মার্কিন ঘাঁটিতে আঘাত হানা ক্ষেপণাস্ত্র প্রদর্শন ইরানের
মার্কিন ঘাঁটিতে আঘাত হানা ক্ষেপণাস্ত্র প্রদর্শন ইরানের

মার্কিন ঘাঁটিতে আঘাত হানা ক্ষেপণাস্ত্র প্রদর্শন ইরানের

অনলাইন ডেস্ক

ইরানের ইসলামী বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি'র অ্যারোস্পেস ফোর্সের তিনটি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র গতকাল বুধবার রাজধানী তেহরানের আজাদি স্কয়ারে প্রদর্শন করা হয়েছে।

এই স্কয়ারের পাশ দিয়ে যখন ইসলামী বিপ্লব বিজয়ের ৪২তম বার্ষিকীর শোভাযাত্রা চলছিল তখন সেখানে এসব ক্ষেপণাস্ত্র ইরানের প্রতিরক্ষা শক্তির প্রতীক হিসেবে শোভা পাচ্ছিল।

‘‌জুলফিকার বাসির’, ‌‘‌দেজফুল’ ও ‘কিয়াম’ মডেলের একটি করে ক্ষেপণাস্ত্র সেখানে রাখা হয়। তিনটি ক্ষেপণাস্ত্রই ইরানের গুরুত্বপূর্ণ ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র হিসেবে বিবেচিত।

আরও পড়ুন:


পারস্য উপসাগরের কিশ দ্বীপে নৌযান মহড়া

সূরা তাওবায় কেন ‘বিসমিল্লাহ’ নেই, কি বিষয়ে সূরাটি নাযিল

সৌদিতে কারখানায় আগুন, ৬ বাংলাদেশি নিহত

৬ জাতি সমঝোতা বাস্তবায়ন না করলে ইরান প্রতিশ্রুতিতে ফিরবে না: রুহানি


ভূমি থেকে ভূমিতে নিক্ষেপযোগ্য দেজফুল ক্ষেপণাস্ত্রটির পাল্লা এক হাজার কিলোমিটার। ‘জুলফিকার বাসির’ এর পাল্লা হচ্ছে ৭০০ কিলোমিটার। এতে রয়েছে অপটিক্যাল ডিভাইস যা দিয়ে সাগরে ভাসমান যানকে সহজে আঘাতে হানতে পারে।

এছাড়া ‘কিয়াম’ ক্ষেপণাস্ত্রের পাল্লা হচ্ছে ৮০০ কিলোমিটার। ছোড়ার পরও এটিকে নিয়ন্ত্রণ করা যায়। ইরানের কুদস ফোর্সের সাবেক প্রধান কাসেম সোলাইমানি শহীদ হওয়ার পর ইরাকে মার্কিন ঘাঁটিতে হামলায় এই ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার করা হয়েছিল।

news24bd.tv আহমেদ