নিউইয়র্কে বাংলাদেশি তরুণের মরদেহ উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক

নিউইয়র্কে বাংলাদেশি তরুণের মরদেহ উদ্ধার

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের জ্যামাইকা এলাকার হিল সাইড এভিনিউয়ের নিজ বাসা থেকে জিমাম চৌধুরী (২১) নামের এক তরুণের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। জিমাম নিউইয়র্কের জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জেড চৌধুরী জুয়েলের একমাত্র ছেলে। জেড চৌধুরী জুয়েল ও তার পরিবারের সদস্যরা এখন বাংলাদেশে আছেন।

বুধবার বাংলাদেশ থেকে নিউইয়র্কে ফিরেন জিমাম। পারিবারিক বন্ধু পরিবার তাঁকে জেএফকে বিমানবন্দর থেকে নিয়ে আসেন। ওই পরিবারের সাথেই বুধবার রাতে ছিলেন জিমাম। তাঁকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জামাইকাস্থ হিলসাইড এভিনিউর বাসায় নামিয়ে দেয়া হয়।

শুক্রবার দিনভর জিমামের সাথে নিউইয়র্কে কারো যোগাযোগ করার খবর জানা যায়নি। শনিবার দুপুরে জিমামের বন্ধু বাসায় এসে ডাকাডাকি করে তাঁর কোন সাড়া পাচ্ছিলেন না। পরে একই বাসার নীচের তলায় থাকা লোকজনের সাহায্যে ঘরে প্রবেশ করেন।

আরও পড়ুন:


চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির নির্বাচন ২ এপ্রিল

উচ্ছেদের দেড় বছরেই আবারো দখল হচ্ছে তুরাগ

মুণ্ডুমালা পৌরসভায় মেয়র পদে নৈশপ্রহরীর জয়

দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রবাসী বাংলাদেশি দুই ভাইকে গুলি, নিহত ১


জিমামের নিশ্চল শরীরে দেখে দ্রুত ৯১১ এ কল দেয়া হয়। পুলিশ এসে জিমামের মৃতদেহ উদ্ধার করে। তাঁর মরদেহ মেডিকেল পরীক্ষার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে। হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা গেছে বলে এখন পর্যন্ত পাওয়া তথ্যে জানা গেছে।

 
সিলেট শহরে নিজের বাসায় অবস্থানরত জিমামের বাবা জুয়েল চৌধুরী ও মা লুবানা চৌধুরীকে একমাত্র ছেলের মৃত্যুর কথা জানানো হয়েছে। সব স্থানীয় আনুষ্টানিকতার পর নিউইয়র্কে জানাজা শেষে জিমামের মরদেহ দেশে পাঠানোর কথা পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সৌদিতে আশার আলো দেখছে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের

অনলাইন ডেস্ক


সৌদিতে আশার আলো দেখছে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের

সৌদি আরবে করোনাজনিত নিষেধাজ্ঞার সময়সীমা আর বাড়বে না বলে জানিয়েছে দেশটির সংশ্লিষ্ট বিভাগ। গেল ৪ঠা ফেব্রুয়ারি থেকে ৭ই মার্চ পর্যন্ত এ বিধিনিষেধ দেয়া হয়েছিল। নিষেধাজ্ঞা শিথিলের ঘোষণায় লোকসানের মুখে থাকা বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা আবারও ক্ষতি কাটিয়ে ওঠার প্রত্যাশা করছেন।

মহামারী করোনার কারণে দীর্ঘসময় প্রবাসীদের ব্যবসা বাণিজ্যের ওপর এক ধরনের নিয়ন্ত্রণ থাকায় ক্ষতির মুখে ছিলেন ব্যবসায়ীরা। বাংলাদেশি মালিকানাধীন হোটেল, রেস্টুরেন্টগুলোতেও ছিলো একই দশা। পুঁজি হারিয়ে ব্যবসা বন্ধ করে দিতেও বাধ্য হয়েছেন অনেকে। তবে যারা টিকে আছেন তারাও প্রত্যাশা করছেন, সামনের দিনগুলোতে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আবারও ক্রেতা সমাগম শুরু হবে মার্কেটগুলোতে।


সমালোচনা আমাদের কাজের সফলতা : কবীর চৌধুরী তন্ময়

পাবনায় থাকছেন শাকিব খান

সাধ্যের মধ্যে ৮ জিবি র‍্যামের রেডমি ফোন

কমেন্টের কারণ নিয়ে যা বললেন কবীর চৌধুরী তন্ময়


 

সরকারের এমন ঘোষণায় স্বস্তি ফিরেছে বাংলাদেশি রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ীদের মধ্যে।

তারা বলেন, আশা করছি আর ক্ষতি হবে না। দোকান খোলা থাকলে লোকসান পুষিয়ে নেওয়া যাবে। 

নতুন ঘোষণার ফলে সিনেমা, খেলাধুলা, বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে বিধিনিষেধ উঠে যাবে, এছাড়াও রেস্টুরেন্টে সরাসরি খাবার পরিবেশনে আর কোন বাধা থাকবে না। তবে, সব ক্ষেত্রে করোনা সতর্কতার নিয়মসমূহ কঠোরভাবে মেনে চলতে হবে। অন্যথায় নিয়ম অমান্যকারী ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে জরিমানাসহ আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে হোটেল, রেস্তোরাঁ, কমিউনিটি সেন্টারে যে কোনো বড় আয়োজনের ওপর নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে বলে জানানো হয়েছে। তবে যে কোনো সামাজিক অনুষ্ঠানে ২০ জনের বেশি মানুষের উপস্থিতির নিষেধাজ্ঞা আগের মতোই বহাল থাকবে।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

নিউইয়র্কে ৭ মার্চের ৫০ বছর উদযাপন

অনলাইন ডেস্ক

নিউইয়র্কে ৭ মার্চের ৫০ বছর উদযাপন

ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ৫০ বছর উদযাপন উপলক্ষে নিউইয়র্কে আলোচনা সভা ও আবৃত্তি অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে বাংলাদেশ ক্লাব ইউএসএ। 

স্থানীয় সময় রোববার (৭ মার্চ) সন্ধ্যায় জ্যাকসন হাইটসে ক্লাবের কার্যালয়ে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

সাংবাদিক ও নাট্যকার তোফাজ্জল লিটনের সঞ্চালনায় সভায় আলোচনা করেন লেখক ও সাংবাদিক শামীম আল আমিন, চিত্রশিল্পী সাঈদ রহমান, অ্যাক্টিভিস্ট রাজিব আহসান। কবিতা আবৃত্তি করেন আয়োজক সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মো. মাহফুজুল হক। স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি করেন সংস্কৃতিকর্মী শিবলী সাদিক।


সমালোচনা আমাদের কাজের সফলতা : কবীর চৌধুরী তন্ময়

পাবনায় থাকছেন শাকিব খান

সাধ্যের মধ্যে ৮ জিবি র‍্যামের রেডমি ফোন

কমেন্টের কারণ নিয়ে যা বললেন কবীর চৌধুরী তন্ময়


 

বক্তারা আগামী প্রজন্মের কাছে বঙ্গবন্ধুর জীবনী ও কাজকে সঠিকভাবে তুলে ধরারও তাগিদ দেন।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ভিয়েনায় বাংলাদেশ দূতাবাসে ৭ মার্চ পালিত

অনলাইন ডেস্ক

ভিয়েনায় বাংলাদেশ দূতাবাসে ৭ মার্চ পালিত

ভিয়েনাস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস ও স্থায়ী মিশনে যথাযোগ্য মর্যাদা ও ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে ‘ঐতিহাসিক ৭ মার্চ’  পালন করা হয়েছে। 

গতকাল সকালে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে দিবসটি উপলক্ষে গৃহীত কার্যক্রমের শুরু হয়। দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীগণসহ অস্ট্রিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ও স্থায়ী প্রতিনিধি মোহাম্মদ আব্দুল মুহিত স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানিয়ে পুষ্প স্তবক অর্পণ করেন।    

পরে বিকেলে ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের গুরুত্ব ও তাৎপর্য নিয়ে এক অনলাইন আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট লেখক, গবেষক ও মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি জনাব মফিদুল হক। এতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাগণ, অস্ট্রিয়া, হাঙ্গেরি, স্লোভেনিয়া ও স্লোভাকিয়ায় বসবাসরত প্রবাসী বাঙালি, সাংবাদিক, ছাত্রছাত্রীসহ বিভিন্ন ব্যক্তিবর্গ অংশগ্রহণ করেন।

আলোচনা সভার শুরুতে কোরআন তেলাওয়াত করা হয়। এরপর আলোচনা অনুষ্ঠানের শুরুতে দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করা হয়। অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন রাষ্ট্রদূত ও স্থায়ী প্রতিনিধি মোহাম্মদ আব্দুল মুহিত।


চলন্ত বাস থেকে ফেলে দেওয়া হলো প্রতিবন্ধী নারীকে

অর্থনীতির নতুন পথ সন্ধানের এখনই সময়

৫ বছরে লাশ হয়ে দেশে ফিরেছেন ৪৮৭ নারী শ্রমিক

সন্তানদের নিয়ে রাজনীতি করবেন না : শ্রীলেখা


অনুষ্ঠানের প্রধান আলোচক জনাব মফিদুল হক তার উপস্থাপনায় ৭ মার্চের ভাষণের ঐতিহাসিক পটভূমি, বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে এই ভাষণের গুরুত্ব ও তাৎপর্য, বিশ্বপরিমন্ডলে এই ভাষণের অবস্থান এবং ইউনেস্কো কর্তৃক এই ভাষণকে International Memory of the Word Register-এ অন্তর্ভুক্তির বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ একটি নতুন ধারার জাতীয় মুক্তি আন্দোলন ও একটি জাতিরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় অনস্বীকার্য অবদান রেখেছে। ভাষাভিত্তিক অসাম্প্রদায়িক জাতীয়তা, পশ্চাৎপদ জনগোষ্ঠীর অধিকার আদায় এবং সংঘাতের বিপরীতে সম্প্রীতির বিজয় অর্জনে বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ যুগযুগ ধরে অনুপ্রেরণা দিয়ে যাবে বলে তিনি মতপ্রকাশ করেন।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

৭ই মার্চের ভাষণ উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হলো কানাডাতে

লায়লা নুসরাত, কানাডা

৭ই মার্চের ভাষণ উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হলো কানাডাতে

কানাডার ক্যালগেরিতে আলবার্টার প্রথম বাংলা অনলাইন পোর্টাল "প্রবাস বাংলা ভয়েস" এর আয়োজনে "ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ : ৭১ এর মুক্তিযুদ্ধে প্রবাসীদের অনুপ্রেরণা " শীর্ষক এক ভার্চুয়াল আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

প্রধান সম্পাদক আহসান রাজীব বুলবুল এর সঞ্চালনায় আলোচনায় প্রধান অতিথি ছিলেন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী ও একুশে পদকপ্রাপ্ত শিল্পী ফকির আলমগীর। বিশেষ অতিথি ছিলেন ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালগেরির অধ্যাপক ডক্টর আনিস হক ও ক্যালগেরির এবিএম কলেজের প্রেসিডেন্ট ডক্টর মোহাম্মদ বাতেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন কলামিস্ট, উন্নয়ন গবেষক ও সমাজতাত্ত্বিক বিশ্লেষক মোঃ মাহমুদ হাসান।

আলোচনায় বক্তারা বলেন - বঙ্গবন্ধুর ভাষণ এখন শুধু বাঙালীর নয়, সারা বিশ্বের তথা মানব সভ্যতার অহংকার। এ ভাষণ কালোত্তীর্ণ বিশ্ব ক্লাসিক, যা ইউনেস্কো বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ করে নিয়েছে, ইন্টারন্যাশনাল মেমোরি অফ ওয়ার্ল্ড রেজিস্ট্রারে অন্তর্ভুক্ত করেছে।

বক্তারা আরো বলেন ৭ ই মার্চের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণের পরেই সারা বিশ্বে প্রবাসীরা জেগে ওঠে। ঐতিহাসিক ঐ ভাষনের দিক নির্দেশনা পেয়েই পরোক্ষভাবে প্রবাসীরা মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করে।

প্রধান অতিথি একুশে পদকপ্রাপ্ত শিল্পী ও স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী ফকির আলমগীর বলেন- ৫০ বছর আগের এ দিনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণে গর্জে উঠেছিল উত্তাল জনসমুদ্র। লাখ লাখ মানুষের গগনবিদারী শ্লোগানে উত্তাল বসন্তের মাতাল হাওয়ায় সেদিন পতপত করে উড়ে বাংলাদেশের মানচিত্র খচিত লাল-সবুজের পতাকা। 

সেদিন শপথের লক্ষ বজ্রমুষ্ঠি উত্থিত হয় আকাশে। বঙ্গবন্ধু সেদিন শুধু স্বাধীনতার চূড়ান্ত আহবানটি দিয়েই চুপ থাকেননি, স্বাধীনতা অর্জনের লক্ষ্যে মুক্তিযুদ্ধের রূপরেখাও দিয়েছিলেন। মূলত বঙ্গবন্ধুর সেই ভাষণেই ছিল ৯ মাসব্যাপী বাংলার মুক্তি সংগ্রামের ঘোষণা ও মূল ভিত্তি।

বিশেষ অতিথি ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালগেরির প্রফেসর ডক্টর আনিস হক বলেন- দূরে বসে আজ আমরা দেশের কথা ভাবছি, মুক্তিযুদ্ধে যারা সরাসরি ও পরোক্ষভাবে সহযোগিতা করেছেন এবং যারা দেশের জন্য প্রাণ দিয়েছেন প্রত্যেকের প্রতি আমার সশ্রদ্ধ সালাম ও কৃতজ্ঞতা।


বিশ্ব নারী দিবস আজ

নারীর কর্মসংস্থান হলেও বেড়েছে নির্যাতন নিপীড়ন

অস্তিত্ব রক্ষায় এখনো সংগ্রামী নারী, তবে আজো ন্যয্যতা আর নিরাপত্তা বঞ্চিত

সাইবার অপরাধের সবচেয়ে বড় ভুক্তভোগী নারীরা


বিশেষ অতিথি ক্যালগেরির এবিএম কলেজের প্রেসিডেন্ট ডক্টর মোহাম্মদ বাতেন বলেন- বঙ্গবন্ধুর ৭ ই মার্চের ভাষণ ছিল বাংলাদেশ রাষ্ট্রের ভিত্তিমূল উজ্জ্বল ও প্রেরণাভূমি। ঐতিহাসিক সেই ভাষণ আজও বাঙালি জাতির অনুপ্রেরণার অনির্বাণ শিখা হয়ে অফুরন্ত শক্তি ও সাহস যুগিয়ে আসছে।

কলামিস্ট, উন্নয়ন গবেষক ও সমাজতাত্ত্বিক বিশ্লেষক মোঃ মাহমুদ হাসান বলেন- জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ সকল বীর মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তি সংগ্রামে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সহায়তা করে যারা স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ে অবদান রেখেছেন তাদের প্রতি আমার শ্রদ্ধা। ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষনই ছিল মুক্তিকামী জনতার প্রেরণার উৎস - স্বাধীনতা সংগ্রামের চুড়ান্ত দিক নির্দেশনা। 

প্রকৌশলী মোহাম্মদ কাদির বলেন- ঐতিহাসিক ঐ ভাষণে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে নির্দেশ দেন।ঐ ভাষণই ছিল দেশপ্রেমের আদর্শে আত্মপ্রত্যয়ী হয়ে ওঠার।

প্রকৌশলী আব্দুল্লা রফিক বলেন- ১৯৭১ সাল থেকে এ পর্যন্ত সকল গনতান্ত্রিক আন্দোলনে ফকির আলমগীর এর ভুমিকা 
প্রশংসার দাবি রাখে। তিনি আরো বলেন -বিশ্বে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ এমন একটি ভাষণ যা যুগের পর যুগ, বছরের-পর-বছর, ঘন্টার পর ঘন্টা বেজে চলেছে।

সিলেট অ্যাসোসিয়েশন অফ ক্যালগেরির সভাপতি রূপক দত্ত বলেন-বঙ্গবন্ধুর ভাষণটির আবেদন এখনো কমেনি। ৫০ বছর ধরে একই আবেদন নিয়ে টানা কোন ভাষণ এভাবে শ্রবণের নজির বিশ্বের ইতিহাসে নেই। ঐতিহাসিক ঐ ভাষণের পরেই জাতি সেদিন উদ্বুদ্ধ হয়েছিল, স্বাধীনতা সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল।

রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ী ইকবাল রহমান ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ থেকে পরবর্তী প্রজন্ম বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের পটভূমিকে জানার সুযোগ হয়েছে বলে অভিমত ব্যক্ত করেন।

news24bd.tv/আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

অর্থ সংকটে চিকিৎসা করতে পারছেন না যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী সারওয়ার

অনলাইন ডেস্ক

অর্থ সংকটে চিকিৎসা করতে পারছেন না যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী সারওয়ার

অর্থ সংকটে চিকিৎসা করতে পারছেন না যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী সারওয়ার হোসেন মুক্তা। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক এই শিক্ষার্থীর হৃদপিণ্ড প্রতিস্থাপন কয়েক লাখ মার্কিন ডলার প্রয়োজন বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে।

বর্তমানে পেনসেলভেনিয়ার পেন মেডিসিন প্রেসবেট্রেইন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন সারওয়ার হোসেন মুক্তা। তার স্ত্রী নার্গিস ফাতেমা বিপ্লবী বলেন, ‘আমাদের ১১ বছরের একটা মেয়ে আছে। নানা সমস্যার মধ্যে দিয়ে আমরা ১৭ বছর একসঙ্গে অতিক্রম করেছি। হঠাৎ করেই আমার সুখের সংসারটি ওলট-পালট হয়ে গেছে। কিছুদিন আগে আমার স্বামী হার্ট অ্যাটাক করলে চিকিৎসকরা হার্টে ব্লক খুঁজে পান। তাকে হাসপাতালে নিলে লাইফ সাপোর্টে রাখেন এবং চিকিৎসকরা হৃদপিণ্ড প্রতিস্থাপনের পরামর্শ দেন। কিন্তু দুর্ভাগ্য আমাদের কোনো মেডিকেল ইন্সুরেন্স নেই। এমতাবস্থায় তার সার্জারি চিকিৎসায় অনেক অর্থের প্রয়োজন, যা আমাদের পক্ষে সংগ্রহ করা সম্ভব হচ্ছে না।’

আরও পড়ুন:


দেব-মিমি-নুসরাত যে কারণে প্রার্থীদের তালিকায় নেই

ওমান সাগরে তৈরি হবে ইরানের সর্ববৃহৎ সমুদ্রবন্দর

নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সাক্ষাৎ হবে তাই ঘুম হয়নি শ্রাবন্তীর

ট্রাকচাপায় চবি আইন বিভাগের প্রথম ব্যাচের ছাত্রের মৃত্যু


পরিবারের সক্ষমতা না থাকায় দেশি বিদেশি সকলের কাছে সাহায্যের আবেদন জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমার স্বামী স্বাস্থ্যবান ও পরিশ্রমী মানুষ। তার এই চেহারা কল্পনাই করতে পারছি না, তাকে ছাড়া সামনের দিনগুলোর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করা সম্ভব না। তাই সকালের কাছে সহযোগিতার আবেদন করছি। আপনাদের সহযোগিতায় পারে আমার স্বামীকে সুস্থ করতে।’

দেশ ও প্রবাসের সহৃদয়বান ব্যক্তিদের সাহায্যের আশায় নার্গিস ফাতেমা বিপ্লবী সামাজিক যোগামাধ্যম ফেসবুকে একটি ফান্ডরেইজ পেজ (https://gofund.me/b6fa0ba1) খুলেছেন। আগ্রহীরা এই পেজে গিয়ে সহযোগিতা করতে পারবেন।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর