দুদকের ভুলে সাজা : অব্যাহতি নিরাপরাধের, আইও’র বিরুদ্ধে ব্যবস্থার নির্দেশ

অনলাইন ডেস্ক

দুদকের ভুলে সাজা : অব্যাহতি নিরাপরাধের, আইও’র বিরুদ্ধে ব্যবস্থার নির্দেশ

এসএসসি পরীক্ষার সনদ জালিয়াতির ঘটনায় নোয়াখালীতে নামের মিল থাকায় দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) ভুল তদন্তে ১৫ বছরের দণ্ডপ্রাপ্ত নিরপরাধ কামরুল ইসলামের সাজা বাতিল করেছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে এ ঘটনায় দায়ীদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়ে নতুন করে ওই মামলা তদন্ত করতে বলেছেন উচ্চ আদালত। 

বৃহস্পতিবার  হাইকোর্টের বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ রায় দেন।

আদালতে আজ দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান এবং রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার মো. সারোয়ার হোসেন বাপ্পী। অন্যদিকে রিট আবেদনকারীর পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী মিনহাজুল হক চৌধুরী।

এর আগে ২৬ জানুয়ারি সনদ জালিয়াতির ঘটনায় ভুল স্বীকার করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।


ওবায়দুল কাদের পদের জন্য আত্মসমর্পণ করেছেন : মির্জা কাদের

করোনার মধ্যেও অ্যাপল রাজত্ব

পাঁচ সিনেমা থেকে বাদ পড়লেন দীঘি

জীবন রক্ষাকারী টিকা নিয়ে গুজব ছড়াবেন না : স্বাস্থ্যমন্ত্রী


 

জানা যায়, এসএসসির ভুয়া নম্বর ও প্রশংসাপত্র তৈরি করে মাইজদী পাবলিক কলেজে একাদশ শ্রেণিতে (১৯৯৮-৯৯ শিক্ষাবর্ষ) ভর্তির অভিযোগে কামরুল ইসলামের (ঠিকানা: পূর্ব রাজারামপুর) নামে তৎকালীন দুর্নীতি দমন ব্যুরো ২০০৩ সালের জানুয়ারিতে সুধারাম থানায় মামলা করে। জব্দ করা ভর্তির আবেদনপত্রে কামরুলের জন্মতারিখ ১৯৭৯ সালের ১ জানুয়ারি ও গ্রাম পশ্চিম রাজারামপুর উল্লেখ রয়েছে। তদন্ত শেষে প্রায় ১০ বছর পর দুদকের তদন্ত কর্মকর্তা ২০১৩ সালের ২৮ নভেম্বর ওই মামলায় অভিযোগপত্র দেন, যেখানে কামরুল ইসলামের গ্রামের ঠিকানা পূর্ব রাজারামপুর উল্লেখ করা হয়।

তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, এ মামলায় ২০১৪ সালের ৭ এপ্রিল আদালতে পুলিশের (পিঅ্যান্ডএ) এক প্রতিবেদনে এক সাক্ষীর বরাত দিয়ে বলা হয়, আসামি মো. কামরুল ইসলাম, বাবা আবুল খায়ের, গ্রাম পূর্ব রাজারামপুর ঠিকানা সঠিক নয়। প্রকৃত আসামি কামরুল ইসলাম, বাবা আবুল খায়ের, গ্রাম পশ্চিম রাজারামপুর, যিনি দেশের বাইরে আছেন। এই মামলায় নোয়াখালীর বিশেষ জজ আদালত ২০১৪ সালের ২৬ নভেম্বর রায় দেন। অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় কামরুল ইসলামকে (পিতা: আবুল খায়ের, গ্রাম: পূর্ব রাজারামপুর) দোষী সাব্যস্ত করে তিনটি ধারায় ৫ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড এবং ১০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড দেওয়া হয় রায়ে। সব কারাদণ্ড একসঙ্গে চলবে বলা হয়।

এরপর ওই মামলায় সাজাপরোয়ানার ভিত্তিতে হয়রানি ও গ্রেপ্তার না করতে গত বছরের অক্টোবরে মোহাম্মদ কামরুল (পূর্ব রাজারামপুর) রিট করেন। এতে যুক্ত এক প্রত্যয়নপত্রে দেখা যায়, তিনি বর্তমানে নোয়াখালী চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের অফিস সহায়ক হিসেবে কর্মরত। তাঁর সার্ভিস বুক ও এসএসসি পাসের সনদ অনুসারে তিনি ১৯৯০ সালের ১৫ অক্টোবর জন্মগ্রহণ করেন। অর্থাৎ মামলায় উল্লিখিত শিক্ষাবর্ষ (১৯৯৮-৯৯) সময়ে তার বয়স ছিল ৮ বছর। নোয়াখালীর হরিনাথপুর উচ্চবিদ্যালয় থেকে ২০০৬ সালে মোহাম্মদ কামরুল এসএসসি পাস করেন বলে ওই প্রত্যয়নপত্রে উল্লেখ রয়েছে।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মামুনুলকে নিয়ে ফেসবুকে পোস্ট, আ. লীগের ২ পক্ষের সংঘর্ষ

অনলাইন ডেস্ক

মামুনুলকে নিয়ে ফেসবুকে পোস্ট, আ. লীগের ২ পক্ষের সংঘর্ষ

হেফাজত নেতা মামুনুল হকের পক্ষে-বিপক্ষে কথা ও লেখালেখি কম হচ্ছে না। এ নিয়ে ঘটছে হাতাহাতি ও সংঘর্ষের মতো ঘটনাও। এদেকে কুষ্টিয়ায় মামুনুল ইস্যুতে ফেসবুকে পোস্ট দেওয়া নিয়ে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ হয়েছে।

এতে কমপক্ষে ২৫ জন আহত হয়েছেন। এসময় বাড়িতে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনাও ঘটেছে।

কুষ্টিয়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শওকত কবির জানান, আজ সোমবার সদর উপজেলার জিয়ারখি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আজিজুল হক ও সাবেক সভাপতি আহসান সরদারের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। এরিমধ্যে আজিজুল হকের সমর্থক জিয়ারখি ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি শরীফুল ইসলাম হেফাজত নেতা মামুনুল হকের বিরুদ্ধে ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন।


‘খেলাফত প্রতিষ্ঠা হলে ধরব আর জবাই করব’ বক্তব্য দেওয়া হেফাজত নেতা রিমান্ডে

ফরিদা পারভীনের ফুসফুসের ৫০ শতাংশ আক্রান্ত

সাপ্তাহিক বন্ধের দিনও খোলা বসুন্ধরা সিটি শপিংমল

এদেশে জন্ম নেওয়া কি পাপ, প্রশ্ন নুরুর


প্রতিপক্ষ আহসান সরদারের কয়েকজন ওই পোস্টে মামুনুল হকের পক্ষ নিয়ে কমেন্ট করেন। তারা শরীফুল ইসলামকে নরেন্দ্র মোদির সন্তান বলে কটূক্তি করেন। এ ঘটনার জের ধরে সোমবার সকালে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। দুই পক্ষের ইটপাটকেল নিক্ষেপে এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। এসময় উভয়পক্ষের বেশ কয়েকটি বাড়িতে ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে। এতে দুই পক্ষের কমপক্ষে ২৫ জন আহত হন।

স্থানীয়রা আরও জানান, আহতদের মধ্যে সাইদুল (৪০) নামে একজনকে গুরুতর অবস্থায় ঢাকায় চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া, আহত আরও ৪ জনকে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ নিয়ে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আজিজুল হক বলেন, ‘আহসান সরদারের লোকজন হেফাজত নেতা মামুনুল হকের পক্ষ নিয়ে আমার লোকদের ওপর হামলা চালায়।’

অপরদিকে আহসান সরদারের দাবি, তাদের লোকদের হেফাজত আখ্যা দেয় আজিজুল হকের লোকজন ও তার লোকদের বাড়ি-ঘরে হামলা করে। এতে তার পক্ষের ১০-১২ জন আহত হয়েছেন।

বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে বলে জানান ওসি শওকত কবির। তিনি বলেন, অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। সংঘর্ষে জড়িতদের ধরতে অভিযান শুরু হয়েছে।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

করোনায় কারাবন্দিদের আদালতে হাজির না করার নির্দেশ

অনলাইন ডেস্ক

করোনায় কারাবন্দিদের আদালতে হাজির না করার নির্দেশ

প্রাণঘাতী করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় কারাগার থেকে হাজতি আসামিদের আদালতে হাজির করা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ।

এ বিবেচনা করে দেশের অধস্তন আদালত ও ট্রাইব্যুনালে হাজতি আসামিদের হাজির না করতে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধান বিচারপতি।

আজ সোমবার (১২ এপ্রিল) এ নিয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন।

সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের রেজিস্ট্রার মো. গোলাম রব্বানীর সই করা ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, করোনা ভাইরাসজনিত উদ্ভূত পরিস্থিতিতে জামিন শুনানিকালে ও মামলার অন্যান্য কার্যক্রমে কারাগার থেকে হাজতি আসামিদের আদালতে হাজির করা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ।

জামিন শুনানিকালে ও মামলার অন্যান্য কার্যক্রমে হাজতি আসামিদের কারাগার থেকে প্রিজনভ্যান বা অন্য কোনোভাবে আদালত কক্ষে হাজির না করে কারাগারে রেখে জামিন শুনানি করতে হবে। অন্যান্য ক্ষেত্রে প্রয়োজনে মামলার কার্যক্রম মুলতবি করতে হবে।


‘খেলাফত প্রতিষ্ঠা হলে ধরব আর জবাই করব’ বক্তব্য দেওয়া হেফাজত নেতা রিমান্ডে

ফরিদা পারভীনের ফুসফুসের ৫০ শতাংশ আক্রান্ত

সাপ্তাহিক বন্ধের দিনও খোলা বসুন্ধরা সিটি শপিংমল

এদেশে জন্ম নেওয়া কি পাপ, প্রশ্ন নুরুর


এছাড়া ওই বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত দেশের অধস্তন আদালত ও ট্রাইব্যুনালে জামিন শুনানিকালে এবং মামলার অন্যান্য কার্যক্রমে হাজতি আসামিদের কারাগার থেকে প্রিজনভ্যান বা অন্য কোনোভাবে আদালত কক্ষে হাজির না করার নির্দেশ দেওয়া হলো।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, হাজতি আসামির রিমান্ড শুনানির ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কারাগারে ভিডিও কনফারেন্সের লিংক পাঠিয়ে সংশ্লিষ্ট ম্যাজিস্ট্রেট আসামিকে কারাগার কর্তৃপক্ষের সহযোগিতায় ভার্চ্যুয়ালি দেখে রিমান্ড শুনানি করতে পারবেন।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

তাল গাছের শতাধিক বাবুই পাখির বাসা ভেঙে কারাগারে ৩ কৃষক

অনলাইন ডেস্ক

তাল গাছের শতাধিক বাবুই পাখির বাসা ভেঙে কারাগারে ৩ কৃষক

তাল গাছে থাকা শতাধিক বাবুই পাখির বাসা ভেঙে ফেলার অভিযোগে পিরোজপুরের ইন্দুরকানী উপজেলার দক্ষিণ ভবানীপুর গ্রামের তিনজনকে কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

সোমবার দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন পিরোজপুর জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অশোক বিক্রম চাকমা।

তিনি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে বাবুই পাখির বাসা ভাঙা ও পাখির ছানা হত্যার অপরাধে ভবানীপুর গ্রামের কৃষক লুৎফর রহমান মোল্লাকে ১৫ দিন, কৃষিশ্রমিক সুনীল বেপারীকে ৭ দিন ও সুনীল মিস্ত্রীকে ৩ দিনের কারাদণ্ড দেন।


‘খেলাফত প্রতিষ্ঠা হলে ধরব আর জবাই করব’ বক্তব্য দেওয়া হেফাজত নেতা রিমান্ডে

ফরিদা পারভীনের ফুসফুসের ৫০ শতাংশ আক্রান্ত

সাপ্তাহিক বন্ধের দিনও খোলা বসুন্ধরা সিটি শপিংমল

এদেশে জন্ম নেওয়া কি পাপ, প্রশ্ন নুরুর


ঘটনার ব্যাপারে ইন্দুরকানী থানার ওসি হুমায়ুন কবির জানান, বন্যপ্রাণি রক্ষা আইনে এ দণ্ড দেওয়া হয়ছে। দণ্ডপ্রাপ্তদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ভবানিপুর গ্রামের লুৎফর রহমান মোল্লা এবং তার কৃষিকাজের সহযোগী নাজিরপুর উপজেলার শ্রমিক সুনীল বেপারী ও সুনীল মিস্ত্রী গত শনিবার বিকেলে ধান ক্ষেতের পাশের দুটি তাল গাছে থাকা শতাধিক বাবুই পাখির বাসা বাঁশ দিয়ে ভেঙে ফেলেন। এসময় তারা অনেকগুলো পাখির বাসা খালের পানিতে ফেলে দেন। এতে দুই শতাধিক বাবুই পাখির ছানা মারা যায়। ভেঙে ফেলা পাখির বাসাগুলোতে কয়েকশ' পাখির ছানা ও ডিম ছিল।

স্থানীয়রা জানান, লুৎফর রহমান মোল্লা ও তার তিন ভাই মিলে গ্রামের প্রায় ৫০ বিঘা জমিতে বোরো ধান রোপন করেছেন। সেই জমির ধান খেয়ে ফেলায় আশঙ্কায় তারা বাবুই পাখির বাসাগুলো ভেঙে ফেলেন।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

নারায়ণগঞ্জে রিসোর্ট কাণ্ড : ৪ হেফাজত নেতার তিন দিনের রিমান্ড

অনলাইন ডেস্ক

নারায়ণগঞ্জে রিসোর্ট কাণ্ড : ৪ হেফাজত নেতার তিন দিনের রিমান্ড

নারায়ণগঞ্জ এ রিসোর্টে মামুনুল হককান্ডে গ্রেফতার  ৪ হেফাজত নেতা মাওলানা ইকবাল,মাওলানা মহিউদ্দীন, মাওলানা শাহজাহান শিবলী, মাওলানা মোয়াজ্জেমকে দুই মামলায় মোট তিনের রিমান্ড দিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা ও দায়রাজজ আদালত। 

সোমবার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আহমেদ হুমায়ুন কবীর আদেশ দেন, এর আগে সরকারপক্ষ সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। 

এর আগে, নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে রয়াল রিসোর্টে মামুনুল হকের নারী কেলেংকারি ইস্যুতে মহাসড়কে তাণ্ডবের ঘটনায় পুলিশের দায়ের করা দুই মামলায় হেফাজতে ইসলামের আরও চার নেতাকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- সোনারগাঁও উপজেলা খেলাফত মজলিসের সভাপতি মাওলানা ইকবাল হোসেন, মাওলানা আমির মহিউদ্দিন, সোনারগাঁও উপজেলা হেফাজত ইসলামের সেক্রেটারি মাওলানা শাহজাহান ওরফে শিবলি এবং সহসভাপতি মাওলানা মোয়াজ্জেম হোসেন।


শুধুমাত্র পরিবারের সদস্যদের নিয়েই হবে প্রিন্স ফিলিপের শেষকৃত্য

বাংলাদেশের জিহাদি সমাজে 'তসলিমা নাসরিন' একটি গালির নাম

করোনা আক্রান্ত প্রতি তিনজনের একজন মস্তিষ্কের সমস্যায় ভুগছেন: গবেষণা

কুমারীত্ব পরীক্ষায় 'ফেল' করায় নববধূকে বিবাহবিচ্ছেদের নির্দেশ


 

রোববার (১১ এপ্রিল) মধ্যরাতে রাজধানীর জুরাইন এলাকায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে র‌্যাব-১১ সদস্যরা তাদের গ্রেফতার করে। 

নারায়ণগঞ্জে হেফাজতের হরতাল কর্মসূচি ও দলটির যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক নারীসহ অবরুদ্ধ হওয়ার পর হেফাজত নেতাকর্মীদের তাণ্ডব ও সহিংসতার ঘটনায় এ পর্যন্ত ১৭টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এসব মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে ৬৩ জনকে।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

আহমদ শফীকে হত্যা মামলায় বাবুনগরী-মামুনুলসহ ৪৩ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট

অনলাইন ডেস্ক

আহমদ শফীকে হত্যা মামলায় বাবুনগরী-মামুনুলসহ ৪৩ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট

হেফাজতে ইসলামের সাবেক আমির শাহ আহমদ শফীকে ‘মানসিক নির্যাতন করে পরিকল্পিতভাবে’ হত্যার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় বাবুনগরী, ও আজিজুলসহ ৪৩ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। 

সোমবার (১২ এপ্রিল) দুপুরে চট্টগ্রাম জুডিশিয়াল তৃতীয় জজ আদালতে এ প্রতিবেদন দাখিল করে পিবিআই । 

গত বছরের ১৭ ডিসেম্বর সকালে আহমদ শফীর শ্যালক মোহাম্মদ মাঈনুদ্দিন বাদী হয়ে চট্টগ্রামের তৃতীয় জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালত-৩ এ হত্যা মামলা দায়ের করেন।  মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে, আহমদ শফীকে মানসিক নির্যাতন এবং তার অক্সিজেন মাস্ক খুলে দিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

মামলায় হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব আল্লামা মামুনুল হককে আসামি করা হয়। অন্য অভিযুক্তরা হলেন- নাছির উদ্দিন মুনির, আজিজুল হক ইসলামাবাদী, মীর ইদ্রিস, হাবিব উল্লাহ, আহসান উল্লাহ, জাকারিয়া নোমান ফয়েজী, নুরুজ্জামান নোমানী, আব্দুল মতিন, মো. শহীদুল্লাহ, মো. রিজওয়ান আরমান প্রমুখ। এ ছাড়া মামলায় অজ্ঞাতনামা আরো ৮০-৯০ জনকে আসামি করা হয়।

হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফী গত বছরের সেপ্টেম্বরে রাজধানীর আজগর আলী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে আহমদ শফীর বয়স হয়েছিল ১০৩ বছর।

 

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর