সোনা চোরাচালানে ইউএস বাংলা এয়ারলাইনস

অনলাইন ডেস্ক

সোনা চোরাচালানে ইউএস বাংলা এয়ারলাইনস

সোনা চোরাচালানে জড়িয়ে পড়ছে বেসরকারি উড়োজাহাজ প্রতিষ্ঠান ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনস লিমিটেড। সংস্থাটির উড়োজাহাজ থেকে দফায় দফায় চোরাচালানের সোনা উদ্ধার করেছে ঢাকা কাস্টম হাউস এবং শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর। চোরাচালানে জড়িত থাকার কথা আদালতে স্বীকারও করেছেন এয়ারলাইনসটির কর্মীরা। তথ্য সংশ্লিষ্ট সূত্রের।

কাস্টমস সূত্র জানান, সবশেষ মাসকাট থেকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসা ইউএস-বাংলার একটি ফ্লাইট থেকে ৭ কেজি ২৯০ গ্রাম সোনা উদ্ধার করে ঢাকা কাস্টম হাউস। এর বাজারমূল্য প্রায় ৫ কোটি টাকা। এর আগে গত বছর ১১ জানুয়ারি শাহজালাল বিমানবন্দরে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনস থেকে ৪ কেজি ৬৪০ গ্রাম সোনা উদ্ধার হয়। একই বছরের ৩১ জুলাই একই বিমানবন্দরে ইউএস-বাংলার যাত্রী বহনকারী গাড়ির চালকের কাছ থেকে ৩ কেজি ৭১২ গ্রাম সোনা উদ্ধার করে কাস্টমস, যার বাজারমূল্য প্রায় ৩ কোটি টাকা।

২০১৯ সালের ২২ নভেম্বর ১৭ লাখ টাকা মূল্যের তিনটি সোনার বারসহ আটক হন ইউএস-বাংলার কর্মী। তার আগে ৯ সেপ্টেম্বর আদালতে সোনা চোরাচালানে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেন ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের কেবিন ক্রু রোকেয়া শেখ মৌসুমী। একই বছরের ২০ এপ্রিল প্রায় ৭ কোটি টাকা মূল্যের ১৪ কেজি সোনা জব্দ করে শুল্ক গোয়েন্দা, যার বাজারমূল্য প্রায় ১০ কোটি টাকা বলে জানিয়েছেন জুয়েলারি ব্যবসায়ীরা।

২০১৭ সালের ১১ অক্টোবর ফ্লাইট থেকে ৪ কেজি ৬৪ গ্রাম সমান সোনার বার উদ্ধার হয়, যার বাজারমূল্য প্রায় ২ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। একই বছরের ২৪ সেপ্টেম্বর ৪ কেজি ৬৬৫ গ্রাম সমান সোনার বার উদ্ধার করে কাস্টমস, যার বাজারমূল্য প্রায় ২ কোটি ৭০ লাখ টাকা হওয়ার কথা জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। ঢাকা কাস্টম হাউসের কমিশনার মোয়াজ্জেম হোসেন গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘সোনা চোরাচালানের বিষয়ে গভীর মনোযোগ রয়েছে কাস্টমসের। চোরাচালানের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে অ্যাকশনে রয়েছে কাস্টমস। এয়ারলাইনসের সম্পৃক্ততার বিষয়টিও আমাদের নজরদারিতে রয়েছে।’

বাংলাদেশ জুয়েলারি প্রস্তুত ও রপ্তানিকারক সমিতির সভাপতি আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘এয়ারলাইনসগুলো জড়িত না থাকলে কোনোভাবেই আকাশপথে সোনা চোরাচালান সম্ভব নয়। তাদের সঙ্গে অন্যরাও জড়িত। বিমানবন্দরে ১৭টি সংস্থা কাজ করে, তাদের আড়াল করে সোনা চোরাচালান অনেক কঠিন।’

বাংলাদেশ জুয়েলারি সমিতি-বাজুস সাধারণ সম্পাদক দিলিপ কুমার আগরওয়ালা বলেন, ‘এত দিন আমরা জেনেছি সোনা চোরাচালানের সঙ্গে এয়ারলাইনসগুলোর ক্রুরা জড়িত থাকেন।’ তবে সরাসরি এয়ারলাইনসগুলো জড়িত না থাকলে বিপুল পরিমাণ সোনা চোরাচালান কেবিন ক্রুরা করতে পারেন কিনা খতিয়ে দেখা উচিত বলে মনে করেন ব্যবসায়ী-শিল্পপতিদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইর  এই সহসভাপতি।

কাস্টমস সূত্র জানান, ২০২০ সালের ১২ জানুয়ারি শাহজালাল বিমানবন্দর থেকে ২ কোটি ৩২ লাখ টাকার ৪ কেজি ৬৪০ গ্রাম সোনা উদ্ধার করে ঢাকা কাস্টম হাউসের প্রিভেনটিভ টিম। সোনার বারগুলো কালো স্কচটেপ মোড়ানো অবস্থায় ছিল। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চোরাচালান প্রতিরোধে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের ফ্লাইট নম্বর বিএস৩১৬-এর যাত্রী অবতরণের সিঁড়ির নিচে ৪০টি সোনার বার পাওয়া যায়। এ বিষয়ে কাস্টমস আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

এর আগে ২০১৯ সালের ২২ নভেম্বর শাহজালালে তিনটি সোনার বারসহ ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের কাস্টমার সার্ভিস অ্যাসিস্ট্যান্ট ওমর ফারুককে আটক করে ঢাকা কাস্টম হাউস। বিদেশ থেকে সোনার বারগুলো নিয়ে আসা মামুন মিয়া নামে এক যাত্রীকেও আটক করা হয়। এর আনুমানিক বাজারমূল্য প্রায় ১৭ লাখ ৪০ হাজার টাকা। কাস্টম হাউসের প্রিভেনটিভ টিম বিমানবন্দরের বিভিন্ন পয়েন্টে অবস্থান নিয়ে ট্রানজিট ও বোর্ডিং এলাকায় নজরদারি এবং তল্লাশি করে। আটক যাত্রী ও ইউএস-বাংলার কর্মীকে পুলিশে দেওয়া হয়।

একই বছরের ৯ সেপ্টেম্বর আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়ে সোনা চোরাচালানে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেন শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ১০ কেজি সোনার বারসহ গ্রেফতার ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের কেবিন ক্রু রোকেয়া শেখ মৌসুমী। পুলিশ দুই দিনের রিমান্ড শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে। এ সময় তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন বিচারক তোফাজ্জল হোসেন।

আরও পড়ুন:


বিএনপির সাবেক এমপি সালাউদ্দিন কারাগারে

রাজধানীর যেসব এলাকার মার্কেট বন্ধ থাকবে বুধবার

‘শিশু-কিশোরদের বই পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে’

স্থায়ী ঠিকানা পাচ্ছেন ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর মানুষ


এর আগে ৫ সেপ্টেম্বর সকালে বিমানবন্দর আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন) মৌসুমীকে প্রায় ১০ কেজি সোনাসহ গ্রেফতার করে। এ ঘটনায় এপিবিএনের এসআই হেলাল উদ্দিন বাদী হয়ে মৌসুমীসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে বিমানবন্দর থানায় সোনা চোরাচালান আইনে মামলা করেন। মামলায় ইউএস-বাংলা থেকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসে যোগ দেওয়া কেবিন ক্রু নেছার উদ্দিন, তার স্ত্রী, যাত্রী সুহেল খাঁ, লাকী ও বাপ্পীকে আসামি করা হয়।

২০১৯ সালের ২০ এপ্রিল ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের ফ্লাইট থেকে প্রায় ৭ কোটি টাকা মূল্যের ১৪ কেজি সোনা জব্দ করে শুল্ক গোয়েন্দা। ওই দিন বিকালে ব্যাংকক থেকে শাহজালাল বিমানবন্দরে আসা ফ্লাইটের টয়লেটে ওই সোনা পাওয়ার কথা জানায় শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতর। তারা জানায়, প্রতিটি ১০ তোলা ওজনের মোট ১২০টি সোনার বার উদ্ধার হয়েছে। শুল্ক গোয়েন্দা দল গোপন সংবাদ পায়, ব্যাংকক থেকে আসা ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের (বিএস ২১৪) ফ্লাইটের মাধ্যমে সোনা চোরাচালান হবে। উড়োজাহাজটি অবতরণের সঙ্গে সঙ্গে তল্লাশি করা হয়। একপর্যায়ে বিমানের টয়লেটে পরিত্যক্ত অবস্থায় ওই বারগুলো পাওয়া যায়।

২০১৭ সালের ১১ অক্টোবর শাহজালাল বিমানবন্দরে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের একটি ফ্লাইট থেকে ৪ কেজি ৬৪ গ্রাম সমান সোনার বার উদ্ধার করে ঢাকা কাস্টম হাউসের প্রিভেনটিভ টিম। এয়ারলাইনসের (ফ্লাইট নম্বর বিএস৩২২) ১১ এ ও ১১ বি সিটের ভিতর থেকে ওই সোনা উদ্ধার করা হয়। এর বাজারমূল্য প্রায় ২ কোটি ৩২ লাখ টাকা। এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার কথা তখন জানায় ঢাকা কাস্টম হাউস।

একই বছর ২৪ সেপ্টেম্বর শাহজালাল বিমানবন্দরে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের ফ্লাইট থেকে ৪ কেজি ৬৬৫ গ্রাম সমান সোনার বার উদ্ধার করে শুল্ক গোয়েন্দা। এয়ারলাইনসের (ফ্লাইট নম্বর বিএস২০২) থেকে ওই সোনা উদ্ধার করা হয়। এর বাজারমূল্য প্রায় ২ কোটি ৩০ লাখ টাকা। সৌজন্য: বাংলাদেশ প্রতিদিন।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মাঠে নেমেছে র‌্যাব

জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বের হলেই জমিরানা

অনলাইন ডেস্ক

জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বের হলেই জমিরানা

করোনার পরিস্থিতি মোকাবিলায় ৮ দিনের কঠোর লকডাউন জারি করেছে সরকার। লকডাউন চলাকালে সাধারণ মানুষকে ঘরের বাইরে বের হতে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। 

এই নির্দেশনা অমান্য করলে ব্যবস্থা নিতে মাঠে নেমেছে র‍্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। তবে অতি জরুরি প্রয়োজনে বাইরে যাওয়ার জন্য 'মুভমেন্ট পাসে'র ব্যবস্থা করেছে পুলিশ।

রাজধানীর শাহবাগ মোড়ে আজ বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) র‍্যাব-৩ এর সহযোগিতায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করছেন র‍্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু।

আরও পড়ুন


বিশ্বে একদিনে করোনায় ১৩৫৩২ জনের মৃত্যু

হেফাজতের আরেক সহকারী মহাসচিবকে আটকের অভিযোগ

তাহাজ্জুদ নামাজ পড়ার নিয়ম, সময় ও রাকাআত

খালেদা জিয়াকে জাপানের রাষ্ট্রদূত ও পাকিস্তান হাইকমিশনারের চিঠি


তিনি জানান, মন্ত্রীপরিষদ বিভাগের নিদর্শনা অনুযায়ী যারা আদেশ অমান্য করছে তাদের বিরুদ্ধে র‍্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত করা হচ্ছে। যারা বিনা কারণে বাইরে ঘোরাঘুরি করছেন, মুভমেন্ট পাস না নিয়ে বাইরে বের হচ্ছেন এবং স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না, তাদেরকে জরিমানা করা হচ্ছে।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বাংলাদেশে ভারতীয় ভিসা কার্যক্রম স্থগিত

অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশে ভারতীয় ভিসা কার্যক্রম স্থগিত

ক্রমবর্ধমান করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে এক সপ্তাহের কঠোর লকডাউন জারি করেছে সরকার। লকডাউনে চলাচলে বিভিন্ন বিধিনিষেধ দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সরকার। এই পরিস্থিতিতে নিজেদের ভিসা আবেদন কেন্দ্রগুলোর কার্যক্রম সাময়িকভাবে স্থগিত করেছে ভারত।

আগামী ২১ এপ্রিল পর্যন্ত কার্যক্রম স্থগিত থাকবে বলে ভারতের হাইকমিশন তাদের ভেরিফাইড ফেইসবুক পেজে জানিয়েছে।

ইতিমধ্যে জমা দেওয়া আবেদনের বিষয়ে জানতে এবং যেকোনো জরুরি অনুরোধের জন্য [email protected] এই ঠিকানায় যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।


আরও পড়ুনঃ


চীনে সন্তান নেয়ার প্রবণতা কমছে, কমছে জন্মহার

কাল-পরশু হয়তো লকডাউনটা আরো ‘ডাউন’ হয়ে যাবে

কুমারীত্ব পরীক্ষায় 'ফেল' করায় নববধূকে বিবাহবিচ্ছেদের নির্দেশ

বাদশাহ সালমানের নির্দেশে সৌদিতে কমছে তারাবির রাকাত সংখ্যা


গতবছরও ভারত বাংলাদেশে তাদের ভিসা কার্যক্রম স্থগিত করেছিল। পরে ৬ মাস পর সেটি আবার চালু করা হয়।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

লকডাউনে মাঠে র‍্যাবের ভ্রাম্যমান আদালত

অনলাইন ডেস্ক

লকডাউনে মাঠে র‍্যাবের ভ্রাম্যমান আদালত

ক্রমবর্ধমান করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে এক সপ্তাহের কঠোর লকডাউন জারি করেছে সরকার। লকডাউনে চলাচলে বিভিন্ন বিধিনিষেধ দিয়ে প্রজ্ঞাপন করেছে সরকার। এই নির্দেশনা অমান্য করলে ব্যবস্থা নিতে মাঠে নেমেছে র‍্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

আজ লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) বেলা ১১টা থেকে রাজধানীর শাহবাগ মোড়ে র‍্যাব-৩ এর সহযোগিতায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করছেন র‍্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু।

তিনি বলেন, মন্ত্রীপরিষদ বিভাগের নিদর্শনা অনুযায়ী যারা আদেশ অমান্য করছে তাদের বিরুদ্ধে র‍্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত করা হচ্ছে। যারা বিনা কারণে বাইরে ঘোরাঘুরি করছেন, মুভমেন্ট পাস না নিয়ে বাইরে বের হচ্ছেন এবং স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না, তাদেরকে জরিমানা করা হচ্ছে। জরিমানার পাশাপাশি জনগণকে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাইরে না আসার জন্য এবং স্বাস্থ্যবিধি মানতে উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে।

জরিমানা করা র‍্যাবের উদ্দেশ নয় বলেও জানান তিনি। র‍্যাবের উদ্দেশ্য করোনা প্রতিরোধে জনসচেতনতা সৃষ্টি করা এবং সরকারের সর্বাত্মক কঠোর লকডাউন মানতে সচেতনতা তৈরি করা।


আরও পড়ুনঃ


চীনে সন্তান নেয়ার প্রবণতা কমছে, কমছে জন্মহার

কাল-পরশু হয়তো লকডাউনটা আরো ‘ডাউন’ হয়ে যাবে

কুমারীত্ব পরীক্ষায় 'ফেল' করায় নববধূকে বিবাহবিচ্ছেদের নির্দেশ

বাদশাহ সালমানের নির্দেশে সৌদিতে কমছে তারাবির রাকাত সংখ্যা


এর আগে, গত ৫ ও ৬ এপ্রিল রাজধানীর শাহবাগ ও মতিঝিলে স্বাস্থ্যবিধি মানতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন র‍্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু। সে সময় যারা বিনা কারণে বাইরে ঘোরাঘুরি ও মাস্ক পরেনি তাদের জরিমানা করে র‍্যাব। ওই দুই দিনে প্রায় অর্ধ শতাধিক মানুষকে জরিমানা করা হয়।

র‌্যাবের ভ্রাম্যমান আদালতের এই অভিযান অব্যহত থাকবে বলে জানা গেছে।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বিধিনিষেধ না মানায় ১৪০ জনকে জরিমানা

অনলাইন ডেস্ক

বিধিনিষেধ না মানায় ১৪০ জনকে জরিমানা

সরকার ঘোষিত ‘সর্বাত্মক লকডাউন’ দ্বিতীয় দিন চলছে। সরকারি নির্দেশ মেনে খাগড়াছড়িতে বন্ধ রাখা হয়েছে শপিং সেন্টার ও দোকানপাট।

বন্ধ রয়েছে সকল ধরনের গণপরিবহন। কোথাও কোথাও সরকারি বিধিনিষেধ মানছে না অনেকে। উন্মুক্ত স্থানে বাজার বসানোর নির্দেশ থাকলেও তা মানা হয়নি।

লকডাউন কার্যকরে মাঠে রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনা ও জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। লকডাউনে সরকারি বিধিনিষেধ না মানায় ১৪০ জনকে ৪০ হাজার ৩১০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

আরও পড়ুন


বিশ্বে একদিনে করোনায় ১৩৫৩২ জনের মৃত্যু

হেফাজতের আরেক সহকারী মহাসচিবকে আটকের অভিযোগ

তাহাজ্জুদ নামাজ পড়ার নিয়ম, সময় ও রাকাআত

খালেদা জিয়াকে জাপানের রাষ্ট্রদূত ও পাকিস্তান হাইকমিশনারের চিঠি


news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

দ্বিতীয় দিনে ঢাকার রাস্তায় মানুষের চলাচল বেড়েছে

অনলাইন ডেস্ক

দ্বিতীয় দিনে ঢাকার রাস্তায় মানুষের চলাচল বেড়েছে

করোনার প্রকোপ বাড়ায় সারাদেশে চলছে সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাউনের দ্বিতীয় দিন। লকডাউনের প্রথম দিন ঢাকার রাস্তায় প্রশাসনকে অনেক কঠোর অবস্থানে দেখা গেছে। অনুমোদিত যানবাহনের ছাড়া কোন যানবাহনই চলাচল করতে দেয়া হয়নি। এমনকি অনেককে জরিমানা করতেও দেখা গেছে।

তবে লকডাউনের আজ দ্বিতীয় দিন প্রথম দিনের চেয়ে অনেকটাই ঢিলেঢালা। রাস্তায় বেড়েছে মানুষের চলাচল। গতকাল মুভমেন্ট পাস ছাড়া কাউকে পুলিশ চেকপোস্ট অতিক্রম করতে দেওয়া হয়নি। কিন্তু আজ তা শিথিল করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) সকালে ঢাকার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়,  প্রথম দিনের চেয়ে পুলিশ চেকপোস্টগুলো দ্বিতীয় দিনে কিছুটা শিথিলতা। প্রথম দিন চেকপোস্টে প্রায় প্রতিটি গাড়ি আটকে যাত্রীদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। আজ সেই চিত্র একেবারেই ভিন্ন। তবে শহরের বিভিন্ন রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়ে বন্ধ রাখা হয়েছে। ফলে সব রাস্তায় চলাচল করা যাচ্ছে না।

আরও পড়ুন


আমি একদিন গাছ হবো!

সবচেয়ে বরকতময় ও মর্যাদাপূর্ণ রমজান মাস

আবদুল মতিন খসরুর সম্মানে সুপ্রিম কোর্ট বসছে না আজ

সুপ্রিম কোর্টে আবদুল মতিন খসরুর দ্বিতীয় জানাজা সম্পন্ন


প্রথমদিন পহেলা বৈশাখের ছুটি থাকায় সবকিছু বন্ধ ছিল। ফলে মানুষ ঘর থেকে বের হয়েছিল কম। কিন্তু দ্বিতীয় দিন অর্থাৎ বৃহস্পতিবার ব্যাংক, শেয়ারবাজার, গার্মেন্টসহ বিভিন্ন শিল্পপ্রতিষ্ঠান খোলা। ফলে সকাল থেকে রাস্তায় গাড়ির চলাচলও বেড়েছে কিছুটা।

সকাল ৭টা থেকে শহরের বিভিন্ন এলাকায় গার্মেন্ট শ্রমিকদের দলে দলে তাদের কর্মস্থলে যেতে দেখা গেছে। গার্মেন্ট শ্রমিকরা যেহেতু তাদের কারখানার আশপাশের এলাকায় বসবাস করেন সে জন্য তাদের পরিবহনের প্রয়োজন হয়নি।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর