সন্তানদের মুখে দুমুঠো ভাত তুলে দিতে যৌনপেশা

অনলাইন ডেস্ক

সন্তানদের মুখে দুমুঠো ভাত তুলে দিতে যৌনপেশা

রাজধানী মিরপুরের একটি গার্মেন্টসে অপারেটর হিসেবে চাকরি করতেন এক নারী। করোনায় লকডাউনের সময় অন্যদের মতো চাকরি হারান তিনিও। চাকরি হারিয়ে এক সময় দিশেহারা হয়ে পড়েন। স্বামী ছেড়ে যাওয়ায় দুই সন্তান নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছিলেন।

সন্তানদের মুখে দুমুঠো ভাত তুলে দিতে পরিচিত এক নারীর মাধ্যমে যৌনকর্মী হিসেবে কাজ শুরু করেন। আর তখন থেকে শুরু হয় দিন-রাত রৌদ্র, বৃষ্টি ও তীব্র শীতে রাস্তায় ঘুরে ঘুরে খদ্দর খোঁজা। রোববার সন্ধ্যায় জাতীয় সংসদ ভবনের পাশে সঙ্গে তার জীবনের গল্প বলেছিলেন ৩৫ বয়সের সুমাইয়া আক্তার (ছদ্মনাম)।

সুমাইয়া আক্তার জানান, অল্প বয়সেই তিনি মাকে হারান। বাবা দ্বিতীয় বিয়ে করলে সইতে হয় সৎ মায়ের গঞ্জনা। মাত্র ১২ বছর বয়সে আমার চেয়ে দিগুণ বয়সী এক বাসচালকের সঙ্গে বিয়ের পিড়িতে বসতে হয়। কিছুদিন সংসার ভালো চললেও আমাকে ছেড়ে স্বামী অন্য জায়গায় বিয়ে করেন। এরই মাঝে আমাদের সংসারে আসে এক কন্যা ও এক পুত্র সন্তান। এখন তাদের নিয়ে আমার সংসার।

তিনি জানান, যখন পেটে ভাত ছিল না- তখন সাহায্য করতে কেউ এগিয়ে আসেনি। আমি একা হলে হয়তো কষ্ট করে চলতে পারতাম। দিনশেষে আমার দুইজন সন্তানের মুখে ভাত তুলে দিতে হয়। আমার ছেলে (৪) ঢাকার একটি নূরানি মাদরাসায় দ্বিতীয় শ্রেণিতে লেখাপড়া করেন। মেয়ে ৯ একটি স্কুলে পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ে। 

তাদের পড়ালেখার খরচ আমাকে বহন করতে হয়। আমি চাইলে- আরেকটি বিয়ে করতে পারতাম, আমার বাচ্চাদের জন্য সেটা করিনি। কারণ আমি চলে গেলে তাদের আর কেউ থাকবে না। আমি তাদের আমার মতো এতিম করতে চাইনি। আমার জীবনটা কষ্টের হলেও সন্তানদের সেটা কখনোই বুঝতে দেয় না।


পপিকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে এমপি বানাতে চাইলেন যুবক

সাতপাকে বাঁধা পরলেন বরুণ-নাতাশা

গৃহকর্মীকে ধর্ষণচেষ্টা, সাবেক চেয়ারম্যানের ছেলে গ্রেপ্তার

বিদায়ী মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বন্ধ


তিনি অভিযোগ করেন, যখন রাস্তায় দাঁড়ায় তখন পথচারী থেকে শুরু করে অনেকেই নানা মন্তব্য করে। পুলিশে এসে দৌঁড়ানি দেয়। প্রথম দিকে খারাপ লাগলেও এখন সব কিছু সহ্য হয়ে গেছে। সব কিছুতে কান দিলে সন্তানদের মানুষ করতে পারবো না। মাঝে মধ্যে কিছুকিছু খদ্দের খারাপ আচরণ করে, নেশা করে গায়ে হাত তোলে। একজনের কথা বলে দুই-তিনজন কাজ করতে আসে। কিছু বলতে গেলেই অত্যাচার করে, গালিগালাজ করে। মুখ বুঝে সব সহ্য করতে হয়। কথাগুলো বলতে বলতে চোখ দিয়ে পানি গড়িয়ে পড়ে তার।

সুমাইয়া আক্তারের আক্ষেপ, আমরা রাস্তায় কাজ করি, খদ্দরও কম, টাকাও কম। ৩০০ টাকা উপার্জন করলে ২০০ টাকা হোটেল বিল আর দালারাই নিয়ে যায়। আমাদের আর কি থাকে? আর যদি কখনো সারারাতের ডাক আসে তখন ১ হাজার টাকা উপার্জন করলেই ৬০০ টাকা হোটেলের দালালরা রেখে দেয়। প্রতিদিন তো আর খদ্দর জোটে না। 

একদিন পর, দুইদিন পর আবার দেখা গেছে বেশ কয়েকদিন পর্যন্ত খদ্দের পাওয়া যায় না। এছাড়া বয়স হয়ে গেলে এ পেশায় খদ্দের পাওয়া যায় না। অল্প বয়সের মেয়েরা দেখতে সুন্দর হলে তাদের উপার্জন বেশি হয়।

এ পেশায় তার দীর্ঘদিন থাকার ইচ্ছে নেই। অন্য কোনো কাজের সুযোগ পেলেই তিনি এ পেশা ছেড়ে দিবেন। পেটের দায়ে এই ঘৃণিত পেশায় আসলেই সন্তানদের মানুষের মতো মানুষ করতে চান তিনি।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

নারীর পোশাক যখন বিক্ষোভের ঢাল

অনলাইন ডেস্ক

নারীর পোশাক যখন বিক্ষোভের ঢাল

রাস্তার দুই পাশে ও মাঝে লাঠি দিয়ে দড়ি টানিয়ে তাতে ঝুলানো হয়েছে মেয়েদের লুঙ্গি, লং স্কাট। এটা দেখে অনেকেই মনে করতে পারে যে রোদে শুকাতে দেওয়া হয়েছে। আসলে এগুলো দেওয়া হয়েছে সেনা সদস্য ও পুলিশ ঠেকাতে। আর সেনা বা পুলিশও মেয়েদের কাপড় ডিঙ্গিয়ে আসছে না। মিয়ানমারের বড় শহর ইয়াঙ্গুনে এমনই কিছু দৃশ্য দেখা গেছে।  

মিয়ানমারে মেয়েদের পোশাকের নীচের অংশ পুরুষদের জন্য সম্মান ও ক্ষমতাহানিকর বলে মনে করা হয়। ‘‘দড়িতে (মেয়েদের) লুঙ্গি ঝুলিয়ে রাখা হলে পুলিশ আর রাস্তায় আসছে না। তারা কাপড় অতিক্রম করে আসতে পারে না।

তাদেরকে সেগুলো নামিয়ে নিতে হয়,’’ বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলছিলেন আন্দোলনকারীদের একজন থিনজার শুনলেই ই। দেশটিতে মেয়েদের পোশাক নিয়ে এমন কুসংস্কার এখন আন্দোলকারীদের জন্য রক্ষাকবচ।

রাস্তায় লুঙ্গি টানিয়ে রাখার এসব ছবি ভাইরাল হচ্ছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও। একটি ছবিতে একজন সৈনিককে ট্রাকের উপরে দাঁড়িয়ে লুঙ্গিগুলো সরিয়ে নিতেও দেখা গেছে।


ওমান সাগরে তৈরি হবে ইরানের সর্ববৃহৎ সমুদ্রবন্দর

নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সাক্ষাৎ হবে তাই ঘুম হয়নি শ্রাবন্তীর

ট্রাকচাপায় চবি আইন বিভাগের প্রথম ব্যাচের ছাত্রের মৃত্যু

শতকোটি টাকার মানহানির মামলা থেকে অব্যাহতি পেলেন শমী কায়সার


পুলিশ, সেনাবাহিনীর গাড়ি যাতে প্রতিবাদস্থলে পৌঁছাতে না পারে সেজন্য রাস্তায় বালুর বস্তাও ফেলে রাখছেন আন্দোলনকারীর।

দেশটির সামরিক প্রধান মিং অং হ্লাইং ছবি বা প্রতীকও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের জন্য ভীতিকর। কিছু লুঙ্গিতে তাই তার ছবি সেঁটে দিয়েছেন আন্দোলনকারীরা। এমনকি রাস্তায়ও সেনা প্রধানের পোস্টার ফেলে রাখা হয়েছে, যাতে সেগুলো মাড়িয়ে আন্দোলনকারীদের দমন করতে না আসে পুলিশ বা সেনাসদস্যরা।

এমনই অভিনব প্রতিবাদের অস্ত্র ব্যবহার করছে মিয়ানমারের সাধারণ মানুষ। সেনাবাহিনীর দমন পীড়নে এ পর্যন্ত প্রায় অর্ধশতাধিক মানুষ নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। প্রতিদিনই মানুষ বিক্ষোভের জন্য রাস্তায় নামছে। সেনাবাহিনীও বিক্ষোভ দমন করার জন্য জিরো টলারেন্স নীতি অনুসরণ করছে। 

news24bd.tv আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

রবিবার যেসব এলাকা বন্ধ থাকবে

অনলাইন ডেস্ক

রবিবার যেসব এলাকা বন্ধ থাকবে

প্রতিদিনই রাজধানীর কোন না কোন মার্কেট বন্ধ থাকে। তাই কোথাও যাওয়ার পরিকল্পনা থাকলে আগে জেনে নিন আজ রোববার (০৭ মার্চ) কোন কোন এলাকার মার্কেট অর্ধদিবস ও পুরোপুরি বন্ধ থাকবে।

অর্ধদিবস বন্ধ থাকবে যেসব এলাকা

আগারগাঁও, তালতলা, শেরেবাংলা নগর, শেওড়া পাড়া, কাজী পাড়া, পল্লবী, মিরপুর-১০, মিরপুর-১১, মিরপুর-১২, মিরপুর-১৩, মিরপুর-১৪, ইব্রাহীমপুর, কচুক্ষেত, কাফরুল, মহাখালী, নিউ ডিওএসএইচ, ওল্ড ডিওএসএইচ, কাকলী, তেজগাঁও ওল্ড এয়ারপোর্ট এরিয়া, তেজগাঁও ইন্ডাস্ট্রিয়াল এরিয়া, ক্যান্টনমেন্ট, গুলশান-১, ২, বনানী, মহাখালী কমার্শিয়াল এরিয়া, নাখালপাড়া, মহাখালী ইন্টার সিটি বাস টার্মিনাল এরিয়া, রামপুরা, বনশ্রী, খিলগাঁও, গোড়ান, মালিবাগের একাংশ, বাসাবো, ধলপুর, সায়েদাবাদ, মাদারটেক, মুগদা, কমলাপুরের একাংশ, যাত্রাবাড়ী একাংশ, শনির আখড়া, দনিয়া, রায়েরবাগ, সানারপাড়।

বন্ধ থাকবে যেসব মার্কেট

বিসিএস কম্পিউটার সিটি (আইডিবি), পল্লবী সুপার মার্কেট, মিরপুর বেনারসী পল্লী, ইব্রাহীমপুর বাজার, রজনীগন্ধা মার্কেট, ইউএই মৈত্রী কমপ্লেক্স, বনানী সুপার মার্কেট, ডিসিসি মার্কেট গুলশান-১ এবং ২, গুলশান পিংক সিটি, মোল্লা টাওয়ার, আল-আমিন সুপার মার্কেট, রামপুরা সুপার মার্কেট, মালিবাগ সুপার মার্কেট, তালতলা সিটি কর্পোরেশন মার্কেট, কমলাপুর স্টেডিয়াম মার্কেট, গোরান বাজার, আবেদিন টাওয়ার, ঢাকা শপিং সেন্টার, আয়েশা মোশারফ শপিং কমপ্লেক্স, মিতালী অ্যান্ড ফ্রেন্ড সুপার মার্কেট।

news24bd.tv আহমেদ

 

আরও পড়ুন:


সাত মার্চের ভাষণের প্রেক্ষাপট তৈরি হয়েছিল যে কারণে

চাকরি দেবে এসিআই লিমিটেড

ইরানের রেলপথ যাবে ভূমধ্যসাগর পর্যন্ত

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন : ইন্দিরা থেকে শেখ হাসিনা


 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

১৪ বছরের কিশোরকে ধর্ষণ করে অন্তঃসত্ত্বা

অনলাইন ডেস্ক

১৪ বছরের কিশোরকে ধর্ষণ করে অন্তঃসত্ত্বা

১৪ বছরের কিশোরকে ধর্ষণ করে ব্রিটিনি গ্রে নামের এক মার্কিন তরুণী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েছেন। ২৩ বছরের মার্কিন এই তরুণী সম্প্রতি পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছেন।

গত বছর ফেব্রুয়ারিতে বিষয়টি প্রথমবারের মতো সামনে আসে। ওই সময় ব্রিটিনির সঙ্গে ১৪ বছরের এক কিশোরের সম্পর্কে কথা তৃতীয় এক ব্যক্তি যুক্তরাষ্ট্রের শিশু নিগ্রহের বিশেষ নম্বরে জানায়।

ওই ব্যক্তি পুলিশের কাছে সাক্ষ্য দিয়ে বলেন, ব্রিটিনির সঙ্গে এক বছরের বেশি সময় ধরে সম্পর্ক রয়েছে নাবালকের। পরে মেডিকেল পরীক্ষায় দেখা যায়, ব্রিটিনি অন্তঃসত্ত্বা। 


আরও পড়ুনঃ


আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

লবণ প্রাসাদ ‘পামুক্কালে’

ইয়ার্ড সেলে মিললো ৪ কোটি টাকার মূল্যবান চীনামাটির পাত্র!

এই নচিকেতা মানে কী? আমি তোমার ছোট? : মঞ্চে ভক্তকে নচিকেতার ধমক (ভিডিও)


তদন্ত করে পুলিশ ঘটনার সত্যতা পেয়েছে। এতে পুলিশ যৌন নিগ্রহের মামলা দিয়ে গত ১ মার্চ গ্রেফতার করে ব্রিটিনিকে। তবে গত বৃহস্পতিবার ৫ হাজার ডলারের বিনিময়ে তিনি জামিন পান।

সূত্র: আনন্দবাজার

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

চুমুতেই বাড়বে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা, বলছে গবেষণা

অনলাইন ডেস্ক

চুমুতেই বাড়বে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা, বলছে গবেষণা

চুমুতেই বাড়বে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা-নতুন গবেষণাপত্র এমনই বলছে। গবেষণায় বলা হয়েছে, ব্যাক্টিরিয়ার আদান-প্রদান ঘটে চুমুর মাধ্যমে। শরীরে পৌঁছে সেই সব ব্যাক্টিরিয়াই বাড়িয়ে দিতে পারে রোগ থেকে বাঁচার শক্তি।

নেদারল্যান্ডস্‌ অর্গানাইজেশন ফর অ্যাপ্লায়েড সাইন্টিফিক রিসার্চের এক দল বিজ্ঞানী  ‘মানুষ চুমু কেন খায়?’ - এ বিষয়টি নিয়ে গবেষণা শুরু করেছিলেন। আর এই বিষয়টি বা সাবজেক্টটি তাদের এগিয়ে নিয়ে যায় শরীরের প্রতিরোধ শক্তি নিয়ে ভাবনার দিকে। 

চুমু খাওয়ার সময়ে দু’জনের জিভ স্পর্শে আসে। এক জনের লালা পৌঁছায় অন্যের শরীরে। নেদারল্যান্ডদের ওই বিজ্ঞানীদের দাবি, ১০ সেকেন্ডের চুমুতে ৮ কোটি ব্যাক্টিরিয়া বিনিময় হয় একটি যুগলের মধ্যে। সম্ভাব্য সঙ্গীর সঙ্গে সেই ব্যাক্টিরিয়া দেওয়া-নেওয়া হয়ে গেলে শক্তিশালী হয়ে ওঠে শরীর। রোগের সঙ্গে লড়াই করার ক্ষমতা বেড়ে যায়।

কোনও একটি যুগলের মধ্যে দিনে আট-ন’বার চুমু বিনিময় হলে, তাঁদের শারীরে একই ধরনের জীবাণু উপস্থিত থাকে। অর্থাৎ, একই ধরনের রোগের সঙ্গে লড়ার জন্য তৈরি থাকেন তাঁরা। 


কুমিরের পেট থেকে বের করা হচ্ছে আস্ত মানুষ (ভিডিও)

প্রেমের বিয়ের ৪ মাসের মাথায় নববধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

বাক্‌স্বাধীনতা সুরক্ষিত রাখতে মানবাধিকার সংস্থাগুলোর আহ্বান

চুম্বনের দৃশ্যের আগে ফালতু কথা বলতো ইমরান : বিদ্যা


বিজ্ঞানীরা বলছেন, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার সঙ্গে চুমুর সম্পর্ক নিয়ে এর আগে গবেষণা হয়নি। তবে আগে অনেক বিজ্ঞানীই জানিয়েছেন যে, শরীর যত ধরনের ব্যাক্টিরিরার সঙ্গে পরিচিত হবে, ততই বাড়বে রোগের সঙ্গে লড়ার ক্ষমতা। চুমু সেই কাজটাই করে। 

এক ব্যক্তির শরীরে উপস্থিত ব্যাক্টিরিয়া আর এক জনের দেহে যায়। এর মাধ্যমে রোগ ছড়ানোর আতঙ্ক অনেকেই প্রকাশ করেছেন। কিন্তু আসলে চুমু দু’জনেরই ভাল করে। সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

করোনায় মৃত্যুর সঙ্গে স্থূলতার সম্পর্ক রয়েছে: গবেষণা

অনলাইন ডেস্ক

করোনায় মৃত্যুর সঙ্গে স্থূলতার সম্পর্ক রয়েছে: গবেষণা

করোনায় মৃত্যুর সঙ্গে স্থূলতার যোগসূত্র রয়েছে বলে দাবি করেছেন গবেষকরা। তারা বলছেন, যেসব দেশে মানুষের স্থূলতার হার বেশি, কোভিড-১৯ এ মৃত্যুও সেসব দেশে বেশি।

ওয়ার্ল্ড ওবেসিটি ফেডারেশন বিশ্বে করোনায় মৃত্যু নিয়ে জন হপকিন্স ইউনিভার্সিটির তথ্য বিশ্লেষণ করে এই চিত্র পেয়েছে। খবর রয়টার্সের।

করোনায় আক্রান্তের ও মৃতের দিক থেকে শীর্ষে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। এর পরই রয়েছে ভারত, ব্রাজিল, রাশিয়া ও যুক্তরাজ্যসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশ।

এমন পরিস্থিতিতে করোনায় মৃত্যু নিয়ে নতুন তথ্য দিল ওয়ার্ল্ড ওবিসিটি ফেডারেশন। তারা বলছে, যেসব দেশে পূর্ণবয়স্ক মানুষের কমপক্ষে ৫০ শতাংশ স্থূল, সেসব দেশে মৃত্যু হার অন্য দেশগুলোর তুলনায় ১০ গুণ বেশি।


আরও পড়ুনঃ


আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

প্রথমবারের মতো দেশে পালিত হচ্ছে টাকা দিবস

ইয়ার্ড সেলে মিললো ৪ কোটি টাকার মূল্যবান চীনামাটির পাত্র!

এই নচিকেতা মানে কী? আমি তোমার ছোট? : মঞ্চে ভক্তকে নচিকেতার ধমক (ভিডিও)


জন হপকিন্স ইউনিভার্সিটির তথ্য অনুযায়ী, কোভিড-১৯ এ বিশ্বে যে ২৫ লাখ মানুষের মৃত্যু ঘটেছে, তার ২২ লাখই সেই সব দেশের, যেখানকার মানুষের মধ্যে মেদবহুল হওয়ার প্রবণতা রয়েছে। গবেষণায় পাওয়া এই তথ্যকে ‘নাটকীয়’ বলছেন গবেষকরা।
news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর