ধাতব ইউরেনিয়াম উৎপাদনের কাজ শুরু করেছে ইরান

অনলাইন ডেস্ক

ধাতব ইউরেনিয়াম উৎপাদনের কাজ শুরু করেছে ইরান

আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস্থা বা আইএইএ খবর দিয়েছে ইরানের মধ্যাঞ্চলীয় ইস্পাহানের পরমাণু স্থাপনায় ধাতব ইউরেনিয়াম উৎপাদনের কাজ শুরু করা হয়েছে। সংস্থাটি এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, তেহরানের গবেষণা চুল্লির জ্বালানীর প্রয়োজন মেটানোর জন্য ইরান ধাতব ইউরেনিয়াম উৎপাদনের কাজ শুরু করেছে। আইএইএ’র মহাসচিব রাফায়েল গ্রোসি এ তথ্য সংস্থার সদস্য দেশগুলোকে জানিয়েছেন বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

গ্রোসি বলেছেন, গত ৮ ফেব্রুয়ারি তার সংস্থা এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছে যে, ইরানের ইস্পাহান পরমাণু স্থাপনায় ৩.৬ গ্রাম ধাতব ইউরেনিয়াম তৈরি করা হয়েছে।

এর আগে আইএইএ’তে নিযুক্ত ইরানের স্থায়ী প্রতিনিধি  কাজেম গরিবাবাদি বুধবার জানিয়েছিলেন, তেহরানের গবেষণা চুল্লির জন্য উন্নত জ্বালানী উৎপাদনের প্রাথমিক কাজ শুরু হয়েছে। তিনি বলেন, তিন ধাপের এ কাজের প্রথম ধাপে প্রাকৃতিক ইউরেনিয়ামকে ধাতব ইউরেনিয়ামের রূপান্তর করা হবে। তিনি বলেন, এ কাজ করতে সক্ষম হলে নয়া পরমাণু জ্বালানী উৎপাদনকারী দেশগুলোর কাতারে শামিল হবে তার দেশ।

গরিবাবাদি বলেন, গোটা বিষয়টিকে আগেভাগে আইএইএ’কে জানিয়ে দেয়া হয়েছে এবং তাদের পরিদর্শকদের উপস্থিতিতে এ কাজ সম্পন্ন করা হবে।

আরও পড়ুন:


টানা পঞ্চম বারের মতো সেরা করদাতার পুরস্কার জিতল ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ

৫ বছর ধরে পরকীয়া, যে কারণে প্রেমিক ৫ খণ্ড

যে কারণে ইসলাম ছেড়ে ইহুদি ধর্মে কুয়েতের নারী কণ্ঠশিল্পী (ভিডিও)

বীর উত্তম, বীরশ্রেষ্ঠ, বীর বিক্রম, বীর প্রতীক কি মামাবাড়ির আবদার

২০১৫ সালে ছয় জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতার ভিত্তিতে ইরান সর্বোচ্চ সাড়ে ৩ মাত্রায় ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করতে সম্মত হয় এবং তেহরানকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের প্রতিশ্রুতি দেয় পশ্চিমা দেশগুলো। ওই সমঝোতা সই করার আগ পর্যন্ত ইরান তার তেহরান চুল্লির জন্য ২০ মাত্রায় ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করে আসছিল। সমঝোতায় পশ্চিমারা তেহরান চুল্লির জন্য ২০ মাত্রায় সমৃদ্ধ ইউরেনিয়াম ইরানের বাইরে থেকে সরবরাহ করার প্রতিশ্রুতি দেয়।

কিন্তু ২০১৮ সালে আমেরিকা এই সমঝোতা থেকে বেরিয়ে গিয়ে তেহরানের ওপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার পর তেহরান চুল্লির জন্য জ্বালানী আসা বন্ধ হয়ে যায়। এর পরিপ্রেক্ষিতে তেহরানও ধীরে ধীরে ওই সমঝোতায় দেয়া প্রতিশ্রুতি থেকে বেরিয়ে আসতে শুরু করে এবং সম্প্রতি নিজের গবেষণা চুল্লির জন্য ২০ মাত্রায় ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করতে শুরু করে। এবার ওই চুল্লির জন্য সর্বাধুনিক জ্বালানী উৎপাদনের খবর প্রকাশিত হলো। সূত্র: পার্সটুডে।

news24bd.tv আহমেদ

পরবর্তী খবর

রাশিয়ার আক্রমণে পালিয়েছে ব্রিটিশ যুদ্ধ জাহাজ, বেড়েছে উত্তেজনা

অনলাইন ডেস্ক

রাশিয়ার আক্রমণে পালিয়েছে ব্রিটিশ যুদ্ধ জাহাজ, বেড়েছে উত্তেজনা

রাশিয়ার পানিসীমায় ঢুকে পড়ায় রুশ জঙ্গিবিমানের বোমাবর্ষণ ও যুদ্ধজাহাজের সতর্কতামূলক গুলির পর রুশ পানিসীমা থেকে পালিয়েছে ব্রিটিশ যুদ্ধজাহাজ। রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বলেছে, ব্রিটিশ ‘এইচএমএস ডিফেন্ডার’ জাহাজটি ক্রিমিয়ার কাছকাছি রুশ পানিসীমায় প্রবেশ করার পর সতর্কতামূলক গুলি ও বোমা ছোড়া হয়। তবে রুশ পানিসীমা লঙ্ঘনের অভিযোগ নাকচ করেছে ব্রিটেন। 

রাশিয়া বলেছে, গতকাল বুধবার কৃষ্ণ সাগরে তাদের পানিসীমায় ব্রিটিশ যুদ্ধ জাহাজের অবস্থান শনাক্ত করার পর কয়েক দফা ফাঁকা গুলি ছুড়ে সতর্কবার্তা দেয় সেখানে টহলে থাকা রুশ জাহাজ। কিছুক্ষণের মধ্যে যুক্ত হয় মস্কোর যুদ্ধ বিমান। যুদ্ধবিমান থেকে বোমাও ফেলা হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দু’দেশের মধ্যে উত্তপ্ত পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে।

আরও পড়ুন


অবশেষে নকআউট নিশ্চিত করল জার্মানি

রোনালদোর বিশ্ব রেকর্ড, নকআউট পর্বে পর্তুগাল

ফরজ নামাজের পর যে আমল জান্নাতের পথ সুগম করবে

সূরা ইয়াসিন: আয়াত ৩৬-৪৪, সৃষ্টিজগতের অন্যতম মৌলিক বিধান


সতর্কতামূলক গুলি ও বোমার পরে এইচএমএস ডিফেন্ডার গতিপথ পরিবর্তন করে ওই পানিসীমা ত্যাগ করেছে বলে জানায় মস্কো। খবরে বলা হয়েছে, ক্রিমিয়ার দক্ষিণে কেপ ফায়োলেন্টের কাছে ঘটনাটি ঘটে। একটি টহল জাহাজ দু'বার গুলি চালায় এবং এসইউ ২৪-এম জেটটি সেখানে চারটি বোমা ফেলে।

ইন্টারফেক্স নিউজ এজেন্সি জানিয়েছে,পানিসীমা লঙ্ঘনের প্রতিবাদ জানাতে ব্রিটিশ দূতাবাসের প্রতিরক্ষা বিষয়ক কর্মকর্তাকে তলব করেছে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। সূত্র: পার্সটুডে।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

পানির নিচে ১৯২৬ সালের চিঠি!

অনলাইন ডেস্ক

পানির নিচে ১৯২৬ সালের চিঠি!

পানির নিচ থেকে পাওয়া এক বোতলে ১৯২৬ সালে লেখা এক চিঠি পেয়ে  বিস্মিত হয়েছেন  প্রমোদতরীর কাপ্টেন জেনিফার ডোকার। জেনিফার যুক্তরাষ্ট্রের মিশিগানের এক প্রমোদতরীর কাপ্টেন। পুরো গরমকাল জুড়ে তিনি চেবোগান নদীতে পর্যটক নিয়ে এতো ঘোরাঘুরি করেন যে সেখানকার পানির নিচ অবধি তার চেনা! 

গত শুক্রবার জেনিফার তার জাহাজের তলার দিককার জানালা পরিষ্কার করছিলেন। এসময় তার পানির নিচে পড়ে থাকা একটি বোতল চোখে পড়ে। পুরোনো আমলের সবুজ রংয়ের বোতলটি তার নজর কাড়ে। প্রায় ১০ ফুট পানির নিচে বোতলটি পড়ে ছিল বলে জানান তিনি।

মুখ ছিপি দিয়ে আটকানো থাকলেও বোতলটিতে ফাটল থাকায় দুই-তৃতীয়াংশ পানিতে ভর্তি ছিল। তারপরও জেনিফার বোতলে মধ্যে থাকা কাগজটা বের করে লেখা পড়তে সক্ষম হয়।

১৯২৬ সালের নভেম্বরে ওই চিঠি লেখা হয়েছিল। সেখানে লেখা ছিল : যদি কেউ এই কাগজটি পেয়ে থাকেন তাহলে মিশিগানের চেবোগানের বাসিন্দা জর্জ মোরের কাছে কাগজটি ফেরত দিয়ে বলবেন কোথায় এটা পাওয়া গেছে।

চেবোগান মিশিগানের একটা ছোট শহর। সেখানে বাস করে এমন কয়েকজন মোর পরিবারকে তিনি চেনেন। তাই তিনি তার কোম্পানির ফেসবুক পেজে বোতলের ছবি পোস্ট করেছিলেন।

জেনিফারের ওই পোস্ট অল্প সময়েই ভাইরাল হয়ে যায়।  অবশেষে জেনিফার ওই পোস্টের মাধ্যমেই খোঁজ পান জর্জ মোরের মেয়ে মিশেল প্রিমাউয়ের।

৭৫ বছর বয়সী মিশেল জানান, তার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট নেই। তবে সম্পূর্ণ অচেনা এক ব্যক্তি জেনিফারের পোস্ট দেখে চিঠির আসল মালিককে খুঁজে বের করার সিদ্ধান্ত নেন। 

মিশেলের বাবা জর্জ নিজের জন্মদিনে ওই চিঠি লিখে মিশিগান থেকেই তা নদীতে ফেলে দেয়। মিশেল ওই চিঠির ছবি দেখেই বাবার হাতের লেখা চিনতে পেরেছেন। মিশেলের জন্মের প্রায় ২০ বছর আগে চিঠিটি লেখা হয়েছিল।

১৯৯৫ সালে জর্জ মারা গেছেন। এতোদিন পর বাবার লেখা দেখে ভীষণ আপ্লুত হয়ে যান মিশেল।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

ব্যস্ত বাজারে বিমান হামলা : নিহত ৮০ জনের বেশি

অনলাইন ডেস্ক

ব্যস্ত বাজারে বিমান হামলা : নিহত ৮০ জনের বেশি

ইথিওপিয়ায় একটি ব্যস্ত বাজারে বিমান হামলায় কয়েক ডজন বেসামরিক মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। মঙ্গলবার দেশটির উত্তরাঞ্চলীয় তাইগ্রে অঞ্চলের তোগোগা গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।

হামলায় ভুক্তভোগী এক নারী জানিয়েছেন, স্থানীয় সময় দুপুর ১টার দিকে বাজারের ওপর বোমা ফেলা হয়। এতে তার স্বামী ও দুই বছরের কন্যা আহত হয়েছে।

ওই নারী বলেন, আমরা প্লেন দেখিনি, তবে (শব্দ) শুনেছি। বিস্ফোরণ হলে সবাই ছুটে পালিয়েছিলাম। পরে ফিরে এসে আহতদের তোলার চেষ্টা করি।

স্থানীয় এক মেডিক্যাল কর্মকর্তা বিমান হামলায় অন্তত ৪৩ জনের প্রাণহানির কথা নিশ্চিত করেছেন।

তবে এক চিকিৎসক বার্তা সংস্থা এপি’কে বলেন, ঘটনাস্থলে থাকা চিকিৎসাকর্মীরা ’৮০ জনের বেশি’ বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যুর কথা জানিয়েছেন।

সূত্র: রয়টার্স

news24bd.tv/এমিজান্নাত 

পরবর্তী খবর

ভয়ংকর অপরাজেয় ক্লোন সেনা বানাচ্ছে রাশিয়া

অনলাইন ডেস্ক

ভয়ংকর  অপরাজেয় ক্লোন সেনা বানাচ্ছে রাশিয়া

‘ইউনিভার্সাল সোলজার’ সিনেমার সেনাবাহিনীর মতো এক ভয়ংকর ও দুর্ধর্ষ ক্লোন সেনা তৈরির পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে রাশিয়া। সেনাবাহিনীর এই দলকে হারানো প্রায় অসম্ভব। কল্পনার সেই অপরাজেয় বাহিনী তৈরি করতে যাচ্ছে রাশিয়া। অপ্রতিরোধ্য এ বাহিনী তৈরি করা হচ্ছে প্রায় তিন হাজার বছর আগের এক যাযাবর গোষ্ঠীর দুর্ধর্ষ যোদ্ধাদের হুবহু নকল তথা ক্লোন করে।

রাশিয়ার সেনাবাহিনী বিশ্বের বৃহত্তম ও শক্তিশারী সেনাবাহিনীর অন্যতম। আগামী দিনের যুদ্ধের কথা মাথায় রেখে নতুন নতুন কৌশল ও পরিকল্পনা করছে দেশটির নেতারা। সম্প্রতি দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন সেনাবাহিনীকে আরও উন্নত করে গড়ে তোলার নির্দেশ দিয়েছেন। 

ইতোমধ্যে পুরোদমে কাজও শুরু করেছেন রুশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই সোইগু। এক্ষেত্রে সের্গেই সোইগুর সর্বশেষ ও যুগান্তকরী আইডিয়া হচ্ছে, প্রাচীনকালের এক দুর্ধর্ষ সেনাবাহিনীর পুরোটাই ক্লোন করে ফেলা। 

গত মাসেই রাশিয়ান জিওগ্রাফিক্যাল সোসাইটির এক বৈঠকে প্রথমবারের মতো বিষয়টি খোলাশা করেন পুতিনের ঘনিষ্ট সহচর হিসাবে পরিচিত সোইগু।

বৈঠকে তিনি বলেন, তিন হাজার বছরের পুরানো যোদ্ধা জাতি ‘সিথিয়ান’দের মাধ্যমেই একেবারে নতুন দুর্ধর্ষ একটি সেনাবাহিনী গড়ে তোলা সম্ভব। সিথিয়ানরা ছিল মূলত যাযাবর। এদের আদি নিবাস ছিল আধুনিককালের ইরান। খ্রিষ্টপূর্ব নবম শতাব্দী থেকে খ্রিষ্টপূর্ব দ্বিতীয় শতাব্দী পর্যন্ত ইউরেশিয়া অঞ্চলে এসেছিল তারা।

গড়ে তুলেছিল শক্তিশালী সামাজ্য, যা পরবর্তী কয়েক শতাব্দী ধরে টিকে ছিল। মহাপরাক্রমশালী সেই সিথিয়ান সাম্রাজ্যের যোদ্ধাদের দেহাবশেষ দুই দশক আগে সাইবেরিয়ার তুবা অঞ্চলে আবিষ্কার করেছে প্রত্নতত্ত্ববিদরা।

জিওগ্রাফিক্যাল সোসাইটির একটি অনুষ্ঠানে সের্গেই জানান, ওই যোদ্ধাদের দেহাবশেষ থেকে এমন কিছু জৈব কোষের সন্ধান পাওয়া গেছে, যা তাদের ক্লোন বানানোর জন্য কাজে লাগানো যেতে পারে। কিন্তু মানুষের ক্লোন বানানো কি আসলেই সম্ভব। তা-ও আবার কবর খুঁড়ে বের করা হাজার হাজার বছরের পুরানো দেহাবশেষ থেকে? 

এ বিষয়ে বিজ্ঞানীরা বলছেন, সাইবেরিয়ার যে অঞ্চলে সিথিয়ানস সেনাদের দেহাবশেষ পাওয়া গেছে, সেখানে তাপমাত্রা অত্যন্ত কম। সারা বছরই সেখানকার মাটি ঠান্ডায় জমে থাকে। ফলে তিন হাজার বছরের পুরনো দেহ থেকেও কিছু জৈব অবশেষ পাওয়া সম্ভব যা ক্লোন তৈরির কাজে লাগতে পারে। 

তবে সমস্যা অন্য জায়গায়। মানুষের ক্লোন এখন পর্যন্ত তৈরিই করে উঠতে পারেননি বিজ্ঞানীরা। অন্তত প্রকাশ্যে তেমন দাবি করেননি কেউই। এক্ষেত্রে বেশ কিছু জটিলতাও রয়েছে।

বিজ্ঞানীরা জানান, সাধারণত ক্লোন তৈরির জন্য পুরনো কোষ থেকে নতুন কোষে নিউক্লিয়াস স্থানান্তর করার প্রয়োজন হয়। তার জন্য প্রথমে নতুন কোষের নিউক্লিয়াসটিকে সরাতে হয়। মানব কোষের দুটি অত্যন্ত প্রয়োজনীয় প্রোটিনকে অক্ষত রেখে সম্পূর্ণ করতে হয় এই প্রক্রিয়া। কিন্তু সমস্যা হলো-এই দুই প্রোটিন নিউক্লিয়াসের এত কাছে থাকে যে, তাদের ক্ষতি না করে নিউক্লিয়াসটিকে সরানো যায় না। 

এ সমস্যার কারণেই আজ পর্যন্ত মানুষের ক্লোন তৈরি করা যায়নি। এ ছাড়াও মানুষের ক্লোন বানানো আইনত বৈধ নয়। সের্গেইয়ের প্রস্তাবের কথা ছড়িয়ে পড়ার পর তাই তা বিস্মিত করেছে বিজ্ঞানীদের।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

আর যুক্তরাষ্ট্রকে ঘাঁটি করতে দেব না : ইমরান খান

অনলাইন ডেস্ক

আর যুক্তরাষ্ট্রকে ঘাঁটি করতে দেব না : ইমরান খান

আফগানিস্তানে সামরিক অভিযান চালানোর জন্য মার্কিন বাহিনীকে পাকিস্তানের ভূখণ্ড ব্যবহার করতে দেবে না বলে জানিয়েছে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তিনি বলেন, পাকিস্তানের ভেতরে যুক্তরাষ্ট্রকে সামরিক ঘাঁটি করতে দিয়ে পাকিস্তান সরকার আরেকবার ভুল করবে না।

দৈনিক ওয়াশিংটন পোস্টে লেখা এক খোলা কলামে এমন মন্তব্য করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। 

তিনি বলেন, আফগান যুদ্ধের কারণে তার দেশকে অনেক বেশি দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে। তবে অতীত ভুল থেকে অনেক কিছু শিখেছে ইসলামাবাদ।

ইমরান বলেন, আরও দ্বন্দ্ব-সংঘাত এড়ানোর জন্য পাকিস্তান থেকে যুক্তরাষ্ট্রের ঘাঁটি প্রত্যাহার করতে হবে। তবে আফগানিস্তানে শান্তি প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্রে সঙ্গী হতে প্রস্তুত রয়েছে পাকিস্তান।

আরও পড়ুন:


চলন্ত ট্রাকে তরুণীকে ধর্ষণ, অতঃপর যেভাবে উদ্ধার

দ্বিতীয় বিয়ের পর থেকেই অশান্তিতে ছিল আবু ত্ব-হা!

পরিবারের দাবি হত্যাকাণ্ড, দাফনের ১৫ দিন পর তরুণীর লাশ উত্তোল

তিনি জানান, আফগান যুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ নিয়ে পাকিস্তান অনেক বড় ভুল করেছে। তবে সেই অভিজ্ঞতা থেকে অনেক কিছু শিখেছে ইসলামাবাদ। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইতিহাস সাক্ষ্য দেয় আফগান জাতিকে বাইরের কেউ কখনও নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনি।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর