অভিবাসীদের জন্য বাইডেনের সুসংবাদ
অভিবাসীদের জন্য বাইডেনের সুসংবাদ

অভিবাসীদের জন্য বাইডেনের সুসংবাদ

অনলাইন ডেস্ক

নবনির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন অভিবাসন নীতিতে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনতে চান। যুক্তরাষ্ট্রের ১ কোটি ১০ লাখ মানুষের জন্য আট বছরের নাগরিকত্ব দিতে পরিকল্পনা করছেন। ট্রাম্প প্রশাসনের কঠোর অভবাসন নীতি থেকে দ্রুতই ফিরে আসতে চান।  

আইনটি ট্রাম্প প্রশাসনের কঠোর অভিবাসন নীতি এবং গণ-নির্বাসন থেকে বাচঁতে যে লাতিন ভোটার এবং অন্যান্য অভিবাসীরা বাইডেনকে নির্বাচিত করেছে তার প্রতিফলন।

অভিবাসীরা বাইডেনকে এজন্যই একচেটিয়া ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছে।  

এর মাধ্যমে লাখো অভিবাসী যারা প্রকৃতপক্ষে কোন আইনি মর্যাদা ছাড়াই এতদিন যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করে আসছে তাদের নাগরিকত্ব প্রদান করবে। কিন্তু, এটি অনেক রিপাবলিকানদের পক্ষপাতিত্ব করা সীমান্ত সুরক্ষা আইনের জন্য তেমন কিছু করবে না। বিভক্ত কংগ্রেস সন্দেহের অবসান ঘটিয়েছে।  

বুধবার বাইডেন শপথ নেওয়ার পরেই এই বিলটি উত্থাপন করার কথা রয়েছে। এই আইনটির সাথে পরিচিত একজন ব্যক্তি নাম প্রকাশ না করার শর্তে একথা জানান।

বাইডেন অভিবাসনের বিষয়ে ট্রাম্পের পদক্ষেপগুলি আমেরিকান মূল্যবোধের উপর একটি "নিরলস হামলা" বলে আখ্যা দিয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট প্রার্থী থাকাকালে।    তখন বলেছিলেন যে তিনি সীমানা বাস্তবায়ন অব্যাহত রেখে ক্ষতি পুষিয়ে নেবেন।


আরও পড়ুন: ইসলাম অবমাননাকর বক্তব্য থেকে পিছু হটলেন গ্রিসের খ্রিষ্টান ধর্মগুরু


এই আইনের অধীনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ১লা জানুয়ারী ২০২১ থেকে যারা আইনী মর্যাদা ছাড়াই বসবাস করছেন তাদের অস্থায়ী আইনী অবস্থানের জন্য পাঁচ বছর যুক্তরাষ্ট্রে থাকার একটি সুযোগ দেওয়া হবে। অথবা একটি গ্রিন কার্ড থাকতে হবে, যদি তাদের অতীত ইতিহাস ভালো হয়।

নিয়মিত কর প্রদান করে এবং অন্যান্য মৌলিক প্রয়োজনীয়তা পূরণ করে। যদি তারা নাগরিকত্ব পেতে চায় তবে এসব নিয়ম নীতি অবশ্যই অনুসরন করতে হবে। তিন বছরের এই পথ পারি দিতে হবে।

কিছু অভিবাসীর জন্য প্রক্রিয়াটি আরও দ্রুততর হবে। তথাকথিত ড্রিমার্স তারাই যেসব তরুন অবৈধভাবে শিশু হিসাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এসেছিল। সেইসাথে কৃষি শ্রমিক এবং অস্থায়ী প্রতিরক্ষামূলক মর্যাদার মানুষ যদি তারা কাজ করে। স্কুলে থাকে বা অন্যান্য প্রয়োজনীয়তা পূরণ করে তবে গ্রীন কার্ডের জন্য আরও দ্রুত এগিয়ে গেলো।  

বাইডেন প্রথ্যাশা করেছেন যে ট্রাম্প প্রশাসনের অভিবাসন নীতির দ্রুতই পরিবর্তন করবেন। এর মধ্যে আছে কিছু মুসলিম দেশের প্রতি নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া।  
বাইডেনের প্রথমদিন অভিষেকেই যে বিষয়টি প্রধান্য পাবে তা হলো অভিবাসন নীতি।

news24bd.tv আয়শা