পোল্যান্ডে গর্ভপাত নিষিদ্ধ, দেশজুড়ে বিক্ষোভ

অনলাইন ডেস্ক

পোল্যান্ডে গর্ভপাত নিষিদ্ধ, দেশজুড়ে বিক্ষোভ

ধর্ষণ বা, মায়ের প্রাণহানির মতো গুরুতর ঘটনা ব্যতীত গর্ভপাত করানো যাবে না। গত ২৭ জানুয়ারি এমন আইন প্রণয়নের পর থেকেই দেশজুড়ে বিক্ষোভের মুখে পড়েছে পোল্যান্ড সরকার।

নিউ ইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনে জানা যায়, এই আইন পাশের পরপরই পোল্যান্ডের রাজধানী ওয়ারশসহ অন্যান্য শহরে শুরু হয়েছে বিক্ষোভ। বিক্ষোভকারীদের দাবি গর্ভপাতের সিদ্ধান্ত ব্যক্তিগত হওয়া উচিত। কোনোভাবেই রাষ্ট্র এতে হস্তক্ষেপ করতে পারে না। কোনো দম্পতি বা বাবা-মা যদি গর্ভপাত করাতে চান, তবে সেই অধিকার তাদের থাকা উচিত।

প্রতিবাদকারীদের শ্লোগান ছিলো, আই থিংক, আই ফিল, আই ডিসাইড। অর্থাৎ আমি ভাববো, আমি অনুভব করবো, আমিই সিদ্ধান্ত নেব।

তবে এই বিক্ষোভের পর কিছুটা নরম হয়েছে সে দেশের সরকার। সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, গর্ভস্থ ভ্রূণ যদি অসুস্থ হয়, তবে গর্ভপাত করানো অসাংবিধানিক। সেক্ষেত্রে মায়ের প্রাণ সংশয়কে গুরুত্ব দিতে হবে ও পরিস্থিতি বিচার করতে হবে।

পোল্যান্ডের মানবাধিকার কমিশনও গর্ভপাত আইনের বিরোধিতা করেছে। তাদের মতে, সরকার নারীবিরোধী। এটা এক ধরনের অত্যাচার। নারীদের অবদমন করার জন্যই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।


রাতে কলা খেলে ঘুম ভালো হয়

ট্রাম্প ছয় মাস পর বিদায় নিলে বিচারের ফলটা ভিন্ন হতো: বাইডেন

দাতব্য কাজে বার্নি স্যান্ডার্সের মিম, আয় ১৮ লাখ ডলার

তান্ত্রিকের পরামর্শে মা-বাবার হাতে খুন দুই কন্যা


পোল্যান্ডের বিরোধী দলগুলোও সরকারের এই সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে। বাম দলের নেত্রী ওয়ান্ডা নোওইকা জানান, নারীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে রাষ্ট্র। কোনোদিন সেই যুদ্ধে জিততে পারবে না সরকার।

 news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

‘ফ্রান্সের অস্ত্র বিক্রির কারণে বিপর্যস্ত ইয়েমেন’

অনলাইন ডেস্ক

‘ফ্রান্সের অস্ত্র বিক্রির কারণে বিপর্যস্ত ইয়েমেন’

ফ্রান্স এবং তার মিত্র দেশগুলো সৌদি আরবের কাছে অস্ত্র বিক্রি করার কারণে ইয়েমেন এখন বিশ্বের সবচেয়ে মানবিক সংকটাপন্ন ও বিপর্যস্ত একটি জনপদে পরিণত হয়েছে।

জেনেভায় জাতিসংঘের ইরানি মিশনে নিযুক্ত মানবাধিকার বিষয়ক কর্মকর্তা মোহাম্মাদ সাদাতি নেজাদ গতকাল বৃহস্পতিবার এ কথা বলেছেন। এ কূটনীতিক বলেন, ইয়ামানের এই বিপর্যয়ের জন্য যারা দায়ী তাদের মুখে নীতি-নৈতিকতার কথা মানায় না।

এর আগে গত বুধবার ফ্রান্সের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জ্যঁ-ইভস লা দ্রিয়াঁ মানবাধিকার পরিষদে দেয়া বক্তৃতায় মানবাধিকার লঙ্ঘনের ইরানকে অভিযুক্ত করেছেন। ইরানে আটক ফ্রান্সের দ্বৈত নাগরিক ফারিবা আদেলখার মুক্তিও দাবি করেছেন তিনি।

আরও পড়ুন:


বরিশালে ট্রাক চাপায় মোটরসাইকেলের দুই আরোহী নিহত

লেখক সৈয়দ আবুল মকসুদের রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া কাল

কারাগারে লেখক মুশতাকের মৃত্যুর ঘটনায় টরন্টো সংস্কৃতিকর্মীদের প্রতিবাদ

কানাডা ইমিগ্রেশনের মনগড়া তথ্য দিয়ে প্রতারণা, সতর্কতার পরামর্শ


২০১৯ সালে ৬০ বছর বয়সী আদেলখাকে ইরানে গুপ্তচরবৃত্তির দায়ে আটক করা হয়। ফ্রান্সের অভিযোগ নাকচ করে ইরানের কূটনীতিক মোহাম্মদ সাদাতি বলেন, মানবাধিকার ইস্যুতে ফ্রান্স এমন কোনো অবস্থান নেই যে, তারা ইরানের সমালোচনা করতে পারে। আমেরিকা, ব্রিটেন, কানাডা, ফ্রান্স এবং জার্মানি ইয়েমেনকে বিশ্বের সবচেয়ে মানবিক বিপর্যয়ের দেশে পরিণত করেছে। তারা সেখানে রীতিমতো যুদ্ধাপরাধ করেছে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ইন্দোনেশিয়ায় স্বর্ণখনিতে ধ্বস, নিহত ৬

অনলাইন ডেস্ক

ইন্দোনেশিয়ায় স্বর্ণখনিতে ধ্বস, নিহত ৬

ইন্দোনেশিয়ার সুলাওসি দ্বীপের একটি ‘অবৈধ’ স্বর্ণ খনিতে ভয়াবহ ধ্বসের ঘটনা ঘটেছে। এতে এখন পর্যন্ত ৬ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। এছাড়া ধ্বংস্তুপ থেকে ১৬ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে।

গত বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় এই ঘটনা ঘটে। এই দুর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় অবৈধ খনি ধসের ঘটনা প্রায়ই ঘটে। গত বছরও সুমাত্রা দ্বীপে ভারী বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত দ্বীপের স্বর্ণখনিতে ভূমিধসে প্রাণহানি হয়েছিল।


বাইডেনের নির্দেশে সিরিয়ায় বিমান হামলা

বস্তিবাসীকে না জানিয়েই ভ্যাকসিনের ট্রায়াল

‘তুমি’ বলায় মারামারি, প্রাণ গেল একজনের

৭ সন্তান নিতে স্বেচ্ছায় দেড় লাখ ডলার জরিমানা গুনলেন চীনা দম্পতি


স্থানীয় অনুসন্ধান এবং উদ্ধারবিষয়ক সংস্থার প্রধান অ্যান্ড্রিয়াস হেন্ডরিক জোহানেস জানান, 'বুধবার গভীর রাতে মধ্য সুলাওয়েসী প্রদেশের পরিগি মৌতং জেলায় একটি খনিতে ধস নামে। এতে ২৩ জন আটকা পড়ে বলে অনুমান করা হয়েছিল। উদ্ধারকর্মীরা ১৬ জনকে উদ্ধার করেছে। এদের মধ্যে চারজন নারী ও দুজন পুরুষের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এখনো সেখানে উদ্ধার অভিযান চলছে।'

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

কিংবদন্তি বক্সার মাইক টাইসন এখন সেরা গাঁজা চাষি!

অনলাইন ডেস্ক

কিংবদন্তি বক্সার মাইক টাইসন এখন সেরা গাঁজা চাষি!

সাবেক মার্কিন বক্সার মাইক টাইসন ক্যারিয়ারে আয় করেছিলেন ৫৮ কোটি ৪০ লাখ ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় ৪ হাজার ৯৫০ কোটি টাকারও বেশি। কিন্তু ভাগ্যর কি নির্মম পরিহাস। কোটিপতি থেকে থেকেই এক সময় তিনি দেউলিয়া হতে বসেছিলেন। কিন্তু সে অবস্থা থেকে আবার ঘুরে দাঁড়িয়েছেন টাইসন। আবারও বিপুল অংকের আয় করতে শুরু করেছেন তিনি। হেভিওয়েট বক্সিংয়ে সর্বকালের অন্যতম সেরা টাইসনের অবসরের পর শুরু করা ব্যবসা নিয়ে অনেক জল্পনা-কল্পনা ছিল। 

না, আবার বক্সিংয়ের কোর্টে নয়। এবার টাইসনের আয়ের পন্থাটি একটু ‘ভিন্ন’। সাবেক এই বক্সার এখন পুরোদস্তুর গাঁজাচাষি ও ব্যবসায়ী। গাঁজা বেচেই মাসে পাঁচ লাখ ডলার অর্থাৎ সোয়া ৪ কোটি টাকার বেশি আয় তার।

ক্যারিয়ারের বিভিন্ন সময় ধর্ষণ, মাদকসহ নানা অভিযোগ ওঠে টাইসনের বিরুদ্ধে। সেজন্য দর্শকপ্রিয় ‘আয়রন মাইক’ থেকে জুটেছিল ‘দ্য ব্যাডেস্ট ম্যান অন দ্য প্ল্যানেট’ কুখ্যাতি।


কার সাথে কার পরকিয়া তা চিন্তা করে মাথা নষ্ট করবেন না : আঁখি আলমগীর

নাসির প্রেমিক না আমার বন্ধু : মডেল মিম

আমার বয়ফ্রেন্ড নিয়ে আমিও মজায় আছি : নাসিরের সাবেক প্রেমিকা

তামিমার সাবেক স্বামীকে বাটপার বলছে মিম


টাইসন প্রতিষ্ঠিত গাঁজা চাষের কোম্পানির নাম ‘টাইসন র‍্যাঞ্চ’। এবার আর বেআইনি কিছু করছেন না তিনি। কারণ ১৬ হেক্টর জমির ওপর গড়ে ওঠা গাঁজার ফার্মটি যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায়। এই রাজ্যে গাঁজার ব্যবহার বৈধ।

২০১৬ সালের নভেম্বর থেকে ২১ বছরের বেশি বয়সীদের জন্য ক্যালিফোর্নিয়ায় গাঁজার বৈধতা দেয়া হয়। শুধু ব্যবসাই নয়। মন চাইলে নিজের ফার্মে উৎপাদিত ফসল পরখ করতেও ভুল করেন না টাইসন।

নিজের ফার্মে উৎপাদিত গাঁজার গুণে মুগ্ধ হয়ে নিজেকে টাইসন দাবি করছেন ‘সেরা গাঁজার প্রস্ততকারক’ হিসেবে।

১৯৮৬ সালে ট্রেভর বারবিককে হারিয়ে সবচেয়ে কম বয়সে হেভিওয়েট চ্যাম্পিয়নের টাইটেল নিজের করে নেন মাইক টাইসন। পেশাগত ৫৮ ফাইটিংয়ে ৫০টাই জিতেছেন এই মার্কিন তারকা। ২০০৫ সালে কেভিন ম্যাকব্রাইডের কাছে হেরে অবসরে যান তিনি।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সৌদি যুবরাজ নিয়ন্ত্রণাধীন বিমানেই উড়ে গিয়েছিল খাশোগির হত্যাকারীরা

অনলাইন ডেস্ক

সৌদি যুবরাজ নিয়ন্ত্রণাধীন বিমানেই উড়ে গিয়েছিল খাশোগির হত্যাকারীরা

সৌদি আরবের প্রখ্যাত সাংবাদিক জামাল খাশোগির হত্যাকারী দল যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের নিয়ন্ত্রণাধীন একটি কোম্পানরি প্রাইভেট বিমানে করে তুরস্কের ইস্তাম্বুল শহর শহরে উড়ে গিয়েছিল বলে জানা গেছে সৌদি সরকারের গোপন নথি থেকে।

‘টপ সিক্রেট’ শিরোনামের এ নথিতে সৌদি আরবের একজন মন্ত্রীর সই রয়েছে। 

জানা গেছে, স্কাই প্রাইম অ্যাভিয়েশনের মালিকানা ২০১৭ সালে সৌদি আরবের সরকারি বিনিয়োগ তহবিলের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে, যাতে সার্বভৌম ৪০০ কোটি ডলারের তহবিল রয়েছে। এই কোম্পানির বিমান ২০১৮ সালের অক্টোবর মাসে খাশোগি হত্যায় ব্যবহৃত হয়েছে।


বাইডেনের নির্দেশে সিরিয়ায় বিমান হামলা

বস্তিবাসীকে না জানিয়েই ভ্যাকসিনের ট্রায়াল

‘তুমি’ বলায় মারামারি, প্রাণ গেল একজনের

৭ সন্তান নিতে স্বেচ্ছায় দেড় লাখ ডলার জরিমানা গুনলেন চীনা দম্পতি


সার্বভৌম তহবিল নিয়ন্ত্রিত হয় সৌদি রাজ পরিবারের মাধ্যমে, যার সভাপতি হলেন ৩৫ বছর বয়সী যুবরাজ মোহাম্মাদ বিন সালমান। সিএনএন বলেছে, এসব তথ্য থেকে খাশোগি হত্যায় এমবিএস’র যুক্ত থাকার প্রমাণ মেলে। এমবিএস হচ্ছে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মাদ বিন সালমানের নামের সংক্ষিপ্ত রূপ।

সূত্রঃ সিএনএন

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বস্তিবাসীকে না জানিয়েই ভ্যাকসিনের ট্রায়াল

অনলাইন ডেস্ক

বস্তিবাসীকে না জানিয়েই ভ্যাকসিনের ট্রায়াল

গত ডিসেম্বরের ঘটনা। একটি সাদা মাইক্রোবাস এসে থামে ভারতের ভোপালের এক বস্তিতে। গাড়ি থেকে মাইকিং করা হয়, করোনার ভ্যাকসিন নিলে দেয়া হবে ৭৫০ রুপি।

যা সেই বস্তির বেশিরভাগ মানুষের দৈনিক রোজগারের প্রায় দ্বিগুন। তার উপরে এই অতিমারির মধ্যে সেসময়ে অনেকের হাতেই কাজ ছিলো না। ফলে এই প্রস্তাব ফেরানো তাদের অনেকের পক্ষেই সম্ভব ছিল না।

তারা জানতো তাদেরকে করোনার ভ্যাকসিন দেয়া হয়েছে। কিন্ত আদতে যে ভ্যাকসিন দেয়ার নাম করে তাদের ওপর ভ্যাকসিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চালানো হয়েছে তা তারা জানতোই না! সিএনএন এর এক প্রতিবেদনে বিষয়টি উঠে এসেছে।

ওই বস্তিতে যারা টিকা নিয়েছিলেন তাদের মধ্যে একজন গৃহিণী যশোদা বাই যাদব। তিনি ও তার স্বামী এই ঘোষণার পর টিকা নিয়েছিলেন সেখান থেকে। তিনি বলেন, “তারা আমাদের বলেছিলো এটা করোনার ভ্যাকসিন। আমরা যাতে অসুস্থ না হই তাই এটা আমাদের নেয়া উচিত।”

বস্তিবাসী জানায়, তারা পরবর্তীতে জানতে পারে তাদের ওপর ভারতের নিজস্ব করোনার টিকা ‘কোভ্যাক্সিন’ এর ট্রায়াল চালানো হয়েছে।

তাদের ওপর ট্রায়ালের ফেজ-৩ চালানো হয়েছে। এই ধাপে অর্ধেক অংশগ্রহণকারীর শরীরে টিকা ও বাকি অর্ধেকের শরীরে প্লাসিবো দেয়া হয়।

রাধা আহেরওয়ার নামে একজন ক্ষোভ প্রকাশ করে সিএনএন-কে বলেন, “তো আমরা টিকা পেয়েছি কিনা তাও জানি না! হয়তো আমাদের শরীরে ইঞ্জেকশন দিয়ে শুধুমাত্র পানি প্রবেশ করানো হয়েছে।”


ভূতের আছর থেকে বাঁচতে পৈশাচিক কান্ড

বাইডেনের নির্দেশে সিরিয়ায় বিমান হামলা

হৃদরোগে মৃত্যুর পরও ফাঁসিতে ঝুলানো হল নিথর দেহ

৭ সন্তান নিতে স্বেচ্ছায় দেড় লাখ ডলার জরিমানা গুনলেন চীনা দম্পতি


তবে পিপল’স হাসপাতালের যে দলটি ভ্যাকসিন ট্রায়ালের দায়িত্বে ছিলো তারা হয়তো ভালোভাবে ট্রায়ালের বিষয়টি ব্যাখ্যা করতে পারে নি বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

তবে এরকমটা হয়ে থাকলে তা ট্রায়ালের শর্ত, নৈতিকতাকে এবং প্রাপ্ত তথ্যের মানকে প্রশ্নবিদ্ধ করে বলে জানিয়েছেন ইন্ডিয়ান জার্নাল অফ মেডিকেল এথিক্স এর সম্পাদক আমার জোশি।

এছাড়া এর ফলে সাধারণ মানুষের মধ্যে টিকা দিয়ে দ্বিধাকে আরো বাড়িয়ে তুলবে বলেও মনে করেন তিনি।

সূত্রঃ সিএনএন

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর