দাতব্য কাজে বার্নি স্যান্ডার্সের মিম, আয় ১৮ লাখ ডলার

অনলাইন ডেস্ক

দাতব্য কাজে বার্নি স্যান্ডার্সের মিম, আয় ১৮ লাখ ডলার

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের অভিষেক অনুষ্ঠানে মুখে মাস্ক, গায়ে শীতের পোশাক ও হাতে উলের তৈরি গ্লাভস পরে জবুথবু হয়ে বসে ছিলেন সিনেটর বার্নি স্যান্ডার্স।

আর সেই ছবিটি তোলেন এএফপির ফটোগ্রাফার ব্রেনড্যান মিয়ালোস্কির। স্যান্ডার্সের সেই ছবিটির হাজারো মিম ছড়িয়ে পড়ে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

এই খ্যাতি কাজে লাগিয়ে ভারমন্ট অঙ্গরাজ্যের দাতব্য কাজের জন্য কাপড় বিক্রি করে ১৮ লাখ ডলার আয় করেছেন তিনি।

গত বৃহস্পতিবার অনলাইনে ছাড়ার পর ‘চেয়ারম্যান স্যান্ডার্স’ এর পণ্যগুলো ৩০ মিনিটের মধ্যে সব বিক্রি হয়ে যায়। এসবের মধ্যে ছিল সোয়েটার ও টিশার্ট। অতি চাহিদার কারণে পরবর্তী অর্ডার সরবরাহ করতে কয়েক সপ্তাহ সময় লেগে যাবে।

এক বিবৃতিতে স্যান্ডার্স বলেন, "গত এক সপ্তাহ ধরে অনেক মানুষের এত সৃজনশীলতা দেখে আমি ও জেইন (বার্নি স্যান্ডার্সের স্ত্রী) অভিভূত। আমরা আনন্দিত যে ভারমন্টের প্রয়োজনে আমার ইন্টারনেট জনপ্রিয়তা কাজে লাগানো যাবে।"

স্যান্ডার্স আরও বলেন, ‘গ্রেট ডিপ্রেশনের পর এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বড় সঙ্কটের মধ্যে ভারমন্ট ও সারা দেশের খেটে খাওয়া মানুষ যেন পর্যাপ্ত ত্রাণ পায় সেজন্য ওয়াশিংটনে যা যা করা সম্ভব আমি করব।’

স্যান্ডার্সের অফিস জানিয়েছে, কাপড় ও স্টিকারে ছাপানোর জন্য আমেরিকায় এএফপির ছবি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান গেটি ইমেজের সঙ্গে যে লাইসেন্স করা হয়েছে, সেই অর্থ গেটি ইমেজ মিলস অন হুইলস প্রকল্পে দান করবে।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বাংলাদেশের গরীব মানুষ এখনো খেতে পাচ্ছে না: অমিত শাহ

অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশের গরীব মানুষ এখনো খেতে পাচ্ছে না: অমিত শাহ

বাংলাদেশের গরীব মানুষ এখনও খেতে পাচ্ছে না বলে মন্তব্য করেছেন বিজেপির সাবেক সভাপতি ও ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজারকে এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ক্ষমতায় এসে পশ্চিমবঙ্গে অনুপ্রবেশ বন্ধ করবে বিজেপি।

বাংলাদেশের আর্থিক উন্নয়ন হওয়ার পরেও লোকে কেন পশ্চিমবঙ্গে প্রবেশ করছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এর দুটো কারণ আছে। এক, বাংলাদেশের উন্নয়ন সীমান্ত এলাকায় নিচুতলায় পৌঁছায়নি। যে কোনও পিছিয়ে পড়া দেশে উন্নয়ন হতে শুরু করলে সেটা প্রথম কেন্দ্রে হয়। আর তার সুফল প্রথমে বড়লোকদের কাছে পৌঁছায়। গরিবদের কাছে নয়। এখন বাংলাদেশে সেই প্রক্রিয়া চলছে। ফলে গরিব মানুষ এখনও খেতে পাচ্ছে না। সে কারণেই অনুপ্রবেশ চলছে। আর যারা অনুপ্রবেশকারী, তারা যে শুধু বাংলাতেই থাকছে, তা নয়। তারা তো ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে ছড়িয়ে পড়ছে। জম্মু-কাশ্মীর পর্যন্ত পৌঁছে যাচ্ছে।


আরও পড়ুনঃ


যেভাবে পাওয়া যাবে ‘লকডাউন মুভমেন্ট পাস’

চীনে সন্তান নেয়ার প্রবণতা কমছে, কমছে জন্মহার

কুমারীত্ব পরীক্ষায় 'ফেল' করায় নববধূকে বিবাহবিচ্ছেদের নির্দেশ

বাদশাহ সালমানের নির্দেশে সৌদিতে কমছে তারাবির রাকাত সংখ্যা


অমিত শাহের মতে, দ্বিতীয় কারণটি হলো প্রশাসনিক সমস্যা। তিনি বলেন, প্রশাসনিকভাবেই এর মোকাবিলা করতে হবে। সেটা পশ্চিমবঙ্গের সরকার করেনি।

উল্লেখ্য, ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে সরকার গড়তে জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে বিজেপি। তৃণমূল কংগ্রেসকে হটিয়ে পশ্চিমবঙ্গে ২০০র বেশি আসন পেয়ে সরকার গড়তে চায় তারা। ক্ষমতা এসেই তারা পশ্চিমবঙ্গে অনুপ্রবেশ বন্ধ করবে বলে ঘোষণা দিয়েছে।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

রেকর্ড সংখ্যক যুদ্ধবিমান নিয়ে তাইওয়ানের আকাশে চীন

অনলাইন ডেস্ক

রেকর্ড সংখ্যক যুদ্ধবিমান নিয়ে তাইওয়ানের আকাশে চীন

রেকর্ড সংখ্যক যুদ্ধবিমান নিয়ে তাইওয়ানের আকাশে মহড়া দিয়েছে চীন। সোমবার (১২ এপ্রিল) দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে এমন অভিযোগ করা হয়েছে।

তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানায়, তথাকথিত বিমান প্রতিরক্ষা শনাক্তকরণ অঞ্চলে (এডিআইজেড) সোমবার পারমাণবিক বোমারু বিমানসহ ২৫টি জঙ্গি বিমান ওড়ায় চীন।

এই মহড়া চলতি বছরের সবচেয়ে আক্রমণাত্মক ও বৃহৎ বলে জানিয়েছে তাইওয়ান। তাইওয়ান ইস্যুতে চীন ক্রমেই আগ্রাসী হয়ে উঠছে যুক্তরাষ্ট্রের এমন মন্তব্যের পরপরই এই মহড়া চালালো চীন।


আরও পড়ুনঃ


করোনা আক্রান্ত প্রতি তিনজনের একজন মস্তিষ্কের সমস্যায় ভুগছেন: গবেষণা

চীনে সন্তান নেয়ার প্রবণতা কমছে, কমছে জন্মহার

কুমারীত্ব পরীক্ষায় 'ফেল' করায় নববধূকে বিবাহবিচ্ছেদের নির্দেশ

বাদশাহ সালমানের নির্দেশে সৌদিতে কমছে তারাবির রাকাত সংখ্যা


চীন বরাবরই তাইওয়ানকে একটি বিচ্ছিন্ন প্রদেশ হিসাবে দেখে আসলেও তাইওয়ান নিজেকে সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে ঘোষণা করেছে।

মহড়ায় ছিল ১৮টি জঙ্গিবিমান, ৪টি আনবিক অস্ত্র বহনকারী বোমারু বিমান এবং দুটি সাবমেরিন বিধ্বংসী এয়ারক্রাফট ছিলো বলে জানায় তাইওয়ান।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সাগরে ১০ লাখ টন দূষিত পানি ফেলার সিদ্ধান্ত জাপানের

অনলাইন ডেস্ক

সাগরে ১০ লাখ টন দূষিত পানি ফেলার সিদ্ধান্ত জাপানের

ফুকুশিমা পারমাণবিক শক্তি কেন্দ্র থেকে ১০ লাখ টন দূষিত পানি সাগরে ফেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জাপান। আগামী দুই বছরের মধ্যে এই দূষিত পানি নির্গমন প্রক্রিয়া শুরু হওয়ার কথা রয়েছে।

বিষয়টির দায়িত্ব পালন করবে পারমাণবিক শক্তি কেন্দ্রটি পরিচালনার দায়িত্বে থাকা টোকিও ইলেক্ট্রিক পাওয়ার। এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়িত হলে মৎস্য সম্পদের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

এ বিষয়ে জাপান সরকারের দেয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়, নিয়ন্ত্রক মানদণ্ডের পরিপ্রেক্ষিতে আসা পরামর্শের পরিপ্রেক্ষিতে সমুদ্রে (পানি) নির্গমনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

৫০০টি প্রমাণ আকৃতির সুইমিং পুলের সমপরিমাণ এই পানিকে বিশুদ্ধিকরণ করা হয়েছে। তবে এর মধ্য থেকে ক্ষতিকর আইসোটোপ সরানোর জন্য পুনরায় ফিল্টার করার প্রয়োজন।


আরও পড়ুনঃ


করোনা আক্রান্ত প্রতি তিনজনের একজন মস্তিষ্কের সমস্যায় ভুগছেন: গবেষণা

চীনে সন্তান নেয়ার প্রবণতা কমছে, কমছে জন্মহার

কুমারীত্ব পরীক্ষায় 'ফেল' করায় নববধূকে বিবাহবিচ্ছেদের নির্দেশ

বাদশাহ সালমানের নির্দেশে সৌদিতে কমছে তারাবির রাকাত সংখ্যা


এছাড়া আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুযায়ী এই বিপুল পরিমাণ পানিকে বিশেষ প্রক্রিয়াকরণের মধ্য দিয়ে যেতে হবে।

বিষয়টির তাৎক্ষণিক ও তীব্র নিন্দা জানিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

‘দ্রুত মার্কিন সেনা বহিষ্কার ইরাকে স্থিতিশীলতা ফিরবে’

অনলাইন ডেস্ক

‘দ্রুত মার্কিন সেনা বহিষ্কার ইরাকে স্থিতিশীলতা ফিরবে’

ইরাক থেকে দ্রুত মার্কিন সেনা বহিষ্কার করা হলে তাতে দেশটিতে স্থিতিশীলতা ফিরে আসবে বলে জানিয়েছেন ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের সর্বোচ্চ জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের সচিব আলী শামখানি।

এসময় তিনি বলেন, মার্কিন সেনা বহিষ্কারের ব্যাপারে ইরাকের জাতীয় সংসদে যে বিল পাস হয়েছে তা দ্রুত বাস্তবায়ন করলে দেশটিতে রাজনৈতিক প্রক্রিয়া সহজ ও দ্রুততর হবে।

গতকাল ইরান সফররত ইরাকের জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের উপদেষ্টা কাসিম আল-আরাজির সঙ্গে তেহরানে বৈঠকের সময় এসব কথা বলেন আলী শামখানি।

আরও পড়ুন


হবিগঞ্জ হার্ট ফাউন্ডেশনের আজীবন সদস্য হলেন কানাডা প্রবাসী মাহমুদ

মামুনুলকে নিয়ে ফেসবুকে পোস্ট, আ. লীগের ২ পক্ষের সংঘর্ষ

বৈশাখে মঙ্গল শোভাযাত্রা ও গণজমায়েত না করার নির্দেশ

তারাবির নামাজ নিয়ে নতুন নির্দেশনা


তিনি আরও বলেন, ইরাকে নিরাপত্তাহীনতা ও অস্থিতিশীলতা সৃষ্টির মূল কারণ মার্কিন সেনাদের উপস্থিতি। তারাই মধ্যপ্রাচ্য অঞ্চলে সঙ্ঘবদ্ধ সন্ত্রাসবাদ চালায়। ইরানের ইসলামী বিপ্লব গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি'র কুদস ফোর্সের সাবেক কমান্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল কাসেম সোলাইমানি এবং ইরাকের জনপ্রিয় স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন হাশদ আশ-শাবির সেকেন্ড-ইন-কমান্ড আবু মাহাদি আল-মুহান্দিসকে হত্যার মাধ্যমে মার্কিন সেনারা পরিষ্কার করে দিয়েছে যে, আমেরিকাই উগ্র তাকফিরি সন্ত্রাসবাদকে উসকে দিচ্ছে।

সন্ত্রাসবাদ-বিরোধী এই দুই কমান্ডারকে হত্যার পর ইরাকে মার্কিন বিরোধী মনোভাব তুঙ্গে উঠেছে। সূত্র: পার্সটুডে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

জিবুতিতে নৌকাডুবি, নিহত ৩৪

অনলাইন ডেস্ক

জিবুতিতে নৌকাডুবি, নিহত ৩৪

আফ্রিকার দেশ জিবুতিতে নৌকা ডুবে ৩৪ অভিবাসন প্রত্যাশীর মৃত্যু হয়েছে। দেশটির এডেন সাগরে উপকূল সংলগ্ন এলাকায় সোমবার (১২ এপ্রিল) এই ঘটনা ঘটে।

অভিবাসন বিষয়ক আন্তর্জাতিক সংস্থা (আইওএম) বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

এক টুইট বার্তায় আইওএম জানিয়েছে, চোরাকারবারিদের নিয়ন্ত্রণাধীন নৌকাটিতে ৬০ জন যাত্রী ছিল। তাদের নিয়ে এডেন উপসাগরের জিবুতি সংলগ্ন উপকূলে ডুবে যায়। তাতে ৩৪ জন নিহত হয়। তবে সংস্থাটি বিস্তারিত তথ্য জানায়নি।


আরও পড়ুনঃ


বাংলাদেশের জিহাদি সমাজে 'তসলিমা নাসরিন' একটি গালির নাম

করোনা আক্রান্ত প্রতি তিনজনের একজন মস্তিষ্কের সমস্যায় ভুগছেন: গবেষণা

কুমারীত্ব পরীক্ষায় 'ফেল' করায় নববধূকে বিবাহবিচ্ছেদের নির্দেশ

বাদশাহ সালমানের নির্দেশে সৌদিতে কমছে তারাবির রাকাত সংখ্যা


বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, করোনাভাইরাস সংক্রান্ত বিধিনিষেধ ও কড়াকড়ির কারণে তারা সৌদি আরবে প্রবেশে ব্যর্থ হয়ে তারা ইয়েমেনে আটকে পড়ে। সেখান থেকে ফেরার পথেই নৌকাডুবির ঘটনা ঘটে।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর