জেনে নিন প্রত্যহিক জীবনের জরুরি দুটো দোয়া

অনলাইন ডেস্ক

জেনে নিন প্রত্যহিক জীবনের জরুরি দুটো দোয়া

মানুষ মাত্রই চিন্তা করে কিভাবে নাজাত পাওয়া যায়। আল্লাহর নৈকট্য লাভের সহজ সহজ উপায় কি? কোন আমল করলে সহজে মানুষ আল্লাহর নৈকট্য অর্জনে সামর্থ্য হবে।  কি আমল করলে দুশ্চিন্তা ও ঋণ থেকে মুক্তি লাভ হবে আর দুনিয়া ও আখেরাতে প্রশান্তি লাভ হবে। সকাল ও সন্ধ্যায় এই বিশেষ  দুআ’আমাদের জন্য অত্যন্ত উপকারী, প্রয়োজনীয় ও ফযিলতপূর্ন নিচে সেগুলো নিচে দেওয়া হলো।

দুশ্চিন্তা ও ঋণ থেকে মুক্তি লাভের দোয়া

হজরত আবূ সায়ীদ খুদরী রা. থেকে বর্ণিত, আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন : ‘যে ব্যক্তি উক্ত দোয়াটি সকাল-সন্ধ্যা পাঠ করবে,আল্লাহ তায়ালা তার সমস্ত ঋণ ও দুশ্চিন্তা দূর করে দিবেন।দোয়াটি হলো-

উচ্চারণ: ‘আল্লাহুম্মা ইন্নী আউযুবিকা মিনাল হাম্মী, ওয়াল হুযনি, ওয়া-আউযুবিকা মিনাল আজযি, ওয়াল কাছালি, ওয়া-আউযুবিকা মিনাল বুখলি, ওয়াল জুবনি, ওয়া-আউযুবিকা মিন গালাবাতিদ দাইনি, ওয়া-ক্বাহরির রিজাল’।

অর্থ: ‘হে আল্লাহ! আমি তোমার আশ্রয় নিচ্ছি দুশ্চিন্তা ও পেরেশানি থেকে, আরও আশ্রয় নিচ্ছি অক্ষমতা ও অলসতা থেকে, আরও আশ্রয় নিচ্ছি কৃপণতা ও কাপুরুষতা থেকে আরো আশ্রয় নিচ্ছি ঋণের প্রবলতা ও মানুষের চাপপ্রয়োগ থেকে’। (সুনানে আবূ দাউদ, হাদিস-১৫৫৫)


যে কারণে দোয়া কবুল হয় না

দুনিয়ার শ্রেষ্ঠ ‌জুমার দিনে ‘সূরা কাহাফ’ তেলাওয়াতের ফজিলত

দুনিয়ার শ্রেষ্ঠ ‌`জুমার’ দিনে যা করবেন

প্রতিদিন সকালে যে দোয়া পড়তেন বিশ্বনবি


দুনিয়া ও আখেরাতে প্রশান্তি লাভের দোয়া

হজরত ইবনে উমার (রাঃ) থেকে বর্ণিত,তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সন্ধ্যায় ও সকালে উপনীত হয়ে নিম্নোক্ত দোয়া পড়তেন-

উচ্চারণ :আল্লা-হুম্মা ইন্নী আসআলুকাল ‘আফওয়া ওয়াল- ‘আ-ফিয়াতা ফিদ্দুনইয়া ওয়াল আ-খিরাতি। আল্লা-হুম্মা ইন্নী আসআলুকাল ‘আফওয়া ওয়াল-‘আ-ফিয়াতা ফী দ্বীনী ওফী দুনইয়াইয়া, ওয়া আহ্‌লী ওয়া মা-লী, আল্লা-হুম্মাসতুর ‘আওরা-তী ওয়া আ-মিন রাও‘আ-তি। আল্লা-হুম্মাহফাযনী মিম্বাইনি ইয়াদাইয়্যা ওয়া মিন খালফী ওয়া ‘আন ইয়ামীনী ওয়া শিমা-লী ওয়া মিন ফাওকী। ওয়া আ‘ঊযু বি‘আযামাতিকা আন উগতা-লা মিন তাহ্‌তী’

অর্থ : ‘হে আল্লাহ! আমি আপনার নিকট দুনিয়া ও আখেরাতের ক্ষমা ও নিরাপত্তা প্রার্থনা করছি। হে আল্লাহ! আমি আপনার নিকট ক্ষমা এবং নিরাপত্তা চাচ্ছি আমার দ্বীন, দুনিয়া, পরিবার ও অর্থ-সম্পদের। হে আল্লাহ! আপনি আমার গোপন ত্রুটিসমূহ ঢেকে রাখুন, আমার উদ্বিগ্নতাকে রূপান্তরিত করুন নিরাপত্তায়। হে আল্লাহ! আপনি আমাকে হেফাযত করুন আমার সামনের দিক থেকে, আমার পিছনের দিক থেকে, আমার ডান দিক থেকে, আমার বাম দিক থেকে এবং আমার উপরের দিক থেকে। আর আপনার মহত্ত্বের অসিলায় আশ্রয় চাই আমার নীচ থেকে হঠাৎ আক্রান্ত হওয়া থেকে’।(আবূ দাউদ,হাদিস- ৫০৭৪; ইবন মাজাহ্‌, হাদিস- ৩৮৭১)

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বিতর নামাজে দোয়া কুনুতের গুরুত্ব, উচ্চারণ ও অনুবাদ

অনলাইন ডেস্ক

বিতর নামাজে দোয়া কুনুতের গুরুত্ব, উচ্চারণ ও অনুবাদ

বিতর নামাজের তৃতীয় রাকাআতে সূরা ফাতিহার সঙ্গে সূরা মিলানোর পর তাকবির দিয়ে যে দোয়া পড়তে হয়, তা হলো দোয়া কুনুত। এ দোয়ার মধ্যে রয়েছে আল্লাহ কাছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ আবেদন। অথচ এ দোয়াটি অনেক মানুষেই জানে না। যা অনেক ফজিলতপূর্ণ দোয়া। পাঠকদের উদ্দেশে দোয়া কুনুতের বাংলা উচ্চারণ ও অর্থ তুলে ধরা হলো...

উচ্চারণ: আল্লাহুম্মা ইন্না নাসতাই’নুকা ওয়া নাসতাগফিরুকা ওয়া নু`মিনুবিকা ওয়া নাতাওয়াক্কালু আ’লাইকা ওয়া নুছনি আ’লাইকাল খাইর; ওয়া নাশকুরুকা ওয়া লা নাকফুরুকা ওয়া নাখলাঊ’ ওয়া নাতরুকু মাইঁইয়াফঝুরুকা।

আল্লাহুম্মা ইয়্যাকা না`বুদু ওয়া লাকা নুসাল্লি ওয়া নাসঝুদু ওয়া ইলাইকা নাসআ’ ওয়া নাহফিদু ওয়া নারঝু রাহমাতাকা ওয়া নাখশা আ’জাবাকা ইন্না আজাবাকা বিলকুফফারি মুলহিক্ব।

আরও পড়ুন:


নামাজের মধ্যে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ওয়াজিব ১৪টি কাজ

এইচ টি ইমামের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক

এইচ টি ইমাম আর নেই

এশিয়ায় বিস্ময়কর ‘ডিজিটাল লিডার’ বাংলাদেশ


অর্থ: হে আল্লাহ! আমরা আপনারই সাহায্যপ্রার্থী এবং একমাত্র আপনার কাছেই ক্ষমাপ্রার্থী। আপনার উপর আমরা ঈমান এনেছি এবং আপনার উপরই ভরসা করি, আপনার উত্তম প্রশংসা করি, আপনার শোকর আদায় করি, আপনার প্রতি অকৃতজ্ঞ হই না, যারা আপনার নাফরমানী করে, তাদেরকে পরিত্যাগ করি এবং তাদের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করি।

হে আল্লাহ! আমরা আপনারই ইবাদাত করি, আপনার জন্যই নামাজ পড়ি এবং আপনার জন্যই সিজদা করি, আপনার দিকেই ধাবিত হই, আপনার হুকুম পালনের জন্যই প্রস্তুত থাকি, আপনার দয়ার আশা করি, আপনার শাস্তিকে ভয় পাই। নিঃসন্দেহে আপনার শাস্তি ভোগ করবে কাফির সম্প্রদায়।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে দোয়া কুনুত শিখে নেয়ার পাশাপাশি নামাজে দোয়া কুনুতের মাধ্যমে আল্লাহ তাআলার নিকট দোয়া করার এবং ফজিলত লাভ করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

নামাজের মধ্যে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ওয়াজিব ১৪টি কাজ

অনলাইন ডেস্ক

নামাজের মধ্যে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ওয়াজিব ১৪টি কাজ

নামাজের মধ্যে ৭টি ফরজ এর আগে তুলে ধরা হয়েছে। ফরজ ছাড়াও নামাজের মধ্যে রয়েছে ১৪টি ওয়াজিব কাজ। ওয়াজিব কাজ বলতে ঐ সব কাজকে বুঝায়, যার কোনো একটিও ছুটে গেলে সিজদায়ে সাহু আদায় করতে হয়। সিজদায়ে সাহু আদায় করতে ভুলে গেলে নামাজ পুনরায় পড়তে হয়। তাই নামাজের ওয়াজিবগুলো যথাযথ আদায় না করলে নামাজ হবে না। নামাজের ওয়াজিবগুলো তুলে ধরা হলো-

০১. প্রত্যেক নামাজে সূরা ফাতিহা (আলহামদুলিল্লাহ) পড়া।

০২. প্রত্যেক নামাজে সূরা ফাতিহার পর সূরা মিলনো (কমপক্ষে তিন আয়াত অথবা তিন আয়াতের সমকক্ষ এক আয়াত পরিমাণ তিলাওয়াত করা)।

০৩. ফরজ নামাজের প্রথম দুই রাকাআতকে কিরাতের জন্য নির্ধারিত করা।

০৪. কিরাআত, রুকু, সিজদার মধ্যে ক্রমধারা বা তারতিব ঠিক রাখা।

০৫. কাওমা করা অর্থাৎ রুকু থেকে সোজা হয়ে দাঁড়ানো।

০৬. জলসা করা অর্থাৎ দুই সিজদার মাঝখানে সোজা হয়ে বসা।

০৭. তাদিলে আরকান করা অর্থাৎ রুকু, সিজদা, কাওমা, জলসায় কমপক্ষে এক তাসবিহ পরিমাণ স্থির থাকা। যাতে শরীরের প্রতিটি অঙ্গ যথাস্থানে পৌঁছে যায়।

০৮. কাদায়ে ওলা অর্থাৎ তিন বা চার রাকাআত বিশিষ্ট নামাজে দুই রাকাআত পর আত্তাহিয়াতু পড়া।

০৯. প্রথম ও শেষ বৈঠকে আত্তাহিয়াতু পড়া।

১০. জাহেরি নামাজে প্রথম দুই রাকাআত ইমামের জন্য উচ্চস্বরে কিরাআত পড়া এবং সিররি নামাজের মধ্যে ইমাম ও একাকি নামাজির অনুচ্চ শব্দে কিরাআত পড়া।

১১. সালাম ফিরানো। অর্থাৎ ‘আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ’ বলে নামাজ শেষ করা।

১২. বিতরের নামাজের দোয়ায়ে কুনুত পড়ার জন্য অতিরিক্ত তাকবির বলা এবং দোয়ায়ে কুনুত পড়া।

১৩. দুই ঈদের নামাজে ছয় ছয় তাকবির বলা।

১৪. প্রত্যেক রাকাআতের ফরজ এবং ওয়াজিবগুলোর তারতিব (ধারাবাহিকতা) ঠিক রাখা।

আল্লাহ তাআলা উপরোক্ত বিষয়গুলো যথাযথ আদায় করার তাওফিক দান করুন। সমগ্র মুসলিম উম্মাহকে নামাজি হিসেবে কবুল করুন। আমিন।

news24bd.tv আহমেদ

আরও পড়ুন:


এইচ টি ইমামের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক

এইচ টি ইমাম আর নেই

এশিয়ায় বিস্ময়কর ‘ডিজিটাল লিডার’ বাংলাদেশ

১২ তলা থেকে পড়েও বেঁচে আছেন তিন বছরের শিশু (ভিডিও)


 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

আল্লাহর কাছে প্রিয় দুটি বাক্য

অনলাইন ডেস্ক

আল্লাহর কাছে প্রিয় দুটি বাক্য

আল্লাহ তাআলার নৈকট্য অর্জনের অন্যতম মাধ্যম জিকির। জিকিরের মাধ্যমেই মানুষের অন্তর পরিশুদ্ধ হয়। শয়তানের ধোঁকা ও প্রতারণা থেকে মুক্তি পায়। আল্লাহর দরবারে মর্যাদা বৃদ্ধি পায়। মানুষ আল্লাহ তাআলার জিকির বা স্মরণ করবে; সব সময় তার তাসবিহ-তাহলিল তথা প্রশংসা করবে- এমনটিই তার ইচ্ছা। 

তিনি কুরআনে মানুষকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, ‘হে ঈমানদারগণ! তোমরা আল্লাহ তাআলাকে বেশি বেশি স্মরণ কর।’(সুরা আহযাব : আয়াত ১৪)

হাদিসে পাকে প্রিয়নবি জিকির-আজকারের গুরুত্ব ও অসংখ্য ফজিলত বর্ণনা করেছেন। জিকিরের মধ্যে সবচেয়ে প্রিয় তাসবিহ বা জিকিরের বর্ণনাও করেছেন।

ছোট ছোট আমলও কেয়ামতের দিন অনেক মূল্যবান হয়ে যাবে। তাই ছোট কোনো নেক কাজকে অবহেলা করা উচিত নয়। কারণ ইখলাসের সঙ্গে ছোট ছোট কাজই আমাদের এনে দিতে পারে বড় প্রাপ্তি।

কোরআনে কারিমে বলা হয়েছে, ‘সেদিন মানুষ বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে প্রত্যাবর্তন করবে। কারণ, সেদিন তাদের নিজ নিজ কৃতকর্ম দেখানো হবে।

সুতরাং কেউ অণুপরিমাণ সৎকর্ম করে থাকলে, সে তা দেখতে পাবে এবং কেউ অণুপরিমাণ অসৎকর্ম করে থাকলে, তাও দেখতে পাবে। ’ (সুরা জিলজাল, আয়াত : ৬-৮)


পুলিশ হেফাজতে আইনজীবীর মৃত্যু: বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ

ভাসানচরে যাচ্ছে দুই হাজারের বেশি রোহিঙ্গা

‘অসম প্রেমে’ পড়েছেন সাদিয়া ইসলাম মৌ

ব্যানারে নেই বেগম জিয়া, এনিয়ে বিস্তর আলোচনা


হাদিসে ইরশাদ হচ্ছে, “হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন,  রাসুল (সা.) ইরশাদ করেন, দুটি বাক্য এমন রয়েছে, যা বলা সহজ, আমলের পাল্লায় অনেক ভারী। আর আল্লাহর কাছেও অধিক পছন্দনীয়। সেটি হলো, সুবহানাল্লাহি ওয়া বিহামদিহি সুবহানাল্লাহিল আজিম। ’ (বুখারি : ৬৪০৬)

(সুবহানাল্লাহি ওয়া বিহামদিহি) অর্থাৎ মহান সেই আল্লাহ এবং তারই সকল প্রশংসা। (সুবহানাল্লাহিল আজিম) অর্থাৎ মহান সেই আল্লাহ যিনি সর্বোচ্চ মর্যাদার অধিকারী।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

দেনমোহর পরিশোধ না করে স্ত্রীকে স্পর্শ করা যাবে কি না?

অনলাইন ডেস্ক

দেনমোহর পরিশোধ না করে স্ত্রীকে স্পর্শ করা যাবে কি না?

স্ত্রীকে স্পর্শ করার একমাত্র উপায় হলো বিয়ে সম্পন্ন করা। বিয়ে সম্পন্ন করার শর্ত তিনটি। এক. প্রস্তাব দেওয়া ও কবুল করা, দুই. দেনমোহর দেয়া, তিন. কমপক্ষে দুইজন সাক্ষী থাকা।

দেনমোহর বিয়ের আকদের পর প্রদান করাতে কোন সমস্যা নেই। তবে সহবাসের পূর্বে প্রদান করাই উত্তম। তবে যদি স্ত্রী দেনমোহর প্রদান করা ছাড়াই সহবাসের অনুমতি প্রদান করে তাহলে কোন সমস্যা নেই। বাকি দেনমোহর প্রদান করা ছাড়া প্রথম সহবাসের পূর্বে স্ত্রী বাঁধা প্রদান করতে পারবে। কিন্তু একবার সহবাস হয়ে গেলে আর বাঁধা দিতে পারবে না। কিন্তু স্বামীর জিম্মায় দেনমোহর আদায় না করলে তা ঋণ হিসেবে বাকি থেকে যাবে।

স্ত্রী যদি উক্ত দেনমোহর মাফ না করে, আর স্বামীও তা পরিশোধ না করে, তাহলে কিয়ামতের ময়দানে স্বামীর অপরাধী সাব্যস্ত হবে। তাই দেনমোহরের টাকা পরিশোধ করে দেয়া জরুরী।

وَآتُوا النِّسَاءَ صَدُقَاتِهِنَّ نِحْلَةً ۚ فَإِن طِبْنَ لَكُمْ عَن شَيْءٍ مِّنْهُ نَفْسًا فَكُلُوهُ هَنِيئًا مَّرِيئًا [٤:٤]

আর তোমরা স্ত্রীদেরকে তাদের মোহর দিয়ে দাও খুশীমনে। তারা যদি খুশী হয়ে তা থেকে অংশ ছেড়ে দেয়, তবে তা তোমরা স্বাচ্ছন্দ্যে ভোগ কর। (সূরা নিসা-৪)

فَمَا اسْتَمْتَعْتُم بِهِ مِنْهُنَّ فَآتُوهُنَّ أُجُورَهُنَّ فَرِيضَةً ۚ وَلَا جُنَاحَ عَلَيْكُمْ فِيمَا تَرَاضَيْتُم بِهِ مِن بَعْدِ الْفَرِيضَةِ ۚ إِنَّ اللَّهَ كَانَ عَلِيمًا حَكِيمًا [٤:٢٤]

অন্তত তাদের মধ্যে যাকে তোমরা গ্রহণ করবে, তাকে তার নির্ধারিত হক দান কর। তোমাদের কোন গোনাহ হবে না। যদি নির্ধারণের পর তোমরা পরস্পরে সম্মত হও। নিশ্চয় আল্লাহ সুবিজ্ঞ, রহস্যবিদ। (সূরা নিসা-২৪)

আরও পড়ুন:


নামাজের ভিতরের ৭টি ফরজ কাজ জেনে নিন

মেয়েকে কখনো নিজ বাড়িতে, কখনো ঢাকা-চট্টগ্রামে যৌন কাজে পাঠাতেন মা

কিংবদন্তি সংগীতশিল্পী জানে আলম আর নেই

স্বর্ণের দাম আরও কমল


وَالْمُحْصَنَاتُ مِنَ الْمُؤْمِنَاتِ وَالْمُحْصَنَاتُ مِنَ الَّذِينَ أُوتُوا الْكِتَابَ مِن قَبْلِكُمْ إِذَا آتَيْتُمُوهُنَّ أُجُورَهُنَّ [٥:٥]

তোমাদের জন্যে হালাল সতী-সাধ্বী মুসলমান নারী এবং তাদের সতী-সাধ্বী নারী, যাদেরকে কিতাব দেয়া হয়েছে তোমাদের পূর্বে, যখন তোমরা তাদেরকে মোহরানা প্রদান কর। (সূরা মায়িদা-৫)

وَلَا جُنَاحَ عَلَيْكُمْ أَن تَنكِحُوهُنَّ إِذَا آتَيْتُمُوهُنَّ أُجُورَهُنَّ  [٦٠:١٠]

তোমরা, এই নারীদেরকে প্রাপ্য মোহরানা দিয়ে বিবাহ করলে তোমাদের অপরাধ হবে না। (সূরা মুমতাহিনা-১০)

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

নামাজের ভিতরের ৭টি ফরজ কাজ জেনে নিন

অনলাইন ডেস্ক

নামাজের ভিতরের ৭টি ফরজ কাজ জেনে নিন

নামাজ প্রত্যেক মুসলিম নর-নারীর উপর ফরজ। সয়ং আল্লাহ তাআলা নামাজ কায়েমে নির্দেশ দিয়েছেন। নামাজ ইসলামের গুরুত্বপূর্ণ ও দ্বিতীয় রুকন। যা প্রাপ্ত বয়স্ক, সুস্থ্য মস্তিষ্কসম্পন্ন মুসলিমদের জন্য আদায় করা ফরজ। নামাজের ভিতরেও রয়েছে সাতটি ফরজ কাজ। জেনে নিন সেই ফরজ কাজগুলো কি?

০১. তাকবিরে তাহরিমা: আল্লাহর মহত্ত্ব প্রকাশ পায় এমন শব্দ দ্বারা নামাজ আরম্ভ করা ফরজ। আর তা হচ্ছে তাকবিরে তাহরিমা তথা আল্লাহু আকবার। যা দ্বারা নামাজের বাহিরের সব ধরণের কাজকে নিষিদ্ধ হয়ে যায়। আল্লাহ বলেন- তোমার প্রতিপালকের শ্রেষ্ঠত্ব ঘোষণা কর। (সূরা মুদদাসসির: আয়াত ৩)

০২. কিয়াম করা: নামাজের জন্য সোজা হয়ে দাঁড়ানো। আল্লাহ বলেন, তোমরা আল্লাহর উদ্দেশ্যে বিনীতভাবে দাঁড়াবে। (সূরা বাক্বারা: আয়াত ২৩৮)

০৩. কিরাত পড়া: সূরা ফাতিহার পর সুরা মিলানো। ফরজ নামাজের প্রথম দুই রাকাআতে এবং ওয়াজিব, সুন্নাত ও নফল নামাজের সব রাকাআতে সুরা মিলানোই ফরজ। আল্লাহ বলেন- তোমরা কুরআন থেকে যতটুকু সহজ হয়, ততটুকু পড়। (সূরা মুযযাম্মিল: আয়াত ২০)

০৪. রুকু করা: প্রত্যেক রাকাআতে একবার রুকু করা ফরজ। রুকু হচ্ছে- দাঁড়ানো থেকে অর্ধনমিত হওয়া, যেন দু`হাত হাঁটু পর্যন্ত পৌছে যায়। মাথা এবং পিঠ এক সমান্তরালে চলে আসে। আর বসে নামাজ পড়ার সময়ও ঝুঁকতে হবে, যেন কপাল হাঁটু বরাবর গিয়ে পৌঁছে। আল্লাহ বলেন-তোমরা রুকুকারীদের সঙ্গে রুকু কর। (সূরা বাক্বারা: আয়াত ৪৩)

০৫. সিজদা করা: প্রতি রাকাআতে দু`টি সিজদা করা ফরজ। সিজদার সময় নাক ও কপাল মাটিতে রাখা। আল্লাহ বলেন- হে ঈমানদারগণ! তোমরা রুকু কর এবং সিজদা কর। (সূরা হজ: আয়াত ৭৭)

০৬. শেষ বৈঠকে বসা: নামাজের শেষ রাকাআতে সিজদার পর তাশাহহুদ পড়তে যতটুকু সময় লাগে ততটুকু পরিমাণ সময় বসা (অবস্থান করা) ফরজ। তাশাহহুদ পড়া ওয়াজিব, দরূদ ও দোয়া পড়া সুন্নাত।

০৭. সালাম ফিরানো: সালামের মাধ্যমে নামাজ সমাপ্ত করা ফরজ।

সুতরাং প্রত্যেক মুমিন মুসলমানের উচিত, নামাজের ভিতরের ফরজগুলো যথাযথভাবে আদায়ের মাধ্যমে নামাজ আদায় করা। হে আল্লাহ! সমগ্র মুসলিম উম্মাহকে সঠিকভাবে নামাজ আদায় করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

news24bd.tv আহমেদ

আরও পড়ুন:


মেয়েকে কখনো নিজ বাড়িতে, কখনো ঢাকা-চট্টগ্রামে যৌন কাজে পাঠাতেন মা

কিংবদন্তি সংগীতশিল্পী জানে আলম আর নেই

স্বর্ণের দাম আরও কমল

৪৭ কিশোরকে আটক করে ওসি বললেন, সন্ধ্যার পর শিক্ষার্থীদের রাস্তায় পেলেই ব্যবস্থা


 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর