ইতিহাসের এই দিনে

অনলাইন ডেস্ক

ইতিহাসের এই দিনে

৩০ জানুয়ারি ২০২১,শনিবার। ১৬ মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ। গ্রেগরিয়ান বর্ষপঞ্জী অনুসারে বছরের ৩০ তম দিন। এক নজরে দেখে নিন ইতিহাসের এ দিনে ঘটে যাওয়া উল্লেখযোগ্য ঘটনা, বিশিষ্টজনের জন্ম-মৃত্যুদিনসহ গুরুত্বপূর্ণ আরও কিছু বিষয়।

ঘটনাবলি:

১৬৪১ -  মালাবির মালাক্কা ছেড়ে দিতে ডাচদের কাছে পর্তুগিজরা আত্মসমর্পণ করে।

১৬৪৮ -  মুয়েন্সতারে স্পেন ও নেদারল্যান্ডসের মধ্যে শান্তি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

১৬৪৯ -  কমনওলেথ অব ইংল্যান্ড প্রতিষ্ঠিত হয়।

১৬৪৯ -  ইংল্যান্ডের রাজা প্রথম চার্লসের শিরোচ্ছেদ করা হয়।

১৮৪০ -  চীনের সম্রাট ব্রিটেনের সাথে সব ধরনের বাণিজ্য নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন।

১৮৮৯ -  ভিয়েনার যুবরাজ রুডলফ ও তার ১৮ বছরের প্রেয়সী আত্মহত্যা করে।

১৯০২ -  চীন ও কোরিয়ার স্বাধীনতার জন্য জাপানের সাথে ব্রিটেনের চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

১৯৩৩ -  হিটলার জার্মানির চ্যান্সেলর হন এবং জার্মানিতে ফ্যাসিবাদী একনায়কতন্ত্রের উত্থান ঘটে।

১৯৬৪ -  র‌্যাঞ্জার প্রোগ্রামের অংশ হিসেবে র‌্যাঞ্জার ৬ উৎক্ষেপণ করা হয়।

১৯৬৪ -  দ: ভিয়েতনামের জেনারেল নগুয়েন খানের সাইগনে সেনা অভ্যুনত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করেন।

১৯৭২ -  সাহিত্যিক ও চলচ্চিত্রকার জহির রায়হান নিরুদ্দেশ হন।

১৯৭২ -  কমনওয়েলথ থেকে পাকিস্তানের নাম প্রত্যাহার করে।

১৯৭২ -  ন্যাপ, কমিউনিস্ট পার্টি ও ছাত্র ইউনিয়নের সম্মিলিত গেরিলা বাহিনীর অস্ত্র সমর্পণ করে।

১৯৮২ -  ৪০০ লাইন দীর্ঘ ১ম কম্পিউটার ভাইরাস কোড এল্ক ক্লোনার লিখেন রিচার্ড স্ক্রেন্টা। এটি এ্যাপল কম্পিউটারের বুট প্রোগ্রাম ধ্বংস করে দেয়।

১৯৮৯ -  আফগানিস্তানের কাবুলে আমেরিকার দূতাবাস বন্ধের ঘোষণা করে।

১৯৯০ -  চেকোশ্লোভাকিয়ার পার্লামেন্টে ৪ দশক পর কমিউনিস্ট পার্টি তাদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারায়।

১৯৯৪ -  পিটার লেকো সর্বকনিষ্ঠ গ্রাণ্ডমাস্টারের মর্যাদা পান।

২০০০ -  আইভোরী কোস্টের উপকূলে আটলান্টিক মহাসাগরে কেনিয়া এয়ারওয়েজের ফ্লাইট ৪৩১ বিধ্বস্ত হয়ে ১৬৯ জন মৃত্যুবরণ করে।

১৮৮২ -  করেছিলেন ফ্রাংক্‌লিন ডেলানো রুজ্‌ভেল্ট, তিনি ছিলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৩২তম রাষ্ট্রপতি।

১৮৯৯ -  করেছিলেন ম্যাক্স টেইলের, তিনি ছিলেন নোবেল পুরস্কার বিজয়ী দক্ষিণ আফ্রিকান ভাইরাসবিদ।

জন্ম:

১৯১৭ -  কথাশিল্পী নরেন্দ্রনাথ মিত্র জন্মগ্রহণ করেন।

১৯৩১ -  অস্ট্রেলিয়ান লেখক শার্লি হাযযারদ জন্মগ্রহণ করেন।

১৯৩৭ -  ইংরেজ অভিনেত্রী ভানেসসা রেডগ্রাভে জন্মগ্রহণ করেন।

১৯৪৯ -  নোবেল পুরস্কার বিজয়ী আমেরিকান চিকিৎসক ও জীববিজ্ঞানী পিটার অ্যাগর জন্মগ্রহণ করেন।

১৯৮০ -  ভেনিজুয়েলীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন অভিনেতা উইল্মার ভালদারামা জন্মগ্রহণ করেন।

১৯৮৯ -  স্প্যানিশ ফুটবল খেলোয়াড় টমাস মেজিয়াস জন্মগ্রহণ করেন।


ঘুম থেকে উঠে যে দোয়া পড়তে হয়

দুনিয়ার শ্রেষ্ঠ ‌জুমার দিনে ‘সূরা কাহাফ’ তেলাওয়াতের ফজিলত


 

মৃত্যু:

১৭৮৮ -  রোমে ব্রিটিশ রাজত্বের তরুণ উত্তরাধিকারী চার্লস এডওয়ার্ড স্টুয়ার্ন মত্যুবরণ করেন।

১৯২৮ - নোবেল পুরস্কার বিজয়ী ডেনিশ চিকিৎসক জোহানেস ফিবিগের মৃত্যুবরণ করেন।

১৯৪৮ -  ভারতের স্বাধীনতার প্রতিষ্ঠাতা ও জাতীয় নেতা মোহন দাশ করমচাঁদ গান্ধী (মহাত্মা গান্ধী) নিহত হন।

১৯৭২ - প্রখ্যাত বাঙালি চলচ্চিত্র পরিচালক, ঔপন্যাসিক, এবং গল্পকার জহির রায়হান মৃত্যুবরণ করেন।

১৯৬৩ - ফরাসি সুরকার ফ্রান্সিস পউলেঞ্চ মৃত্যুবরণ করেন।

১৯৬৯ - নোবেল পুরস্কার বিজয়ী বেলজিয়ান ভিক্ষু ডমিনিক পিরে মৃত্যুবরণ করেন।

১৯৭৫ -  শিশু সাহিত্যিক মোহাম্মদ নাসির আলী মৃত্যুবরণ করেন মৃত্যুবরণ করেন।

১৯৯১ - নোবেল পুরস্কার বিজয়ী আমেরিকান পদার্থবিদ জন বারডিন মৃত্যুবরণ করেন।

২০১৩ - বেলজিয়ান চিত্রশিল্পী রজার রাভীল মৃত্যুবরণ করেন।

২০১৪ - কানাডিয়ান অভিনেতা ক্যাম্পবেল লেন মৃত্যুবরণ করেন।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

জিয়া রাজাকার-আলবদরদের বিচার বন্ধ করেছিলেন: চীফ হুইপ

বেলাল রিজভী, মাদারীপুর

জিয়া রাজাকার-আলবদরদের বিচার বন্ধ করেছিলেন: চীফ হুইপ

জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ ও আওয়ামী লীগ সংসদীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক নূর-ই-আলম চৌধুরী বলেছেন, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় আসার পর রাজাকার, আলবদরদের বিচার বন্ধ করে দিয়েছিলেন।

তিনি বলেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর জিয়াউর রহমান এদেশে যুদ্ধাপরাধী ও স্বাধীনতা বিরোধীদের প্রতিষ্ঠিত করেছে। জিয়া ক্ষমতায় আসার পর রাজাকার আলবদরদের বিচার বন্ধ করে দিয়েছিলেন। শুধু তাই নয় কারাগারে আটক সকল যুদ্ধাপরাধীদের মুক্ত করে দিয়েছিলেন এবং নরঘাতক যুদ্ধাপরাধী গোলাম আজমকে এদেশে রাজনীতি করার সুযোগ করে দিয়েছিলেন।

বুধবার (৩ মার্চ) দুপুরে মাদারীপুরের শিবচর উপজেলায় এক অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি। শিবচরের মুন্সী কাদিরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৪তলা বিশিষ্ট নতুন ভবন উদ্বোধন করেন তিনি। পরে সেখানে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় অনুষ্ঠিত হয়। 

মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, জিয়া সংবিধান সংশোধন করে ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধ থাকার বিধান বাতিল করেছিলেন। জামায়াত ইসলামীসহ স্বাধীনতা বিরোধীদের রাজনীতি করার সুযোগ করেছিলেন। পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর সকল যুদ্ধাপরাধীদের বিচার সম্পন্ন হচ্ছে। 

চীফ হুইপ আরো বলেন, দেশের মানুষের কথা চিন্তা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৩শ’ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন প্রয়োগের জন্য। যা বিশ্বের উন্নত অনেক দেশে দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। এখনো অনেক দেশ আছে যারা ভ্যাকসিন পায়নি। একমাত্র বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার কারণেই বাংলাদেশের ৪০ বছরের উর্ধ্বে সকলকে প্রাথমিক পর্যায়ে করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন দেয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে ৩০ লাখ মানুষকে করোনার ভ্যাকসিন দেয়া হয়েছে।


পুলিশ হেফাজতে আইনজীবীর মৃত্যু: বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ

ভাসানচরে যাচ্ছে দুই হাজারের বেশি রোহিঙ্গা

‘অসম প্রেমে’ পড়েছেন সাদিয়া ইসলাম মৌ

ব্যানারে নেই বেগম জিয়া, এনিয়ে বিস্তর আলোচনা


এসময় তিনি সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলারও আহবান জানান।

অনুষ্ঠানে মাদারীপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুনির চৌধুরী, শিবচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান, পৌর মেয়র আওলাদ হোসেন খান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শাজাহান মোল্লা, সাধারণ সম্পাদক ডা. মো. সেলিম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। 

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ফসলি কৃষি জমিতে অবৈধভাবে পুকুর খনন বন্ধে মানববন্ধন

নাটোর প্রতিনিধি

ফসলি কৃষি জমিতে অবৈধভাবে পুকুর খনন বন্ধে মানববন্ধন

আদালতের নিষোজ্ঞা উপেক্ষা করে নাটোরের গুরুদাসপুরের মশিন্দা ইউনয়নের মাঝপাড়া মাঠের তিন ফসলি কৃষি জমিতে অবৈধভাবে পুকুর খনন বন্ধে মানববন্ধন করেছে জনসচেতন এলাকাবাসী।

মঙ্গলবার দুপুরে গুরুদাসপুর উপজেলা মশিন্দা ইউনিয়নের মাঝপাড়া গ্রামের সচেতন এলাকাবাসীর আয়োজিত ওই মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, সাইদুল ইসলাম ও জিয়াউর রহমান। এ সময় বক্তরা তিন ফসলি কৃষি জমি রক্ষায় অবিলম্বে অবৈধভাবে পুকুর খনন বন্ধে স্থানীয় প্রশাসনের দ্রুত হস্তক্ষেপের দাবি জানান।


আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

ভারতে বাড়ছে গাধার চাহিদা!

ভারতের মাদ্রাসায় পড়ানো হবে বেদ, গীতা, সংস্কৃত

এই নচিকেতা মানে কী? আমি তোমার ছোট? : মঞ্চে ভক্তকে নচিকেতার ধমক (ভিডিও)


কৃষি জমি রক্ষায় মশিন্দা ইউনিয়নের মাঝপাড়া গ্রামের কৃষান-কুষানী ছাড়াও নানা শ্রেণি পেশার সচেতন জনসাধারণ মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করে অবৈধ পুকুর খননের প্রতিবাদ জানান।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ঠাকুরগাঁওয়ে দরিদ্রদের মাঝে অর্থ প্রদান

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি:

ঠাকুরগাঁওয়ে দরিদ্রদের মাঝে অর্থ প্রদান

ঠাকুরগাঁওয়ে দরিদ্র পরিবারের মাঝে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। বুধবার (৩মার্চ) দুপুরে ঠাকুরগাঁও এরিয়া প্রোগ্রাম ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এর উদ্যোগে মুন্সিরহাট নিজস্ব হলরুম আনুষ্ঠানিকভাবে এ অর্থ সহায়তা প্রদান করেন।

এরিয়া প্রোগ্রাম ম্যানেজার লিওবার্ট চিসিমের সভাপতিত্বে প্রধান অথিতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) আব্দুল্লাহ আল মামুন।


আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

ভারতে বাড়ছে গাধার চাহিদা!

ভারতের মাদ্রাসায় পড়ানো হবে বেদ, গীতা, সংস্কৃত

এই নচিকেতা মানে কী? আমি তোমার ছোট? : মঞ্চে ভক্তকে নচিকেতার ধমক (ভিডিও)


করোনা ভাইরাস সময়কালে মোবাইল মানি ট্রান্সফারের মাধ্যমে নগদ অর্থ বিতরণ অনুষ্ঠানে সদর উপজেলার ১শ জন দরিদ্র নারীরকে ৩ হাজার করে টাকা প্রদান করেন সংগঠনটি। বর্তমান সময়ে টাকা পেয়ে খুশি দরিদ্র নারীরা।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

কারাগারে মৃত্যু হলেই আইন বাতিল করতে হবে?

অনলাইন ডেস্ক

কারাগারে মৃত্যু হলেই আইন বাতিল করতে হবে?

কারাগারে মোশতাকের মৃত্যু নিয়ে পানি ঘোলা করে লাভ হবে না বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। ডিজিটাল আইনের ব্যাপারে তিনি বলেন, একজনের মৃত্যুর কারণে ওই আইন বাতিল করতে হবে? এটা তো আইনের দোষ না।

বুধবার (৩ মার্চ) জাতীয় প্রেসক্লাবে একুশে পদকপ্রাপ্ত দেশবরেণ্য সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব এটিএম শামসুজ্জামানের শোক সভায় তিনি বলেন, ‘ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট’ এই আইনে মোশতাক কারাগারে ছিলেন। সেখানে তার মৃত্যু হয়েছে। সেই সূত্র ধরে বলা হচ্ছে, এই আইন বাতিল করতে হবে। অন্য আইনে যারা কারাগারে যায়, সেই আইনে যদি কারাগারে তারও মৃত্যু হয়, তাহলে কি সে আইনগুলোও বাতিল করতে হবে? সে প্রশ্নটাও এসে যায়।

ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট সমগ্র মানুষের ডিজিটাল নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী।


সবইতো চলছে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কেন ঈদের পরে খুলবে: নুর

আইন চলে ক্ষমতাসীনদের ইচ্ছেমত: ভিপি নুর

রাঙামাটিতে বিজিবি-বিএসএফের পতাকা বৈঠক

৭৫০ মে.টন কয়লা নিয়ে জাহাজ ডুবি, শুরু হয়নি উদ্ধার কাজ


তিনি বলেন, এ আইন সাংবাদিককে ডিজিটাল নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য, গৃহিণীকে ডিজিটাল নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য, কৃষকের ডিজিটাল নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য। কারও চরিত্র হনন হলে তাকে ডিজিটাল নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য এই আইন। অবশ্য এই আইনের অপপ্রয়োগ না হয়, সেজন্য আমরা সর্তক আছি। অপপ্রয়োগ হওয়া কাম্য নয়।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, একটি অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যুকে নিয়ে প্রতিদিন মিডিয়া সরগরম। মিডিয়াকে সরগরম রাখছে একটি পক্ষ। প্রতিদিন প্রেসক্লাবের সামনে নানা ধরনের আয়োজন করা হচ্ছে, বিভিন্ন জায়গায় অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হচ্ছে। ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর কারা অভ্যন্তরে ৪ জাতীয় নেতাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছিলো। সেনাবাহিনীর বিপদগামী সদস্যরা সেখানে গিয়ে গুলি করে হত্যা করেছিলো। তখন সেনাপ্রধান ছিলো জিয়াউর রহমান। খন্দকার মোশতাকের নির্দেশে জিয়াউর রহমানের পৃষ্ঠপোষকতায় এই হত্যাকাণ্ড সংগঠিত করা হয়েছিলো। আজকে সেই কথা কেউ বলে না।

হাছান মাহমুদ বলেন, ১৯৭৫ সালের পর কারাগারের অভ্যন্তরে বহু জনকে নির্যাতন করে হত্য করা হয়েছে। ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদককে কারা অভ্যন্তরে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছিলো, চট্টগ্রামের মৌলভী শহিদকে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছিলো। এরকম বহু আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীকে কারাগারে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে।

‘দলাদলি করেছি, বিভক্ত হয়েছি, দেশটাকে গড়তে পারিনি’ বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এ বক্তব্যের কঠোর সমালোচনা করেছেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘আমি কাগজে দেখলাম মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব একটা কথা বলেছেন, ৫০ বছরে আমরা শুধু দলাদলি করেছি দেশ আগাইনি। আমি মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেবকে বলবো, আজকে যে দেশ এতদূর এগিয়ে গেছে, এটা অনুধাবন করতে পারলেন না। আপনি একজন শিক্ষিত মানুষ, ঢাকা কলেজে পড়াতেন। আপনি একজন মার্জিত মানুষও বটে। যদিও বিএনপির পক্ষে কথা বলতে গিয়ে অহরহ মিথ্যা কথা বলেন। 

তিনি বলেন, দেশ এতো এগিয়ে গেলো, স্বল্পোন্নত দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশ হলো, জাতিসংঘ সে সার্টিফিকেট দিয়েছে। খাদ্য ঘাটতির দেশ থেকে খাদ্য উদ্ধৃত্তের দেশে রুপান্তরিত হলো, সাতশো ডলার মাথা পিছুর আয় থেকে ২০০৮ সালের, এখন ২০৬৯ ডলারে উন্নত হলো, ভারত ও পাকিস্তান থেকে আমাদের মাথাপিছু আয় অনেক বেশি। এবং রিজার্ভ ৪৪ মিলিয়ন ডলার। যেটি পাকিস্তানের তিন গুণ। এই তথ্যগুলো আপনার কাছে নেই। আমি খুব অবাক হচ্ছি।

মন্ত্রী বলেন, বিএনপি যদি দলাদলি আর নেতিবাচক রাজনীতি না করতো, বাংলাদেশ যে আজকে অনেক দূর এগিয়ে গেছে, তারচেয়ে অনেক দূর এগিয়ে যেতে পারতো। যদি এ নেতিবাচক রাজনীতি না থাকতো।  জঙ্গি আশ্রয়ী, স্বাধীনতা বিরোধীদের প্রশ্রয় দেয়ার রাজনীতি যদি না হতো দেশ আরও বহু দূর এগিয়ে যেত। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব আপনারা দলাদলি করেছেন। শুধু দলাদলি করেছেন তা নয়, প্রচন্ডভাবে নেতিবাচক রাজনীতিও করেছেন।  আমাদের দেশে নেতিবাচক রাজনীতি, উন্নয়ন অগ্রগতির ক্ষেত্রে অন্তরায়।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

হঠাৎ করেই জয়পুরহাটে বেড়েছে ডায়রিয়া রোগী, আরও বাড়ার আশঙ্কা

নিজস্ব প্রতিবেদক

হঠাৎ করেই জয়পুরহাটে বেড়েছে ডায়রিয়া রোগী, আরও বাড়ার আশঙ্কা

জয়পুরহাটে হঠাৎ করেই ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। প্রতিদিন গড়ে ৬০ জন ডায়রিয়া রোগী আসছে। এর মধ্যে বেশির ভাগই শিশু। চিকিৎসকরা বলছেন, আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে ডায়রিয়ার প্রাদুর্ভাব বেড়েছে।

জানা গেছে, গত এক সপ্তাহে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত প্রায় সাড়ে ৫০০ রোগী আধুনিক জেলা হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছে। এখনো দেড় শতাধিক রোগী হাসপাতালে ভর্তি। এর মধ্যে শিশুর সংখ্যাই বেশি।

আরও জানা গেছে, ১৫০ শয্যার জয়পুরহাট আধুনিক জেলা হাসপাতালে ডায়রিয়া ওয়ার্ডে শয্যাসংখ্যা মাত্র আট। ডায়রিয়া ওয়ার্ডের শয্যাসংখ্যা কম হওয়ায় হাসপাতালের মেঝেতে গাদাগাদি করে এসব রোগীর চিকিৎসাসেবা দেওয়া হচ্ছে।

ডায়রিয়া ওয়ার্ডের ইনচার্জ সিনিয়র নার্স নাসিমা সুলতানা জানান, প্রতিদিন গড়ে ৬০ জন ডায়রিয়া রোগী আসছে। এর মধ্যে বেশির ভাগই শিশু। গতকাল মোট ৫৩ জন ডায়রিয়া রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। জনবল ও শয্যাসংকট থাকায় রোগীদের সেবা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে।


পুলিশ হেফাজতে আইনজীবীর মৃত্যু: বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ

ভাসানচরে যাচ্ছে দুই হাজারের বেশি রোহিঙ্গা

‘অসম প্রেমে’ পড়েছেন সাদিয়া ইসলাম মৌ

ব্যানারে নেই বেগম জিয়া, এনিয়ে বিস্তর আলোচনা


হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) সাইফুল ইসলাম বলেন, আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে হঠাৎ করেই জয়পুরহাটে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। আরও দুয়েক সপ্তাহ রোগী বাড়তে পারে। 

তিনি বলেন, হাসপাতালে আগত সব রোগীকেই চিকিৎসাসেবা দেওয়া হচ্ছে। হাসপাতালে ডায়রিয়া রোগীর কোনো ওষুধ–সংকট নেই। 

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর