কঙ্গোয় আবারও প্রাণঘাতী ইবোলা সংক্রমণ

অনলাইন ডেস্ক

কঙ্গোয় আবারও প্রাণঘাতী ইবোলা সংক্রমণ

মধ্য আফ্রিকার দেশ কঙ্গোয় আবারও শনাক্ত হয়েছে প্রাণঘাতী ইবোলা ভাইরাসে আক্রান্ত এক রোগী। গত সপ্তাহে পূর্বাঞ্চলীয় বুটেম্বো শহরের কাছে এক নারীর শরীরে এটি শনাক্ত করা হয়। গত ১ ফেব্রুয়ারী ইবোলা শনাক্ত হওয়ার মাত্র দুই দিন পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

রয়টার্স জানায়, ওই নারীর স্বামী আগের এক প্রাদুর্ভাবের সময় ইবোলায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। তবে এবারের সংক্রমণ থেকে ইতোমধ্যে নতুন প্রাদুর্ভাব শুরু হয়েছে কি না তা এখনো নিশ্চিত নয়।

গত রবিবার কঙ্গোর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, প্রাদেশিক রেসপন্স টিম ইতোমধ্যে কঠোরভাবে কাজ করছে। তাদের সাহায্য করবে জাতীয় রেসপন্স টিম, যা শিগগিরই বুটেম্বো যাবে।

কঙ্গোয় ইবোলা নিয়ন্ত্রণে সহযোগিতা করা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) জানিয়েছে, মৃত নারীর সংস্পর্শে আসা অন্তত ৭০ জনকে চিহ্নিত করেছে স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ। তিনি যেসব জায়গায় গিয়েছিলেন, সেগুলোও জীবাণুমুক্ত করা হয়েছে। এই সংক্রমণের সঙ্গে পূর্ববর্তী সংক্রমণের যোগসূত্র রয়েছে কি না নিশ্চিত হতে ভাইরাসের নমুনা দেশটির রাজধানী কিনশাসায় পাঠানো হয়েছে।

ডব্লিউএইচও বলেছে, বড় আকারে প্রাদুর্ভাবের পরে বিক্ষিপ্ত সংক্রমণ থাকা অস্বাভাবিক নয়।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্যমতে, ইবোলায় মৃত্যুহার সাধারণত ৫০ শতাংশের কাছাকাছি, তবে কিছু ক্ষেত্রে এটি ৯০ শতাংশ পর্যন্ত প্রাণঘাতী হতে পারে।


বঙ্গবন্ধুর খুনিকে ফেরাতে যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তা চাইলেন সেনাপ্রধান

পানির নীচে পৃথিবীর অষ্টম মহাদেশের খোঁজে

ডিজে নেহার খদ্দেরের তালিকায় ধনাঢ্য ব্যবসায়ীরা!


অবশ্য আশার কথা, বিশ্বে ইতোমধ্যে ইবোলারোধী টিকা রয়েছে। আর এই ভাইরাসটি করোনার মতো উপসর্গহীন রোগীদের মাধ্যমে ছড়ায় না।

কঙ্গোর নিরক্ষীয় বনাঞ্চলগুলো ইবোলা ভাইরাসের আবাসস্থল। করোনার মতো এটিও প্রাথমিকভাবে বাদুড়ের শরীরে থাকে বলে ধারণা করা হয়।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ইরানে যাত্রীবাহী বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টা

অনলাইন ডেস্ক

ইরানে যাত্রীবাহী বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টা

ইরানের অভ্যন্তরীণ রুটের একটি যাত্রীবাহী বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টা করা হয়েছে বলে জানা গেছে। তবে বিমানের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী (আইআরজিসি) তা প্রতিহত করতে সক্ষম হয়েছে।

শুক্রবার (৫ মার্চ) আইআরজিসি এক বিবৃতিতে বিষয়টি জানিয়েছে।

ইরানি গণমাধ্যম পার্সটুডের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইরান এয়ারের একটি ফকার-১০০ যাত্রীবাহী বিমান বৃহস্পতিবার রাত ১০টা ১০ মিনিটে দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় আহওয়াজ বিমানবন্দর থেকে পূর্বাঞ্চলীয় শহর মাশহাদের উদ্দেশ্যে উড্ডয়ন করে।


আরও পড়ুনঃ


আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

লবণ প্রাসাদ ‘পামুক্কালে’

ইয়ার্ড সেলে মিললো ৪ কোটি টাকার মূল্যবান চীনামাটির পাত্র!

এই নচিকেতা মানে কী? আমি তোমার ছোট? : মঞ্চে ভক্তকে নচিকেতার ধমক (ভিডিও)


বিবৃতিতে বলা হয়, অপহরণ প্রচেষ্টাকারী ব্যক্তি বিমানটিকে পারস্য উপসাগরের দক্ষিণে অবস্থিত কোনো আরব দেশে নিয়ে যেতে চেয়েছিলেন। আইআরজিসি আরও বলেছে, বিমানটির সব যাত্রী নিরাপদে আছেন এবং তাদেরকে বিকল্প বিমানে গন্তব্যে পৌঁছে দেয়া হয়েছে।

বিমান ছিনতাই প্রচেষ্টার কারণ অনুসন্ধানের জন্য তদন্ত শুরু হয়েছে বলেও বিবৃতিতে জানানো হয়েছে।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সোমালিয়ায় আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ, নিহত ২০

অনলাইন ডেস্ক

সোমালিয়ায় আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ, নিহত ২০

সোমালিয়ার আত্মঘাতী গাড়িবোমা বিস্ফোরণে কমপক্ষে ২০ জন নিহত হয়েছেন। এছাড়া এ ঘটনায় আরও ৩০ জন আহত হয়েছেন। শুক্রবার রাতে দেশটির রাজধানী মোগাদিসুতে একটি রেস্টুরেন্টের বাইরে বিস্ফোরণ ঘটলে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী এবং স্থানীয় গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, বিস্ফোরণের পর আকাশে ধোঁয়ার কুণ্ডলী উঠতে দেখা যায় এবং বন্দুকযুদ্ধও শুরু হয়।

ঘটনাস্থলের পাশেই বসবাস করা আহমেদ আবদুল্লাহি নামে এক বাসিন্দা বলেন, লুল ইয়েমেনি রেস্টুরেন্টে একটি দ্রুতগতির গাড়ি বিস্ফোরিত হয়। আমি সেখানেই যাচ্ছিলাম। কিন্তু, বিস্ফোরণের কম্পন এবং এলাকা ধোঁয়ায় ছেয়ে যাওয়ায় ফিরে আসি।


আরও পড়ুনঃ


আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

লবণ প্রাসাদ ‘পামুক্কালে’

ইয়ার্ড সেলে মিললো ৪ কোটি টাকার মূল্যবান চীনামাটির পাত্র!

এই নচিকেতা মানে কী? আমি তোমার ছোট? : মঞ্চে ভক্তকে নচিকেতার ধমক (ভিডিও)


সোমালিয়ার রাষ্ট্র-নিয়ন্ত্রিত রেডিও মোগাদিসু জানিয়েছে, বিস্ফোরণে বেশ কিছু সম্পদও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পুলিশ এলাকাটি ঘিরে রেখেছে।

তবে এখন পর্যন্ত কোনও ব্যক্তি বা গোষ্ঠী ঘটনার দায় স্বীকার করেনি।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ভারতে আর ১৮ নয়, ২১ বছর পর্যন্ত ছেলের ভরণপোষণের দায়িত্ব বাবার

অনলাইন ডেস্ক

ভারতে আর ১৮ নয়, ২১ বছর পর্যন্ত ছেলের ভরণপোষণের দায়িত্ব বাবার

ভারতের সুপ্রিম কোর্ট রায় দিয়েছে, ১৮ তেই শেষ নয় বরং ২১ বছর বয়স পর্যন্ত ছেলের দায়িত্ব নিতে হবে বাবা-মা কে। এক্ষেত্রে স্নাতক স্তরকে শিক্ষার মাপকাঠি বিবেচনা করা হয়েছে। এই সময় পর্যন্ত ছেলের দেখভাল করতে হবে।

বৃহস্পতিবার দেশটির সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড় এবং বিচারপতি এমআর শাহের একটি বেঞ্চ পারিবারিক আদালতের একটি রায়ের পুনর্বিবেচনা করেন। বেঞ্চ জানায়, ১৮ বছর পর্যন্ত ছেলের জন্য আর্থিক ব্যয় যথেষ্ট নয়। কারণ, কলেজ ডিগ্রি তখনও পর্যন্ত পায়না ছেলে। ফলে চাকরি পেতে পারে না তারা। তাই সেই বয়সের সময়সীমাকে ২১ বছর পর্যন্ত করল শীর্ষ আদালত। 

কর্নাটকের এক কর্মচারীকে ছেলের পড়াশোনার ব্যয় বাবদ ২০ হাজার টাকা দিতে বলে পারিবারিক আদালত। তিনি সেটি দিতে চান না। তারপর সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন তিনি।

সেখানে তিনি বলেন, স্ত্রীর বিবাহবহির্ভুত সম্পর্কের কারণে তাদের ২০০৫ সালের জুন মাসে বিবাহবিচ্ছেদ হয়। তখন তাকে ছেলের ভরণপোষণ নিতে হবে, তা সম্পর্কে অবগত ছিলেন না। এরপর দ্বিতীয়বার বিয়ে করার পর দুই সন্তানের জন্ম দেন ওই কর্মচারী। তার মাসিক বেতন যা, তার পক্ষে এই টাকা দেওয়া সম্ভব নয়।


আরও পড়ুনঃ


আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

লবণ প্রাসাদ ‘পামুক্কালে’

ইয়ার্ড সেলে মিললো ৪ কোটি টাকার মূল্যবান চীনামাটির পাত্র!

এই নচিকেতা মানে কী? আমি তোমার ছোট? : মঞ্চে ভক্তকে নচিকেতার ধমক (ভিডিও)


কিন্তু তার কোনও কথাই শোনেননি সুপ্রিম কোর্ট। সুপ্রিম কোর্টের বেঞ্জ জানিয়েছেন, এতে প্রথম পক্ষের সন্তান কী দোষ করল? তার যত্ন নিতে হবে।

এরপরই, পুনর্বিবেচনা করে সুপ্রিম কোর্ট জানায়, আর ১৮ নয়, ২১ বছর পর্যন্ত ছেলের দেখভালের দায়িত্ব নিতে হবে।

সূত্র: জি নিউজ

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

পরমাণু সমঝোতায় আমেরিকার অবস্থান জানতে জরুরী বৈঠকে বসার আহ্বান

অনলাইন ডেস্ক

পরমাণু সমঝোতায় আমেরিকার অবস্থান জানতে জরুরী বৈঠকে বসার আহ্বান

ইরানের পরমাণু সমঝোতায় আমেরিকার অবস্থান জানতে অবিলম্বে জরুরি বৈঠক ডাকার আহ্বান জানিয়েছে রাশিয়া। জাতিসংঘের ইউরোপীয় দপ্তরগুলোতে নিযুক্ত রুশ স্থায়ী প্রতিনিধি মিখাইল উলিয়ানোভ এ আহ্বান জানিয়েছেন।

শুক্রবার রাতে ‘রাশা-২৪’ কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় তিনি আরও বলেন, তার দেশ যে জরুরি বৈঠকের দাবি জানিয়েছে তার উদ্দেশ্য আমেরিকাকে পরমাণু সমঝোতায় ফিরিয়ে আনা এবং ইরানকে তার প্রতিশ্রুতি পুরোপুরি বাস্তবায়ন করতে উৎসাহিত করা।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার পশ্চিমা বার্তা সংস্থাগুলো খবর দেয়, আন্তর্জাতিক পরমাণু শক্তি সংস্থা বা আইএইএ’র নির্বাহী বোর্ডের সভায় ইরানবিরোধী প্রস্তাব উত্থাপন থেকে বিরত থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ব্রিটেন, জার্মানি ও ফ্রান্স। তিন ইউরোপীয় দেশের এই সিদ্ধান্তের ফলে ইরানের পরমাণু সমঝোতা নিয়ে চলমান অচলাবস্থা অবসানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।

আরও পড়ুন:


মিয়ানমারে গণতন্ত্র ফেরাতে নিরাপত্তা পরিষদকে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান

শেখ হাসিনা কমনওয়েলথের সেরা তিন নারী নেতার একজন

মঙ্গলগ্রহে যাওয়া যাবে এলন মাস্কের ৩৬ তলা বাড়ির সমান মহাকাশযানে

কাউকে ক্ষমতায় টিকিয়ে রাখতে নয়, লেখালেখি করি দেশের জন্য


মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন প্রশাসন বলছে, পরমাণু সমঝোতা থেকে সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বেরিয়ে যাওয়ার কারণে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে আমেরিকা একঘরে হয়ে পড়েছিল। সে অবস্থার অবসান ঘটানোর জন্য ওয়াশিংটন পরমাণু সমঝোতায় ফিরতে চায়। কিন্তু বাইডেন প্রশাসন আগে ইরানকে তার পরমাণু সমঝোতায় দেয়া প্রতিশ্রুতি পুরোপুরি বাস্তবায়নের আহ্বান জানাচ্ছে।

এদিকে তেহরান বলেছে, আমেরিকা পরমাণু সমঝোতা থেকে পুরোপুরি বেরিয়ে যাওয়ার এক বছর পর থেকে ইরান তার প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের পরিমাণ কমাতে শুরু করেছে। কাজেই ফিরে আসার ক্ষেত্রেও আমেরিকাকে অগ্রগামী হতে হবে। মার্কিন সরকার এ সমঝোতায় ফিরে এসে তেহরানের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করলে ইরানও কয়েক দিনের মধ্যে তার প্রতিশ্রুতিতে পুরোপুরি ফিরে যাবে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মিয়ানমারে গণতন্ত্র ফেরাতে নিরাপত্তা পরিষদকে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান

অনলাইন ডেস্ক

মিয়ানমারে গণতন্ত্র ফেরাতে নিরাপত্তা পরিষদকে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান

মিয়ানমারে সেনা শাসনের চলমান সংকট নিরসন করে জনগণের শাসন প্রতিষ্ঠার জন্য দ্রুত ব্যবস্থা নিতে নিরাপত্তা পরিষদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন মিয়ানমার বিষয়ক জাতিসংঘের বিশেষ দূত ক্রিস্টাইন বারজেনার। মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর হাতে বেশ কিছু বিক্ষোভকারী নিহত হওয়ার পর এই আহ্বান জানান তিনি।

ক্রিস্টাইন রারজেনার স্পষ্ট করে বলেছেন, মিয়ানমারের পরিস্থিতি মানবিক সংকটের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে, দ্রুত এ অবস্থা ঠেকানো দরকার। গতকাল জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের রুদ্ধদ্বার বৈঠকে বারজেনার আরো বলেন, মিয়ানমার বিষয়ে আগের যে কোনো সময়ের চেয়ে এখন ঐক্য প্রতিষ্ঠা বেশি জরুরি।

জাতিসংঘের এ বিশেষ দূত বলেন, “আমি প্রতিদিন অন্তত ২,০০০ বার্তা পাচ্ছি যাতে মিয়ানমার বিষয়ে যথাযথ পদক্ষেপ নেয়ার জন্য দেশটির নারী, পুরুষ, শিক্ষার্থী নির্বিশেষে সমাজের সাধারণ মানুষ মিয়ানমার বিষয়ে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছে এবং তারা এই আস্থা রাখছে যে, জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ মিয়ানমার বিষয়ে কিছু করবে।”

আরও পড়ুন:


শেখ হাসিনা কমনওয়েলথের সেরা তিন নারী নেতার একজন

মঙ্গলগ্রহে যাওয়া যাবে এলন মাস্কের ৩৬ তলা বাড়ির সমান মহাকাশযানে

কাউকে ক্ষমতায় টিকিয়ে রাখতে নয়, লেখালেখি করি দেশের জন্য

সৌদির কিং খালিদ বিমানঘাঁটিতে ২৪ ঘন্টায় ৩ বার ড্রোন হামলা ইয়েমেনের


গত ১ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্রেসির নেত্রী অং সাং সুচি-সহ বহু রাজনৈতিক নেতা ও মন্ত্রীকে আটক করে এবং সেনাপ্রধান মিন অং হ্লাইং রাষ্ট্রক্ষমতা গ্রহণ করেন। মিয়ানমারের সাধারণ জনগণ সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে রাজপথে নেমেছে এবং এ পর্যন্ত বহু মানুষ নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে নিহত হয়েছে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর