সবাইকে ছাড়িয়ে মুমিনুল

অনলাইন ডেস্ক

সবাইকে ছাড়িয়ে মুমিনুল

সবাইকে ছাড়িয়ে অনন্য উচ্চতায় মুমিনুল হক। বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি তুলে নিলেন মুমিনুল হক। সবচেয়ে বেশি টেস্ট সেঞ্চুরির মালিক এখন এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। সেই সঙ্গে ষষ্ঠ টেস্ট ফিফটির দেখা পেয়েছেন লিটন দাশ।

বাংলাদেশের জার্সিতে এর আগে সবচেয়ে বেশি টেস্ট সেঞ্চুরির মালিক ছিলেন তামিম ইকবাল (৯টি)। এতদিন টাইগার ওপেনারের সঙ্গে রেকর্ড ভাগাভাগি করছিলেন মুমিনুল। এবার তামিমকেও ছাড়িয়ে গেলেন তিনি। ৭ সেঞ্চুরি নিয়ে তালিকার তিনে আছেন মুশফিকুর রহিম। চারে মোহাম্মদ আশরাফুল (৬) এবং পাঁচে সাকিব আল হাসান (৫)।

আরও পড়ুন:


ইরাককে সমর্থন দেবে রাশিয়া

আমেরিকাকে যুদ্ধের হুমকি দিল তালেবানরা

একদিন হঠাৎ থমকে যাবে সব আয়োজন!

লাগামহীন ভোজ্যতেলের বাজার


শুধু কি তাই, এই নিয়ে টানা দুই টেস্টে সেঞ্চুরির দেখা পেলেন মুমিনুল। এর আগে ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে জিম্বাবুয়ে বিপক্ষে ঘরের মাঠে অনুষ্ঠিত একমাত্র টেস্টে ১৩২ রান করেছিলেন টাইগারদের টেস্ট অধিনায়ক। এবারের সেঞ্চুরিটি তিনি সাজিয়েছেন ৯টি বাউন্ডারিতে। বল খেলেছেন ১৭৩টি।

তবে এরইমধ্যে মুমিনুলকে ফিরতে হয়েছে সাজ ঘরে। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ৬ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২১৯ রান।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

উইকেট পেলেন সাকিব, জয় দিয়ে শুরু কলকাতার

অনলাইন ডেস্ক

উইকেট পেলেন সাকিব, জয় দিয়ে শুরু কলকাতার

নিজেদের প্রথম ম্যাচে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিপক্ষে দারুন একটা জয় পেয়েছে বাংলাদেশি তারকা সাকিব আল হাসানের দল কলকাতা নাইট রাইডার্স (কেকেআর)।

এদিন ব্যাট হাতে নিজেকে মেলে ধরতে না পারলেও বোলিংয়ে সাকিব ছিলেন উজ্জ্বল। পুরো ৪ ওভার বোলিং করে ৩৪ রান দিয়ে নিয়েছেন ১ উইকেট।

রোববার রাতে চেন্নাইয়ের এম চিদাম্বরম স্টেডিয়ামে টসে জিতে নাইটদের ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানান হায়দরাবাদের ডেভিড ওয়ার্নার। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নীতিশ ও রাহুলের যথাক্রমে ৮০ ও ৫৩ রানের ইনিংসে ভর করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৮৭ রান তোলে কেকেআর।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ১৭৭ রানে থেমে যায় হায়দরাবাদের ইনিংস।

ফলে আইপিএলের ১৪তম আসরে নিজেদের প্রথম ম্যাচে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিপক্ষে ১০ রান জয় পায় কেকেআর।

১৮৮ রানের লক্ষ্য তাড়ায় ব্যাট করতে নেমে শুরুটা মোটেই ভালো হয়নি হায়দরাবাদের। স্কোরবোর্ডে ১০ রান তুলতেই দুই ওপেনারকে হারায় হায়দরাবাদ। অধিনায়ক ওয়ার্নারকে ৩ রানে সাজঘরে ফেরান প্রসিদ্ধ কৃষ্ণা। ঋদ্ধিমান সাহাকে ৭ রানে ফেরান সাকিব।

তবে দলের হাল ঠিকই ধরেন মনীষ পাণ্ডে ও ইংলিশ তারকা জনি বেয়ারস্টো। এ জুটি কোনে বিপদ না ঘটিয়ে ১০২ রানে নিয়ে পৌঁছায় দলকে।

দুর্দান্ত এই জুটিতে ভাঙন ধরান প্যাট কামিন্স। আউট হওয়ার আগে বেয়ারস্টো খেলেন ৪০ বলে ৫৫ রানের একটি প্রয়োজনীয় ইনিংস।

বেয়ারস্টোর পর হায়দরাবাদের বাকি ব্যাটসম্যানরা মনীষের সঙ্গে ছোটা ছোট পার্টনারশিপ গড়েন।

আফগান তারকা মোহাম্মদ নবী ১১ বলে ১৪ রান করে আউট হন প্রসিদ্ধর বলে। বিজয় শংকরকে ১১ রানে থামান আন্দ্রে রাসেল। এরপর আবদুল সামাদকে নিয়ে লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে যান মনীষ পাণ্ডে।

শেষ ওভারে জয়ের জন্য হায়দরাবাদের প্রয়োজন ছিল ২২ রানের।

টি-টোয়েন্টির ধুমধারাক্কা মঞ্চে এটি অসম্ভবের কিছু নয়। কারণ ৪২ বলে ৫৪ রানে অপরাজিত মনীষ। ওদিকে মাত্র ৪ বলে ১৫ রান করে ছক্কা হাঁকানোর জন্য মুখিয়ে সামাদ।

হাতে রয়েছে ৫টি উইকেট। রান বেশি হলেও এমন পরিস্থিতিতে ম্যাচ বের করা খুব একটা কষ্টসাধ্য নয়।

শেষ ওভারটি করতে ক্যারিবীয় পেসার আন্দ্রে রাসেলের হাতে তুলে দেন কেকেআর অধিনায়ক এইউন মরগ্যান।

কিন্তু হতাশ করেন সামাদ। প্রথম ৪ বলে মাত্র ৪ রান নেন তিনি। ফলে খেলা কেকেআরের ভাগ্যে চলে যায়। শেষ ২ বলে প্রয়োজন পড়ে ১৮ রানে। যা নো বল ছাড়া অসম্ভব।

শেষ বলে মনীষ পাণ্ডে ছক্কা হাঁকালে সর্বসাকুল্যে ১৭৭ রান জমা হয় স্কোরবোর্ডে। অর্থাৎ ১০ রানে জয়ী কলকতা নাইট রাইডার্স।

এর আগে কেকেআরের প্রথম ইনিংসে ৭ ওভারে দলের ৫৩ রান তোলার সময় ফেরেন ওপেনার শুভমন গিল (১৫)। এরপর তিনে ব্যাটিংয়ে নামা রাহুল ত্রিপাঠিকে সঙ্গে নিয়ে ব্যাটিং তাণ্ডব শুরু করেন নীতিশ রানা। দ্বিতীয় উইকেটে ৫০ বলে ৯৩ রানের জুটি গড়েন তারা।    

১৫.১ ওভারে এক উইকেটে ১৪৬ রান করে বড় স্কোর গড়ার আভাস দিয়েছিল কেকেআর। কিন্তু এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারায় তারা। দলীয় ১৪৬ রানে দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে ফেরেন ত্রিপাঠি। তার আগে ২৯ বলে ৫টি চার ও দুই ছক্কায় ৫৩ রান করেন।


বোনকে খুঁজে না পেয়ে ভাইয়ের জিডি, বলছেন তার বোনকেও বিয়ে করেছেন মাওলানা মামুনুল

সূরা তাওবার শেষ দুই আয়াতের ফজিলত

সক্রেটিস আইন মেনে মরলেন, রফিকুল আইন মানেন না

হেফাজতে ইসলামের আয়ের উৎস জানালেন আল্লামা বাবুনগরী


বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ইনিংস শুরু করা আন্দ্রে রাসেল ফেরেন ৫ বলে মাত্র ৫ রান করে। ইনিংসের শুরু থেকে একের পর এক বাউন্ডারি হাঁকিয়ে যাওয়া নীতিশ রানা ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে ক্যাচ তুলে দেন। তার আগে ৫৬ বলে ৯টি চার ও চারটি ছক্কায় করেন দলীয় সর্বোচ্চ ৮০ রান। ৩ বলে ২ রানে ফেরেন অধিনায়ক ইয়ন মরগান।

ইনিংস শেষ হওয়ার ১৪ বল আগে নেমে সুবিধা করতে পারেননি সাকিব। ইনিংসের শেষ বলে আউট হওয়ার  আগে ৫ বলে করেন মাত্র ৩ রান। শেষ দিকে ৯ বলে  দুই চার ও এক ছক্কায় অপরাজিত ২২ রান করেন দিনেশ কার্তিক। শেষ দিকে তার বিধ্বংসী ইনিংসে ৬ উইকেটে ১৮৭ রান করে কেকেআর। 

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বিধানসভা নির্বাচনে ভোট দিলেন সৌরভ গাঙ্গুলি

অনলাইন ডেস্ক

বিধানসভা নির্বাচনে ভোট দিলেন সৌরভ গাঙ্গুলি

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বিধানসভার চতুর্থ দফার নির্বাচনে আজ শনিবার (১০ এপ্রিল) সকাল সাতটা থেকে ভোট শুরু হয়। মোট ৪৪টি আসনে ভোট চলে সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত। 

ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই) সভাপতি ও সাবেক ক্রিকেটার সৌরভ গাঙ্গুলি তার স্ত্রী ডোনা গাঙ্গুলি নিয়ে সেখানে গিয়ে ভোট দিয়েছেন। তিনি ভোট দেন বেহালার বাসিন্দা হিসেবে।  

ভারতীয় গণমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে নিজের পাড়ায় জনকল্যাণ বিদ্যাপিঠে ভোট দিতে যান সৌরভ।

আরও পড়ুন


ইতিহাসের সত্য না বলা অপরাধ: মির্জা ফখরুল

দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে সর্বোচ্চ মৃত্যু

মাওলানা মামুনুলের বিরুদ্ধে সোনারগাঁয়ে আরও এক মামলা

শরণখোলায় ডায়রিয়ার প্রকোপ, শতাধিক রোগী হাসপাতালে ভর্তি


এরআগে আইপিএলের উদ্বোধনী ম্যাচ দেখতে চেন্নাইতে যান তিনি। পরে শনিবার বিমানবন্দর থেকে সরাসরি ভোট কেন্দ্রে যান বিসিসিআই প্রধান। এ সময় ভোটকেন্দ্রে বেশ ভিড় লেগে যায়। তবে সাধারণ ভোটারদের সঙ্গে লাইনে দাঁড়িয়েই তারা ভোট প্রদান করেছেন। 

ভোট দেওয়ার পর সৌরভ জানান, ‘আমি সব সময় ভোট দেই। সাধারণত সকালের দিকে ভোট দেই। কিন্তু আইপিএলের প্রোগ্রামে থাকায় এবার একটু দেরি হয়ে গেল। বাড়ির সবাই আমার আগে সকালে ভোট দিয়ে গিয়েছে।’

news24bd.tv / কামরুল

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

করোনা আক্রান্ত আকরাম খান আইসোলেশনে আছেন

অনলাইন ডেস্ক

করোনা আক্রান্ত আকরাম খান আইসোলেশনে আছেন

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বিসিবি পরিচালক ও বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক আকরাম খান।

শনিবার সকালে গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করে আকরাম খান বলেছেন, গতকাল করোনা টেস্ট করার পর সন্ধ্যায় রিপোর্ট পজিটিভ আসে। এরপর থেকে তিনি বাসাই আইসোলেশনে আছেন। এ ছাড়া আজকে তার সহধর্মিণী সাবিনা আকরামের করোনা টেস্ট করা হবে। একই সঙ্গে তাদের দুই সন্তানকে সুরক্ষিত জায়গায় রাখা হয়েছে।


আলিবাবাকে ইতিহাসে রেকর্ড করা জরিমানা করলো চীন

চীনা দূতাবাসের পানির সংযোগ বিচ্ছিন্ন করলো আঙ্কারা সিটি মেয়র

করোনার মধ্যেই মামলা প্রত্যহার না হলে হরতালের ডাক ছাত্রলীগের!


আকরাম খান ১৯৯৮ থেকে ২০০৩ সাল পর্যন্ত ৮টি টেস্ট ও ৪৪টি একদিনের আন্তর্জাতিক খেলায় বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেন। 

১৫টি সীমিত ওভারের একদিনের খেলায় বাংলাদেশের নেতৃত্ব দেন তিনি। ১৯৯৮ সালে আকরাম খানের হাত ধরেই কেনিয়ার বিপক্ষে বাংলাদেশ তার প্রথম একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে জয় পায়। তার অধিনাকয়ত্বে বাংলাদেশ ক্রিকেটের সবচেয়ে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জয়টি আসে ১৯৯৭ সালে মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরে অনুষ্ঠিত আইসিসি ট্রফি চ্যাম্পিয়ন হওয়া। 

ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের উদ্বোধনী টেস্ট ম্যাচে আকরাম খান দলে ছিলেন। উদ্বোধনী টেস্ট থেকে শুরু করে তিনি বাংলাদেশের হয়ে ৮টি টেস্ট ম্যাচ খেলেছেন। তার ব্যাটিং গড় ১৬.১৮ এবং সর্বোচ্চ রান ৪৪, যা ২০০১ সালে হারারেতে হয়েছিল জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

আইপিএলের প্রথম ম্যাচেই রুদ্ধশ্বাস লড়াই

অনলাইন ডেস্ক

আইপিএলের প্রথম ম্যাচেই রুদ্ধশ্বাস লড়াই

আইপিএলের ১৪তম এবারের আসরের প্রথম ম্যাচেই শ্বাসরুদ্ধকর এক লড়াই উপভোগ করলেন দর্শকরা। মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের ছুঁড়ে দেওয়া ১৬০ রান তাড়া করতে নেমে শেষ ওভারের শেষ বলে এক রান নিয়ে ২ উইকেটের ব্যবধানে ম্যাচ জিতে নেয় বিরাট কোহলির রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু।

মার্কো জ্যানসেনের শেষ ওভারে জয়ের জন্য দরকার ছিল ৭ রান। ৩ বলে ৪ রান তোলার পর চতুর্থ বলে ২ রান নিতে গিয়ে রান আউট হয়ে যান এবি ডিভিলিয়ার্স। দল তখন ৮ উইকেটে ১৫৮ রানে দাঁড়িয়ে। ফলে বিরাটের দলকে জিততে হলে ২ বলে ২ রান করতে হত। আর রোহিতের দরকার ছিল ২ বলে ২ উইকেট।

পঞ্চম বলে সিরাজ মাথা ঠান্ডা রেখে ১ রান নেন। এরপর শেষ বলে এল জয়। ওভারের শেষ বলে ১ রান নিয়ে বিরাট কোহলির দলকে প্রথম ম্যাচেই জয় এনে দিলেন ২৭ রানে ৫ উইকেট নেওয়া হর্ষল প্যাটেল। ফলে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে ২ উইকেটে জয় পেল রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু (আরসিবি)।

বিশ্বের সবচেয়ে জাঁকজমকপূর্ণ ফ্রাঞ্চাইজি টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) ১৪তম আসরে শুক্রবার রাতে উদ্বোধনী ম্যাচে টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন আরসিবি’র বিরাট। 

শুক্রবার টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৫৯ রান জড়ো করে মুম্বাই। রোহিত শর্মার দলের হয়ে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রান আসে ক্রিস লিনের ব্যাট থেকে। ৩৫ বলে ৪টি চার ও ৩টি ছক্কায় লিন করেন ৪৯ রান। এছাড়া সূর্যকুমার যাদব ২৩ বলে ৩১, ঈশান কিষাণ ১৯ বলে ২৮ আর অধিনায়ক রোহিত শর্মার ব্যাট থেকে আসে ১৫ বলে ১৯ রান।

ব্যাঙ্গালুরুর হয়ে একাই মুম্বাইয়ের ব্যাটিং স্তম্ভ ধসিয়ে দিয়েছেন হার্শাল প্যাটেল। শেষ ওভারেই তুলে নেন তিনটি উইকেট, ওই ওভারে চার উইকেট হারিয়ে মাত্র ১ রান তুলতে পারে মুম্বাই।

মাত্র ১৬০ রানের জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে ব্যাঙ্গালুরুর উদ্বোধনী জুটি ভাঙে ৩৬ রানে। অধিনায়ক বিরাট কোহলির সঙ্গে উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হিসেবে ছিলেন ওয়াশিংটন সুন্দর। অধিনায়ক কোহলি বেশ দেখেশুনেই শুরু করেছিলেন এদিন। তবে হাঁকাতে পারেননি বড় ইনিংস। ২৯ বলে মাত্র ৩৩ রান করেই ফিরতে হয়ে তাকে। এরপর বড় ইনিংসের ইঙ্গিত দিয়েও ২৮ বলে ৩৯ রান করে সাজঘরে ফেরেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল।

ম্যাক্সওয়েল আউট হওয়ার পরেই দ্রুত আরো দুটি উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে ব্যাঙ্গালুরু। সেখান থেকে ২৭ বলে ঝড়ো ৪৮ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংসে ব্যাঙ্গালুরুকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেন এবিডি ভিলিয়ার্স। তবে দল জয়ের বন্দরে নোঙর করার আগে মাত্র দুই রান বাকি থাকতেই শেষ ওভারে ভিলিয়ার্সকে আউট করে রোমাঞ্চ জমিয়ে তোলে মুম্বাই। আউট হওয়ার আগে নামের ভিলিয়ার্স ৪টি চার ও ২টি ছক্কায় ইনিংস সাজিয়েছিলেন।

এরপর শেষ বলে ১ রানের দরকার হলে হার্শালের ব্যাট থেকে আসে ওই একটি রান। আর তাতেই ২ উইকেটের রোমাঞ্চকর জয় নিয়ে এবারের আইপিএল যাত্রা শুরু করে বিরাট কোহলির রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স: ১৫৯/৯ (২০ ওভার); (লিন ৪৯, সূর্যকুমার ৩১); (হার্শাল ২৭/৫, সুন্দর ৭/১)।

রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু। ১৬০/৮ (২০ ওভার); (ডি ভিলিয়ার্স ৪৮, ম্যাক্সওয়েল ৩৯, কোহলি ৩৩); (বুমরাহ ২৬/২, জানসেন ২৮/২)।

ফলাফল: রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু ২ উইকেটে জয়ী।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ আইপিএলের ১৪তম আসর শুরু

অনলাইন ডেস্ক

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ আইপিএলের ১৪তম আসর শুরু

করোনার প্রকোপের মধ্যেই আজ শুরু হল ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ আইপিএলের ১৪তম আসর। উদ্বোধনী ম্যাচে আজ মাঠে নামে আসরের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স ও রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু।

ম্যাচটি শুরু হয় বাংলাদেশ সময় রাত আটটায়। করোনা ঝুঁকির জন্য গত আসরের শেষাংশ সংযুক্ত আরব আমিরাতে নিয়ে যাওয়া হলেও এবার ভারতেই খেলা হবে পুরো মৌসুম। স্বাস্থ্যবিধি মেনে টুর্নামেন্টের প্রথমাংশ দর্শকহীন স্টেডিয়ামেই খেলা হবে বলে জানিয়েছে বিসিসিআই। 

তবে পরিস্থিতি বিবেচনায় পরে সীমিত পরিসরে দর্শকদের অনুমতি দেওয়া হতে পারে। আটটি ফ্র্যাঞ্চাইজি ছয়টি ‘নিরপেক্ষ ভেন্যু’ মাঠে নামবে পুরো টুর্নামেন্ট জুড়ে। ৩০ মের ফাইনাল দিয়ে শেষ হবে এবারের আসর। 

আগামী ১১ই এপ্রিল সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে এবারের আইপিএল মিশন শুরু করবেন সাকিব আল হাসান। পরদিন মোস্তাফিজের রাজস্থান রয়্যালস মুখোমুখি হবে পাঞ্জাব কিংসের।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর