পাপলুর সাজা নিয়ে কিছুই করার নেই: বাংলাদেশ দূতাবাস

অনলাইন ডেস্ক

পাপলুর সাজা নিয়ে কিছুই করার নেই: বাংলাদেশ দূতাবাস

কুয়েত বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল (অব.) আশিকুজ্জামান। ফাইল ছবি

মানব ও অর্থপাচারের মামলায় লক্ষ্মীপুর-২ (রায়পুর) আসনের সংসদ সদস্য কাজী শহিদ ইসলাম পাপুলকে চার বছরের কারাদণ্ড ও ৫৩ কোটি টাকার বেশি জরিমানা করেছে কুয়েতের আদালত। পাপুলের সাজা কুয়েত সরকারের বিচার বিভাগের নিজস্ব ব্যাপার বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ দূতাবাস। 

কুয়েত বাংলাদেশে দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত মেজর  জেনারেল (অব.) আশিকুজ্জামান বলেন, তাদের নিজস্ব বিচার বিভাগের মাধ্যমে এ সাজা দেওয়া হয়েছে। এখানে আমাদের কিছুই করার নেই।

আর সাধারণ প্রবাসীরা বলছেন, পাপুলের এ সাজা অন্যান্য মানব পাচারকারীদের জন্য সতর্কবার্তা।

এদিকে বাংলাদেশের আইন বিশেষজ্ঞদের মতে, সংবিধানে নৈতিক স্খলনজনিত অপরাধে ন্যূনতম দুই বছর সাজায় সংসদ সদস্য পদ খারিজ হওয়ার বিধান রয়েছে। সাজা দেশে হবে, না বিদেশে, তা অস্পষ্ট। পাপুলের সাজা হয়েছে চার বছর। ফলে কুয়েতে সাজা হলেও বাংলাদেশের সংসদে পাপুলের পদ খারিজ হবে বলেই মত তাদের। এ জন্য কুয়েতের আদালতের রায়ের অনুলিপি পাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে বলেও জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।


পাপুলের সংসদ সদস্য পদ থাকবে কি?

ঘনিষ্ঠ দৃশ্যে কাজলের সাথে যা করতেন শাহরুখ

চিঠির মাধ্যমে তিউনিশিয়ার প্রেসিডেন্টকে হত্যার চেষ্টা

দুনিয়ার শ্রেষ্ঠ ‌জুমার দিনে ‘সূরা কাহাফ’ তেলাওয়াতের ফজিলত


 

কুয়েতে দন্ড হওয়ায় পাপুলের এমপি পদ থাকবে কিনা, এমন প্রশ্নে সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ বলেন, একজন সংসদ সদস্য যদি ফৌজদারি অপরাধ করেন, সাজা পৃথিবীর যেখানেই হোক, তাহলে তার এমপি পদ থাকবে না। এমপি পদ খারিজের জন্য শুধু প্রমাণ হতে হবে, তিনি ফৌজদারি অপরাধ করেছেন, সেই অপরাধের জন্য তার সাজা হয়েছে। তিনি বলেন, তবে এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অবশ্যই কুয়েতের আদালতের রায়ের অনুলিপি পাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। 

সংবিধান বিশেষজ্ঞ ড. শাহদীন মালিক বলেন, আমাদের সংবিধানে বলা আছে দুই বছরের অধিক কারাদন্ড হলে সংসদ সদস্য পদ বাতিল হয়ে যাবে। বিচার দেশীয় আইনে হতে হবে কিনা, এখানে এমন কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। আমার মত হবে, শাস্তি হওয়া, জেল খাটা কয়েদিকে তো আর কেউ এমপি হিসেবে রাখতে চাইবেন না। তিনি বলেন, এমপি পাপুলের এ বিষয়টি একেবারেই নতুন। এমন প্রশ্ন এর আগে আসেনি। আমি মনে করি, এর ব্যাখ্যা জানতে যদি আদালতে যেতে হয়, তাহলে আদালতও বলবেন, যিনি জেল খেটেছেন, তিনি খারাপ লোক। ফলে তার এমপি পদ থাকতে পারে না। জাতীয় সংসদের স্পিকার ও নির্বাচন কমিশন এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন নিশ্চয়। 

পাপুলের বিরুদ্ধে ঘুষ লেনদেনের অভিযোগের মামলার রায় হলেও এখনো মানব ও অর্থপাচারের দুটি মামলার রায় অপেক্ষমাণ রয়েছে।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

আত্মহত্যার পর স্কুলছাত্রীর আপত্তিকর ভিডিও ফাঁস, যুবক পলাতক

নিজস্ব প্রতিবেদক

আত্মহত্যার পর স্কুলছাত্রীর আপত্তিকর ভিডিও ফাঁস, যুবক পলাতক

রংপুরের বদরগঞ্জে নবম শ্রেণির এক ছাত্রীর আত্মহত্যার ঘটনা নিয়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। এ ঘটনায় কোতোয়ালি থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। ৫ জানুয়ারি মেয়েটি আত্মহত্যা করেছে বলে সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে।

বিষপানে আত্মহত্যা করে মেয়েটি। তবে সে কি কারণে আত্মহননের পথ বেছে নিলো? সেটির কারণ এখনো জানাতে পারেনি পুলিশ। তবে তার আত্মহত্যার কিছুদিন পর স্থানীয় যুবক হাফিজুর রহমানের (৩০) সঙ্গে তার একটি আপত্তিকর ভিডিও ফাঁস হয়েছে। অভিযুক্ত হাফিজুর বদরগঞ্জ উপজেলার সাবেক ইউপি সদস্য ইউনুছ আলীর ছেলে। 

ভিডিওটি এলাকায় ভাইরাল হয়েছে ১৫ দিন আগে। এর পর থেকে কিশোরীর বিধবা মা বাড়িতে নেই। তিনি কোথায় গেছেন, প্রতিবেশীরা কেউ বলতে পারছেন না।

এদিকে ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত হাফিজুর পলাতক।

স্থানীয় লোকজনের ধারণা, ১৫ বছরের ওই মেয়েটিকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে হাফিজুর রহমান। সংখ্যালঘু পরিবারের মেয়েটিকে ব্ল্যাকমেল করতেই ভিডিওটি ধারণ করা হয়। এ নিয়ে ক্ষোভ-লজ্জায় মেয়েটি আত্মহননের পথ বেছে নিতে পারে। ৪ মিনিট ২৩ সেকেন্ডের ভিডিওটিতে হাফিজুরকে দেখা যায়। অভিযোগ উঠেছে, ওই ভিডিও ধারণ করেছেন বিপুল চন্দ্র (২৬) নামের একজন। বিপুলের সঙ্গে হাফিজুরের বন্ধুত্ব আছে।

স্থানীয় লোকজন জানান, ওই কিশোরীর বাবা মারা গেছেন আট বছর আগে। তিনি দিনমজুরি করে সংসার চালাতেন। তিন বোনের মধ্যে ওই কিশোরী ছোট। বড় দুই বোনের বিয়ে হয়েছে। গত ৫ জানুয়ারি সকালে নিজ বাড়িতে কিশোরীটি বিষ পান করে। মেয়েটিকে বদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পর সেখানকার চিকিৎসকেরা তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিতে বলেন। রংপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই দিন সন্ধ্যায় সে মারা যায়।


চলন্ত বাস থেকে ফেলে দেওয়া হলো প্রতিবন্ধী নারীকে

অর্থনীতির নতুন পথ সন্ধানের এখনই সময়

৫ বছরে লাশ হয়ে দেশে ফিরেছেন ৪৮৭ নারী শ্রমিক

সন্তানদের নিয়ে রাজনীতি করবেন না : শ্রীলেখা


বদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক (আরএমও) নাজমুল হুসাইন বলেন, ‘বিষ পান করলে কিশোরীটিকে আমাদের হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে শুনেছি মেয়েটি সেখানে মারা গেছে।’

সরেজমিনে জানা যায়, ভিডিওটি এলাকায় ভাইরাল হয়েছে ১৫ দিন আগে। এর পর থেকে কিশোরীর বিধবা মা বাড়িতে নেই। তিনি কোথায় গেছেন, প্রতিবেশীরা কেউ তা জানেন না। বাড়িতে তালা ঝুলছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এলাকার দুই ব্যক্তি অভিযোগ করেন, হাফিজুর রহমান মেয়েটিকে ব্ল্যাকমেল করায় মেয়েটি আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছে। মেয়েটিকে আত্মহত্যার পথে যে বা যারা ঠেলে দিয়েছে, তদন্ত সাপেক্ষে তাদের বিচার হওয়া উচিত বলে তাঁরা মন্তব্য করেন।

অভিযুক্ত হাফিজুর রহমানের বাবা ইউনুছ আলী বলেন,  ‘আমি ইউপি নির্বাচন করব। প্রতিপক্ষরা আমাকে ও আমার পরিবারকে ঘায়েল করতে আমার ছেলের নামে এমন অপপ্রচার ছড়াচ্ছেন।’ হাফিজুরের খোঁজ জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘চার-পাঁচ দিন ধরে সে বাড়িতে নেই।’

জানা গেছে, মেয়েটি আত্মহনন করার পর এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে বিপুল চন্দ্রের মুঠোফোনে হাফিজুর রহমান ও আত্মহত্যা করা কিশোরীর ভিডিও আছে। তিন যুবক ১৫-১৬ দিন আগে স্থানীয় বাজারে বিপুলকে আটক করে তার মুঠোফোন থেকে মেমোরি কার্ড খুলে নেওয়ার পর এলাকায় ওই ভিডিও ভাইরাল হয়।

স্থানীয় লোকজন জানান, মুঠোফোন থেকে জোর করে মেমোরি কার্ড খুলে নিয়ে ভিডিও ভাইরাল করার ঘটনায় বিপুল চন্দ্র গত ১৮ ফেব্রুয়ারি আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিয়ে তিনি সুস্থ হয়েছেন। 

বিপুলের মা উজালী রায় বলেন, ‘মাথার সমস্যার কারণে আমার ছেলে বিষ পান করেছিল। দুই দিন ধরে সে বাড়িতে নেই। আমার ছেলে কারও ভিডিও ধারণ করেনি।’

বদরগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আরিফ আলী বলেন, ‘মেয়েটি রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যাওয়ায় রংপুর কোতোয়ালি থানায় ইউডি মামলা হয়েছে। তবে কেন আত্মহত্যা করেছিল, এ বিষয়ে আমাদের কাছে কোনো তথ্য নেই। ভিডিও ছড়ানোর বিষয়ে আমরা কোনো অভিযোগ পাইনি। পেলে অবশ্যই আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ 

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ঠাকুরগাঁওয়ে মরিচ ক্ষেত থেকে মরদেহ উদ্ধার

আব্দুল লতিফ লিটু, ঠাকুরগাঁও

ঠাকুরগাঁওয়ে মরিচ ক্ষেত থেকে মরদেহ উদ্ধার

ঠাকুরগাঁও রুহিয়া থানাধীন পাটিয়াডাঙ্গীতে খলিল (৫০) নামে একব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

আজ সকালে সদর উপজেলার রাজাগাঁও ইউনিয়নের পাটিয়াডাঙ্গিতে একটি মরিচ ক্ষেত থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। মৃত খলিল বড়গাঁও ইউনিয়নের মোলানখুড়ী গ্রামের মৃত গফুর আলীর ছেলে।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, খলিল উদ্দিন গতকাল বিকেলে পাটিয়াডাঙ্গী বাজারে যায়। বাসায় ফিরতে দেরি হলে পরিবারের লোকজন অনেক খোঁজাখুঁজি করেন। পরে স্থানীয়ারা রাত ২টায় সময় বাজারের পাশে মরিচ ক্ষেতে মোবাইলফোন ও টাকাসহ খলিলের মরদেহ পরে থাকতে দেখে ৯৯৯ নম্বরে কল করলে রুহিয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহটি উদ্ধার করে।


চলন্ত বাস থেকে ফেলে দেওয়া হলো প্রতিবন্ধী নারীকে

অর্থনীতির নতুন পথ সন্ধানের এখনই সময়

৫ বছরে লাশ হয়ে দেশে ফিরেছেন ৪৮৭ নারী শ্রমিক

সন্তানদের নিয়ে রাজনীতি করবেন না : শ্রীলেখা


রুহিয়া থানার ওসি চিত্তরঞ্জন রায় জানান, মরদেহটির ময়না তদন্ততের জন্যে মর্গে পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট পেলে মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সাভারে সেই বাগানের গাছ পরীক্ষায় জানা গেল গাঁজার!

অনলাইন ডেস্ক

সাভারে সেই বাগানের গাছ পরীক্ষায় জানা গেল গাঁজার!

প্রাচীরঘেরা একটি জমিতে গাঁজার মত দেখতে কিছু গাছের খোঁজ পায় পুলিশ। গাঁজা গাছ রোপণের  জন্য সন্দেহভাজন হিসাবে  জায়গার মালিক ও তার ছেলেকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হলেও সুনির্দিষ্ট প্রমাণের অভাবে পুলিশ তাদের ছেড়ে দেয়া হয়।  কিন্তু  বাগানটি থেকে নমুনা সংগ্রহের করে তা অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) ল্যাবে পরীক্ষার পর গাছগুলো গাঁজার বলে নিশ্চিত করেছে পুলিশ। 

সাভারের আশুলিয়ায় প্রাচীরঘেরা একটি জমিতে সন্ধান এসব গাঁজা গাছের সন্ধান পায় পুলিশ।

প্রাথমিক সন্দেহের পর গত ২৮ ফেব্রুয়ারি আশুলিয়ার খেজুরবাগান মোল্লা বাড়ি গলির সোহেল হোসেনের মালিকানাধীন প্রাচীরঘেরা ওই স্থানটি পুলিশ নজরদারিতে রাখে। পুলিশ যখন গাছগুলো গাঁছা বলে নিশ্চিত হয় তথক্ষণে বাড়ির মালিক ও ছেলে আত্মগোপনে চলে যায় বরে জানিয়েছে পুলিশ। তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছেও বলে জানায় পুলিশ।


সমালোচনা আমাদের কাজের সফলতা : কবীর চৌধুরী তন্ময়

পাবনায় থাকছেন শাকিব খান

সাধ্যের মধ্যে ৮ জিবি র‍্যামের রেডমি ফোন

কমেন্টের কারণ নিয়ে যা বললেন কবীর চৌধুরী তন্ময়


সিআইডি ল্যাবের রিপোর্টের ভিত্তিতে সোমবার (৮ মার্চ) দুপুরে গাঁজা গাছগুলো কেটে জব্দ করেছে পুলিশ। এখবর নিশ্চিত করেন আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সুদীপ কুমার।

তিনি বলেন, গত সোমবার গাঁজা সদৃশ গাছের স্যাম্পল (নমুনা) পরীক্ষার জন্য ঢাকার সিআইডি ল্যাবে পাঠানো হয়েছিল। 

গতকাল (রোববার ৭ মার্চ) রিপোর্টে সেগুলো গাঁজা বলে নিশ্চিত হই। পরে রাতে বাগানের মালিক সোহেল হোসেন ও তার ছেলেকে আসামি করে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। 

আজ (সোমবার) সকালে গাঁজার গাছগুলো কেটে জব্দ করা হয়েছে। আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

গত ২৭ ফেব্রুয়ারি (শনিবার) সন্ধ্যা ৭টার দিকে আশুলিয়ার খেজুরবাগান মোল্লা বাড়ি গলি এলাকায় সোহেল হোসেনের জমিতে গাঁজা চাষের অভিযোগ পেয়ে পুলিশ অভিযান চালায়। এরপর থেকেই বাগানটি নিজেদের হেফাজতে রেখেছিল পুলিশ।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

চলন্ত বাস থেকে ফেলে দেওয়া হলো প্রতিবন্ধী নারীকে

নিজস্ব প্রতিবেদক

চলন্ত বাস থেকে ফেলে দেওয়া হলো প্রতিবন্ধী নারীকে

ভাড়া দিতে না পারায় এন মল্লিক পরিবহনের ঢাকা (মেট্রো-ব-১৩-১৫২১) এসি বাস থেকে এক বাকপ্রতিবন্ধী নারীকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। রোববার কেরানীগঞ্জের রোহিতপুর বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। 

যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী গতকাল রাতেই নিজের ফেসবুক প্রোফাইলে এ ঘটনার একটি ভিডিও শেয়ার করেন। মুহূর্তেই ভিডিওটি ভাইরাল হয়।

ভিডিওর ক্যাপশনে লেখা আছে ‘ভাড়া নিয়ে তর্কের জেরে এন মল্লিক পরিবহনের এসি বাস থেকে এই নারীকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেন!’

ভিডিও চিত্রে দেখা যায়, এন মল্লিক নামের একটি বাস থেকে ছুড়ে ফেলা হয় বোরকা পরা ওই নারীকে। মাটিতে পড়ে তিনি অস্ফুট স্বরে গোঙাচ্ছিলেন। পরে স্থানীয় লোকজন গিয়ে তাঁকে মাটি থেকে তোলেন। ভিডিও চিত্রেই দেখা যায়, গাড়ির নম্বর ঢাকা মেট্রো ব-১৩-১৫২১। এন মল্লিক বাসটি গুলিস্তান-নবাবগঞ্জ রুটে চলাচল করে।

মাটিতে ছুড়ে ফেলে দেওয়া ওই নারী বাক্‌প্রতিবন্ধী ছিলেন, তা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একটি সূত্র গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছে। সূত্রটি বলেছে, নারীকে ছুড়ে ফেলে দেওয়া বাসের চালকের সহকারীর নাম হাসান (২২)। তার বাড়ি নবাবগঞ্জের জয়কৃষ্ণ এলাকায়। চালক ছিলেন সবুজ মিয়া (৪০) নামের এক ব্যক্তি।


সমালোচনা আমাদের কাজের সফলতা : কবীর চৌধুরী তন্ময়

পাবনায় থাকছেন শাকিব খান

সাধ্যের মধ্যে ৮ জিবি র‍্যামের রেডমি ফোন

কমেন্টের কারণ নিয়ে যা বললেন কবীর চৌধুরী তন্ময়


ঘটনাস্থলে উপস্থিত লোকজনকে ওই নারী তাকে বাস থেকে ছুড়ে ফেলে দেওয়ার কারণ লিখে জানিয়েছেন। সেখানে ওই নারী লিখেছেন, ‘এন মল্লিক কোনাখোলা থেকে উঠাইসে। ভাড়া নাই। এন মল্লিক কোনো দিনও আমার থেকে ভাড়া নেয় না। এরা ভাড়া চায়। দিতে না পারায় এমুন ব্যবহার। এন মল্লিকের সবাই আমাকে চেনে। ও মনে হয় চিনে নাই। তাই বুজাবার চেষ্টা করসিলাম।’

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সাতক্ষীরায় জমি নিয়ে বিরোধে ছোট ভাইকে কুপিয়ে হত্যা

শাকিলা ইসলাম জুঁই, সাতক্ষীরা

সাতক্ষীরায় জমি নিয়ে বিরোধে ছোট ভাইকে কুপিয়ে হত্যা

সাতক্ষীরায় জমি নিয়ে বিরোধের জেরে ছোট ভাইকে কুপিয়ে হত্যা করেছে বড় ভাই। রোববার দিবাগত রাতে সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটার জগনান্দকাটি গ্রামে এ হত্যার ঘটনা ঘটে।

নিহত ব্যক্তি হলেন সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটার জগনান্দকাটি গ্রামের মজিদ মল্লিকের
ছেলে মন্তাজ মল্লিক (৩৫)।

পাটকেলঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাজী ওয়াহেদ মোর্শেদ জানান, নিহতের বাবা মজিদ মল্লিক তার ছেলেদের মধ্যে জমি ভাগবাটোয়ারা করে দিয়েছেন। বন্টনকৃত জমির সীমানা ও অবস্থান নিয়ে গত কয়েক মাস ধরে দুই ভায়ের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিলো।

তিনি আরও জানান, ছোট ভাই মন্তাজ মল্লিকের পাটকেলঘাটা বাজারের একটি গ্যারেজে মিস্ত্রির কাজ করতেন। রোববার রাত এগারটার দিকে কাজ শেষে তিনি বাড়িতে ফেরার উদ্দেশ্যে বাজার থেকে মোটরসাইকেলযোগে বের হন। বাড়ির পাশে এসে পৌঁছালে বড়ভাই শাহাজাহান মল্লিক দাঁ দিয়ে তাকে এলোপাতাড়ি কোপান। 


সমালোচনা আমাদের কাজের সফলতা : কবীর চৌধুরী তন্ময়

পাবনায় থাকছেন শাকিব খান

সাধ্যের মধ্যে ৮ জিবি র‍্যামের রেডমি ফোন

কমেন্টের কারণ নিয়ে যা বললেন কবীর চৌধুরী তন্ময়


এতে তিনি গুরুতর আহত হন। মুমূর্ষ অবস্থায় তাকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে খুলনা মেডিকোল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। এরপর খুলনায় নেয়ার পথে তিনি মারা যান। মন্জাজ মল্লিকের মরদেহ উদ্ধার করে সকালে ময়না তদন্তের জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর