সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ন্ত্রণে আইন করছে কানাডা

অনলাইন ডেস্ক

সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ন্ত্রণে আইন করছে কানাডা

প্লাটফরম এবং ব্যবহারকারীদের জন্য কঠোর শাস্তির বিধান রেখে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম নিয়ন্ত্রনে কানাডা সরকার যে আইনের প্রস্তাব করেছে সেটিকে নাগরিকদের জন্য উপকারী হিসেবে অভিহিত করেছেন তিন কানাডীয়ান বিশেষজ্ঞ।

তারা বলেছেন, স্বাধীন প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনায় সুনির্দিষ্ট আইনি কাঠামোর মাধ্যমে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের তদারকি ব্যবস্থা থাকা দরকার। 
কানাডার বাংলা পত্রিকা ‘নতুনদেশ’ এর প্রধান সম্পাদক শওগাত আলী সাগরের সঞ্চালনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সম্প্রচারিত ‘শওগাত আলী সাগর লাইভ’ অনুষ্ঠানে তারা এই মতামত দেন।

এতে আলোচনায় অংশ নেন গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব, বাংলাদেশ টেলিভিশনের সাবেক খবর পাঠক  আসমা  আহমেদ, গণমাধ্যম বিশ্লেষক ও সাংবাদিক সৈকত রুশদী এবং ব্যারিষ্টার ওবায়দুল হক।

টরন্টো সময় বুধবার রাতে ‘কানাডা কেন সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ন্ত্রণ করতে চায়’ শীর্ষক এই  আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়।  

নতুনদেশ এর প্রধান সম্পাদক শওগাত আলী সাগর কানাডা সরকারের প্রস্তাবিত আইনের রুপরেখা তুলে ধরে বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে নিয়ন্ত্রণ করতে কানাডা একটি আইনের খসড়া চূড়ান্ত করেছে। এতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেআইনি এবং ক্ষতিকর কোনো বক্তব্য প্রচারিত হলে  পুলিশ সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফরম এবং বক্তব্য পোস্টকারীর বিরুদ্ধে সরাসরি ব্যবস্থা নিতে পারবে। 

পোষ্টকারী এবং সোশ্যাল মিডিয়া প্রতিষ্ঠানের জন্য বড় ধরনের জরিমানা এবং কঠিন শাস্তির বিধান রাখা হচ্ছে প্রস্তাবিত অইনে। প্রস্তাবিত আইনের ঘোষনার উদ্ধৃতি দিযে শওগাত আলী সাগর বলেন, আইনটির প্রস্তাবক হেরিটেজ মন্ত্রনালয় বলেছে, সামাজিক পরিবেশে কোনো নাগরিকের ক্ষতি করার জন্য অপরাধীকে পুলিশ ধাওয়া করতে পারলে অনলাইন সমাজে ক্ষতিকর  ব্যক্তিকে  ধাওয়া করার ক্ষমতাও পুলিশের থাকতে পারে। 

প্রস্তাবিত আইনের বিষয়ে আলোচনা  করে গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব, বাংলাদেশ টেলিভিশনের সাবেক খবর পাঠক আসমা আহমেদ বলেন, সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ন্ত্রণে কানাডা সরকারের প্রস্তাবিত আইনটিতে তিনটি  বিষয়কে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে যা  সমাজ এবং মানুষের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। শিশু পর্ণোগ্রাফি. হেইট স্পিচ এবং বিনা সম্মতিতে কারো  অন্তরঙ্গ ছবি প্রকাশ করাকে অপরাধ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে এই আইনে।

তিনি বলেন, এ তিনটিই কিন্তু মানুষের মৌলিক অধিকার। এই অধিকার রক্ষায় রাস্ট্র এগিয়ে না আসলে কে আসবে। আমি মনে করছি সমাজকে সুরক্ষা দেয়ার জন্য এই ধরনের আইনি পদক্ষেপ যদি আসে এবং তার ভালো তদারকি হয়  তা হলে মানুষ অনেক দুর্ভোগ থেকে রক্ষা পাবে। 

আসমা আহমেদ বলেন, কানাডার একটি সংস্থা প্রস্তবিত আইনটি সম্পর্কে নাগরিকদের মতামত জানার জন্য জরিপ চালিয়েছিলো। তাতে দেখা গেছে অধিকাংশ কানাডীয়ানই চায় সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফরমগুলো সরাসরি সরকারের তদারকির আওতায় থাকুক। তিনি সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীদের দায়িত্বশীলতার উপর গুরুত্ব আরোপ করেন। 
 
গণমাধ্যম বিশ্লেষক ও সাংবাদিক সৈকত রুশদী তার আলোচনায়  সোশ্যাল মিডিয়া তদারকির জন্য স্বাধীন এবং স্বতন্ত্র ক্ষমতা সম্পন্ন একটি কমিশন গঠনের প্রস্তাব করে বলেন, নির্দিষ্ঠ আইনি কাঠামোর আ্ওতায় সোশ্যাল মিডিয়া তদারকরি ব্যবস্থা তাকা দরকার। 

তিনি বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম একদিকে যেমন কোন কোন দেশে বিপ্লবের মাধ্যমে গনতন্ত্র, জনগণের অধিকার আদায়ের পক্ষে ভূমিকা রেখেছে। অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রে জনগণের রায়কে ভুলুণ্ঠিত করার অপচেষ্টায়ও ব্যবহৃত হয়েছে।


চুক্তিতে নিককে বিয়ে করেছিলেন প্রিয়াঙ্কা!

আন্তর্জাতিক আদালতে আমেরিকার বিরুদ্ধে বিচার চলবে

রাজধানীর যেসব এলাকায় গ্যাস থাকবে না আজ

মেয়ে সহপাঠীকে পছন্দ করায় ৮ বছরের স্কুলছাত্রী বহিষ্কৃত


বর্ণবাদী তৎপরতা, উসকানিমুলক বক্তব্য প্রচারনার মাধ্যমে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টিতে সোশ্যাল মিডিয়ার ব্যবহার রোধ করতে কাঠামোগত নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা থাকা দরকার বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন, তবে এই তদারকি যেনো কাউকে ক্ষতিগ্রস্থ না করে সেদিকে নজর রাখতে হবে। 

ফেসবুক, টুইটারের স্বনিয়ন্ত্রণের ধারনার বিরোধীতা করে সৈকত রুশদী বলেন,  জনগণের চিন্তাভাবনা প্রকাশ কিংবা জনপ্রতিনিধিদের বক্তব্য নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা কোনো কর্পোরেশনের হাতে দেয়া মোটেও উচিৎ না।  তিনি জনগনের নির্বাচনের প্রতিনিধিদের হাতে সোশ্যাল মিডিয়া তদারকির ক্ষমতা দেয়ার প্রস্তাব করেন। 

তিনি বলেন, সোশ্যাল মিডিয়ার কনটেন্ট মাডারেশনের পাশাপাশি সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের মাধ্যমে মানুষের ব্যক্তিগত অধিকারকে ক্ষুন্ন কআ হচ্ছে কিনা কিংবা ব্যক্তিগত তথ্য হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে কিনা সেগুলো দেখতে হবে। নতুন নতুন যতো প্রযুক্তি আসবে সেগুলো পরিচালনার জন্য পরামর্শমূলক আইনি কাঠামো কানাডায় থাকা উচিৎ বলে তিনি মত দেন।

ব্যারিষ্টার ওবায়েদুল হক সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ন্ত্রণে কানাডার নতুন আইন প্রনয়ের উদ্যোগের প্রেক্ষিত পর্যালোচনা করে বলেন, মুনাফা দ্বারা পরিচালিত কর্পারেশনগুলোর স্বনিয়ন্ত্রণ আর রাষ্ট্রের নিজস্ব আইনি কাঠানোর  পর্যালোচনা থেকেই কানাডাসহ বিশ্বের বিভিন্নদেশগুলোকে একটা সময়ে সোশাল মিডিয়া তদারকির আলাদা আইনের কথা ভাবতে হয়। 

তিনি বলেন, কানাডার চার্টার যেমন মত প্রকাশের স্বাধীনতা দিয়েছে তেমনি অন্যের জন্য ক্ষতিকর এমন বক্তব্য, তথ্য, ভুল বা বিকৃত তথ্য প্রচারণার শাস্তির জন্য আইনি কাঠামো্ও  বিদ্যমান আছে। কিন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের  ক্ষেত্রে এই আইনগুলো কিভাবে ব্যবহৃত হবে তার সুষ্পস্ট ব্যাখ্যা নাই। ফলে সরকারকে একটি আইনি কাঠামোর কথা ভাবতে হয়েছে।

মানুষের কথা বলার অধিকারসহ মৌলিক অধিকার কোনো ধরনের হস্তক্ষেপ না করে ভার্চুয়াল জগতে নিরপত্তা এবং সুস্থ পরিবেশ নিশ্চিত করতেই এই আইনের কথা ভাবা হচ্ছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

ব্যারিষ্টার ওবায়েদুল হক বলেন, সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীদের দায়িত্বশীল আচরণ এবং সামাজিক জীবনে আইনের প্রতি যে আনুগত্য থাকে, অনলাইন জীবনেও একই চিন্তার অনুসরণ করলে সবকিছুই সহজ হয়ে যায়।

news24bd.tv আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ভাঙা লেবানন বিএনপি আবারও জোড়া লাগলো

অনলাইন ডেস্ক

ভাঙা লেবানন বিএনপি আবারও জোড়া লাগলো

দীর্ঘ প্রায় দুই বছরেরও বেশি সময় ধরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ভেঙে যাওয়া লেবানন বিএনপি আবারও ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। লেবানন বিএনপির তৎকালিন সভাপতি নজরুল ইসলাম মজুমদার ও প্রধান উপদেষ্টা মফিজুল ইসলাম বাবুর মাঝে ভুল বোঝাবুঝির জেরে ভাঙন ধরে দলটিতে। গঠিত হয় দুইটি কেন্দ্রীয় কমিটি। আর সব সমস্যার সমাধান ঘটিয়ে অবশেষ আবার ঐক্যব্ধ হলো দলটি।

গত রোববার নজরুল ইসলাম মজুমদার ও মফিজুল ইসলাম বাবু সমন্বয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে ঐক্যের ঘোষণা করা হয়। উক্ত সংবাদ সম্মেলনে লেবানন বিএনপির নেতাকর্মীদের নিয়ে সকল ভুল বোঝাবুঝির অবসান ঘটিয়ে লেবানন বিএনপি দুইটি কমিটি বিলুপ্ত করে সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি জাকির হোসেন জাকিরকে প্রধান আহবায়ক ও সাবেক সহ-সভাপতি আব্দুক কাদের ভূইয়াকে যুগ্ম-আহবায়ক করে একটি আংশিক আহবায়ক কমিটি ঘোষণা করেন এই দুই নেতা ।

সংবাদ সম্মেলনের আগে নেতৃবৃন্দ দীর্ঘ সময় ধরে বৈঠক করেন। বৈঠক শেষ লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নজরুল ইসলাম মজুমদার।

তিনি বলেন, লেবানন বিএনপিতে যে বিভক্ত ছিল তার অবসান ঘটেছে। দলে আর কোন বিরোধ নেই। পাশাপাশি দুইটি কমিটিকে বিলুপ্ত করে নতুন করে একটি আহবায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:


উচ্চ বেতনে পাওয়ার গ্রিড কোম্পানিতে চাকরির সুযোগ

প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় কলেজ ছাত্রীকে হত্যা

এখনো ইরান ও আমেরিকাকে নিয়ে বসতে চান বোরেল

সৌদি যুবরাজের শাস্তি চাইলেন খাশোগির বাগদত্তা চেঙ্গিস


মফিজুল ইসলাম বাবু বলেন, আমাদের মাঝে আর কোন ভেদাভেদ নেই। আমরা নিজেদের ভুল বুঝতে পেরেছি। শহীদ জিয়ার আদর্শকে বাস্তবায়ন করতে বিভক্ত থাকার সুযোগ নেই বলেও তিনি যোগ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, লেবানন বিএনপি’র প্রতিষ্ঠাতা সদস্য আমীর হোসেন কলিম, ভাষানী মোল্লা, উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য আব্দুর রহমান আহাদ। সাবেক সাধারণ সম্পাদক মুজিবুল হক মুজিব, আবু বক্কর সিদ্দীক, আমিনুল ইসলাম আইমন, ওয়াসিম আকরাম, আরমান হোসেন আমান, আব্দুল কাইয়ুম, আব্দুল হকসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

জীবন যুদ্ধে হেরে গেলেন অগ্নিদগ্ধ সিঙ্গাপুরপ্রবাসী

অনলাইন ডেস্ক

জীবন যুদ্ধে হেরে গেলেন অগ্নিদগ্ধ সিঙ্গাপুরপ্রবাসী

সিঙ্গাপুরে একটি কারখানায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আনিসুজ্জামান (৩২) নামে এক প্রবাসী বাংলাদেশির মৃত্যু হয়েছে। বুধবার নিজ কর্মস্থলে অগ্নিদগ্ধ হন এ প্রবাসী। পরে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে একদিন পরই মারা যান তিনি। গত বুধবার দুপুরে কারখানায় কাজ করার সময় অগ্নিদগ্ধ হন তিনি।

এরপর হাসপাতালে নেয়া হলে বৃহস্পতিবার রাতে মৃত্যু হয় তার। চাঁদপুর জেলার হাজীগঞ্জ উপজেলার বড়কূল পশ্চিম ইউনিয়নের গোবিন্দপুর গ্রামের অহিদ হাওলাদারের ছেলে আনিসুজ্জামান বলে জানা গেছে।


গুপ্তচরবৃত্তির ইসরাইলি জাহাজে ইরানের হামলা!

ওটিটি প্ল্যাটফর্মেও ডাবল ব্লকবাস্টার দৃশ্যম টু!

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ নিয়ে মুখোমুখি অবস্থানে পাক-ভারত!

অপো নতুন ফোনে থাকছে ১২ জিবি র‌্যাম


 

ছেলের মরদেহ দেশে ফিরিয়ে আনার বিষয়ে তার বাবা অহিদ হাওলাদার বলেন, ‘আমার ছেলের মরদেহ কবে ফিরবে তা জানি না। তবে মেয়ের জামাতা সেখান থেকে আনিসের মরদেহ দেশে নিয়ে আসার জন্য চেষ্টা করছে।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

আমিরাত বিবিএফ এর সভাপতি কামাল সম্পাদক আবু বক্কর

অনলাইন ডেস্ক

আমিরাত বিবিএফ এর সভাপতি কামাল সম্পাদক আবু বক্কর

মধ্য প্রচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাতে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের সংগঠন ‘বাংলাদেশ বিজনেস ফোরাম (বিবিএফ) ইউএই’র বার্ষিক নির্বাচন শেষ হয়েছে। কামাল হোসাইন সুমন সভাপতি ও আবু বক্কর ছিদ্দিক সাধারণ সম্পাদক পুনর্নির্বাচিত হয়েছেন।

শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেল ৪টায় স্থানীয় ইব্রাহীম ম্যানশনে বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার ইসমাইল গনি চৌধুরী, নির্বাচন কমিশনার তরিকুল ইসলাম শামীম ও মিহির ব্রাগনোরা।

করোনা পরিস্থিতি কারণে অনলাইনে ডিজিটাল পদ্ধতিতে এ নির্বাচন আয়োজিত হয়েছে। নির্বাচন পরিচালনার জন্য সংগঠনের সাবেক কমিটির প্রধান উপদেষ্টা ইসমাইল গনি চৌধুরীকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার, সাবেক সহ-সভাপতি তরিকুল ইসলাম শামীম ও মিহির ব্রাগনোরাকে সহকারী কমিশনার করে কমিশন গঠন করা হয়েছে।


অভাব দুর হবে, বাড়বে ধন-সম্পদ যে আমলে

সূরা কাহাফ তিলাওয়াতে রয়েছে বিশেষ ফজিলত

করোনার ভ্যাকসিন গ্রহণে বাধা নেই ইসলামে

নামাজে মনোযোগী হওয়ার কৌশল


 

২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে ২৬ ফেব্রুয়ারি বিকেল ৪টায় শেষ হয়। সভাপতি পদে কামাল হোসাইন সুমন ৯১ শতাংশ ও সাধারণ সম্পাদক পদে আবু বক্কর ছিদ্দিক খন্দকার ৮৪ শতাংশ ভোট পেয়ে পুনরায় নির্বাচিত হন।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন জাফর চৌধুরী, জসিম উদ্দিন মল্লিক, মো. আব্বাস, ইব্রাহীম ওসমান, কামাল হোসাইন সুমন, আবু বকর ছিদ্দিক, মুনসুর মো. খলিল, আহসান হাবীব, আবদুস সাত্তার, যমুনা টিভি প্রতিনিধি মুহাম্মদ রফিক উল্লাহ প্রমুখ।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বাংলাদেশ বিজ্ঞান একাডেমীর ‘ফেলো হলেন বিজ্ঞানী ড. মোহাম্মদ মোর্শেদ

লায়লা নুসরাত, কানাডা

বাংলাদেশ বিজ্ঞান একাডেমীর ‘ফেলো হলেন বিজ্ঞানী ড. মোহাম্মদ মোর্শেদ

কানাডায় কর্মরত বিশিষ্ট অণুজীব বিজ্ঞানী ড. মোহাম্মদ মোর্শেদকে ’ফেলো’ হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে বাংলাদেশ বিজ্ঞান একাডেমী। বাংলাদেশ এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অনুজীব বিজ্ঞানের গবেষণা এবং শিক্ষায় অসাধারন অবদান রাখার স্বীকৃতি হিসেবে বাংলাদেশে বিজ্ঞানী ও প্রযুক্তি বিষয়ক শীর্ষ প্রতিষ্ঠান ‘বাংলাদেশ বিজ্ঞান একাডেমী’ ড. মোর্শেদকে এই স্বীকৃতি দিয়েছে। ‘এক্সপেট্টিয়েট ফেলো’ ক্যাটাগরিতে তিনি এই নিয়োগ পান। 

স্বাধীনতার পর এ পর্যন্ত আন্তর্জাতিক পর্যায়ে কর্মরত ১৪ জন বাংলাদেশি বিজ্ঞানীকে এই মর্যাদায় অভিষিক্ত করেছে বিজ্ঞান একাডেমী। ড. মোহাম্মদ মোর্শেদ তাঁদের একজন।

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কানাডীয়ান বিজ্ঞানী ড. মোহাম্মদ মোর্শেদ বর্তমানে কানাডার ব্রিটিশ কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটিতে প্যাথোলোজি ও ল্যাবরেটরি মেডেসিন বিভাগের ক্লিনিক্যাল অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত আছেন। একই সঙ্গে তিনি বৃটিশ কলম্বিয়া সেন্টার ফর ডিজিস কন্ট্রোল এর পাবলিক হেলথ ল্যাবরেটরির জুনুটিক ও ইমার্জিং প্যাথোজেন প্রোগ্রামের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

কানাডায় পেশাগত জীবন শুরুর আগে ড. মোর্শেদ ঢাকার আইসিডিডিআরবি, শিশু হাসপাতাল, বাংলাদেশ ইন্সটি্টিউট অব চাইল্ড হেলথ এবং জাহাঙ্গীরনগ বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত ছিলেন। 


ঋণ থেকে মুক্তির দু’টি দোয়া

মেসি ম্যাজিকে সহজেই জিতল বার্সা

দোয়া কবুলের উত্তম সময়

প্রবাসী স্বামীকে তালাক দিয়ে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন!


অণুজীব বিজ্ঞানের গবেষণা এবং শিক্ষায় বিশেষ অবদান রাখায় কানাডায়ও তিনি বিভিন্ন সময় সম্মানিত হয়েছেন। ২০১৭ সালে তিনি বৃটিশ কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটির ‘এক্সিলেন্স ইন ক্লিনিক্যাল সার্ভিস এওয়ার্ড‘ পান। একই বছর বিভিন্ন খাতে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে পুরো কানাডা থেকে বাছাই করা ‘দ্যা আরবিসি টপ ২৫ ইমিগ্রেন্ট এওয়ার্ড পান তিনি। ২০১৯ সালে কানাডার কলেজ অব মাইক্রোবায়োলোজি তাঁকে ডিসটিঙ্গুইশ্ড মাইক্রোবায়োলোজিষ্ট এওয়ার্ড’ দেয়। 

এ প্রসঙ্গে প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়া হলে ড. মোহাম্মদ মোর্শেদ বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কর্মরত বিজ্ঞানীদের নিজ দেশে স্বীকৃতি দেয়ার বিজ্ঞান একাডেমীর উদ্যোগকে তিনি স্বাগত জানান এবং তাকে মনোনীত করায় ধন্যবাদ জানান। বিজ্ঞান একাডেমীর ফেলো হিসেবে নিয়োগ পা্ওয়ায় দেশের বিজ্ঞান চর্চ্যায় আরো বেশি ভূমিকা রাখার দায়িত্ব তার উপর বর্তেছে বলে তিনি মনে করেন। তিনি বলেন, কানাডার বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় এবং গবেষনাগারের সাথে বাংলাদেশের যোগসূত্র ঘটিয়ে দেয়ার জন্য কাজ করে যাবেন।

news24bd.tv/আয়শা

 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বাংলাদেশ বিজ্ঞান একাডেমী ফেলো হলেন কানাডীয়ান বাংলাদেশি বিজ্ঞানী ড. মোহাম্মদ মোর্শেদ

অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশ বিজ্ঞান একাডেমী ফেলো হলেন কানাডীয়ান বাংলাদেশি বিজ্ঞানী ড. মোহাম্মদ মোর্শেদ

কানাডায় কর্মরত বিশিষ্ট অণুজীব বিজ্ঞানী ড. মোহাম্মদ মোর্শেদকে ‘ফেলো’ হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে বাংলাদেশ বিজ্ঞান একাডেমী। বাংলাদেশ এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অনুজীব বিজ্ঞানের গবেষণা এবং শিক্ষায়  অসাধারণ অবদান রাখার স্বীকৃতি হিসেবে বাংলাদেশে বিজ্ঞানী ও প্রযুক্তি বিষয়ক  শীর্ষ প্রতিষ্ঠান ‘বাংলাদেশ বিজ্ঞান একাডেমী’ ড. মোর্শেদকে  এই স্বীকৃতি  দিয়েছে। ‘এক্সপেট্টিয়েট ফেলো’ ক্যাটাগরিতে তিনি এই নিয়োগ পান।

স্বাধীনতার পর এ পর্যন্ত আন্তর্জাতিক পর্যায়ে কর্মরত ১৪ জন বাংলাদেশি বিজ্ঞানীকে এই মর্যাদায় অভিসিক্ত করেছে বিজ্ঞান একাডেমী। ড. মোহাম্মদ মোর্শেদ তাঁদের একজন।

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কানাডীয়ান বিজ্ঞানী ড. মোহাম্মদ মোর্শেদ বর্তমানে কানাডার ব্রিটিশ কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটিতে প্যাথোলোজি ও ল্যাবরেটরি মেডেসিন বিভাগের ক্লিনিক্যাল অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত আছেন।

একই সঙ্গে তিনি বৃটিশ কলম্বিয়া সেন্টার ফর ডিজিস কন্ট্রোল এর পাবলিক হেলথ ল্যাবরেটরির জুনুটিক ও ইমার্জিং প্যাথোজেন প্রোগ্রামের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

কানাডায় পেশাগত জীবন শুরুর আগে ড. মোর্শেদ ঢাকার আইসিডিডিআরবি, শিশু হাসপাতাল, বাংলাদেশ ইন্সটি্টিউট অব চাইল্ড হেলথ এবং জাহাঙ্গীরনগ বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত ছিলেন।


গুলি ছুড়ে ইয়েমেনের ক্ষেপণাস্ত্র আকাশেই ধ্বংস করেছে সৌদি

জানা গেল আসল রহস্য, ১৩-১৪ বছরের দুই বোনের সঙ্গেই শরীরিক মেলামেশা ছিল তার

আবাহনীকে ৪-১ গোলে উড়িয়ে দিল বসুন্ধরা কিংস

৬৬ নারীকে ধর্ষণ


অণুজীব বিজ্ঞানের গবেষণা এবং শিক্ষায় বিশেষ অবদান রাখায় কানাডায়ও তিনি বিভিন্ন সময় সম্মানিত হয়েছেন। ২০১৭ সালে তিনি  বৃটিশ কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটির ‘এক্সিলেন্স ইন ক্লিনিক্যাল সার্ভিস এওয়ার্ড‘ পান। একই বছর  বিভিন্ন খাতে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে পুরো কানাডা থেকে বাছাই করা ‘দ্যা আরবিসি টপ ২৫ ইমিগ্রেন্ট এওয়ার্ড পান তিনি।  ২০১৯ সালে কানাডার কলেজ অব মাইক্রোবায়োলোজি তাঁকে ডিসটিঙ্গুইশ্ড মাইক্রোবায়োলোজিস্ট এওয়ার্ড’ দেয়।

এ প্রসঙ্গে প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়া হলে ড. মোহাম্মদ মোর্শেদ বলেন,বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কর্মরত বিজ্ঞানীদের নিজদেশে স্বীকৃতি দেওয়ার বিজ্ঞান একাডেমীর উদ্যোগকে তিনি স্বাগত জানান এবং তাকে মনোনীত করায় ধন্যবাদ জানান।

বিজ্ঞান একাডেমীর ফেলো হিসেবে নিয়োগ পা্ওয়ায় দেশের বিজ্ঞান চর্চ্যায় আরো বেশি ভূমিকা রাখার দায়িত্ব তার উপর বর্তেছে  বলে তিনি মনে করেন।

তিনি বলেন, কানাডার বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় এবং গবেষণাগারের সাথে বাংলাদেশের যোগসূত্র ঘটিয়ে দেওয়ার জন্য তিনি কাজ করে যাবেন।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর