নিরপেক্ষ নির্বাচনের ফায়দাভিত্তিক রাজনীতিই বড় বাঁধা

প্লাবন রহমান

নিরপেক্ষ নির্বাচনের ফায়দাভিত্তিক রাজনীতিই বড় বাঁধা

স্থানীয় সরকার নির্বাচন নিরপেক্ষ হওয়ার ক্ষেত্রে ফায়দাভিত্তিক রাজনীতিকেই অন্যতম বাধা হিসেবে দেখছেন বিশ্লেষকরা। একইসঙ্গে-সরকার ও নির্বাচন কমিশনের সদিচ্ছার অভাবকেও দায়ি করছেন তারা। মূলত এই দুই কারণেই নির্বাচনে এখনও সহিংসতা হচ্ছে বলে মত তাদের। এক্ষেত্রে- স্থানীয় সরকার নির্বাচন দলীয় না নির্দলীয় হওয়া উচিৎ, তা নিয়ে দ্বিমত আছে পর্যবেক্ষকদের।

ইউনিয়ন, উপজেলা, জেলা, পৌরসভা , সিটি কর্পোরেশন – এই পাঁচ ধাপে বিভক্ত দেশের স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা। আগে স্থানীয়  সরকার নির্বাচন নির্দলীয় হলেও - আইন পরিবর্তনের মাধ্যমে এখন এসব নির্বাচন হচ্ছে দলীয়ভাবে। 

চলমান পৌরসভা ও সিটি কর্পোরেশনের প্রেক্ষাপট বলছে - ভোটে মানুষের লাইন বড় হলেও-সহিংসতা উল্লেখ করার মত। নির্বাচনের আগে – পরে ঘটছে প্রার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষ-রক্তপাত। বিজয়ী প্রার্থী হত্যাকান্ডের ঘটনাও ঘটেছে। দল মনোনীত প্রার্থীর বাইরে স্থানীয় এসব নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দলের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে উঠেছে বিদ্রোহী প্রার্থী। এমন বাস্তবতায়-স্থানীয় সরকারে নিরপেক্ষতার দাবি উঠছে। 

নির্বাচন বিশ্লেষক ড. বদিউল আলম মজুমদার জানান, দল ভিত্তিক নির্বাচন এবং ফায়দাভিত্তিক রাজনীতির কারণেই সহিংসতা বাড়ছে। কারণ তারা মনে করছেন, দলীয় ছাড়া পেলেই সাত খুন মাফ।

নির্বাচন বিশ্লেষক শারমীন মুরশিদ বলছেন, আমাদের নির্বাচনের সংস্কৃতি নষ্ট হয়ে গেছে। সহিংস এই নির্বাচন ব্যবস্থার কারণে দলীয় হোক বা নির্দলীয় হোক সহিংসতা বন্ধ হবে না।

আর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান বলছেন, প্রার্থীরা আসলে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন চায় কি না তার উপর নির্ভর করছে নির্বাচন ভাল মন্দ।


আরও পড়ুন: সব প্রেমের বিয়েরই কি এই একই পরিণতি?


নির্বাচন পর্বেক্ষকদের মতে-নির্বাচন কমিশন, ক্ষমতাসীন দল ও সরকারের সদিচ্ছা এবং অন্যান্য দলগুলোর শক্তিশালী অংশগ্রহণেই হতে পারে একটি ভাল নির্বাচন। তবে-স্থানীয় সরকারের নির্বাচন ব্যবস্থার ভাল-মন্দ নিয়ে মতবিরোধ আছে বিশ্লেষকদের মধ্যে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান আরও বলেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচন আগে দলীয় প্রতীকে না হলেও দল যেহেতু সমর্থন করত তাই সেটিও দলীয়ই হতো। তবে এটা খারাপ কিছু না।  

তাদের মতে-যেকোনো ভোটে নির্বাচন কমিশনের শক্ত পদক্ষেপ অত্যন্ত জরুরী। যতদিন তা না হবে-ততদিন সুষ্ঠু, গ্রহনযোগ্য এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন দুরাশা হয়েই থাকবে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি

মাহমুদুল হাসান

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ইস্যুতে প্রতিবাদ থেমে নেই। বিক্ষোভ মিছিল করে এই আইন বাতিলের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি। একই বিষয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, কেউ যাতে এ আইনের অপপ্রয়োগ করতে না পারে সে বিষয়ে সরকার সতর্ক। 

আর আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলছেন, এই আইনে কোন সংশোধন বা পরিবর্তন আসবে কিনা তা জানতে অপেক্ষা করতে হবে আরো কিছুদিন। 

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় কারাগারে আটক লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর পরই জোরালো হয় আইন বাতিলের দাবি। এরই মধ্যে বাতিলের পক্ষে রাজপথে নেমেছে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সংগঠন।

শুক্রবারও রাজধানীতে বিক্ষোভ মিছিল করে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি। পরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সমাবেশ করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি জানায় তারা।

এ আইনে কোন পরিবর্তন হবে কিনা সে বিষয়ে আরো কিছুদিন ধৈরর্য্যন ধরতে বলেছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এ কথা বলেন তিনি।


আমি সত্যের পক্ষে থাকব, সত্যেও কথা বলব: এমপি একরাম

তৃতীয় লিঙ্গের অধিকার রক্ষা; সাহসী উদ্যোগ বৈশাখী টিভির

দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গে ছাড় দেবে না আওয়ামী লীগ: হানিফ

যে কারণে বুড়ো সাজলেন রনবীর


নিজ বাসভবনে এক ভার্চুয়ালি ব্রিফিংয়ে একই বিষয়ে কথা বলেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরও। জানান,  আইনের অপব্যবহার রোধে সরকার সতর্ক। 

বিএনপি আরেকটি ১৫ই আগস্ট ঘটানোর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত বলেও অভিযোগ করেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গে ছাড় দেবে না আওয়ামী লীগ: হানিফ

তৌফিক মাহমুদ মুন্না

দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেবে আওয়ামী লীগ। নিউজ টোয়েন্টিফোরকে দেওয়া বিশেষ সাক্ষাৎকারে এ কথা জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব উল আলম হানিফ। বলেন পৌর নির্বাচনে যারা দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে বিদ্র্রোহী ছিল দলে তাদের কঠোর শাস্তি আওতায় আনা হবে।

সদ্য সমাপ্ত দেশের পাচটি ধাপে ২৩০ টি পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ১৮৫, টিতে জয়লাভ করে । যেখানে স্বতন্ত্র হিসেব ৩ জায়গায় বিজয়ী হয়। যার অধিকাংশই আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী। যাদের মদদ দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে সরকারের প্রতিমন্ত্রী, এমপি এমনকি জেলার শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধেও।

যে বা যারা দলের সিদ্বান্তের বাইরের যেয়ে নির্বাচনে অংশ নিয়েছে এবং বিদ্রোহীদের পক্ষে দলের যেসব নেতা কর্মীরা কাজ করেঝে তাদের ব্যাপারে কঠোর শাস্তির নেওয়া হবে।

আওয়ামী লীগের এই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দলের শৃঙ্খলার ব্যাপারে কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়ে দলীয় প্রতীকে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নিয়ে বলেন বিগত নির্বাচনে যারা দলের সিদ্বান্ত মানেননি তারা মনোনয়ন পাবেন না ।


আবাসিক হোটেলে অনৈতিক কর্মকাণ্ড, ধরা ২০ নারী

চুমু দিয়ে নারীদের সব রোগ সারিয়ে দেন ‘চুমুবাবা’

বুবলিকে ধাক্কা দেওয়া গাড়িটি ছিল ব্ল্যাক পেপারে মোড়ানো, ছিল না নম্বর প্লেট

অস্ত্রের মুখে ছাত্রীকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণের পর দফায় দফায় ধর্ষণ


সম্প্রতি বিএনপির ৭ মার্চ পালন নিয়ে হানিফ জানান, দীর্ঘদিন পর বিএনপির এমন কর্মকাণ্ড কূটকৌশলের অংশ।

বিএনপি নেতাদের করোনা টিকা গোপনে না নিয়ে প্রকাশ্যে নেওয়ার আহবান জানান মাহাবুব উল আলম হানিফ।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মহাখালী বাসস্ট্যান্ডে সারারাতই থাকে ছিন্নমূল মানুষের আনাগোনা

মাসুদা লাবনী

মহাখালী বাসস্ট্যান্ডে সারারাতই থাকে ছিন্নমূল মানুষের আনাগোনা

রাজধানীর মহাখালী বাসস্ট্যান্ড। যেখানে যাত্রী, বাস মালিক, দোকানী থেকে শুরু করে শ্রমিক কিংবা ভিক্ষুকের আনাগোনাই বেশি। দিনভর এমন চিত্র থাকলেও, রাত যতই গভীর হয়, সেখানকার স্বাভাবিক দৃশ্যপটে যোগ হয়, অনেক ছিন্নমূল মানুষ। মধ্য কিংবা গভীর রাতে, যাত্রী সংথ্যা কম থাকলেও, ঢাকায় ফেরা মানুষের তুলনায়, ঘরমুখী মানুষের উপস্থিতিই বেশি।

কেউ কেউ এই বাসস্ট্যান্ডের অস্থায়ী ঘরের স্থায়ী বাসিন্দা। কেননা জাদুর এই শহরে নেই, স্থায়ী বসবাসের ঘর। জীবিকার তাগিদে তাই এমন রাত্রি যাপন। কষ্টকর হলেও প্রিয়জনের জন্য, এই জীবনযাপন অনেকের কাছেই হয়ে গেছে স্বাভাবিক।

আরও পড়ুন:


২৫শে মার্চের ভয়াবহ সেই রাতের বর্ণনা দিলেন মওদুদ (ভিডিও)

ঢাকা বিএনপি: ব্যর্থতার কারণ সাংগঠনিক দুর্বলতা

পৌর নির্বাচনে বিদ্রোহীদের জন্য আসছে কঠোর শাস্তি

পরীক্ষার নামে ডাকাতি করছে বেসরকারি হাসপাতাল


রাতে মানুষের আনাগোনা কম থাকলেও, কর্মজীবী মানুষ থেকে শুরু করে শ্রমজীবী মানুষ, অনেকেই দিন শেষে  ছোটেন প্রিয়জনের কাছে।

এখানে প্রায় ভোর রাত পযন্ত থাকে, বাড়ি ফেরা মানুষ পদচারণা, আর বৃহস্পতিবার রাতে সেই সংখ্যাটা অন্যান্য রাতের চেয়ে কিছুটা বেশি। ঘড়ির কাটায় সময় গড়িয়ে রাত শেষে প্রায় ভোর হয়, কিন্তু কিছু কর্মজীবী মানুষের কর্মব্যস্ততা, থেকেই যায়, জেগে থেকে সামলান দোকান। কেননা ক্রেতাদের আনাগোনা থেকে যায়।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ঢাকা বিএনপি: ব্যর্থতার কারণ সাংগঠনিক দুর্বলতা

মারুফা রহমান

ঢাকা বিএনপি: ব্যর্থতার কারণ সাংগঠনিক দুর্বলতা

ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে ঢাকা মহানগর বিএনপি। নিজেদের এতোদিনকার সাংগঠনিক দুর্লতার কথা স্বীকার করে একথা জানান, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও ঢাকা মহানগরের নেতা মির্জা আব্বাস। তিনি বলেন, বর্তমান সরকার বিরোধীদলের ওপর যে দমননীতি নিয়েছে, সেটার জন্য বিএনপি প্রস্তুত ছিলোনা। যার কারণেই আন্দোলনে ব্যর্থতা এসেছে।

চৌদ্দবছরের বেশী সরকারের বাইরে থাকা দল বিএনপির, নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনসহ নানা ইস্যুতেই রাজপথের আন্দোলনে ব্যার্থতার জন্য প্রথমেই আলোচনায় আসে ঢাকা মহানগর বিএনপির নাম। দীর্ঘদিন মহানগরের দায়িত্বে থাকা বিএনপি নেতা মির্জা আব্বাস জানান, রাজনৈতিক এমন পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত ছিলেন না তারা। তবে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে বিএনপির কেন্দ্রে থাকা এই অংশ।

আরও পড়ুন:


পৌর নির্বাচনে বিদ্রোহীদের জন্য আসছে কঠোর শাস্তি

পরীক্ষার নামে ডাকাতি করছে বেসরকারি হাসপাতাল

ইরানবিরোধী থেকে সরে দাঁড়াল ইউরোপ, ইরান আসছেন গ্রোসি

পদত্যাগের ইঙ্গিত দিলেন ইমরান খান


মির্জা আব্বাস বলেন, ঢাকা মহানগর সব সময় ব্যাপক আন্দোলন করেছে। হয়তোবা সেই আন্দোলনগুলোতে সফলতা খুঁজে পায়নি বিএনপি। তবে আন্দোলন যে হয়নি তা বলা যাবে না। তিনি আরও বলেন, আমাদের মধ্যে দুর্বলতা আসছে এটা অস্বীকার করা যাবে না। দুর্বলতা কাটিয়ে ঢাকা মহানগরী ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে।

দেশের সমগ্র রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে বিএনপির নীতি-নির্ধারণী ফোরামের এই নেতার মত। সরকারের বাইরে থাকা সবদলমত এক হচ্ছে, আওয়ামী লীগ সরকার পতনের আন্দোলনে মাঠে নামতে।

মির্জা আব্বাস বলেন, অন্যদের সঙ্গে আমরা কিভাবে লিয়াজু করবো কিভাবে সমন্নয় করবো সেটা নিয়েই চেষ্টা চলছে। আমাদের বাইরে যারা আছে তাদের নিয়ে েএকসঙ্গে এমন কিছু করবো যে এই সরকার বেশিদিন টিকে থাকতে পারবে না।

ঢাকার সাবেক এই মেয়র আরও বলেন, বর্তমান মেয়রদের সাথে বসে, সমাধান করতে চান নগরের সমস্যার।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

পৌর নির্বাচনে বিদ্রোহীদের জন্য আসছে কঠোর শাস্তি

তৌফিক মাহমুদ মুন্না

পৌর নির্বাচনে বিদ্রোহীদের জন্য আসছে কঠোর শাস্তি

দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেবে আওয়ামী লীগ। নিউজ টোয়েন্টিফোরকে দেওয়া বিশেষ সাক্ষাৎকারে এ কথা জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব উল আলম হানিফ। বলেন পৌর নির্বাচনে যারা দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে বিদ্র্রোহী ছিল দলে তাদের কঠোর শাস্তি আওতায় আনা হবে।

সদ্য সমাপ্ত দেশের পাঁচটি ধাপে ২৩০টি পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ১৮৫টিতে জয়লাভ করে। যেখানে স্বতন্ত্র হিসেব ৩২ জায়গায় বিজয়ী হয়। যার অধিকাংশই আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী। যাদের মদদ দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে সরকারের প্রতিমন্ত্রী এমপি এমনকি জেলার শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধেও।

যে বা যারা দলের সিদ্বান্তের বাইরের যেয়ে নির্বাচনে অংশ নিয়েছে এবং বিদ্রোহীদের পক্ষে দলের যেসব নেতা কর্মীরা কাজ করেছে তাদের ব্যাপারে কঠোর শাস্তির নেওয়া হবে।

মাহাবুব উল আলম হানিফ বলছেন, দলের বিপক্ষে যারা কাজ করেছে তারা বিনা শাস্তিতে পার পাবে না। তাদের শাস্তি পেতে হবে। আর যারা বিদ্রোহী প্রার্থী তারা কোন দিন মনোনয়ন পাবে না।

আরও পড়ুন:


পরীক্ষার নামে ডাকাতি করছে বেসরকারি হাসপাতাল

ইরানবিরোধী থেকে সরে দাঁড়াল ইউরোপ, ইরান আসছেন গ্রোসি

পদত্যাগের ইঙ্গিত দিলেন ইমরান খান

আরও কমল স্বর্ণের দাম


আওয়ামী লীগের এই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দলের শৃঙ্খলার ব্যাপারে কঠোর হুশিয়ারি দিয়ে দলীয় প্রতীকে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নিয়ে বলেন বিগত নির্বাচনে যারা দলের সিদ্বান্ত মানেননি তারা মনোনয়ন পাবেন না।

ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে ৩ জন করে প্রার্থীর নাম নেয়া হবে। এরপর যাচাই বাছাই করে সবচেয় জনপ্রিয় প্রার্থীকে মনোনয়ন দেয়া হবে।

সম্প্রতি বিএনপির ৭ মার্চ পালন নিয়ে হানিফ জানান দীর্ঘদিন পর বিএনপির এমন কর্মকান্ড কূটকৌশলের অংশ। তারা যে মুক্তিযুদ্ধের প্রতি বিশ্বাস করে যে ৭ মার্চ পালন করছে দেশের মানুষ তা আর বিশ্বাস করে না।

বিএনপি নেতাদের করোনা টিকা গোপনে না নিয়ে প্রকাশ্যে নেওয়ার আহবান জানান মাহাবুব উল আলম হানিফ।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর