আওয়ামী লীগের সমর্থন বৃদ্ধির প্রতিফলন হচ্ছে স্থানীয় সরকার নির্বাচন: প্রধানমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

আওয়ামী লীগের সমর্থন বৃদ্ধির প্রতিফলন হচ্ছে স্থানীয় সরকার নির্বাচন: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আওয়ামী লীগের সমর্থন বৃদ্ধি পেয়েছে যার প্রতিফলন স্থানীয় সরকার নির্বাচনগুলোতে দেখা গেছে।

তিনি বলেন, ‘বিএনপি’র আজকে সেই দশা। তারা যত বক্তৃতা দিক আর যত কথাই বলুক না কেন তাদের নেতৃত্বের অভাব রয়েছে। সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামী যখন একটা দলের নেতা তখন তাদের ওপর মানুষের আস্থা ও বিশ্বাস কিছুই থাকে না। সেই বিশ্বাস ও আস্থা এখন আর তাদের প্রতি জনগণের নেই। আস্তে আস্তে সেই জায়গাটা সরে গেছে।’

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, মানুষ আওয়ামী লীগের কাছ থেকে যেহেতু সেবা পেয়েছে, দেশের উন্নয়ন হচ্ছে, দেশের মানুষের কল্যাণ হচ্ছে কাজেই স্বাভাবিকভাবেই দেশের মানুষের আস্থা ও বিশ্বাস আওয়ামী লীগ অর্জন করেছে। যার প্রতিফলন আমরা দেখলাম আমাদের স্থানীয় সরকার নির্বাচনগুলোতে।

প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা আজ একাদশ জাতীয় সংসদের একাদশ অধিবেশনের সমাপনী অধিবেশনে প্রদত্ত ভাষণে এসব কথা বলেন।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এ সময় অধিশেনে সভাপতিত্বে করছিলেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, পদ্মা সেতু নির্মাণ নিয়ে অনেক কথা, আমাদের দুর্ভাগ্য ও হাসি পায় যে, যাদের গায়ে দুর্নীতির ছাপ, যারা ক্ষমতায় থাকাকালে বাংলাদেশ ৫ বার দুর্নীতিতে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়েছে সময়, এতিমের অর্থ আত্মসাতের দায়ে যাদের নেতাকে কারাবরণ করতে হয়, ১০ ট্রাক অস্ত্র পাচারের মামলা রয়েছে যাদের বিরুদ্ধে, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা করে বিরোধী দলের নেতাকে হত্যার প্রচেষ্টার মামলায় যারা সাজাপ্রাপ্ত তারা যদি জনগণের নেতৃত্বে থাকে তবে সেই দল জনগণের কাজ করবে কীভাবে।

তিনি বলেন, মানুষ এখন আন্তরিকভাবে ভোট দিচ্ছে। এখন ইভিএম’র মাধ্যমে ভোট হচ্ছে যেখানে কারচুপি করার কোন সুযোগ নাই। যার যার ভোট সে নিজে দিতে পারে। অতীতের নির্বাচনকালীন প্রহসনের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, ১০টা হোন্ডা ২০টা গুন্ডা নির্বাচন ঠান্ডা’-সেদিন আর এখন নেই বা ভোট বন্ধ থাকলেও একজনকে নির্বাচিত ঘোষণা করা হতো-সেদিনও নেই।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, হ্যাঁ, মেয়র নির্বাচনে কমিশনারদের মধ্যে কখনো কখনো গোলমাল হয়, সেটা আলাদা।

অতীতের নির্বাচনগুলো কেমন ছিল সেই প্রশ্ন উত্থাপন করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘যাদের গায়ে হাজারো কাদার ছিটা তারা আবার বড় কথা বলে কোন মুখে? সেটাই আমার প্রশ্ন।’

তিনি বলেন, আজকাল অনেক কথা এবং অনেক সমালোচনা শুনি, অনেক প্রশ্ন বিএনপি নেতারা করেন। হ্যাঁ প্রশ্ন করেন, সমালোচনা করেন কিন্তু জানি না তারা আয়নায় নিজেদের চেহারাটা ভালভাবে দেখেন কি না।

খালেদা জিয়ার প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, মেকআপের জন্য চেহারা আয়নায় দেখলেও নিজেদের কাজটাকে তারা দেখেন না।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, পদ্মা সেতু নিয়ে এত কথা অথচ এরকম একটা কাজ নিজস্ব অর্থায়নে করলাম। সেটার প্রশংসা তো করতেই পারলো না। উল্টো বিএনপির নেত্রী খালেদা জিয়া বলেছিলেন, জোড়া তালি দিয়ে পদ্মা সেতু তৈরি করা হয়েছে। জোড়া তালি দিয়ে পদ্মা সেতু করা হচ্ছে কেউ উঠবেন না। তিনি বলেন, তাহলে নদীটা পার হবে কিসে? যদি নৌপথে যেতে হয় তাহলে নৌকায় যেতে হবে। উপায় তো নেই। নৌকায় চড়তে হবে।

তিনি বলেন, ‘আমাদের নৌকা অনেক বড়, কোনো অসুবিধে নেই। সবাইকে নেব, তবে দেখে নেব, কেউ আবার নৌকায় বসে নৌকা ফুটো না করে।’

এ অধিবেশনটি প্রত্যক্ষ করতে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সংসদ ভবনে আসেন এবং অধিবেশন প্রত্যক্ষ করেন বলেও স্পিকার জানান।

শেখ হাসিনা বলেন, করোনাভাইরাসের ধাক্কা সামলাতে আমরা ৩১ দফা নির্দেশনা দিয়েছি। সঙ্গে প্রণোদনা তো ছিলই। করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন নিয়ে আলোচনা শুরু হলে আমরা অগ্রিম টাকা দিয়ে ভ্যাকসিন বুকিং দিয়েছি। ভ্যাকসিন নিয়ে অনেক ব্যঙ্গ শুনেছি। এখন তো ভ্যাকসিন এসেছে। ভ্যাকসিন নিজেই সেসবের উত্তর দিয়েছে।

তিনি বলেন, অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকার ৩ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন আমরা ক্রয় করেছি। এই ভ্যাকসিন নেওয়ার পর খারাপ কোনো রিঅ্যাকশনের কথা শোনা যায়নি। তারপরও আমরা মনিটর করছি। আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে সারাদেশে সবাইকে ভ্যাকসিন দেওয়া শুরু হবে। এ নিয়ে দেশে প্রশংসা শুনিনি। কিন্তু জাতিসংঘের মহাসচিব প্রশংসা করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রথম কারা করোনা ভ্যাকসিন পাবেন সেটাও আমরা ঠিক করে ফেলেছি। করোনার ভ্যাকসিন যারা নিচ্ছেন তাদের এখনও মাস্ক পরে থাকতে হবে, সবসময় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। যতক্ষণ পর্যন্ত বিশ্ব থেকে করোনা ভাইরাস না যায় ততক্ষণ পর্যন্ত মাস্ক পরে ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।

বিশ্ব ব্যাংকের প্রেসক্রিপশনে একদা রেলশ্রমিকদের গোল্ডেন হ্যান্ডশেকের মাধ্যমে কর্মচ্যূতি ঘটিয়ে রেল বন্ধের উদ্যোগের বিরুদ্ধে তিনি সরকারের এসেই নতুন নতুন রেল স্টেশন স্থাপন, রেলের নতুন ইঞ্জিন ও ক্যারেজ ক্রয়েয় মাধ্যমে রেল পুনরুজ্জীবিত করার পদক্ষেপ তুলে ধরেন।

পাশাপাশি, সরকার সারাদেশে যোগাযোগের বিস্তৃত নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠা করে ৪শ ২৮টি রেলসেতু নির্মাণ এবং ৪৯১ কি.মি. রেললাইন নির্মাণ করেছে এবং ১ হাজার ১শ’৮১ কি.মি. রেলপথ সংস্কার করা হয়েছে, বলেন তিনি।

১৯৯৬ সালে সরকারের আসার পরই যমুনা সেতুতে রেল এবং বিভিন্ন ইউটিলিটি সার্ভিস যুক্ত করে আওয়ামী লীগ সরকার একে মাল্টিপারপাস করার উদ্যোগ গ্রহণ করে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যমুনা সেতুতে রেললাইন স্থাপনে বিশ্বব্যাংক বাধা দিলেও আমি বলেছিলাম এটা করবোই। আর এখন রেলই সবথেকে ভায়াবল প্রমাণিত হওয়ায় পৃথক রেল সেতুও আমরা নির্মাণ করছি।’

ঢাকা শহরে যানজট নিরসনে এক্সপ্রেসওয়ে ও মেট্রোরেল নির্মাণের প্রসঙ্গ উল্লেখ করেন তিনি।

পদ্মা সেতু নিয়ে সমালোচনাকারিদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ঢাকা থেকে রওয়ানা হয়ে আপনারা যদি মুন্সিগঞ্জে সেতুর পার পর্যন্ত যান তাহলেই দেখবেন রাস্তাটা কি রকম করেছি। এটা আদৌ বাংলাদেশ বলে মনে হবে না।

এ প্রসঙ্গে ঢাকা চট্টগ্রাম হাইওয়ে এবং কক্সবাজারের মেরিন ড্রাইভের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, উন্নয়নের প্রচেষ্টা থাকলে যে উন্নয়নটা করা যায় সেটাই আমরা প্রমাণ করেছি।

প্রধানমন্ত্রী এ সময় করোনা পরিস্থিতির আরো উন্নয়ন ঘটলে স্কুল-কলেজসহ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হবে উল্লেখ করে বলেন,‘শতভাগই পাশ করানো হয়েছে কিন্তু তারা যখন শিক্ষা নেবে তখনই কে টিকবে আর কে টিকবেনা সেটা যাচাই করা যাবে। আর স্কুল-কলেজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে না যেতে পারায় শিক্ষার্থীদের যে দুঃখ এইচএমসি’র ফলাফলে সেটা দূর হবে।’

এরফলে তারা পড়াশোনার মনযোগী হয়ে আগামীতে আরো ভাল ফল করবে বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।


নৌকায়ই উঠতে হবে: খালেদা জিয়াকে প্রধানমন্ত্রী

শুধু গৃহকর্মী বাবদ ট্রাম্প পাচ্ছেন প্রায় ১ লাখ ডলার

মিয়ানমারের উপর আবারও নিষেধাজ্ঞার হুমকি বাইডেনের

ভারতে কমছে সোনার দাম


যুব সমাজের কর্মসংস্থানের জন্য সরকার চতুর্থ শিল্প বিপ্লবকে লক্ষ্য ধরে দক্ষ জনশক্তি তৈরীর লক্ষ্যে নানাবিধ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে উল্লেখ করে সরকার প্রধান বলেন, দক্ষ কর্মী তৈরীর প্রশিক্ষণ প্রদানে সরকারের পাশাপাশি আওয়ামী লীগের সিআরআই’র পক্ষ থেকে এবং ইয়াং বাংলার পক্ষ থেকে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

করোনাভাইরাসের মধ্যেও সারাদেশে প্রাক প্রাথমিক থেকে মাধ্যমিক পর্যায় পর্যন্ত বিনামূল্যে পাঠপুস্তক বিতরণ অব্যাহত রেখেছে এবং প্রায় ২ কোটি শিক্ষার্থীকে বৃত্তি এবং উপবৃত্তি প্রদান করে যাচ্ছে, বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় তাঁর সরকার সারাদেশে ২ হাজার ডাক্তার, ৬ হাজার নার্সসহ স্বাস্থ্যকর্মী এবং ল্যাব টেকনিশিয়ানদের নিয়োগ প্রদান করেছে। সেইসাথে চিকিৎসা খাতে আরো জনবল দরকার রয়েছে সেগুলো নেয়া হবে।

সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘দেশে-বিদেশে নানা অপপ্রচার হচ্ছে, শত্রুর মুখে ছাই দিয়ে এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘মুজিবের বাংলায় কেউ গৃহহীন থাকবে না। ইতোমধ্যে ৭০ হাজার গৃহহীনকে ঘর করে দেয়া হয়েছে। আরও ১ লাখ ঘর নির্মাণকাজ চলছে। মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে এ ঘরগুলো হস্তান্তর করা হবে।’

সমাপনী ভাষণে শেখ হাসিনা বিরোধীদলীয় নেতার অনুপস্থিতির কথা তুলে ধরে বলেন, ‘এ অধিবেশন করোনার সময়ে চলছে। যার জন্য হয়তো সব সংসদ সদস্যকে একই সঙ্গে আনা সম্ভব হচ্ছে না। আমাদের বিরোধীদলীয় নেতার এখানে আসার কথা ছিল। কিন্তু তার বাসায় একজনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে বলে তিনি জনগণের কথা চিন্তা করে এখানে আসেননি। আমরা তার বক্তৃতা শুনতে পারলাম না এজন্য আমি দুঃখিত, কিন্তু তার ভেতর যে জনগণের প্রতি কল্যাণমূলক চিন্তা তার জন্য তাকে ধন্যবাদ। তবে, তিনি এলে ভালো হতো আমরা তার বক্তব্যও শুনতে পেতাম।’

সূত্র: বাসস

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল করুন: ডা. জাফরুল্লাহ

মাহমুদুল হাসান

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল করুন: ডা. জাফরুল্লাহ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধন বা পরিমার্জন নয় পুরোপুরি বাতিল করা উচিত বলে মনে করেন দেশের দুই বিশিষ্ঠজন ড. কামাল হোসেন ও ডা. জাফরুল্লাহ। শনিবার রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত পৃথক দুই অনুষ্ঠানে এই দাবি জানান তারা।

সকালে এনডিপির এক সমাবেশে স্বাধীনতা দিবসের আগেই এই আইন বাতিলের দাবি জানান ডা. জাফরউল্লাহ। বিকেলে গণফোরাম আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে একই দাবি জানিয়ে ড. কামাল বলেন স্বাধীন মত প্রকাশের বড় বাঁধা এই আইনটি।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় কারাগারে আটক লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যু হয় গত ২৫ ফ্রেব্রয়ারি। তার মৃত্যুর পরই জোরালো হয় আইনটি বাতিলের দাবি। এরই মধ্যে বাতিলের দাবিতে রাজপথে সরব বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সংগঠন।

শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করে ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি। অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ বলেন মুক্তমনা মানুষের মতপ্রকাশের স্বাধীনতাকে গলা টিপে ধরতেই এই আইন।


আরও পড়ুনঃ


আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

লবণ প্রাসাদ ‘পামুক্কালে’

ইসরাইলে কনসার্ট করে দেয়া হল করোনার টিকা

৪ প্রেমিককে নিয়ে পালালো তরুণী, লটারিতে বেছে নিলেন বর


বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবে একই বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। অতিসত্বর এই আইন বাতিলের দাবি করেন তিনি।

ড. কামাল বলেন, সরকারের সকল অপকর্ম তুলে ধরতে রমজানের আগেই দেশব্যাপী গণসংযোগ শুরু করবে গনফোরাম সভাপতি।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

চট্টগ্রাম কারাগার থেকে বন্দি নিখোঁজ

অনলাইন ডেস্ক

চট্টগ্রাম কারাগার থেকে বন্দি নিখোঁজ

চট্টগ্রাম কারাগার থেকে রুবেল নামে এক বন্দি নিখোঁজ।

বিস্তারিত আসছে

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

দেশে করোনায় মৃত্যু বাড়ল

নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশে করোনায় মৃত্যু বাড়ল

দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে আট হাজার ৪৫১ জনের। এ ছাড়া নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ৫৪০ জন। ফলে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে পাঁচ লাখ ৪৯ হাজার ৭২৪ জনে।

আজ শনিবার (৬ মার্চ) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।


কুমিরের পেট থেকে বের করা হচ্ছে আস্ত মানুষ (ভিডিও)

প্রেমের বিয়ের ৪ মাসের মাথায় নববধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

বাক্‌স্বাধীনতা সুরক্ষিত রাখতে মানবাধিকার সংস্থাগুলোর আহ্বান

চুম্বনের দৃশ্যের আগে ফালতু কথা বলতো ইমরান : বিদ্যা


প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ঢাকা সিটিসহ দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ও বাড়িতে উপসর্গবিহীন রোগীসহ গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৮২২ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন পাঁচ লাখ এক হাজার ৯৬৬ জন। সারা দেশে সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ২১৯টি ল্যাবে নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষা হয়েছে। 

গতকাল শুক্রবার করোনায় ৬ জনের মৃত্যু এবং রোগী শনাক্ত হয়েছে ৬৩৫ জন। 

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বাক্‌স্বাধীনতা সুরক্ষিত রাখতে মানবাধিকার সংস্থাগুলোর আহ্বান

অনলাইন ডেস্ক

বাক্‌স্বাধীনতা সুরক্ষিত রাখতে মানবাধিকার সংস্থাগুলোর আহ্বান

বাক্‌স্বাধীনতার অধিকার সুরক্ষিত রাখতে ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের অবসান ঘটাতে বাংলাদেশের সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে নয়টি মানবাধিকার সংস্থা। 

শুক্রবার মানবাধিকার সংস্থাগুলো যৌথ বিবৃতিতে জানায়, ২৫ ফেব্রুয়ারি কারাগারে লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনায় বিচার দাবিতে শান্তিপূর্ণ সমাবেশ ও বিক্ষোভের প্রতি সরকারকে শ্রদ্ধাশীল থাকতে হবে।

নয়টি মানবাধিকার সংস্থা হলো, এশিয়ান ফেডারেশন অ্যাগেইনস্ট ইনভলানটারি ডিসঅ্যাপিয়ারেন্স (এএফএডি), এশিয়ান ফোরাম ফর হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (ফোরাম-এশিয়া), এশিয়ান হিউম্যান রাইটস কমিশন (এএইচআরসি), এশিয়ান নেটওয়ার্ক ফর ফ্রি ইলেকশন (এএনএফআরইএল), সিভিকাস: ওয়ার্ল্ড অ্যালায়েন্স ফর সিটিজেন পার্টিসিপেশন, ইলিয়স জাস্টিস-মোনাশ ইউনিভার্সিটি, এফআইডিএইচ: ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন ফর হিউম্যান রাইটস, ওএমসিটি: ওয়ার্ল্ড অর্গানাইজেশন অ্যাগেইনস্ট টর্চার এবং রবার্ট এফ কেনেডি হিউম্যান রাইটস।


কুমিরের পেট থেকে বের করা হচ্ছে আস্ত মানুষ (ভিডিও)

প্রেমের বিয়ের ৪ মাসের মাথায় নববধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

আবারও স্বর্ণের দরপতন, ৯ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন দাম

চুম্বনের দৃশ্যের আগে ফালতু কথা বলতো ইমরান : বিদ্যা


যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়, লেখক মুশতাক আহমেদকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলায় ২০২০ সালের মে মাসে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি ফেসবুক ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিভিন্ন পোস্ট দিতেন ও আলোচনা করতেন, যা সরকারের কাছে সমালোচনামূলক মনে হয়। কারাগারে লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনায় জীবনের মৌলিক অধিকার, ব্যক্তিস্বাধীনতা ও বাক্‌স্বাধীনতার অধিকার নিয়ে গভীর উদ্বেগ দেখা দিয়েছে।

ওই বিবৃতিতে আরও বলা হয়, লেখক মুশতাক আহমেদের মতো কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোরকেও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়। ১০ মাস কারাগারে থাকার পর ৪ মার্চ তিনি জামিনে মুক্তি পান।

এসব ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে মানবাধিকার সংস্থাগুলো যৌথ বিবৃতিতে লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যু ও কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোরকে নির্যাতনের অভিযোগের দ্রুত, পুঙ্খানুপুঙ্খ, নিরপেক্ষ ও স্বচ্ছ তদন্ত করতে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। মানবাধিকার সংস্থাগুলো বলছে, দায়ী ব্যক্তিদের অবশ্যই শনাক্ত করতে হবে ও বিচারের আওতায় আনতে হবে।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

নারীর সঙ্গে সময় কাটানো সেই তুষার এখনো কাশিমপুর কারাগারেই

অনলাইন ডেস্ক

নারীর সঙ্গে সময় কাটানো সেই তুষার এখনো কাশিমপুর কারাগারেই

কারাগারে বন্দি হল-মার্কের মহাব্যবস্থাপক তুষার আহমদ বিধি লঙ্ঘন করে নারীর সঙ্গে সময় কাটানোর ঘটনায় দেশব্যাপী আলোড়ন সৃষ্টি হয়। দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে নিউজের পরিপ্রেক্ষিতে এই বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে কারা অধিদপ্তর তদন্ত কমিটি গঠন করে।

তদন্ত কমিটির রিপোর্টের পরিপ্রেক্ষিতে গাজীপুরের কাশিমপুর-১ কারাগারে তখনকার সিনিয়র জেল সুপার রত্না রায়, জেলার নূর মোহাম্মদ মৃধা ও ডেপুটি জেলার গোলাম সাকলায়েনসহ ১১ জনকে বরখাস্ত করা হয়েছে। এছাড়া আরও সাত জনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

টাকার বিনিময় বন্দির সঙ্গে কারাগারের ভেতরে নারীর সঙ্গে সময় কাটানো সেই মূল হোতা হল-মার্কের মহাব্যবস্থাপক তুষার আহমদ এখনো কাশিমপুর-১ (হাই সিকিউরিটি) কারাগারেই আছেন।  

শনিবার (৬ মার্চ) দুপুরে এ ব্যাপারে কথা হয় কাশিমপুর-১ এর সিনিয়র জেল সুপার গিয়াস উদ্দিনের সঙ্গে। তিনি জানান, হল-মার্কের মহাব্যবস্থাপক তুষার আহমেদ এখনো সেই কারাগারেই আছেন।  

এদিকে হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের সভাপতি আইনজীবী মনজিল মোরশেদ জানান, ফৌজদারি অপরাধ সে যেখানে বসেই করুক, সেটা প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে। যেহেতু আসামি কারাগারের মাধ্যমে সুবিধা নিয়েছেন। কারাবিধি অনুযায়ী কারা কর্তৃপক্ষ তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে।  

এ ব্যাপারে কারা মহাপরিদর্শক (আইজি প্রিজন) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোমিনুর রহমান মামুন বলেন, তুষারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। তাকে অন্য কারাগারে নেওয়া হতে পারে।

আরও পড়ুন:


জিয়ার খেতাব বাতিলের বিষয়ে যা বললেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী

পরমাণু সমঝোতায় আমেরিকার অবস্থান জানতে জরুরী বৈঠকে বসার আহ্বান

মিয়ানমারে গণতন্ত্র ফেরাতে নিরাপত্তা পরিষদকে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান

শেখ হাসিনা কমনওয়েলথের সেরা তিন নারী নেতার একজন


এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরো বলেন, ঘটনার তদন্ত রিপোর্টে তার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বলা হয়েছে। সে অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

গত ৬ জানুয়ারি তুষার আহমদকে বিধি লঙ্ঘন করে এক নারীর সঙ্গে সময় কাটানোর সুযোগ দেওয়ায় কাশিমপুর-১ কারাগারের তখনকার সিনিয়র জেল সুপার রত্না রায়, জেলার নূর মোহাম্মদ মৃধা ও ডেপুটি জেলার গোলাম সাকলায়েনসহ ১১ জনকে বরখাস্ত করা হয়। এছাড়া আরও সাত জনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সূত্র: বাংলানিউজ।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর