সবজি রপ্তানিতে নীরব বিপ্লব ঘটিয়েছে বাংলাদেশ

বাবু কামরুজ্জামান

সবজি রপ্তানিতে নীরব বিপ্লব ঘটিয়েছে বাংলাদেশ

সবজি রপ্তানিতে নীরব বিপ্লব ঘটিয়েছে বাংলাদেশ। এক দশকের ব্যবধানে এ খাতে রপ্তানি আয় বেড়েছে প্রায় চার গুণ। করোনার ধাক্কায় কিছুটা বাঁধা পড়লেও সবজি রপ্তানিতে ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে বলে মত ব্যবসায়ী ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের। সংস্থাটির হিসাবে দেশে এখন ৬০ ধরনের ও ২০০টি জাতের সবজি উৎপাদন হচ্ছে। যার ৯০ শতাংশ বীজই দেশে উৎপাদিত হচ্ছে।

একসময় টমেটো, শিম, কিংবা কপির মতো সবজি পেতে শীতকালের জন্য অপেক্ষা করতে হতো। তবে এখন সময় পাল্টেছে। বছরজুড়ে ২০ থেকে ২৫ জাতের সবজি বাণিজ্যিকভাবে চাষ করছেন কৃষকরা। ফলে সারা বছরই দেখা মিলে নানা ধরণের সবজি।

চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরে সারাদেশে ৯ লাখ ২১ হাজার হেক্টর জমিতে শীত ও গ্রীষ্মকালীন সবজি চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। সংস্থাটি আশা করছে, করোনার মধ্যেও এবার এক কোটি ৯৭ লাখ টন সবজি উৎপাদন হবে। অধিদপ্তরের কর্মকর্তা ও ব্যবসায়ীরা বলছেন, গত ১৫ বছরে দেশে নীরব বিপ্লব ঘটেছে সবজি চাষাবাদে।


যে তাসবিহ পাঠ করলে অধিক নেকি লাভ ও গোনাহ মাফ হয়

কাজী হায়াতের ছবির সেই পাগলী এখন কোথায়?

‘আমেরিকা-ইসরাইল কৌশলগত অচলাবস্থার সম্মুখীন হয়েছে’

ট্রাম্পের শয্যাসঙ্গী হওয়া ছিল সবচেয়ে বিরক্তিকর, দাবি পর্নতারকার


জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা এফএও-র প্রতিবেদন অনুযায়ী, সবজি উৎপাদনের হার বৃদ্ধিতে বাংলাদেশের অবস্থান বিশ্বে তৃতীয়। উৎপাদনের পাশাপাশি সবজি রপ্তানিও বাড়ছে প্রতিবছর। মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, মধ্যপ্রাচ্য ও ইউরোপসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে রপ্তানি হচ্ছে বাংলাদেশের সবজি।

হিসাব বলছে, গত অর্থবছরে ১৬ কোটি ৪০ লাখ ডলারের সবজি রপ্তানি হয় বাংলাদেশ থেকে। এর আগের অর্থবছরে যা ছিল ৯ কোটি ৯৭ লাখ ডলার। আর এক দশক আগেও এই রপ্তানি ছিল চার কোটি ৬৮ লাখ  ডলার। অর্থাৎ এক দশকের ব্যবধানে রপ্তানি আয় বেড়েছে প্রায় ৪ গুণ।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্যমতে, দেশে বর্তমানে পৌনে দুই কোটি কৃষক পরিবার রয়েছে। যাদের সবাই কমবেশি বাড়ির উঠোন বা খালি জায়গায় সবজি চাষাবাদ করছেন।

news24bd.tv আয়শা

 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ফেলে দেয়া বর্জ্য থেকে এবার উৎপাদিত হবে বিদ্যুৎ

তৌফিক মাহমুদ মুন্না

বাসা-বাড়ির ফেলে দেয়া বর্জ্য থেকে এবার উৎপাদিত হবে বিদ্যুৎ।  দুই এক মাসের মধ্যেই বিদ্যুৎ উৎপাদনের কাজ শুরু হবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম। 

তিনি বলছেন প্রথমে সিটি কর্পোরেশন এ প্রকল্পে যুক্ত হবে পরে সকল পৌরসভা। তবে নগরবাসীকে সম্পৃক্ত করে প্রকল্প বাস্তবায়নের দাবি নগর পরিকল্পনাবিদদের। 

ঢাকার দুই সিটিতে গড়ে প্রতিদিন ৬ থেকে সাড়ে ৬ হাজার টন বর্জ্য সংগৃহীত হয়।  দেশের অন্যান্য সিটি কর্পোরেশন ও পৌরসভায় সংগৃহীত বর্জোর পরিমাণ লক্ষাধিক টন। এতদিন এই বর্জ্য রাখা হতো কর্পোরেশনের নিজস্ব ভাগাড়ে।

এই বিপুল পরিমাণ বর্জ্যকে এবার সম্পদে রুপ দিতে যাচ্ছে সরকার। স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ের এবারের প্রকল্প বর্জ্য থেকে বিদ্যুত উৎপাদন।

এরই মধ্যে বিদ্যুৎ উৎপাদন কোম্পনী চূড়ান্ত করেছে সরকার। জমি অধিগ্রহণ শেষ হলে মাস দুয়েকের মধ্যে আনুষ্ঠানিক কাজ শুরু হবে।


পুলিশকে কেন প্রতিপক্ষ বানানো হয়, প্রশ্ন আইজিপির

আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

বিমা খাতে সচেতনতা সৃষ্টির ক্ষেত্রে আরও প্রচার প্রয়োজন: প্রধানমন্ত্রী

পোশাক খাতে ভিয়েতনামকে পেছনে ফেললো বাংলাদেশ


এদিকে নগর পরিকল্পনাবিদ ইকবান হাবি্ব সরকারের এই পরিকল্পনাকে স্বাগত জানিয়ে উৎস থেকে বর্জ্যকে পৃথক করার পদ্ধতি আরো আধূনিক করার উপর গুরুত্বারোপ করেন। বর্জ্য্ থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রকল্পে জনগনকে সম্পৃক্ত এবং সচেতন করে এ প্রকল্প বাস্তবায়নের দাবি এই নগর পরিকল্পনাবিদের।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

উত্তরা থেকে আগারগাঁও অংশে বসলো মেট্রোরেলের শেষ গার্ডার

প্লাবন রহমান

স্বপ্ন পূরণে আরো একধাপ এগুলো ঢাকার মেট্রোরেল । উত্তরা থেকে আগারগাঁও পযর্ন্ত অংশে বসলো শেষ গার্ডার। যার মাধ্যমে দৃশ্যমাণ হলো প্রায় ১২ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট। মেট্রোরেল প্রকল্পের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলছেন- আসছে ডিসেম্বরে চালুর লক্ষ্য নিয়ে এগুচ্ছে মেট্রোরেলের কাজ। তবে-উদ্বোধন আসলেই কবে হবে, চূড়ান্তভাবে ঠিক হবে মে মাসে ট্রায়াল রান শুরুর পর।

দ্রুত এগুচ্ছে মেট্রোরেলের কাজ। রাজধানীর আগারগাঁওয়ে মেট্রোরেলের এই গার্ডার বসানোর মধ্য দিয়ে পুরোপুরি যুক্ত হলো উত্তরা থেকে আগারগাঁও অংশ। আর এর মধ্য দিয়ে দৃশ্যমান হলো এই অংশের প্রায় ১২ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট।

রোববার সকাল ১১টার দিকে এই অংশের শেষ গার্ডার স্থাপন করা হয়। মেট্রোরেলের উত্তরা থেকে আগারগাও অংশে মোট স্প্যান ৪৬৭টি। যেখানে ডাবল লাইনসহ ১১ দশমিক সাত তিন কিলোমিটার অ্যালাইনমেন্টে ভায়াডাক্ট তৈরি হয়েছে প্রায় সাড়ে ১৪ কিলোমিটার।


গুলি ছুড়ে ইয়েমেনের ক্ষেপণাস্ত্র আকাশেই ধ্বংস করেছে সৌদি

জানা গেল আসল রহস্য, ১৩-১৪ বছরের দুই বোনের সঙ্গেই শরীরিক মেলামেশা ছিল তার

আবাহনীকে ৪-১ গোলে উড়িয়ে দিল বসুন্ধরা কিংস

৬৬ নারীকে ধর্ষণ


উত্তরা থেকে আগারগাঁও অংশে মোট স্টেশন হচ্ছে ৯টি। যার মধ্যে উত্তরায় যে তিনটি স্টেশনকে ঘিরে মেট্রোরেলের ট্রায়াল রান হবে-সেগুলোর কাজ বেশি এগিয়ে। চলতি বছরেই বিজয় দিবসে উদ্বোধনের লক্ষ্য নিয়ে এগুচ্ছে প্রকল্পের কাজ। যাতে আশাবাদী কর্তৃপক্ষ।

আসছে ডিসেম্বরে মেট্রোরেল চালুর ব্যাপারে কর্তৃপক্ষ আশাবাদী হলেও-এখনও অনেক কাজই বাকী। উত্তরা থেকে আগারগাও পযর্ন্ত কাজ বাকী ১৯ ভাগ। আর পুরো উত্তরা থেকে মতিঝিল অংশের কাজ বাকী ৪০ ভাগেরও বেশি। তবে-লক্ষ্য পূরণে দিন-রাত তিন শিফটে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে মেট্রো কর্তৃপক্ষ।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

স্বপ্ন পূরণে আরো একধাপ এগোলো ঢাকার মেট্রোরেল

নিজস্ব প্রতিবেদক

স্বপ্ন পূরণে আরো একধাপ এগোলো ঢাকার মেট্রোরেল। উত্তরা থেকে আগারগাঁও পযর্ন্ত অংশে বসলো শেষ গার্ডার। যার মাধ্যমে দৃশ্যমান হলো প্রায় ১২ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট। 

মেট্রোরেল প্রকল্পের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলছেন-আসছে ডিসেম্বরে চালুর লক্ষ্য নিয়ে এগুচ্ছে মেট্রোরেলের কাজ। তবে-উদ্বোধন আসলেই কবে হবে, চূড়ান্তভাবে ঠিক হবে মে মাসে ট্রায়াল রান শুরুর পর। 

দ্রুত এগুচ্ছে মেট্রোরেলের কাজ। রাজধানীর আগারগাঁওয়ে মেট্রোরেলের এই গার্ডার বসানোর মধ্য দিয়ে পুরোপুরি যুক্ত হলো উত্তরা থেকে আগারগাঁও অংশ। আর এর মধ্য দিয়ে দৃশ্যমান হলো এই অংশের প্রায় ১২ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট।

আজ সকাল ১১টার দিকে এই অংশের শেষ গার্ডার স্থাপন করা হয়। মেট্রোরেলের উত্তরা থেকে আগারগাও অংশে মোট স্প্যান ৪৬৭টি। যেখানে ডাবল লাইনসহ ১১ দশমিক সাত তিন কিলোমিটার অ্যালাইনমেন্টে ভায়াডাক্ট তৈরি হয়েছে প্রায় সাড়ে ১৪ কিলোমিটার।


জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটক আটকে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

শিক্ষা জাতির উন্নয়নের মূল চাবিকাঠি: প্রধানমন্ত্রী

অসুস্থ মাকে বাঁচাতে ক্রিকেটে ফিরতে চান শাহাদাত

প্রেমিকের আশ্বাসে স্বামীকে তালাক, বিয়ের দাবিতে অনশন!


উত্তরা থেকে আগারগাঁও অংশে মোট স্টেশন হচ্ছে ৯টি। যার মধ্যে উত্তরায় যে তিনটি স্টেশনকে ঘিরে মেট্রোরেলের ট্রায়াল রান হবে-সেগুলোর কাজ বেশি এগিয়ে। চলতি বছরেই বিজয় দিবসে উদ্বোধনের লক্ষ্য নিয়ে এগুচ্ছে প্রকল্পের কাজ। যাতে আশাবাদী কর্তৃপক্ষ।

আসছে ডিসেম্বরে মেট্রোরেল চালুর ব্যাপারে কর্তৃপক্ষ আশাবাদী হলেও-এখনও অনেক কাজই বাকী। উত্তরা থেকে আগারগাও পযর্ন্ত কাজ বাকী ১৯ ভাগ। আর পুরো উত্তরা থেকে মতিঝিল অংশের কাজ বাকী ৪০ ভাগেরও বেশি। তবে-লক্ষ্য পূরনে দিন-রাত তিন শিফটে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে মেট্রো কর্তৃপক্ষ। 

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

দিনাজপুরের লিচু বাগানগুলোয় বেশ ভালো পরিমাণে মুকুল এসেছে

নিজস্ব প্রতিবেদক

বেশ ভালো পরিমাণে মুকুল এসেছে দিনাজপুরের লিচু বাগানগুলোয়। এরইমধ্যে গাছের বাড়তি যত্ন শুরু করেছেন বাগানীরা। এবার বড় প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে ভালো ফলনের আশা করছেন তারা। 

কৃষি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ফলন বাড়াতে চাষিদের আধুনিক পরিচর্যার বিষয়ে পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। 

দেশে লিচুর চাহিদার একটি বড় অংশ পূরণ করে দিনাজপুর। প্রতি বছর প্রায় ২৫ হাজার মেট্রিক টন লিচু উৎপাদন হয় এখানে। এবার শীত শেষ হতে না হতেই মুকুল এসেছে গাছগুলোয়। এই অবস্থায় বেশ খুশি চাষিরা। প্রাকৃতিক দুর্যোগ হানা না দিলে বড় লাভের আশা করছেন তারা।

এখন গাছের পরিচর্যায় ব্যস্ত বাগানীরা। ভালো ফলনের আশায় পানি সেচ, কীটনাশক এবং সার প্রয়োগে মনযোগ তাদের।


জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটক আটকে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

শিক্ষা জাতির উন্নয়নের মূল চাবিকাঠি: প্রধানমন্ত্রী

অসুস্থ মাকে বাঁচাতে ক্রিকেটে ফিরতে চান শাহাদাত

প্রেমিকের আশ্বাসে স্বামীকে তালাক, বিয়ের দাবিতে অনশন!


কৃষি কর্মকর্তারা বলছেন এবার কিছুটা আগেই মুকুল এসেছে। এগুলো পরিচর্যায় পরামর্শ দেয়া হচ্ছে কৃষকদের।

দিনাজপুর জেলায় প্রায় সাড়ে ৫ হাজার হেক্টর জমিতে লিচুর বাগান রয়েছে। সবচেয়ে বেশি বাগান আছে সদর ও বিরল উপজেলায়।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

দর্শনার্থী টানছে সূর্যমুখীর আভা

নিজস্ব প্রতিবেদক

হলুদ রংয়ের হাজারো ফুল মুখ করে আছে সূর্যের দিকে। বসন্তে ফসলের ক্ষেতের এমন দৃশ্য টানছে সৌন্দর্য পিপাসুদেরও। এমন দৃশ্য চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে কৃষিগবেষণা কেন্দ্রের বারি-তিন সূর্যমুখী প্রকল্পে। 

চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার পশ্চিম দেওয়ানপুর আঞ্চলিক কৃষি গবেষণা কেন্দ্র এলাকায় সড়কের পাশে ১ একরের বেশি জমিতে সূর্যমুখী ফুলের চাষ করা হয়েছে। সূর্যমুখীর হলুদ আভায় ছেয়ে গেছে পুরো এলাকা। বিস্তীর্ণ মাঠজুড়ে সেই নজরকাড়া দৃশ্য দেখতে বিভিন্ন এলাকা থেকে ছুটে আসছেন মানুষ।


কারওয়ান বাজারের হাসিনা মার্কেটের আগুন নিয়ন্ত্রণে

দিনেদুপুরে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষণ

মৌমিতাকে ধর্ষণের আলামত মেলেনি: ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক

দেখে মনে হয়েছে বিসিএস-এর প্রশ্নপত্রের করোনা হয়েছে


সূর্যমুখীর তেল কোলেস্টেরলমুক্ত, ভিটামিন ‘ই’, ভিটামিন ‘কে’ ও মিনারেল সমৃদ্ধ। হৃদরোগ, ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ ও কিডনি রোগীর জন্যও সূর্যমুখীর তেল নিরাপদ। আর চাষও লাভজনক।

বারি তিন খাটো জাতের সূর্যমুখী, এর কান্ডও বেশ শক্ত,ফলে ঝড় ঝঞ্ঝায় ক্ষতি কম হয়।তাই এটিকে চট্টগাম অঞ্চলে চাষউপযোগী হিসেবে শণাক্ত করেছেন কৃষিবিজ্ঞানীরা।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর