পিরোজপুরের বোম্বাই মরিচ যাচ্ছে জাপানে

ইমন চৌধুরী, পিরোজপুর

পিরোজপুরের বোম্বাই মরিচ যাচ্ছে জাপানে

পিরোজপুরের স্বরূপকাঠিতে বোম্বাই মরিচ চাষ করে সাবলম্বী হয়েছে এ উপজেলার ৪ চার ইউনিয়নের কয়েক হাজার পরিবার। স্বরূপকাঠির উৎপাদিত বোম্বাই মরিচ ঝাল আর গন্ধে অতুলনীয়।

এই মরিচের একমাত্র আমদানিকারক দেশ জাপান। ২০১১ সাল থেকে জাপানে বোম্বাই মরিচ রপ্তানি করা হচ্ছে। জাপানে বোম্বাই মরিচ রপ্তানি করে প্রতিবছর বিপুল পরিমাণের বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করছে বাংলাদেশ।

আগামী বছর মালয়েশিয়াও যুক্ত হবে আমদানিকারক দেশের তালিকায়। বোম্বাই মরিচ বাণিজ্যিকভাবে দেশে-বিদেশে বিক্রি করে শতকোটি টাকা আয় করছে কৃষক ও ব্যবসায়ীরা। তবে চাষিদের দাবি সফলের ন্যায্য মূল্য পাচ্ছেন না তারা; আর কৃষি অফিস বলছে কৃষকদের সব ধরনের সহযোগিতার কথা।

আরও পড়ুন: 


পুলিশ সুপারের গাড়িতে সেতুমন্ত্রীর কাছে নিয়ে গেল পুলিশ

‌‘দূর সম্পর্কের বোনের’ সম্মতিতে শারীরিক সম্পর্ক, সাজা বাতিল হলো কিশোরের

তুরস্ককে বাইডেন প্রশাসনের হুমকি

খুলনায় হত্যা মামলায় মা-ছেলের যাবজ্জীবন


স্থানীয় কৃষকদের কাছ থেকে জানা যায়, প্রতিবছর পিরোজপুরের স্বরূপকাঠি উপজেলার কুড়িয়ানার এক সময়ে ঘরোয়া চাহিদা পূরণের জন্য বাড়ির আঙিনায় এবং ঘরের কোনায় বোম্বাই মরিচের দু-একটি গাছ লাগানো হতো। দেশে-বিদেশে বোম্বাই মরিচের চাহিদা থাকায় এখন স্বরূপকাঠির আটঘর কুড়িয়ানা ইউনিয়নের মাহামুকাঠি, সংগীতকাঠি, আদাবাড়ী, জিন্দাকাঠি, হরিহরকাঠি সহ ১০ গ্রাম এবং জলাবাড়ী ইউনিয়নের কামারকাঠি, ইদিলকাঠি এলাকাসহ বিভিন্ন ইউনিয়নে ব্যাপকভাবে বোম্বাই মরিচের চাষ শুরু হয়েছে। বরিশালের এ অঞ্চলগুলোয় বোম্বাই মরিচের গুণ ও মান ভালো হওয়ায় প্রতিবছর তাকিউসি নামে জাপানের এক ব্যবসায়ী মরিচবাগান দেখে তিনি চাহিদা মতো মরিচ কেনেন।

সে অনুযায়ী বাংলাদেশে রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান বাংলা অ্যাগ্রো মরিচ কৃষকদের কাছ থেকে মরিচ সংগ্রহ করে। পরে তাদের ফ্যাক্টরিতে মরিচ শুকিয়ে মেশিনের মাধ্যমে গুঁড়া করে প্যাকেটজাত করে জাপানে পাঠিয়ে দেয়।

মরিচ চাষি সজল কুমার ও তার স্ত্রী গিতা রানী বলেন, আমরা যতটুকু জানি ১৯৮০ সালে থেকে এ অঞ্চলে বোম্বাই মরিচ চাষ হয়। স্থানীয় কৃষি অফিসের পরামর্শে চাষিরা বোম্বাই মরিচের চাষ শুরু করেন। প্রথম বছরেই তাদের প্রচুর টাকা লাভ হয়।

এরপর স্বরূপকাঠিতে দ্রুত বাড়তে থাকে বোম্বাই মরিচের চাষ। এক পর্যায়ে নার্সারী মালিকরা তাদের মেহগনি চারার মধ্যে বোম্বাই মরিচ চাষ শুরু করেন। বর্তমানে কয়েক হাজার কৃষক এ ফসলের উৎপাদন করে আসছে। শুধু বিদেশেই নয় ঢাকার কারওয়ান বাজারের বেশির ভাগ বোম্বাই মরিচ স্বরূপকাঠি থেকে সরবরাহ করা হয়। এখান থেকে প্রতিদিন ৮/১০ টি মিনি ট্রাক মরিচ নিয়ে ঢাকায় যায় । এছাড়াও স্বরূপকাঠি ও বরিশাল থেকে ঢাকাগামী লঞ্চে মরিচ ঢাকায় পাঠানো হয়।

স্বরূপকাঠির আরেক চাষি সোহেল জমাদ্দার বলেন, আমাদের উৎপাদিত মরিচ বাহিরে গেলেও আমরা সফলের ন্যায্য দাম পাই না। মরিচের ব্যবস্যা কয়েক হাত হয়ে মূল্য নির্ধারণ হয়। যার কারণে আমরা কমে বিক্রি করলেও ঢাকায় গিয়ে মরিচের দাম ডাবল হয়।

এদিকে মরিচ চাষিদের কৃষি লোন সহ সব ধরনের সহযোগিতার কথা জানান নেছারাবাদ উপজেলা কৃষি অফিসার চপল কৃষ্ণ নাথ।

কৃষি অফিসের তথ্য মতে, এ বছর স্বরূপকাঠি উপজেলায় ৮০ হেক্টর জমিতে বোম্বাই মরিচের আবাদ হয়েছে। এই মরিচের ফলন হেক্টর প্রতি ১০ থেকে ১২ মেট্রিক টন।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

৫ খাল থেকে দুই মাসে পৌনে ২ লাখ টন বর্জ্য অপসারণ

তালুকদার বিপ্লব

৫ খাল থেকে দুই মাসে পৌনে ২ লাখ টন বর্জ্য অপসারণ

ঢাকার মৃত খাল, কালভার্ট ও ড্রেনের পানিপ্রবাহ ফিরিয়ে আনতে দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের তিন মাসের ক্র্যাশ প্রোগ্রাম শেষ হচ্ছে ১৩ই এপ্রিল। সংস্থাটির বর্জ্য-ব্যবস্থাপনা বিভাগ জানায়, গত প্রায় দুই মাসে ৫ খাল ও দুই কালভাট থেকে প্রায় পৌনে দুই লাখ টন বর্জ্য অপসারণ করা হয়েছে। তবে খালে ময়লা ফেলা ও সীমানা পিলার চুরি বন্ধ হয়নি।

কিছুদিন আগেও জিরানী খালের ময়লা ছাড়া কিছুই চোখে পড়ত না। খালের পুরো পাড়ই ছিল ময়লার ভাগাড়। এমনকি কাপড়-চোপড় আসবাবপত্রের শেষ ঠিকানাও ছিলো এই খাল। রোববার জিরানী খালের ত্রিমোহনী ব্রিজ অংশে গিয়ে দেখা যায়, স্বস্তিকর দৃশ্য।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি জানায়, গত পৌনে দুই মাসে জিরানী খাল, মান্ডা খাল, শ্যামপুর খাল, কদমতলা খাল ও কমলাপুর খালের প্রায় ৩০ কিলোমিটার দৃশ্যমান করে ৭৫ শতাংশ সীমানা চিহ্নিত করা হয়েছে। ১ কোটি টাকা খরচে ৫ খালসহ দুই বক্স কালভার্ট থেকে দেড় লাখ টন বর্জ্য-অপসারণ করা হয়েছে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা এয়ার কমডোর মোঃ বদরুল আমিন বলেন, খালের ২৫ থেকে ৩০ কিলোমিটার আমরা এরইমধ্যে আমরা উন্মুক্ত করেছি। শহর থেকে যে পানি খালে গিয়ে পড়ছে সেগুলো কিন্তু অনেকটাই দৃশ্যমান।

কিন্তু চলমান অভিযানের মধ্যেও দৈনন্দিন গৃহস্থালির ময়লা ফেলা হচ্ছে খাল ও বক্স-কালভাটে। ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৭৪ নাম্বার ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. আজিজুল হক বলেন, এটা আমাদের অনেক পুরোনো অভ্যাস এলাকাবাসীরা সকল ময়লা খালে ফেলে দেয়।

আরও পড়ুন:


মঙ্গলবার রাজধানীর যেসব এলাকার মার্কেট বন্ধ থাকবে

বিএনপির সমাবেশকে ঘিরে পরিবহন বন্ধ রাখায় বিচ্ছিন্ন রাজশাহী

শিক্ষাবিদ প্রফেসর মো. হানিফ আর নেই

নামাজের পূর্বের ৭টি ফরজ কাজ সম্পর্কে জানুন


আর ১৫ নাম্বার ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রফিকুল ইসলাম বাবলা বলেন, বাসা-বাড়ির ময়লার সুয়ারেজ লাইনের সঙ্গে যে সংযোগ সেটি বন্ধ করা না গেলে আমরা যতই পদক্ষেপ নিই না কেন সব ব্যর্থ হবে।

এমনকি সীমানা চিহ্নিত করে বিভিন্ন স্থানে পিলার দেয়া হলেও ভূমিদস্যুরা সেগুলো সরিয়ে ফেলেছে। এমন অভিযোগ করে দক্ষিণ সিটি বলছে, এসব রক্ষণাবেক্ষণে মন্ত্রণালয়ে কাছ থেকে একশ কোটি টাকা চাওয়া হয়েছে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি বলছে, খাল হস্তান্তরের সময় কমলাপুর ও ধোলাইখাল পাম্পিং স্টেশন দুটি অচল পাওয়া যায়। ডিএসসিসি’র বর্জ্য-ব্যবস্থাপনা বিভাগের দাবী রক্ষণাবেক্ষণের অভাবেই পাম্পগুলো অকেজো হয়ে পড়েছে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ভ্যাকসিনে আগ্রহী নয় চরাঞ্চলের মানুষ

হুমায়ূন কবির সূর্য্য

ভ্যাকসিনে আগ্রহী নয় কুড়িগ্রামের চরাঞ্চলের মানুষ। এমনকি ভ্যাকসিন নিতে টাকা লাগবে কিনা, তা-ও জানা নেই অনেকের। রয়েছে ভ্রান্ত ধারণাও, অনেকে মনে করেন, চরে করোনার প্রকোপ নেই। জনপ্রতিনিধরা এসব মানুষকে টিকার আওতায় আনতে ভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। যদিও জেলা সিভিল সার্জন টিকা কার্যক্রম জোরদারে প্রশাসন ও গণমাধ্যমের সহযোগিতা চেয়েছেন।

নদী বেষ্টিত প্রত্যন্ত এলাকা। উন্নয়নের ছোঁয়া নেই বললেই চলে। কুড়িগ্রামের এসব চরের মানুষ শতভাগ কৃষিজীবী। এখানে চিকিৎসা সেবাও অপ্রতুল। গ্রামের মানুষের ধারণা চরগুলোয় করোনার বিস্তার কম। এছাড়া টিকা নিলে জটিলতা তৈরি হতে পারে। এমনই সব ভ্রান্ত ধারণায় টিকা নিতে আগ্রহী নন মানুষ।

ভ্যাকসিন নিয়ে সরকারের নেওয়া পদক্ষেপ সম্পর্কেও অবগত নন এসব কৃষিজীবী।


রাঙামাটিতে বিজিবি-বিএসএফের পতাকা বৈঠক

৭৫০ মে.টন কয়লা নিয়ে জাহাজ ডুবি, শুরু হয়নি উদ্ধার কাজ

মোবাইলে পরিচয়, দেখা করতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার কিশোরী

নোয়াখালীতে স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা: স্বামী আটক


জনপ্রতিনিধিরা বলছেন, দারিদ্র পীড়িত এলাকার মানুষ দূরের স্বাস্থ্যকেন্দ্রে যেতে আগ্রহী নন। এজন্য ভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ জরুরি।

টিকা কার্যক্রম সফল করতে জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের পাশাপাশি গণমাধ্যমকে ভূমিকা পালনের আহ্বান জানিয়েছেন কুড়িগ্রামের সিভিল সার্জন।

কুড়িগ্রামের ১৬টি নদ-নদীতে ৫ শতাধিক চর রয়েছে। এসব চরে ৫ লাখের বেশি মানুষ বসবাস করে।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ফেলে দেয়া বর্জ্য থেকে এবার উৎপাদিত হবে বিদ্যুৎ

তৌফিক মাহমুদ মুন্না

বাসা-বাড়ির ফেলে দেয়া বর্জ্য থেকে এবার উৎপাদিত হবে বিদ্যুৎ।  দুই এক মাসের মধ্যেই বিদ্যুৎ উৎপাদনের কাজ শুরু হবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম। 

তিনি বলছেন প্রথমে সিটি কর্পোরেশন এ প্রকল্পে যুক্ত হবে পরে সকল পৌরসভা। তবে নগরবাসীকে সম্পৃক্ত করে প্রকল্প বাস্তবায়নের দাবি নগর পরিকল্পনাবিদদের। 

ঢাকার দুই সিটিতে গড়ে প্রতিদিন ৬ থেকে সাড়ে ৬ হাজার টন বর্জ্য সংগৃহীত হয়।  দেশের অন্যান্য সিটি কর্পোরেশন ও পৌরসভায় সংগৃহীত বর্জোর পরিমাণ লক্ষাধিক টন। এতদিন এই বর্জ্য রাখা হতো কর্পোরেশনের নিজস্ব ভাগাড়ে।

এই বিপুল পরিমাণ বর্জ্যকে এবার সম্পদে রুপ দিতে যাচ্ছে সরকার। স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ের এবারের প্রকল্প বর্জ্য থেকে বিদ্যুত উৎপাদন।

এরই মধ্যে বিদ্যুৎ উৎপাদন কোম্পনী চূড়ান্ত করেছে সরকার। জমি অধিগ্রহণ শেষ হলে মাস দুয়েকের মধ্যে আনুষ্ঠানিক কাজ শুরু হবে।


পুলিশকে কেন প্রতিপক্ষ বানানো হয়, প্রশ্ন আইজিপির

আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

বিমা খাতে সচেতনতা সৃষ্টির ক্ষেত্রে আরও প্রচার প্রয়োজন: প্রধানমন্ত্রী

পোশাক খাতে ভিয়েতনামকে পেছনে ফেললো বাংলাদেশ


এদিকে নগর পরিকল্পনাবিদ ইকবান হাবি্ব সরকারের এই পরিকল্পনাকে স্বাগত জানিয়ে উৎস থেকে বর্জ্যকে পৃথক করার পদ্ধতি আরো আধূনিক করার উপর গুরুত্বারোপ করেন। বর্জ্য্ থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রকল্পে জনগনকে সম্পৃক্ত এবং সচেতন করে এ প্রকল্প বাস্তবায়নের দাবি এই নগর পরিকল্পনাবিদের।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

উত্তরা থেকে আগারগাঁও অংশে বসলো মেট্রোরেলের শেষ গার্ডার

প্লাবন রহমান

স্বপ্ন পূরণে আরো একধাপ এগুলো ঢাকার মেট্রোরেল । উত্তরা থেকে আগারগাঁও পযর্ন্ত অংশে বসলো শেষ গার্ডার। যার মাধ্যমে দৃশ্যমাণ হলো প্রায় ১২ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট। মেট্রোরেল প্রকল্পের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলছেন- আসছে ডিসেম্বরে চালুর লক্ষ্য নিয়ে এগুচ্ছে মেট্রোরেলের কাজ। তবে-উদ্বোধন আসলেই কবে হবে, চূড়ান্তভাবে ঠিক হবে মে মাসে ট্রায়াল রান শুরুর পর।

দ্রুত এগুচ্ছে মেট্রোরেলের কাজ। রাজধানীর আগারগাঁওয়ে মেট্রোরেলের এই গার্ডার বসানোর মধ্য দিয়ে পুরোপুরি যুক্ত হলো উত্তরা থেকে আগারগাঁও অংশ। আর এর মধ্য দিয়ে দৃশ্যমান হলো এই অংশের প্রায় ১২ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট।

রোববার সকাল ১১টার দিকে এই অংশের শেষ গার্ডার স্থাপন করা হয়। মেট্রোরেলের উত্তরা থেকে আগারগাও অংশে মোট স্প্যান ৪৬৭টি। যেখানে ডাবল লাইনসহ ১১ দশমিক সাত তিন কিলোমিটার অ্যালাইনমেন্টে ভায়াডাক্ট তৈরি হয়েছে প্রায় সাড়ে ১৪ কিলোমিটার।


গুলি ছুড়ে ইয়েমেনের ক্ষেপণাস্ত্র আকাশেই ধ্বংস করেছে সৌদি

জানা গেল আসল রহস্য, ১৩-১৪ বছরের দুই বোনের সঙ্গেই শরীরিক মেলামেশা ছিল তার

আবাহনীকে ৪-১ গোলে উড়িয়ে দিল বসুন্ধরা কিংস

৬৬ নারীকে ধর্ষণ


উত্তরা থেকে আগারগাঁও অংশে মোট স্টেশন হচ্ছে ৯টি। যার মধ্যে উত্তরায় যে তিনটি স্টেশনকে ঘিরে মেট্রোরেলের ট্রায়াল রান হবে-সেগুলোর কাজ বেশি এগিয়ে। চলতি বছরেই বিজয় দিবসে উদ্বোধনের লক্ষ্য নিয়ে এগুচ্ছে প্রকল্পের কাজ। যাতে আশাবাদী কর্তৃপক্ষ।

আসছে ডিসেম্বরে মেট্রোরেল চালুর ব্যাপারে কর্তৃপক্ষ আশাবাদী হলেও-এখনও অনেক কাজই বাকী। উত্তরা থেকে আগারগাও পযর্ন্ত কাজ বাকী ১৯ ভাগ। আর পুরো উত্তরা থেকে মতিঝিল অংশের কাজ বাকী ৪০ ভাগেরও বেশি। তবে-লক্ষ্য পূরণে দিন-রাত তিন শিফটে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে মেট্রো কর্তৃপক্ষ।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

স্বপ্ন পূরণে আরো একধাপ এগোলো ঢাকার মেট্রোরেল

নিজস্ব প্রতিবেদক

স্বপ্ন পূরণে আরো একধাপ এগোলো ঢাকার মেট্রোরেল। উত্তরা থেকে আগারগাঁও পযর্ন্ত অংশে বসলো শেষ গার্ডার। যার মাধ্যমে দৃশ্যমান হলো প্রায় ১২ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট। 

মেট্রোরেল প্রকল্পের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলছেন-আসছে ডিসেম্বরে চালুর লক্ষ্য নিয়ে এগুচ্ছে মেট্রোরেলের কাজ। তবে-উদ্বোধন আসলেই কবে হবে, চূড়ান্তভাবে ঠিক হবে মে মাসে ট্রায়াল রান শুরুর পর। 

দ্রুত এগুচ্ছে মেট্রোরেলের কাজ। রাজধানীর আগারগাঁওয়ে মেট্রোরেলের এই গার্ডার বসানোর মধ্য দিয়ে পুরোপুরি যুক্ত হলো উত্তরা থেকে আগারগাঁও অংশ। আর এর মধ্য দিয়ে দৃশ্যমান হলো এই অংশের প্রায় ১২ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট।

আজ সকাল ১১টার দিকে এই অংশের শেষ গার্ডার স্থাপন করা হয়। মেট্রোরেলের উত্তরা থেকে আগারগাও অংশে মোট স্প্যান ৪৬৭টি। যেখানে ডাবল লাইনসহ ১১ দশমিক সাত তিন কিলোমিটার অ্যালাইনমেন্টে ভায়াডাক্ট তৈরি হয়েছে প্রায় সাড়ে ১৪ কিলোমিটার।


জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটক আটকে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

শিক্ষা জাতির উন্নয়নের মূল চাবিকাঠি: প্রধানমন্ত্রী

অসুস্থ মাকে বাঁচাতে ক্রিকেটে ফিরতে চান শাহাদাত

প্রেমিকের আশ্বাসে স্বামীকে তালাক, বিয়ের দাবিতে অনশন!


উত্তরা থেকে আগারগাঁও অংশে মোট স্টেশন হচ্ছে ৯টি। যার মধ্যে উত্তরায় যে তিনটি স্টেশনকে ঘিরে মেট্রোরেলের ট্রায়াল রান হবে-সেগুলোর কাজ বেশি এগিয়ে। চলতি বছরেই বিজয় দিবসে উদ্বোধনের লক্ষ্য নিয়ে এগুচ্ছে প্রকল্পের কাজ। যাতে আশাবাদী কর্তৃপক্ষ।

আসছে ডিসেম্বরে মেট্রোরেল চালুর ব্যাপারে কর্তৃপক্ষ আশাবাদী হলেও-এখনও অনেক কাজই বাকী। উত্তরা থেকে আগারগাও পযর্ন্ত কাজ বাকী ১৯ ভাগ। আর পুরো উত্তরা থেকে মতিঝিল অংশের কাজ বাকী ৪০ ভাগেরও বেশি। তবে-লক্ষ্য পূরনে দিন-রাত তিন শিফটে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে মেট্রো কর্তৃপক্ষ। 

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর