ইউএস বাংলা এখন আতঙ্কের বাহন!

অনলাইন ডেস্ক

ইউএস বাংলা এখন আতঙ্কের বাহন!

ফাইল ছবি

ফ্লাইট ছাড়ার আগে দেখা গেল ফ্লাইটের ওয়েদার রাডার কাজ করছে না। ঠিক করার জন্য বলা হলো তখন অফিস থেকে হচ্ছে, হবে, করা শুরু হয়। কিছুক্ষণ পর কর্তৃপক্ষের একজন ফোন করে বলছেন, স্পেয়ার নেই বা এটা এখন ঠিক করতে গেলে ফ্লাইটের টাইম এলোমেলো হয়ে যাবে। এভাবেই চালিয়ে যেতে হবে। এভাবেই বাধ্য করে ফ্লাইট চালানো পাইলট যাত্রী সবার জন্যই ঝুঁকিপূর্ণ। কথাগুলো বলছিলেন ইউএস বাংলা এয়ারলাইনসের একজন পাইলট।

মাত্রাতিরিক্ত ফ্লাইট পরিচালনা করতে গিয়ে ইউএস বাংলা এয়ারলাইনসের এভাবে পাইলটদের চাপ প্রয়োগ করার অভিযোগ অনেক পুরনো। নেপালের কাঠমান্ডুতে ভয়াবহ দুর্ঘটনায় ৫১ জনের প্রাণহানির ক্ষেত্রেও সেই ফ্লাইটের আগে পাইলট আবিদের ওপর মানসিক চাপ সৃষ্টির অভিযোগ আছে ইউএস-বাংলা এয়ালাইনসের ওপর।

ইউএস বাংলার এয়ারলাইনসে কক্সবাজার যাওয়ার পথে চট্টগ্রাম বিমানবন্দরে অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যাওয়া চিকিৎসক ডা. আদিবা মাহবুবা জানান, এরা বিমানের ক্রটি নিয়ে জোর করে যাত্রী নিয়ে রওনা হয়, তার পর ইমারজেন্সি ল্যান্ডিং করায়। এটা প্রথমবার নয় এর আগেও বহুবার এরকম হয়ে গেছে। এদের কাছে মানুষের জীবনের কোনো মূল্য নেই। একটা প্লেনের ল্যান্ডিং গিয়ার ঠিক আছে কিনা তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা না করেই কিভাবে ফ্লাইট পরিচালনা করা সম্ভব।

জানা যায়, সম্প্রতি ইউএস-বাংলার মালয়েশিয়াগামী একটি ফ্লাইট যাত্রাপথে কারিগরি ত্রুটি দেখতে পেয়ে ঢাকায় ফিরে এসে হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণে বাধ্য হয়। এর আগে চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে যাওয়ার পর পরই ল্যান্ডিং গিয়ারের সমস্যা বুঝতে পেরে শাহ আমানত (রহ.) বিমানবন্দরেই জরুরি অবতরণ করে ইউএস-বাংলার আরেক ফ্লাইট।

এ ছাড়া নীলফামারীর সৈয়দপুর বিমানবন্দরে অবতরণের পর রানওয়ের শেষ প্রান্তে গিয়ে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের একটি উড়োজাহাজের পেছনের চাকা ছিটকে যায়। উড়োজাহাজটি নির্ধারিত জায়গা থেকে আরও সামনে অবতরণ করে। রানওয়ের একেবারে শেষ প্রান্তে গিয়ে এটি থামে।

এর আগে ২০১৮ সালের মার্চে ঘটে বাংলাদেশের এভিয়েশনের সবচেয়ে মর্মান্তিক দুর্ঘটনা। গত ১২ মার্চ নেপালে ইউএস বাংলার একটি উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হয়ে ২৬ বাংলাদেশিসহ ৫১ জনের মৃত্যু হয়। কাঠমান্ডুর এভিয়েশনের দাবি, পাইলটও ছিলেন মানসিক চাপ ও উদ্বেগের মধ্যে এবং সেই এয়ারক্রাফটের কারিগরি সক্ষমতার অভাব ছিল।

বাংলাদেশ বিমান বাহিনী ও ইউএস বাংলার সাবেক পাইলট ওয়াহিদ-উন-নবী বলেন, পাইলটের দক্ষতায় একবার দুবার করে তিনবার হয়তো বেঁচে গেলাম। কিন্তু চারবারের বেলায়ও যে বেঁচে যাব তার কি কোনো গ্যারান্টি আছে। আর যাত্রী নিয়ে আকাশে ওড়া বিমান নিশ্চয়ই কারও কোনো টেস্টিং গ্রাউন্ড হতে পারে না। তিনি বলেন, হ্যাঁ এটা সত্য পাইলটরা পেশাদার, তারা সর্বোচ্চ চেষ্টাই করেন। কিন্তু এয়ারক্রাফটের কারিগরি সক্ষমতার দিকগুলো মেনে না চললে এভিয়েশন খাত ধ্বংস হয়ে যাবে এটা সবারই মনে রাখা ও মেনে চলা উচিত।

এভিয়েশন বিশেষজ্ঞ কাজী ওয়াহিদুল আলমের মতে, কারগরি ত্রুটি হতে পারে, কিন্তু নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণ জরুরি। বাংলাদেশের প্রাইভেট এয়ারলাইনসগুলোর বিরুদ্ধে লাভের জন্য কিছু বিষয় এড়িয়ে যাওয়ার অভিযোগ আছে, এক্ষেত্রে এগিয়ে আসতে হবে সিভিল এভিয়েশনকে। যথাযথ নিয়ম রক্ষা না হওয়ায় বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সিভিল এভিয়েশনকে এয়ারলাইনসগুলোর জরিমানাসহ বিভিন্ন ধরনের ব্যবস্থা নিতে দেখা গেলেও বাংলাদেশে তা হয় না।

জানা যায়, পরপর একাধিক দুর্ঘটনায় পড়া বেসরকারি এয়ারলাইনস ইউএস বাংলার বহরে থাকা বিমানগুলোর কারিগরি মান নিয়ে প্রশ্ন আছে। এয়ারক্রাফটগুলোর বয়স, এগুলোর রক্ষণাবেক্ষণ সঠিক প্রক্রিয়ায় হয় কিনা, এগুলো চলাচলের ক্ষেত্রে ঝুঁকিপূর্ণ কিনা তা নিয়েও সরকারের পক্ষ থেকেও একাধিকবার চিঠি দেওয়া হয়েছে। বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে ইউএস বাংলা এয়ারলাইনস কর্তৃপক্ষকে কয়েক দফায় চিঠি দিয়ে, বহরের প্রতিটি বিমানের কারিগরি মান ও পরিস্থতি জানাতে বলা হয়েছে। কিন্তু রহস্যজনকভাবে সব থেকেই কোনো ত্রুটিহীন প্রতিবেদন জমা পড়েছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এয়ারক্রাফটের কারিগরি সক্ষমতার দিক দেখার দায়িত্ব সিভিল এভিয়েশনের। তারা এর দায় এড়াতে পারে না। এখন যাত্রী নিরাপত্তা নিশ্চিতের জন্য দ্রুততম সময়ের মধ্যে বহরে থাকা বিমানগুলো বাধ্যতামূলক সি-চেক বা পর্যালোচনা করতে হবে এবং ত্রুটি পাওয়া গেলে সঙ্গে সঙ্গে বন্ধ করে দিতে হবে সেই এয়ারক্রাফটের পরিষেবা। 

অভিযোগ আছে, ফ্লাইট পরিচালনার শুরু থেকেই গ্রাহক হয়রানির চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছেছে এয়ারলাইনস সংস্থাটি। ইউএস বাংলা, তাদের ফ্লাইটসমূহে সোনা চোরাচালান ও মাদক চালান বহনেরও গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। ইদানীং ইয়াবা বহনকারী মাদকচক্রও নিরাপদ বাহন হিসেবে ইউএস-বাংলার ফ্লাইটগুলো অবাধে ব্যবহার করছে বলেও গুরুতর অভিযোগ উঠেছে।

সম্প্রতি বিমানবন্দর সূত্রে জানা গেছে, কক্সবাজার থেকে ইউএস বাংলা এয়ারলাইনসের ফ্লাইট বিএস ১৪৬ যোগে ঢাকায় আসা যাত্রী শাকিল মিয়ার কাছ থেকে বিমানবন্দর আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের সদস্যরা ২ হাজার ২৮০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। এই ইয়াবার বাজার মূল্য সাড়ে ১১ লাখ টাকা বলে জানা গেছে। জিজ্ঞাসাবাদে সে জানিয়েছে, কক্সবাজারের টেকনাফের জনৈক আবিরের কাছ থেকে সে এই ইয়াবা সংগ্রহ করে নিরাপদে ঢাকায় পৌঁছাতে ইউএস বাংলার ফ্লাইট ব্যবহার করে থাকে।


জিপিএ-৫ পেলেন রিফাত হত্যা মামলার দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি রিশান

নিজ হাসপাতালে ভালোবাসায় সিক্ত হলেন প্রথম করোনা টিকা নেওয়া রুনু

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ১৮ সদস্যের টেস্ট দল ঘোষণা

স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ ও হত্যায় আদালতে জবানবন্দি


একটি গোয়েন্দা সংস্থার নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, ঢাকা-চট্টগ্রাম-কক্সবাজার সড়ক পথে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ব্যাপক তৎপরতা থাকায় মাদকের বড় চালানগুলো বিমানে যাত্রীবেশে আনার ঘটনা ঘটে চলছে। এক্ষেত্রে ফ্লাইটের দায়িত্বরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যোগসাজশ থাকারও অভিযোগ উঠেছে।

গন্তব্যে যাত্রী পৌঁছাতে না পেরে অন্য বিমানে যাত্রী তুলে দেওয়ার মতো ন্যক্কারজনক ঘটনাও ঘটানো হয় বলে অভিযোগ রয়েছে সংস্থাটির বিরুদ্ধে। তাছাড়া মাঝ আকাশ থেকেই যাত্রীসমেত ফ্লাইট ফিরিয়ে আনা, এক স্থানের উদ্দেশে যাত্রা শুরু করে অন্য গন্তব্যে পৌঁছানো, এসি বিকল থাকায় হাত পাখার বাতাস নিতে নিতে ইউএস বাংলার ফ্লাইট ভ্রমণের হাস্যকর নানা কাহিনি এখন যাত্রীদের মুখে মুখে ঘুরেফিরে।

এভিয়েশন খাত সংশ্লিষ্ট একজন অভিজ্ঞ ব্যক্তি নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, এখানে সরকারি এয়ারলাইনসের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় নেমে সময় ঠিক রাখার জন্য আগ্রাসীভাবে ফ্লাইট চালাচ্ছে তারা। যথাযথ রক্ষণাবেক্ষণ থেকেও তাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে ফ্লাইট পরিচালনা। কুয়াশার মধ্যে বিমান বাংলাদেশ ফ্লাইট বন্ধ রাখলেও কোনো কোনো বেসরকারি এয়ারলাইনস তার মধ্যেই ফ্লাইট চালিয়েছে।  সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

দু'নম্বরি করলে লুকিয়ে বিয়ে করতাম: নাসির (ভিডিও)

অনলাইন ডেস্ক

দু'নম্বরি করলে লুকিয়ে বিয়ে করতাম: নাসির (ভিডিও)

আমরা যদি দু'নম্বরি করতাম তাহলে লুকিয়ে বিয়ে করতাম। এতো লোক সমাগমে করতাম না। নিউজ টোয়েন্টিফোরকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এমন কথা বলেছেন ক্রিকেটার নাসির হোসেন।

বুধবার বিকাল পাঁচটার দিয়ে সংবাদ ব্রিফিংয়ে আসেন নাসির, তামিমা, তাদের আইনজীবীসহ বেশ কয়েকজন। এসময় প্রথমে কথা বলেন নাসিরের আইনজীবী।

নাসিরের আইনজীবীর বক্তব্যের পর কথা বলেন তামিমা তাম্মি। তামিমার ডান পাশেই বসা ছিলেন নাসির।

অনুষ্ঠানের ভিডিওতে দেখা যায়, তামিমা শুরুতেই রাকিবের অভিযোগ মিথ্যা বলে দাবি করেন। তবে তামিমা বলেন, রাকিব যেসব কথা বলেছেন তার মধ্যে মাত্র দুইটি কথা সত্য। এক, রাকিবের সঙ্গে আমার বিয়ে হয়েছিল। দ্বিতীয়, আমাদের একটি মেয়ে আছে।

তামিমা এসব কথা বলার সময় একটু বিব্রত বোধ করেন। এসময় নাসির তাকে পিঠ চাপড়ে স্বাভাবিক করার চেষ্টা করেন। তামিমা তখন হেসে দেন।

ভিডিও দেখতে ক্লিক করুন

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বাগেরহাটে গাঁজা গাছসহ আটক ১

বাগেরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাটে গাঁজা গাছসহ আটক ১

বাগেরহাটের ফকিরহাটে গাঁজা গাছসহ মো. জোবায়ের শেখ (২০) নামের এক গাঁজা চাষীকে আটক করেছে র‌্যাব-৬ এর সদস্যরা। মঙ্গলবার গভীর রাতে ফকিরহাট উপজেলার দিয়াপাড়া মাদারবুনিয়া গ্রামের ফারুক শেখের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে পুকুর পাড় থেকে জোবায়েরকে আটক করে র‌্যাব সদস্যরা। 

এ সময় পুকুর পাড় থেকে ৫টি গাঁজা গাছ জব্দ করা হয়। আটককৃত জোবায়ের শেখ দিয়াপাড়া মাদারবুনিয়া গ্রামের মো. ফারুক শেখের ছেলে। আটককৃতের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের পূর্বক ফকিরহাট থানায় সোপর্দের প্রস্তুতি চলছে। 

আরও পড়ুন:


স্ত্রীকে সৌদি পাঠিয়ে ৮ বছরের মেয়েকে নিয়মিত ধর্ষণ করে বাবা

বন্ধুর স্ত্রীর ‘গোপন ভিডিও’ ধারণ, ভয় দেখিয়ে আটমাস ধরে ‘ধর্ষণ’

কুমিল্লাগামী বাসে দরজা-জানালা বন্ধ করে তরুণীকে ধর্ষণ!

কলাইক্ষেতে নারীর অর্ধনগ্ন মরদেহ, পাশে পাজামা-ছাতা-স্যান্ডেল


র‌্যাব-৬ এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মাহাবুব আলম জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৬ এর একটি দল মঙ্গলবার রাতে ফকিরহাট উপজেলার দিয়াপাড়া মাদারবুনিয়া গ্রামের ফারুক শেখের বাড়িতে অভিযান চালায়।

এ সময় সেখান থেকে জোবায়ের শেখ নামের এক যুবককে ৫টি গাঁজা গাছসহ আটক করা হয়। পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের পূর্বক ফকিরহাট থানায় হস্তান্তরের প্রস্তুতি চলছে।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

খুলনায় প্রতিপক্ষের ধারাল অস্ত্রের কোপে যুবক নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা:

খুলনায় প্রতিপক্ষের ধারাল অস্ত্রের কোপে যুবক নিহত

খুলনার তেরখাদায় জমি নিয়ে বিরোধে প্রতিপক্ষের ধারালো অস্ত্রের কোপে বাবর আলী (৩৮) নামের এক যুবক নিহত হয়েছেন। আজ (বুধবার) সন্ধ্যায় তেরখাদার বলকধুনা নামক স্থানে এ ঘটনা ঘটে। 

নিহত বাবর ওই এলাকার বজলার শেখের ছেলে। এ ঘটনায় আরও তিনজন গুরুতর জখম হয়। তাদেরকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতরা হলেন- মো. আহাদ শেখ (৩৫), জাকারিয়া (৩০) ও আজিজুল (৩৫)। 


ক্রাইস্টচার্চে পৌঁছেছে টাইগাররা

স্পেনে ঢুকতে অভিবাসীর অভিনব পন্থা

গোয়েন্দাদের ব্যর্থতাতেই ক্যাপিটলে হামলা

মিয়ানমারের ১০৮৬ নাগরিককে ফেরত পাঠালো মালয়েশিয়া


তেরখাদা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মোস্তফা জানান, জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে এ হামলার ঘটনা ঘটেছে। জানা যায়, বাবর আলীসহ কয়েকজন বিরোধপূর্ন জমিতে কাজ করছিলেন। এসময় অতর্কিতে প্রতিপক্ষের লোকজন তাদের ওপর ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা করে। 

ধারাল রামদা’র কোপে বাবর আলীসহ চারজন গুরুতর জখম হলে স্থানীয়রা তাদেরকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। তবে পথিমধ্যে বাবর আলী মারা যায়। পুলিশ এ ঘটনায় কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।  

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যার প্রতিবাদে রাঙামাটিতে মানববন্ধন

অনলাইন ডেস্ক

সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যার প্রতিবাদে রাঙামাটিতে মানববন্ধন

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে সাংবাদিক বুরহান উদ্দিন মুজাক্কিরকে গুলি করে হত্যার প্রতিবাদ ও দোষীদের বিচার দাবিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছে রাঙামাটি প্রেস ক্লাব। এতে সংহতি জানিয়েছেন স্থানীয় বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মী। 

বুধবার সকাল ১১টায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে আয়োজিত মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন রাঙামাটি প্রেস ক্লাবের সভাপতি সুশীল প্রসাদ চাকমা। 


নাসির প্রেমিক না আমার বন্ধু : মডেল মিম

আমার বয়ফ্রেন্ড নিয়ে আমিও মজায় আছি : নাসিরের সাবেক প্রেমিকা

বউ যেন এদিক-ওদিক ভাইগা না যায় : নাসিরের সাবেক প্রেমিকা (ভিডিও)

নাসির-তামিমার জন্য ভালোবাসা ও দোয়া : শবনম ফারিয়া


এতে সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন, জেলা স্কাউট কমিশনার ও প্রতিবন্ধী স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা নুরুল আবচার, রাঙামাটি প্রেস ক্লাবের সহ-সভাপতি মিল্টন বড়ুয়া, সাধারণ সম্পাদক নন্দন দেবনাথ, সাংবাদিক শান্তিময় চাকমা ও উচিংছা রাখাইন কায়েস প্রমুখ। 

সমাবেশ পরিচালনা করেন রাঙামাটি প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক সৈকত রঞ্জন চৌধুরী। 

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

তামিমার বাচ্চা আছে, বয়ফ্রেন্ডও ছিল সবই জানি: নাসির

অনলাইন ডেস্ক

তামিমার বাচ্চা আছে, বয়ফ্রেন্ডও ছিল সবই জানি: নাসির

বিয়ে নিয়ে উদ্ভুত আলোচনা-সমালোচনার জবাব দিয়েছেন ক্রিকেটার নাসির ও তামিমা তাম্মি। বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) গণমাধ্যমের উদ্দেশ্যে বনানীতে এক ব্রিফিংয়ের আয়োজন করেন নাসির।

নাসির ও তামিমা দাবি করেছেন, তারা দেশের আইন ও ধর্মীয় বিধান মেনে বিয়ে করেছেন। রাকিবের সঙ্গে তামিমার বৈবাহিক সম্পর্ক শেষ হয়েছে প্রায় পাঁচ বছর আগে। ২০১৬ সালে তামিমা ডিভোর্সের আবেদন করেন এবং ২০১৭ সালে ডিভোর্স হয়।

আরও পড়ুন:


আরও পড়ুন: ৩০-৩২ গার্লফ্রেন্ড থাকার পরও আমাকে ভালোবাসত নাসির: তামিমা

প্রতিদিন এক নারী ভালো লাগত না তার

এদিকে রাকিব ও নাসিরের ফোন রেকর্ড ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে। সেখানে রাকিবকে ফোন করে জিডি করার ব্যাপারটি ধামাচাপা দিতে বলেন নাসির।

কথোপথনে রাকিবের প্রশ্ন ছিল, আপনি কি তামিমা সম্পর্ক সব কিছু জানেন? উত্তরে নাসির হোসেন বলেন, তার সব কিছু জেনেশুনেই আমি তাকে বিয়ে করেছি। তার বাচ্চা আছে, তার আগেও বয়ফ্রেন্ড ছিল সবকিছুই আমি জানি। আপনার বৌ আপনার সাথে ভালো থাকলে নিশ্চয়ই আপনার ১১ বছরের সংসার ভেঙে আমার কাছে চলে আসতো না।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর