নারীসঙ্গের গোপন ভিডিও ফাঁসকারীদের খুঁজছে কারা অধিদপ্তর

অনলাইন ডেস্ক

নারীসঙ্গের গোপন ভিডিও ফাঁসকারীদের খুঁজছে কারা অধিদপ্তর

ফাইল ছবি

কারাগারের ভেতরে ঘটা অনিয়ম ও দুর্নীতির খবর কীভাবে সাংবাদিক বা গণমাধ্যমের কাছে যায় সেটি নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে কারা অধিদপ্তর। বিশেষ করে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে হল-মার্কের মহাব্যবস্থাপক তুষার আহমদ বিধি লঙ্ঘন করে এক নারীর সঙ্গে একান্তে সময় কাটানোর ঘটনার ভিডিও ফুটেজ কীভাবে গণমাধ্যমের হাতে পৌঁছাল এবং কীভাবে গণমাধ্যম কারা অভ্যন্তরের দাপ্তরিক নথিপত্র পেল, তা অনুসন্ধান করতে ৩ সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছে কারা অধিদপ্তর।

যশোরের কারা উপ-মহাপরিদর্শক মো. ছগির মিয়াকে সভাপতি করে ৩ সদস্যবিশিষ্ট এ কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগার জ্যেষ্ঠ জেল সুপার (চলতি দায়িত্ব) মো. গিয়াস উদ্দিন ও ফরিদপুর জেলা কারাগারের জেল সুপার আল মাসুম।

আরও পড়ুন:


স্তন ঝুলে যায় কেন?

দুম‌ড়ে গেল অ‌টোবাইক, মৃত্যু হলো মা-মেয়ের

৯টা-৫টা ডেস্ক ওয়ার্ক সম্ভব না: ভারতের সর্বকনিষ্ঠ পাইলট

প্রথমে দুই স্ত্রীর ঝগড়া, পরে ভাইয়ের হাতে ভাই খুন


কেন এ ধরনের তদন্ত কমিটি গঠন করা হলো জানতে চাইলে কারা অধিদপ্তরের অতিরিক্ত কারা মহাপরিদর্শক কর্নেল মো. আবরার হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, ভিডিও ফুটেজ যাওয়া গুরুতর অপরাধ। এটা কীভাবে গেল তা খুঁজে বের করা জরুরী। এটা খুঁজে বের করব এবং অ্যাকশনে যাব। কারাগারে কী ঘটছে সেটা কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সাংবাদিকদের দেবে কেন? কারাগারের ভেতরে কী হচ্ছে, তা যদি কড়াকড়ি করতেই না পারি তাহলে সাংবাদিকেরা গিয়ে কারাগারের ভেতরেই থাকুক।

তদন্ত কমিটি গঠনসংক্রান্ত এ চিঠিতে বলা হয়েছে, কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-১ গাজীপুরের অফিসকক্ষে হাজতি বন্দী তুষার আহমদের সঙ্গে দেখা-সাক্ষাৎ সংক্রান্ত ভিডিও ফুটেজ চ্যানেল-২৪ ও পরবর্তীতে বিভিন্ন চ্যানেলে প্রচারিত ভিডিও ফুটেজ এবং প্রথম আলোসহ বিভিন্ন পত্রিকায় কারা অভ্যন্তরের দাপ্তরিক নথিপত্র কীভাবে বা কার মাধ্যমে হস্তগত হয়েছে, তা তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করতে হবে।

কারা অধিদপ্তর কমিটিকে এ ঘটনার সম্ভাব্যতা যাচাই এবং কারাবিধির আলোকে অপরাধ নির্ণয়, দায়ী ব্যক্তি চিহ্নিত (যদি থাকে) ও দায়ী ব্যক্তিদের অপরাধ সম্পর্কে কারাবিধি অনুযায়ী মতামত ও সুপারিশ এবং ভবিষ্যতে করণীয় সম্পর্কে মতামত দিতে বলেছে।

news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

বাংলাদেশি নাগরিকদের থাইল্যান্ড ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা

অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশি নাগরিকদের থাইল্যান্ড ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা

করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ঠেকাতে এবার বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার তিনটি দেশ থেকে ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে থাইল্যান্ড। অন্য দেশদুটি হলো- পাকিস্তান ও নেপাল।

তবে থাইল্যান্ডের নাগরিক ও কূটনৈতিক পাসপোর্টধারীদের ক্ষেত্রে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা না থাকার কথাও জানিয়েছে দেশটির সরকার।

ঢাকার থাই দূতাবাস থেকে এক বিজ্ঞপ্তিতে গতকাল এ তথ্য জানানো হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এ নির্দেশে চলমান থাকবে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, থাইল্যান্ড সরকারের গঠিত সিসিএসএ করোনা পরিস্থিতির কারণে দক্ষিণ এশিয়ার এই তিনটি দেশের জন্য ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। তবে এসব দেশ থেকে থাই নাগরিকরা চাইলে দেশে ফিরতে পারবেন। 


ফিতরা দেয়ার গুরুত্ব ও ফজিলত

ঝুম বৃষ্টিতে ভিজলো রাজধানী

নদীতে ভেসে এল ৪০টির বেশি লাশ


বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়েছে, বৈধ ভিসাধারীরা ১৫ মে থাইল্যান্ড যেতে পারবে। তারপরদিন ১৬ মে থেকে সিওইএস ইস্যু সংক্রিয়ভাবে বন্ধ হয়ে যাবে। তবে কূটনৈতিক এবং জাতিসংঘের লাইসেজ-পাসার (ইউএনএলপি) ভিসাধারীরা থাইল্যান্ডে ভ্রমণ করতে পারবে।

এর আগে বাংলাদেশি নাগরিকদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে বেশ কয়েকটি দেশ। এর মধ্যে রয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া, যুক্তরাজ্য, ইতালি, সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়া। আজ সোমবার আরও দুটি দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাত ও থাইল্যান্ড থেকে এ নিষেধাজ্ঞা এলো।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

বাংলাদেশিদের থাইল্যান্ড প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশিদের থাইল্যান্ড প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

করোনা পরিস্থিতিতে বাংলাদেশি নাগরিকদের জন্য থাই ভিসা ইস্যু বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। সোমবার (১০ মে) ঢাকার থাই দূতাবাস এ তথ্য জানায়।

থাই দূতাবাস জানায়, করোনার কারণে বাংলাদেশ, নেপাল ও পাকিস্তানের নাগরিকদের জন্য থাই ভিসা বন্ধ ঘোষণা করেছে থাইল্যান্ড। 

আগামী ১৫ মে’র মধ্যে যাদের ভিসা রয়েছে তারা থাইল্যান্ডে প্রবেশ করতে পারবেন। ১৬ মে থেকে সব ভিসা বাতিল হয়ে যাবে। এই নিয়ম পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বলবৎ থাকবে।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, বৈধ ভিসাধারীরা ১৫ মে থাইল্যান্ড যেতে পারবে। তার পরদিন ১৬ মে থেকে সিওইএস ইস্যু বন্ধ হয়ে যাবে। তবে কূটনৈতিক এবং জাতিসংঘের লাইসেজ-পাসার (ইউএনএলপি) ভিসাধারীরা থাইল্যান্ডে ভ্রমণ করতে পারবে।

এর আগে বাংলাদেশি নাগরিকদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে বেশ কয়েকটি দেশ। এর মধ্যে রয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া, যুক্তরাজ্য, ইতালি, সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়া। আজ সোমবার আরও দুটি দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাত ও থাইল্যান্ড থেকে এ নিষেধাজ্ঞা এলো।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

করোনা ভাইরাস টাকাতেও

অনলাইন ডেস্ক

করোনা ভাইরাস টাকাতেও

অনেক দিন থেকেই আলোচনায় ছিল টাকার নোটে করোনা ভাইরাস মেলার কথা নিয়ে। এবার যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) একদল গবেষক দাবি করল টাকায় সাত শতাংশ নমুনায় করোনাভাইরাস পাওয়া গেছে।

সোমবার যবিপ্রবির প্রশাসনিক ভবনের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়।

বাংলাদেশের ব্যাংকনোটে করোনা ভাইরাসের আরএনএর উপস্থিতির বিষয়ে এক গবেষণাপত্রের সূত্র ধরে অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, আমাদের গবেষক দল দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে প্রাপ্ত ব্যাংক নোটে ভাইরাসের আরএনএর উপস্থিতি পেয়েছেন। গবেষক দল ব্যাংক নোটে ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত ভাইরাসের এন-জিনের উপস্থিতি এবং ৮-১০ ঘণ্টা পর্যন্ত ওআরএফ জিনের স্থায়িত্ব শনাক্ত করতে পেরেছেন। এই গবেষণাপত্রটি ইতিমধ্যেই একটি জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

সেই ৭ করোনা রোগী গ্রেপ্তার

অনলাইন ডেস্ক

সেই ৭ করোনা রোগী গ্রেপ্তার

যশোর জেনারেল হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যাওয়া ভারত ফেরত ছয়জনসহ ৭জন করোনা রোগীকে ধরা পড়েছে।

আদালত তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে।

এ মামলায় অভিযুক্ত আরও তিনজন চিকিৎসাধীন থাকায় তাদের গ্রেপ্তার করা হয়নি।

যশোর পুলিশের বিশেষ শাখার পুলিশ সুপার তৌহিদুল ইসলাম জানান, করোনা ওয়ার্ড থেকে পালিয়ে যাওয়া ওই রোগীদের বিরুদ্ধে গত শনিবার যশোর কোতোয়ালি থানার পুলিশ ২০১৮ সালের সংক্রামক রোগ প্রতিরোধ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইনের ২৫ (২) ধারায় প্রতিবেদন দাখিল করে।

আদালত গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করায় সোমবার সকালে তাদেরকে যশোর জেনারেল হাসপাতাল থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে আদালত তাদের জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন।

গ্রেপ্তাররা হলেন- যশোর শহরের পশ্চিম বারান্দিপাড়ার বিশ্বনাথ দত্তের স্ত্রী মনিমালা দত্ত (৪৯), সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার প্রতাপপাড়া গ্রামের মিলন হোসেন (৩২), রাজবাড়ী সদর উপজেলার রামকান্তপুর গ্রামের নাসিমা আক্তার (৫০), খুলনা সদর উপজেলার বিবেকানন্দ (৫২), খুলনার পাইকগাছা উপজেলার ডামরাইল গ্রামের আমিরুল সানা (৫২), একই জেলার রূপসা উপজেলার সোহেল সরদার (১৭) ও স্থানীয় রোগী যশোর সদর উপজেলার পাঁচবাড়িয়া গ্রামের রবিউল ইসলামের স্ত্রী ফাতেমা বেগম (১৯)। সোমবার সকালে এ সাতজনকে ছাড়পত্র দেয় হাসপাতাল।

এ ছাড়া অভিযুক্ত ভারত ফেরত সাতক্ষীরার কালীগঞ্জ উপজেলার শেফালি রানী সরদার (৪০), স্থানীয় রোগী যশোর সদর উপজেলার পাঁচবাড়িয়া গ্রামের একরামুল কবীরের স্ত্রী রুমা (৩০) ও যশোর শহরের ওয়াপদা গ্যারেজ এলাকার ভদ্র বিশ্বাসের ছেলে প্রদীপ বিশ্বাস (৩৭) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

যশোর কোতোয়ালি থানার ওসি তাজুল ইসলাম জানান, তারা গ্রেপ্তারি পরোয়ানাভুক্ত। হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়ার পর তাদের গ্রেপ্তার করা হবে।

হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. দিলীপ কুমার রায় জানান, গত ১৮ থেকে ২৪ পর্যন্ত এপ্রিল পর্যন্ত বেনাপোল সীমান্তে করোনা শনাক্ত হয়ে ৬ জন যশোর জেনারেল হাসপাতালে আসেন। তাদেরকে জরুরি বিভাগ থেকে হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে পাঠানো হলে তারা সেখানে না গিয়ে পালিয়ে যান। ভারত ফেরত করোনা শনাক্তদের পালিয়ে যাওয়ার খবর আলোচনা সৃষ্টি করে।

পরবর্তী খবর

‘চার দেশের জোটে যোগ দিলে বাংলাদেশ-চীন সম্পর্কের অবনতি হবে’

অনলাইন ডেস্ক

‘চার দেশের জোটে যোগ দিলে বাংলাদেশ-চীন সম্পর্কের অবনতি হবে’

যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার কৌশলগত জোট ‘কোয়াড’ এ যোগ না দিতে বাংলাদেশের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ঢাকায় নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিং। তিনি বলেছেন কোয়াডে অংশ নিলে বাংলাদেশ-চীন সম্পর্ক ‘যথেষ্ট খারাপ’ হবে।

সোমবার সকালে ঢাকায় চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিং সাংবাদিকদের সঙ্গে ভার্চুয়াল মতবিনিময়ের সময় এ মন্তব্য করেন।

যুক্তরাষ্ট্র প্রস্তাবিত এ সামরিক জোটকে চীনবিরোধী ছোট গোষ্ঠী হিসেবে বেইজিং বিবেচনা করছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

তার কাছে সাংবাদিকদের প্রশ্ন ছিল, সম্প্রতি দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী বাংলাদেশ সফরের সময় কোয়াড নিয়ে যে আপত্তি করেছিলেন, সে বিষয়ে বাংলাদেশ কী জানিয়েছে?

প্রশ্নটি সরাসরি এড়িয়ে গিয়ে রাষ্ট্রদূত বলেন, চীন সব সময় মনে করে কোয়াড হচ্ছে চীনবিরোধী একটি জোট। অর্থনৈতিক প্রস্তাবের কথা বলা হলেও এখানে নিরাপত্তার বিষয়টি জড়িত। এ ধরনের ছোট গোষ্ঠীতে যোগদান বাংলাদেশের জন্য ভালো কিছু হবে না। এতে চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক খারাপ হবে।

এ সময় চীনের রাষ্ট্রদূত জানান, চীনা কোম্পানি সিনোফার্মের তৈরি করোনার টিকার ৫ লাখ ডোজ আগামী ১২ মে বাংলাদেশে আসবে। উপহারের এ টিকা দিতে বাংলাদেশকে গত ৩ ফেব্রুয়ারি প্রস্তাব দিয়েছিল চীন। তবে অনুমোদনের জন্য দীর্ঘ তিন মাস অপেক্ষা করতে হয়েছে। আগে অনুমতি দিলে এ টিকা আরও আগেই পেত বাংলাদেশ।

ডিপ্লোম্যাটিক করেসপনডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশের (ডেক্যাব) সভাপতি পান্থ রহমান ও সাধারণ সম্পাদক এ কে এম মঈনুদ্দীন এই সভায় বক্তব্য রাখেন।

news24bd.tv/আলী 

পরবর্তী খবর