দক্ষিণ এশিয়ায় একমাত্র বাংলাদেশেরই জিডিপি বাড়ছে: জাতিসংঘ

নিজস্ব প্রতিবেদক

দক্ষিণ এশিয়ায় একমাত্র বাংলাদেশেরই জিডিপি বাড়ছে: জাতিসংঘ

করোনা মহামারির কারণে বিশ্বব্যাপী অর্থনৈতিক মন্দা চলছে। এর মধ্যে ২০২০ সালে দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলের দেশগুলোর মধ্যে সমান্য হলেও বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) বাড়ছে।

জাতিসংঘের অর্থনৈতিক ও সামাজিক বিষয় নিয়ে কাজ করা বিভাগ ইউনাইটেড ন্যাশনস ডিপার্টমেন্ট অব ইকোনমিক অ্যান্ড সোশ্যাল অ্যাফেয়ার্সের (ইউএন ডেসা) এক প্রতিবেদনে এমনটাই বলা হয়েছে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০২০ সালে বাংলাদেশের জিডিপি বেড়ে শূন্য দশমিক পাঁচ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, বাংলাদেশের জিডিপি বাড়লেও ২০১৯ সালের তুলনায় তা অনেক কমেছে। ২০১৯ সালে বাংলাদেশের জিডিপি ছিল আট দশমিক চার শতাংশ। যেখানে ভারতের জিডিপি নয় দশমিক ছয় শতাংশ এবং পাকিস্তানের দুই দশমিক সাত শতাংশ কমেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৯-২০ অর্থবছরে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি বেড়েছে চার দশমিক তিন শতাংশ, ভারতের কমে হয়েছে পাঁচ দশমিক সাত শতাংশ, পাকিস্তানের এক দশমিক দুই শতাংশ, ভূটানের শূন্য শতাংশ, নেপালের শূন্য দশমিক পাঁচ শতাংশ।


দিল্লির রাজপথের কুচকাওয়াজে বাংলাদেশের সেনাবাহিনী

ইভিএম জালিয়াতির মেশিন: রিজভী

৭ ফেব্রুয়ারি সারাদেশে টিকাদান শুরু: স্বাস্থ্যমন্ত্রী


জাতিসংঘের প্রতিবেদন বলছে, চলতি অর্থবছরে অনেক দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা ঘুরে দাঁড়াবে। বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি হবে পাঁচ দশমিক এক শতাংশ, ভারতের সাত শতাংশ, পাকিস্তানের শূন্য দশমিক পাঁচ শতাংশ, ভূটানের তিন দশমিক পাঁচ শতাংশ, মালদ্বীপের নয় দশমিক নয় শতাংশ, আফগানিস্তানের চার দশমিক চার শতাংশ এবং শ্রীলঙ্কার তিনি দশমিক এক শতাংশ। বৈশ্বিক মহামারীর মধ্যে অনেক দেশ ঘুরে দাঁড়ালেও ঝুঁকি রয়েছে। কোভিড-১৯ বিশ্বকে কীভাবে আক্রান্ত করবে তার ওপর প্রবৃদ্ধি নির্ভর করছে।

কেননা, মহামারির কারণে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর জিডিপি প্রায় ১০ শতাংশ পর্যন্ত কমে যেতে পারে। দারিদ্র্য ও বৈষম্য দ্রুত গতিতে বাড়বে বলে আশঙ্কা করছে ইউএন ডেসা।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

আবারো এশিয়ার ধনীতম শিল্পপতির তালিকায় মুকেশ আম্বানি

অনলাইন ডেস্ক

চীনা শিল্পপতিকে টপকে আবারো এশিয়ার ধনীতম শিল্পপতির তালিকায় উঠে এলো মুকেশ আম্বানি। তার সম্পত্তির আনুমানিক বাজার মূল্য ৮ হাজার কোটি ডলার।

২০ শতাংশ সম্পত্তি বৃদ্ধি করে চীনা শিল্পপতি জোং শানশানকে পিছনে ফেলেছেন মুকেশ আম্বানি। আম্বানির ঠিক পরেই রয়েছে শানশান। তার সম্পত্তির আনুমানিক মূল্য ৭৬.৬ বিলিয়ন ডলার।


দুই পৌরসভায় নির্বাচন কাল, কেন্দ্রে পৌঁছেছে ভোটের সরঞ্জাম

হত্যাচেষ্টার অভিযোগ এনে আতঙ্কিত বুবলীর থানায় জিডি

চুয়াডাঙ্গায় প্রতিপক্ষের হামলায় ট্রাকচালক গুলিবিদ্ধ

পিতার স্পর্শকাতর স্থান চেপে ধরল ছেলে, বাবার মৃত্যু


গত এক সপ্তাহের মধ্যে ২২ বিলিয়ন ডলার খুইয়ে তালিকার দ্বিতীয় স্থানে নেমে এসেছেন শানশান। এর ফলে মুকেশ এশিয়ার প্রথম এবং বিশ্বের চতুর্থ ধনী হয়ে উঠেছেন।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

চূড়ান্ত সুপারিশ মিলেছে জাতিসংঘের

উন্নয়নশীল দেশের কাতারে বাংলাদেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক

স্বাধীনতার সুবর্নজয়ন্তি পালনের দ্বারপ্রান্তে এসে স্বল্পোন্নত দেশের তালিকা থেকে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে উত্তরণের চুড়ান্ত সুপারিশ পেলো বাংলাদেশ। জাতিসংঘের কমিটি ফর ডেভেলপমেন্ট পলিসি বাংলাদেশকে এলডিসি থেকে উত্তরণের জন্য সুপারিশ করেছে। এইলক্ষে পৌছাতে বাংলাদেশ সময় পাবে আগামি ৫ বছর। আজ বিকেল ৪ টায় এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে অংশ নেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে স্বাধীন হওয়ার পর বাংলাদেশকে বলা হত তলাবিহীন ঝুড়ি। ১৯৭৫ সাল থেকে এতদিন সল্পোন্নত দেশের কাতারে থাকা বাংলাদেশ ২০১৫ সালে প্রথম নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়।

জাতিসংঘের কমিটি ফর ডেভেলপমেন্ট পলিসি সিডিপির ত্রিবার্ষিক সভায় এবার জানানো হল উন্নয়নেশীল দেশে উত্তরণের চূড়ান্ত সুপারিশ। এর মধ্য দিয়ে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতেই এক অনন্য উচ্চতায় উঠল বাংলাদেশ।


চরমোনাই মাহফিল থেকে ফেরার পথে দুই নৌকা ডুবি

চুয়াডাঙ্গায় নারীর রহস্যজন মৃত্যু, শাশুড়ি আটক

অতিরিক্ত পাথর বোঝাই ট্রাকের চাপে বেইলী ব্রিজ ভেঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

অন্য পুরুষের সাথে সম্পর্ক নিয়ে সন্দেহ, স্ত্রীকে খুন


সিপিডির ত্রিবার্ষিক সভার সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত আসে বাংলাদেশের পক্ষে।এখন পাঁচ বছরের প্রস্তুতিকাল শেষে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে উঠবে বাংলাদেশ।

উন্নয়নশীল দেশ হতে হলে একটি দেশের মাথাপিছু আয় হতে হয় কমপক্ষে ১২৩০ মার্কিন ডলার। সেখানে ২০২০ সালেই বাংলাদেশের ছিল ১৮২৭ মার্কিন ডলার। টানা তিন মেয়াদে ক্ষমতায় থাকা বর্তমান সরকারের যথাযথ পরিকল্পনা প্রণয়ন ও তার বাস্তবায়নের ফলে অর্থনীতিতে বিশ্বের বিস্ময় বাংলাদেশ।  

তবে এই অর্জনের ফলে বাংলাদেশ বাণিজ্যে যে সব অগ্রাধিকার পায় তার অনেকটাই হারানোর শঙ্কা রয়েছে। উন্নয়ন সহযোগীরা বাংলাদেশকে কম সুদ ও সহজ শর্তে যে ঋণ দেয় তা হারাবে বাংলাদেশ। তবে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে ওঠা বাংলাদেশের জন্য বিশেষ মর্যাদার বিষয়। মাথাপিছু আয়, মানবসম্পদ ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন ধারা তিন সূচকেই ঈর্ষনীয় সাফল্য এখন বাংলাদেশের।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

চীনা শিল্পপতিকে টপকে আবারো এশিয়ার ধনীতম তালিকায় মুকেশ আম্বানি

নিজস্ব প্রতিবেদক

চীনা শিল্পপতিকে টপকে আবারো এশিয়ার ধনীতম শিল্পপতির তালিকায় উঠে এলো মুকেশ আম্বানি। তার সম্পত্তির আনুমানিক বাজার মূল্য ৮ হাজার কোটি ডলার।

২০ শতাংশ সম্পত্তি বৃদ্ধি করে চীনা শিল্পপতি জোং শানশানকে পিছনে ফেলেছেন মুকেশ আম্বানি। আম্বানির ঠিক পরেই রয়েছে শানশান। তার সম্পত্তির আনুমানিক মূল্য ৭৬.৬ বিলিয়ন ডলার। 


চরমোনাই মাহফিল থেকে ফেরার পথে দুই নৌকা ডুবি

চুয়াডাঙ্গায় নারীর রহস্যজন মৃত্যু, শাশুড়ি আটক

অতিরিক্ত পাথর বোঝাই ট্রাকের চাপে বেইলী ব্রিজ ভেঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

অন্য পুরুষের সাথে সম্পর্ক নিয়ে সন্দেহ, স্ত্রীকে খুন


গত এক সপ্তাহের মধ্যে ২২ বিলিয়ন ডলার খুইয়ে তালিকার দ্বিতীয় স্থানে নেমে এসেছেন শানশান। এর ফলে মুকেশ এশিয়ার প্রথম এবং বিশ্বের চতুর্থ ধনী হয়ে উঠেছেন। 

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

৮ মাসের মধ্যে স্বর্ণের দাম সর্বনিম্ন

অনলাইন ডেস্ক

৮ মাসের মধ্যে স্বর্ণের দাম সর্বনিম্ন

গেল দুই সপ্তাহ থেকেই স্বর্ণের দামে বড় দরপতন। বিশ্ব বাজারে স্বর্ণের কমছেই। এতে করে গত ৮ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন স্বর্ণের দাম। স্বর্ণের পাশাপাশি দরপতন হয়েছে রূপারও। স্বর্ণ ও রূপার পাশাপাশি আরেক দামি ধাতু প্লাটিনামেরও বড় দরপতন হয়েছে।

গত এক সপ্তাহে স্বর্ণের দাম কমেছে ২ দশমিক ৬৯ শতাংশ। রূপার দাম কমেছে ২ দশমিক শূন্য ১ শতাংশ। অপরদিকে প্লাটিনামের দাম কমেছে ৬ দশমিক ৭০ শতাংশ।

করোনার কারণে এসব ধাতুর দাম বেড়ে গিয়েছিল। কিন্তু বিশ্বজুড়ে করোনার প্রকোপ কমায় বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম নিম্নমুখী। বিশ্ব বাজারের সঙ্গে তাল মিলিয়ে গত ১৩ জানুয়ারি থেকে দেশের বাজারেও স্বর্ণের দাম কমিয়েছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস)।

১২ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত বাজুসের কার্যনির্বাহী কমিটির সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ১৩ জানুয়ারি থেকে দেশের বাজারে ভালো মানের, অর্থাৎ ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) স্বর্ণের দাম ১ হাজার ৯৮৩ টাকা কমিয়ে ৭২ হাজার ৬৬৭ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

পাশাপাশি ২১ ক্যারেটের স্বর্ণ ৬৯ হাজার ৫১৭ টাকা, ১৮ ক্যারেটের স্বর্ণ ৬০ হাজার ৭৬৯ টাকায় ও সনাতন পদ্ধতির প্রতিভরি স্বর্ণ ৫০ হাজার ৪৪৭ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে।

স্বর্ণের দাম কমলেও রুপার পূর্বনির্ধারিত দাম বহাল রয়েছে। ক্যাটাগরি অনুযায়ী ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি রূপার বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার ৫১৬ টাকা। ২১ ক্যারেটের রূপার দাম ১ হাজার ৪৩৫ টাকা, ১৮ ক্যারেটের ১ হাজার ২২৫ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির রূপার দাম ৯৩৩ টাকা।

বাংলাদেশে স্বর্ণের দাম কমানোর পর বিশ্ববাজারে কয়েক দফা দাম কমেছে। গেল সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ৩৫ দশমিক ৪৯ ডলার কমেছে। এতে সপ্তাহের ব্যবধানে ২ দশমিক ৬৭ শতাংশ কমে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ১ হাজার ৭৩৪ দশমিক ৩৯ ডলারে নেমে এসেছে। আগের সপ্তাহে স্বর্ণের দাম কমে ২ দশমিক ১৪ শতাংশ। টানা দুই সপ্তাহের এই পতনে আট মাসের মধ্যে স্বর্ণের দাম এখন সর্বনিম্ন পর্যায়ে অবস্থান করছে।

আরও পড়ুন:


‘নিষেধাজ্ঞা না তুললে আইএইএ’র ক্যামেরা খুলে ফেলা হবে’

পানির নিচের অভিজ্ঞতা শেয়ার করলেন টাইটানিকের সেই নায়িকা

কে এই রূপবতী তুলসী, যার গানের ভিউ ১০ কোটি ছাড়ালো (ভিডিও)

কার প্রেমে হাবুডুবু খাচ্ছেন শ্রাবন্তী, নাম ফাঁস করলেন নিজেই


এর আগে গত নভেম্বর মাসে স্বর্ণের দাম কমেছিল ৮ দশমিক ২০ শতাংশ। আর ফেব্রুয়ারিতে স্বর্ণের দাম কমল ৫ দশমিক ৯৪ শতাংশ যা একক মাস হিসেবে নভেম্বরের পর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।

অপরদিকে সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে দশমিক ৭৪ শতাংশ কমার মাধ্যমে সপ্তাহের ব্যবধানে বিশ্ববাজারে রূপার দাম কমেছে ২ দশমিক শূন্য ১ শতাংশ। এতে প্রতি আউন্স রূপার দাম দাঁড়িয়েছে ২৬ দশমিক ৬৬ ডলার। এই দরপতনের পরও মাসের ব্যবধানে বিশ্ববাজারে রূপার দাম বেড়েছে ৫ দশমিক ৬৪ শতাংশ।

এদিকে স্বর্ণ ও রূপার দরপতনের সঙ্গে গেল সপ্তাহে বড় পতন হয়েছে আরেক দামি ধাতু প্লাটিনামের। সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে প্রতি আউন্স প্লাটিনামের দাম ২৭ দশমিক ৫৮ ডলার কমে ১ হাজার ১৮৮ দশমিক ৭০ ডলারে দাঁড়িয়েছে। এই দরপতনের ফলে সপ্তাহের ব্যবধানে প্লাটিনামের দাম কমেছে ৬ দশমিক ৭০ শতাংশ। তবে মাসের ব্যবধানে দামি এই ধাতুর দাম বেড়েছে ১১ দশমিক ৫৬ শতাংশ।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

এশিয়ার সেরা ধনী মুকেশ আম্বানি

অনলাইন ডেস্ক

এশিয়ার সেরা ধনী মুকেশ আম্বানি

আবারও এশিয়ার শীর্ষ ধনীর তালিকায় প্রথম অবস্থানে উঠে এসেছেন ভারতের ধনকুবের মুকেশ আম্বানি। চীনের ব্যবসায়ী ঝং শানশানকে হারিয়ে শীর্ষ ধনীর মুকুট ছিনিয়ে নেন আম্বানি। শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) ব্লুমবার্গ বিলিয়নিয়ার্স ইনডেক্সের হিসাবে এ তথ্য উঠে এসেছে।

ব্লুমবার্গ জানিয়েছে, আম্বানির সম্পদের পরিমান বর্তমানে ৮০ বিলিয়ন ডলার। যাকে তিনি পেছনে ফেলে শীর্ষস্থান দখল করেছেন চীনের সেই ধনকুবের ঝং শানশানের সম্পদের পরিমান ৭৬ দশমিক ৬ বিলিয়ন ডলার। চলতি সপ্তাহে তার বোতলজাত পানির কোম্পানি ২২ শতাংশ ঊর্ধ্বমুখী রেকর্ড করে। তবে গত সপ্তাহে শীর্ষ অবস্থান থেকে তার ২২ বিলিয়ন ডলারের অধিক অবনমন হয়।


অভাব দুর হবে, বাড়বে ধন-সম্পদ যে আমলে

সূরা কাহাফ তিলাওয়াতে রয়েছে বিশেষ ফজিলত

করোনার ভ্যাকসিন গ্রহণে বাধা নেই ইসলামে

নামাজে মনোযোগী হওয়ার কৌশল


 

গত দুই বছর আলিবাবা গ্রুপ হোল্ডিংস লিমিটেডের জ্যাকমাকে টপকে শীর্ষ ধনীর স্থান দখল করে রাখেন। এরপর গত বছরের ডিসেম্বরে জং শানশানের কাছে তিনি শীর্ষ পদ হারান। ঝং এশিয়ার শীর্ষ ধনীর পদ দখলের পাশাপাশি ২০২১ সালের প্রথমদিকে বিশ্বের ষষ্ঠ ধনী ব্যক্তিতে পরিণত হন। এমনকি ওয়ারেন বাফেটকেও পেছনে ফেলেন তিনি।

তবে চলতি সপ্তাহে চীন এবং হংকংয়ের শেয়ারবাজার বিশ্বের অন্যতম পতনের তালিকায় পড়ে। এতে ঝংয়ের কোম্পানি নংফু চলতি বছরের মুনাফা হারিয়ে ফেলে। আবার তার আকেটি কোম্পানি ওয়ানতাইও ডুবে যায় লসের তালিকায়। যেখানে আম্বানির প্রায় প্রতিটি ব্যবসায়ী ইউনিট মুনাফা করে।

সম্প্রতি শুধু যে আম্বানি এবং ঝং ধনীর তালিকায় অদলবদল হয়েছেন তাই নয়। টেসলার প্রধান ইলন মাস্ক জানুয়ারির শুরুর দিকে বিশ্বের সেরা ধনীর তালিকায় এক নম্বরে উঠে আসেন। অ্যামাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোসকে পেছনে ফেলে প্রথম স্থানে উঠে আসেন তিনি।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর