গৃহহীনকে ঘর দিতে পারা আনন্দের: প্রধানমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

গৃহহীনকে ঘর দিতে পারা আনন্দের: প্রধানমন্ত্রী

ভূমি ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও ঘর দিতে পারা নিজের সবচেয়ে বড় আনন্দের বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শনিবার (২৩ জানুয়ারি) গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও ঘর প্রদান কর্মসূচির উদ্বোধনের পর প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।

মুজিববর্ষ উপলক্ষে আশ্রয়ন প্রকল্প-২ এর আওতায় প্রায় নয় লাখ মানুষকে পুনর্বাসন প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে পাকাঘর উপহার দেয়া হচ্ছে।

প্রথম পর্যায়ে ঘর পেল প্রায় ৭০ হাজার পরিবার। আগামী মাসে আরও ১ লাখ পরিবার বাড়ি পাবে। দুই কক্ষবিশিষ্ট প্রতিটি ঘর তৈরিতে খরচ হচ্ছে এক লাখ ৭১ হাজার টাকা।


মার্কিন সেনাদের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন নতুন প্রেসিডেন্ট

দুবাইয়ে সামাজিক দূরত্বের নতুন নিয়ম


উপকারভোগীদের মধ্যে যাদের জমি আছে, তারা শুধু ঘর পাবে। যাদের জমি নেই, তারা ২ শতাংশ জমি পাবে (বন্দোবস্ত)। সরকারের নির্ধারিত একই নকশায় হচ্ছে এসব ঘর। রান্নাঘর, সংযুক্ত টয়লেট থাকছে। টিউবওয়েল ও বিদ্যুৎ সংযোগও দেওয়া হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অধীনে থাকা আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এই কাজ করছে। খাসজমিতে গুচ্ছ ভিত্তিতে এসব ঘর তৈরি হচ্ছে। কোথাও কোথাও এসব ঘরের নাম দেওয়া হচ্ছে ‘স্বপ্ননীড়’, কোথাও নামকরণ হচ্ছে ‘শতনীড়’, আবার কোথাও ‘মুজিব ভিলেজ’।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বন্যপ্রাণীর মিঠাপানির চাহিদা মেটাতে সুন্দরবনে পুকুর খনন শুরু

শেখ আহসানুল করিম, বাগেরহাট

বন্যপ্রাণীর মিঠাপানির চাহিদা মেটাতে সুন্দরবনে পুকুর খনন শুরু

সুন্দরবনে জলবায়ু ট্রাস্ট ফান্ডের অর্থায়ানে ৪ কোটি ৯৮ লাখ টাকা ব্যায়ে ৮৮টি পুকুর খনন ও পুন:খনন কাজ শুরু হয়েছে। এসব পুকুরের মধ্যে ৭০টিতে নির্মাণ করা হচ্ছে পাকা ঘাট। 

বৃহস্পতিবার দুপুরে বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের দুবলার চরে আনুষ্ঠানিক ভাবে পুকুর খনন ও পুন:খনন কাজের উদ্ধোধন করেন বন, পরিবেশ ও জয়লবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার তালুকদার। আগামী জুন মাসের মধ্যে এসব পুকুর খনন ও পুন:খননের কাজ শেষ হবে।
                 
অনুষ্ঠানে উপমন্ত্রী জানান, বিশ্বের বৃহতম জলাভূমির বন ওয়ার্ল্ড হ্যারিটেজ সাইড সুন্দরবনের রয়েল বেঙ্গল টাইগার, মায়াবী হরিণসহ ৩৭৫ প্রজাতির বন্যপ্রাণীর দীর্ঘদিনের সুপেয় মিঠাপানির চাহিদা মেটাতে খনন ও পুন:খনন করা হচ্ছে ৮৮টি পুকুর। 

সমুদ্রের জোয়ারের পানিতে প্লাবিত এই লবণাক্ত এই বনভূমির এসব পুকুর বন্যপ্রাণীর দীর্ঘদিনের সুপেয় মিঠাপানির চাহিদা মেটানো পাশাপাশি সুন্দরবনে থাকা বন বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ বনজীবী ও পর্যটকদেরও খাবার পানির চাহিদা মেটাবে। সুন্দরবনের রয়েল বেঙ্গল টাইগার, মায়াবী হরিণসহ বন্যপ্রাণীর আধিক্য রয়েছে এমন এলাকাগুলোতে এসব পুকুর খনন ও পুন:খননের কাজ আগামী জুন মাসের মধ্যে শেষ হলে বন্যপ্রানীগুলোকে আর লবনাক্ত পানি খেতে হবে না।
 
সুন্দরবনে খনন ও পুন:খনন কাজের উদ্ধোধন অনুষ্ঠানে খুলনা অঞ্চলেন বন সংরক্ষক (সিএফ) মো. মইন উদ্দিন খান ও বাগেরহাট পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মুহাম্মদ বেলায়েত হোসেনসহ উর্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। 

সুন্দরবন বিভাগ জানায়, ম্যানগ্রোভ এই বনের বাংলাদেশ অংশের ৬ হাজার ১৭ বর্গ কিলোমিটার আয়তনে মধ্যে থাকা পুকুরগুলো ঝড়-জলোচ্ছাসে ভরাট হয়ে যাওয়ায় বছরের পর বছর ধরে বাঘ-হরিণসহ বন্যপ্রাণীগুলো সুপেয় পানি সংকটের মধ্যে ছিল। এই অবস্থায় বন বিভাগ সুন্দরবনের রয়েল বেঙ্গল টাইগার, মায়াবী হরিণসহ ৩৭৫ প্রজাতির বন্যপ্রাণীর দীর্ঘদিনের সুপেয় পানির চাহিদা মেটাতে ৮৮ টি পুকুর খনন ও পুন:খননসহ একই সাথে ৭০টি পুকুরের পাকা ঘাটও নির্মাণ করা হচ্ছে।

এসব পুকুরের মধ্যে বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবন বিভাগে শরণখোলা রেঞ্জের দুবলায় ২টি ও বগীতে নতুন করে ৩টি পুকুর খনন করা হচ্ছে। এই রেঞ্জের ২৪টি পুকুর পূন:খননের মধ্যে কচিখালী অভয়ারণ্যে ৪টি, কটকা অভয়ারণ্যে ৪টি, দুবলায় এলাকায় ৩টি, শরণখোলা রেঞ্জ সদরে ২টি, দাশেরভারানীতে ২টি। এছাড়া একটি করে পুকুর পূন:খনন করা হচ্ছে ডুমুরিয়া, চরখালী, তেরাবেকা, চান্দেশ্বর, শাপলা, ভোলা, শেলারচর, কোকিলমুনি ও সুপতি।

আরও পড়ুন:


গাড়িচাপা দিয়ে ‘হত্যাচেষ্টা’র অভিযোগ নায়িকা বুবলীর

কারাগারে লেখক মুশতাককে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে: মির্জা ফখরুল

যা দেখে নাসিরকে ভালোবেসেছিলেন তামিমা

নিজের ৭ কোটি টাকা বেতন কমিয়ে বৃদ্ধি করলেন কর্মীদের বেতন


চাঁপাই রেঞ্জে পুকুর পূন:খনন করা হচ্ছে ২৬টি পুকুরের মধ্যে রয়েছে ধানসাগরে ৩টি, গুলিশাখালীতে ২টি, আমুরবুনিয়ায় ২টি। একটি করে পুকুর পূন:খনন করা হচ্ছে চাঁদপাই, ঢাংমারী, লাউডোপ, জোংড়া, ঘাগড়ামারী, নাংলী, হরিণটানা, কলমতেজী, তাম্বুলবুনিয়া, জিউধরা, বরইতলা, কাটাখালী, শুয়ারমারা, মরাপশুর, বৈদ্যমারী, আন্ধারমানিক, হারবাড়িয়া, নন্দবালা ও চরাপুটিয়া। আর পশ্চিম সুন্দরবন বিভাগে খনন ও পুন:খনন করা হচ্ছে ৩৫টি পুকুর।

সুন্দরবন দিনরাতে ৬ বার তার রূপ বদলানো ম্যানগ্রোভ বনভূমি। সমুদ্রের জোয়ারের লবণাক্ত পানিতে প্লাবিত হওয়া সংরক্ষিত এই বনের ৩টি এলাকাকে ১৯৯৭ সালের ৬ ডিসেম্বর জাতিসংঘের ইউনেস্কো ৭৯৮তম ওয়ার্ল্ড হ্যারিটেজ সাইড ঘোষনা করে। যা সমগ্র সুন্দরবনের ৩০ ভাগ এলাকা।

এরা আগে ১৯৯২ সালে  বিশ্বের বৃহতম এই জলাভূমিকে রামসার এলাকা হিসেবে ঘোষণা করে জাতিসংঘ। এই বনে সুন্দরী, গেওয়া,গরান, পশুরসহ ৩৩৪ প্রজাতির উদ্ভিদরাজি রয়েছে। এছাড়া ৩৭৫ প্রজাতির বন্যপ্রাণীর মধ্যে রয়েল বেঙ্গল টাইগার ও হরিণসহ ৪২ প্রজাতির স্তন্যপায়ী, কুমির, গুইসাপ, কচ্ছপ, ডলফিন, অজগর, কিংকোবরাসহ ৩৫ প্রজাতির সরীসৃপ ও ৩১৫ প্রজাতির পাখি রয়েছে। ইতিধ্যেই প্রতিক’ল পরিবেশে সুন্দরবন থেকে হারিয়ে গেছে ১ প্রজাতির বন্য মহিষ, ২ প্রজাতির হরিণ, ২ প্রজাতির গন্ডার, ১ প্রজাতির মিঠা পানির কুমির।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রেমিক-প্রেমিকার একসঙ্গে বিষপান, প্রেমিকের মৃত্যু

অনলাইন ডেস্ক

প্রেমিক-প্রেমিকার একসঙ্গে বিষপান, প্রেমিকের মৃত্যু

প্রেমের সম্পর্ক মেনে না নিয়ে প্রেমিকাকে অন্যত্র বিয়ে দেওয়াই একসঙ্গে বিষপান করেছেন প্রেমিক-প্রেমিকা।

বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে কুয়াকাটার লতাচাপলী ইউনিয়ন পরিষদসংলগ্ন একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে দুজনে একসঙ্গে বিষপান করে। এ ঘটনায় প্রেমিক রাজুর (২২) মৃত্যু হয়েছে। 

রাজু পাঞ্জুপাড়া গ্রামের সোহরাব খানের ছেলে। তার প্রেমকিা সুমাইয়া একই ইউনিয়নের আলিপুর গ্রামের এমাদুল আকনের মেয়ে। এক বছর আগে একই ইউনিয়নের মাইটভাঙ্গা গ্রামের সেকান্দার হাওলাদারের ছেলে কামালের সঙ্গে সুমাইয়ার বিয়ে হয়। 


কার সাথে কার পরকিয়া তা চিন্তা করে মাথা নষ্ট করবেন না : আঁখি আলমগীর

নাসির প্রেমিক না আমার বন্ধু : মডেল মিম

আমার বয়ফ্রেন্ড নিয়ে আমিও মজায় আছি : নাসিরের সাবেক প্রেমিকা

তামিমার সাবেক স্বামীকে বাটপার বলছে মিম


 

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, প্রায় দুই বছর আগে রাজু ও সুরাইয়ার মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। কিন্তু পরিবার সম্পর্ক মেনে না নিয়ে গত বছর সুরাইয়াকে কামালের সঙ্গে বিয়ে দেয়। 

সর্বশেষ বৃহস্পতিবার রাতে তারা দুজনে একসঙ্গে বিষপান করেন। স্থানীয়রা টের পেয়ে উদ্ধার করে কলাপাড়া হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রাজুকে মৃত ঘোষণা করেন। 

কলাপাড়া থানার ওসি খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পটুয়াখালী মর্গে পাঠানো হয়েছে। ওই যুবতী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি। news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মা খোঁজ নিত না, নানি চড়-থাপ্পড় দিত বাবাকে : তামিমা কন্যা

অনলাইন ডেস্ক

মা খোঁজ নিত না, নানি চড়-থাপ্পড় দিত বাবাকে : তামিমা কন্যা

বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে ক্রিকেটার নাসির হোসেনকে বিয়ে করেন তামিমা সুলতানা তাম্মি। বিয়ের পর থেকে তামিমার একের পর এক খবর বের হতে থাকে। নাসিরকে বিয়ে করার আগে তামিমা রপ্রথম সংসারের মেয়ে রাফিয়া হাসান তুবার কোনো খোঁজখবরই নিতেন না। তুবা নিজেই এমনটা জানিয়েছেন।

তুবা জানিয়েছে, মা কখনই তার তেমন একটা খোঁজখবর নিতেন না। মায়ের বিয়ের খবরও সে জেনেছে টেলিভিশনে দেখে। বাবা রাকিব হোসেন জোর করে তুবাকে তাম্মির মায়ের বাসা থেকে নিয়ে এসেছে বলে তামিমা যে অভিযোগ করেছে- সেটাও মিথ্যা বলে জানিয়েছে তুবা।

নিজের ইচ্ছাতেই বাবার সঙ্গে দাদি বাড়ি চলে এসেছি জানিয়ে ছোট্ট তুবা জানায়,ওই বাড়িতে নানি তাকে মারধর করত। এখানেই আমার জন্মদিন পালন হয়েছে। তাছাড়া এই বাড়ির সবাই আমাকে অনেক ভালোবাসে। মা আগেও ভালোবাসত না আর এখন তো সে অন্য আরেকজনকে বিয়ে করেছে।


কার সাথে কার পরকিয়া তা চিন্তা করে মাথা নষ্ট করবেন না : আঁখি আলমগীর

নাসির প্রেমিক না আমার বন্ধু : মডেল মিম

আমার বয়ফ্রেন্ড নিয়ে আমিও মজায় আছি : নাসিরের সাবেক প্রেমিকা

তামিমার সাবেক স্বামীকে বাটপার বলছে মিম


 

রেকর্ডকৃত বক্তব্যে তুবা জানায়, তার বাবা রাকিবকে দেখতে পারত না তাম্মির মা। তাকেও কারণে-অকারণে চড়-থাপ্পড় দিত। বাসায় সারাক্ষণ ধমকের ওপর রাখত তাকে নানি। একটু এদিক-সেদিক হলেই রাগারাগি আর গালাগালি করত। এ কারণে সে নিজের ইচ্ছায় বাবার সঙ্গে দাদির কাছে চলে আসে।

বাবা তাকে অনেক ভালোবাসে উল্লেখ করে তুবা জানায়, মা আমাকে কখনই তেমন একটা ভালোবাসতো না। আদরও করতো না। অধিকাংশ সময় সে বাসার বাইরে থাকত। নিজে থেকে কখনো আমায় ফোন দিত না। আমি ফোন দিলে ব্যস্ত আছি বা প্লেনে আছি বলে লাইন কেটে দিত। বাবা দাদি দাদা চাচ্চু আমায় অনেক ভালোবাসে।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে তুবা বলে- মা এখন আর আমায় ফোন দেয় না। আমার সঙ্গে কথাও বলে না। মা অনেক পচা হয়ে গেছে। সে আরেকজনকে বিয়ে করেছে। আপনারা আমার মাকে এনে দিন। আমি মা আর বাবাকে নিয়ে একসঙ্গে থাকব।

রাকিবের মা সালমা সুলতানা  বলেন, ১০-১২ বছর আগে রাকিবের সঙ্গে বিয়ে হয় তাম্মির। প্রেম করে বিয়ে করায় প্রথমে আমরা মেনে নেইনি। পরে তুবার জন্ম হলে সম্পর্ক স্বাভাবিক হয়। শুরু থেকেই তাম্মির আচরণ কিংবা স্বভাব কোনোটাই ভালো ছিল না। তবুও আমরা ছেলে আর নাতির মুখ চেয়ে কখনো কিছু বলিনি।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ছেলের পরকীয়া : গণপিটুনির স্বীকার মা-বাবা ও ছোটবোন

অনলাইন ডেস্ক

ছেলের পরকীয়া : গণপিটুনির স্বীকার মা-বাবা ও ছোটবোন

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় ভাড়া বাসার বাড়িওয়ালার স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়ার অপরাধে খাদেমুল ইসলাম নামে এক তরুণের মা-বাবা ও ছোট বোনকে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে দিয়েছেন এলাকাবাসী। এরপর তাদেরকে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। 

বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) রাতে ফতুল্লার মুসলিমনগর নয়াবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। গ্রেফতারকৃতরা হলেন খাদেমুল ইসলাম (২০), তার বাবা আবেদুল ইসলাম (৪২), মা খাজিদা বেগম (৪০) ও ছোট বোন মুক্তা বেগম (১৯)।

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি আসলাম হোসেন জানান, ওই এলাকার মামুন নামে একজনের বাড়িতে ভাড়া থাকতেন খাদেমুল ও তার পরিবারের লোকজন। দীর্ঘদিন ভাড়া থাকায় বাড়িওয়ালার স্ত্রীর সঙ্গে খাদেমুলের পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে ওঠে।


অভাব দুর হবে, বাড়বে ধন-সম্পদ যে আমলে

সূরা কাহাফ তিলাওয়াতে রয়েছে বিশেষ ফজিলত

করোনার ভ্যাকসিন গ্রহণে বাধা নেই ইসলামে

নামাজে মনোযোগী হওয়ার কৌশল


 

৩-৪ মাস আগে বাড়িওয়ালা বিষয়টি বুঝতে পেরে ঘর ছেড়ে দিতে বললে তারা পাশের বাড়িতে ভাড়া যান। বাড়িওয়ালার স্ত্রী ও তার আড়াই বছরের শিশুকে নিয়ে মঙ্গলবার রাতে খাদেমুল পালিয়ে যায়। বিষয়টি খাদেমুলের মা-বাবা ও বোনকে জানান মামুন।

কিন্তু তারা জেনেও অস্বীকার করে পরদিন বুধবার রাতে সবাই পালানোর চেষ্টা করে। এ সময় এলাকাবাসী তাদের আটকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা একেক সময় একেক কথা বলায় মারধর করে।

পরে তাদের দেওয়া তথ্যমতে খাদেমুলকে ফতুল্লার বক্তাবলী থেকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় মামুনের স্ত্রী ও শিশুকে উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামুন ওই ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। আদালত তাদের কারাগারে পাঠিয়েছেন।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

রাজধানীর কোন মার্কেট কবে বন্ধ (তালিকা)

অনলাইন ডেস্ক

রাজধানীর কোন মার্কেট কবে বন্ধ (তালিকা)

পাখির চোখে নিউমার্কেট

দিনের শুরুতেই পরিকল্পনা করে রেখেছেন এখানে যাবেন, সেখানে যাবেন। পরিকল্পনা মতই নির্দিষ্ট স্থানে ঠিকই গেলেন, কিন্তু গিয়ে দেখলেন তা বন্ধ। তখন মেজাজটা যে কত খারাপ হয় সেটা আর বলার ভাষা থাকে না। তাই জেনে নিন রাজধানীতে কোনদিন দর্শনীয় স্থান, এলাকা এবং মার্কেটগুলো বন্ধ থাকবে।

রাজধানীতে যানজট কমাতে আর বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের লক্ষ্যে ঢাকাকে সাতটি অঞ্চলে ভাগ করে দোকানপাট, বিপণিবিতান বন্ধের দিন নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। এ সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব পাস হয় ২০১০ সালে। এরপর থেকে রাজধানীর নিত্যপ্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্যের দোকান ছাড়া সব ধরনের দোকানপাট ও বিপণিবিতান এলাকাভিত্তিক আলাদা আলাদা দিন বন্ধ থাকছে। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রতি সপ্তাহে এক দিন পূর্ণ দিবস ও আরেক দিন অর্ধদিবস (বেলা দুইটা পর্যন্ত) বন্ধ থাকছে দোকানপাট।

কোন দিন কোন এলাকার মার্কেট বন্ধ তা এই দীর্ঘ সময়ে ঢাকায় বসবাসকারী অনেকেরই মুখস্থ হয়ে গেছে। তবে অনেকেই আবার ঢাকায় নতুন আসছেন বা স্থায়ীভাবে থাকেন না। তারা বিষয়টা জানেন না। আবার ঢাকায় থাকলেও সবার পক্ষে এই তালিকা মুখস্থ রাখাও সম্ভব না। তাই কেনাকাটার উদ্দেশ্যে বের হবার আগে একবার চোখ বুলিয়ে নিন মার্কেট বন্ধের তালিকায়।

শুক্রবার পূর্ণ ও শনিবার অর্ধদিবস বন্ধ

এলাকার নাম: বাংলাবাজার, পাটুয়াটুলী, ফরাশগঞ্জ, শ্যামবাজার, জুরাইন, করিমউল্লাহবাগ, পোস্তগোলা, শ্যামপুর, মীরহাজীরবাগ, দোলাইপাড়, টিপু সুলতান রোড, ধূপখোলা, গেণ্ডারিয়া, দয়াগঞ্জ, স্বামীবাগ, ধোলাইখাল, জয়কালী মন্দির, যাত্রাবাড়ীর দক্ষিন-পশ্চিম অংশ, ওয়ারী, আহসান মঞ্জিল, লালবাগ, কোতোয়ালী থানা, বংশাল, নবাবপুর, সদরঘাট, তাঁতীবাজার, লক্ষ্মীবাজার, শাঁখারী বাজার, চাঙ্খারপুল, গুলিস্থানের দক্ষিণ অংশ।

মার্কেটের নাম: বাংলাবাজার বইয়ের দোকানগুলো, ফরাশগঞ্জ কাঠের আড়ত, শ্যামবাজার কাঁচামালের পাইকারি বাজার, বুড়িগঙ্গা সেতু মার্কেট, আলম সুপার মার্কেট, সামাদ সুপার মার্কেট, রহমানিয়া সুপার মার্কেট, ইদ্রিস সুপার মার্কেট, দয়াগঞ্জ বাজার, ধূপখোলা মাঠবাজার, দয়াগঞ্জ সিটি করপোরেশন মার্কেট, কাপ্তান বাজার, ঠাটারিবাজার, রাজধানী সুপার মার্কেট, চকবাজার, মৌলভীবাজার, ইমামগঞ্জ মার্কেট, বাবুবাজার, নয়াবাজার, ইসলামপুরের কাপড়ের বাজার, পাটুয়াটুলী ইলেকট্রনিকস ও অপটিক্যাল মার্কেট, নয়ামাটি এক্সেসরিস মার্কেট, শরিফ ম্যানশন, ছোট ও বড় কাটরা পাইকারি মার্কেট, বেগমবাজার, তাঁতীবাজার, নবাবপুর রোড ও নর্থসাউথ রোডের দোকানপাট, আজিমপুর সুপার মার্কেট, ফুলবাড়িয়া মার্কেট, সান্দ্রা সুপার মার্কেট, গুলিস্তান হকার্স মার্কেট ও সুন্দরবন স্কোয়ার মার্কেট।

রোববার পূর্ণ ও সোমবার অর্ধ দিবস বন্ধ

এলাকার নাম: আগারগাঁ, তালতলা, শেরে বাংলা নগর, শ্যাওড়া পাড়া, কাজী পাড়া, পল্লবী, মিরপুর-১০, মিরপুর-১১, মিরপুর-১২, মিরপুর-১৩, মিরপুর-১৪, ইব্রাহীমপুর, কচুখেত, কাফরুল, মহাখালী, নিউ ডিওএসএইচ, ওল্ড ডিওএসএইচ, কাকলী, তেজগাঁও ওল্ড এয়ারপোর্ট এরিয়া, তেজগাঁ ইন্ড্রাস্ট্রিয়াল এরিয়া, ক্যান্টনমেন্ট, গুলসান-১, ২, বনানী, মহাখালী কমার্শিয়াল এরিয়া, নাখালপাড়া, মহাখালী ইন্টার সিটি বাস টার্মিনাল এরিয়া, রামপুরা, বনশ্রী, খিলগাঁ, গোড়ান, মালিবাগের একাংশ, বাসাবো, ধলপুর, সায়েদাবাদ, মাদারটেক, মুগদা, কমলাপুরের একাংশ, যাত্রাবাড়ী একাংশ, শনির আখড়া, দনিয়া, রায়েরবাগ, সানারপাড়।


অভাব দুর হবে, বাড়বে ধন-সম্পদ যে আমলে

সূরা কাহাফ তিলাওয়াতে রয়েছে বিশেষ ফজিলত

করোনার ভ্যাকসিন গ্রহণে বাধা নেই ইসলামে

নামাজে মনোযোগী হওয়ার কৌশল


মার্কেটের নাম: এসকল এলাকার মার্কেটগুলো রোববার পুরোদিন ও সোমবার অর্ধেক দিন বন্ধ থাকে। উল্লেখযোগ্য মার্কেটগুলোর মধ্যে রয়েছে বিসিএস কম্পিউটার সিটি, পল্লবী সুপার মার্কেট, মিরপুর বেনারসী পল্লী, ইব্রাহীমপুর বাজার, ইউএই মৈত্রী কমপ্লেক্স, বনানী সুপার মার্কেট, ডিসিসি মার্কেট গুলশান-১ ও ২, গুলশান পিংক সিটি, মোল্লা টাওয়ার, আল-আমিন সুপার মার্কেট, রামপুরা সুপার মার্কেট, মালিবাগ সুপার মার্কেট, তালতলা সিটি কর্পোরেশন মার্কেট, কমলাপুর স্টেডিয়াম মার্কেট, গোরান বাজার, আবেদিন টাওয়ার, ঢাকা শপিং সেন্টার, আয়েশা মোশারফ শপিং কমপ্লেক্স, মিতালী অ্যান্ড ফ্রেন্ড সুপার মার্কেট।

মঙ্গলবার পূর্ণ ও বুধবার  অর্ধদিবস বন্ধ

এলাকার নাম: কাঁঠালবাগান, হাতিরপুল, মানিক মিয়া এভিনিউ, রাজাবাজার, মণিপুরিপাড়া, তেজকুনীপাড়া, ফার্মগেট, কাওয়ান বাজার, নীলক্ষেত, কাঁটাবন, এলিফ্যান্ট রোড, শুক্রাবাদ, সোবহানবাগ, ধানমন্ডি, হাজারীবাগ, জিগাতলা, রায়েরবাজার, পিলখানা, লালমাটিয়া।

মার্কেটের নাম : এ অঞ্চলের উল্লেখযোগ্য বিপণিবিতান: হাতিরপুল বাজার, মোতালেব প্লাজা, ইস্টার্ন প্লাজা, বসুন্ধরা সিটি শপিং মল, গ্রিন সুপার মার্কেট, ফার্মভিউ সুপার মার্কেট, সৌদিয়া সুপার মার্কেট, সেজান পয়েন্ট, লায়ন শপিং সেন্টার, নিউমার্কেট, চন্দ্রিমা মার্কেট, নিউ সুপার মার্কেট, গাউছিয়া মার্কেট, চাঁদনি চক, নূর ম্যানশন, বাকুশাহ মার্কেট, ইসলামিয়া মার্কেট, ধানমন্ডি হকার্স মার্কেট, ইস্টার্ন মল্লিকা, গ্লোব শপিং, বদরুদ্দোজা মার্কেট, নূরজাহান মার্কেট, প্রিয়াঙ্গন শপিং সেন্টার, গাউসুল আযম মার্কেট, এলিফ্যান্ট রোড, রাইফেল স্কয়ার, এআরএ শপিং সেন্টার, অরচার্ড পয়েন্ট, ক্যাপিটাল মার্কেট, ধানমন্ডি প্লাজা, মমতাজ প্লাজা, মেট্রো শপিং মল, প্লাজা এআর, প্রিন্স প্লাজা, রাপা প্লাজা, অর্কিড প্লাজা, কেয়ারি প্লাজা, আনাম র্যাংগস প্লাজা, কারওয়ান বাজার ডিআইটি মার্কেট, কাব্যকস সুপার মার্কেট ও কিচেন মার্কেট।

বুধবার পূর্ণ দিবস ও বৃহস্পতিবার অর্ধদিবস বন্ধ

এলাকার নাম: বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা, মধ্য ও উত্তর বাড্ডা, জগন্নাথপুর, বারিধারা, সাতারকুল, শাহাজাদপুর, নিকুঞ্জ-১, ২, কুড়িল, খিলখেত, উত্তরখান, দক্ষিণখান, জোয়ার সাহারা, আশকোনা, বিমানবন্দর সড়ক ও উত্তরা থেকে টঙ্গী সেতু।

মার্কেটের নাম : এ অঞ্চলের উল্লেখযোগ্য বিপণিবিতানগুলো: লুত্ফন শপিং টাওয়ার, হাকিম টাওয়ার, হল্যান্ড সেন্টার, নুরুন্নবী সুপার মার্কেট, সুবাস্তু নজরভ্যালি, যমুনা ফিউচার পার্ক, রাজলক্ষ্মী কমপ্লেক্স, রাজউক সেন্টার, একতা প্লাজা, মান্নান প্লাজা, বন্ধন প্লাজা, কুশল সেন্টার, এবি সুপার মার্কেট, আমীর কমপ্লেক্স, মাসকাট প্লাজা, এস আর টাওয়ার, পুলিশ কো-অপারেটিভ মার্কেট ও রাজউক কসমো।

বৃহস্পতিবার পূর্ণ ও শুক্রবার অর্ধদিবস বন্ধ

এলাকার নাম: মোহাম্মাদপুর, আদাবর, শ্যামলী, গাবতলী, মিরপুর স্টেডিয়াম, চিড়িয়াখানা, টেকনিক্যাল, কল্যাণপুর, আসাদগেট, ইস্কাটন, মগবাজার, বেইলি রোড, সিদ্ধেশ্বরী, মালিবাগের একাংশ, শাজাহানপুর, শান্তিনগর, শহীদবাগ, শান্তিবাগ, ফকিরেরপুল, পল্টন, মতিঝিল, টিকাটুলি, আরামবাগ, কাকরাইল, বিজয়নগর, সেগুনবাগিচা, হাইকোর্ট ভবন এলাকা, রমনা শিশু পার্ক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা।

মার্কেটের নাম: মোহাম্মাদপুর টাউন হল মার্কেট, কৃষি মার্কেট, আড়ং, বিআড়টিসি মার্কেট, শ্যামলী হল মার্কেট, মুক্তিযোদ্ধা সুপার মার্কেট, মাজার কর্পোরেট মার্কেট, মুক্ত বাংলা শপিং কমপ্লেক্স, শাহ্ আলী সুপার মার্কেট, মিরপুর স্টেডিয়াম মার্কেট, মৌচাক মার্কেট, আনারকলি মার্কেট, আয়েশা শপিং কমপ্লেক্স, কর্নফুলি গার্ডেন সিটি, কনকর্ড টুইং টাওয়ার, ইস্টার্ন প্লাস, সিটি হার্ট, জোনাকি সুপার মার্কেট, গাজী ভবন, পল্টন সুপার মার্কেট, স্টেডিয়াম মারকেত-১, এবং ২, গুলিস্থান কমপ্লেক্স, রমনা ভবন, খাদ্দার মার্কেট, পীর ইয়ামেনি মার্কেট, বাইতুল মুকাররম মার্কেট, আজিজ কোওপারেটিভ মার্কেট, সাকুরা মার্কেট।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর