ইরফান সেলিমকে কেন জামিন দেয়া হবে না: হাইকোর্ট

অনলাইন ডেস্ক

ইরফান সেলিমকে কেন জামিন দেয়া হবে না: হাইকোর্ট

ঢাকা-৭ আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য হাজী মোহাম্মদ সেলিমের ছেলে ইরফান সেলিমকে কেন জামিন দেয়া হবে না তা জানতে চান হাইকোর্ট। আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে এই রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। নৌবাহিনীর কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ আহমদ খানকে মারধরের ঘটনায় নিজ বাসা থেকে আটক হন ইরফান সেলিম।

বুধবার বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম ও বিচারপতি মো. বদরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই রুল জারি করেন। আদালতে জামিন আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীব সাঈদ আহমেদ রাজা। অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. বশির উল্লাহ।


প্রেমিকের সঙ্গে বিয়ের আশ্বাসে নারীকে রাতভর পালাক্রমে ধর্ষণ, ইউপি সদস্য ধরা

৪০তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ

সন্তানদের মুখে দুমুঠো ভাত তুলে দিতে যৌনপেশা

নায়িকা তমার ‘গোপন ভিডিও’ প্রকাশের হুমকি দিলেন সাবেক স্বামী


পরে অ্যাডভোকেট সাঈদ আহমেদ রাজা জানান, ইরফান সেলিমের বিরুদ্ধে এ পর্যন্ত মোট ৫টি মামলা হয়েছে। এরমধ্যে ৪টি মামলায় জামিন পেয়েছেন তিনি। এ অবস্থায় নৌবাহিনীর কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফকে মারধর করার অভিযোগের মামলায় জামিন আবেদন করা হয়েছে।

যেসব অভিযোগে মামলা হয়েছে তা জামিনযোগ্য। আদালত জামিন প্রশ্নে রুল জারি করেছেন।

গতবছর ২৫ অক্টোবর সন্ধ্যার পর ধানমন্ডির কলাবাগান ক্রসিংয়ে নৌবাহিনীর কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফের মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দিয়েছিল ‘সংসদ সদস্য’ স্টিকার লাগানো হাজী সেলিমের গাড়ি। ঘটনার সময় সাংসদ হাজী সেলিম গাড়িতে ছিলেন না। তার ছেলে ইরফান ও নিরাপত্তারক্ষী ছিলেন। 

এরপর নৌবাহিনীর ওই কর্মকর্তা মোটরসাইকেল থামান এবং নিজের পরিচয় দেন। এ সময় হাজী সেলিমের গাড়ী থেকে দুই জন ব্যক্তি নেমে লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফকে মারধর করে। একপর্যায়ে ওই কর্মকর্তা আত্মরক্ষার চেষ্টা করেন। এ সময় ওয়াসিফের স্ত্রীকেও লাঞ্চিত করা হয়। ঘটনাস্থলে লোকজন জড়ো গেলে সংসদ সদস্যের গাড়ি ফেলে মারধরকারীরা পালিয়ে যান। পরে পুলিশ এসে গাড়ি ও মোটরসাইকেলটি জব্দ করে থানায় নিয়ে যায়।

এ ঘটনায় ঘটনায় হাজী সেলিমের ছেলে ইরফান সেলিমসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে গতবছর ২৬ অক্টোবর ধানমন্ডি থানায় ‘মারধর ও হত্যা চেষ্টা’ মামলা করেন নৌবাহিনীর কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ। দ-বিধির ১৪৩, ৩০৭, ৩২৫, ৩৩২, ৩৪১, ৩৫৩, ৩৫৪ ও ৫০৬ নম্বর ধারায় এ মামলা করা হয়। ওই দিন চকবাজারের দেবীদাস লেনে হাজী সেলিমের বাসায় দিনভর অভিযান চালায় র‌্যাব। 

এ সময় ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ইরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষী জাহিদকে হেফাজতে নেওয়া হয়। বাসায় অবৈধভাবে মদ ও ওয়াকিটকি রাখার দায়ে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত তাদের দুইজনকে এক বছর করে কারাদ- দেন। পরে মাদক ও অস্ত্র আইনে তাদের বিরুদ্ধে দুটি করে মোট চারটি মামলা দায়ের করে র‌্যাব। যার দুই মাস পর অস্ত্র ও মাদক মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করলো পুলিশ।

প্রতিবেদনে বলা হয়, মামলায় ইরফান সেলিমকে দায়মুক্তি দেওয়া হয়েছে। পুলিশ দাবি করেছে, তার কাছে কোনো অস্ত্র ও মাদক ছিল না। তার সহযোগী জাহিদের কাছ থেকে এই অস্ত্র ও মাদক পাওয়া যায়।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সুনামগঞ্জে বাবা, স্ত্রী ও মেয়েকে খুন: একজনের যাবজ্জীবন

মো. বুরহানউদ্দিন, সুনামগঞ্জ

সুনামগঞ্জে বাবা, স্ত্রী ও মেয়েকে খুন: একজনের যাবজ্জীবন

সুনামগঞ্জে বাবা, স্ত্রী ও মেয়েকে খুনের দায়ে আলফু মিয়া নামে একজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত দায়রা জজ নূরুল আলম মোহাম্মদ নিপু আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে এই রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তি হলেন- সুনামগঞ্জের দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম পাগলা ইউনিয়নের ব্রাহ্মণগাঁও গ্রামের মৃত আলা উদ্দিনের ছেলে আলফু মিয়া (৪১)। একই সঙ্গে তাকে ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দিয়েছেন আদালত। জেলা ও দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) অ্যাড.সৈয়দ জিয়াউল ইসলাম এই রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।


বুবলিকে ধাক্কা দেওয়া গাড়িটি ছিল ব্ল্যাক পেপারে মোড়ানো, ছিল না নম্বর প্লেট

অস্ত্রের মুখে ছাত্রীকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণের পর দফায় দফায় ধর্ষণ

মেয়েকে তুলে নিয়ে মাকে রাত কাটানোর প্রস্তাব অপহরণকারীর

নাসির বিয়ে করেছেন আপনার খারাপ লাগে কেন?


মামলা সূত্রে জানা গেছে, ২০১৪ সালের ২০ সেপ্টেম্বর রাতে ব্রাহ্মণগাঁও গ্রামের আলা উদ্দিনের ছেলে আলফু মিয়া পারিবারিক কলহের জের ধরে তার স্ত্রী বিউটি বেগম ও মেয়ে আফিফা বেগমকে মারধর করে। বিষয়টি দেখে তার বাবা আলা উদ্দিন তাকে শান্ত করতে তার ঘরে ঢুকলে বাবাকেও ডিউবওয়েলের হাতল দিয়ে মারধর করে। পরে আলফু মিয়া তার বাবা, স্ত্রী ও শিশু মেয়েকে এলোপাতাড়ি মারধর করে। টিউবওয়েলের  হাতলের আঘাতে গুরুতর আহত হয়ে বসত ঘরের ভেতরেই তিনজন নিহত হয়।

স্থানীয় লোকজন আলফু মিয়াকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন। পরে পুলিশ নিহত তিনজনের লাশ উদ্ধার করে। ঘটনার পরদিন নিহত আলা উদ্দিনের ছেলে শাহজাহান মিয়া বাদী হয়ে আলফু মিয়াকে আসামি করে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পুলিশ দীর্ঘ তদন্ত শেষে ২০১৪ সালের ২৬ ডিসেম্বর আদালতে অভিযোগপত্র দেয়। মামলার দীর্ঘ সাক্ষ্যগ্রহণ ও শুনানি শেষে আদালত আজ বৃহস্পতিবার আলফু মিয়ার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ঘোষণা করেন। মামলার দায়ের পর থেকে এবং আজ বৃহস্পতিবার রায় ঘোষণার সময় দণ্ডপ্রাপ্ত আলফু মিয়া আদালতে হাজির ছিলেন।

তবে তার পক্ষে মামলা পরিচালনায় রাষ্ট্র কর্তৃক নিযুক্ত আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট রমজান আলী।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বরিশালে মানব পাঁচার মামলার রায়ে ২ জনের কারাদন্ড

রাহাত খান, বরিশাল

বরিশালে মানব পাঁচার মামলার রায়ে ২ জনের কারাদন্ড

বরিশালে একটি মানব পাঁচার মামলার রায়ে ২ জনকে ৭ বছর করে সশ্রম কারাদন্ড এবং ৫ লাখ টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরও ৬ মাসের দন্ড দেয়া হয়েছে। একই সাথে অভিযোগ প্রমানিত না হওয়ায় মামলার অপর দুই আসামীকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে।

বরিশাল মানব পাঁচার অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মঞ্জুরুল হোসেন গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে ৩ আসামীর উপস্থিতিতে এবং এক আসামীর অনুপস্থিতিতে এই রায় ঘোষনা করেন। 

দন্ডপ্রাপ্ত আসামীরা হলো বরিশাল জেলার মুলাদী উপজেলার কাজীরচর এলাকার আব্দুল জলিল সরদার এবং ঢাকার বনানীর মেসার্স সানলাইট এন্টারপ্রাইজ নামক ট্রাভেল এজেন্সির মালিক মো. আনিছুর রহমান। খালাসপ্রাপ্তরা হলো দন্ডপ্রাপ্ত জলিল সরদারের স্ত্রী রাশিদা এবং জেসমিন আক্তার। 


আইটেম গার্ল জেরিন খান এখন ড. জেরিন খান

রাজধানীর খিলক্ষেতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১

সিরাজগঞ্জে এইচ টি ইমামের প্রথম জানাজা সম্পন্ন

মা হচ্ছেন শ্রেয়া ঘোষাল, বেবি বাম্পের ছবি ভাইরাল


ট্রাইব্যুনাল সূত্র জানায়, ২০১৫ সালে বরিশালের মুলাদীর কাজীরচর এলাকার আব্দুল জলিল পার্শ্ববর্তী খালাসীর চর এলাকার জনৈক আবুল কালাম ওরফে মিজানুর রহমানকে ৫ লাখ টাকার চুক্তিতে লিবিয়া পাঠানোর কথা বলে সুদান পাঠিয়ে দেয়। সেখানে পৌঁছে বাংলাদেশী সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ৬৫ জনকে বিপদগ্রস্থ অবস্থায় দেখতে পান আবুল কালাম। 

সেখান থেকে ট্রাকে করে ৭ দিন ও ৭ রাতে অবৈধভাবে তাকে সহ অন্যান্যদের লিবিয়া পাঠানো হয়। লিবিয়া পৌঁছার পর দুই লাখ টাকা মুক্তিপন আদায় করা হয় আবুল কালামের পরিবারের কাছ থেকে। পরে তাকে ছেড়ে দেয়া হলে লিবিয়া পুলিশ আবুল কালামকে গ্রেফতার করে। এর এক পর্যায়ে লিবিয়ায় কর্মরত বরিশালের মুলাদীর আব্দুল বারেক খান তাকে পুলিশ হেফাজত থেকে মুক্ত করে দেশে পাঠিয়ে দেয়। 

দেশে ফিরে ২০১৫ সালের ১২ ডিসেম্বর ৪জনকে আসামী করে বরিশাল আদালতে একটি মামলা করেন আবুল কালাম। আদালত অভিযোগটি এজাহার হিসেবে গ্রহন করে তদন্তের জন্য মুলাদী থানার ওসিকে নির্দেশ দেন। ২০১৬ সালের ৩০ নভেম্বর মুলাদী থানার উপ-পরিদর্শক মো. ফারুক হোসেন খান ৪জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে এ মামলার প্রতিবেদন জমা দেন। 

২০১৮ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি মামলাটি বরিশাল মানব পাঁচার অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনালে প্রেরন করা হয়। ৯ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে গতকাল ওই রায় ঘোষনা করেন ট্রাইব্যুনাল। বাদী পক্ষে এপিপি কাইয়ুম খান কায়সার এবং আসামী পক্ষে হুমায়ুন কবির মামলা পরিচালনা করেন। 

news24bd.tv আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

হাইকোর্টে রিট করেছেন নাসিরের স্ত্রী তামিমার সাবেক স্বামী

অনলাইন ডেস্ক

হাইকোর্টে রিট করেছেন নাসিরের স্ত্রী তামিমার সাবেক স্বামী

বিয়ে ও বিচ্ছেদ রেজিস্ট্রেশন ডিজিটালাইজেশন করতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, এই মর্মে হাইকোর্টে রিট করেছেন ক্রিকেটার নাসিরের স্ত্রী তামিমা সুলতানা তাম্মির আগের স্বামী রাকিব হাসান। রাকিব হাসান এবং তিন ব্যক্তি ও একটি সংগঠন এ রিট করেন। অন্যান্য রিটকারী হচ্ছেন- সোহাগ হোসেন, কামরুল হাসান ও এইড ফর ম্যান ফাউন্ডেশন। 

বৃহস্পতিবার করা এ রিটে আইন বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সচিব, ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিব ও বিটিআরসির চেয়ারম্যানকে বিবাদী করা হয়েছে। 

রিটে বিয়ে-ডিভোর্স সংক্রান্ত বিষয়ে সম্মান রক্ষায় প্রতারণার হাত থেকে বাঁচিয়ে (বিয়ে-ডিভোর্সের ক্ষেত্রে) সম্মান রক্ষা এবং পারিবারিক জীবন বাঁচাতে বিয়ে ও ডিভোর্স রেজিস্ট্রেশন ডিজিটাল করতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, এই মর্মে রুল জারির আর্জি জানানো হয়েছে। রিটকারীদের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন। 

এর আগে ২২ ফেব্রুয়ারি প্রতারণার হাত থেকে বাঁচাতে বিয়ে ও বিচ্ছেদ রেজিস্ট্রেশন ডিজিটালাইজেশন করার নির্দেশনা চেয়ে সংশ্লিষ্টদের নোটিশ পাঠানো হয়। ক্রিকেটার নাসিরের সদ্য বিবাহিত স্ত্রী তামিমা সুলতানা তাম্মির আগের স্বামী রাকিব হাসানসহ তিন ব্যক্তি ও একটি সংগঠনের পক্ষে অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান এ নোটিশ পাঠান।


 

আইটেম গার্ল জেরিন খান এখন ড. জেরিন খান

রাজধানীর খিলক্ষেতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১

সিরাজগঞ্জে এইচ টি ইমামের প্রথম জানাজা সম্পন্ন

মা হচ্ছেন শ্রেয়া ঘোষাল, বেবি বাম্পের ছবি ভাইরাল


নোটিশে উল্লেখ করা হয়, বিয়ে ও বিচ্ছেদ রেজিস্ট্রেশনের আইনগত বিধান থাকলেও তা ডিজিটাল না করার ফলে অসংখ্য প্রতারণার ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া বিয়ে গোপন রেখে ডিভোর্স না দিয়ে বিয়ে করার ঘটনা অনেক ঘটতে দেখা যাচ্ছে। এর ফলে সন্তানের পিতৃ পরিচয় নিয়েও জটিলতা দেখা যাচ্ছে। বিয়ে সংক্রান্ত অপরাধ বেড়ে অসংখ্য মামলার জন্ম নিচ্ছে। তাই বিয়ে ও ডিভোর্স রেজিস্ট্রেশন ডিজিটাল হওয়া একান্ত আবশ্যক।
  
সম্প্রতি ক্রিকেটার নাসির  হোসেন বিয়ে করেন তামিমা তাম্মিকে। পরে রাকিব হাসান নামে এক ব্যক্তি নিজেকে তামিমার স্বামী দাবি করেন। তাদের একটি কণ্যা সন্তানও রয়েছে বলে জানান। এ বিষয় নিয়ে গণমাধ্যমে এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনার সৃষ্টি হয়। 

পরে তামিমা এবং নাসির সংবাদ সম্মেলন করে জানান যে তামিমা ২০১৬ সালেই রাকিবকে তালাক দিয়েছে। এসময় তিনি তালাক নামাও দেখান সাংবাদিকদের। পরে অবশ্য ফেইসবুকে ওই তালাক নামকে ভূয়া বলে জানানো হয়।

news24bd.tv/ আয়শা

 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ডিজিটাল নিরাপত্তা মামলায় ব্যাংক কর্মকর্তা গ্রেপ্তার

সামছুজ্জামান শাহীন, খুলনা

ডিজিটাল নিরাপত্তা মামলায় ব্যাংক কর্মকর্তা গ্রেপ্তার

খুলনায় প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে ফেসবুকে অশালীন ভিডিও ও মন্তব্য করায় কৃষি ব্যাংকের জামিরা শাখার কর্মকর্তা উত্তম সরকারকে (৪০) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

বুধবার বিকেলে তাকে দৌলতপুর থেকে গ্রেপ্তারের পর কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

ফুলতলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহাতাব উদ্দিন এ তথ্য জানিয়েছেন। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ডের আবেদন জানানো হয়েছে।


সবইতো চলছে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কেন ঈদের পরে খুলবে: নুর

আইন চলে ক্ষমতাসীনদের ইচ্ছেমত: ভিপি নুর

রাঙামাটিতে বিজিবি-বিএসএফের পতাকা বৈঠক

৭৫০ মে.টন কয়লা নিয়ে জাহাজ ডুবি, শুরু হয়নি উদ্ধার কাজ


পুলিশ জানায়, প্রধানমন্ত্রী, সজিব ওয়াজেদ জয়, কৃষি ব্যাংকের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালককে নিয়ে ফেসবুকে অশালীন মন্তব্য করায় তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেন ওই ব্যাংকের ব্যবস্থাপক মেহেদী হাসান। ফুলতলা থানা মামলা নং-১। পরে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে। উত্তম সরকার নগরীর দৌলতপুর আরমান খান রোডের মৃত মনোরঞ্জন সরকারের ছেলে।

জানা যায়, ২৫ ফেব্রুয়ারি এ ঘটনায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়।

ওসি মাহাতাব উদ্দিন জানান, ফেসবুকের আইডি যাচাই, তথ্য সংগ্রহ ও সরকারি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য অনুমতির পর তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

খুলনায় কা‌শেম হত্যা মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ

সামছুজ্জামান শাহীন, খুলনা

খুলনায় কা‌শেম হত্যা মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ

খুলনা মহানগর জাতীয় পা‌র্টির সা‌বেক সাধারণ সম্পাদক শেখ আবুল কা‌শেম হত্যা মামলায় বুধবার অবসরপ্রাপ্ত ম্যা‌জি‌স্ট্রেট সগীর আহ‌মেদ আদাল‌তে হা‌জিরা দি‌য়ে‌ছেন। জন‌নিরাপত্তা বিঘ্নকারী অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনা‌লে আলোচিত এ মামলায় তার স্বাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়।

এ সময় মামলার আসামি খুলনা-৩ আস‌নের সা‌বেক সংসদ সদস্য আব্দুল গফফার বিশ্বাস আদাল‌তে হা‌জির ছিলেন। আরেক আসামি কেসিসি’র নির্বাচনে জাপা মেয়র প্রার্থী মুশ‌ফিকুর রহমান উপ‌স্থিত হন‌নি।


সবইতো চলছে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কেন ঈদের পরে খুলবে: নুর

আইন চলে ক্ষমতাসীনদের ইচ্ছেমত: ভিপি নুর

রাঙামাটিতে বিজিবি-বিএসএফের পতাকা বৈঠক

৭৫০ মে.টন কয়লা নিয়ে জাহাজ ডুবি, শুরু হয়নি উদ্ধার কাজ


রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (পিপি) মো. আরিফ মাহমুদ লিটন এ তথ্য জানিয়েছেন।

আগামী ১৫ মার্চ মামলার পরবর্তী সাক্ষ্য গ্রহণের দিন ধার্য করা হয়েছে।

জানা যায়, ১৯৯৫ সা‌লের ২৫ এ‌প্রিল নগরীর স্যার ইকবাল রোডের বে‌সিক ব্যাং‌কের সাম‌নে আবুল কা‌শেম ও তার গাড়ির চালক মিকাইলকে গুলি করে হত্যা করা হয়।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর