কারাবন্দীর নারীসঙ্গ

কাশিমপুর কারাগারের জেল সুপারসহ ১১ জন বরখাস্ত

অনলাইন ডেস্ক

কাশিমপুর কারাগারের জেল সুপারসহ ১১ জন বরখাস্ত

হল-মার্কের কারাবন্দী মহাব্যবস্থাপক তুষার আহমদ বিধি লঙ্ঘন করে এক নারীর সঙ্গে সময় কাটানোর ঘটনায় গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-১–এর জ্যেষ্ঠ জেল সুপার, জেলার ও ডেপুটি জেলারসহ ১১ জনকে বরখাস্ত করা হয়েছে। এ ছাড়া আরও সাতজনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে এ–সংক্রান্ত চিঠি কারা অধিদপ্তরে পাঠানো হয়েছে।

সুরক্ষা সেবা বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, বরখাস্ত করা হয়েছে তখনকার জ্যেষ্ঠ জেল সুপার রত্না রায়, জেলার নূর মোহাম্মদ মৃধা এবং ডেপুটি জেলার গোলাম সাকলায়েনকে। বরখাস্ত অন্যদের মধ্যে ছয়জন কারারক্ষী, একজন সহকারী প্রধান কারারক্ষী ও সার্জেন্ট ইনস্ট্রাক্টর রয়েছেন।

অর্থ কেলেঙ্কারিতে অভিযুক্ত হল-মার্কের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) তুষার আহমদ বন্দী গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে। সেখানে তিনি বিধি লঙ্ঘন করে এক নারীর সঙ্গে সময় কাটান। এতে কারাগারের দুই কর্মকর্তা সহযোগিতা করেন বলে অভিযোগ ওঠে।

গত ৬ জানুয়ারি কারাগারের ক্লোজড সার্কিট টেলিভিশনের (সিসিটিভি) ক্যামেরায় এ চিত্র ধরা পড়ে। ঘটনার তদন্তে জেলা প্রশাসন গত ১২ জানুয়ারি তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করে। ওই কমিটিও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। তদন্তে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসনের গঠিত কমিটি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান আজ রাতে জানান, এ ঘটনায় গঠিত কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিবকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। তাঁরা প্রতিবেদনটি পর্যালোচনা করে তদন্ত কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী দায়ী কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছেন।

আরও পড়ুন: 


ভাস্কর্য নিয়ে স্ট্যাটাস, ঢাবি ছাত্রলীগ নেতা বহিষ্কার

ট্রাকভর্তি সীসা ছিনতাই, সিসিটিভি ফুটেজে ধরা ছাত্রলীগ নেতা রিমান্ডে

বিয়ে আসর থেকে কনেকে অপহরণচেষ্টা, অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা বললেন ষড়ষন্ত্র

রাঙামাটিতে লড়াই হবে দ্বিমুখী ও হাড্ডাহাড্ডি

দুম‌ড়ে গেল অ‌টোবাইক, মৃত্যু হলো মা-মেয়ের

৯টা-৫টা ডেস্ক ওয়ার্ক সম্ভব না: ভারতের সর্বকনিষ্ঠ পাইলট

প্রথমে দুই স্ত্রীর ঝগড়া, পরে ভাইয়ের হাতে ভাই খুন


গতকাল বুধবার তদন্ত কমিটি তদন্ত কমিটি সুরক্ষা বিভাগের সচিবের কাছে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়।

কমিটির প্রধান অতিরিক্ত কারা মহাপরিদর্শক আবরার হোসেন আজ জানিয়েছেন, তারা এখনো স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এ–সংক্রান্ত চিঠি পাননি।

তিনি বলেন, ‘সন্ধ্যার পর পাঠিয়েছেন বলেই হয়তো আমি দেখিনি। তবে আমরা ৪৯ পৃষ্ঠার একটি তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছিলাম। যেখানে ১৮ কর্মকর্তা ও কারারক্ষীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে।’

এর আগে গত ২১ জানুয়ারি তিন সদস্যের এ তদন্ত কমিটি গঠন করে কারা কর্তৃপক্ষ। কমিটি তদন্ত প্রতিবেদনে ১৮ কর্মকর্তা-কর্মচারীকে সাময়িক বরখাস্ত করা, চাকরিবিধি অনুযায়ী শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া, বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া, কেন্দ্রীয় কারাগারের পরিবর্তে জেলা কারাগারে পদায়ন করা, কম গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পদায়ন করাসহ ২৫টি সুপারিশ করেছে।

বর্তমানে কাশিমপুর-১ কারাগারের জ্যেষ্ঠ জেল সুপার রত্না রায়, জেলার নূর মোহাম্মদ মৃধা, ডেপুটি জেলার গোলাম সাকলায়েন কারা অধিদপ্তরে সংযুক্ত আছেন। তদন্ত শুরুর পর তাঁদের কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে প্রত্যাহার করে কারা অধিদপ্তরে সংযুক্ত করা হয়।

কারা অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এ ঘটনা ছাড়া আরও অনেক অনিয়ম পেয়েছে কমিটি। এ ধরনের ঘটনা বন্ধে কারাগারে স্বজন বা স্ত্রীর সঙ্গে দেখা-সাক্ষাৎ বৈধ করা যায় কি না, সে বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে। এ ছাড়া সারা দেশের কারাগারগুলোয় সিসি ক্যামেরা বসানো এবং সেই সিসি ক্যামেরা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে তদারক করার সুপারিশ করা হয়েছে।

৬ জানুয়ারির সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, কারাগারের ভেতরে কর্মকর্তাদের অফিস এলাকায় কালো রঙের জামা পরে ঘোরাফেরা করছেন তুষার আহমদ। কিছু সময় পর বাইরে থেকে বেগুনি রঙের জামা পরা এক নারী সেখানে আসেন। এ সময় কারাগারের জ্যেষ্ঠ জেল সুপার রত্না রায় ও ডেপুটি জেলার গোলাম সাকলায়েন সেখানে ছিলেন। 

দুপুর ১২টা ৫৫ মিনিটে দুই যুবকের সঙ্গে ওই নারী কারাগারের কর্মকর্তাদের কক্ষের দিকে যান। সেখানে ওই নারীকে ডেপুটি জেলার সাকলায়েন স্বাগত জানান। ওই নারী কক্ষে ঢোকার পর সাকলায়েন বেরিয়ে যান। আনুমানিক ১০ মিনিট পর তুষারকে সেখানে নিয়ে যান সাকলায়েন। এর প্রায় ১০ মিনিট পর রত্না তাঁর কক্ষ থেকে বেরিয়ে যান। দুই মিনিট পর রত্নার কক্ষের দিকে যান তুষার। আরও দুই মিনিট পর সেখান থেকে বেরিয়ে ওই নারীকে নিয়ে আবার রত্নার কক্ষে যান তুষার। যাওয়ার সময় তাঁদের হাসি-তামাশা করতে দেখা যায়। এর দুই মিনিট পর তুষার ও ওই নারী সাকলায়েনের কক্ষে ফেরেন। প্রায় পৌনে এক ঘণ্টা পর তাঁরা বের হন

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

৩ বছর পর রহস্য উদঘাটন

১৩-১৪ বছরের দুই বোনের সঙ্গেই শরীরিক মেলামেশা ছিল তার

অনলাইন ডেস্ক

১৩-১৪ বছরের দুই বোনের সঙ্গেই শরীরিক মেলামেশা ছিল তার

দীর্ঘ অনুসন্ধান শেষে দায়ী মেরাজুল ইসলাম নামে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পিবিআই। যার সঙ্গে দুই খালাতো বোনের প্রেম ও শারীরিক সম্পর্ক ছিল। 

এদিকে নিজের দোষ স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দিও দিয়েছে মেরাজুল।

১৬৪ ধারায় দেওয়া জবানবন্দি থেকে উঠে আসে ত্রি-ভূজ প্রেমের করুণ পরিণতির ঘটনা।
  
শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) আদালতে দেয়া জবানবন্দি থেকে পিবিআই-এর রংপুরস্থ পুলিশ সুপার জাকির হোসেন জানান, স্কুল-পড়ুয়া দুই খালাতো বোন লাতুল ও অন্নির সঙ্গে গোপনে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে প্রতিবেশী যুবক মেরাজুল। বিয়ের প্রলোভন দিয়ে দুইজনের সঙ্গেই শারীরিক মেলামেশা করেন তিনি।


এক নারী দিয়ে হতো না, প্রতিদিন নতুন নারী লাগত তার

অস্ত্রের মুখে ছাত্রীকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণের পর দফায় দফায় ধর্ষণ

মেয়েকে তুলে নিয়ে মাকে রাত কাটানোর প্রস্তাব অপহরণকারীর

নাসির বিয়ে করেছেন আপনার খারাপ লাগে কেন?

ঘুমন্ত স্বামীর পুরুষাঙ্গ কাটলেন স্ত্রী


কিন্তু এক সময় প্রেমিক মেরাজুলের এই প্রতারণার কথা জানতে পেরে অপমান-লজ্জায় ভুগতে থাকে তারা। তারপর একই দিনে বিষপান করে আত্মহত্যা করে দুই বোন।
      
২০১৮ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি রংপুর নগরীর শেখপাড়ায় চাঞ্চল্যকর এ ঘটনায় তৎকালীন রংপুর জেলা পুলিশের কোতোয়ালি থানায় একটি মামলা দায়ের হয়। প্রায় দুই বছর ৬ মাস তদন্ত করার পরও ঘটনার রহস্যভেদ হয়নি। পরে পিবিআইকে মামলাটির তদন্তভার প্রদান করলে পিবিআই-এর রংপুরস্থ পরিদর্শক যোতিন শর্মাকে তদন্তকারী কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়। 

পিবিআই-এর পুলিশ সুপার জাকির হোসেন জানান, মাত্র ১৩-১৪ বছর বয়সী দুই খালাতো বোনের মরদেহের ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন মূলত মামলার রহস্যের জট খুলে দেয়। কারণ তারা দুজনই মৃত্যুর আগে ধর্ষিত হওয়ার বিষয়টি জানা যায় ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনই। তারপর তথ্য-প্রযুক্তির ব্যবহার ও অনুসন্ধানেই পুরো বিষয়টি খোলসা হয়ে আসে। মামলাটির পুরো তদন্ত এখনও শেষ হয়নি বলে জানান জাকির হোসেন।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সুনামগঞ্জের ঘুঙ্গিয়ারগাঁওয়ে তিন দিনের জন্য ১৪৪ ধারা

অনলাইন ডেস্ক

সুনামগঞ্জের ঘুঙ্গিয়ারগাঁওয়ে  তিন দিনের জন্য ১৪৪ ধারা

একই জায়গায় এক সময়ে কীর্তন ডাকায় সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলার বাহারা ইউনিয়নের ঘুঙ্গিয়ারগাঁও গ্রামে তিন দিনের জন্য ১৪৪ ধারা জারি করা।

এ তথ্য নিশ্চিত করেন শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে শাল্লা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো.আল মোক্তাদির হোসেন।

উপজেলা প্রশাসনের সূত্র জানায়, শাল্লা উপজেলার ঘুঙ্গিয়ারগাঁও গ্রামে স্থানীয় মহাদেব গাছতলা কীর্তনকে কেন্দ্র করে এক গ্রাম দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে একই জায়গায় এক সময়ে কীর্তন করতে চাচ্ছে গ্রামবাসী। এ নিয়ে গত কয়েকদিন যাবত গ্রামে উত্তেজনা চলছে।


অস্ত্রের মুখে ছাত্রীকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণের পর দফায় দফায় ধর্ষণ

মেয়েকে তুলে নিয়ে মাকে রাত কাটানোর প্রস্তাব অপহরণকারীর

নাসির বিয়ে করেছেন আপনার খারাপ লাগে কেন?

ঘুমন্ত স্বামীর পুরুষাঙ্গ কাটলেন স্ত্রী


এতে দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ রোধে ঘুঙ্গিয়ারগাঁও গ্রামে স্থানীয় মহাদেব গাছতলা ৪০০ শত গজের মধ্যে শুক্রবার বিকাল ৩ টা থেকে আগামী (২৮ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১ টা পর্যন্ত কোনো ধরনের ব্যক্তির চলাফেরা, সমাবেশ, কীর্তনসহ কোন কিছু করা যাবে না।

শাল্লা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো.আল মোক্তাদির হোসেন জানান, এক গ্রাম দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে একই স্থানে কীর্তন করতে চাচ্ছে সেই জন্য গত কয়েক দিন যাবত ওই এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

নবম শ্রেণির কিশোরী ধর্ষণের মামলায় কনস্টেবল গ্রেপ্তার

অনলাইন ডেস্ক

নবম শ্রেণির কিশোরী ধর্ষণের মামলায় কনস্টেবল গ্রেপ্তার

ফেনীতে কিশোরীকে ধর্ষণের মামলায় তৌহিদুল ইসলাম শাওন নামে এক পুলিশ কনস্টেবলকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার তার বর্তমান কর্মস্থল রাঙ্গামাটি থেকে গ্রেপ্তার করে শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) আদালতের মাধ্যমে ফেনী কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এর আগে তিনি ফেনীর ফুলগাজী থানায় কর্মরত ছিলেন।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, পুলিশ কনস্টেবল তৌহিদুল ইসলাম বছরখানেক আগে ফেনীর ফুলগাজী থানায় কর্মরত ছিলেন। তখন তিনি স্থানীয় নবম শ্রেণির এক ছাত্রীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন। একদিন ঘুরে বেড়ানোর কথা বলে ফেনী শহরের একটি বাসায় নিয়ে ফলের জুসের সঙ্গে চেতনানাশক ওষুধ মিশিয়ে মেয়েটিকে পান করান শাওন। এতে ওই কিশোরী অচেতন হয়ে পড়লে তাকে ধর্ষণ করে ভিডিও ধারণ করেন তিনি।

জ্ঞান ফেরার পর ওই কিশোরী ধর্ষণের বিষয়টি বুঝতে পেরে এর প্রতিবাদ করে। তখন তার অশ্লীল ভিডিও ধারণ করা হয়েছে জানিয়ে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেন শাওন। ওই ভিডিওর জেরে বিভিন্ন সময় ভয়ভীতি দেখিয়ে একাধিকবার ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করেন অভিযুক্ত পুলিশ সদস্য। এতে ওই ছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে।


অস্ত্রের মুখে ছাত্রীকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণের পর দফায় দফায় ধর্ষণ

মেয়েকে তুলে নিয়ে মাকে রাত কাটানোর প্রস্তাব অপহরণকারীর

নাসির বিয়ে করেছেন আপনার খারাপ লাগে কেন?

ঘুমন্ত স্বামীর পুরুষাঙ্গ কাটলেন স্ত্রী


পরে কিশোরীর পরিবার তাদের মেয়ের অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার বিষয়টি জানতে পেরে বিষয়টি সমাধানের জন্য শাওনকে বিয়ের জন্য চাপ দিতে থাকে। এক পর্যায়ে শাওন ধারণ করা সেই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার দেয়ার ভয় দেখিয়ে সেই বিয়ে আটকান। তবে গত ১২ ফেব্রুয়ারি ওই কিশোরী একটি সন্তান জন্ম দিলে বিষয়টি জনসম্মুখে চলে আসে।

এর জেরে বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) ফেনীর আদালতে কিশোরীর মা বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। এরপর ফেনীর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কামরুল হাসান কিশোরীর ২০ ধারায় জবানবন্দি রেকর্ড করে আসামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। পরে এ ঘটনায় তৌহিদুল ইসলাম শাওনকে তার বর্তমান কর্মস্থল রাঙ্গামাটি থেকে গ্রেফতার করা হয়।

ফুলগাজী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কুতুব উদ্দিন পুলিশ সদস্য শাওনকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানোর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ পৌর নির্বাচন স্থগিতের আদেশ

তানভীর আজাদ মামুন, জামালপুর

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ পৌর নির্বাচন স্থগিতের আদেশ

পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন স্থগিত করেছে নির্বাচন কমিশন। শুক্রবার দুপুরে নির্বাচন কমিশন সচিবালয় এই নির্বাচন স্থগিতের আদেশ জারি করে।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের নির্বাচন পরিচালনা ২ অধিশাখার উপ সচিব মো. আতিয়ার রহমান স্বাক্ষরিত এক আদেশে জানানো হয়েছে, আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত স্থগিতের সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন।


গণধর্ষণের চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে কলেজছাত্রীর গায়ে আগুন

বাবার সঙ্গে দেখা করতে গিয়ে রাতধর ধর্ষণের শিকার মেয়ে

৩০-৩২ গার্লফ্রেন্ড থাকার পরও আমাকে ভালোবাসত নাসির: তামিমা

আমার সব প্রশ্নের জবাব ইসলামে পেয়েছি: কানাডিয়ান নারী


জামালপুর জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা নির্বাচন স্থগিতের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

উল্লেখ্য, নির্বাচন স্থগিত হওয়ায় দেওয়ানগঞ্জ ব্যতিত আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি জামালপুর, ইসলামপুর ও মাদারগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

দেওয়ানগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন স্থগিত

তানভীর আজাদ মামুন, জামালপুর

দেওয়ানগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন স্থগিত

২৮ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত স্থগিত ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন।

বিস্তারিত আসছে...

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর