আল-জাজিরার প্রতিবেদন মিথ্যা ও মানহানিকর: পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

নিজস্ব প্রতিবেদক

আল-জাজিরার প্রতিবেদন মিথ্যা ও মানহানিকর: পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

কাতার ভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার ‘অল দ্য প্রাইম মিনিস্টারস ম্যান’ শিরোনামে প্রতিবেদনটি মিথ্যা ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে প্রত্যাখান করেছে বাংলাদেশ সরকার। 

গতকাল সোমবার ওই প্রতিবেদনটি প্রচার করে আল জাজিরা। এরপরই রাতেই পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বাংলাদেশ সরকারের অবস্থান সম্পর্কে জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয় সাধারণত জনগণের প্রগতিশীল ও ধর্মনিরপেক্ষ নীতিগুলোর বিরোধিতাকারী জামায়াতে ইসলামীর উগ্রগোষ্ঠীর সঙ্গে সম্পর্কিত ও রাজনৈতিকভাবে প্রভাবিত হয়ে বিভ্রান্তিকর প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে।

১৯৭১ সালে গণহত্যায় জামায়াতে ইসলামীর অপরাধী চক্র লাখ লাখ বাঙালি বেসামরিক মানুষকে হত্যা করেছিল। দুই লক্ষাধিক বাঙালি নারীকে ধর্ষণ করেছিল। তবে আল জাজিরা রাজনৈতিক পক্ষপাতিত্বের কারণে এটা কখনোই তুলে ধরেনি। আল জাজিরার প্রধান ভাষ্যকার ডেভিড বার্গম্যান আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল বাংলাদেশ কর্তৃক একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সরকারি মৃত্যুর সংখ্যা চ্যালেঞ্জের জন্য দোষী সাব্যস্ত করেছেন। এটি লক্ষ করা যায় যে, আল জাজিরার অভিযোগের মূল উৎস হলো, আল জাজিরা নিজেই সাইকোপ্যাথ হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

আরও পড়ুন:


হাতিরঝিল থেকে উত্ত্যক্তকারীকে ৩১ জন আটক

নিয়োগ দেবে বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন করপোরেশন

নিউ ইয়র্ক পুলিশের লে. কমান্ডার হলেন বাংলাদেশি শামসুল হক

সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপ‌তি মুনসুর আহমেদ না ফেরার দেশে


কেননা নির্দিষ্ট ব্যক্তির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশের সরকারি প্রতিষ্ঠান জড়িত থাকার কোনো প্রমাণ হাজির করা হয়নি। মানসিকভাবে অস্থির একজন লোকের কথার ভিত্তিতে সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া একটি আন্তর্জাতিক নিউজ চ্যানেলের জন্য বড় ধরনের দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণ ছাড়া আর কিছুই নয়।

জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশের পৃষ্ঠপোষকতাযুক্ত কয়েকজন দণ্ডিত পলাতক অপরাধী বাংলাদেশ বিরোধী অপপ্রচার চালিয়ে আসছে। বিশেষ করে আল জাজিরা লন্ডন থেকে সেসব মিত্রদের দ্বারা প্ররোচিত হয়ে এ ভিত্তিহীন অপপ্রচার করছে। বাংলাদেশ সে সরকার ভিত্তিহীন প্রচারণা প্রত্যাখ্যান করছে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

‘অর্জন ধরে রাখতে নারীর লড়াইটা চালিয়ে যাওয়া জরুরি’

অনলাইন ডেস্ক

‘অর্জন ধরে রাখতে নারীর লড়াইটা চালিয়ে যাওয়া জরুরি’

আন্তর্জাতিক নারী দিবসে বাংলাদেশ প্রতিদিন ও নিউজ টোয়েন্টিফোরের আয়োজনে গোলটেবিল বৈঠকে বক্তারা

গ্রামীণ অবকাঠামোতে যেমন নারীর অবদান আছে তেমনি শহরেও পুরুষের সমানতালে তারা সবক্ষেত্রে এগিয়ে গেছে। বিদেশে গিয়ে নারীরা দেশে রেমিট্যান্স পাঠাচ্ছে। সব ক্ষেত্রে নারীরা কাজ করছেন। নারীদের আরও সামনে এগিয়ে নিতে নারীবান্ধব মানসিকতা ও নারীবান্ধব নীতি প্রণয়ন করতে হবে। কারণ নারীরা এগিয়ে গেলে সমাজও এগিয়ে যাবে। নারীর অবস্থা পরিবর্তনের লড়াই জন্ম থেকে জন্মান্তরের লড়াই। নারীর পরিবর্তনের লড়াইয়ের লক্ষ্য পূরণ হলেও এ লড়াই অব্যহত রাখতে হবে। কারণ অর্জন ধরে রাখতে নারীর লড়াইটা চালিয়ে যাওয়া জরুরি।   

আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে 'পরিবর্তনের লড়াইয়ে নারী' শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে বক্তারা এসব কথা বলেন।  আজ সোমবার বিকেলে এ গোলটেবিল বৈঠকের আয়োজন করে বাংলাদেশ প্রতিদিন ও বেসরকারি স্যাটেলাইট চ্যানেল নিউজ টোয়েন্টিফোর। নিউজ টোয়েন্টিফোরের চিফ নিউজ এডিটর শাহনাজ মুন্নীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তারা আরও বলেন, বিশ্বে নারী ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ রোল মডেল। করোনা মোকাবেলায় বাংলাদেশ সাফল্য দেখিয়েছে। নারীর আরও বেশি করে রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন জরুরি।


সমালোচনা আমাদের কাজের সফলতা : কবীর চৌধুরী তন্ময়

পাবনায় থাকছেন শাকিব খান

সাধ্যের মধ্যে ৮ জিবি র‍্যামের রেডমি ফোন

কমেন্টের কারণ নিয়ে যা বললেন কবীর চৌধুরী তন্ময়


অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক ও নিউজ টোয়েন্টিফোরের সিইও নঈম নিজাম। বৈঠকে নারীদের বিভিন্ন ক্ষেত্রে লড়াই ও অনগ্রসর নারীদের সামনে এগিয়ে যাওয়ার বিষয়ে কথা বলেন সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাড. নূরজাহান মুক্তা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রিমিনোলজি বিভাগের চেয়্যারম্যান ড. খন্দকার ফারজানা রহমান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক ডা. জাহানারা আরজু, শিক্ষক ও গবেষক আরিফা রহমান রুমা, ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রহিমা আক্তার লাকী, নারী অধিকার কর্মী মাহফুজা মালা, নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর (অ.) নাসির উদ্দিন আহমদ, ইউনাইটেড হাসপাতালের কমিউনিকেশন অ্যান্ড বিজনেস ডেভেলপমেন্টের পরিচালক ডা. শাগুফা আনোয়ার, ক্রীড়া সংগঠক ও ব্যবসায়ী নাফিসা কামাল, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গীত বিভাগের শিক্ষক ও সঙ্গীতশিল্পী অনিমা রায়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পুষ্টিবিজ্ঞান ইন্সটিটিউটের সহকারী অধ্যাপক ড. সুমাইয়া মামুন সিমরান, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেডের হেড অব নেটওয়ার্ক এক্সপেনশনের সেলিনা আলম ও অভিনেত্রী মৌটুসী বিশ্বাস। অনুষ্ঠান শেষে সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে সমাপনী বক্তৃতা দেন কালের কণ্ঠের সম্পাদক ও কথাশিল্পী ইমদাদুল হক মিলন।  

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্লাস্টিক শিল্পে সরকারের বিশেষ নজর

অনলাইন ডেস্ক

প্লাস্টিক শিল্পে সরকারের বিশেষ নজর

ইউরোপ, আমেরিকা, ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্লাস্টিক পণ্য রফতানি করে বাংলাদেশ। এ জন্য তৈরি পোশাকের মতো এই খাতটিতেও নজর দিচ্ছে সরকার। এরই মধ্যে এই পল্লীর জন্য ৫০ একরের জমি বরাদ্দ দিয়েছে সরকার। এখানে গড়ে তোলা হবে পরিকল্পিত প্লাস্টিক পল্লী।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বাংলাদেশে ৫ হাজারের বেশি ছোট বড় প্লাস্টিক কারখানা আছে। যেখানে  কর্মসংস্থান হয় প্রায় ১২ লাখ মানুষের। এ খাত থেকে সরকার প্রায় সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা রাজস্ব পাচ্ছে।

পণ্য বহুমুখীকরণের অংশ হিসেবে এই খাতের ওপর সরকারের বিশেষ নজর সম্পর্কে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘পণ্য বহুমুখীকরণের অংশ হিসেবে প্লাস্টিক খাতের সম্ভাবনা কাজে লাগাতে সবরকম সহায়তা করতে সরকার প্রস্তুত।’


আরও পড়ুনঃ


সমালোচনা আমাদের কাজের সফলতা : কবীর চৌধুরী তন্ময়

পাবনায় থাকছেন শাকিব খান

সাধ্যের মধ্যে ৮ জিবি র‍্যামের রেডমি ফোন

কমেন্টের কারণ নিয়ে যা বললেন কবীর চৌধুরী তন্ময়


তবে অর্থনীতিবিদদের পরামর্শ প্লাস্টিকের উৎপাদন ও ব্যবহার বাড়লে পরিবেশের ক্ষতির যে আশঙ্কা রয়েছে, তা ঠেকানোর ব্যাপারেও চিন্তা করতে হবে।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

পুলিশের সাথে সংঘর্ষের ঘটনায় যুবদলের ৮ জন রিমান্ডে

অনলাইন ডেস্ক

পুলিশের সাথে সংঘর্ষের ঘটনায় যুবদলের ৮ জন রিমান্ডে

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে পুলিশ ও ছাত্রদলের সংঘর্ষের ঘটনায় করা শাহবাগ থানায় করা মামলায় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদল সভাপতি রফিকুল আলম মজনুসহ আট জনের দুই দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত।

সোমবার (৮ মার্চ) ঢাকা মহানগর হাকিম মামুনুর রশীদ শুনানি শেষে এ আদেশ দেন। রিমান্ডে নেয়া অপর আসামিরা হলেন খালেক টিপু, রাসেল, দিল গনি, শহিদুল ইসলাম, মোশাররফ, আবুল কাশেম ও ওয়াহিদ।

সংঘর্ষের ঘটনায় গত রোববার শাহবাগ থানার উপপরিদর্শক পলাশ শাহা বাদী হয়ে ৪৮ আসামির নাম উল্লেখসহ ২০০/২৫০ জন আসামির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

সোমবার মামলার আসামিদের আদালতে হাজির করা হয়। এরপর মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা শাহবাগ থানার উপপরিদর্শক মো. আব্দুল্লাহ প্রত্যেক আসামির দশ দিন করে রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেন। অন্যদিকে আসামি পক্ষের আইনজীবীরা রিমান্ড বাতিল ও জামিন চেয়ে আবেদন করেন।


আরও পড়ুনঃ


সমালোচনা আমাদের কাজের সফলতা : কবীর চৌধুরী তন্ময়

পাবনায় থাকছেন শাকিব খান

সাধ্যের মধ্যে ৮ জিবি র‍্যামের রেডমি ফোন

কমেন্টের কারণ নিয়ে যা বললেন কবীর চৌধুরী তন্ময়


এ সময় রাষ্ট্রপক্ষ রিমান্ডের পক্ষে শুনানি করেন। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত প্রত্যেকের দুই দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এর আগে গত ৫ মার্চ মজনুসহ আটজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

রাস্তায় ময়লা ফেললে সেই ময়লা বাসায় পৌঁছে দেয়া হবে : মেয়র আতিক

নিজস্ব প্রতিবেদক

রাস্তায় ময়লা ফেললে সেই ময়লা বাসায় পৌঁছে দেয়া হবে : মেয়র আতিক

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেছেন, রাস্তায় যে ময়লা ফেলবে, সেই ময়লা তাদের বাসায় পৌঁছে দেওয়া হবে।

বিস্তারিত আসছে...


পশ্চিমবঙ্গের কাছে পর্যাপ্ত পানি থাকবে তখন তিস্তা চুক্তি: মমতা

যে দোয়া পড়লে বিশ্ব নবীর সঙ্গে জান্নাতে যাওয়া যাবে!

খুলনায় সওজ কার্যালয় ঘেরাও কর্মসূচি, ক্ষোভ

৭ই মার্চের অনুষ্ঠান থেকে বেড়িয়ে গেলেন অথিতিরা


news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

দিল্লীতে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চ দিবস পালিত

অনলাইন ডেস্ক

দিল্লীতে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চ দিবস পালিত

বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চ ভাষণ দিবস পালন করেছে নয়াদিল্লীস্থ বাংলাদেশ হাই কমিশন। এ উপলক্ষে রোববার (৭ মার্চ) সকালে দূতাবাস প্রাঙ্গণে ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাই কমিশনার মোহাম্মদ ইমরান জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন। 

তারপর তিনি দূতাবাসের কর্মকর্তা, কর্মচারী এবং আগত অতিথিদের সঙ্গে নিয়ে দূতাবাসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্পমাল্য অর্পণের মাধ্যমে গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

অনুষ্ঠানে হাই কমিশনার তার বক্তব্যে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ১৮ মিনিটের বক্তব্যের গুরুত্বপূর্ণ দিক বিশ্লেষণ করেন এবং ইউনেস্কো কর্তৃক ২০১৭ সালে ভাষণটি বিশ্বের অন্যতম সেরা ভাষণ হিসেবে স্বীকৃতির প্রশংসা করেন।


পশ্চিমবঙ্গের কাছে পর্যাপ্ত পানি থাকবে তখন তিস্তা চুক্তি: মমতা

যে দোয়া পড়লে বিশ্ব নবীর সঙ্গে জান্নাতে যাওয়া যাবে!

খুলনায় সওজ কার্যালয় ঘেরাও কর্মসূচি, ক্ষোভ

৭ই মার্চের অনুষ্ঠান থেকে বেড়িয়ে গেলেন অথিতিরা


তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক এই ভাষণটি ছিল একটি পরাধীন জাতির মুক্তির দিক নির্দেশনামূলক, অনুপ্রেরণাদায়ক বক্তব্য। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের নির্দেশনা থেকেই মুক্তিপাগল বাঙালি স্বাধীনতা সংগ্রামে ঝাপিয়ে পড়েন এবং চূড়ান্তভাবে বিশ্ব মানচিত্রে বাংলাদেশের অভ্যুদয় ঘটে। 

তিনি আরও বলেন, আমরা সৌভাগ্যবান যে, বঙ্গবন্ধুর রক্ত ও তার আদর্শের উত্তরাধিকার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারের অধীনেই স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উৎসব পালন করতে যাচ্ছি।

অনুষ্ঠানে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে দেওয়া রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বাণী পাঠ করা হয়।

৭ মার্চ উপলক্ষে দূতাবাসে সন্ধ্যার অনুষ্ঠানে অংশ নেন বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত, কূটনীতিক, স্থানীয় গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ ও বিশিষ্ট গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব। রাষ্ট্রদূত ও কূটনীতিকরা এ সময়ে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের ওপর নির্মিত একটি প্রামাণ্যচিত্র প্রর্দশন করেন। 

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর