চা বাগানে উপস্থিত হয়ে শঙ্খনিকে উদ্ধার করে নিয়ে আসা হয়। বর্তমানে এ সাপটি বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনে রাখা হয়েছে। 


আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

ভারতে বাড়ছে গাধার চাহিদা!

ভারতের মাদ্রাসায় পড়ানো হবে বেদ, গীতা, সংস্কৃত

এই নচিকেতা মানে কী? আমি তোমার ছোট? : মঞ্চে ভক্তকে নচিকেতার ধমক (ভিডিও)


সজল দেব জানান, এক সময় এ সাপটি সচরাচর জমি বা খেতের আলে দেখা যেতো। তবে জমিতে অতিরিক্ত কীটনাশক ব্যবহারের ফলে এ সাপটির অস্তিত্ব বিলীন হয়ে গেছে। 

শঙ্খনি নিশাচর প্রাণী। সে আহার হিসেবে সব ধরনের সাপ খেতেই অভ্যস্ত। অন্য কোনো খাবার খায় না। 
news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ভারতে বাড়ছে গাধার চাহিদা!

অনলাইন ডেস্ক

ভারতে বাড়ছে গাধার চাহিদা!

ভারতে বাড়ছে গাধার চাহিদা। অন্ধ্রপ্রদেশে এক কেজি মাংসের দাম বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬০০ টাকায়। এ ছাড়া পূর্ণবয়স্ক একটি গাধা এখন বিক্রি হচ্ছে ১৫-২০ হাজার টাকায়!

জানা গেছে গাধার মাংস খাওয়ার পেছনে কাজ করছে ভ্রান্ত কিছু ধারণা। মনে করা হয় হাঁপানির মতো শ্বাসকষ্টের অসুখে ওষুধ হিসেবে এর জুড়ি নেই। সেই সঙ্গে ব্যথার উপশমও নাকি হয় গাধার মাংস খেলে।


আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

বলিভিয়ায় রেলিং ধসে ৫ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর মৃত্যু

সৌদি যুবরাজের বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধ তদন্তের আবেদন

এই নচিকেতা মানে কী? আমি তোমার ছোট? : মঞ্চে ভক্তকে নচিকেতার ধমক (ভিডিও)


তা ছাড়া গাধার মাংস যৌন ক্ষমতা বাড়িয়ে দিতে পারে অনেকের বিশ্বাস! এই ধরনের ধারণার বশবর্তী হয়ে ক্রমেই বাড়ছে এই পশুর মাংসের চাহিদা। অবস্থা এমন যে কর্ণাটক, মহারাষ্ট্র, তামিলনাড়ু থেকে গাধার চোরাচালান শুরু হয়েছে! দাম যতই বাড়ুক, চাহিদার অন্ত নেই।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বুধবার রাজধানীর যেসব এলাকার মার্কেট বন্ধ থাকবে

অনলাইন ডেস্ক

বুধবার রাজধানীর যেসব এলাকার মার্কেট বন্ধ থাকবে

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার মার্কেট সপ্তাহের ভিন্ন ভিন্ন দিনে বন্ধ থাকে। তাই কোথাও যাওয়ার পরিকল্পনা থাকলে আগে জেনে নিন। আজ (০৩ মার্চ) বুধবার রাজধানীর কোন কোন এলাকার দোকানপাট ও মার্কেট বন্ধ থাকবে।

বন্ধ যেসব এলাকার দোকানপাট

বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা, মধ্য এবং উত্তর বাড্ডা, জগন্নাথপুর, বারিধারা, সাঁতারকুল, শাহাজাদপুর, নিকুঞ্জ-১, ২, কুড়িল, খিলক্ষেত, উত্তরখান, দক্ষিণখান, জোয়ার সাহারা, আশকোনা, বিমানবন্দর সড়ক ও উত্তরা থেকে টঙ্গী সেতু।

বন্ধ যেসব মার্কেট

যমুনা ফিউচার পার্ক, রাজউক শপিং মল, নুরুনবী সুপার মার্কেট, পাবলিক ওয়ার্কস সেন্টার, ইউনিটি প্লাজা, ইউনাইটেড প্লাজা, কুশল সেন্টার, এবি সুপার মার্কেট, আমির কমপ্লেক্স, মাসকট প্লাজা।

news24bd.tv আহমেদ

আরও পড়ুন:


পরমাণু সমঝোতা নিয়ে আর কোনো আলোচনা হবে না: ম্যাকরনকে রুহানি

কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানকে সমর্থন তুরস্কের, ভারতের ক্ষোভ

আবারও ইকো ট্রেন চলবে ইরান-তুরস্ক-পাকিস্তানে

সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে বিজিবির অভিযান, বিপুল গোলাবারুদ উদ্ধার


 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

রেকর্ড দামে চার্চিলের আঁকা ছবি বেচলেন অ্যাঞ্জেলিনা জোলি

অনলাইন ডেস্ক

রেকর্ড দামে চার্চিলের আঁকা ছবি বেচলেন অ্যাঞ্জেলিনা জোলি

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে তার আঁকা একটি ছবি উপহার পান যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ফ্রাঙ্কলিন ডি. রুজভেল্ট। কালের পরিক্রমায় এটি জায়গা করে নেয় হলিউড অভিনেত্রী অ্যাঞ্জেলিনা জোলির সংগ্রহে।

গতকাল সোমবার (১ মার্চ, ২০২১) সেই ছবিই নিলামে বিক্রি হলো ৮.৩ মিলিয়ন ইউরোতে (প্রায় ৮৪ কোটি ৬৪ লাখ টাকা)। এটি চার্চিলের আঁকা ছবিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি দামে বিক্রি হল।

ছবিটির নাম টাওয়ার অফ কুতুবিয়া মস্ক। এটি অ্যাঞ্জেলিনা জোলির পারিবারিক সংগ্রহে ছিলো। ছবিটির বিষয়বস্তু মরক্কোর সূর্যাস্ত নিয়ে, যা ছিলো ছবি আঁকার জন্য চার্চিলের অন্যতম পছন্দের বিষয়।


আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

পরবর্তী নির্বাচনে আবারও অংশ নিবেন ডোনাল্ড ট্রাম্প

ইরানের সমঝোতা প্রস্তাব প্রত্যাখ্যানে হতাশ যুক্তরাষ্ট্র

খাশোগি হত্যাকান্ড: রহস্যজনকভাবে বদলে গেল প্রতিবেদনে অভিযুক্তের নাম


এর আগে ২০১৪ সালে লন্ডনে চার্চিলের আঁকা ছবিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে দামি ছবিটি বিক্রি হয় ১.৭ মিলিয়ন ইউরোতে।

সূত্রের তথ্যমতে, চার্চিলের এই ছবিটি ২০১১ সালে অ্যাঞ্জেলিনা জোলিকে উপহার দেয়ার জন্য কিনেছিলেন ব্র্যাড পিট। ২০১৬ সালে বিবাহের দুই বছরে তারা আলাদা হয়ে যান।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

২৪বছর একসঙ্গে থাকার পর বিয়ে

অনলাইন ডেস্ক

২৪বছর একসঙ্গে থাকার পর বিয়ে

বিশ্বের নানা প্রান্তে সবসময়ই কিছু বিরল ঘটনা ঘটে। এমনই এক ঘটনা ঘটেছে ফিলিপাইনে। সেখানে এক প্রেমিক-প্রেমিকা একসঙ্গে ২৪ বছর পার করে তবেই বিয়ে করলেন- যখন তারা ছয় সন্তানের মা-বাবা। এই ২৪ বছরে অভাব তাদের ভালবাসার পরিণয়ে বাধা হয়ে ছিল। খবর ডেইলি মেইলের।

জানা গেছে, ফিলিপাইনের ৫৫ বছরের রোমেল ব্যাস্কো এবং ৫০ বছরের রোজালিন ফেরার অবশেষে জীবনের নতুন অধ্যায়ে পৌঁছেছেন। তাদের সম্পর্ক বহুদিনের। রোজালিন ছয় সন্তানের মা'ও। কিন্তু প্রতিদিন অভাব-অনটনের জীবন যুদ্ধে আর বিয়ের কথা আলাদা করে ভাবতে পারতেন না তারা! 


মঙ্গলবার রাজধানীর যেসব এলাকার মার্কেট বন্ধ থাকবে

বিএনপির সমাবেশকে ঘিরে পরিবহন বন্ধ রাখায় বিচ্ছিন্ন রাজশাহী

শিক্ষাবিদ প্রফেসর মো. হানিফ আর নেই

নামাজের পূর্বের ৭টি ফরজ কাজ সম্পর্কে জানুন


তাদের দীর্ঘদিন ধরেই চোখে চোখে রাখতেন প্রতিবেশী রিচার্ড স্ট্র্যান্ড। তিনিই জানান, রাস্তার ধারে পড়ে থাকা প্লাস্টিকের বোতল, জঞ্জাল কুড়িয়ে তা বিক্রি করেই তাদের জীবন-সংসার। পরে রিচার্ড তার এক বন্ধুর সঙ্গে কথা বলেন এবং তাদের বিয়ের ব্যবস্থা করেন একটি আলাদা ফান্ড তৈরি করে। 

এমন ঘটনা শুনে মানুষ তো হতবাক। খবরটি এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।  

news24bd.tv আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর