আমেরিকার অভিবাসন সবসময়ই রাজনীতি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত: মার্কিন দুই বিশেষজ্ঞর অভিমত

অনলাইন ডেস্ক

আমেরিকার অভিবাসন সবসময়ই রাজনীতি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত: মার্কিন দুই বিশেষজ্ঞর অভিমত

বিভিন্ন দেশে অর্থনীতিকে প্রাধান্য দিয়ে অভিবাসন (ইমিগ্রেশন) নীতি প্রণীত হলেও আমেরিকায় বরাবরই রাজনীতি অভিবাসনকে নিয়ন্ত্রণ করেছে। ফলে বিশ্বের বৃহৎ অর্থনীতির এই দেশটিতে সুষম একটি অভিবাসন প্রক্রিয়া গড়ে ওঠেনি। 

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত দুই আমেরিকান বিশেষজ্ঞ এই মতামত দিয়ে আশা প্রকাশ করেছেন, নতুন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রস্তাবিত সংস্কার উদ্যোগ আমেরিকার অভিবাসনকে খানিকটা হলেও সহজ করবে।

কানাডার বাংলা পত্রিকা ’নতুনদেশ’ এর প্রধান সম্পাদক শওগাত আলী সাগরের সঞ্চালনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারিত ‘শওগাত আলী সাগর লাইভ’ অনুষ্ঠানে আলোচনায় তারা এই মতামত দেন। 

আলোচনায় অংশ নেন টেক্সাস এ অ্যান্ড এম ইউনিভার্সিটির রাজনীতি বিজ্ঞানের অধ্যাপক এবং ইমিগ্রেশন বিষয়ক গবেষক ড. মেহনাজ মোমেন এবং নিউইয়র্কের ইমিগ্রেশন এটর্নী মৌমিতা রহমান। টরন্টো সময় বুধবার রাতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরাসরি এই আলোচনা সম্প্রচারিত হয়।

ড. মেহনাজ মোমেন তার আলোচনায় বলেন, কানাডা বা অষ্ট্রেলিয়ায় অর্থনীতি পূণরুজ্জীবনের অংশ হিসেবে অভিবাসন নীতিলাকে সাজানো হয়। কিন্তু আমেরিকার অভিবাসন নীতিমালা সেইরকম না। এখানে অভিবাসনকে রাজনীতির একটি অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করা হয়।

তিনি বলেন, গত এক বা দুই দশকে আমেরিকার অভিবাসন একটি সাংস্কৃতিক ইস্যু হয়ে উঠেছে। অভিবাসীদের পছন্দ করা বা না করাকে কেন্দ্র করে নতুন এক সংস্কৃতি গড়ে উঠেছে।


করোনার মধ্যেও অ্যাপল রাজত্ব

পাঁচ সিনেমা থেকে বাদ পড়লেন দীঘি

জীবন রক্ষাকারী টিকা নিয়ে গুজব ছড়াবেন না : স্বাস্থ্যমন্ত্রী


নতুন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সংস্কারের প্রস্তাবনাকে অভিবাসনের নানা বাঁধাগুলো দুর করে অভিবাসনকে সহজ করার পদক্ষেপ হিসেবে অভিহিত করেন তিনি । তিনি বলেন, পরিপূর্ণভাবে এই প্রস্তবনাকে আইনে পরিণত করতে দুই কক্ষেই এটি পাশ হতে হবে। 

সেক্ষেত্রে সিনেটে রিপাবলিকানদের বাধার মুখে পরার সম্ভাবনা আছে। তবে প্রেসিডেন্ট বাইডেন আলাদা আলাদা পদক্ষেপ হিসেবে তার পরিকল্পনা কার্যকর করতে চান। সেটি করতে হয়েতো বা তাকে বেগ পেতে হবে না।

তিনি বলেন, প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তার অভিবাসন সংস্কার প্রস্তাবনায় ‘আনডকুমেন্টেড’ শব্দের বদলে ‘নন সিটিজেন’ শব্দটি ব্যবহার করেছেন। এটি কিন্তু তার নীতিমালার গুরুত্বপূর্ণ একটি ঈঙ্গিত। অভিবাসনের সাথে সংশ্লিষ্ট দপ্তর এবং প্রশাসনের জন্য এই বার্তাটি অনেক প্রশাসনিক ইন্টারপ্রিটেশনকে  বদলে দেবে।

তিনি বলেন, আমেরিকার যখন যারা ক্ষমতায় থাকেন তারাই তাদের পছন্দের বা অপছন্দের দেশের লোকদের আসার পথ সহজ বা কঠিন করার লক্ষ্য নিয়ে অভিবসান সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত বা নীতিমালা গ্রহণ করে।তিনি বলেন,আমেরিকার অভিবাসন দক্ষ জনশক্তির প্রতি সহানুভুতিশীল হলেও অদক্ষদের বেলায় খুবই রুঢ়।

আবার অর্থনীতির প্রয়োজনেই প্রতিবেশি দেশ থেকে লোকা আসার পথ বন্ধ করেও দেয় না। এই সব কারনেই আমেরিকায় ’আনডুকমেন্টেড’ জনগোষ্ঠী এতো বেশি।তিনি আমেরিকার অভিবাসনকে অর্থনৈতিক কর্মসূচী হিসেবে ঢেলে সাজনোর পরামর্শ দেন।
 
নিউইয়র্কের ইমিগ্রেশন এটর্নী মৌমিতা রহমানও আমেরিকার অভিবাসন পদ্ধতি অতিমাত্রায় রাজনীতি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত বলে মত দেন। তিনি বলেন, অভিবাসন সংক্রান্ত প্রতিটি আইনই হয়েছে রাজনীতির কারনে এবং  রাজনৈতিক উদ্দেশ্য পূরনের জন্য।অপছন্দের লোকদের আমেরিকার বাইরে রাখার লক্ষ্য নিয়েই দেশটির অভিবাসন নীতি ও কাঠামো সাজানো হয়। 

এটর্নী মৌমিতা রহমান বলেন, আমেরিকায় সবসময়ই অভিবাসন বিরোধী  মনোভাব ছিলো। গত চার বছরে তা অনেক বেড়েছে।অভিবাসন বিরোধী মনোভাবের কারনে এই সময়ে বিশ্বের অনেক দেশে আমেরিকার কনস্যুলার সেবা, ভিসা দেয়া সংক্রান্ত কাজ কর্ম গুটিয়ে ফেলেছে।বিভিন্ন দেশ থেকে আমেরিকায় লোক আসা নিয়ন্ত্রণ করতে ট্রাম্প প্রশাসন এসব করেছে। 

প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের অভিবাসন সংস্কার নীতিকে অভিবাসন এবং অবৈধদের বৈধতা পাওয়ার সহজ পথ হিসেবে অভিহিত করে তিনি বলেন, বাইডেনের প্রস্তাবনায় অবৈধদের বৈতা পাওয়ার আবেদন করার ক্ষেত্রে কঠিন কোনো পূর্ব শর্ত রাখা হয়নি।  

তবে আমেরিকার বিভিন্ন ইমিগ্রেশন কোর্টে দায়িত্বে থাকা ট্রাম্প আমলে নিয়োগ পাওয়া  ইমিগ্রেশন বিচারকদের  কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ট্রাম্পের সময় বিভিন্ন পেশা থেকে বিশেষ করে আইন শৃংখলা বাহিনী,সেনাবাহিনী  থেকে অনেককে ইমিগ্রেশন কোর্টে নিয়োগ  দেয়া হয়েছে।এদের অধিকাংশই ইমিগ্রেশন বিরোধী। 

তাদের অভিবাসন বিরোধী  মনোভাব রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন নিষ্পত্তিতে প্রভাব পরতে পারে বলে তিনি আশংকা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, অভিবাসীদের প্রতি প্রেসিডেন্টের মনোভাব সামগ্রিকভাবে অভিবাসন সংক্রান্ত কাজে প্রভাব ফেলে।

প্রেসিডেন্ট বাইডেন নিজে যেহেতু নিজেকে অভিবাসী বান্ধব হিসেবে উপস্থাপন করছেন, প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ে তার একটি ইতিবাচক ছাপ পরবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

news24bd.tv/আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সৌদিতে রোজা শুরু মঙ্গলবার

নিজস্ব প্রতিবেদক

সৌদিতে রোজা শুরু মঙ্গলবার

রোববার সৌদি আরবের আকাশে মাহে রমজানের চাঁদ দেখা যায়নি। এতে করে আগামী মঙ্গলবার থেকে দেশটিতে পবিত্র মাহে রমজান শুরু হচ্ছে।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের ইংরেজি দৈনিক খালিজ টাইমস এ খবর জানিয়েছে।

খবরে বলা হয়, রোববার সন্ধ্যায় দেশটির চাঁদ দেখা কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠক শেষে বলা হয় সৌদি আরবের আকাশে আজ রোববার মাহে রমজানের চাঁদ দেখা যায়নি। আগামীকাল ১২ এপ্রিল ৩০ দিন পূর্ণ হবে শাবান মাসের। অর্থাৎ আগামী মঙ্গলবার থেকে সৌদি আরবে শুরু হবে মাহে রমজান।


খালেদা জিয়ার জন্য আইসিইউসহ কেবিন বুকিং দেওয়া হয়েছে, জানালেন ব্যক্তিগত চিকিৎসক

মাওলানা রফিকুল মাদানীর নামে আরেকটি মামলা, আনা হলো যেসব অভিযোগ

দেশে করোনায় সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড

দেশে নতুন করে করোনা শনাক্ত ৫ হাজার ৮১৯ জন


এতে আরও বলা হয়েছে, মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সৌদি আরবের মতো সংযুক্ত আরব আমিরাত, কুয়েত, ওমান, মিসর, মালয়েশিয়া, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া এবং সিঙ্গাপুরেও মঙ্গলবার থেকে রোজা শুরু হবে।

সাধারণত সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর একদিন পর বাংলাদেশের আকাশে চাঁদ দেখা যায়। ফলে বাংলাদেশে রোজা ও ঈদ পালন হয় মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর পরদিনই।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বৈধ কাগজপত্র না থাকায় মালয়েশিয়ায় ১৯১ বাংলাদেশি আটক

অনলাইন ডেস্ক

বৈধ কাগজপত্র না থাকায় মালয়েশিয়ায় ১৯১ বাংলাদেশি আটক

বৈধ কাগজপত্র না থাকায় মালয়েশিয়ায়  রাজধানী কুয়ালালামপুরের স্তেপাকের নির্মাণাধীন একটি অ্যাপার্টমেন্টে অভিযান চালিয়ে ২৬৯ বিদেশিকে আটক করেছে দেশটির অভিবাসন পুলিশ। তাদের মধ্যে ১৯১ জন বাংলাদেশি, ইন্দোনেশিয়ান ৪৪ পুরুষ ও ১৩ নারী, মিয়ানমারের ১৮ পুরুষ ও একজন নারী। এ ছাড়া ভিয়েতনামের দুজন নারী রয়েছেন। তাদের বেশির ভাগই ওই নির্মাণস্থলে কর্মরত ছিলেন।

স্থানীয় সময় বুধবার দুপুরে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

এ অভিযানে পুলিশ, জাতীয় নিবন্ধন বিভাগ, সিভিল ডিফেন্স ফোর্স এবং শ্রম বিভাগের প্রায় ১২০ জন কর্মকর্তা ও কর্মী এ সমন্বিতভাবে অভিযান পরিচালনা করেন।

আটকদের বিরুদ্ধে অভিবাসন আইন ১৯৫৯/৬৩ এর ধারা ৬(১)(গ) এবং ১৫(১)(গ) এবং অভিবাসন বিধিমালা ১৯৬৩ এর রেগুলেশন ৩৯(বি) এর অধীনে তদন্ত করা হবে।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

টেক্সাসেই দাফন হবে পুরো পরিবারের লাশ

অনলাইন ডেস্ক

টেক্সাসেই দাফন হবে পুরো পরিবারের লাশ

৫ এপ্রিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের ডালাস শহরের উপকণ্ঠের একটি বাড়ি থেকে একই পরিবারের ৬ বাংলাদেশির মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের অ্যালেন শহরে সেই বাংলাদেশি পরিবারের ৬ সদস্যের লাশ আগামীকাল বৃহস্পতিবার দাফন করা হতে পারে। বাংলাদেশি অ্যাসোসিয়েশন অব নর্থ টেক্সাস ছয়জনের লাশ দাফনের ব্যবস্থা করছে। 

মারা যাওয়া ব্যক্তিরা হলেন- যমজ ভাই-বোন ফারহান তৌহিদ ও ফারবিন তৌহিদ, বড় ভাই তানভীর তৌহিদ, মা আইরিন ইসলাম, বাবা তৌহিদুল ইসলাম, তানভীর তৌহিদের নানি আলতাফুন্নেসা। বাবা-মা, বোন ও নানিকে হত্যার পর দুই ভাই আত্মহত্যা করেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে পুলিশ।

ছয়জনের মধ্যে দুজনের মরদেহ স্থানীয় সময় গতকাল মঙ্গলবার স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করেছে অ্যালেন নগরীর পুলিশ। বাকি চারজনের মরদেহ সব প্রক্রিয়া শেষ করে আজ বুধবার হস্তান্তর করা হবে বলে জানানো হয়েছে। 


‘শিশু বক্তা’ কে মুক্তি না দিলে কঠোর কর্মসূচির হুঁশিয়ারি

'শিশুবক্তা' রফিকুল ইসলাম আটক

'শিশুবক্তা' রফিকুল ইসলামের মুক্তির দাবি জানাল মাওলানা মামুনুল হক

নিষ্কৃতি দেওয়ায় আমি সত্যিই আনন্দিত


 

অ্যাসোসিয়েশন অব নর্থ টেক্সাস এর প্রেসিডেন্ট হাশমত মোবীন গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, নিহত তৌহিদুল ইসলামের ভাই ও আইরিন ইসলামের ভাই টেক্সাসে এসেছেন। পরিস্থিতি বিবেচনায় জানাজা ও দাফনের সময়ে পরিবর্তন আনা হয়েছে। পরিবর্তিত সময়সূচি অনুযায়ী, অ্যালেন শহরের যে মসজিদে পরিবারটির সদস্যরা যেতেন, সেখানেই তাদের জানাজা হবে। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার জোহরের নামাজের পর ছয়জনের জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। জানাজা শেষে পার্শ্ববর্তী ডেন্টন শহরের মুসলিম কবরস্থানে তাদের দাফন করা হবে।

জানা গেছে নিহতদের সবার বাড়ি পাবনা জেলার দোহারপাড়ায়।এমন ঘটনায় গ্রামের বাড়িতে চলছে শোকের মাতম। স্বজনরা কিছুতেই এ অস্বাভাবিক মৃত্যু মেনে নিতে পারছেন না।

নিহতদের স্বজনরা বাংলাদেশের সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন, অন্ততপক্ষে নিহতদের দাফন যেন দেশের মাটিতে করার ব্যবস্থা করা হয়।তবে এ প্রক্রিয়ার সেটি সম্ভব নাও হতে পারে।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বইয়ের পাতায় হার না মানা মালয়েশিয়া প্রবাসী পাভেল

অনলাইন ডেস্ক

বইয়ের পাতায় হার না মানা মালয়েশিয়া প্রবাসী পাভেল

‘হার না মানা ১০০ তরুণের গল্প’ বইয়ে স্থান পেলেন মালয়েশিয়া প্রবাসী পাভেল সারওয়ার। এছাড়া তার স্ত্রী সুমাইয়া জাফরিন চৌধুরীর গল্পও প্রকাশিত হয়েছে।

তথ্য প্রযুক্তি ও সামাজিক উদ্যোক্তা পাভেল সারওয়ারের গল্পে ফুটে উঠেছে কীভাবে ময়মনসিংহের অজপাড়া গাঁয়ে জন্ম ও বেড়ে উঠে আজ বিশ্বের দরবারে বাংলাদেশের সুনাম বৃদ্ধি করছেন। কীভাবে তার তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর বিভিন্ন সামাজিক সমস্যা সমাধানের উদ্ভাবন দিয়ে মালয়েশিয়া প্রবাসীদের একজন পরিচিত মুখ হয়ে উঠেছেন।

উদ্যমী তরুণদের জীবনের গল্প নিয়ে লেখক মাহবুব নাহিদের সম্পাদনায় ‘হার না মানা ১০০ তরুণের গল্প’ বইটি প্রকাশিত হয়েছে। প্রকাশ করেছে দাঁড়িকমা প্রকাশনী।

আরও পড়ুন


নড়াইলে কৃষকলীগ নেতাকে গুলি, অস্ত্রসহ আটক ২ তরুণ

ভাসানটেকে উদ্ধার লাশ নারী যৌনকর্মীর

সাধারণ রোগীদের জায়গা নেই সরকারি হাসপাতালে

ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে দেশের পুঁজিবাজার


যারা বিভিন্ন সংগঠক, উদ্যোক্তা, শিক্ষা উদ্যোক্তা, স্বাস্থ্য উদ্যোক্তা, কর্পোরেট উদ্যোক্তা, পত্রিকার সম্পাদক বা সাংবাদিকতা কিংবা লেখালেখিতে নিজেদের অবস্থান শক্ত করেছেন, কঠিন সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে নিজের বলার মতো একটা গল্প তৈরি করেছেন, যে গল্প অনুপ্রাণিত করবে, সাহস দিবে, নতুনদের চলার পথের উপজীব্য হয়ে উঠবে এমন ১০০ জন তরুণের গল্প বইটিতে স্থান পেয়েছে। ২ এপ্রিল বইমেলায় এর মোড়ক উন্মোচিত হয়।

বইমেলায় দাঁড়িকমা প্রকাশনীর স্টলের পাশাপাশি রকমারি ডট কম থেকেও বইটি পাওয়া যাচ্ছে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

কানাডায় করোনার প্রকোপ বৃদ্ধি, মৃত্যু ২৩ হাজার ছাড়ালো

লায়লা নুসরাত, কানাডা থেকে

কানাডায় করোনার প্রকোপ বৃদ্ধি, মৃত্যু ২৩ হাজার ছাড়ালো

কানাডাতেও আবারও নতুন করে করোনার প্রকোপ বৃদ্ধি পেয়েছে। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ গেছে ২৩ হাজার ১৪১ জনের। 

কানাডার প্রধান চারটি প্রদেশ ব্রিটিশ কলম্বিয়া, অন্টারিও, মন্টিয়ল এবং আলবার্টাতেও নতুন করে করোনা ভাইরাস বৃদ্ধির খবর পাওয়া গেছে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ নতুন করে সবাইকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ বিধিনিষেধ মেনে চলার জন্য গুরুত্বসহকারে পরামর্শ দিয়েছেন।

অন্যদিকে, একাধিক সূত্র কানাডার স্থানীয় গণমাধ্যম সিটিভি নিউজ টরন্টোকে নিশ্চিত করেছে যে, অন্টারিও সরকার একটি স্টে-অ্যাট-হোম অর্ডার সক্রিয়ভাবে বিবেচনা করছে, তবে আদেশটি প্রদেশব্যাপী জারি করা হবে বা অঞ্চলগতভাবে কার্যকর হবে কিনা তা স্পষ্ট নয়।

অন্টারিওতে গত পাঁচ দিনে প্রায় ১৫ হাজার নতুন কোভিড-১৯ শনাক্ত হয়েছে এবং আইসইউতেও নতুন রোগীদের চাপ বাড়ছে।

মঙ্গলবার অন্টারিও প্রদেশের প্রিমিয়ার ফোর্ড বলেন, আমরা খুব দ্রুত এগিয়ে যাওয়ার জন্য আরও বিধিনিষেধ আনতে যাচ্ছি। এবং আবারও আমরা টরন্টোর তিনটি অঞ্চল, ইয়র্ক, পিল, কোভিডের ক্ষেত্রে যেখানে ৬০ শতাংশ প্রতিনিধিত্ব করে সেখানে আমাদের দৃষ্টি নিবদ্ধ করতে হবে।


ভাসানটেকে উদ্ধার লাশ নারী যৌনকর্মীর

ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে দেশের পুঁজিবাজার

করোনায় মারা গেলেন একুশে পদকপ্রাপ্ত সংগীতশিল্পী ইন্দ্রমোহন রাজবংশী

সাধারণ রোগীদের জায়গা নেই সরকারি হাসপাতালে


অন্যদিকে, কানাডায় ভ্যাকসিন সরবরাহ নিয়ে ফেডারেল সরকারের প্রতি আবারও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অন্টারিওর প্রিমিয়ার ডগ ফোর্ড। গত সপ্তাহে ভ্যাকসিন সরবরাহে আবারও বিলম্ব হওয়ার খবর শোনার পর তিনি একে তামাশা বলে মন্তব্য করেন। সরবরাহ বিলম্বের বিষয়টি ফেডারেল এমপিদের জানাতে নাগরিকদের প্রতি আহ্বান জানান ডগ ফোর্ড। 

উল্লেখ্য, গতবছর কানাডায় সর্বপ্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয় ব্রিটিশ কলম্বিয়াতে। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, কানাডায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১০ লাখ ২০ হাজার ৮ শত ৯৩ জন, মৃত্যুবরণ করেছেন ২৩ হাজার ১৪১ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৯ লাখ ৩৭ হাজার ৪৫৬ জন। 

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর